কবি আজিজুর রহমান’র ৪০তম প্রয়াণ দিবসে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল

দেশের আধুনিক বাংলা সাহিত্য ও সংস্কৃতির অন্যতম দিকপাল একুশে পদক প্রাপ্ত কুষ্টিয়ার গর্ব কবি ও গীতিকার আজিজুর রহমানের ( জন্ম: অক্টোবর ১৮, ১৯১৪, মৃত্যু: সেপ্টেম্বর -১২, ১৯৭৮) এর ৪০ তম প্রয়াণ  দিবস স্মরনে আলোচনা সভা, কবিতা আবৃত্তি ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বুধবার বিকেল ৪টায় বাংলাদেশ মানবাধিকার নাট্য পরিষদের আয়োজনে হাটশ হরিপুর শাখার নিজ কার্যালয়ে স্মরণ সভার আহ্বায়ক বাংলাদেশ মানবাধিকার নাট্য পরিষদ, হাটশ হরিপুর শাখার সভাপতি নায়েব আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হাটশ হরিপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান এম. মুস্তাক হোসেন মাসুদ। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন বজলার রহমান, বাংলাদেশ মানবাধিকার নাট্য পরিষদ, কুষ্টিযার সভাপতি এম. এ কাইয়ুম, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আনসার আলী, কবি পরিবারের সদস্য শাহফুজুর রহমান শাকিক প্রমুখ। এসময় কবির আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। আজ কবির মৃত্যু বার্ষিকিতে  তার জন্ম ভূমি হাটশ হরিপুরে নেই কোন আয়োজন । উল্লেখ্য কবির প্রায় ৩ হাজারের মত গান এক সময় ছিল মানুষের মুখে মুখে। তার জনপ্রিয় গানগুলোর মধ্যে – ভবের নাট্য শালায় মানুষ চেনা দায়, কারো মনে তুমি দিওনা আঘাত, সে আঘাত লাগে কাবার ঘরে; আকাশের ঐ মিটি মিটি তারার সাথে কইবো কথা নাই বা তুমি এলে; আমি রূপনগরের রাজকন্যা রূপের যাদু এনেছি, বুঝি না মন যে দোলে বাশির ও সুরে; পলাশ ঢাকা কোকিল ডাকা আমারই দেশ ভাইরে প্রভৃতি। কবি গীতিকার আজিজুর রহমান ১৯১৪ সালে ১৮ অক্টোবর কুষ্টিয়া সদর উপজেলার হাটশ হরিপুর গ্রামে জন্ম গ্রহন করেন। তার পিতার নাম বশির উদ্দিন প্রামানিক , মাতার নাম সবুরুন নেছা । ১৩ বছর বয়সে ১৯২৭ সালে তিনি পিতাকে হারান। উচ্চশিক্ষার  লাভের ভাগ্য না থাকলেও প্রবল ইচ্ছার ফলে বহু বিষয়ক পুস্তকাদি স্বগৃহে পাঠ করে তিনি স্বশিক্ষিত ব্যক্তিতে পরিণত হন।  তিনি একাধারে হাটশ হরিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, নদীয়া ফুড কমিটির সেক্রেটারি, বেঞ্চ  অ্যান্ড কোর্ট ডিভিশনের চেয়ারম্যান, কুষ্টিয়া জেলা বোর্ড ও ডিস্ট্রিক অ্যাডভাইজারি কমিটির সদস্যসের পদও অলঙ্কৃত করেছিলেন। ছাত্র থাকা অবস্থায় মুসলিম ছাত্র আন্দোলনেও ভূমিকা রেখেছেন প্রাদেশিক মুসলিম লীগের সদস্য মনোনীত হয়েছিলেন। ১৯৭৮ সালের ৯ সেপ্টেম্বর কবি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। সে সময় ঢাকার পিজি হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়। এর তিন দিন পর ১২ সেপ্টেম্বর শেষ নিঃশ^াস ত্যাগ করেন তিনি। ১৯৭৯ সালে কবি গীতিকার আজিজুর রহমান মরণোত্তর রাষ্ট্রীয় সম্মান ‘একুশে পদক’ লাভ করেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

আরো খবর...