ইবি’র লোকপ্রশাসন বিভাগে পিঠা উৎসব অনুষ্ঠিত

ইসলামী বিশ^বিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন বিভাগের উদ্যোগে গতকাল রবিবার বসন্তের আগমনী বার্তায় শীতের বিদায়ী আমেজে পিঠা উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। লোকপ্রশাসন বিভাগের সভাপতি প্রফেসর ড. মোঃ জুলফিকার হোসেন এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী (ড. রাশিদ আসকারী) বলেন, বাংলাদেশের কোন বিশ^বিদ্যালয়ে এ ধরনের ব্যাপক আয়োজনে পিঠা উৎসব হয় না কিন্তু লোকপ্রশাসন বিভাগ আজ সেটা করে দেখিয়েছে এবং পিঠার প্রতি আমাদের ভালোবাসা আরো জাগিয়ে তুলেছে। এই অভূতপুর্ব আয়োজন আমাকে আনন্দিত করেছে, মুগ্ধ করেছে এবং সম্মানিত করেছে। তিনি বলেন, এই আয়োজন অন্য বিভাগের জন্য অনুকরণীয় হয়ে থাকবে। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রা-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান বলেন, অগ্নিঝরা মার্চে মুজিব শতবর্ষে লোকপ্রশাসন বিভাগের এই আয়োজন বাংলার পুরাতন ঐতিহ্যেকে তুলে ধরেছে পিঠা উৎসবের মাধ্যমে যা অবশ্যই প্রশংসার দাবী রাখে। অপর বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা বলেন, এই আয়োজন বিশ^বিদ্যালয়ের বিভিন্ন উন্নয়নমুলক কর্মকান্ডের মধ্যে লোকপ্রশাসনের বিভাগের আয়োজনে এই পিঠা উৎসব এক ভিন্নমাত্রার সৃষ্টি করেছে। পিঠা উৎসব অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রক্টর প্রফেসর ড. পরেশ চন্দ্র বর্ম্মণ, প্রফেসর ড. রাকিবা ইয়াসমীন, প্রফেসর ড. একেএম মতিনুর রহমান, প্রফেসর মোঃ গিয়াস উদ্দিন, প্রফেসর ড.মুন্সী মর্তুজা আলীসহ বিভাগের সকল স্তরের শিক্ষক কর্মকর্তা ও ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ। পিঠা উৎসব অনুষ্ঠানে গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী প্রায় শতাধিক রকমের পিঠার আয়োজন করা হয়। এর মধ্যে চিতই, পুলি, ভাজাপুলি, পাকান, গাজরের বরফি, ফুলপিঠা, শঙ্খপিঠা, পাটিসাপটা, জামাইপিঠা, বাঁধাকপির পাকুড়া, ঝাল ভাজাপুলি, সুজির বরফি পিঠা উল্লেখযোগ্য। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

আরো খবর...