আপনার  আঙ্গিনা পরিস্কার রাখার দায়িত্ব আপনার নিজের

কুষ্টিয়া পূর্ব মজমপুরে ডেঙ্গু প্রতিরোধ, মশক নিধন ও পরিচ্ছন্নতা অভিযানে মৃনাল কান্তি দে

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক মৃনাল কান্তি দে বলেছেন, ডেঙ্গু একটি ভাইরাস জ্বর আর এই ভাইরাস বহন করে এডিস নামক একটি মশা। একটু সচেতন হওয়ার মাধ্যমে খুব সহজেই ডেঙ্গু মোকাবেলা করা সম্ভব। তিনি বলেন, ডেঙ্গু মোকাবেলায় সরকার বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। এ কর্মসূচি বাস্তবায়নে সচেতন নাগরিক হিসেবে আপনাদের অংশগ্রহন কামনা করি। তিনি আরও বলেন, আপনার নিজ আঙ্গিনা পরিস্কার রাখার দায়িত্ব আপনার নিজের। আশারাখি সচেতন নাগরিক হিসেবে অবশ্যই আপনারা নিজ নিজ আঙ্গিনাসহ বাসস্থল পরিস্কার রাখবেন। কারন পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা  ডেঙ্গু প্রতিরোধের অন্যতম হাতিয়ার। তিনি বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে যথেষ্ট সচেতনতা সৃষ্টি করা হয়েছে। এখন প্রতিটি ওয়ার্ডে পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা  রক্ষা কমিটি গঠনের মাধ্যমে এলাকায় সার্বিক রিপোর্ট গ্রহন করা হবে। সেই রিপোট অনুযায়ী যে সকল বাড়ির আঙ্গিনা অপরিস্কার থাকবে সেই বাড়ির মালিককে জরিমানা করা হবে। গতকাল শুক্রবার সকালে কুষ্টিয়া পৌর ১৮নং ওয়ার্ডের পূর্ব মজমপুরে ডেঙ্গু প্রতিরোধ, মশক নিধন ও পরিচ্ছন্নতা অভিযানে ডেঙ্গু প্রতিরোধে এক সচেতনতা মূলক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায়  মৃনাল কান্তি দে  এসব কথা বলেন। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন কুষ্টিয়া চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্টির সাবেক পরিচালক বিশিষ্ট সমাজসেবক আলহাজ্ব মজিবর রহমান। সভায় বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আনিসুজ্জামান ডাবলু, কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আবু তৈয়ব বাদশা, পৌর ১৮নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শাহ জালাল, পূর্ব মজমপুর জামে মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব ইউনুস আলী। সভা পরিচালনা করেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য, প্রকাশনা ও জনসংযোগ অফিসের সহকারী রেজিস্ট্রার রাশিদুজ্জামান খান টুটুল।

কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আবু তৈয়ব বাদশা ও পুর্ব মজমপুর এলাকাবাসীর আয়োজনে এ অভিযান চালানো হয়।

সভায় বিশেষ অতিথি কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আনিসুজ্জামান ডাবলু বলেন,  সঠিক সময়ে সঠিক চিকিৎসা করালে ডেঙ্গু রোগী সম্পূর্ণ রূপ ভালো হয়ে যাবে। তাই এ রোগ নিয়ে আতংকিত না হয়ে সকলকে সচেতন হতে হবে।

অপর বিশেষ অতিথি কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আবু তৈয়ব বাদশা বলেন, জ্বর দেখা দিলে অযথা আতঙ্কিত না হয়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে রক্তের পরিক্ষা করিয়ে প্রকৃতি অবস্থা সম্পর্কে নিশ্চিত হতে হবে।

অপর আরেক বিশেষ অতিথি পৗর ১৮ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শাহ জালাল বলেন, যেহেতু এডিস মশা দিনের বেলায় কামড়ায় তাই দিনের বেলায় বিশ্রাম নেওয়ার সময় মশারি ব্যবহার করতে হবে। এর আগে পূর্ব মজমপুর এলাকার ড্রেনে মশক নিধন ওষুধ ছিটানো হয়, রাস্তা ও ড্রেনের দু’পাশে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করা হয়।

 

আরো খবর...