ইরানের টার্গেটে ইসরাইল ও আরব আমিরাত

ঢাকা অফিস ॥ ইরাকে মার্কিন ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর এবার ইসরাইল ও সংযুক্ত আরব আমিরাতে হামলার হুমকি দিয়েছে ইরান। ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পরিপ্রেক্ষিতে মার্কিন বাহিনী যদি ইরানের বিরুদ্ধে কোনও প্রতিশোধমূলক হামলা চালায় তাহলে মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্রের ঘনিষ্ঠ মিত্র ওই দুই দেশে পাল্টা হামলা চালানো হবে বলে সতর্ক করেছে দেশটি। বুধবার ইরানের সেনাবাহিনীর বরাতে আল জাজিরার এক প্রতিবেদনে এ খবর জানা গেছে। যুক্তরাষ্ট্র যদি কোনো ধরণের হামলার পরিকল্পনা করে তাহলে লেবাননের হিজবুল্লাহ আন্দোলন ইসরাইলে আক্রমণ করবে বলে আগেই হুমকি দিয়েছিল। রয়টার্স জানিয়েছে, ইরাকের মার্কিন ঘাঁটিতে হামলার মাধ্যমে প্রতিশোধের প্রথম ধাপ শুরু করেছে ইরান। যুক্তরাষ্ট্রের অন্যান্য অঞ্চলও তেহরানের হামলার হুমকিতে রয়েছে। ইরানের সেনাবাহিনি আইআরজিসি-র টেলিগ্রাম চ্যানেলে সতর্ক করে বলা হয়েছে, ইরানের মাটিতে বোমা বর্ষণ করা হলে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই এবং ইসরাইলের হাইফায় হামলা চালাবে তেহরান। সেনাবাহিনীর অন্য একটি সূত্র জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র যদি বেশী বাড়াবাড়ি করে তাহলে সরাসরি তাদের মাটিতেই হামলার পরিকল্পনাও ইরানের রয়েছে। বিষয়টি নিয়ে তাদের টার্গেট ঠিক করা রয়েছে বলে জানিয়েছে সূত্রটি। বুধবার রাতে জেনারেল কাসেম সোলাইমানি হত্যার বদলা নিতে ইরাকের পশ্চিমাঞ্চলের ইরবিল ও আইন আল আসাদে দুটি মার্কিন সামরিক ঘাঁটিতে ডজনখানেক মিসাইল ছুঁড়ে তেহরান। মার্কিন সেনাঘাঁটিতে মিসাইল হামলায় ৮০ জন নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছে ইরান। ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আলী খোমেনি বলেছেন, ‘মিসাইল হামলা ছিল আমেরিকার সৈন্যদের জন্য একটি চপেটাঘাত’। তিনি এ অঞ্চল (মধ্যপ্রাচ্য) থেকে মার্কিন সেনাদের সরে যাওয়ার আহ্বান জানান। মার্কিন প্রতিরক্ষা সদর দফতর পেন্টাগন এ হামলার কথা স্বীকার করলেও কোনো প্রাণহানির কথা জানায়নি।

আরো খবর...