ইবিতে বই মেলা, আলোচনাসভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের উদ্বোধনীতে ড. রাশিদ আসকারী

আজ জননেত্রী শেখ হাসিনার কন্ঠে কন্ঠ মিলিয়ে আমরাও বলতে চাই, বাংলাকে করা হোক জাতিসংঘের রাষ্ট্রভাষা

কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী (ড. রাশিদ আসকারী) বলেছেন, বাংলা হোক জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা। তিনি বলেন, ২০০৯ সালে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় এসে বাংলা ভাষাকে আন্তর্জাতিকীকরণের জন্য বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে তিন-তিনবার প্রস্তাব দেন এবং জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৬৪তম অধিবেশনে তাঁর বক্তৃতায় বিশ্ব দরবারের কাছে বাংলাকে জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা করার দাবী জানান। তিনি বলেন, জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ার সকল যোগ্যতা বাংলা ভাষার রয়েছে। ড. রাশিদ আসকারী বলেন, বাংলা ভাষায় এখন বিশ্বের প্রায় ২শত ২০ মিলিয়ন মানুষ কথা বলেন। তিনি বলেন, আজ জননেত্রী শেখ হাসিনার কন্ঠে কন্ঠ মিলিয়ে আমরাও বলতে চাই, বাংলাকে করা হোক জাতি সংঘের রাষ্ট্রভাষা। তিনি বলেন, বাঙালির হৃদয়ে রবীন্দ্রনাথ, চেতনাতে নজরুল। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এবং জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বাংলা ভাষার দিকপাল। এটাই সকল বাঙালির প্রথম এবং শেষ উপলদ্ধি। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে, বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান মিলনায়তনে, “ভাষা ভাবনায় রবীন্দ্র-নজরুল” শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় ড. রাশিদ আসকারী এসব কথা বলেন। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর ও জাতীয় দিবসসমূহ উদ্যাপন স্যান্ডিং কমিটি ২০১৯’র আহবায়ক প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমানের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান আলোচক ছিলেন কথাসাহিত্যিক ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের প্রফেসর হাসান আজিজুল হক। সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা এবং ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু চেয়ার প্রফেসর ও বাংলা একাডেমির সাবেক মহা-পরিচালক প্রফেসর শামসুজ্জামান খান। প্রধান আলোচকের বক্তৃতায় কথাসাহিত্যিক প্রফেসর হাসান আজিজুল হক বলেন, রবীন্দ্রনাথ এবং নজরুল তাঁদের ছাড়া আমরা বাঙালিরা বাঁচতে পারিনা। আমাদের নিশ্বাস-প্রশ্বাসের সাথে তাঁরা জড়িয়ে আছেন। তাঁদের  কথা, গান, কবিতা, বাঙালিয়ানাকে বাঁচিয়ে রেখেছে। রবীন্দ্রনাথ তাঁর বিভিন্ন লিখনীর মধ্যদিয়ে বিচিত্র পৃথিবীকে ফুটিয়ে তুলেছেন আর এ জন্যেই তিনি বিশ্বকবির মর্যাদা লাভ করেছেন। তিনি বলেন, বাঙালিত্বের শ্রেষ্ঠ প্রকাশ হচ্ছেন কাজী নজরুল। তিনি বলেন, এই দু’জন কবি বিশ্বের যে বিদ্যা-শিক্ষার উচ্চতা সেখানে আমাদেরকে  নিয়ে গেছেন। সভায় বিশেষ অতিথি ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা বলেন, আমাদের বাংলা ভাষার যে ছন্দ, মাধুর্য এবং সৌন্দর্যবোধ তা সমৃদ্ধশালী করেছেন কবি রবীন্দ্রনাথ এবং নজরুল। আমরা মুলত তাদেরকেই  অনুস্মরণ করে চলেছি। তিনি বলেন, ভাষা ভাবনায় রবীন্দ্র-নজরুলের কৃতিত্বের কোন সন্দেহ নেই। অপর বিশেষ অতিথি প্রফেসর শামসুজ্জামান খান বলেন, সৃষ্টিকর্তা যাকে যে ভাষায় সৃষ্টি করেছেন তার কাছে সে ভাষা অমূল্য রতন। তিনি বলেন, আমাদের বাংলাকে বিশ্বপর্যায়ে নিয়ে গেছেন রবীন্দ্রনাথ এবং নজরুল। আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তৃতায় প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান বলেন, আমরা ভাষার স্বাধীনতা পেয়েছি ভাষা শহীদদের রক্তের বিনিময়ে। তিনি বলেন, ভাষার স্বাধীনতা পেয়েছিলাম বলেই ৭ই মার্চ বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণে সাড়া দিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্যদিয়ে আমরা স্বাধীন দেশ পেয়েছি। তাই আমি মনেকরি বাংলা ভাষা অর্জনের মধ্যদিয়েই বাঙালির সকল অর্জনের সূচনা হয়েছে। ল’এন্ড ল্যান্ড ম্যানেজমেন্ট বিভাগের প্রভাষক সাহিদা আখতারের সঞ্চালনায় সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রফেসর ড. মোঃ মাহবুবুল আরফিন এবং ইংরেজি বিভাগের প্রফেসর ড. মিয়া মোঃ রসিদুজ্জামান। জাতীয় সংগীতের মধ্যদিয়ে সভার সূচনা করা হয়।   এদিকে আলোচনা সভার পূর্বে “বাংলা মঞ্চে” আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও মহান একুশে স্মরণে ফিতা কেটে ৩দিনব্যাপী বই মেলা, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী (ড. রাশিদ আসকারী)। উদ্বোধন শেষে ভাইস চ্যান্সেল, প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর ও ট্রেজারারসহ অতিথিবৃন্দ বই মেলার স্টল ঘুরে ঘুরে দেখেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

সাঈদীর ছোট ছেলে মাসুদ কারাগারে

ঢাকা অফিস ॥ পিরোজপুরের ইন্দুরকানি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাসুদ সাঈদীকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। বিস্ফোরকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দায়ের করা মামলায় মাসুদ সাঈদী জামিনের আবেদন করলে তা নামঞ্জুর করে তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয়। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে পিরোজপুরের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতে মাসুদ সাঈদীর জামিন আবেদনের ওপর শুনানি হয়। শুনানি শেষে তাঁর জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে তাঁকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন বিচারক মোহাম্মদ সামছুল হক। মাসুদ সাইদী মানবতাবিরোধী অপরাধে আমৃত্যু কারাদন্ড প্রাপ্ত জামায়াতের নায়েবে আমির দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর ছোট ছেলে। তিনি ২০১৪ সালে পিরোজপুরের ইন্দুরকানি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তাঁর বড় ভাই শামীম সাঈদী। তিনি পিরোজপুর-১ (পিরোজপুর সদর-নাজিরপুর-নেছারাবাদ) আসনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করে পরাজিত হন। মামলার অভিযোগে বলা হয়, ২০১৮ সালের ২৫ ডিসেম্বর রাতে ইন্দুরকানি উপজেলার সাঈদখালী গ্রামের অহিদুজ্জমান খানের বাড়িতে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন বানচালের জন্য বিএনপি-জামায়াতের নেতা-কর্মীরা গোপন  বৈঠক করেন। খবর পেয়ে পুলিশ অহিদুজ্জামানের বাড়িতে অভিযান চালায়। আসামিরা পালানোর চেষ্টা করলে পুলিশ মো. ওবায়দুল¬াহ ও মো. জাকির হোসেন নামের দুজনকে গ্রেপ্তার করে। অহিদুজ্জামান ও জাকির হোসেনের ঘরে তল¬াশি চালিয়ে চারটি ককটেল ও পাঁচটি পেট্রলবোমা উদ্ধার করা হয়। গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিরা জিজ্ঞাসাবাদে জানান, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে মাসুদ সাঈদী গোপন বৈঠক করছিলেন। এ ঘটনায় ইন্দুরকানি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) অহিদুজ্জামান ফকির বাদী হয়ে বিস্ফোরকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করেন। মামলায় তিনজনের নাম উলে¬খ করে অজ্ঞাত ১৫ জনকে আসামি করা হয়। মামলায় মাসুদ সাঈদীকে প্রধান আসামি করা হয়। গত ৮ জানুয়ারি মাসুদ সাঈদী হাইকোর্ট থেকে ছয় সপ্তাহের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন নেন। মেয়াদ শেষ হলে গত সোমবার তিনি পিরোজপুরের জেলা ও দায়রা জজ আদালতে জামিনের আবেদন করেন। গতকাল অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতে মাসুদ সাঈদীর জামিন আবেদনের ওপর শুনানি হয়। পরে আদেশ দেন আদালত। আদালতে শুনানিতে অংশ নেওয়ার আগে মাসুদ সাঈদী সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেন, মামলাটি মিথ্যা, ভিত্তিহীন, গায়েবি। নির্বাচনের সময় হয়রানি করতেই মামলাটি দেওয়া হয়। পিরোজপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) খান মো. আলাউদ্দিন বলেন, মাসুদ সাঈদীর জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে তাঁকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

 

সংরক্ষিত নারী এমপিদের শপথ আজ

ঢাকা অফিস ॥ একাদশ জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত নারী আসনে নির্বাচিতরা এমপি হিসেবে শপথ নেবেন আজ বুধবার। সকাল সাড়ে ১০টায় স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী সংসদের শপথ কক্ষে তাদের শপথ পড়াবেন বলে সংসদ সচিবালয় থেকে জানানো হয়েছে। কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী না থাকায় রোববার আওয়ামী লীগের ৪৩ জন, জাতীয় পার্টির ৪ জন, ওয়ার্কার্স পার্টির ১ জন এবং স্বতন্ত্র ১ জনকে সাংসদ হিসেবে নির্বাচিত ঘোষণা করে রিাটর্নিং কর্মকর্তা। একাদশ সংসদ নির্বাচনে দলগুলোর প্রাপ্ত আসনের সংখ্যানুপাতে বিএনপির একটি সংরক্ষিত আসন পাওয়ার সুযোগ ছিল। কিন্তু গত ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে জয়ী তাদের ছয় প্রার্থী এখনও শপথ নেননি। ফলে আনুপাতিক হারে তাদের যে সংরক্ষিত নারী আসন পাওয়ার কথা, সেটি স্থগিত রয়েছে। বাকি ৪৯ আসনের একক প্রার্থীদের বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করে রোববার গেজেট প্রকাশ করে নির্বাচন কমিশন। আওয়ামী লীগের ৪৩ জন : ঢাকা থেকে সুবর্ণা মুস্তাফা, শিরীন আহমেদ, জিন্নাতুল বাকিয়া, শবনম  জাহান শিলা ও নাহিদ ইজহার খান; চট্টগ্রাম থেকে খাদিজাতুল আনোয়ার ও ওয়াশিকা আয়েশা খানম; কক্সবাজার থেকে কানিজ ফাতেমা আহমেদ, খাগড়াছড়ি থেকে বাসন্তী চাকমা, কুমিল¬া থেকে আঞ্জুম সুলতানা ও আরমা দত্ত; ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম, গাজীপুর থেকে শামসুন্নাহার ভূঁইয়া ও রুমানা আলী; বরগুনা থেকে সুলতানা নাদিরা, জামালপুর থেকে হোসনে আরা, নেত্রকোণা থেকে হাবিবা রহমান খান (শেফালী) ও জাকিয়া পারভীন খানম; পিরোজপুর থেকে শেখ এ্যানী রহমান, টাঙ্গাইল থেকে অপরাজিতা হক, সুনামগঞ্জ থেকে শামীমা আক্তার খানম, মুন্সিগঞ্জ থেকে ফজিলাতুন নেসা, নীলফামারী থেকে রাবেয়া আলীম, নরসিংদী থেকে তামান্না নুসরাত বুবলী, গোপালগঞ্জ থেকে নার্গিস রহমান, ময়মনসিংহ থেকে মনিরা সুলতানা, ঝিনাইদহ থেকে খালেদা খানম, বরিশাল থেকে সৈয়দা রুবিনা মিরা, পটুয়াখালী থেকে কাজী কানিজ সুলতানা, খুলনা থেকে গে¬ারিয়া ঝর্ণা সরকার, টাঙ্গাইল থেকে খন্দকার মমতা হেনা লাভলী, দিনাজপুর থেকে জাকিয়া তাবাসসুম, নোয়াখালী থেকে ফরিদা খানম (সাকী), ফরিদপুর থেকে রুশেমা বেগম, কুষ্টিয়া থেকে সৈয়দা রাশেদা বেগম, মৌলভীবাজার থেকে সৈয়দা জোহরা আলাউদ্দিন, রাজশাহী থেকে আদিবা আনজুম মিতা, চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ফেরদৌসী ইসলাম জেসী, শরিয়তপুর থেকে পারভীন হক সিকদার, রাজবাড়ী থেকে খোদেজা নাসরীন আক্তার হোসেন, মাদারীপুর থেকে তাহমিনা বেগম, পাবনা থেকে নাদিয়া ইয়াসমিন জলি ও নাটোর থেকে রতœা আহমেদ। অন্যরা : জাতীয় পার্টির সালমা ইসলাম, মাসুদা এম রশিদ চৌধুরী, রওশন আরা মান্নান ও নাজমা আকতার।

ওয়াকার্স পার্টির সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলেন দলটির সভাপতি রাশেদ খান মেননের স্ত্রী লুৎফুন নেসা খান । স্বতন্ত্র প্রার্থীদের পক্ষ থেকে নারী আসনে এমপি নির্বাচিত সেলিনা ইসলাম লক্ষ্মীপুর-২ আসনের স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য মোহাম্মদ শহিদ ইসলামের স্ত্রী।

১৪ দল ভাঙার শঙ্কা নেই, মান-অভিমান চলে যাবে – কাদের

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, কেউ যদি ১৪ দল ভাঙতে পারে বলে শঙ্কিত বা উদ্বিগ্ন থাকেন তাদের বলছি, উদ্বিগ্ন বা শঙ্কার কারণ নেই। এই আছে মান-অভিমান, আবার চলে যাবে। এটা কোনো পার্মানেন্ট সমস্যা না। মঙ্গলবার সড়ক ও জনপথ বিভাগের বিভিন্ন পর্যায়ের প্রকৌশলী, প্রকল্প পরিচালক ও কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। সংসদে বিরোধী দল হওয়া নিয়ে ১৪ দলের শরিকদের মধ্যে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে- এ প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, আমি সমালোচনা পজিটিভলি নিয়েছি। যারা সমালোচনা করছেন, সেটার দরকার আছে। সরকার ভালোভাবে চলার জন্য, পার্লামেন্টারি ডেমোক্রেসিটা ইতিবাচক ও শক্তিশালী হতে পারে বিরোধী দলের মাধ্যমে। গতিশীল হতে পারে সংসদ। সমালোচনা না থাকলে সরকারের ভুল ধরা যায় না, সংশোধন হওয়া যায় না। সেদিক থেকে আমরা সমালোচনাকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছি। ভুলকে কারেক্ট করার জন্য সমালোচনা দরকার। উপজেলা নির্বাচন নিয়ে ধোয়াশায় থাকার অভিযোগ করেছে শরিকরা- এ ব্যাপারে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, সব আলাপ-আলোচনা করেই করা হচ্ছে। তাদের মান-অভিমানের পেছনের কারণটা কী তা আপনারা আমার চেয়েও কম জানেন না। তেমন কোনো সমস্যা নেই। ছোট-খাটো মান-অভিমান আছে। এসব কেটে যাবে। ২৪ ফেব্র“য়ারি ঐক্যফ্রন্টের গণশুনানি আয়োজনে জায়গা দেয়া হচ্ছে না- এমন অভিযোগ প্রসঙ্গে সেতুমন্ত্রী বলেন, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান তো খোলা আছে। সেখানে কোনো প্রকার বাধা-বিঘেœর বিষয় তো নেই। গণশুনানি আয়োজনে ঐক্যফ্রন্ট অনুমতি পাবে কি না জানতে চাইলে কাদের বলেন, কেন অনুমতি? কিসের জন্য? গণ-তামাশার জন্য? গণশুনানি কাকে বলে? গণশুনানি নাকি গণ-তামাশা ? গণ-তামাশার জন্য অনুমতি চাইলে আমি তো পুলিশ কমিশনারকে বলব বিষয়টি দেখে ব্যবস্থা নিতে।

গাংনীতে শহীদ দিবসের প্রস্তুতি সভা

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনীতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস পালন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে গাংনী উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা আ.লীগ প্রস্তুতি সভার আয়োজন করে। সভায় সভাপতিত্ব করেন মেহেরপুর-২ (গাংনী) আসনের জাতীয় সংসদ ও গাংনী উপজেলা আ.লীগের সভাপতি সাহিদুজ্জামান খোকন। সভায় বক্তব্য রাখেন মেহেরপুর জেলা আ.লীগের সহ-সভাপতি সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সিরাজুল ইসলাম স্যার, সাংগঠনিক সম্পাদক রেজাউল ইসলাম, গাংনী উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা। গাংনী উপজেলা ছাত্রলীগের সবেক সভাপতি ইসমাইল হোসেনের সঞ্চালনায়-এ সময় বক্তব্য রাখেন জেলা আ.লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা নুরজাহান বেগম, গাংনী পৌরসভার মেয়র ও  জেলা যুবলীগের অন্যতম সদস্য আশরাফুল ইসলাম, গাংনী উপজেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুজ্জামান, আ.লীগ নেতা মনিরুজ্জামান আতু, আ.লীগ নেতা নজরুল ইসলাম, তেঁতুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও আ.লীগ নেতা নাজমুল হুদা,ধানখোলা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও আ.লীগ নেতা আব্দুর রাজ্জাক, আ.লীগ নেত্রী ও গাংনী উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা মমতাজ কাকলী, কাথুলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান রানা, রাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা গোলাম সাকলায়েন ছেপু, মটমুড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা সোহেল আহমেদ, গাংনী পৌরসভার প্যানেল মেয়র ও আ.লীগ নেতা নবীরুদ্দীন, গাংনী উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের আহবায়ক আবুল বাসার, গাংনী পৌর আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক আনারুল ইসলাম বাবু, বামন্দী ইউনিয়ন আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবাইদুর রহমান কমল, যুব-মহিলালীগের নেতা শাহানা ইসলাম শান্তনা, আ.লীগ নেতা আবুল হাশেম, মোজাম্মেল হক, জাহাঙ্গীর আলম বাদশা, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা রবিউল ইসলাম, যুবলীগ নেতা আব্দুল আলীম  জেলা ছাত্রলীগের সাধাণ সম্পাদক মুনতাসির জামান মৃদুল,গাংনী সরকারী ডিগ্রী কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি হাসিবুর রহমান হাসিব  প্রমুখ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন আ.লীগ-যুবলীগ-ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, শ্রমিকলীগের নেতা-কর্মীবৃন্দ।

কবি আজিজুর রহমান সড়ক ব্যবসায়ী সমাজ কল্যান সমিতির নির্বাচন

সভাপতি পদে আব্দুস সালামকে দুই ভোটে জিতিয়ে দেয়ার অভিযোগ

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া শহরের কবি আজিজুর রহমান সড়ক ব্যবসায়ী সমাজ কল্যাণ সমিতির নির্বাচনে ব্যাপক দুর্নীতি অনিয়মের অভিযোগ করেছে সড়কের ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ। ঘটনা প্রবাহে জানা গেছে গত ১৬ ফেব্র“য়ারী কুষ্টিয়া শহরের কবি আজিজুর রহমান ব্যবসায়ী সমাজ কল্যান সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে আঃ সালাম-বাবু ও হাজি বিল্লাল-শরিফ দুটি প্যানেলসহ একজন সভাপতি পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন কিন্তু গননায় রাত ১০ টার দিকে ৬ ভোটে হাজী বিল্লাল হোসেন বিজয়ী হয়। ৬ ভোটে  আঃ সালাম সভাপতি পদে হেরে যায় বলে হাজী বিল্লাল মুঠো ফোনে জানান। পরে বিজয় মিছিল আনলে ঐ মিছিলে  লাঠিচার্জ করে বিল্লাল শরিফ সমর্থকদের হটিয়ে দেয় এবং ২  ভোটে সভাপতি পদে হাজী বিল্লালকে পরাজিত ঘোষনা করে আব্দুস সালামকে বিজয়ী ঘোষনা করা হয় বলে ঐ সুত্রটি জানিয়েছে। সুত্রে জানা গেছে সংবিধানের ১৫নং অনুচ্ছেদে  উল্লেখ করা আছে যে এ সমিতির নির্বাচনে সমাজসেবা অধিদপ্তরের একজন কর্মকর্তাকে নির্বাচনী পরিচালনায় রাখা হবে। কিন্তু নির্বাচন কমিশন এক অজ্ঞাত কারনে নির্বাচন কমিশন এ্যাডঃ খালেক কোন সরকারী কর্মকর্তাকে দায়িত্ব  দেয়া হয়নি ।ঐ রাতেই হাজী বিল্লাল সভাপতি পদে পুনরায়  ভোট গননার দাবি করেন কিন্তু নির্বাচন কমিশন পুনরায় ভোট  গননা না করে চলে যান বলে জানিয়েছেন হাজী বিল্লালের এজেন্ট সাধারন ব্যবসায়ীবৃন্দ। এ ব্যাপারে পুনরায় নির্বাচন দাবি করেছেন সমিতির অধিক ব্যবসায়ীবৃন্দ বলে জানা  গেছে। পুনঃ ভোট অনুষ্ঠান করার জন্য জেলা প্রশাসকের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন আজিজুর রহমান ব্যবসায়ী সমাজ কল্যান পরিষদের হাজী বিল্লাল সমর্থক ও ব্যবসায়ীবৃন্দরা।

অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার : ২ পুলিশ আহত

দৌলতপুরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ২ ডাকাত নিহত

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ২ ডাকাত নিহত হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ২টি এলজি গান, ৪ রাউন্ড গুলি ও একটি রামদা উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় ২ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার রাত ৩.৪০ টার দিকে উপজেলার ডাংমড়কা-আদাবাড়িয়া সড়কের পেটকাটা ডহর মাঠের মধ্যে ‘বন্দুকযুদ্ধের’ এ ঘটনা ঘটে। দৌলতপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. নজরুল ইসলাম জানান, উপজেলার ডাংমড়কা-আদাবাড়িয়া সড়কের পেটকাটা ডহর মাঠের মধ্যে দু’দল ডাকাত অভ্যন্তরীন কোন্দলে নিজেদের মধ্যে গোলগুলিতে লিপ্ত হয়েছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে দৌলতপুর থানার এস আই সাইফুলের নেতৃত্বে পুলিশের টহল টিম ঘটনাস্থলে অভিযান চালায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাত দল পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এসময় নিজেদের জানমাল রক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি চালালে ‘বন্দুকযুদ্ধের’ একপর্যায়ে ডাকাতরা পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থল থেকে ২জন ডাকাতকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে দৌলতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লে¬ক্সে  নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন। পরে খোঁজখবর নিয়ে পুলিশ নিহত ডাকাতদের পরিচয় জানান। নিহতরা দৌলতপুর উপজেলার আদাবাড়িয়া ইউনিয়নের গড়–ড়া গ্রামের মছের উদ্দিনের ছেলে মুফাজ্জেল হোসেন ওরফে মুফা ডাকাত (৪২) এবং মথুরাপুর ইউনিয়নের কৈপাল গ্রামের আব্দুর রহিমের ছেলে মহাবুল (৪০)। এ ঘটনায় দৌলতপুর থানার এএসআই আসাদুল ও কনষ্টেবল জিয়া আহত হয়েছেন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ২টি এলজি গান, ৪ রাউন্ড গুলি ও একটি রামদা উদ্ধার করেছে। ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ডাকাতদের বিরুদ্ধে দৌলতপুর থানাসহ পার্শ্ববর্তী থানায় ডাকাতি ও ছিনতাইসহ বিভিন্ন অপরাধের প্রায় দুই ডজন মামলা রয়েছে। এদের মধ্যে মুফাজ্জেল হোসেন ওরফে মুফার বিরুদ্ধে অন্তত ১৫টি এবং মহাবুলের বিরুদ্ধে অন্তত ৭টি মামলা রয়েছে বলে দৌলতপুর থানা পুলিশ নিশ্চিত করেছেন। এদিকে নিহতদের লাশের সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করা হলে ময়নাতদন্ত শেষে তাদের পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হয়।

আবুধাবিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাত

বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহী লুলু-এনএমসি গ্রপ

ঢাকা অফিস ॥ বাংলাদেশের স্বাস্থ্য, পর্যটন, রিটেলই চেইন শপসহ বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগের আগ্রহ প্রকাশ করেছে আবু ধাবিভিত্তিক লুলু গ্র“প ও এনএমসি গ্র“প। আবুধাবি সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে গতকাল মঙ্গলবার সকালে তার আবাসস্থল হোটেল সেন্ট রেগিজে বৈঠক করেন লুলু গ্র“পের চেয়ারম্যান ইউসুফ আলী এবং এসএমসি গ্রুপের চেয়ারম্যান বি আর শেঠী। বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের বলেন, “লুলু গ্র“পের চেয়ারম্যান বলেছেন, অনেক এরিয়া রয়েছে যেসব খাতে ‘উদ্ভাবন করা যায়। পর্যটন, হাইপার মার্কেট। উনি ঢাকার কাছে এবং বাইরে জমি চেয়েছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীও বলেছেন, দেওয়া হবে।” লুলু গ্র“পের অধীনে বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় হাইপার মার্কেট রয়েছে। লুলু গ্র“পের চেয়ারম্যান বাংলাদেশে পাঁচ তারকা হোটেল করার কথাও বলেছেন জানিয়ে ইহসানুল করিম বলেন, “নীতিগতভাবে তারা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তারা বাংলাদেশে বিনিয়োগ করবেন।” বাংলাদেশে বিনিয়োগের নানা সুবিধা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, “দেশকে উন্নত করার জন্য, এগিয়ে নেওয়ার জন্য আমরা বিনিয়োগ চাই।” এনএমসি গ্র“প বাংলাদেশে হাসপাতাল করতে চায় বলে জানান প্রেস সচিব। ক্যান্সার ও হৃদরোগের জন্য বিশেষায়িত হাসপাতাল করতে গ্র“পের চেয়ারম্যান বৈঠকে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন বলে জানান তিনি।

এক প্রশ্নের জবাবে ইহসানুল করিম বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আবু ধাবি সফর ‘খুবই সফল’ হয়েছে। জার্মানি সফর শেষে রোববার সকালে মিউনিখ থেকে আবু ধাবি পৌঁছান শেখ হাসিনা। গত ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে জয়ী হয়ে টানা তৃতীয় মেয়াদে সরকার গঠনের পর এটাই তার প্রথম বিদেশ সফর। রোববার সকালে আবু ধাবিতে আন্তর্জাতিক প্রতিরক্ষা প্রদর্শনী ও নেভাল ডিফেন্স অ্যান্ড মেরিটাইম সিকিউরিটি প্রদর্শনীতে অংশ নেওয়ার পর দুপুরের পর ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগ প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেন শেখ হাসিনা। রোববার বিকেল বাংলাদেশের বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও অর্থনৈতিক অঞ্চল বিষয়ে সংযুক্ত আরব আমিরাতের সঙ্গে সমঝোতা স্মারত সই করেছে। সোমবার সকালে আবু ধাবি এক্সিজিবশন সেন্টারে শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক হয় আরব আমিরাতের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী এবং আমিরাত অব দুবাইয়ের শাসক শেখ মোহাম্মাদ বিন রশিদ আল মাকতুমের। দুপুরে রাজকীয় প্যালেসে আবু ধাবির ক্রাউন প্রিন্স শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ আল-নাহিয়ানের সঙ্গে বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া আবু ধাবির বাহার প্যালেসে ইউএই’র প্রতিষ্ঠাতা ও প্রথম প্রেসিডেন্ট এবং আবুধাবির শাসক মরহুম শেখ জায়েদ বিন সুলতান আল নাহিয়ানের স্ত্রী শেখা ফাতিমা বিনতে মুবারক আল কেতবির সঙ্গে দেখা করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। বুধবার সকালে ঢাকায় ফেরার কথা রয়েছে শেখ হাসিনার।

 

আখেরি মোনাজাতে শেষ হল বিশ্ব ইজতেমা

ঢাকা অফিস ॥ দেশের কল্যাণ, দুনিয়া ও আখেরাতের শান্তি আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে এবারের বিশ্ব ইজতেমা। তাবলিগ জামাতের দিলি¬ মারকাজের অনুসারীদের অংশগ্রহণে টঙ্গীর তুরাগ তীরে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্যায় শেষে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে এই আখেরি মোনাজাতে অংশ নেন লাখো মানুষ। মোনাজাত পরিচালনা করেন দিল্লির মাওলানা শামীম। এর আগে শনিবার ঢাকার কাকরাইল মসজিদের ইমাম মুহাম্মদ জোবায়ের পরিচালনায় তাবলিগ জামাতের দেওবন্দপন্থিদের ইজতেমা শেষে রোববার সকালে দিলি¬র মাওলানা মোহাম্মদ সাদ কান্ধলভির অনুসারীদের সম্মিলন শুরু হয়। দ্বিতীয় পর্যায়ের ইজতেমা সোমবার শেষ হওয়ার কথা থাকলেও বিরূপ আবহাওয়ায় প্রথম দিনের কর্মসূচি বিঘ্নিত হওয়ায় আখেরি মোনাজাত এক দিন পিছিয়ে দেওয়া হয়। আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে মঙ্গলবার ভোর থেকেই দূর দূরান্ত থেকে টঙ্গীতে আসতে শুরু করে মানুষ। যানবাহন না পেয়ে অনেকেই পায়ে হেঁটে ইজতেমা মাঠে পেঁছান। ফজরের নামাজের পর উর্দুতে বয়ান করেন দিলি¬র হাফেজ ইকবাল নায়ার। বাংলায় তা তরজমা করে শোনান বাংলাদেশের মাওলানা মুফতি ওসামা বিন ওয়াসিফ। সকাল ১০টার দিকে উর্দু ভাষায় হেদায়েতি বয়ান করেন দিলি¬র মাওলানা শামীম। বাংলায় তা তরজমা করেন মাওলানা আশরাফ আলী। মাওলানা শামীম পরে আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করেন। আখেরি মোনাজাতের আগেই ইজতেমা ময়দান কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়।

ময়দানের আশপাশের অলি-গলি, রাস্তা, পাশের বাসাবাড়ি, কল-কারখানা ছাদ, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক, টঙ্গী-ঘোড়াশাল ও কামারপাড়া সড়কে অবস্থান নিয়েও অনেকে মোনাজাতে হাত তোলেন। বেলা পৌনে ১২টায় শুরু হয়ে ১২টা ২ মিনিটে মোনাজাত শেষ হয়। তাবলিগ জামাতের দুই পক্ষের কোন্দলে তাবলীগ জামাতের বিশ্ব আমির নিজামউদ্দিন মারকাজের শীর্ষ নেতা মাওলানা সাদ এবার ইজতেমায় আসেননি। তার পক্ষে ৩২ সদস্যের একটি দল দিলি¬ থেকে এসে ইজতেমায় যোগ দেন। তাদের নেতৃত্ব দেন মাওলানা শামীম। তাবলিগের এই অংশের মুরুব্বি মাওলানা মো. আশরাফ আলী জানান, ভারত, পাকিস্তান, সৌদি আরব, কাতার, মালয়েশিয়া, ফিলিপিন্স, অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেমিয়া, চীনসহ ৩৬টি দেশের সহগ্রাধিক মেহমান এবারের ইজতেমায় অংশ নিয়েছেন। শনিবার দেওবন্দপন্থিদের আখেরি মোনাজাত শেষে মাইকে ২০২০ সালের ইজতেমার তারিখ ঘোষণা করা হয়। জানানো হয়, আগামী বছর ১০ থেকে ১২ জানুয়ারি প্রথম দফা এবং ১৭ থেকে ১৯ জানুয়ারি দ্বিতীয় দফার ইজতেমা হবে। তবে সাদপন্থিরা তাদের আগামী ইজতেমার তারিখ নির্ধারণ করেননি। কেন্দ্রীয় শুরা সদস্যদের সঙ্গে আলোচনা করে পরে ওই তারিখ নির্ধারণ করা হবে বলে এ পক্ষের মুরুব্বি হারুন অর রশীদ জানান।

 

দূর্ভোগে ব্যবসায়ী, নামাজীসহ হাটে আগত ক্রেতা-সাধারণ

অভিযোগের তীর পোড়াদহ ইউপি আলোচিত চেয়ারম্যান ফারুকুজ্জামান জনের দিকে

রাতের আঁধারে গুড়িয়ে দেয়া হল পোড়াদহ কাপড়িয়া হাটের অর্ধশত টয়লেট ও অজুখানা

নিজ সংবাদ ॥ দেশের বৃহত্তম কুষ্টিয়ার পোড়াদহ কাপড়িয়া হাটে নির্মিত প্রায় অর্ধশত পাবলিক টয়লেট, প্রসাব ও অজুখানা রাতের অন্ধকারে বুলডোজার চালিয়ে গুড়িয়ে দিয়েছে প্রভাবশালীরা। নিজ মার্কেটকে ফোকাসে আনতে আর হাটের সম্পত্তি দখলের স্বার্থেই এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটানো হয়েছে। আর নিন্দিত অপকর্মটি করেছেন রহিমা প্লাজার মালিক ফজলুর রহমান মনি খাঁ ও আঞ্জু মনোয়ারা প্লাজার মালিক ফারজানা চৌধুরী। ফারজানা চৌধুরী পোড়াদহ ইউপি চেয়ারম্যান আলোচিত ফারুকুজ্জামান জনের স্ত্রী। স্থানীয়দের অভিযোগ আর এসব কিছুর নেপথ্যে কলকাঠি নেড়েছেন ফারুকুজ্জামান জন। শুধু টয়লেট কিংবা অজুখানা গুড়িয়ে দেয়ার ঘটনাই নয়, সম্প্রতি পোড়াদহ হাট বনিক সমিতির দ্বিতল ভবনও প্রতারণার মাধ্যমে ৪২ লাখ ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি করে দেন বনিক সমিতির সভাপতি মনি খাঁ ও সাধারণ সম্পাদক জুলহাস। আর এর নেপথ্যেও কাজ করেছেন আলোচিত সমালোচিত চেয়ারম্যান ফারুকুজ্জামান জন। সম্প্রতি এমন ঘটনা গোটা পোড়াদহ এলাকা জুড়ে সৃষ্টি হয়েছে ব্যাপক ক্ষোভের। এরই মধ্যে গত রাতে পোড়াদহ কাপড়িয়া হাট এলাকায় ভুক্তভোগীরা বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। তারা এঘটনার জন্য পোড়াদহ ইউপি চেয়ারম্যান ফারুকুজ্জামান জনকে দায়ি করে তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেন।

এ বিষয়ে পোড়াদহ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোশারফ হোসেন কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক ও মিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সংশ্লিষ্ট বেশ কিছু দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

মোশারফ হোসেন জানান- পোড়াদহ কাপড়িয়া হাট দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তর হাট। এই হাটে শত কোটি টাকার লেনদেন হয়। এই হাটকে কেন্দ্র করে লাখো মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে। হাটে আগত হাজারো মানুষের দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে মিরপুর উপজেলা চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন ও পোড়াদহ ইউনিয়ন পরিষদ’র তৎকালীন চেয়ারম্যান আনোয়ারুজ্জামান মজনু বিপুল অর্থ খরচা করে ৪০টি টয়লেট, ওজু ও প্রসাবখানা নির্মাণ করেন। যার সুফল শুধু হাটে আগত ক্রেতা বিক্রেতারাই নন, হাট জামে মসজিদের মুসল্লিরাও এই টয়লেট ব্যবহার করেন। কিন্তু গতরাতে দখলবাজদের খামখেয়ালীপনায় গুড়িয়ে দেয়া হয় সমস্ত টয়লেট ও অজুখানা। এতে সাধারন মুসল্লিসহ ক্ষোভের সৃষ্টি হয় ক্রেতা বিক্রেতা ও স্থানীয়দের। বনিক সমিতির ভবন বিক্রি প্রসঙ্গে মোশারফ হোসেন বলেন হাট বনিক সমিতির সভাপতি  ফজলুর রহমান মনি খাঁ ও সাধারণ সম্পাদক জুলহাস  সমিতির দায়িত্বে থাকাকালীন স্থানীয় আব্দুল মান্নান নামে এক ব্যবসায়ীর কাছে ভবনটি ভাড়া দেন। কিন্তু পরক্ষণে সেই ভবন চুপিসারে কাউকে না জানিয়ে মান্নানের কাছে বিক্রি করে দেন ৪২ লাখ ৫০ হাজার টাকায়। এনিয়ে সমিতির সদস্যদের সাথে তুমূল বিরোধ তৈরী হয়।

পোড়াদহ ইউনিয়ন পরিষদ’র সাবেক চেয়ারম্যান আনোয়ারুজ্জামান মজনু বলেন আঞ্জু মনোয়ারা প্লাজার মালিক ফারজানা চৌধুরী পোড়াদহ ইউনিয়ন পরিষদ’র বর্তমান চেয়ারম্যান ফারুকুজ্জামান জনের স্ত্রী। জনের নেতৃত্বেই মূলত এই টয়লেটগুলো ভেঙে ফেলা হয়। বিষয়টি পরিকল্পিত।

এবিষয়ে মিরপুর উপজেলা চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন জানান দেশের অন্যতম বৃহত্তম কাপড়িয়া হাটে  আগত মানুষের দুর্ভোগের কথা চিন্তু করে ৪০টি টয়লেট ও প্রসাবখানা নির্মাণ করা হয়েছিল। শুধু টয়লেটই নয় মসজিদের ওজুখানাও নির্মাণ করা হয় সেখানে। কিন্তু জাসদ’র প্রভাবশালী নেতা ফারুকুজ্জামান জন ব্যক্তিস্বার্থ চরিতার্থ করতেই রাতের অন্ধকারে বুলডোজার চালিয়ে অজুখানা টয়লেট গুড়িয়ে দেয়। এমন গর্হিত অপকর্মে ফুঁসে উঠেছে এলাকাবাসী, সাধারণ ক্রেতা বিক্রেতা ও মুসল্লিরা। এলাকাবাসীর দোষিদের আইনের আওতায় আনার দাবীসহ তিনি নিজেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, জেলা প্রশাসক, সংশ্লিষ্ট আইন প্রয়োগকারী সংস্থার দ্বারস্থ হবেন বলেও জানান।

কুষ্টিয়া টেগর লজে নবরুপে জাগো’র সাহিত্য আসর

দুই বাংলার কবি-সাহিত্যিকদের মিলনমেলা

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ায় দুই বাংলার কবি-সাহিত্যিকদের সাহিত্য আসর অনুষ্ঠিত হয়েছে। নবরুপে জাগো সাহিত্য আসর এর আয়োজনে গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় কুষ্টিয়া টেগরলজে এ সাহিত্য আসর অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন নবরুপে জাগো কুষ্টিয়ার সভাপতি কবি সৈয়দা হাবীবা। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন এ্যাডঃ সুব্রত চক্রবর্তী ও জাতীয় রবীন্দ্র সংগীত সম্মিলন পরিষদ কুষ্টিয়ার সভাপতি কবি আলম আরা জুঁই। বক্তব্য রাখেন ইবি’র বাংলা বিভাগের প্রফেসর ড. সরওয়ার মুর্শেদ। সঞ্চালনা করেন কুষ্টিয়ার সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিত্ব বিশিষ্ট কবি ও শিল্পী কনক চৌধুরী। ভারতের কবি-সাহিত্যিকদের মধ্যে কবিতা আবৃতি ও বক্তব্য রাখেন পুরুষোত্তম তালুকদার, স্বপন মৈত্র, শ্যামল মুখপাধ্যায়, সুগত চৌধুরী, শ্রাবণী পাত্র ও লিপি চৌধুরী। কবিতা পাঠ করেন কামরুন্নাহার শিরিন, সুফিয়া, সাহিদা পারভীন রেখা, হাসিনা পারভীন, শর্মিষ্ঠা হোসেন, শিশু কবি মুনয়িন প্রমুখ।

কুমারখালীতে ইউএনও’র নেতৃত্বে মোবাইল কোর্টের অভিযান

স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক রং মিশিয়ে আইসক্রিম তৈরীর দায়ে পঞ্চাশ হাজার টাকা জরিমানা

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ মানবস্বাস্থ্য তথা শিশু স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক বিষাক্ত রং মিশিয়ে আইসক্রিম তৈরীর দায়ে কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে দুইটি আইসক্রিম কারখানায় অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। গতকাল সোমবার বিকাল ৪টায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট রাজীবুল ইসলাম খান কুমারখালী শহরের সেরকান্দি এলাকার মধু রুচি ও নিউ শাপলা আইসক্রিম নামের দু’টি করখানায় অভিযান পরিচালনা করেন। এ সময় সহকারি কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মুহাম্মদ নূর-এ আলম ও নিরাপদ খাদ্য কর্মকর্তা  মো: আরাফাত আলী উপস্থিত ছিলেন। মানব স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক উপাদান  মিশিয়ে আইসক্রিম তৈরী ও বাজারজাত করায় কারাখানার দু’টির মালিক ও শ্রমিকদের মোবাইল কোর্টে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের ২০০৯ এর ৪২ ধারায় ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। অভিযান পরিচালনাকালে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট রাজীবুল ইসলাম খান জানান, চারিদিকে ঘেরা ও টিনসেড ঘরের মধ্যে আইসক্রিম কারখানা পরিচালনা করা হচ্ছে এবং কারখানা দু’টিতেই নোংরা পরিবেশে মানব স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক রং সহ ঘনচিনি, দুধ, আনারস ও কমলার  রাসায়নিক মিশিয়ে বিভিন্ন রং এর প্রচুর আইসক্রিম বাজারজাত করার উদ্দেশ্যে তৈরী করা হয়েছে। এই আইসক্রিমগুলো মানব স্বাস্থ্য ও শিশু স্বাস্থ্যের জন্য মারাতœক ক্ষতিকারক। সে কারণে দু’টি কারখানার মালিক পলাতক থাকায় চারজন কর্মচারীকে আটক করে তাৎক্ষনিক তাদেরকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের ২০০৯ এর ৪২ ধারায় ৫০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এ ছাড়াও তৈরীকৃত বিপুল সংখ্যক আইসক্রিম ও মানব দেহের জন্য ক্ষতিকারক রং পানি দিয়ে বিনষ্ট করা হয়েছে এবং আইসক্রিমের প্যাকেট পুড়িয়ে দেওয়া সহ কারাখানার দু’টির উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ ঘোষনা করে সিলগালা করে দেওয়া হয়েছে। এ অভিযান চলাকালে পৌরসভার প্যানেল মেয়র এস, এম রফিকুল ইসলাম রফিক,  পৌরসভার কাউন্সিলর আনিসুর রহমান সহ স্থানীয় বাসিন্দারা উপস্থিত ছিলেন। এ সময় অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আইসক্রিমের নামে আমরা শিশুদেরকে ক্ষতিকারক উপাদান খাওয়াচ্ছি ! নিরাপদ খাদ্যের নিশ্চয়তায় এ ধরনের অভিযান অব্যাহত রাখতে উপজেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন স্থানীয় সচেতন মহল।

সনাক কুষ্টিয়ার উদ্যোগে ‘সুশাসন – তথ্য অধিকার আইন ও ভূমি খাত’ বিষয়ক আলোচনা সভা

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) এর অনুপ্রেরণায় গঠিত সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক), কুষ্টিয়া এবং কুষ্টিয়া সদর উপজেলা ভূমি অফিসের যৌথ আয়োজনে গতকাল সোমবার কুষ্টিয়া সরকারি মহিলা কলেজ মিলনায়তনে কলেজের শিক্ষার্থী এবং শিক্ষকবৃন্দের সাথে ‘সুশাসন ঃ তথ্য অধিকার আইন ও ভূমি খাত’ বিষয়ক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সনাক সভাপতি নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক মো: সফিকুর রহমান খান। প্রধান আলোচক ছিলেন সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মুহাম্মদ মুছাব্বেরুল ইসলাম এবং আলোচক হিসেবে টিআইবি’র এরিয়া ম্যানেজার মো: আরিফুল ইসলাম। উপজেলা ভূমি অফিস প্রদত্ত সেবা সমূহ তুলে ধরার মাধ্যমে দুর্নীতিমুক্ত ভূমি প্রশাসন গড়তে প্রতিশ্র“তি ব্যক্ত করে সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মুহাম্মদ মুছাব্বেরুল ইসলাম বলেন, উপজেলা ভূমি অফিস এবং ইউনিয়ন ভূমি অফিসে জনবান্ধব সেবা এবং শুদ্ধাচার কৌশল বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে সুশাসন, স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা এবং অবাধ তথ্য প্রবাহ নিশ্চিত করতে উপজেলা ভূমি অফিস কাজ করে যাচ্ছে। তিনি ভূমি সেবা সম্পর্কিত তথ্য পত্র বিতরণের মাধ্যমে ভূমি অফিস প্রদত্ত সেবা, নাগরিক সেবা পেতে কোনরূপ হয়রানি হচ্ছে কিনা এবং ভূমি অফিসে কোন প্রকার অনিয়ম বা নিয়ম বর্হিভূত অর্থ লেনদেন হচ্ছে কি না তা সরাসরি তাঁকে জানানোর জন্য অনুরোধ করেন। তিনি উপস্থিত শিক্ষক শিক্ষার্থীবৃন্দের উত্থাপিত প্রশ্নের সরাসরি উত্তর প্রদান করেন। তিনি তাঁর কার্যালয় পরিদর্শনের আহ্বান জানিয়ে বলেন, সদর উপজেলা ভূমি অফিসের তথ্য সকলের জন্য উন্মুক্ত। প্রতিদিন অন্তত পক্ষে ৫০টি কেসের শুনানীর মাধ্যমে জনসেবা প্রদান করা হচ্ছে বলে তিনি অবহিত করেন। অধ্যক্ষ মো: সফিকুর রহমান খান উপস্থিত শিক্ষার্থীবৃন্দকে দুর্নীতি বিরোধী সামাজিক আন্দোলনে অংশগ্রহণ করার মাধ্যমে দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ গড়ায় অবদান রাখতে আহ্বান করেন। তিনি বলেন, সরকারি মহিলা কলেজে দায়িত্বপ্রাপ্ত তথ্য কর্মকর্তা নিয়োজিত রয়েছে। কলেজের যে কোন তথ্য পেতে সরাসরি দায়িত্বপ্রাপ্ত তথ্য কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করতে বলেন।

সুশাসন নিশ্চিতে তথ্য অধিকার আইন এবং এর প্রায়োগিক দিক সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরে মো: আরিফুল ইসলাম বলেন, বর্তমান সরকার ঘোষিত দুর্নীতির বিরুদ্ধে শুন্য সহিষ্ণুতা নীতি বাস্তবায়নে তথ্য অধিকার আইনের প্রয়োগ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। তিনি, শুদ্ধাচার কৌশল বাস্তবায়নের বিষয়ে উপস্থিত শিক্ষক শিক্ষার্থীবৃন্দকে কার্যকরী ভূমিকা রাখার আহ্বান করেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

দৌলতপুর সীমান্তে বিজিবি’র আয়োজনে মাদক বিরোধী মতবিনিময় সভা

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তে বিজিবি’র আয়োজনে মাদক ও চোরাচালান বিরোধী জনসচেতনতামূলক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সোমবার বেলা ১১টায় উপজেলার প্রাগপুর ইউনিয়নের পাকুড়িয়া হাইস্কুল মাঠে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।  পাকুড়িয়া হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন, প্রাগপুর ইউপি চেয়ারম্যান আশরাফুজ্জামান মুকুল মাষ্টার, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কুদ্দুস, মহিষকুন্ডি হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক আরিফুল ইসলাম, প্রাগপুর বিজিবি’র কোম্পনীর অধিনায়ক নায়েক সুবেদার সুবোধ পাল ও মহিষকুন্ডি কোম্পানীর অধিনায়ক নায়েক সুবেদার হাসেমসহ স্থানীয় সুধীজন। মতবিনিময় সভা শেষে মাদক বিরোধী একটি র‌্যালি বের করা হয়। এতে স্কুলের শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন শেণী পেশার মানুষ অংশ নেন।

শেষ তিন ধাপে সদর উপজেলায় ইভিএমে ভোট

ঢাকা অফিস ॥ পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তৃতয়ি থেকে পঞ্চম ধাপে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ। গতকাল সোমবার নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের তিনি বলেন বলেন, “আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচন পাঁচ ধাপে হবে। প্রধম ও দ্বিতীয় ধাপে ইভিএম ব্যবহার হবে না- এ বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত দিয়েছে। তবে তৃতীয় ধাপ থেকে উপজেলা নির্বাচনে সদর এলাকায় ব্যবহার করা হবে। সদর উপজেলাগুলোতে পরিকল্পনা আছে ইভিএম ব্যবহারের। তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম ধাপের উপজেলা নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করার জন্য কমিশন সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিয়েছে।” দেশের ৪৯২ উপজেলার মধ্যে পাঁচ ধাপে ভোট হচ্ছে এবার। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, আগামী ১০ মার্চ প্রথম ধাপে ৮৭ উপজেলায় ভোট, দ্বিতীয় ধাপে ১৮ মার্চ ১২৯ উপজেলা, তৃতীয় ধাপে ২৪ মার্চ সাত বিভাগের ২৫ জেলার ১২৭টি উপজেলায় নির্বাচন  হবে।  এছাড়া ৩১ মার্চ চতুর্থ ও ১৮ জুন পঞ্চম ধাপে উপজেলা নির্বাচন করা হবে। উপজেলায় ইভিএম ব্যবহারের আইন থাকলেও এখনও এ সংক্রান্ত বিধিমালা জারি হয়নি। এজন্যে বিলম্ব করতে হচ্ছে কমিশনকে।

ডিসিসিতে ইভিএম ব্যবহার হবে না

সকালে নির্বাচন ভবনে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের উপলক্ষে আইনশৃঙ্খলা সমন্বয় কমিটির সভা শেষে সাংবাদিকদের ইসি সচিব জানান, পরীক্ষামূলকভাবে ঢাকায় দুটি কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহারের পরিকল্পনা থাকলেও তা আর করা হচ্ছে না। এক প্রশ্নে হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, “ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে না। তিনি জানান, ঢাকার প্রতি কেন্দ্রে ২২ জন করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য থাকবেন। আর ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে ২৪ জন করে থাকবেন। এছাড়া বিজিবি, র‌্যাবের বিষেশ টহল, ম্যাজিস্ট্রেট টিম থাকবে। আগামী ২৮ ফেব্র“য়ারি ঢাকা উত্তরে মেয়র পদে উপ-নির্বাচন এবং উত্তর ও দক্ষিণ মিলিয়ে  ৩৮টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর নির্বাচন হতে যাচ্ছে।

একাদশ সংসদের বৈধতা নিয়ে হাইকোর্টে আপিল করব – ব্যারিস্টার খোকন

ঢাকা অফিস ॥ একাদশ জাতীয় সংসদ সদস্যদের শপথের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা রিট খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। এর মধ্য দিয়ে আদালতেও একাদশ সংসদের বৈধতা পেল। তবে আদালতের এ আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করবেন বলে জানিয়েছেন রিটকারী আইনজীবী ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। সোমবার বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাইকোর্ট বেঞ্চ একাদশ সংসদের সদস্যদের শপথের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে দায়ের রিট খারিজ করে দেন। এর আগে গত ৬ ফেব্র“য়ারি শুনানি শেষে আদেশের জন্য ১৮ ফেব্র“য়ারি দিন ঠিক করে দিয়েছিলেন আদালত। গত ১৭ জানুয়ারি রিট আবেদনকারী উপযুক্ত পক্ষ না হওয়ায় আবেদনটি উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ করিয়ে নেন রিটকারী। এর পর ব্যারিস্টার এএম মাহবুব উদ্দিন খোকন নতুন করে একই বিষয়ে পুনরায় রিট করেন। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন এ্যাটর্নি  জেনারেল মাহবুবে আলম। রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার এএম মাহবুব উদ্দিন খোকন। সঙ্গে ছিলেন ব্যারিস্টার একেএম এহসানুর রহমান। আদেশের পর ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন গণমাধ্যমকে জানান, আদালতের এ খারিজ আদেশের বিরুদ্ধে তিনি আপিল বিভাগে আপিল করবেন। তিনি বলেন, আদালতের আদেশে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠিত হয়নি। ৮ জানুয়ারি সংবিধান অনুসারে দশম জাতীয় সংসদ না ভেঙে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নির্বাচিত এমপিদের নেয়া শপথের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে জাতীয় সংসদের স্পিকার, প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে আইনি নোটিশ দেয়া হয়। সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মোঃ তাহেরুল ইসলাম তাওহীদের পক্ষে নোটিশটি পাঠান মাহবুব উদ্দিন খোকন। নোটিশে বলা হয়, সংবিধানের ১২৩(৩) অনুচ্ছেদে- সংসদ ভেঙে দিয়ে পুনরায় এমপিদের শপথ অনুষ্ঠিত হওয়ার বিধান রয়েছে। কিন্তু সে অনুচ্ছেদ প্রতিপালন না করে পুনরায় সংসদ সদস্যরা শপথ নেয়ায় বর্তমানে দুটি সংসদ বহাল রয়েছে, যা সংবিধান পরিপন্থী। কিন্তু সে নোটিশের কোনো জবাব না পাওয়ায় হাইকোর্টে রিট করা হয়। রিটে বলা হয়, সংবিধানের ১২৩ (৩) অনুচ্ছেদে সংসদ ভেঙে দিয়ে পুনরায় সংসদ সদস্যদের শপথ অনুষ্ঠিত হওয়ার বিধান রয়েছে। কিন্তু সে অনুচ্ছেদ প্রতিপালন না করে পুনরায় সংসদ সদস্যরা শপথ নেয়ায় বর্তমানে দুটি সংসদ বহাল রয়েছে, যা সংবিধান পরিপন্থী। কিন্তু সে নোটিশের কোনো জবাব না পাওয়ায় গত ১৫ জানুয়ারি হাইকোর্টের সংশি¬ষ্ট শাখায় ব্যারিস্টার খোকন এ রিট করেন। এর পর গত ১৬ জানুয়ারি রিটটির ওপর শুনানি শেষ হলে গত ১৭ জানুয়ারি আদেশের জন্য দিন নির্ধারণ করেন হাইকোর্ট। তবে আদেশের দিন রিট আবেদনকারী উপযুক্ত পক্ষ না হওয়ায় আবেদনটি উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ করিয়ে নেন রিটকারী। এর পর ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন নতুন করে একই বিষয়ে পুনরায় এ রিট করেন। রিট করে মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছিলেন, সংবিধানের ১২৩ (৩) অনুচ্ছেদে বলা আছে- সংসদের মেয়াদোত্তীর্ণ হলে আগের সংসদ সমাপ্ত না হওয়া পর্যন্ত এরা দায়িত্ব পালন করবেন। সে অনুযায়ী নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যদের ৩ জানুয়ারি নেয়া শপথে সংবিধান লঙ্ঘন করা হয়েছে। তিনি বলেন, ১৪৮(৩) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী- শপথের জন্য নির্বাচিতদের উচিত ছিল ১২৩(৩) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী ২৮ জানুয়ারি পর্যন্ত অপেক্ষা করা। এ জন্য আমরা বলেছি- গেজেটের মাধ্যমে এ শপথ বাতিল করতে। আর অনুচ্ছেদ ১৪৮(৩) এ বলা হয়েছে- এই সংবিধানের অধীন যে ক্ষেত্রে কোনো ব্যক্তির পক্ষে কার্যভার গ্রহণের আগে শপথগ্রহণ আবশ্যক, সে ক্ষেত্রে শপথগ্রহণের অব্যবহিত পর তিনি কার্যভার গ্রহণ করিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবে। অনুচ্ছেদ ১২৩(৩) এ বলা হয়েছে- তবে শর্ত থাকে যে, এই দফার (ক) উপ-দফা অনুযায়ী অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনে নির্বাচিত ব্যক্তিরা, উক্ত উপ-দফায় উলি¬খিত মেয়াদ সমাপ্ত না হওয়া পর্যন্ত সংসদ সদস্য রূপে কার্যভার গ্রহণ করিবেন না।

বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা সভানেত্রী দেশে ফেরার পর – কাদের

ঢাকা অফিস ॥ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে যারা ভোটে দাঁড়িয়েছিলেন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। গতকাল সোমবার দুপুরে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে সম্পাদকমন্ডলীর  বৈঠক শেষে তিনি বলেন, “জাতীয় নির্বাচনের আগে আমাদের কার্যানির্বাহী বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছিল দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে যারা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। “আমরা সেই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন নিয়ে কথা বলেছি। অতীতের যেকোনো সময়ের তুলনায় এবার বিদ্রোহী প্রার্থী ছিল একেবারেই কম। এগুলো নিয়ে এতদিন আমরা খোঁজ-খবর নিয়েছি। যারা নির্বাচন শেষ পর্যন্ত ছিল তাদের বিরুদ্ধে আমরা পর্যায়ক্রমে ব্যবস্থা নিতে শুরু করব। নেত্রী দেশে ফিরে আসলে এই বিষয়ে আলাপ আলোচনা করব।” টানা তৃতীয় মেয়াদে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেওয়ার পর প্রথম বিদেশ সফরে জার্মানিতে নিরাপত্তা সম্মেলনে অংশ নেওয়ার পর বর্তমানে আবু ধাবিতে রয়েছেন শেখ হাসিনা। ২০ ফেব্র“য়ারি ঢাকায় ফেরার কথা রয়েছে তার। একাদশ নির্বাচনে কতজন বিদ্রোহী প্রার্থী ছিলেন জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, “সো ফার আমরা দুইজন বিদ্রোহী প্রার্থী পেয়েছি। নেত্রী এলেই আমরা এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেব।” তিনি বলেন, “উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দল মনোনীত কোনো প্রার্থীর বিরুদ্ধে অভিযোগ আসলে তা খতিয়ে দেখা হবে। অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হলে তাদের প্রার্থীতা আমরা রাখব না। বিকল্প প্রার্থী দেব।” উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, “দলের সিদ্ধান্ত ব্রেক করা মানেই হল দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ করা। এর একটা শাস্তি তো রয়েছে। পরবর্তী মিটিংয়ে শাস্তিটা কি হবে এটা নির্ধারণ হবে।” যুদ্ধাপরাধে অভিযুক্ত রাজনৈতিক দল জামায়াতে ইসলামী নতুন নামে মাঠে আসার পরিকল্পনা করছে- বিষয়টিকে কিভাবে দেখছেন এমন প্রশ্নে কাদের বলেন, “‘নতুন বোতলে পুরাতন পানীয়’ এমন যদি হয়, নাম পরিবর্তন করবে কিন্তু আদর্শ একই এবং অটুট থাকবে তাহলে সেটা পরিবর্তন কি? নাম পরিবর্তন করলে কিন্তু নীতি আদর্শ পরিবর্তন করলেন না, তাহলে পরিবর্তন কি হল?। এটাকে পরিবর্তন বলা চলে না।” এখন জামায়াতকে নিষিদ্ধ করার উপযুক্ত সময় কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, “আমরা সবসময়কে উপযুক্ত সময় মনে করি। এখানে আদালতের একটা সিদ্ধান্তের বিষয় রয়েছে সেটাকে তো আমরা উপেক্ষা করতে পারি না।” সম্পাদকমন্ডলীর বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, বন ও পরিবেশ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক রোকেয়া সুলতানা।

 

মিরপুরে অবহিতকরণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

আছাদুর রহমান ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে ইউনিয়ন ও স্বাস্থ্য পরিবার কেন্দ্রে ২৪/৭ (সার্বক্ষণিক) স্বাভাবিক প্রসবসেবা জোরদারকরণ বিষয়ক এক অবহিতকরণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সোমবার সকালে পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের এমসিএইচ ইউনিটের আয়োজনে ও উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসের বাস্তবায়নে উপজেলা অডিটোরিয়ামে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। এতে মিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম জামাল আহমেদের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডাঃ এস এম মুসতানজিদ। মিরপুর উপজেলা ভারপ্রাপ্ত পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মুনমুনের পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া সির্ভিল সার্জন ডাঃ রওশন আরা বেগম, মিরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক কামারুল আরেফিন, পরিকল্পনা অধিদপ্তরের এমসিএইচ সার্ভিসেস ইউনিটের উপ-পরিচালক ডাঃ তৃপ্তি বালা, জেলা পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক সরদার মোঃ হান্নান, উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান বাহাদুর শেখ, মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান শারমিন আক্তার নাসরিন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সেলিম হোসেন ফরাজী, সদরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রবিউল হক রবি, ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী আব্দুস সালাম, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ আব্দুর রকিব, সাফ সংস্থার নির্বাহী পরিচালক মীর আব্দুর রাজ্জাক প্রমুখ।

প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ চান ভাষা শহীদ জব্বারের পরিবার

ঢাকা অফিস ॥ সালাম, বরকত, জব্বার, রফিক, শফিকের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত আমাদের বাংলা ভাষা। যা ২১ ফেব্র“য়ারি বিশ্বে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবে স্বীকৃত। বাংলাদেশী হিসেবে এটা আমাদের গর্বের বিষয় বলে জানান, ভাষা শহীদ জব্বারের ছেলে মুক্তিযোদ্ধা নূরুল ইসলাম বাদল। ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার রাওনা ইউনিয়নের পাঁচুয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন শহীদ আব্দুল জব্বার। ভাষা আন্দোলনের সূর্য সৈনিক আব্দুল জব্বারের পরিবারে এখন বিরাজ করছে দৈন্যদশা। শহীদ আব্দুল জব্বারে ছেলে জানান, গ্রামের বাড়িতে তাদের কোন জমি নেই। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৩ সালে রাজধানী ঢাকার তেজকুনি পাড়ায় সাড়ে ৫ শতাংশ জমি দিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধুর অবদান একখ- জমিই পরিবারের বিশাল প্রাপ্তি ও বড় সম্বল। সাড়ে ৫ শতাংশ জমিতেই আধাপাকা একটি বাড়ি নির্মাণ করে থাকছেন ভাষা শহীদ আব্দুল জব্বারে ছেলে মুক্তিযোদ্ধা নূরুল ইসলাম বাদল (৬৯)। আর্থিক দৈন্যতায় বাড়িটির কোন উন্নয়ন করতে পারেননি। বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকতে প্রতিবছর ভাষা শহীদ পরিবারের সাথে দেখা করতেন। তার প্রত্যাশা বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাও যেন ২১ ফেব্র“য়ারিতেই তাদের সাক্ষাৎ দেন এবং কথা বলেন। তিনি বলেন, গফরগাঁও উপজেলা প্রশাসন বছরে একবার শুধু ২১ ফেব্র“য়ারি তাদের খোঁজ নেয়। আর কোন সময় খবর নেয় না তারা। সরকারিভাবে মাসে ১০ হাজার টাকা সম্মানী দেয়া হয়। ভাষা শহীদ আব্দুল জব্বারের ছেলে মুক্তিযোদ্ধা নূরুল ইসলাম বাদল বলেন, প্রাথমিক স্তরে তৃতীয় শ্রেণীতে ৪ শহীদের জীবনী থাকলেও সেটা সংক্ষিপ্ত পরিসরে। মাধ্যমিক উচ্চ মাধ্যমিক স্তরেও ভাষা শহীদদের পরিপূর্ণ জীবন ইতিহাস তুলে ধরা উচিত। নতুন প্রজন্ম ভাষা শহীদদের বিষয়ে জানতে পারবে। অন্যদিকে শহীদ আব্দুল জব্বারের গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার পাঁচুয়া (জব্বার নগরে) একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপন করার দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী। ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার রাওনা ইউনিয়নের পাঁচুয়া গ্রামে (জব্বার নগরে) শহীদ জব্বারের নিজ গ্রামের বাড়ির সামনে ২০০৮ সালের ১ ফেব্র“য়ারি এডিপির অর্থায়নে নির্মিত শহীদ জব্বার স্মৃতি গ্রন্থাগার ও জাদুঘর উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধনের পর ১০ বছর পেরিয়ে গেলেও এ অঞ্চলের দীর্ঘ প্রত্যাশিত ভাষা শহীদ আব্দুল জব্বার স্মৃতি গ্রন্থাগার ও জাদুঘরটি আজও পূর্ণাঙ্গতা পায়নি। গেজেটে অন্তর্ভুক্তি হয়নি জব্বার নগরের নাম। জাদুঘরটিতে দীর্ঘ ৭ বছর ধরে দৈনিক পত্রিকা সরববাহ বন্ধ রয়েছে। ভাষা শহীদ আব্দুল জব্বার গ্রন্থাগারে ৪ হাজার ১৩০টি বই রয়েছে। উপজেলা সদর থেকে পৌনে ৫ কিলোমিটার দূরে এবং অধিকাংশ রাস্তার বেহালদশা থাকায় একেবারেই কমে গেছে পাঠকের সংখ্যা। গ্রন্থাগারে একটি কম্পিউটার সরবরাহ থাকলেও ইন্টারনেট সংযোগ না থাকার কারণে কক্ষটি তালাবদ্ধ থাকে। ভাষা শহীদ আব্দুল জব্বার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, ভাষা শহীদদের স্মৃতি চিহ্নযুক্ত সব বই এখনও জাদুঘরে নেই। শহীদ আব্দুল জব্বার স্মৃতি গ্রন্থাগারটি নামে জাদুঘর হলেও শহীদ জব্বারের ছবি ছাড়া ব্যবহৃত কোন বস্ত্র বা জিনিসপত্র এখানে নেই। ভাষা শহীদ আব্দুল জব্বার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কে এইচ এম আসাদ নয়ন জানান, বিদ্যালয়ে ১৪০ জন শিক্ষার্থী রয়েছে। পেক্ষ থেকে ৫ম শ্রেণী পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের জায়গা সংকুলান হয় না। ৫ জন শিক্ষকের বসার জন্য অফিস রুমটি খুবই ছোট। বাইরে থেকে দুজন লোক আসলে বসার জায়গা দিতে গিয়ে হিমশিম খেতে হয়। তিনি পুরাতন ছোট ভবনের স্থলে একটি আধুনিক ভবন নির্মাণের জন্য দাবি জানান।

আমার বুকেও প্রতিশোধের আগুন জ্বলছে – নরেন্দ্র মোদি

ঢাকা অফিস ॥ কাশ্মীরের পুলওয়ামায় গত বৃহস্পতিবার গাড়ি বোমা হামলায় অন্তত ৪০ জওয়ানের নিহত হওয়ার ঘটনায় বুকে ‘প্রতিশোধের আগুন জ্বলছে’ বলে জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। রোববার বিহার রাজ্যে এক অনুষ্ঠানে গিয়ে মোদি নিহত জওয়ানদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে এমন কথা বলেন। সন্ত্রাসীদের এমন হামলার ঘটনার তীব্র প্রতিক্রিয়া ও নিন্দা জানিয়ে মোদি বলেন, ‘দেশবাসীর মনে কতটা আগুন জ্বলছে আমি তা অনুভব করতে পারছি। জেনে রাখুন, যে আগুন আপনাদের বুকে জ্বলছে, আমার বুকেও সেই একই আগুন জ্বলছে।’ রোববার বিহারের বারউনিতে একাধিক প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করতে গিয়ে এক অনুষ্ঠানে যোগ দেন মোদি। সেখানে পুলওয়ামা হামলায় ভারতের সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্সের (সিআরপিএফ) নিহত জওয়ান বিহারের সঞ্জীব কুমার সিনহা ও ভাগলপুরের রতন কুমার ঠাকুরের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান তিনি। বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের উপস্থিতিতে বারাউনিতে প্রায় সাড়ে ১৩ হাজার কোটি টাকার পাটনা মেট্রো রেল প্রকল্পের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন মোদি। তবে মোদির বক্তৃতায় সবকিছু ছাপিয়ে মুখ্য হয়ে ওঠে পুলওয়ামা জঙ্গি হামলার ঘটনা। গত বৃহস্পতিবার ভারতশাসিত জম্মু-কাশ্মীরে বোমা হামলায় দেশটির সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্সের (সিআরপিএফ) অন্তত ৪০ জন সদস্য নিহত হওয়ার ঘটনায় সেনাবাহিনীকে যেকোনো পদক্ষেপ নেওয়ার স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে বলে গতকাল জানান মোদি। তাছাড়া দিলি¬র পক্ষ থেকে পাকিস্তানকে একঘরে করার হুমকিও দেয়া হয়েছে। পুলওয়ামা হামলার দায় স্বীকার করেছে পাকিস্তানভিত্তিক সশস্ত্র জঙ্গি সংগঠন জঈশ-ই-মোহাম্মদ। ভয়াবহ এ হামলার সমালোচনা কের নিন্দা জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, ফ্রান্সসহ একাধিক দেশ। দেশগুলো সন্ত্রাসবাদ দমনে ভারতের পাশে থাকারও আশ্বাস দিয়েছে।

সাংসদদের শপথের বৈধতা প্রশ্নে রিট আবারও খারিজ

ঢাকা অফিস ॥ একাদশ জাতীয় নির্বাচনে জয়ীদের শপথ অবৈধ দাবি করে ২৯০ জনের সাংসদ পদে থাকার বৈধতা প্রশ্নে দায়ের করা রিট আবেদন সরাসরি খারিজ করে দিয়েছে হাই কোর্ট। বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের বেঞ্চ গতকাল সোমবার এ আদেশ দেয়। আদালতে রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন এম মাহবুবউদ্দিন খোকন ও সাকিব মাহবুব। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটির্নি জেনারেল মোখলেছুর রহমান। দশম সংসদ বহাল থাকা অবস্থায় একাদশ সংসদের এমপিদের শপথের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিট আবেদনটি করেছিলেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী তাহেরুল ইসলাম তৌহিদ। বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি মো. আশরাফুল কামালের হাই কোর্ট বেঞ্চ গত ১৭ জানুয়ারি আবেদনটি ‘উত্থাপিত হয়নি’ বলে খারিজ করে দিয়েছিল। পরে ফের রিট আবেদনটি করা হলে গত ৬ ফেব্র“য়ারি শুনানি নিয়ে আদালত ১৮ ফেব্র“য়ারি আদেশের দিন রেখেছিল। আদেশের পর ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোখলেছুর রহমান বলেন, “একাদশ জাতীয় নির্বাচনে নির্বাচিত সংসদ সদস্যরা দায়িত্ব নেবেন বলেই গত ৩ জানুয়ারি তারা শপথ নিয়েছেন। সংসদের প্রথম অধিবেশন বসেছে ৩০ জানুয়ারি। সংবিধান অনুযায়ী সংসদের প্রথম অধিবেশন বসার দিন থেকে সংসদ সদস্যরা কার্যভার গ্রহণ করে থাকেন। ফলে আগে শপথ নিলেও তাতে সংবিধান বা আইনের ব্যত্যয় ঘটেনি। ফলে রিট আবেদনটি সরাসরি খারিজ করে দিয়েছে আদালত। “আদালত বলেছে, ‘সংসদ অধিবেশন শুরুর আগে শপথ নেওয়ার মুখ্য উদ্দেশ্য হচ্ছে সরকার গঠন। কারণ রাষ্ট্রপতি সংখ্যাগরিষ্ঠ আসন পাওয়া দলের প্রধানকে সরকার গঠনের আমন্ত্রণ জানিয়ে থাকেন। এ কারণে নির্বাচিত সদস্যরা আগে শপথ নিয়েছেন। আর সংসদ অধিবেশন শুরুর আগে সরকার গঠন করা হয়ে থাকে। অতএব রিট আবেদনটি সরাসরি খারিজ করা হল’।” অন্যদিকে আদালতের আদেশের বিরুদ্ধে আপিলে যাওয়ার কথা বলেছেন রিটকারীর আইনজীবী বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মাহবুবউদ্দিন খোকন। তিনি বলেন, “আমরা মনে করি, শপথ গ্রহণের দিন থেকেই সংসদ সদস্যদের কার্যভার গ্রহণ করা হয়। কিন্তু আদালত সংসদের প্রথম অধিবেশন থেকে সংসদ সদস্যদের কার্যভার গ্রহণ করার কথা বলেছেন। আদালতের এই পর্যবেক্ষণ যথাযথ মনে করছি না। তাই এ আদেশের বিরুদ্ধে আমরা আপিল বিভাগে যাব।” ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নির্বাচিত সংসদ সদস্যরা ৯ জানুয়ারি শপথ নিয়েছিলেন। বিএনপিবিহীন ওই সংসদের যাত্রা শুরু হয়েছিল ওই বছরের ২৯ জানুয়ারি। সে অনুযায়ী এ বছরের ২৯ জানুয়ারি পর্যন্ত দশম সংসদের মেয়াদ ছিল। মেয়াদ অবসানের ৯০ দিন আগে থেকে পরবর্তী ৩০ দিনের মধ্যে নতুন নির্বাচন করার সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা অনুসরণ করে গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ সংসদ নির্বাচন হয়। নির্বাচনে বিজয়ীরা গত ৩ জানুয়ারি সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নেন। এরপর ৭ জানুয়ারি নতুন সরকারও শপথ নেয়। তার একদিন বাদে গত ৮ জানুয়ারি নতুন এমপিদের শপথ বাতিল করে গেজেট প্রকাশের দাবি জানিয়ে স্পিকার, প্রধান নির্বাচন কমিশনার, মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে উকিল নোটিস দেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী তাহেরুল ইসলাম তৌহিদ। তার আইনজীবী হিসেবে মাহবুবউদ্দিন খোকন ওই নোটিস পাঠান। ওই নোটিসের জবাব না পাওয়ায় নতুন সাংসদদের শপথের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে গত ১৪ জানুয়ারি রিট আবেদন করেন তাহেরুল ইসলাম তৌহিদ।