এরশাদের মৃত্যুবার্ষিকীর জন্য উপনির্বাচন পেছাতে ফের ইসিতে জাপা

ঢাকা অফিস ॥ যশোর-৬ এবং বগুড়া-১ আসনে উপনির্বাচনের তারিখ পেছাতে ফের নির্বাচন কমিশনে গেছে সংসদের বিরোধীদল জাতীয় পার্টি। ১৪ জুলাই অনুষ্ঠেয় ওই নির্বাচন পেছানের জন্য এর আগেও ইসিতে গিয়েছিল দলটি। এ ছাড়া বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ মশিউর রহমান রাঙ্গা নির্বাচন পেছানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সহায়তা কামনা করেন সংসদে। ওইদিন এইচ এম এরশাদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী হওয়ায় এ নির্বাচন পেছানোর দাবি করছেন তারা। এজন্য গতকাল রোববার প্রধান নির্বাচন কমিশানার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদার সাক্ষাত করে একটি প্রতিনিধি দল। সাক্ষাত শেষে সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি সাংবাদিকদের বলেন, ‘হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুবার্ষিকীর কথা বিবেচনা করে সিইসির কাছে আমরা অনুরোধ করেছি যাতে নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তন করা হয়। কিন্তু মাননীয় নির্বাচন কমিশনার বলেছেন কোনোভাবেই সংবিধান লঙ্ঘন করা যাবে না। তবুও বিষয়টি আমরা ভেবে দেখবো বলে আশ্বাস দেন।’ তিনি আরও বলেন, এর আগে গত ৯ জুলাই সিইসি বরাবর একটি স্মারকলিপি দিয়েছিলাম কিন্তু তার কোনো উত্তর আমরা পাইনি।’ ওই দুই সংসদীয় আসনে ২৯ মার্চ নির্বাচন হওয়ার কথা থাকলেও করোনাভাইরাসের কারণে স্থগিত করা হয়। এখন সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা থেকে এ নির্বাচন করছে ইসি। ১৫ জুলাই বগুড়া-১ আসনের এবং ১৮ জুলাই যশোর-৬ আসনের নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য সংবিধান নির্ধারিত ১৮০ দিন শেষ হতে যাচ্ছে। তবে ওই নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেবে না বলে ঘোষণা দিয়েছে। এর আগে ইসি সচিব মো. আলমগীর জানান, ওই দুই আসনে নতুন করে কোনো মনোনয়নপত্র জমা বা দাখিলের প্রয়োজন নেই। যেসব প্রার্থী ছিলেন এবং যে অবস্থায় নির্বাচন স্থগিত হয়েছিল, সে অবস্থা থেকেই আবার কার্যক্রম শুরু হবে। সংবিধানের ১২৩ অনুচ্ছেদের ৪ দফায় বলা হয়েছে- ‘সংসদ ভাঙ্গিয়া যাওয়া ব্যতীত অন্য কোনো কারণে সংসদের কোনো সদস্যপদ শূন্য হইলে পদটি শূন্য হইবার নব্বই দিনের মধ্যে ওই শূন্যপদ পূর্ণ করিবার জন্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে। তবে শর্ত থাকে যে, যদি প্রধান নির্বাচন কমিশনারের মতে, কোনো দৈব-দুর্বিপাকের কারণে এই দফার নির্ধারিত মেয়াদের মধ্যে ওই নির্বাচন অনুষ্ঠান সম্ভব না হয়, তাহা হইলে ওই মেয়াদের শেষ দিনের পরবর্তী নব্বই দিনের মধ্যে ওই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে।’

আরো খবর...