করোনাভাইরাসে মৃত্যু ১০ হাজার ছাড়াল

ঢাকা অফিস ॥ মহামারীর আকারে ছড়াতে থাকা নভেল করোনাভাইরাসে বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়ে গেছে বলে জানিয়েছে জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের হিসাবে বিশ্বের ১৬০টি দেশে ছড়িয়ে পড়া এ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় দেড় লাখে পৌঁছে গেছে। গত বছরের শেষ দিক থেকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও স্থানীয় বিভিন্ন উৎস থেকে পাওয়া তথ্য সমন্বয় করে নিয়মিতভাবে একটি টালি প্রকাশ করে আসছেন জনস হপকিন্সের গবেষকরা। করোনাভাইরাস মহামারী যেভাবে সবকিছু অচল করে ফেলেছে তাতে বিশ্ব একটি অর্থনৈতিক মন্দার দুয়ারে পৌঁছে গেছে বলে সতর্ক করে ধনী দেশগুলোকে সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য নিয়ে সমন্বিতভাবে উদ্ভাবনী কর্মপন্থা ঠিক করে কাজে নামার তাগিদ দিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। তিনি বলেছেন, “আমরা আজ এমন এক নজিরবিহীন পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছি, যখন সাধারণ কৌশল কোনো কাজে আসবে না।” উন্নত দেশগুলো এখন আফ্রিকা ও উন্নয়নশীল দেশগুলোর পাশে দাঁড়াতে না পারলে তা লাখ লাখ মানুষের মৃত্যুর মত ভয়াবহ পরিণতি ডেকে আনতে পারে বলে হুঁশিয়ার করেছেন তিনি। জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা মের্কেলও করোনাভাইরাস মহামারীকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর বিশ্বের জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছেন। চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে গত ডিসেম্বরের শেষে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ শনাক্ত করা হয়। ওই শহরের একটি সি ফুড মার্কেট থেকেই ভাইরাসটি প্রাণী থেকে মানুষের দেহে সংক্রমিত হয় বলে ধারণা করা হচ্ছে। নিউমোনিয়ার মত লক্ষণ নিয়ে নতুন এ রোগ ছড়াতে দেখে চীনা কর্তৃপক্ষ সে সময় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে সতর্ক করে। এরপর ১১ জানুয়ারি প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মারাত্মক আকার নিতে শুরু করায় এর বিস্তার ঠেকাতে জানুয়ারির শেষে উহান এবং এক পর্যায়ে প্রায় পুরো হুবেই প্রদেশ কার্যত অবরুদ্ধ করে ফেলা হয়। চীন থেকে বিভিন্ন দেশে ভাইরাস ছড়াতে থাকায় বৈশ্বিক জরুরি অবস্থা জারি করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। নানা কঠোর পদক্ষেপে চীন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এ পর্যন্ত সফলতা পেলেও নভেল করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বের ১৬০টির বেশে দেশে। মৃতের সংখ্যায় ইতোমধ্যে চীনকে ছাড়িয়ে গেছে ইতালি।

আরো খবর...