ইবিতে দু’দিনব্যাপী কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ কর্মশালায় ভিসি ড. রাশিদ আসকারী

আর্থিক ও অফিসিয়াল ব্যবস্থাপনায় দক্ষ মানব শক্তি গড়ে তুলতে চাই

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী (ড. রাশিদ আসকারী) বলেছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা দিয়েছেন এবারের সরকার পরিচালনায় তাঁর মূলনীতি হচ্ছে দুর্নীতি দমন। প্রধানমন্ত্রী আরও বলেছেন, যেখানেই দুর্নীতি সেখানেই ব্যবস্থা। আমরা তাঁর সেই ঘোষণা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি ক্ষেত্রে সর্বাত্বক গুরুত্ব দিয়ে চলেছি। এখানে অতীতের যে কোন সময়ের চেয়ে বর্তমানে আর্থিক ব্যবস্থাপনা সুশৃঙ্খল ও সুচারুরূপে পরিচালিত হচ্ছে। তিনি বলেন, আর্থিক ব্যবস্থাপনায় যারা উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে অনিয়ম করেছেন ইতোমধ্যে এমন ৩৬ জনকে তিরস্কার এবং বিভিন্ন মেয়াদে শাস্তি প্রদান করা হয়েছে। যা শুধু ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় নয়, দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে ইতিহাস সৃষ্টি করেছে। তিনি বলেন, আমরা স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা এবং উদ্ভাবনীনীতি অনুসরণ করে আর্থিক ব্যবস্থা ও অফিসিয়াল ব্যবস্থাপনায় দক্ষ মানব শক্তি গড়ে তুলতে চাই। এ বিষয়ে তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন। গতকাল শনিবার সকালে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় আইকিউএসি’র আয়োজনে, প্রশাসন ভবনের সভা কক্ষে আর্থিক ব্যবস্থাপনার সাথে সর্ম্পকযুক্ত কর্মকর্তাদের দ্বিতীয় দিনের প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি’র বক্তৃতায় ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি’র বক্তৃতায় প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান বলেন, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় বর্তমানে আধুনিক বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপ নিয়েছে। অতীতের সকল জঞ্জাল সরিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। তিনি বলেন, আমাদের সকলকে শৃঙ্খলার মধ্যদিয়ে সতর্কতার সাথে প্রতিটি ব্যয় নির্বাহ করতে হবে। তাহলে আমরা আর্থিক ব্যবস্থাপনায় সফল হতে পারবো।

অপর বিশেষ অতিথি ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা বলেন, আজকের এই সেমিনারের মধ্যদিয়ে আর্থিক ব্যবস্থাপনায় কিভাবে স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা বজায় রাখতে হবে,  এর আইনী দিক কি আছে,  আধুনিক পদ্ধতি কি আছে এবং বিদ্যমান তথ্য পদ্ধতিসমুহ কিভাবে কাজে লাগানো যায় সে সম্পর্কে আমরা জানতে পারব। এর মধ্যদিয়ে আমরা আর্থিক ব্যবস্থাপনায় দক্ষ হয়ে গড়ে উঠবো। অনুষ্ঠানে রিসোর্স পারসন হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ বিশ^বিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের অর্থ ও হিসাব বিভাগের পরিচালক (চলতি দায়িত্ব) মোঃ রেজাউল করিম হাওলাদার। স্বাগত বক্তব্য রাখেন রেজিস্ট্রার (ভার:) এস এম আব্দুল লতিফ। সভাপত্বি করেন আইকিউএসি’র পরিচালক প্রফেসর ড. কে এম আব্দুস ছোবহান। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন ইবি’র উপ-রেজিস্ট্রার (প্রশাসন) ও এপিএ ফোকাল পয়েন্ট ড. নওয়াব আলী খান। দু’দিনব্যাপী এ কর্মশালায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

গ্রামীণ সাংবাদিকতার প্রবাদপুরুষ কাঙ্গাল হরিনাথ’র ১৮৬তম জন্মজয়ন্তী উদযাপন

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ উনবিংশ শতাব্দীর কালজয়ী সাধক, সাংবাদিক, সাহিত্যিক সমাজসেবক ও নারী জাগরণের অন্যতম দিকপাল কাঙ্গাল হরিনাথ মজুমদারের ১৮৬তম জন্মজয়ন্তী উদযাপন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে গতকাল শনিবার বিকাল সাড়ে ৪টায় কাঙ্গাল হরিনাথ স্মৃতি জাদুঘর হলরুমে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়া-৪ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ।

কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মুহাম্মদ নূর- এ আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরের সচিব (যুগ্ম সচিব) মো: আবদুল মজিদ, কুমারখালী পাবলিক লাইব্রেরীর সাধারন সম্পাদক মমতাজ বেগম।

প্রধান আলোচক হিসাবে আলোচনা করেন বিশিষ্ট গবেষক ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রাক্তণ অধ্যাপক ড. আবুল আহসান চৌধুরী। আলোচক হিসাবে বক্তব্য রাখেন, মুজিবনগর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ স্বপন রায়, কুষ্টিয়া সরকারি কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল মো: আনছার হোসেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন কাঙ্গাল হরিনাথ স্মৃতি জাদুঘর পরিচালনার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা প্রদর্শক প্রভাষক সৈয়দ এহসানুল হক। এ ছাড়াও স্থানীয় সাংবাদিক কে, এম আর শাহীন বক্তব্য রাখেন। আলোচনা অনুষ্ঠান শেষে স্থানীয় শিল্পীদের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। কালজয়ী এই সাংবাদিক ১২৪০ সালের ৫ই শ্রাবণ (ইংরেজি ১৮৩৩) কুষ্টিয়া জেলার (তদানীন্তন নদীয়া) কুমারখালী শহরের কুন্ডুপাড়ায় বাবা হলধর মজুমদার ও মা কমলিনী দেবীর সংসারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন বাবা-মায়ের একমাত্র সন্তান। শৈশবেই মাতৃ ও পিতৃহারা হয়ে চরম দারিদ্রতার মধ্যদিয়ে বেড়ে উঠেন কাঙ্গাল হরিনাথ। ৬৩ বছরে জীবনকালে তিনি সাংবাদিকতা, আধ্যাত্ম সাধন, সাহিত্যচর্চা সহ নানাধরণের সামাজিক আন্দোলনের সঙ্গে সম্পৃক্ত হন। কালজয়ী এই সাংবাদিক কাঙ্গাল হরিনাথ ছিলেন অত্যার ও জুলুমের বিরুদ্ধে আপসহীন। তৎকালীন সময়ে তিনি (১৮৫৭ সাল) প্রাচীন জনপদ কুমারখালীর নিভৃত গ্রাম থেকে হাতে লেখা পত্রিকা মাসিক গ্রামবার্ত্তা প্রকাশিকা প্রকাশ করেন। তিনি গ্রামবার্ত্তা প্রকাশিকায় ইংরেজ নীলকর, জমিদার ও শোষক শ্রেণীর অত্যাচার, জুলুম, ধর্মান্ধতা, কুসংস্কার ও সামাজিক কু-প্রথার বিরুদ্ধে খবর প্রকাশ করেন। হাজারো বাধা-বিপত্তি উপেক্ষা করে তিনি পত্রিকাটি প্রায় একযুগ প্রকাশ করেছিলেন। পরবর্তীতে মাসিক থেকে পাক্ষিক এবং ১৮৬৩ সালে সাপ্তাহিক আকারে কলকাতার গিরিশচন্দ্র বিদ্যারতœ প্রেস থেকে নিয়মিত প্রকাশ করেন। এতে চর্তুদিকে সাড়া পড়ে যায়। ১৮৭৩ সালে কাঙ্গাল হরিনাথ মজুমদার তাঁর সুহৃদ অক্ষয় কুমার মৈত্রেয়’র বাবা মথুরনাথ মৈত্রয়’র আর্থিক সহায়তায় কুমারখালীতে এম, এন প্রেস স্থাপন করে গ্রামবার্ত্তা প্রকাশিকা’র প্রকাশনা অব্যাহত রাখেন। সাধকপুরুষ ও কালজয়ী সাংবাদিক কাঙ্গাল হরিনাথ মজুমদার বাংলা ১৩০৩ সালের ৫ বৈশাখ (ইংরেজি ১৮৯৬ সাল, ১৬ এপ্রিল) নিজ বাড়িতে দেহত্যাগ করেন। তিনি মৃত্যুকালে তিন পুত্র, এক কন্যা এবং স্ত্রী স্বর্ণময়ীকে রেখে যান। সাংবাদিক কাঙ্গাল হরিনাথ মজুমদার প্রায় ৪০টি গ্রন্থ রচনা করেছেন। তাঁর কয়েকটি গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। তবে বেশিরভাই অপ্রকাশিত রয়ে গেছে। তাঁর গ্রন্থগুলোর মধ্যে বিজয় বসন্ত একটি সফল উপন্যাস। গবেষকদের মতে, কাঙ্গাল হরিনাথ রচিত বিজয় বসন্ত উপন্যাসটিই বাংলা ভাষায় লেখা প্রথম উপন্যাস। আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, কালজয়ী সাংবাদিক কাঙ্গাল হরিনাথ মজুমদারের স্মৃতি রক্ষার্থে সরকারি উদ্যোগে কুমারখালীতে সাংবাদিক কাঙ্গাল হরিনাথ স্মৃতি জাদুঘর নির্মাণ করা হলেও এখনো অবহেলিত রয়েছে তাঁর জন্মভিটা (বাস্তুভিটা)। এ ছাড়াও কাঙ্গাল হরিনাথ ব্যবহৃত ও গ্রামবার্ত্তা প্রকাশিকা’র সেই মুদ্রণ যন্ত্রটি এখনো অযতœ অবহেলায় অন্ধকার একটি ভাঙ্গা ঘরে পড়ে রয়েছে। এজন্য অনতিবিলম্বে ঐতিহ্যবাহি এই মুদ্রণ যন্ত্রটি কাঙ্গাল হরিনাথ স্মৃতি জাদুঘরে স্থানান্তর এবং কাঙ্গালের সমাধিসহ জন্মভিটা (বাস্তুভিটা) সংরক্ষণে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার দাবী জানান বক্তারা।

ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের নিয়ে যৌথসভা  - ওবায়দুল কাদের

শদ্রোহী বক্তব্যের জন্য প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, এনজিও কর্মী প্রিয়া সাহার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের কাছে করা অভিযোগ দেশের ভেতরে লুকায়িত সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীকে উৎসাহিত করবে। তার এ ধরনের বক্তব্য দেশদ্রোহীতার শামিল। তিনি বলেন, প্রিয়া সাহা ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে যে অভিযোগ করেছেন তা কিভাবে ভিডিওয়ের মাধ্যমে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে গেল, তা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। সেতুমন্ত্রী কাদের বলেন, প্রিয়া সাহার বক্তব্য সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট, কাল্পনিক ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত। আমরা তার এ ধরনের বক্তব্যে তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাই। প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে কোন ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হবে কি না সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে কাদের বলেন, তার (প্রিয়া সাহা) এ ধরনের দেশদ্রোহী বক্তব্যের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতেই হবে। তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে। আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা-নেত্রীর সঙ্গে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে প্রিয়া সাহার ছবি দেখা গেছে তাদের বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘তার সঙ্গে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কোন সম্পর্ক নেই। তার কোথাও আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্য পদও নেই।’ ওবায়দুল কাদের গতকাল শনিবার দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডির আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে আগস্ট মাসের কর্মসূচী নির্ধারণ করার লক্ষ্যে দলের সম্পাদকমন্ডলীর সঙ্গে সহযোগী সংগঠন ও ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের নিয়ে যৌথসভা শেষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন।প্রিয়া সাহা নামের এক এনজিও কর্মী বাংলাদেশ থেকে ৩ কোটি ৭০লাখ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বী উধাও হয়ে গেছে বলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে অভিযোগ করেন। তার এ অভিযোগ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।এ সময় আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সবুর, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসনাত, মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান এমপিসহ সহযোগী সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকরা উপস্থিত ছিলেন।আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘দেশপ্রেমিক কোন ব্যক্তিই প্রিয়া সাহার বক্তব্যের সঙ্গে একমত হবেন না। আমি হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে তার (প্রিয়া সাহা) বক্তব্য নিয়ে আলোচনা করেছি। তারাও তার বক্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।’তিনি বলেন, ‘আমি এ বিষয়ে বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূতের সঙ্গেও কথা বলেছি। তিনিও বলেছেন, প্রিয়া সাহার বক্তব্য সম্পূর্ণ অসত্য ও কাল্পনিক। বাংলাদেশে সর্বোচ্চ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিরাজমান। তাই এ নিয়ে আর দ্বিধা-দ্বন্দ্বের আর কোন অবকাশ থাকতে পারে না।’তিনি বলেন, কোন সামাজিক অনুষ্ঠানে বা ভিড়াভিড়ির মধ্যে কারো সঙ্গে তার ছবি থাকলে সেটা ভিন্ন বিষয়। এর সঙ্গে আওয়ামী লীগের কোন সম্পর্ক নেই।উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী ও তাদের মদতদাতাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার বিষয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, আগামী ২৮ জুলাই থেকে তাদের বিরুদ্ধে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া শুরু হবে।তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত দু’শ অভিযোগ জমা পড়েছে। আজও অভিযোগ জমা পড়েছে। এ অভিযোগগুলো দায়িত্বপ্রাপ্ত বিভাগীয় যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদকদের কাছে দেয়া হয়েছে। তারা এ অভিযোগগুলোর সত্যতা যাচাই করে ২৭ জুলাইয়ের মধ্যে জমা দেবে। তারপর ব্যবস্থা নেয়া হবে।বন্যার ত্রাণ তৎপরতা সম্পর্কে সেতুমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী বন্যার ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ছয়টি টিম গঠন করা হয়েছে।তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট জাহাঙ্গীর কবিরের নেতৃত্বে কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, সভাপতিমন্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিমের নেতৃত্বে সিরাজগঞ্জ, বগুড়া, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফের নেতৃত্ব সিলেট, সুনামগঞ্জ ও হবিগঞ্জ, সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের নেতৃত্বে চট্টগ্রাম, বান্দরবান, রাঙ্গামাটি ও খাগড়াছড়ি, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপুমনির নেতৃত্বে মুন্সিগঞ্জ ও চাদপুর এবং সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে মানিকগঞ্জ, টাঙ্গাইল ও জামালপুরে ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে।কাদের বলেন, আজও আওয়ামী লীগের তিনটি প্রতিনিধিদল বন্যায় পানিবন্দি মানুষের মধ্যে ত্রান বিতরণ কার্যক্রম পরিচালনা করছে। টাঙ্গাইলে দলের সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামীম, কুড়িগ্রাম ও লালমনিরহাটে এডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক ও সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হকের নেতৃত্বে গাইবান্ধায় ত্রান বিতরণ কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।তিনি আরো বলেন, সরকারী ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমের সঙ্গে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপ-কমিটি কাজ করে যাচ্ছে। বন্যা পরবর্তী সময়েও বন্যা দুর্গতদের পুনর্বাসনে দলের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাদের বলেন, শোকের মাস আগস্ট মাসব্যাপী কর্মসূচী গ্রহনের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। আওয়ামী লীগের পাশাপাশি সহযোগি সংগঠনের কর্মসূচীর বিষয়েও দিন তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।

এর আগে ওবায়দুল কাদেরের সভাপতিত্বে এক যৌথসভা অনুষ্ঠিত হয়।

ইবিতে ফিন্যান্সসিয়াল ম্যানেজমেন্ট টু পাবলিক সেক্টর: ফোকাস অন ইউনিভার্সিটি ফিন্যান্সসিয়াল ম্যানেজমেন্ট শীর্ষক দুই দিনব্যাপী সেমিনারের উদ্বোধন

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের কনফারেন্সরুমে গতকাল শুক্রবার সকাল হতে দুই দিনব্যাপী ফিন্যান্সসিয়াল ম্যানেজমেন্ট টু পাবলিক সেক্টর: ফোকাস অন ইউনিভার্সিটি ফিন্যান্সসিয়াল ম্যানেজমেন্ট শীর্ষক দুইদিনব্যাপী সেমিনারের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রেজিস্ট্রার (ভারঃ) এস.এম আব্দুল লতিফ এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী (ড. রাশিদ আসকারী)  বলেন, সময় এসেছে এখন পরিবর্তনের। প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ ও চৌকস নেতৃত্বে দেশ আজ প্রতিক্ষণে উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাচ্ছে। আর উন্নয়নকে টেকসই করতে হলে আমাদেরকে আর্থিক ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রো ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান বলেন, আর্থিক শৃঙ্খলা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। শৃঙ্খলার জায়গাগুলো ভালো না হলে একটি প্রতিষ্ঠান ভালোভাবে চলতে পারে না। তিনি যেকোন দুর্নীতির বিরুদ্ধে বর্তমান সরকারের জিরো টলারেন্স এর বিষয়টি সেমিনারে উপস্থিত সকলকে স্মরণ করিয়ে দেন। এছাড়া সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্য ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা বলেন, বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিদিনই কোন না কোন বিষয়ে সেমিনার সিম্পোজিয়াম হচ্ছে যাতে করে নতুন নতুন তথ্যে সম্পর্কে আমরা অবহিত হচ্ছি। তিনি বলেন, প্রশিক্ষনের মাধ্যমেই উদ্ভাবনী বিষয় সম্পর্কে জানা যায়। সেমিনারে উপস্থিত সকলের উদ্দ্যেশে তিনি বলেন, আপনারা সমৃদ্ধ হলে বিশ্ববিদ্যালয় সমৃদ্ধ হবে আর বিশ্ববিদ্যালয় সমৃদ্ধ হলে দেশ সমৃদ্ধ হবে এবং দেশ সমৃদ্ধ হলে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠিত হবে। দিনব্যাপী সেমিনারে রিসোর্স পারসনের বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের অর্থ ও হিসাব বিভাগের পরিচালক (চলতি দায়িত্ব) মোঃ রেজাউল করিম হাওলাদার। সেমিনারটি ফোকাল পয়েন্ট ও সঞ্চালনার দায়িত্বে ছিলেন উপ-রেজিস্ট্রার ড. নওয়াব আলী খান। দিনব্যাপী ফিন্যান্সসিয়াল ম্যানেজমেন্ট টু পাবলিক সেক্টর: ফোকাস অন ইউনিভার্সিটি ফিন্যান্সসিয়াল ম্যানেজমেন্ট শীর্ষক সেমিনারে বিভিন্ন অফিস ও বিভাগের বিভিন্ন  পর্যায়ের কর্মকর্তারা  উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

কুষ্টিয়া এডিটরস্ ফোরাম’র জরুরী সভা ২৩ জুলাই

আগামী ২৩ জুলাই ২০১৯ খ্রীঃ সকাল ১১টায় কুষ্টিয়া প্রেসক্লাব আব্দুর রাজ্জাক মিলনায়তনে এডিটরস্ ফোরাম’র এক জরুরী সভা আহবান করা হয়েছে। উক্ত সভায় ফোরামের সকল কার্যনির্বাহী সদস্যসহ, সাধারণ সদস্যসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে যথাসময়ে উপস্থিত হওয়ার জন্য ফোরামের সভাপতি মুজিবুল শেখ ও সাধারণ সম্পাদক নুর আলম দুলাল ফোরামের সকল সদস্যদের পক্ষ থেকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

আন্দোলনে খালেদা জিয়ার মুক্তি নেই – তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ নিজেদের মধ্যে চেয়ার ছোঁড়াছুড়ি না করে বরিশালের সমাবেশ শেষ করায় বিএনপিকে ধন্যবাদ জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, মনে রাখতে হবে আন্দোলন করে বেগম জিয়ার মুক্তি সম্ভব নয়, আইনই একমাত্র পথ। গতকাল শুক্রবার দুপুর ১২টায় রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির স্বাধীনতা হলে বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদ আয়োজিত ‘গণতন্ত্রের মানসকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার কারাবন্দী দিবস উপলক্ষে আলোচনা’ শীর্ষক সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন। বরিশালে বিএনপির সভায় মীর্জা ফখরুলের দুটি মন্তব্যের জবাবে ড. হাছান বলেন, সুষ্ঠু ভোট হলে না কি আওয়ামী লীগ একটা ভোটও পাবে না- বিএনপি মহাসচিবের এ মন্তব্য তার মানসিক সুস্থতার পরিচায়ক নয়। আর উন্নয়নের নামে আওয়ামী লীগ পকেট ভারি করছে- একথা তাদের বেলায় প্রযোজ্য কারণ তারা সেটা করে দেশকে পরপর পাঁচবার দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন করেছেন। আর আওয়ামী লীগ দেশের যে উন্নয়ন করেছে, সেটা শুধু বিএনপির চোখে পড়ে না, কিন্তু সারা বিশ্বে তা আজ এক রোল মডেল। এক-এগারো’র কথা স্মরণ করে এ সময় আওয়ামী লীগের অন্যতম মুখপাত্র ড. হাছান বলেন, ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে নয়, বন্দী করা হয়েছিল দেশের গণতন্ত্রকে। সে সময় অনেক নেতা বেসুরে কথা বললেও দলের তৃণমূল কর্মীরা নেত্রীর ওপর বিশ্বাসে অটল ছিলেন। আওয়ামী লীগের আন্দোলনের কারণেই শেখ হাসিনার পাশাপাশি খালেদা জিয়াও মুক্তি পান। মানুষের অধিকার হরণের প্রতিবাদের কারণেই শেখ হাসিনাকে আটক করা হয় বলেই ১৬ জুলাই ‘গণতন্ত্র বন্দী দিবস’ বলে আখ্যা পাচ্ছে। বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদের উপদেষ্টা এড. মোঃ জাহাঙ্গীর আলম খানের সভাপতিত্বে ও সিনিয়র সহ সভাপতি শেখ নওশের আলীর সঞ্চালনায় সভায় আওয়ামী লীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন। অন্যদের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির উপপ্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, স্বাধীনতা পরিষদের সভাপতি মো. জিন্নাত আলী জিন্নাহ, সাধারণ সম্পাদক মো. শাহাদাত হোসেন টয়েল, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক আখতার হোসেন, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা প্রমুখ।

মিয়ানমারের সেনা কর্মকর্তাদের উপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা অপর্যাপ্ত – জাতিসংঘ

ঢাকা অফিস ॥ রোহিঙ্গা মুসলমানদের মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে মিয়ানমারের সেনা কর্মকর্তাদের উপর যুক্তরাষ্ট্র যে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে তা যথেষ্ট নয় বলে মনে করেন জাতিসংঘের দূত ইয়াংহি লি। ওয়াশিংটন এ সপ্তাহে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর প্রধান মিন অং হলাইং এবং আরো তিন জ্যেষ্ঠ সেনা কর্মকর্তা ও তাদের পরিবারের সদস্যদের উপর যুক্তরাষ্ট্র প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। সন্ত্রাস দমনে সেনা অভিযানের নামে পশ্চিমের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা মুসলমান অধ্যুষিত এলাকাগুলোতে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর ‘জাতিগত নিধনের’ বিরদ্ধে এটাই এখন পর্যন্ত ওয়াশিংটনের সবচেয়ে কঠোর শস্তিমূলক পদক্ষেপ। যদিও এই নিষেধাজ্ঞা একেবারেই যথেষ্ট নয় বলে মত জাতিসংঘের তদন্ত কর্মকর্তা ইয়াংহি লি। বৃহস্পতিবার কুয়ালালামপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, “তারা কখনোই যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণে যায়নি…আসুন আরো বাস্তববাদী হই।” যদিও মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে তাদের পদক্ষেপ যথাযথ বলে বর্ণনা করে অন্যান্য দেশকেও একই উদ্যোগ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে। সম্মেলনে লি বলেন, সেনাপ্রধান মিন অং হলাইং, উপ সেনা প্রধান সোয়ে উইন এবং ব্রিগেডিয়ার জেনারেল থান ও এবং অং অং ছাড়াও রোহিঙ্গা নিপীড়ন বিষয়ে ২০১৮ সালে প্রকাশিত জাতিসংঘের তদন্ত প্রতিবেদনে অন্য যে দুইজন সেনা কর্মকর্তার নাম এসেছে তাদের সবাইকে গণহত্যার অভিযোগে বিচারের মুখোমুখি করা উচিত। ২০১৭ সালে মিয়ানমারের কয়েকটি সীমান্তপোস্টে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হামলার পর রাখাইন রাজ্যে সেনা অভিযান শুরু হয়। সেনাবাহিনী ওই অভিযানে সাধারণ মানুষকে হত্যা, ধর্ষণ এবং বাড়িঘরেতে আগুন ধরিয়ে দেয় বলে অভিযোগ রয়েছে। যদিও মিয়ানমার সেনাবাহিনী ওই অভিযোগ অস্বীকার করেছে। সেনা অভিযান শুরু হওয়ার পর প্রাণ বাঁচাতে প্রায় সাড়ে সাত লাখ রোহিঙ্গা মুসলমান পালিয়ে প্রতিবেশী বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। জাতিসংঘ একে ‘জাতিগত নিধন’ বলে বর্ণনা করলেও যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এখনো একে গণহত্যা বলেনি; মিয়ানমারের উপর কঠোর আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে এ স্বীকৃতি প্রয়োজন। এছাড়া স্থায়ী সদস্য চীনের বাধার কারণেও জাতিসংঘ মিয়ানমারের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারছে না।

রোহিঙ্গা সংকট নিরসনে শক্ত অবস্থান নেবে যুক্তরাষ্ট্র

ঢাকা অফিস ॥ যুক্তরাষ্ট্র রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানের পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন চালানোর জন্য মিয়ানমারকে কৈফিয়ত দিতে বাধ্য করতে শক্ত অবস্থান গ্রহণ করবে। যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্্স গত বৃহস্পতিবার মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গুরুত্বপূর্ণ মৌলিক অধিকার লংঘনের বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করতে গিয়ে এই মন্তব্য করেন। গতকাল প্রাপ্ত পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা বলা হয়। পেনস ‘এডভান্সিং রিলিজিয়াস ফ্রিডম’ শীর্ষক দ্বিতীয় মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তৃতা করছিলেন। ওয়াশিংটন ডিসিতে ৪০ জন পররাষ্ট্রমন্ত্রীসহ ১০৬টি দেশের প্রতিনিধিরা এ অনুষ্ঠানে যোগদান করেন। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও-এর আমন্ত্রণে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর আয়োজিত এ বৈঠকে অংশ নেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী পম্পেও তার উদ্বোধনী বক্তৃতায় মার্কিন শীর্ষ পররাষ্ট্রনীতির অগ্রাধিকার সকলের ধর্মীয় স্বাধীনতা নিশ্চিতের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেন তার বক্তৃতায় বাংলাদেশে ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দানে সহায়তার জন্য যুক্তরাষ্ট্র সরকার ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে ধন্যবাদ জানান। বাংলাদেশকে মানবতার দেশ হিসেবে উল্লেখ করে তিনি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি বাংলাদেশ থেকে মিয়ানমারকে তার নাগরিকদের সেদেশে ফিরিয়ে নেয়ার জন্য সেদেশের ওপর চাপ বৃদ্ধির আহ্বান জানান। পররাষ্ট্রমন্ত্রী দেশের জনগণের মৌলিক অধিকারসমূহ নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ সরকারের অঙ্গীকারের বিষয় তুলে ধরেন। ড. মোমেন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশ ধর্মীয় বহুত্ববাদ ও সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের অধিকার সমুন্নত করেছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকার যে কোন প্রকার সহিংসতা ও বৈষম্যের বিরুদ্ধে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি অবলম্বন করছে। তিনি আরো বলেন, অসাম্প্রদায়িক চেতনা ও শান্তিপূর্ণ সহ অবস্থানের নীতির কারণে আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে বাংলাদেশের নজিরবিহীন উন্নতি অর্জিত হয়েছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী সম্মেলনের ফাঁকে হাঙ্গেরী, ইরাক, বাহরাইন ও মাল্টার পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক করেন।

স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যা করে থানায় ধরা দিলেন স্বামী

ঢাকা অফিস ॥ রাজশাহীতে স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যা করে গভীর রাতে থানায় এসে আত্মসমর্পণ করেছেন স্বামী। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে রাজশাহীর পবা উপজেলায় এ ঘটনা ঘটে। শহরের দামকুড়া থানায় ধরা দেওয়া ব্যক্তির নাম রেন্টু আহমেদ ওরফে শরিফুল (৩৬)। তাঁর স্ত্রীর নাম লাভলী বেগম (২৮)। শরিফুলের বাড়ি উপজেলার কলার টিকর গ্রামে। গৃহবধূ লাভলী একই উপজেলার সাইরপুকুর গ্রামের বাবলু মিয়ার মেয়ে। দামকুড়া থানা-পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, প্রথমে শরিফুল ঘুমন্ত স্ত্রীর মাথায় আঘাত করেন। অচেতন হওয়ার পর গলা ও পায়ের রগ কেটে স্ত্রীকে খুন করেন তিনি। এরপর গোসল করে নতুন কাপড় পরে রাত সাড়ে তিনটার দিকে বাড়ি থেকে প্রায় ছয় কিলোমিটার দূরে দামকুড়া থানায় এসে হাজির হন। স্ত্রীকে হত্যার কথা স্বীকার করলে তাঁকে আটক করে পুলিশ। দামকুড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম বলেন, ডিউটি অফিসারের কাছে ঘটনা শুনে প্রথমে লোকটিকে পাগল ভেবেছিলেন তিনি। কিন্তু পরে শরিফুলের কথা অনুযায়ী তাঁর বাড়িতে গিয়ে চৌকির নিচ থেকে চাকু ও রক্তমাখা কাপড় উদ্ধার করে পুলিশ। তিনি আরও বলেন, আত্মসমর্পণের আগে দুই সন্তানের ব্যাপারে ভাইয়ের কাছে একটি চিঠি লিখে রেখে গেছেন শরিফুল। শরিফুলকে আদালতে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন ওসি মাজহারুল ইসলাম। লাভলীর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি। এ ঘটনায় লাভলীর বাবা শরিফুলের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেছেন।

রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির পরিদর্শন করবে আইসিসি প্রতিনিধিদল

ঢাকা অফিস ॥ মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের শরণার্থী শিবির পরিদর্শনের লক্ষে কক্সবাজার পৌঁছেছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিসি) প্রতিনিধি দল। আজ শনিবার তারা রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির পরিদর্শন করবেন বলে জানা গেছে। গতকাল শুক্রবার বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে কক্সবাজার পৌঁছান তারা। শনিবার দুপুরে এ দলটির উখিয়ার রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে যাওয়ার কথা। জানা যায়, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের ওপর গণহত্যাসহ মানবতাবিরোধী অপরাধ সংগঠিত হয়েছে কিনা এ বিষয়ে দেশটির জেনারেলদের বিরুদ্ধে পূর্ণাঙ্গ তদন্ত শুরু করতে পারে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিসি)। এ প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে আইসিসির ডেপুটি প্রসিকিউটর জেমস স্টুয়ার্টের নেতৃত্বে চার সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল রোহিঙ্গাদের পরিস্থিতি পর্যালোচনা ও তাদের সঙ্গে কথা বলতে কক্সবাজার আসেন। কক্সবাজার শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের কার্যালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, কাল শনিবার দুপুরের দিকে আইসিসি প্রতিনিধি দল উখিয়ার রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শনে যাবেন এবং সেখানে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলবেন। রোববার তাদের কক্সবাজার ছেড়ে যাওয়ার কথা। এছাড়াও এ দলটি শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের কার্যালয় ও বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকও করতে পারেন বলে তিনি জানান। এদিকে আইসিসি প্রতিনিধি দলের কক্সবাজার সফর নিয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তর থেকে কঠোর গোপনীয়তা রক্ষা করা হচ্ছে। এমনকি এ দলের সফরসূচি সম্পর্কে গণমাধ্যমকেও বিস্তারিত জানানো হচ্ছে না। এর আগে গত মঙ্গলবার আইসিসির ডেপুটি প্রসিকিউটর জেমস স্টুয়ার্টের নেতৃত্বে চার সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল বাংলাদেশে আসে।

বন্যায় ৪০ লাখের বেশি মানুষ ঝুঁকিতে

ঢাকা অফিস ॥ কয়েক দিনের ব্যাপক বৃষ্টিতে বাংলাদেশের উত্তর ও দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় ৪০ লাখের বেশি মানুষ খাদ্য নিরাপত্তাহীনতা ও রোগের ঝুঁকিতে পড়েছে। গতকাল শুক্রবার ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব রেড ক্রস অ্যান্ড রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটিজ (আইএফআরসি) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ আশঙ্কা প্রকাশ করেছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বন্যা ও ভূমিধসের কারণে সড়ক ও গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামো ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় কয়েকলাখ মানুষ বিদ্যুৎহীন অবস্থায় আটকে পড়েছে। ৬৬ হাজারের বেশি বাড়িঘর ধ্বংস হয়েছে। “খাদ্য ও পরিষ্কার পানির সংকটের সঙ্গে পানিবাহিত রোগ বাড়ার খবরও পাওয়া গেছে।” আইএফআরসির বাংলাদেশ প্রধান আজমত উল্লাহ বলেন, এসব মানুষ মওসুমি বৃষ্টি, বন্যার প্রকোপ ও ভূমিধসের মধ্যে নাকাল হচ্ছে। বৃষ্টি কমলেও উজান থেকে নদীগুলোর উপচেপড়া প্রবাহে সামনের দিনগুলোতে বন্যার অবনতি ঘটাবে। বিস্তৃর্ণ কৃষি অঞ্চলে বন্যায় খাদ্য শস্য নষ্ট হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে, যাতে খাদ্য সংকটের হুমকিও তৈরি হয়েছে। এর ফলে শিশু, প্রসূতি মা, গর্ভবতী মা ও বৃদ্ধরা সবচেয়ে ঝুঁকির মুখে পড়বে বলে শংকা প্রকাশ করা হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে। আইএফআরসি বলছে, বন্যাকবলিত এলাকাগুলোতে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্টের ৬৭৫ জন স্বেচ্ছাসেবী কাজ করছে। তারা খাবার, সুপেয় পানি, পরিচ্ছনতা সরঞ্জাম এবং বন্যায় বা ভূমিধসে বাড়িঘর হারানো মানুষদের মধ্যে তাঁবু বিতরণ করছে। বন্যাদুর্গতদের এর মধ্যেই আইএফআরসি ৪ লাখ ৫২ হাজার ৪৩৯ সুইস ফ্রাঁ (প্রায় ৩ কোটি ৮৯ লাখ টাকা) ছাড় করেছে।

সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের

দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের শোকজ করা হবে

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিভিন্ন নির্বাচনে যারা দলের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে দাঁড়িয়েছে তাদেরকে শোকজ করা হবে। তিন সপ্তাহের মধ্যে তাদেরকে শোকজের জবাব দিতে হবে। জবাব সন্তোষজনক না হলে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ছাড়া যারা বিদ্রোহী প্রার্থীদের ইন্ধন দিয়েছে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে। শুক্রবার সকালে রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। জাতীয় পার্টির রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, জাতীয় পার্টি সংসদের বিরোধী দল। তাদের আসন সংখ্যা অনেক। এরশাদের অবর্তমানে তাদের দলীয় রাজনীতি ও সাংগঠনিক রূপ কী হবে, এটা তাদের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার। বন্যা প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আজকেও জামালপুর ও গাইবান্ধায় আমাদের প্রতিনিধি গেছেন। আমাদের দলীয় টিম বন্যাদুর্গত এলাকায় যাচ্ছে। কেন্দ্রীয়ভাবে প্রত্যেক স্থানে ত্রাণ পাঠানো হচ্ছে। স্থানীয়ভাবেও নেতাকর্মীদের ত্রাণ দেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক প্রকৌশলী আবদুস সবুর, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, উপদফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় সদস্য এসএম কামাল হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আদালতে রিফাত হত্যার স্বীকারোক্তি দিলেন মিন্নি

ঢাকা অফিস ॥ বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন মামলার প্রধান সাক্ষী ও নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি। পাঁচদিনের রিমান্ডের দু’দিন শেষে মিন্নিকে গতকাল শুক্রবার দুপুরে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে পুলিশ। পরে আদালতের বিচারক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজীর কাছে রিফাত হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দেন মিন্নি। স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি শেষে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এ বিষয়ে রিফাত হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও বরগুনা সদর থানা পুলিশের ওসি (তদন্ত) মো. হুমায়ুন কবির বলেন, মিন্নি রিফাত হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন। জবানবন্দি গ্রহণ শেষে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এর আগে গত মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বরগুনার মাইঠা এলাকার বাবার বাসা থেকে বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোরসহ মিন্নিকে জিজ্ঞাসাবাদ ও তার বক্তব্য রেকর্ড করতে বরগুনা পুলিশ লাইন্সে নিয়ে যায় পুলিশ। এরপর দীর্ঘ ১০ ঘণ্টার জিজ্ঞাসাবাদ ও বিভিন্ন মাধ্যম থেকে পাওয়া তথ্য-উপাত্ত পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে বিশ্লেষণ ও পুলিশের কৌশলী এবং বুদ্ধিদীপ্ত প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে আটকে যান মিন্নি। বেরিয়ে আসে হত্যাকান্ডে তার সম্পৃক্ততার প্রমাণ। এরপরই তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এরপর বুধবার বিকেল ৩টার দিকে বরগুনার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মিন্নিকে হাজির করে সাতদিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। শুনানি শেষে মিন্নির পাঁচদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালতের বিচারক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজী। পরদিন বৃহস্পতিবার বরগুনার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন জানিয়েছিলেন, মঙ্গলবার দিনভর জিজ্ঞাসাবাদ ও বুধবার রিমান্ড মঞ্জুরের পর পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে রয়েছেন আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি। ইতোমধ্যে মিন্নি স্বামী রিফাত শরীফ হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন। এ হত্যার পরিকল্পনার সঙ্গেও তিনি যুক্ত ছিলেন। আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় এখন পর্যন্ত ১৬ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এদের মধ্যে মিন্নিসহ ১৩ জন অভিযুক্ত রিফাত হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। এছাড়া এ মামলার দুজন অভিযুক্ত রিমান্ডে রয়েছেন। আর এ মামলার প্রধান অভিযুক্ত নয়ন বন্ড বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন।

 

লন্ডনের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঢাকা ত্যাগ

ঢাকা অফিস ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল শুক্রবার সকালে যুক্তরাজ্যে সরকারী সফরে লন্ডনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেছেন। প্রধানমন্ত্রী এবং তাঁর সফরসঙ্গীদের বহনকারী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইট সকাল ৯টা ৩৫ মিনিটে লন্ডনের উদ্দেশে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করে। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম, জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটন, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী এবং ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান। একইসঙ্গে মন্ত্রী পরিষদ সচিব, সেনাবাহিনী প্রধান ও নৌবাহিনী প্রধান, বিমানবাহিনীর ভারপ্রাপ্ত প্রধান, ডিপে¬ামেটিক কোরের ডিন, বাংলাদেশে ব্রিটেনের হাইকমিশনার এবং পদস্থ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তাবৃন্দ এ সময় উপস্থিত ছিলেন। ফ্লাইটটির লন্ডন স্থানীয় সময় আজ বিকেল ৩টা ৫৫ মিনিটে হিথরো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণের কথা রয়েছে। লন্ডনে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনীম বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাবেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রেসসচিব ইহসানুল করিম বলেন, ‘সফরকালে প্রধানমন্ত্রী ২০ জুলাই লন্ডনে ইউরোপের দেশগুলোতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতদের একটি সম্মেলনে যোগ দেবেন।’ প্রেসসচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশী ডাক্তারদের পরামর্শ অনুযায়ী লন্ডনে চোখের চিকিৎসাও গ্রহণ করবেন। প্রেসসচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রী আগামী ৫ আগস্ট দেশে ফিরবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

ইউরোপে বাংলাদেশের দূতদের সম্মেলনে অংশ নেবেন প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা লন্ডনে অনুষ্ঠিতব্য ইউরোপে অবস্থানরত বাংলাদেশের দূতদের সম্মেলনে অংশ নেবেন আজ শনিবার। এ ধরনের সম্মেলন এটিই প্রথম। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম গতকাল শুক্রবার জানান, শনিাবর লন্ডনের একটি হোটেলে অনুষ্ঠেয় এই সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যোগ দেবেন। তিনি আরো জানান, ইউরোপের বিভিন্ন দেশে দায়িত্ব পালনকারী বাংলাদেশের ১৫ জন রাষ্ট্রদূত, হাইকমিশনার এবং স্থায়ী প্রতিনিধি এই সম্মেলনে যোগ দিবেন। তারা হলেন, আবু জাফর (অস্ট্রেলিয়া), মো. শাহাদৎ হোসেন (বেলজিয়াম), মুহম্মদ আবদুল মুহিত (ডেনমার্ক), কাজী ইমতিয়াজ হোসেন (ফ্রান্স), ইমতিয়াজ আহমেদ (জার্মানী), জসিম উদ্দিন (গ্রীস), আবদুস সোবহান সিকদার (ইতালি), শেখ মোহাম্মদ বেলাল (নেদারল্যান্ড), মুহম্মদ মাহফুজুর রহমান (পোল্যান্ড), রুহুল আলম সিদ্দিক (পর্তুগিজ), ড. এস এম সাইফুল হক (রুশ ফেডারেশন), হাসান মোহাম্মদ খন্দকার (স্পেন), নাজমূল ইসলাম (সুইডেন), শামিম আহসান (সুইজারল্যান্ড) এবং সাইদা মুনা তাসনীম (যুক্তরাজ্য)। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী ইউরোপে বাংলাদেশী দূতদের সঙ্গে বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে আলোচনা করবেন এবং তাদেরকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিবেন। আলোচনায় রোহিঙ্গা ইস্যুটি বিশেষভাবে স্থান পাবে। (বাসস)

আজ ফেলা হবে জিও ব্যাগ

মিরপুরের তালবাড়িয়া এলাকায় পদ্মায় ভাঙছে মাঠ

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ পদ্মা নদীর পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পাওয়ায় ভাঙন  দেখা দিয়েছে। গত চার দিনে দ্বিগুণ হারে পানি বৃদ্ধির করণে নদী তীরবর্তী এলাকায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। আজ শনিবার থেকে ভাঙন এলাকায় বালুভর্তি জিও ব্যাগ ফেলা হবে বলে জানিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)।

পদ্মার পানি বৃদ্ধিতে গড়াই নদীতেও পানি বেড়ে যাচ্ছে। কুষ্টিয়া শহর সংলগ্ন চরাঞ্চলের বাড়িগুলোতে পানি ঢুকতে শুরু করেছে। জরুরিভাবে ভাঙন প্রতিরোধে বালু ভর্তি জিও ব্যাগ ফেলার বরাদ্দ পেয়েছে পাউবো।

গতকাল শুক্রবার হার্ডিঞ্জ সেতু পয়েন্টে পানির উচ্চতা ১২ দশমিক ৫৬ সেন্টিমিটার। পদ্মার পানির বিপদসীমা ১৪ দশমিক ২৫  সেন্টিমিটার। পানির উচ্চতা বাড়ছে গড়াইয়েও। গড়াই নদীর কুমারখালী রেলসেতু পয়েন্টে বিপদসীমা নির্ধারিত হয় ১২ দশমিক ৭৫ সেন্টিমিটার। গড়াইয়ে সেখানে গতকাল সকালে পানির উচ্চতা ছিল ১০ দশমিক ৮৫ সেন্টিমিটার।

পাউবো সূত্র জানায়, দেশের উত্তরাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হলেও পদ্মা নদীতে শুরুতে তেমন একটা প্রভাব পড়েনি। কিন্তু গত চার থেকে পাঁচ দিনে পদ্মা নদীর কুষ্টিয়া অংশে ব্যাপক হারে পানি  বেড়ে যাচ্ছে। এতে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার তালবাড়িয়া এলাকায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। সেখানে ফসলি মাঠ বিলীন হতে শুরু করেছে। পদ্মা নদীর এই অংশের পাশেই কুষ্টিয়া-ঈশ্বরদী জাতীয় মহাসড়ক। জরুরিভাবে ভাঙন প্রতিরোধে বালুভর্তি ১০ হাজার জিও ব্যাগ ফেলার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

তালবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল হান্নান বলেন, তিন-চার দিন ধরে ব্যাপক এলাকা জুড়ে ভাঙন দেখা দিয়েছে। তিনি পাঁচ হাজার বালুভর্তি জিও ব্যাগ ফেলার কাজ পেয়েছেন। এ ছাড়া পাবনার এক ঠিকাদারও পাঁচ হাজার বস্তা জিও ব্যাগ ফেলার কাজ পেয়েছেন। বালু ভর্তি করে ব্যাগ প্রস্তুত করা হচ্ছে। তবে  যেভাবে ভাঙছে, তাতে ৫০ হাজার বস্তা ফেলেও প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে না।

পাউবো সূত্র জানায়, প্রতি বালুভর্তি জিও ব্যাগ প্রস্তুত করতে ৩৫০ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। জেলা ও উপজেলার প্রশাসনের কর্মকর্তাসহ একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাদের উপস্থিতিতেই জিও ব্যাগ নদীতে ফেলা হবে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী পীযূষ কৃষ্ণ কুন্ডু বলেন, তালবাড়িয়া এলাকায় পদ্মা নদীর অন্তত ২৯০ মিটার অংশ ঝুঁকিতে আছে। সেখানে জরুরিভাবে বালুভর্তি জিও ব্যাগ ফেলা হচ্ছে। এ ছাড়া অন্যান্য অংশেও নিয়মিত তদারকি করা হচ্ছে। পাউবোর কর্মকর্তারা সতর্ক আছেন। ছুটির দিনেও তাঁরা মাঠে কাজ করছেন।

গ্রামীণ সাংবাদিকতার প্রবাদপুরুষ কাঙ্গাল হরিনাথ মজুমদারের ১৮৬তম জন্মদিন আজ

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ উনবিংশ শতাব্দীর কালজয়ী সাধক, সাংবাদিক, সাহিত্যিক সমাজসেবক ও নারী জাগরণের অন্যতম দিকপাল কাঙ্গাল হরিনাথ মজুমদারের ১৮৬তম জন্মদিন আজ। এ উপলক্ষে আজ শনিবার বিকাল ৪টায় কাঙ্গাল হরিনাথ স্মৃতি জাদুঘর মিলনায়তনে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। কাঙ্গাল হরিনাথ স্মৃতি জাদুঘর আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন, কুষ্টিয়া-৪ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার  সেলিম আলতাফ জর্জ। বিশেষ অতিথি থাকবেন, বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরের সচিব (যুগ্ম সচিব) মো: আবদুল মজিদ, কুমারখালী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো: আব্দুল মান্নান খান, পৌরসভার মেয়র মো: সামছুজ্জামান অরুণ।

আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচনা হিসাবে থাকবেন ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রাক্তন অধ্যাপক ড. আবুল আহসান চৌধুরী। আলোচক হিসাবে থাকবেন সরকারি মুজিবনগর কলেজের অধ্যক্ষ স্বপন রায়, কুষ্টিয়া সরকারি কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল মো: আনছার হোসেন। স্বাগত বক্তব্য রাখবেন কাঙ্গাল হরিনাথ স্মৃতি জাদুঘর পরিচালনার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা প্রদর্শক প্রভাষক সৈয়দ এহসানুল হক। এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজীবুল ইসলাম খান। আলোচনা অনুষ্ঠান শেষে স্থানীয় শিল্পীদের অংশগ্রহণে ও কাঙ্গাল হরিনাথ রচিত গান পরিবেশনের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠিত হবে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

কালজয়ী এই সাংবাদিক ১২৪০ সালের ৫ই শ্রাবণ (ইংরেজি ১৮৩৩) কুষ্টিয়া জেলার (তদানীন্তন নদীয়া) কুমারখালী শহরের কুন্ডুপাড়ায় বাবা হলধর মজুমদার ও মা কমলিনী দেবীর সংসারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন বাবা-মায়ের একমাত্র সন্তান। শৈশবেই মাতৃ ও পিতৃহারা হয়ে চরম দারিদ্রতার মধ্যদিয়ে বেড়ে উঠেন কাঙ্গাল হরিনাথ। ৬৩ বছরে জীবনকালে তিনি সাংবাদিকতা, আধ্যাত্ম সাধন, সাহিত্যচর্চা সহ নানাধরণের সামাজিক আন্দোলনের সঙ্গে সম্পৃক্ত হন। মুলত: তিনি ছিলেন, সাংবাদিকতা পেশার একজন সংগ্রামী মানুষ।

কালজয়ী এই সাংবাদিক কাঙ্গাল হরিনাথ ছিলেন অত্যাচার ও জুলুমের বিরুদ্ধে আপসহীন। তৎকালীন সময়ে তিনি (১৮৫৭ সাল) প্রাচীন জনপদ কুমারখালীর নিভৃত গ্রাম থেকে হাতে লেখা পত্রিকা মাসিক গ্রামবার্ত্তা প্রকাশিকা প্রকাশ করেন। তিনি গ্রামবার্ত্তা প্রকাশিকায় তিনি ইংরেজ নীলকর, জমিদার ও শোষক  শ্রেণীর অত্যাচার, জুলুম, ধর্মান্ধতা, কুসংস্কার ও সামাজিক কু-প্রথার বিরুদ্ধে খবর প্রকাশ করেন। হাজারো বাধা-বিপত্তি উপেক্ষা করে তিনি পত্রিকাটি প্রায় একযুগ প্রকাশ করেছিলেন। পরবর্তীতে মাসিক থেকে পাক্ষিক এবং ১৮৬৩ সালে সাপ্তাহিক আকারে কলকাতার গিরিশচন্দ্র বিদ্যারতœ প্রেস থেকে নিয়মিত প্রকাশ করেন। এতে চর্তুদিকে সাড়া পড়ে যায়। ১৮৭৩ সালে কাঙ্গাল হরিনাথ মজুমদার তঁর সুহৃদ অক্ষয় কুমার মৈত্রেয়’র বাবা মথুরনাথ মৈত্রয়’র আর্থিক সহায়তায় কুমারখালীতে এম,এন প্রেস স্থাপন করে গ্রামবার্ত্তা প্রকাশিকা’র প্রকাশনা অব্যাহত রাখেন। সাধকপুরুষ ও কালজয়ী সাংবাদিক কাঙ্গাল হরিনাথ মজুমদার বাংলা ১৩০৩ সালের ৫ বৈশাখ (ইংরেজি ১৮৯৬ সাল, ১৬ এপ্রিল) নিজ বাড়িতে দেহত্যাগ করেন। তিনি মৃত্যুকালে তিন পুত্র, এক কন্যা এবং স্ত্রী স্বর্ণময়ীকে রেখে যান। সাংবাদিক কাঙ্গাল হরিনাথ মজুমদার প্রায় ৪০টি গ্রন্থ রচনা করেছেন। তাঁর কয়েকটি গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। তবে বেশিরভাই অপ্রকাশিত রয়ে গেছে। তাঁর গ্রন্থগুলোর মধ্যে বিজয় বসন্ত একটি সফল উপন্যাস। গবেষকদের মতে, কাঙ্গাল হরিনাথ রচিত বিজয় বসন্ত উপন্যাসটিই বাংলা ভাষায় লেখা প্রথম উপন্যাস।  গ্রামীণ সাংবাদিকতার এবং দরিদ্র কৃষক ও অসহায় সাধারণ মানুষের সুখ-দু:খের একমাত্র অবলম্বন কাঙ্গাল হরিনাথ মজুমদারের স্মৃতি রক্ষার্থে সরকারি উদ্যোগে কুমারখালীতে সাংবাদিক কাঙ্গাল হরিনাথ স্মৃতি জাদুঘর নির্মাণ করা হলেও এখনো অবহেলিত রয়েছে এই কালজয়ী সাংবাদিকের জন্মভিটা (বাস্তুভিটা)। স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীসহ কবি-সাহিত্যিকদের ভাষ্যমতে, কাঙ্গাল হরিনাথ ব্যবহৃত ও গ্রামবার্ত্তা প্রকাশিকা’র সেই মুদ্রণ যন্ত্রটি এখনো অযতœ অবহেলায় অন্ধকার একটি ভাঙ্গা ঘরে পড়ে রয়েছে। তাই অনতিবিলম্বে ঐতিহ্যবাহি এই মুদ্রণ যন্ত্রটি কাঙ্গাল হরিনাথ স্মৃতি জাদুঘরে স্থানান্তর এবং কাঙ্গালের সমাধিসহ জন্মভিটা (বাস্তুভিটা) সংরক্ষণে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া জরুরী।

র‌্যালি আলোচনা ও পুরস্কার বিতরণের মধ্যদিয়ে কুমারখালীতে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উদ্বোধন

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ বর্ণাঢ্য র‌্যালি আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণের মধ্যদিয়ে কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টায় কুমারখালী উপজেলা প্রশাসন ও মৎস্য অধিদপ্তরের আয়োজনে উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি শহর প্রদক্ষিণ শেষে উপজেলা পরিষদ চত্বরে এসে সমবেত হয়। সকাল ১০টায় উপজেলা পরিষদ পুকুরে মাছের পোনা অবমুক্তকরণ শেষে বিআরডিবি হলরুমে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য প্রদানের মধ্যদিয়ে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষনা করেন কুষ্টিয়া- ৪ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ। মৎস্য চাষ সম্প্রসারণ ও সংরক্ষণ এবং আতœকর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে “মাছ চাষে গড়বো দেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ স্লোগান” ও মৎস্য সেক্টরের সমৃদ্ধি, সুনীল অর্থনীতির অগ্রগতি, শীর্ষক প্রতিপাদ্য শীর্ষক আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন, ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ নূর- এ আলম। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, সিনিয়র উপজেলা মৎস্য অফিসার মো:  রোকনুজ্জামান।  এ সময় বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো: জালাল উদ্দিন, থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) শুভ্র প্রকাশ দাস, শিলাইদহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: সালাহ্ উদ্দিন খান তারেক। আলোচনা সভা ও র‌্যালিতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, মৎস্য চাষী, মৎস্যজীবি, মাছ বিক্রেতা, আইন-শৃংখলা বাহিনীর সদস্য, শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী, মসজিদের ইমান, পুরোহিত, গণমাধ্যম কর্মী ও সম্প্রসারণ কর্মীরা  উপস্থিত ছিলেন। আলোচনা সভা শেষে মনোসেক্স তেলাপিয়া জাতীয় মাছ উৎপাদনে উপজেলার চাঁদপুর ইউনিয়নের মো: শারফুজ্জামান শারফু, রুই জাতীয় বড় মাছ উৎপাদনে সদকী ইউনিয়নের দরবেশপুর গ্রামের মো: সোহেল রানা ও গুণগত মানস্মত পোনামাছ উৎপাদনে নন্দলালপুর ইউনিয়নের দুর্গাপুর গ্রামের মুন্সী ইকবাল হোসেনকে সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়। জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উদযাপন উপলক্ষে সংসদ সদস্যকেও উপজেলা প্রশাসন ও মৎস্য অধিপ্তরের পক্ষ থেকে সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়। সিনিয়র উপজেলা মৎস্য অফিসার জানান, জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে সপ্তাহব্যাপী উপজেলার বিভিন্ন স্থানে সরকারের অগ্রগতি বিষয়ে আলোচনা ও প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন, ফরমালিন বিরোধী অভিযান ও মৎস্য বিষয়ক আইন বাস্তবায়নে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা, বিভিন্ন স্কুল-কলেজে মৎস্য চাষ বিষয়ক আলোচনা, হাট-বাজার ও জনবহুল স্থানেমাছ চাষ বিষয়ক উদ্বুদ্ধকরণ সভা ও প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হবে। আগমী ২৩ জুলাই মঙ্গলবার জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ কুমারখালী উপজেলায় কার্যক্রম মুল্যায়ন ও সমাপনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে।

দৌলতপুরে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ ‘মাছ চাষে গড়বো দেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ, মৎস্য সেক্টরের সমৃদ্ধি, সুনীল অর্থনীতির অগ্রগতি’ এই প্রতিপাদ্য নিয়ে সারা দেশের ন্যায় কুষ্টিয়ার দৌলতপুরেও র‌্যালি, মুক্ত জলাশয়ে পোনা মাছ অবমুক্তকরণ ও আলোচনা সভার মধ্যদিয়ে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ শুরু হয়েছে। এ উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায়  দৌলতপুর উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি উপজেলা পরিষদ চত্বরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে উপজেলা পরিষদের পুকুরে মাছের পোনা অবমুক্তকরণ করা হয়। পরে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তারের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া-১ দৌলতপুর আসনের সংসদ সদস্য সরওয়ার জাহান বাদশা। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, দৌলতপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এজাজ আহমেদ মামুন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন, দৌলতপুর মৎস্য অফিসার সহিদুর রহমান। এসময় উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সাক্কির আহমেদ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সোনালী খাতুনসহ উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

ইরাকে কূটনীতিককে গুলি করে হত্যা

ঢাকা অফিস ॥ তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ইরাকি কুর্দি শহর ইরবিলে তুর্কি কূটনীতিককে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। সূত্র জানায়, বুধবারের হামলায় নিহত তিনজনের মধ্যে তিনি ছিলেন। যা পরে নিশ্চিত করা হয়। বিবিসি। ওই কূটনীতিক ইরবিলে তুরস্কের কনসাল জেনারেল ছিলেন। বন্দুকধারী গুলি চালানোর সময় তিনি একটি রেস্টুরেন্টে ভোজনরত একটি দলের মধ্যে ছিলেন। এ পর্যন্ত কেউ এই হামলার দাবি করেনি কিন্তু তুর্কি-কুর্দি জঙ্গিরা এ অঞ্চলে প্রভাব বিস্তার করে থাকে। টুইটারে এক বিবৃতিতে, তুরস্কের রাষ্ট্রপতির মুখপাত্র ইব্রাহিম কালিন বলেন, “যারা এই প্রতারণামূলক আক্রমণ করেছে তাদের কাছে প্রয়োজনীয় জবাব পৌঁছে দেওয়া হবে”। তুরস্ক এই অঞ্চলে কুর্দিস্তান ওয়ার্কার্স পার্টির (পিকেকে) জঙ্গিদের উপর হামলা শুরুর পর থেকে অঞ্চলটিতে হামলা বেড়েছে।

রিফাফকে কুপিয়ে হত্যার আসামি রিশান ফরাজী গ্রেপ্তার

ঢাকা অফিস ॥ বরগুনায় প্রকাশ্যে রিফাত শরীফকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনার তিন নম্বর আসামি রিশান ফরাজীকে গ্রেপ্তার করার কথা জানিয়েছে পুলিশ। জেলার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন গতকাল বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলন করে এ খবর দেন। রিশানকে সকাল ১০টার দিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে জানালেও কোথা থেকে তাকে ধরা হয়েছে, সে তথ্য তিনি দেননি। বরগুনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেনের ভায়রার ছেলে রিশান ও তার ভাই রিফাত ফরাজী এ মামলার প্রধান আসামি সাব্বির আহম্মেদ ওরফে নয়ন বন্ডের সহযোগী। পুলিশ দুই সপ্তাহ আগে রিফাত ফরাজীকে গ্রেপ্তার করলেও নয়ন ‘বন্দুকযুদ্ধে’ গত ২ জুলাই নিহত হয়েছেন বলে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়। রিফাত শরীফের স্ত্রী এ মামলার ১ নম্বর সাক্ষী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে মঙ্গলবার দিনভর জিজ্ঞাসাবাদের পর রাতে এ মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়। বুধবার তাকে আদালতে হাজির করা হলে বিচারক তাকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন। বৃহস্পতিবার সকালের সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার বলেন, “যারা হত্যাকারী ছিল শুরু থেকে মিন্নি তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছে এবং সে এই হত্যাকান্ডের পরিকল্পনার অংশ। এই হত্যাকান্ড সংঘটিত হওয়ার পূর্বেও সে পরিকল্পনার জন্য মিটিং করেছে হত্যাকারীদের সাথে।” অবশ্য মিন্নি বুধবার রিমান্ড শুনানিতে আদালতকে বলেন, “আমার স্বামী রিফাত শরীফ। আমি আমার স্বামীর হত্যাকারীদের বিচার চাই। হত্যাকান্ডে আমি জড়িত নই। এ মামলায় আমাকে ষড়যন্ত্র করে ফাঁসানো হয়েছে।” গত ২৫ জুন সকালে জেলা শহরের কলেজ রোডে রিফাত শরীফকে (২৩) স্ত্রীর সামনেই কুপিয়ে জখম করে একদল যুবক। বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে রিফাতের মৃত্যু হয়। রিফাতের ওপর হামলার ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়লে দেশজুড়ে শুরু হয় আলোচনা। সেখানে দেখা যায়, দুই যুবক রামদা হাতে রিফাতকে একের পর এক আঘাত করে চলেছে। আর তার স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি স্বামীকে বাঁচানোর জন্য হামলাকারীদের ঠেকানোর চেষ্টা করছেন। বরগুনার সরকারি কলেজের ডিগ্রি প্রথম বর্ষের ছাত্রী মিন্নি হামলাকারী সবাইকে চিনতে না পারার কথা জানালেও নয়ন বন্ড, রিফাত ফরাজী ও তার ভাই রিশান ফরাজীর নাম বলেছিলেন। রিফাত খুন হওয়ার পরদিন তার বাবা দুলাল শরীফ ১২ জনকে আসামি করে বরগুনা থানায় মামলা করেন। সেখানে ১ নম্বরে নয়ন, ২ নম্বরে রিফাত ফরাজী এবং ৩ নম্বরে রিশান ফরাজীর নাম ছিল। রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় এ পর্যন্ত ১৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে জানিয়ে পুলিশ সুপার বলেন, তাদের মধ্যে আটজন এজাহারভুক্ত আসামি। গ্রেপ্তারদের মধ্যে ১০ জন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বরগুনা থানার পরিদর্শক মো. হুমায়ুন কবির জানান, এ মামলায় গ্রেপ্তার তিনজন এখনো রিমান্ডে রয়েছেন।  তাদের মধ্যে আরিয়ান শ্রাবণকে বৃহস্পতিবার বিকালে আদালতে হাজির করা হবে।