এবার মায়াকুমারী চরিত্রে ঋতুপর্ণা

ঢাকা অফিস ॥ চল্লিশের দশকের দর্শকপ্রিয় অভিনেত্রী মায়াকুমারী। ডাকসাইটের এই নায়িকার প্রেমে পড়েছিলেন বিখ্যাত অভিনেতা-পরিচালক কানন কুমার। কিন্তু মায়াকুমারী তখন শীতল ভট্টাচার্যের স্ত্রী। আর এতেই তৈরি হয় যত জটিলতা। জানা যায়, মায়াকুমারী ও কাননকুমারের প্রেমের সম্পর্ক তৎকালীন সমাজ ভালোভাবে গ্রহণ করেনি। কোনো একটি সিনেমায় নায়কের সঙ্গে চুম্বনের দৃশ্যে অভিনয় ও খোলা পিঠের কারণে প্রিমিয়ারে নায়িকাকে থুতু ছিটিয়েছিলেন উপস্থিত দর্শক। মায়াকুমারী ও কানন কুমারের এই কাহিনি নিয়ে কলকাতার জনপ্রিয় নির্মাতা অরিন্দম শীল নির্মাণ করেছেন ‘মায়াকুমারী’ নামে চলচ্চিত্র। এতে মায়াকুমারীর চরিত্র রূপায়ন করেছেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। কাননকুমার ও তার নাতি আহিরের চরিত্রে অভিনয় করেছেন আবির চ্যাটার্জি। শীতল ভট্টাচার্যের চরিত্রে দেখা যাবে রজতাভ দত্তকে। অভিনয় ক্যারিয়ারে অনেক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন আবির। কিন্তু এই চলচ্চিত্রের মতো এতটা বেশ বদল কখনো করতে হয়নি তাকে। আর প্রতিটি লুকেই রয়েছে খানিক তারতম্য। মায়াকুমারীর লুকে ঋতুপর্ণা যথার্থ। কখনো খোলা পিঠে কাঁখে কলসী,  আবার কখনো বা সাবেকি গয়নায় অনবদ্য এই নায়িকা। চলচ্চিত্রটির মধ্যে আরো একটি চলচ্চিত্র, মিশে গেছে রিল আর রিয়েল লাইফ। তাই এত চরিত্র আর লুকের ঘনঘটা। এছাড়াও চলচ্চিত্রটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেনÑইন্দ্রাশিস রায়, ফলক রশিদ, অর্ণ মুখার্জি, সৌরসেনী প্রমুখ। আগামী অক্টোবরে কলকাতায় সিনেমা হল খোলার সম্ভাবনা রয়েছে। আর পূজা উপলক্ষে এটি মুক্তি পেতে পারে বলে ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে। চলচ্চিত্রটি প্রযোজনা করছেন নীল রতন দত্ত। মুক্তি প্রসঙ্গে তিনি বলেনÑহল খুললে যদি মানুষ হলমুখী হন তবে যত দ্রুত সম্ভব হলেই সিনেমাটি মুক্তি দেব। হাজার হোক, বড় পর্দার কথা মাথায় রেখেই চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করা হয়েছে।

আরো খবর...