আইইডিসিআরের হটলাইন ০১৯৪৪৩৩৩২২২

ঢাকা অফিস ॥ নভেল করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের মধ্যে সবার যোগাযোগের সুবিধার জন্য হটলাইন হিসেবে ১৩টি নম্বরের বদলে একটি নম্বর চালু করেছে বাংলাদেশ সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান-আইইডিসিআর। এখন থেকে ০১৯৪৪৩৩৩২২২ নম্বরে ফোন করে যে কেউ তথ্য দিতে বা নিতে পারবেন বলে  আইডিসিআরের পরিচালক অধ্যাপক মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানিয়েছেন। বাংলাদেশে নভেল করোনাভাইরাসের রোগী ধরা পড়ার পর মানুষের ফোন কলের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় গত ৯ মার্চ হটলাইনে নম্বর চারটি থেকে বাড়িয়ে ১৩টি করে সরকার। কিন্তু হটলাইনের নম্বরে কল করে পাওয়া যাচ্ছে না- এমন অভিযোগ পাওয়ার পর এখন একটি নম্বর চালু হয়েছে জানিয়ে অধ্যাপক ফ্লোরা বলেন, “এ নম্বরটিতে কল প্রবেশ করা মাত্র তা হান্টিং নম্বরের মাধ্যমে অন্য খোলা নম্বরগুলোতে চলে যাবে।” আপাতত হটলাইনের এ নম্বরে ফোন করলে অপরারেটরকে নির্ধারিত হারে টাকা দিতে হবে। এ নম্বটিও টোল ফ্রি করার চেষ্টা চলছে বলে জানান আইডিসিআরের পরিচালক। প্রতিরোধে পরামর্শ করোনা ভাইরাস নিয়ে ভীত না হয়ে সতর্কতা অবলম্বন করার জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের দেওয়া কিছু পরামর্শ মেনে চলতে সবাইকে পরামর্শ দিয়েছে সরকার। নিয়মিত জীবণুনাশক বা সাবান বা হ্যান্ড ওয়াশ দিয়ে হাত ধোয়া উচিত। কাশি বা হাঁচি দিচ্ছেন এমন ব্যক্তি থেকে ৩ ফুট দূরত্ব বজায় রাখা প্রয়োজন। হাত না ধুয়ে চোখ, নাক ও মুখ স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকতে হবে। হাঁচি বা কাশি দেওয়ার সময় টিস্যু বা হাতের কনুই দিয়ে নাক ও মুখ ঢেকে রাখতে হবে। যেখানে সেখানে থুথু নিক্ষেপ করা যাবে না। রান্না করার আগে ভালো করে খাবার ধুয়ে নিতে হবে। যে কোনো খাবার ভালো করে সিদ্ধ করে রান্না করতে হবে। অসুস্থ ব্যক্তি বা প্রাণীর সংস্পর্শে আসা যাবে না। কাপড় একবার ব্যবহার করে ধুয়ে ফেলুন। বাড়ি এবং কর্মক্ষেত্র নিয়মিত পরিষ্কার করতে হবে। বাইরে ব্যবহৃত জুতা ঘরে ব্যবহার করা যাবে না। খালি পায়ে হাঁটা যাবে না। পরিচিত বা অপরিচিত ব্যক্তির সঙ্গে হাত মেলানো বা আলিঙ্গন করা থেকে বিরত থাকতে হবে। জ্বর, কাশি ও শ্বাসকষ্ট অনুভব করলে দ্রুত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে। অন্যের সংস্পর্শ থেকে দূরে থাকতে হবে। স্বাস্থ্যসেবায় নিয়োজিত চিকিৎসক বা স্বাস্থ্যকর্মীর পরামর্শ অনুসরণ করে নিরাপদ থাকাই উত্তম পন্থা। অসুস্থ বোধ করলে বাড়িতে অবস্থান করা উত্তম। জনাকীর্ণ স্থানে সতর্ক থেকে মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। শিশু, বৃদ্ধ ও ক্রণিক রোগীদের অধিকতর সতর্ক থাকতে হবে। নিজেকে নিরাপদ রাখতে বিদেশ ভ্রমণ না করাই ভালো। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার সন্দেহ, লক্ষণ বা উপসর্গ দেখা দিলে সরাসরি জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানে (আইইডিসিআর) না যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছে সরকার। বরং বাড়িতে থেকে হটলাইন নম্বরে ফোন করলে তারাই বাড়িতে গিয়ে নমুনা সংগ্রহ করবে বলে জানানো হয়েছে।

আরো খবর...