বার্সায় নতুন চ্যালেঞ্জ জিততে উন্মুখ গ্রিজমান

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ গত মৌসুমে বার্সেলোনার প্রস্তাব ফিরিয়ে দেওয়া অঁতোয়ান গ্রিজমান ঠিকই কাম্প নউয়ে এলেন এক বছর পর। তবে এ নিয়ে কোনো পরিতাপ নেই ফরাসি ফরোয়ার্ডের। জানালেন, এখন নতুন চ্যালেঞ্জ জয়ের জন্য তিনি উন্মুখ। রিলিজ ক্লজের ১২ কোটি ইউরো পরিশোধ করে গত শুক্রবার গ্রিজমানকে আতলেতিকো মাদ্রিদ থেকে দলে টানার কাজ শেষ করে বার্সেলোনা। শনিবার গ্রিজমান বার্সেলোনাতে আসেন। মেডিকেল পরীক্ষার পর রোববার বার্সেলোনার সঙ্গে পাঁচ বছরের চুক্তি সারেন। নতুন দলে ১৭ নম্বর জার্সি পরে খেলবেন রাশিয়া বিশ্বকাপ জেতা এই ফরোয়ার্ড। গ্রিজমানকে নিয়ে বার্সেলোনার সমর্থকরা দ্বিধা-বিভক্তির মধ্যে রয়েছে। গত বছর ২৮ বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ড বার্সেলোনার প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়ে আতলেতিকোতে থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত যেভাবে ডকুমেন্টারিতে খোলাখুলি জানিয়েছিলেন, তাতে বার্সেলোনার কিছু সমর্থক তাকে ক্ষমা করতে পারেনি। কাম্প নউয়ে আনুষ্ঠানিক পরিচয় পর্বে এসে ওই তথ্যচিত্র নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখে পড়তে হয় গ্রিজমানকে। তবে আগের সিদ্ধান্ত সময়ের দাবি অনুযায়ী নিয়েছিলেন বলে জানান তিনি। “অতীতে আমি অনেক বাজে কিছু করেছি। কিন্তু তা নিয়ে আমি কখনই কোনো পরিতাম করি না। কেননা, ওই সময় আমি ওটাই করতে চেয়েছিলাম।” “শেষ পর্যন্ত বার্সেলোনা এবং আমি একসঙ্গে হয়েছি। এখন এই জার্সি পরার জন্য আমার তর সইছে না। যদি আমাকে ক্ষমা চাইতে হয়, সেটা মাঠে গিয়ে করব, যেখানে আমি আমার সেরাটা করি।” কাতালান সংবাদমাধ্যম দিয়ারিও স্পোর্ত মে মাসে জানিয়েছিল ওই ডকুমেন্টরির কারণে গ্রিজমানের আসা নিয়ে বার্সেলোনার ড্রেসিংরুমে ভোটাভুটি হয়েছিল। ওই ডকুমেন্টরির কারণে লিওনেল মেসি ও লুইস সুয়ারেসের মতো তারকারা তার ওপর বিরক্ত হয়ে থাকলে তা বুঝতে পারবেন কিনা – এমন প্রশ্নও করেন সাংবাদিকরা। “হতে পারে। যখন তাদের সঙ্গে সাক্ষাতের সুযোগ পাব, তখন দেখা যাবে কি হয়। মাঠে সহযোগিতার মাধ্যমে সব কিছুর সুরাহা করা যেতে পারে।” “যে বিষয় আমাকে সবচেয়ে সুখী করছে তা হচ্ছে, মেসির সঙ্গে আমি মাতে (দক্ষিণ আমেরিকার এক পানীয়) ভাগাভাগি করতে পারব। সত্যিই আমি ভীষণ খুশি। সে নাম্বার ওয়ান এবং সব খেলোয়াড়ের জন্য উদাহরণ। সে আমার বাচ্চাদের কাছে এবং তাদের বাচ্চাদের কাছেও একজন কিংবদন্তি হবে। তার সঙ্গে খেলতে পারাটা আনন্দের।” আতলেতিকোতে পাঁচ বছরে ২৫৭ ম্যাচে ১৩৩ গোল করা গ্রিজমান এখন নতুন চ্যালেঞ্জের জন্য উন্মুখ হয়ে আছেন। গত বছর বার্সেলোনাকে ফিরিয়ে দেওয়ার কারণ হিসেবে পরিবারের কথাও বললেন গ্রিজমান। “আমার পরিবারকেও তো জায়গা বদলাতে হবে- স্কুলে অনেক বন্ধু রেখে আমার মেয়ের, মাদ্রিদে ভালো একটা জীবনযাত্রা ছেড়ে আমার স্ত্রীর। আমি এই পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য সে সময় প্রস্তুত ছিলাম না। ভেবেছিলাম, আতলেতিকোর হয়ে এখনও কিছু অর্জন করার আছে। কিন্তু এ বছর পরিস্থিতি ভিন্ন ছিল।” “কিন্তু সব সময়ই একটা আবাস ছেড়ে আসা কঠিন, যেখানে আপনি খুবই সাচ্ছন্দ্যবোধ করেন, যেখানে আপনার পরিবার, বন্ধু এবং সতীর্থরা রয়েছে। এটা কঠিন ছিল। আতলেতিকোর জন্য আমার শুধূ প্রশংসা আছে। আমি তাদের কাছে, দিয়েগো সিমিওনের কাছে কৃতজ্ঞ।” “এখন আমার চ্যালেঞ্জ নিজের উন্নতির চেষ্টা করা, বার্সেলোনা দলে নিজের জায়গা করে নেওয়া, দারুণ এই ক্লাবের গুরুত্বপূর্ণ অংশ হওয়া এবং লিগ, কাপ ও চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ের চেষ্টা করা। আমার অর্জনে এগুলো নেই।”

শচীনের বিশ্ব একাদশে সাকিব

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ বিশ্বকাপের সদ্য শেষ হওয়া আসরে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করা ক্রিকেটারদের নিয়ে সেরা একাদশ সাজিয়েছে আইসিসি। বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থার (আইসিসি) মতো ব্যক্তিগতভাবেও অনেক তারকা ক্রিকেটার বিশ্বকাপের সেরা একাদশ বাছাই করেছেন। ভারতের কিংবদন্তি ক্রিকেটার শচীন টেন্ডুলকার এবারের বিশ্বকাপে নজর কাড়া পারফরম্যান্স করা ক্রিকেটারদের নিয়ে একাদশ সাজিয়েছেন। ক্রিকেট ইতিহাসে সেঞ্চুরি সেঞ্চুরি করা ভারতের বিশ্বকাপজয়ী দলের এ তারকা ক্রিকেটারের একাদশে জায়গা পেয়েছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। শচীনের বিশ্বকাপ একাদশে যারা আছেন-

রোহিত শর্মা

বিশ্বকাপে ৯ ম্যাচে রেকর্ড ৫টি সেঞ্চুরিতে সর্বোচ্চ ৬৪৮ রান করা রোহিত শর্মা আছেন শচীনের সাজানো একাদশের ওপেনিং ব্যাটসম্যান হিসেবে। ১০ ম্যাচে তিন সেঞ্চুরিতে ৬৪৭ রান করা অস্ট্রেলিয়ান ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নারকেও ওপেনিং পজিশনে রেখেছেন তিনি।

জনি বেয়ারস্টো

দ্বিতীয় ওপেনার হিসেবে শচীনের পছন্দ ইংল্যান্ডের জনি বেয়ারস্টোকে। তিনি আইসিসির বিশ্বকাপ একাদশে থাকা জেসন রয়ের পরিবর্তে ইংলিশ ওপেনার বেয়ারস্টোকেও রেখেছেন। ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপ জয়ের পেছনে বেয়ারস্টোর ভূমিকা সত্যি অনস্বীকার্য।

কেন উইলিয়ামসন

তিন নম্বরে পজিশনে শচীন রেখেছেন নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনকে। তিনি দুই সেঞ্চুরি ও সমান ফিফটিতে বিশ্বকাপে চতুর্থ সর্বোচ্চ ৫৭৮ রান করে টুর্নামেন্ট সেরার পুরস্কার জেতেন।

বিরাট কোহলি

চার নম্বর পজিশনে শচীন রেখেছেন ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে। বিশ্বকাপে নয় ম্যাচে পাঁচটি ফিফটির সাহায্যে ৪৪৩ রান করেন কোহলি।

সাকিব আল হাসান

শচীনের পছন্দের বিশ্বকাপ একাদশে পাঁচে জায়গা পেয়েছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তিনি বিশ্বকাপে অসাধারণ পারফরম্যান্স করেছেন। ব্যাট হাতে ৮ ম্যাচে ৬০৬ রান করার পাশাপাশি বল হাতে শিকার করেন ১১ উইকেট। অলরাউন্ড  নৈপুণ্যের সুবাদে বিশ্বকাপ শেষে বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রণ সংস্থার (আইসিসি) গঠিত সেরা একাদশেও জায়গা পেয়েছেন সাকিব।

বেন স্টোকস

স্লোগওভারে ব্যাটিং তান্ডব চালানোর জন্য শচীন ছয় নম্বর পজিশনে রেখেছেন ইংলিশ অলরাউন্ডার বেন স্টোকসকে। ইংল্যান্ডের এ অলরাউন্ডার বিশ্বকাপে ১১ ম্যাচে ৫টি ফিফটির সাহায্যে ৪৬৭ করেন।

হার্দিক পান্ডিয়া

আইসিসির বিশ্বকাপ একাদশে না থাকলেও শচীনের বিশ্বকাপ একাদশে স্থান করে নিয়েছেন হার্দিক পান্ডিয়া। তার হার্ডহিটিং ব্যাটিংয়ে প্রতিপক্ষকে একাধিকবার বড় রানের লক্ষ্যমাত্রা দিতে সক্ষম হয়েছে ভারত। তেমনই বল হাতেও প্রতিপক্ষের রানের গতি ¯¬থ করায় অন্যতম ভুমিকাও পালন করেছিলেন।

রবীন্দ্র জাডেজা

হার্দিক পান্ডিয়ার মতো জাডেজাও আইসিসির বিশ্বকাপ একাদশে স্থান না পেলেও জায়গা করে নিয়েছেন শচীনের বিশ্বকাপ একাদশে। সেমিফাইনালে সুযোগ পেয়ে ব্যাটিং, বোলিং ও ফিল্ডিং করে যেভাবে নিজের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন তা সত্যি কুর্নিশ যোগ্য।

মিচেল স্টার্ক

সদ্য শেষ হওয়া বিশ্বকাপে দুর্দান্ত বোলিং করেছেন মিচেল স্টার্ক। ১০ ম্যাচে সর্বোচ্চ ২৭ উইকেট শিকার করেন অস্ট্রেলিয়ান এ পেসার।

যশপ্রীত বুমরাহ

বিশ্বকাপে ৯ ম্যাচে ১৮টি উইকেট নেওয়ার পাশাপাশি মাত্র ৪.৪১ হারে রান দিয়েছেন ভারতীয় এই তারকা ক্রিকেটার। তাছাড়া ডেথ ওভারে দুর্দান্ত বোলিং করেছেন তিনি।

জফরা আরচার

ইংল্যান্ডের একজন সফল পেস বোলার জফরা আরচার। তিনি বিশ্বকাপে দুর্দান্ত বোলিং করে ১১ ম্যাচে শিকার করেছেন ২০ উইকেট। ডেথ ওভার স্পেশালিস্ট হওয়ায় ফাইনালে সুপার ওভারে তার উপরই আস্থা রেখেছিলেন ইংল্যান্ড অধিনায়ক মরগান। এই জফরার ওভারেই শেষ পর্যন্ত বিশ্বকাপ শিরোপার স্বাদ পায় ইংল্যান্ড।

শ্রীলঙ্কা সফরে এনামুল-তাইজুল

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ আসন্ন শ্রীলঙ্কা সফরের জন্য দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। ১৪ সদস্যের দলে ডাক পেয়েছেন ওপেনার এনামুল হক বিজয় ও স্পিনার তাইজুল ইসলাম। আর সদ্য সমাপ্ত বিশ্বকাপে খেলা দলের তিনজনকে বাদ রাখা হয়েছে দল থেকে। এই তিন ক্রিকেটার হলেন- ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের সেরা অলরাউন্ড পারফর্মার সাকিব আল হাসান, লিটন দাস ও আবু জায়েদ রাহীকে। ঘরোয়া লিগ ও ‘এ’ দলে ভালোই খেলছিলেন বিজয়। তবু বিশ্বকাপ দলে জায়গা না পাওয়ায় হতাশ ছিলেন তিনি। বিশ্বকাপে খেলতে না পারলেও এবার শ্রীলঙ্কা সফরে জাতীয় দলে ডাক পেলেন তিনি। এক বছর পর ফিরলেন জাতীয় দলে। এদিকে তিন বছর পর জাতীয দলে ডাক পেলেন স্পিনার তাইজুল ইসলাম। হজ পালনের জন্য এই সফর থেকে ছুটি চেয়েছিলেন সাকিব। আর লিটন ছুটি চেয়েছিলেন বিয়ের অনুষ্ঠানের জন্য। দুজনকেই এই সফরে দলের বাইরে রাখা হয়েছে। এছাড়া বিশ্বকাপ দলে থাকা আবু জায়েদকে কোনো ম্যাচ খেলানো হয় না। এই সফরেও সেই রাহীকে রাখা হয়নি দলে। এই সফরে তিনটি ওয়ানডে খেলবে বাংলাদেশ। ২৬, ২৮ ও ৩১ জুলাই স্বাগতিকদের বিপক্ষে হবে এই তিনটি ওয়ানডে ম্যাচ। বাংলাদেশ দল: তামিম ইকবাল, এনামুল হক বিজয়, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), মোহাম্মদ মিঠুন, মাহমুদউল্লাহ, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, মেহেদী হাসান মিরাজ, মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), রুবেল হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান, মোসাদ্দেক হোসেন ও তাইজুল ইসলাম।

দাম নিয়ে চিন্তিত পাট চাষীরা, সরকারী ক্রয়কেন্দ্র স্থাপনের দাবী

কৃষকের ঘরে পাট থাকলে দাম থাকে না

কাঞ্চন কুমার ॥ বাংলাদেশের অর্থকারী ফসলের মধ্যে পাট অন্যতম। পাটের পন্যে ব্যবহারে সরকারী উদ্যোগ এবং দেশের আবহাওয়া পাট চাষের জন্য উপযোগী এবং পরিবেশ বান্ধক হওয়ায় পাট চাষে কয়েক বছর কৃষকরা আগ্রহ দেখিয়েছে। জেলা পাট অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের দাবী, জেলায় এবার পাটের উৎপাদন ভালো, পাটের চাহিদাও রয়েছে রয়েছে। বিগত বছরের তুলনায় এবার জেলায় পাটের আবাদ বেশি হয়েছে। তবে দাম নিয়ে চিন্তিত জেলার পাট চাষীরা। সরকারী দাম প্রান্তিক, ক্ষুদ্র ও মাঝারি কৃষকরা না পাওয়ায় আগামীতে পাট চাষ থেকে মুখ ফিরিয়ে নেবে চাষীরা বলে জানায় একাধিক পাট চাষীরা। এজন্য চাষীরা দায়ী করছেন পাটের ভরা মৌসুমে ন্যায্য দাম না পাওয়াকে। অর্থকারী ফসল হিসাবে পাটের গুরুত্ব রয়েছে চাষীদের কাছে। তবে চাষীর ঘরে পাট থাকা পর্যন্ত পাটের দাম বৃদ্ধি পায় না। কৃষকরা তাদের পাটের ন্যায্য মূল্য পায় না। এর পরিবর্তে মধ্যসত্ত্যভূগি ও পাটের অসাধু ব্যবসায়ীরা অধিক লাভবান হচ্ছে বলে অভিযোগ পাট চাষীদের। জেলা পাট অধিদপ্তরের দেওয়া তথ্য মতে, চলতি মৌসুমে কুষ্টিয়ায় পাট চাষের লক্ষমাত্রা নির্ধারন করা হয় ৮৮ হাজার ৭শ ৩৫ একর। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়েছে ৪ লক্ষ ৭০ হাজার ৯শ ৫১ বেল। চলতি মৌসুমে পাট চাষ হয়েছে ৮৯ হাজার ৫শ ৩৫ একর জমিতে। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৮শ একর বেশি। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রাও অতিক্রম করবে বলে জানানো হয়। এদিকে ২০১৮ মৌসুমে ৬৮ হাজার ৮শ ১৩ একর জমিতে পাট চাষ করা হয়েছিলো। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিলো ৩ লক্ষ ২১ হাজার ৯শ বেল। উৎপাদন হয়েছিলো ৩ লক্ষ ৬১ হাজার ৯শ ৫৪ বেল। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৪০ হাজার ৫৪ বেল বেশি উৎপাদন হয়েছিলো। গত বছরের তুলনায় এবছর জেলায় পাট চাষ বেড়েছে ২০ হাজার ৭শ ২২ একর। এদিকে পাট চাষীদের দাবী গত বছরের তুলনায় এবছর পাটের চাষ কম হয়েছে। উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি, শ্রমিক সংকট, শ্রমিকের মুল্য বৃদ্ধি এবং কৃষকরা ন্যায্য মুল্য না পাওয়ায় পাট চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন তারা। কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার পাট চাষী আব্দুল খালেক জানান, আমি গত বছর ৩ বিঘা জমিতে পাট চাষ করেছিলাম। চাষের খরচ, লেবার খবর দিতেই আমার হিমসিম খেতে হয়েছিলো। পাট নিড়ানী, পাট কাটা, পাটের আঁশ ছাড়ানোর সময় লেবার পাওয়া যায় না। আর পাওয়া গেলেও দ্বিগুন মুজুরি দেওয়া লাগে। এক বিঘা জমিতে পাট চাষ করতে নিড়ানী, কাটা, টানা, জাগ দেওয়া, আঁশ আলাদা করা, শুকাতে প্রায় ৩৩টি লেবার লাগে। পাটের জন্য জনপ্রতি ৩শ টাকা করে দেওয়া লাগে এতে প্রায় ১০ হাজার টাকা খরচ হয়ে যায়। এছাড়াও জমি এবং সার-বীজ তো আছেই। সব চেয়ে বড় সমস্যা হলো আমরা টাকার জন্যই পাট চাষ করি তবে আমাদের ঘরে যখন পাট থাকে তখন পাটের বাজার দর মনপ্রতি ৯০০-১২০০ টাকা হয়। যখন কৃষকের ঘরে পাট থাকে না তখন ১৮০০ থেকে ২২০০ পর্যন্ত হয়। এক বিঘা জমিতে ৭-৮ মন পাট হয়। তিনি আরো বলেন, আমরা তামাকের চাষ করি। তামাক পোড়ানোর ঘরের জন্য আমাদের পাট কাঠির প্রয়োজন হয়। এজন্য আমরা লস লাভের হিসাব না করে পাট চাষ করি। এবার আমি ২ বিঘা জমিতে পাটের চাষ করেছি। পাট ভালোই হয়েছে তবে আমরা তো সঠিক দাম পাবো না। দাম পাবে ব্যবসায়ীরা। কৃষাণী বিউটি খাতুন জানান, একই জমিতে বার বার পাট চাষ করলে পাট একটু কম হয়। কৃষকরা পাটের সঠিক দাম পায় তাহলে পাট চিকন হলেও লাভ হয়। যে লেবার খরচ তাতে এবার লস হতে পারে। পাট চাষী শরিফুল ইসলাম জানান, জাগ দেওয়ার পরে পাটের আঁশ আলাদা করার ক্ষেত্রে একজন লেবার দিনে ১৫ আটি পাট ধুয়ে থাকে। সে মুজুরি নেয় ৫০০ টাকা। পাট কাটা, টানা, আঁশ ছাড়ানোর হিসাব করলে এক আটি পাটে প্রায় ৫০ টাকা খরচ হয়ে যায়। আরেকজন চাষী লালন আলী জানান, গত বছর আমি ১২ কাঠা জমিতে পাটের চাষ করেছিলাম। সেই পাট মাত্র ২ হাজার টাকায় বিক্রি করেছিলাম। অতিরিক্ত লস হওয়ায় এবছর পাটের চাষ করিনি। চাষী আলফাত হোসেন জানান, পাট জাগ দেওয়ার জন্য পর্যাপ্ত পুকুর, খাল-বিল-জলাশয় নেই। আর পাটের সঠিক দাম তো কৃষক পায়না, পায় ব্যবসায়ীরা। তো তারাই পাট চাষ করুক। মিরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ রমেশ চন্দ্র ঘোষ জানান, অধিকাংশ কৃষক গরীব হওয়ায় তারা পাট শুকিয়ে তাড়াহুড়ো করে বিক্রি করে দেয় এতে তারা পাটের সঠিক দাম পায়না। সরকারী ভাবে পর্যাপ্ত পাট ক্রয় কেন্দ্র না থাকায় অসাধু ব্যবসায়ীরা কৃষকদের দুর্বলতার সুযোগ নেয়। তিনি আরো বলেন, এ অঞ্চলের মাটি পাট চাষের জন্য খুবই উপযোগী। এ অঞ্চলে তোষা পাটে চাষ বেশি হয়ে থাকে। এবছর পাটের মারাত্বক তেমন কোন পোকামাকড় দেখা দেয়নি। আশা করছি পাটের উৎপাদন ভালো হবে। জেলা পাট অধিদপ্তরের মুখ্য পাট পরিদর্শক সোহরাব উদ্দিন বিশ্বাস জানান, বর্তমানে পাটের বাজার দর ১৯২০ টাকা থেকে ২২০০ টাকা পর্যন্ত। আমরা কৃষকদের পাট চাষে উদ্বুদ্ধ করতে জেলার প্রায় ৩ হাজার পাট চাষীদের পাট চাষে প্রশিক্ষন দিয়েছি। সেই সাথে ১৮০০ কৃষককে বিনামূল্যে সার ও বীজ প্রদান করেছি। তিনি আরো জানান, পাটের চাহিদা বৃদ্ধিতে নিয়মিত বাজার মনিটরিং করি। “পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামুলক আইন ২০১০” নিশ্চিতে আমরা কুষ্টিয়া জেলায় ২০১৪-১৫ অর্থবছর থেকে এ পর্যন্ত ২০৯ টি ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেছি। এসময় আমরা ৭ লক্ষ ৬১ হাজার ৩০০ টাকা জরিমানা আদায় করেছি। এবং আমাদের এ অভিযান অব্যহত রয়েছে। তিনি আরো জানান, জেলার খোকসা উপজেলায় একটি মাত্র বিজিএমসি’র পাটক্রয় কেন্দ্র রয়েছে। পরিবহন এবং আর্থিক সংকটের কারনে প্রান্তিক কৃষকরা সেখানে তাদের পাট না নিয়ে গিয়ে স্থানীয় বাজারে বিক্রি করে। এতে প্রান্তিক কৃষকরা ন্যায্য মুল্য না পেয়ে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়। প্রতিটি উপজেলায় কমপক্ষে একটি করে সরকারী পাটক্রয় কেন্দ্র স্থাপন করা হলে প্রান্তক কৃষকরা তাদের পাটের ন্যায্য মুল্য পেতে পারেন বলেন মনে করেন এই কর্মকর্তা।

স্টোকসের যে ডাইভ ইংল্যান্ডকে নিল ট্রফির কাছে

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ নিজেকে বাঁচাতে মরিয়া চেষ্টা। অন্তত আরেকটি বল টিকে থাকার প্রবল তাড়না। একটি প্রাণপণ ডাইভ! রান আউট থেকে বাঁচতে ঝাঁপিয়ে পড়লেন বেন স্টোকস। বল তার বাড়ানো ব্যাটে লেগে ফাঁকা জায়গা দিয়ে পার হলো সীমানা। নিউ জিল্যান্ডের স্বপ্নও যেন গেল বেরিয়ে। ইংল্যান্ড এগিয়ে গেল জয়ের ঠিকানার পথে।ইংল্যান্ডের জন্য যা ছিল ভাগ্যের দারুণ ছোঁয়া, নিউ জিল্যান্ডের জন্য সেটিই দুর্ভাগ্যের প্রবল ছোবল। শেষ ওভারে স্টোকসের ডাইভ থেকে পাওয়া চারটি রান বদলে দিয়েছে খেলার মোড়। হয়তো ম্যাচের চূড়ান্ত ভাগ্যও গড়া হয়ে গেছে সেখানেই।ম্যাচের শেষ ওভারের সেটি ছিল চতুর্থ বল। আগের বলেই ট্রেন্ট বোল্টকে দুর্দান্ত একটি ছক্কা মেরেছেন স্টোকস। ওভারের প্রথম দুটি বল থেকে আসেনি রান। স্টোকসের ছক্কার পরও তাই এগিয়ে ছিল নিউ জিল্যান্ডই।বোল্টের করা চতুর্থ বলটি হলো ফুল টস। স্টোকস খেললেন মিড উইকেটে। ইংল্যান্ডকে জিততে হলে তার স্ট্রাইক ধরে রাখার বিকল্প ছিল না। তাই দারুণ দ্রুততায় দ্বিতীয় রানের জন্য ছুটলেন স্টোকস। সীমানা থেকে ফিল্ডার মার্টিন গাপটিলের থ্রো ধেয়ে আসছিল স্টাম্পের দিকে। তখনই স্টোকসের ডাইভ। বল তার বাড়ানো ব্যাটের সঙ্গে লেগে চলে গেল সীমানায়। ধারাভাষ্য কক্ষে ইয়ান স্মিথ দারুণভাবে ফুটিয়ে তুলেছিলেন চিত্র, ‘টুর্নামেন্টে কত কত ছক্কাই তো হলো। কিন্তু সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ৬ রান এলো মাটি ঘেঁষে!”বল বাউন্ডারিতে না গেলে বাড়তি কোনো রানই হতো না। কারণ এভাবে থ্রো থেকে ব্যাটসম্যানের শরীর বা ব্যাটে লেগে বল ফাঁকা জায়গায় গেলেও সাধারণত ক্রিকেটের স্পিরিটের প্রতি সম্মান দেখিয়ে রান নেয় না কেউ। স্টোকসও দৌড়ে বাড়তি রান নেওয়ার চেষ্টা করেননি। কিন্তু বাউন্ডারি হলে আম্পায়ার, অধিনায়ক কিংবা কারও কিছু করার থাকে না। নিয়ম অনুসরণ করতেই হবে।যেখানে স্টোকস রান আউটও হতে পারতেন, কিংবা পেতেন বড়জোর দুই, সেখানেই উপহার মিলল আরও চারটি রান। যে সমীকরণ হওয়ার কথা ২ বলে ৭, সেটি হয়ে গেল ২ বলে ৩!শেষ পর্যন্ত সেই ম্যাচ টাই হয়েছে, স্কোর সমান হয়েছে সুপার ওভারেও। নিয়ম অনুযায়ী বাউন্ডারি সংখ্যা বেশি হওয়ায় জিতে গেছে ইংল্যান্ড। ওই ডাইভের সৌজন্যে ৪ রান না হলে হয়তো ম্যাচ সুপার ওভারেই গড়াত না!কিন্তু এই নিয়ম কি থাকা উচিত? ফিল্ডার অবশ্যই চেষ্টা করবেন স্টাম্পে লাগাতে। ব্যাটসম্যানও অবশ্যই চাইবেন যে কোনোভাবে নিজেকে রক্ষা করতে। সেই প্রক্রিয়ায় একটি ভালো থ্রো করে যদি উল্টো খেসারত দিতে হয়, তাহলে এই নিয়ম কতটুকু যৌক্তিক?ফিল্ডিংয়ের সময় থ্রো শরীরে বা ব্যাটে লাগলে ‘ডেড বল’ করে দেওয়ার আলোচনা আগেও নানা সময়ে টুকটাক শোনা গেছে। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে এই নিয়মের প্রসঙ্গ উঠল। কেন উইলিয়ামসন বরাবরই আপাদমস্তক ভদ্রলোক ও প্রচন্ড বিনয়ী। আইন বদলের কোনো কথাই নেই তার। বরং নিউ জিল্যান্ড অধিনায়কের মতে, এটি ছাড়াও ম্যাচে আরও অনেক গুরুত্বপূর্ণ ধাপ ছিল।“এই নিয়ম তো অনেক দিন থেকেই আছে। আমার মনে হয় না আমাদের এভাবে ভাবা উঁচিত হবে যে ওখানেই ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারিত হয়ে গেছে। ছোট ছোট আরও অনেক কিছুই ছিল গুরুত্বপূর্ণ।”“ম্যাচ টাই হলে, প্রত্যেকটি আলাদা ডেলিভারি নিয়ে কাঁটাছেড়া করা যায়। হতে পারত তাই অনেক কিছুই। এই হার হজম করা অবশ্যই কঠিন। তবে এটিই বাস্তবতা।”ইংল্যান্ড অধিনায়ক ওয়েন মর্গ্যান জানালেন, ওই সময়ের পরিস্থিতি বুঝতেই তার বেশ খানিকটা সময় লেগেছে।“আমি ঠিক নিশ্চিত ছিলাম না, ওই সময় কী হচ্ছিল। বেন ডাইভ দিয়েছেন, চারপাশে ধুলো উড়ছিল। তার সঙ্গে লেগে বল সীমানায় চলে গেল এবং কিউই ক্রিকেটাররা কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে বলছিল, “এসব কী হচ্ছে!” আমি গ্রেফ ওই মুহূর্তে থাকতে চেষ্টা করেছি।”তবে লর্ডসের ব্যালকনিতে বসে নিজেদের এই সৌভাগ্য দেখেও কোনো উল্লাস বা উদযাপন করেননি ইংল্যান্ড অধিনায়ক।“আমি উদযাপন করিনি কারণ। কারণ কে জানে, সামনে এমন কিছু আমাদের ক্ষেত্রেও হতে পারে! খুবই সূক্ষ্ম ব্যবধান ছিল আজ। যে কারও ক্ষেত্রে এমনটি হতে পারে। আমরা এসব নিয়েই কথা বলেছি যে এমনকি সূক্ষ্মতম সুযোগও কাজে লাগাবে হবে। এসব ম্যাচে সবসময়ই নিজের খেলার চূড়ায় থাকতে হবে।”ওই বলে পাওয়া ৬ রান নিয়ে বিতর্কের অবকাশ আছে আরও। নিয়ম অনুযায়ী, এভাবে ওভারথ্রো থেকে বাউন্ডারি এলে সেই চার রানের সঙ্গে দৌড়ে নেওয়া তত রানই যোগ হবে, ফিল্ডার বল ছাড়ার আগে যতবার দুই ব্যাটসম্যান রানিং বিটুইন দা উইকেটে পরস্পরকে অতিক্রম করতে পেরেছেন। এই ম্যাচের ক্ষেত্রে, স্টোকস ও আদিল রশিদ একবার প্রান্ত বদল করলেও পরের রানটির সময় গাপটিল বল থ্রো করার আগে দুই ব্যাটসম্যান পরস্পরকে অতিক্রম করতে পেরেছিলেন কিনা, নিশ্চিত নয়।গাপটিল থ্রো করার আগে দুই ব্যাটসম্যান পরস্পরকে অতিক্রম না করলে বাউন্ডারির সঙ্গে কেবল ১ রান যোগ হবে। সেক্ষেত্রে ছয়ের জায়গায় হতে পারত পাঁচ রানও। ম্যাচের প্রেক্ষাপটে সেই ১ রান হতে পারত মহামূল্যবান। এটি নিয়েও বেশ চর্চা হতে পারে সামনের দিনগুলোয়।

ফেদেরারকে হারিয়ে উইম্বলডন চ্যাম্পিয়ন জোকোভিচ

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ শ্বাসরুদ্ধকর ফাইনালে রজার ফেদেরারকে হারিয়ে উইম্বলডনে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন নোভাক জোকোভিচ। টানা দ্বিতীয়বারের মতো প্রতিযোগিতাটির শিরোপা জিতলেন বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ তারকা।সেন্টার কোর্টে রোববার পুরুষ এককের শিরোপা লড়াইয়ে প্রথম সেট হারের পর দুর্দান্তভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছিলেন রেকর্ড ২০টি গ্র্যান্ড ¯¬্যাম জয়ী ফেদেরার। তৃতীয় সেটে আবারও বাজিমাত করেন জোকোভিচ। বারবার পট পরিবর্তনের রোমাঞ্চকর ম্যাচে শেষ সেট গড়ায় টাইব্রেকারে। স্নায়ুচাপ ধরে রেখে উইম্বলডনে পঞ্চম শিরোপা জিতেন সার্বিয়ান তারকা।চার ঘণ্টা ৫৫ মিনিট স্থায়ী ম্যাচটি ৭-৬, ১-৬, ৭-৬, ৪-৬, ১৩-১২(৭-৩) গেমে জিতেন জোকোভিচ।গত ১২ মাসে পাঁচ গ্র্যান্ড স্ল্যামের চারটিতে ফাইনালে উঠে সবকটিতেই চ্যাম্পিয়ন হলেন জোকোভিচ। ক্যারিয়ারে ৩২ বছর বয়সী তারকার এটি ১৬টি গ্র্যান্ড স্ল্যাম শিরোপা।ফেদেরারের বিপক্ষে ৪৮ বারের মুখোমুখি লড়াইয়ে জোকোভিচের এটা ২৬তম জয়।টেনিসের উন্মুক্ত যুগে সবচেয়ে বেশি বয়সী খেলোয়াড় হিসেবে গ্র্যান্ড স্ল্যাম চ্যাম্পিয়ন হওয়ার হাতছানি ছিল অগাস্টে ৩৯ বছর বয়সে পা দিতে যাওয়া ফেদেরারের সামনে। কিন্তু এ যাত্রায় সেটা আর হলো না। পুরুষ ও নারী মিলিয়ে উইম্বলডনের এককে রেকর্ড নয়বারের চ্যাম্পিয়ন মার্তিনা নাভ্রাতিলোভাকে ছোঁয়ার অপেক্ষাও বাড়লো সুইস তারকার সামনে। হাড্ডাহাড্ডি লড়াই শেষে শিরোপা নিশ্চিত হওয়ার পরও যেন বিশ্বাসই হচ্ছিল না জোকোভিচের। বলেন, “এটা পুরোপুরি স্বপ্নের মতো।” চ্যাম্পিয়নকে অভিনন্দন জানিয়ে ফেদেরার বলেন, “অসাধারণ একটি ম্যাচ ছিল। দীর্ঘ লড়াই, ম্যাচটিতে সবকিছু ছিল। নোভাক, অভিনন্দন তোমাকে।”

আফ্রিকা নেশন্স কাপের ফাইনালে সেনেগাল-আলজেরিয়া

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ আত্মঘাতী গোলে জিতে আফ্রিকা নেশন্স কাপের ফাইনালে উঠেছে সেনেগাল। অন্য সেমি-ফাইনালে রিয়াদ মাহরেজের দ্বিতীয়ার্ধের যোগ করা সময়ের দুর্দান্ত গোলে জিতে শিরোপা লড়াইয়ের মঞ্চে উঠেছে আলজেরিয়া।আগামী শুক্রবার মুখোমুখি হবে দুই দল। ১৯৯০ সালে প্রথম নেশন্স কাপ জেতা আলজেরিয়া লড়বে দ্বিতীয় শিরোপার জন্য। ২০০২ সালের রানার্সআপ সেনেগালের সামনে প্রথম শিরোপা জয়ের হাতছানি।মিশরের কায়রোতে রোববার প্রথম সেমি-ফাইনালে আত্মঘাতী গোলে তিউনিসিয়াকে ১-০ ব্যবধানে হারায় সেনেগাল। ম্যাচের নির্ধারিত সময়ে দুই দলই পেনাল্টি পেয়েছিল, কিন্তু কাজে লাগাতে পারেনি কেউ। অতিরিক্ত সময়ে সাদিও মানের ফ্রি-কিক গোলরক্ষকে ফিস্ট করার পর বল দিলান ব্রনের মাথায় লেগে জালে জড়ায়।বাকিটা সময় এ গোল ধরে রেখে দ্বিতীয়বারের মতো নেশন্স কাপের ফাইনালে ওঠে সেনেগাল। ২০০২ সালে ক্যামেরুনের কাছে হেরে শিরোপা স্বপ্ন গুঁড়িয়েছিল তাদের।দ্বিতীয় সেমি-ফাইনালে আলজেরিয়া জিতে ২-১ গোলে। ৪০তম মিনিটে আত্মঘাতী গোলে এগিয়ে যায় তারা। ৭২তম মিনিটে ওডিয়ন ইঘালোর স্পট কিকে সমতায় ফেরে তিনবারের চ্যাম্পিয়ন নাইজেরিয়া। ডি বক্সের ভেতরে আলজেরিয়ার এক খেলোয়াড়ের হাতে বল লাগলে ভিএআর দেখে পেনাল্টির বাঁশি বাজিয়েছিলেন রেফারি। দ্বিতীয়ার্ধের যোগ করা সময়ের দুর্দান্ত ফ্রি-কিকে লক্ষ্যভেদ করে আলজেরিয়াকে ফাইনালে তোলেন ম্যানচেস্টার সিটির ফরোয়ার্ড মাহরেজ।

আইসিসির বিশ্বকাপ একাদশে সাকিব

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ টুর্নামেন্ট জুড়ে ব্যাটে-বলে আলো ছড়ানো সাকিব আল হাসান জায়গা পেয়েছেন আইসিসির বিশ্বকাপ একাদশে। সর্বোচ্চ চারজন খেলোয়াড় জায়গা পেয়েছেন শিরোপাজয়ী ইংল্যান্ড দল থেকে। দলকে নেতৃত্ব দেবেন নিউ জিল্যান্ড অধিনায়ক ও ম্যান অব দা টুর্নামেন্ট কেন উইলিয়ামসন। বিশ্বকাপ একাদশ: জেসন রয়, রোহিত শর্মা, কেন উইলিয়ামসন (অধিনায়ক), জো রুট, সাকিব আল হাসান, বেন স্টোকস, অ্যালেক্স কেয়ারি (উইকেটরক্ষক), মিচেল স্টার্ক, জফরা আর্চার, লকি ফার্গুসন, জাসপ্রিত বুমরাহ।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের বিগেশ্লষণে বিশ্বকাপে ব্যাট-বলে সেরা সাকিব

ঢাকা অফিস ॥ প্রায় দেড় মাসের ক্রিকেটযুদ্ধ শেষে পর্দা নামছে বিশ্বকাপের দ্বাদশ আসরের। রোববার শিরোপার জন্য ক্রিকেটের তীর্থভূমি লর্ডসে লড়ছে ইংল্যান্ড-নিউজিল্যান্ড। ফাইনালে কে জিতবে বাংলাদেশ সময় রাতেই তা জানা যাবে। একই সঙ্গে টুর্নামেন্টে কারা সেরা সেটাও পরিষ্কার হবে। তবে ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গেছে জল্পনা-কল্পনা। এ নিয়ে চুলচেরা বিশে¬ষণ করেছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম গালফ নিউজ। ৫ সদস্যের বিশে¬ষক প্যানেল এটি করেছে। তাদের মতে, এবারের বিশ্বকাপের সেরা ব্যাটসম্যান ভারতের রোহিত শর্মা, বোলার অস্ট্রেলিয়ার মিচেল স্টার্ক, অলরাউন্ডার বাংলাদেশের সাকিব আল হাসান এবং সেরা অধিনায়ক নিউজিল্যান্ডের কেন উইলিয়ামসন। সেরা খেলোয়াড় বাছাইয়ের ক্ষেত্রে করা হয় ভোটাভুটি। শ্রেষ্ঠ ব্যাটসম্যান হওয়ার রেসে উইলিয়ামসনকে ৩-২ ব্যবধানে হারিয়েছেন রোহিত। তবে সেরা বোলার নির্বাচনে পাঁচটি ভোটই পড়েছে মিচেল স্টার্কের বক্সে। সেরা অলরাউন্ডারের বিবেচনায় পাঁচটি ভোট পেয়েছেন সাকিবও। তবে সেরা ফিল্ডার বাছাইয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে পড়ে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমটির বিশেষজ্ঞ প্যানেল। শেষ পর্যন্ত সেটি নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারেননি তারা। পাকিস্তানের বিপক্ষে বেন স্টোকস এবং অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মার্টিন গাপটিলকে ভোট দেন দুজন করে বিশে¬ষক। অপরজন বেছে নিয়েছেন ইংল্যান্ডের বিপক্ষে রবীন্দ্র জাজেদার ক্যাচটি। বিশ্বকাপের সেরা অধিনায়ক হওয়ার দৌড়ে ভারতের বিরাট কোহলিকে হারিয়েছেন উইলিয়ামসন। আরেকটি ক্ষেত্রে টিম ইন্ডিয়াকে পরাজিত করেছেন কিউইরা। সেরা হিসেবে মনোনীত হয়েছে নিউজিল্যান্ডের জার্সি। আর সবচেয়ে খারাপ বলে বিবেচিত হয়েছে ভারতের গেরুয়া রঙের অ্যাওয়ে জার্সিটি।

সেরেনাকে হারিয়ে উইম্বলডন চ্যাম্পিয়ন হালেপ

ঢাকা অফিস ॥ সেন্টার কোর্টে শনিবার মেয়েদের এককের ফাইনালে তেমন কোনো প্রতিদ্বন্দ্বিতাই গড়তে পারেননি ২৩টি গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ী সেরেনা। মাত্র ৫৬ মিনিট স্থায়ী ম্যাচে ৬-২, ৬-২ গেমে জিতে যান রোমানিয়ার হালেপ। ক্যারিয়ারে এই নিয়ে দ্বিতীয় গ্র্যান্ড স্ল্যাম জিতলেন সাবেক নাম্বার ওয়ান হালেপ। এটা তার ক্যারিয়ারের সেরা ম্যাচ বলে জানান গত বছর ফরাসি ওপেন জেতা ২৭ বছর বয়সী এই খেলোয়াড়। টেনিস ইতিহাসে সর্বোচ্চ ২৪ গ্র্যান্ড ¯¬্যাম জেতা মার্গারেট কোর্টকে এবারও ছোঁয়া হলো না সেরেনার। গত ১২ মাসে এই নিয়ে তৃতীয়বার গ্র্যান্ড ¯¬্যামের ফাইনালে হারলেন ৩৭ বছর বয়সী এই তারকা। সবশেষ ২০১৭ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে সবশেষ গ্র্যান্ড স্ল্যাম জিতেছিলেন সেরেনা।

বার্সার জার্সিতে নেইমারের ভিডিও পোস্টে নতুন গুঞ্জন

ঢাকা অফিস ॥ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে নেইমারের একটি পোস্টে তার গায়ে বার্সেলোনার জার্সি থাকায় পিএসজি ছেড়ে তার স্পেনের ক্লাবটিকে ফিরে আসার সম্ভাবনা নিয়ে গুঞ্জন আরও জোরালো হয়েছে। তবে নেইমারের মুখপাত্র জানিয়েছেন, আগামী সোমবার পিএসজির অনুশীলনের যোগ দেবেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড। পিএসজির হয়ে প্রাক-মৌসুমের প্রস্তুতিতে এখনও যোগ দেননি নেইমার। চোটের কারণে কোপা আমেরিকায়ও খেলা হয়নি তার।২০১৭ সালে রেকর্ড ২২ কোটি ২০ লাখ ইউরো ট্রান্সফার ফিতে বার্সেলোনা ছেড়ে পাঁচ বছরের চুক্তিতে পিএসজিতে যোগ দেন নেইমার। সম্প্রতি তার বার্সেলোনায় ফেরার সম্ভাবনা নিয়ে গুঞ্জন চলছে।২৭ বছর বয়সী নেইমারের ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করা ভিডিওতে একটি সাদাকালো ছবি দেখানো হয় যেখানে বার্সেলোনার ব্যাজ লাগানো শার্ট পরা নেইমার আর বাইবেল থেকে উদ্ধৃতি আছে।ফরাসি দৈনিক লেকিপ নেইমারের ওই ভিডিও সম্পর্কে লিখেছে, পিএসজি স্ট্রাইকারের অস্পষ্ট বার্তার মধ্যে সবাই তার পুরানো ক্লাবের ফেরার গোপন ঘোষণা দেখবে।তবে নেইমারের মুখপাত্রের বিবৃতির উল্লেখ করে ব্রাজিলিয়ান ওয়েবসাইটগুলো জানায়, ব্যক্তিগত কাজ শেষ হলে স্বাভাবিকভাবে নেইমার ১৫ জুলাই পিএসজিতে হাজির হবেন এবং বিষয়টি কয়েক সপ্তাহ আগে ফরাসি ক্লাবটিকে জানানো হয়েছিল।এ মাসের শুরুতে বার্সেলোনা সভাপতি জোসেপ মারিয়া বার্তোমেউ নেইমার পিএসজি ছাড়তে চায় বলে দাবি করেছিলেন। তবে লিগ ওয়ান চ্যাম্পিয়নরা তাকে বিক্রি করবে না বলেও স্বীকার করেন তিনি।গত সোমবার প্রাক মৌসুমের প্রস্তুতির শুরুতে উপস্থিত না থাকায় নেইমারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানায় পিএসজি। অবশ্য ব্রাজিল ফরোয়ার্ডের বাবা দাবি করেন, আগে থেকেই এ বিষয় নিয়ে সমঝোতা হয়েছিল; যাতে করে ব্রাজিলের কোপা আমেরিকা জয়ের উৎসবে থাকতে পারেন নেইমার।

 

নাদালকে হারিয়ে উইম্বলডনের ফাইনালে ফেদেরার, প্রতিপক্ষ জকোভিচ

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ দীর্ঘদিনের প্রতিদ্বদ্বী রাফায়েল নাদালকে পরাজিত করে রেকর্ড ১২তম উইম্বলডন টেনিসের ফাইনালে উঠেছেন রজার ফেদেরার। ২০০৮ সালে সর্বশেষ অল ইংল্যান্ড ক্লাবের ফাইনালে স্প্যানিশ তারকা নাদালকে পরাজিত করেছিলেন ফেদেরার। যে ম্যাচটিকে উইম্বলডনের ইতিহাসে অন্যতম সেরা ম্যাচ হিসেবে এখনো বিবেচনা করা হয়। ৩৭ বছর বয়সী ফেদেরার গতকাল ৭-৬ (৭/৩), ১-৬, ৬-৩, ৬-৪ গেমে নাদালকে পরাজিত করে ফাইনাল নিশ্চিত করেন। যেখানে তার জন্য অপেক্ষায় আছেন বর্তমান চ্যাম্পিন নোভাক জকোভিচ। এই নিয়ে ফেদেরার-নাদাল একে অপরের বিপক্ষে ৪০তম ম্যাচে মুখোমুখি হলেন। আটবারের চ্যাম্পিয়ন ফেদেরার এই নিয়ে ৩১তম ফাইনালে উত্তীর্ণ হলেন। এদিকে শীর্ষ বাছাই ও চার বারের বিজয়ী জকোভিচ ক্যারিয়ারের ষষ্ঠ উইম্বলডন ফাইনাল ও ২৫তম মেজর ফাইনালের পথে স্পেনের ২৩তম রবার্তো বাতিস্তা আগুতকে ৬-২, ৪-৬, ৬-৩, ৬-২ গেমে পরাজিত করেছেন। ম্যাচ শেষে ফেদেরার বলেন, ‘আমি সত্যিই হাঁপিয়ে উঠেছিলাম। শেষের দিকে ম্যাচটা বেশ কঠিন ছিল। ম্যাচে টিকে থাকার জন্য রাফা অবিশ্বাস্য কিছু শট খেলেছে। রাফার সাথে লড়াইটা সবসময়ই বিশেষ কিছু। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে কিছু কিছ লম্বা র‌্যালি বেশ কষ্টকর ছিল।’৩৯ বছর বয়সী কেন রোসওয়াল ১৯৭৪ সালে উইম্বলডন ও ইউএস ওপেনের ফাইনালে খেলার পর তৃতীয় বয়ষ্ক খেলোয়াড় হিসেবে গ্র্যান্ড ¯¬্যামের ফাইনাল নিশ্চিত করেছেন সুইস সেনসেশন। ১৫বারের ¯¬্যাম বিজয়ী জকোভিচের সাথে ফাইনালে লড়াইয়ে টিকে থাকতে হলে ফেদেরারকে বেশ কঠিন পরীক্ষার মোকাবেলা করতে হবে। এ পর্যন্ত দু’জনের মোকাবেলায় জকোভিচ ২৫-২২ ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন।ফেদেরার বলেন, নোভাক বর্তমান চ্যাম্পিয়ন এবং চলতি সপ্তাহে তিনি সেটা প্রমাণ করেছেন। আমি নিজের সেরাটা দেবার চেষ্টা করবো। তবে নাম্বার ওয়ান খেলোয়াড়ের বিপক্ষে খেলাটা মোটেই সহজ নয়। ফাইনালে নামার জন্য আমি মুখিয়ে আছি।মাত্র এক মাস আগেই ফ্রেঞ্চ ওপেনের সেমিফাইনালে ১১ বছরের মধ্যে নাদালের কাছে সবচেয়ে বাজে পরাজয়ের লজ্জা পেয়েছিলেন ফেদেরার। গতকাল ৫১ মিনিটে প্রথম সেটে নাদাল আট গেমে মাত্র একটি ব্রেক পয়েন্ট রক্ষা করছিলেন। টাই-ব্রেকে ফেদেরার টানা পাঁচ পয়েন্ট জয় করে প্রথম সেটটি নিজের করে নেন। দ্বিতীয় সেটের চতুর্থ গেমে নাদাল প্রথম ব্রেক পয়েন্ট অর্জণ করেন। এরপর আবারো ব্রেক পয়েন্ট আদায় করে ৫-১ ব্যবধানে এগিয়ে যান। ১৯৯১ সালে ইউএস ওপেনে জিমি কনর্সের পর সবচেয়ে বেশি বয়সী খেলোয়াড় হিসেবে গ্র্যান্ড ¯¬্যামের সেমিফাইনালে খেলতে নামা ফেদেরার তৃতীয় সেটের চতুর্থ গেমে ব্রেক পান। এরপর তিনটি ব্রেক পয়েন্ট বাঁচিয়ে ৪-১ ব্যবধানে এগিয়ে যান। চতুর্থ সেটে নাদাল মূলত দাঁড়াতেই পারেননি। নবম

 

সংসদীয় বিশ্বকাপ ক্রিকেটে রানার্স-আপ বাংলাদেশ

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ বিশ্বকাপ খেলা দেশুগুলোর সংসদ সদস্যদের নিয়ে প্রথমবারের মত ইংল্যান্ডে আয়োজিত ইন্টার-পার্লামেন্টারি বিশ্বকাপে রানার্স-আপ হতে হলো বাংলাদেশের সংসদীয় দলকে। গতকাল কেন্ট ক্রিকেট কাউন্টি ক্লাব মাঠে অনুষ্ঠিত ফাইনালে পাকিস্তানের কাছে ৯ উইকেটে হেরে শিরোপা হাতছাড়া করে বাংলাদেশ। গ্রুপ পর্বের ম্যাচে এই পাকিস্তানকে ১৩ রানে হারিয়েছিলো দূর্জয়ের দল। শিরোপা নির্ধারনী ম্যাচে প্রথমে আগে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১০৪ রান করে বাংলাদেশ সংসদীয় দল। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ১১ দশমিক ৪ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে ১০৫ রান তুলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে পাকিস্তান। গত বুধবার (১০ জুলাই) চলমান দ্বাদশ বিশ্বকাপের আয়োজক দেশ ইংল্যান্ডের মাঠে গড়ায় ইন্টার পার্লামেন্টারি বিশ্বকাপ বা আন্তঃসংসদীয় বিশ্বকাপ। স্বাগতিক ইংল্যান্ডসহ এই ইন্টার পার্লামেন্টারি ক্রিকেট বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করছে মোট আটটি দেশ। বাকি দেশগুলো হলো- বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা ও আফগানিস্তান। দুই গ্রুপে ভাগ হয়ে ‘এ’ গ্রুপে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, ভারত ও আফগানিস্তান। আর বি’ গ্রুপে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ছিলো নিউজিল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা ও পাকিস্তান। টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ দলকে নেতৃত্ব দেবেন জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক ও প্রথম টেস্ট ক্যাপ্টেন নাঈমুর রহমান দুর্জয়। এছাড়াও বাংলাদেশ দলে রয়েছেন শেখ তন্ময়, নাহিম রাজ্জাক, আবদুল¬াহ আল ইসলাম জ্যাকব, মুজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন, জুনায়েদ আহমেদ পলক ও মোহাম্মদ আয়েন উদ্দিন মতো জনপ্রিয় তরুণ এমপিরা। ৬ ওভারের অভিনব টুর্নামেন্টের ধারণাটি এসেছে ব্রিটেনের সংসদ সদস্য ক্রিস হিটন-হ্যারিসের পরিকল্পনায়। গত শীত মৌসুমে অস্ট্রেলীয় সংসদ সদস্যদের সঙ্গে একটি ম্যাচ খেলার সময়ই এ টুর্নামেন্টের কথা ভেবে রেখে রাখেন হিটস-হ্যারিস।

ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ-অ্যাশেজ জিতলেও দায়িত্ব ছাড়বেন কোচ বেলিস

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ মনস্থির করে ফেলেছেন ট্রেভর বেলিস। বিশ্বকাপ ফাইনাল আর আসন্ন টেস্ট সিরিজে ফল যাই হোক অ্যাশেজ শেষেই দায়িত্ব ছাড়বেন ইংল্যান্ডের প্রধান কোচ। আজ রোববার লর্ডসে বিশ্বকাপের ফাইনালে নিউ জিল্যান্ডের মুখোমুখি হবে ইংল্যান্ড। এরপর নিজেদের মাটিতে খেলবে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পাঁচ টেস্টের সিরিজ। ২০১৫ সাল থেকে ইংল্যান্ডের প্রধান কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন বেলিস। গত বছর দলকে নিয়ে যান আইসিসি ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে। সেপ্টেম্বর পর্যন্ত রয়েছে তার চুক্তির মেয়াদ। পঞ্চম ও শেষ টেস্ট শুরু হবে ১২ সেপ্টেম্বর। বিসিবি রেডিওকে বেলিস জানান, দা ওভালের ওই ম্যাচ দিয়েই ইতি টানবেন তিনি। “আমি সব সময়ই বিশ্বাস করে এসেছি, চার কিংবা পাঁচ বছর ভালো করছেন, না করছেন না তা দেখার জন্য যথেষ্ট দীর্ঘ সময়। এখন ছেলেদের নতুন কণ্ঠ শোনার সময়। আশা করি, সেটা ওদের অন্য পর্যায়ে নিয়ে যাবে।” “চার বছর আগে, গত বিশ্বকাপটা ইংল্যান্ডের ভালো কাটেনি। ওই আসরের পর আমরা ২০১৯ আসরের শিরোপা জেতার জন্য পরিকল্পনা করেছিলাম। এটা দারুণ একটা অনুভূতি যে, সেই স্বপ্ন পূরণের একটা সম্ভাবনা এখন আমাদের সামনে রয়েছে।” বার্মিংহামের এজবাস্টনে বৃহস্পতিবার অস্ট্রেলিয়াকে ৮ উইকেটে হারিয়ে ২৭ বছর পর বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠে ইংল্যান্ড। তিনবারের রানার্সআপদের সামনে প্রথম শিরোপার হাতছানি। ৫৬ বছর বয়সী অস্ট্রেলিয়ান কোচের আশা ইংল্যান্ডের লম্বা অপেক্ষার অবসান ঘটবে এবার।

“ম্যাচ শেষে আমরা চেঞ্জিং রুমে কথা বলেছি এবং উপলব্ধি করেছি, এখনও আমরা কিছু জিতিনি। ‘তোমরা ফেভারিট’ এমন প্রচুর কথা হবে এখন, আমরা এর কোনোটাতেই কান দিতে পারি না।” বিশ্বকাপ শেষে ২৪ জুলাই শুরু হবে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ইংল্যান্ডের একমাত্র টেস্ট। এরপর ১ অগাস্ট এজবাস্টন টেস্ট দিয়ে শুরু হবে ক্রিকেটের সবচেয়ে পুরনো দুই প্রতিদ্বন্দ্বীর মর্যাদার সিরিজ, অ্যাশেজ।

ফাইনালেও আক্রমণাত্মক মানসিকতা ধরে রাখতে চান আর্চার

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ সেমি-ফাইনালে জফরা আর্চারের বাউন্সারে রক্তাক্ত হয়েছিলেন অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যান অ্যালেক্স কেয়ারি। বিশ্বকাপের ফাইনালেও যে এমনটা হবে না তার নিশ্চয়তা দিচ্ছেন না ইংলিশ পেসার। জানিয়েছেন, নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে আক্রমণাত্মক মানসিকতা ধরে রাখবেন। সেমি-ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে নতুন বলে আগুন ঝরান আর্চার। ইনিংসের দ্বিতীয় আর নিজের প্রথম ওভারের প্রথম বলেই শূন্য রানে ফেরান টুর্নামেন্টে পাঁচশর বেশি রান করা অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চকে। তার দারুণ এক বাউন্সার অ্যালেক্স কেয়ারির হেলমেটের নিচ দিয়ে থুতনিতে ছোবল দেয়। রক্ত মুছে ব্যান্ডেজ বেঁধে খেলতে হয় উইকেট-কিপার ব্যাটসম্যানকে। পরে থুতনিতে দিতে হয় ছয়টা সেলাই। রোববার লর্ডসে শিরোপার লড়াইয়ে কিউইদের মুখোমুখি হবে ইংল্যান্ড। ব্যাটসম্যানদের আঘাত করার ইচ্ছা না থাকলেও গতি আর বাউন্সে নিজের কাজটা করে যেতে চান আর্চার। “আপনি সবসময় তাদের আঘাত করতে চাইবেন না। এটা হতে পারে একটা উইকেট-নেওয়ার মতো বল বা ডট বল। যখন এটা তাদেরকে আঘাত করে, এমনটা করার জন্য আপনি কিছুটা খারাপ অনুভব করেন। কিন্তু এটাই ক্রিকেট। আর সে আঘাত পাওয়া শেষ ব্যক্তি হবে তেমনটা আমি মনে করি না।” নিয়মিত দারুণ গতিতে বল করে যাওয়ার জন্য পরিচিত আর্চার সেমি-ফাইনালে দারুণ এক স্লোয়ারে ফেরান গে¬ন ম্যাক্সওয়েলকে। অন্যান্য বৈচিত্র্যের পাশাপাশি শর্ট বলকে সবসময় নিজের গুরুত্বপূর্ণ একটা অস্ত্র বলে মনে করেন ২৪ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার। “প্রতিটা ওভারে যে কোনোভাবেই আমি বরাদ্দ দুটো বাউন্সার ব্যবহার করার চেষ্টা করি। এটা শুধু আগে থেকে ঠিক করা কোনো পরিকল্পনা ছিল না। আমি সবসময় এটা করি।” কেয়ারি আহত হওয়ার পর আর্চারের ২০১৩ সালে করা একটি টুইট আলোচনায় আসে। সেখানে তিনি বলেছিলেন, “সব ব্যাটসম্যান দুটো করে হেলমেট কিনুন কারণ যখন আমাদের দেখা হবে, তখন সেগুলো কাজে লাগবে।” তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ নিয়ে আলোচনাকে খুব বেশি গুরুত্ব দিতে চান না আর্চার। “আমি এটা দেখেছি কিন্তু কেন এটা একটা বড় ব্যাপার হওয়া উচিত তা আমি জানি না। এটা শুধুই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম।”

তাইজুলের ৮ উইকেটে বড় লিড

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ আগের দিন হতাশার শেষ বেলায় একমাত্র আলো ছিলেন তাইজুল ইসলাম। তৃতীয় দিন বাঁহাতি এই স্পিনার হয়ে উঠলেন ভয়ঙ্কর। বিদর্ভ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের বিপক্ষে প্রথম ইনিংসে ৮ উইকেট নিয়ে বিসিবি একাদশকে এনে দিলেন বড় লিড। তৃতীয় দিনের শেষে দ্বিতীয় ইনিংসে বিসিবি একাদশের সংগ্রহ ১ উইকেটে ৪২। সাইফ হাসান ১৫ ও প্রথম ইনিংসের সেঞ্চুরিয়ান মুমিনুল হক ১ রানে ব্যাট করছেন। বিসিবি একাদশ এগিয়ে রয়েছে ১৮৯ রানে। প্রথম ইনিংসে ৯৬ রান করা জহুরুল ইসলাম ফিরে গেছেন চার বাউন্ডারিতে ২৫ রান করে। এর আগে গোল্ডেন ওভালে শুক্রবার ১ উইকেটে ১১৪ রান নিয়ে দিন শুরু করা বিদর্ভ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন শুরুতেই হারায় অক্ষয় কোলহারকে। অথর্ভ তাইড়েকে নিয়ে শতরানের জুটিতে দলকে এগিয়ে নেন নেন অথর্ভ দেশপান্ডে। তাইড়েকে ফিরিয়ে ১১৬ রানের জুটি ভাঙেন তাইজুল। এক বল পর ফিরিয়ে দেন অধিনায়ক গনেশ সতিশকে। ১৬ চার ও ১ ছক্কায় ৯১ রান করা দেশপান্ডেকে ফিরিয়ে নিজের চতুর্থ উইকেট নেন তাইজুল। এরপর আর তেমন কোনো জুটি গড়তে পারেনি বিদর্ভ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন। ৮৯ রানে ৮ উইকেট নিয়ে তাদের ৩৫৩ রানে থামিয়ে দেন তাইজুল। একটি করে উইকেট নেন তাসকিন আহমেদ ও আরিফুল হক। সংক্ষিপ্ত স্কোর:- বিসিবি একাদশ ১ম ইনিংস: ৫০০/৭ ইনিংস ঘোষণা বিদর্ভ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন ১ম ইনিংস: (আগের দিন শেষে ১১৪/১) ৯৪.৪ ওভারে ৩৫৩ (অক্ষয় ৬২, দেশপান্ডে ৯১, তাইড়ে ৪৫, গনেশ ২৯, যশ ২৯, ওয়াড়কার ২৯, আদিত্য ৪, দর্শন ৩৪, রাজনীশ ৪, সৌরভ ০; তাসকিন ২০-৩-৭৮-১, ইবাদত ১২-২-৪৮-০, নাঈম ২৩-৩-৯৯-০, আরিফুল ১২-৩-৩৬-১, তাইজুল ২৭.৪-৫-৮৯-৮) – বিসিবি একাদশ ২য় ইনিংস: ১৯ ওভারে ৪২/১ (জহুরুল ২৫, সাইফ ১৫*, মুমিনুল ১*; আদিত্য ৪-০-৯-০, রাজনীশ ৬-১-২১-০, সৌরভ ৬-৩-১০-১, দর্শন ৩-২-২-০)

তিন সংস্করণেই আফগানিস্তানের অধিনায়ক রশিদ

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ বিশ্বকাপের আগে নেতৃত্বে বদল এনে বিস্ময় জাগিয়েছিল আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ড। ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় টুর্নামেন্টে দলের ব্যর্থতার পর আবারও চমকে দিয়েছে নেতৃত্বে পরিবর্তন এনে। তিন সংস্করণেই অধিনায়ক করা হয়েছে রশিদ খানকে। এই লেগ স্পিনারের ডেপুটি করা হয়েছে সাবেক অধিনায়ক আসগর আফগানকে। গত ৫ এপ্রিল দেশটির সফলতম অধিনায়ক আসগরকে সরিয়ে দেয় বোর্ড। রশিদ টি-টোয়েন্টি, গুলবাদিন নাইব ওয়ানডে ও রহমত শাহ টেস্ট দলের নেতৃত্ব পান। হুট করে নেতৃত্ব বদল আনায় প্রবল সমালোচনা করেছিলেন রশিদ ও সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ নবি।   নয় ম্যাচের সবগুলোতে হেরে তলানিতে থেকে বিশ্বকাপ শেষ করে আফগানিস্তান। নাইব তবুও ওয়ানডেতে কিছু ম্যাচে নেতৃত্ব দিতে পেরেছেন। রহমত টেস্ট দলের অধিনায়কত্ব হারালেন কোনো ম্যাচে দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার আগেই!

হাটশ হরিপুর ক্রীড়া অনুরাগী পরিষদের আয়োজনে প্রীতি ফুটবল ম্যাচ

সদর উপজেলা ক্রীড়া সংস্থাকে ৪-১ গোলে পরাজিত করেছে হাটশ হরিপুর একাদশ

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়া সদর উপজেলার হাটশ হরিপুর ইউনিয়ন ক্রীড?া অনুরাগী পরিষদের আয়োজনে গতকাল বিকেলে হাটশ হরিপুর একাদশ বনাম কুষ্টিয়া সদর উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার প্রীতি ফুটবল খেলা অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথি থেকে খেলাটি উদ্বোধন করেন কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ জুবায়ের হোসেন চৌধুরী। ক্রীড়া অনুরাগী পরিষদের আহবায়ক খাদেমুল বাশার এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হাটশ হরিপুর ইউপি চেয়ারম্যান এম সম্পা মাহামুদ, ক্রীড়া অনুরাগী পরিষদের যুগ্ম-আহবায়ক সাংবাদিক হাসিবুর রহমান রিজু, রুহুল বিশ্বাস, হাফিজুর রহমান হাবু। এসময় প্রধান অতিথি কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জুবায়ের হোসেন চৌধুরী বলেন, আমি নিজে একজন খেলোয়াড় ছিলাম। আমি বিশ্বাস করি খেলায় পারে মাদক মুক্ত একটি সমাজ গড়তে। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, সদস্য প্রকৌশলী জুয়েল রানা, আনোয়ার হোসেন, হেলাল উদ্দিন, লিখন আহমেদ, ক্রীড়া অনুরাগী গোলাম কাদের চাদন প্রমুখ। খেলায় ৪-১ গোলে হাটশ হরিপুর একাদশ জয়ী হয়।

পাকিস্তানকে হারিয়ে শুভ সূচনা বাংলাদেশের

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ সংসদীয় বিশ্বকাপে শুভ সূচনা করলো বাংলাদেশ। বুধবার নিজেদের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশের সংসদ সদস্যদের দলটি ১৩ রানে হারিয়েছে শক্তিশালী পাকিস্তানকে। বাংলাদেশের পরবর্তী খেলা বৃহস্পতিবার দক্ষিণ আফ্রিকা ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে । গ্রুপ পর্বে প্রতি গ্রুপ থেকে ২টি দল সেমিফাইনালে যাবে। স্বাগতিক ইংল্যান্ডসহ এই ইন্টার পার্লামেন্টারি ক্রিকেট বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করছে মোট আটটি দেশ। বাকি দেশগুলো হলো- বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা ও আফগানিস্তান। দুই গ্রুপে ভাগ হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে দলগুলো। ‘এ’ গ্রুপে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, ভারত ও আফগানিস্তান। আর বাংলাদেশ খেলবে ‘বি’ গ্রুপে। সেখনে প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা ও পাকিস্তান সংসদীয় ক্রিকেট দল। টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ দলকে নেতৃত্ব দেবেন জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক ও প্রথম টেস্ট অধিনায়ক নাঈমুর রহমান দুর্জয়। ৬ ওভারের অভিনব টুর্নামেন্টের ধারণাটি এসেছে ব্রিটেনের সংসদ সদস্য ক্রিস হিটন-হ্যারিসের পরিকল্পনায়। গত শীত মৌসুমে অস্ট্রেলীয় সংসদ সদস্যদের সঙ্গে একটি ম্যাচ খেলার সময়ই এ টুর্নামেন্টের কথা ভেবেছিলেন হিটস-হ্যারিস।

উইম্বলডনের সেমিতে মুখোমুখি নাদাল-ফেদেরার

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥  উইম্বলডনের সেমি-ফাইনালে মুখোমুখি হচ্ছেন রাফায়েল নাদাল ও রজার ফেদেরার। দীর্ঘ ১১ বছর পর আবারও এই প্রতিযোগিতার মঞ্চে দেখা হচ্ছে দুই তারকার। বুধবার সেন্টার কোর্টে জাপানের কেই নিশিকোরির কাছে প্রথম সেট হারের পর দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ান দ্বিতীয় বাছাই ফেদেরার। দুই ঘণ্টা ৩৬ মিনিটের লড়াইয়ে ৪-৬, ৬-১, ৬-৪, ৬-৪ গেমে জেতেন আটবারের উইম্বলডন চ্যাম্পিয়ন। রেকর্ড ২০বারের গ্র্যান্ড ¯¬্যাম চ্যাম্পিয়নের অল ইংল্যান্ড ক্লাবে এটি শততম জয়, যা কোনো একটি গ্র্যান্ড ¯¬্যামে পুরুষ এককে সর্বোচ্চ ম্যাচ জয়ের রেকর্ড। প্রতিযোগিতাটির দুবারের চ্যাম্পিয়ন নাদালের সামনে তেমন কোনো প্রতিরোধ গড়তে পারেননি যুক্তরাষ্ট্রের খেলোয়াড় স্যাম কুয়েরি। দুই ঘণ্টা ছয় মিনিট স্থায়ী ম্যাচে ৭-৫, ৬-২, ৬-২ গেমে জিতেন ১৮টি গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ী নাদাল। তৃতীয় বাছাই নাদালের সঙ্গে মুখোমুখি লড়াই প্রসঙ্গে ফেদেরার বলেন, “রাফার বিষয়ে অনেক তথ্য আমাদের কাছে আছে, ঠিক তেমনি আমার বিষয়েও তার জানা আছেৃফ্রেঞ্চ ওপেনে রাফার বিপক্ষে তার কোর্টে খেলাটা দারুণ আনন্দের এবং তার সঙ্গে এখানে খেলতে আমি রোমাঞ্চিত বোধ করছি।” সবশেষ ২০০৮ সালের ফাইনালে পাঁচ সেটের মহাকাব্যিক লড়াইয়ে জিতে উইম্বলডনে প্রথম শিরোপার স্বাদ পেয়েছিলেন স্প্যানিশ তারকা। বৃষ্টিবৃঘ্নিত সেই ম্যাচ প্রায় সাত ঘণ্টা স্থায়ী হয়েছিল। নাদাল বলেন, “এটা দারুণ। ওই পরিস্থিতিতে আবারও পড়ার কথা কল্পনা করা কঠিন। উইম্বলডনে এখানে তার বিপক্ষে আবারও খেলতে আমি রোমাঞ্চিত।”এই নিয়ে ৪০তম বারের মতো মুখোমুখি হতে যাচ্ছেন এই দুজন। আগের ৩৯ ম্যাচের ২৪টিতে জিতে এগিয়ে আছেন ৩৩ বছর বয়সী নাদাল। বেলজিয়ামের দাভিদ গফাঁকে সরাসরি সেটে হারিয়ে সেমি-ফাইনালে উঠেছেন বর্তমান চ্যাম্পিয়ন সার্বিয়ার নোভাক জোকোভিচ। এক ঘণ্টা ৫৭ মিনিট স্থায়ী শেষ আটের ম্যাচে ৬-৪, ৬-০, ৬-২ গেমে জিতেন র্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বর খেলোয়াড় জোকোভিচ। আগামী শুক্রবার ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে স্পেনের রবের্তো বাউতিস্তা আগুতের মুখোমুখি হবেন চারবারের উইম্বলডন চ্যাম্পিয়ন ও মোট ১৫টি গ্র্যান্ড ¯¬্যাম জয়ী জোকোভিচ। কোয়ার্টার-ফাইনালে আর্জেন্টিনার গিদো পেইয়াকে ৭-৫, ৬-৪, ৩-৬, ৬-৩ গেমে হারান আগুত।

কোপা আমেরিকার সেরা একাদশে ব্রাজিলের ৫ জন, নেই মেসি

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥  এবারের কোপা আমেরিকার সেরা একাদশে পাঁচ জন জায়গা পেয়েছে চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল দল থেকে। জায়গা হয়নি প্রতিযোগিতাটিতে রেফারিংয়ের মান নিয়ে অভিযোগ তোলা আর্জেন্টাইন তারকা লিওনেল মেসির। দক্ষিণ আমেরিকার ফুটবল কনফেডারেশনের (কনমেবল) দেশগুলোর কোচদের গড়া এই একাদশ বৃহস্পতিবার প্রকাশ করা হয়। ব্রাজিলের পাঁচ জন ছাড়া রানার্সআপ পেরুর আছেন দুই জন। আর এক জন করে আছেন আর্জেন্টিনা, কলম্বিয়া, উরুগুয়ে ও চিলির। গত রোববার রিও দে জেনেইরোর মারাকানা স্টেডিয়ামে ফাইনালে পেরুকে ৩-১ গোলে হারিয়ে নবমবারের মতো কোপা আমেরিকার শিরোপা জিতে ব্রাজিল। আর তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে চিলিকে ২-১ গোলে হারায় আর্জেন্টিনা। ওই ম্যাচে বল দখলের এক পর্যায়ে চিলির গারি মেদেলের সঙ্গে ধাক্কাধাক্কি হয় মেসির। তিনি তেমন কোনো প্রতিক্রিয়া না দেখালেও প্যারাগুয়ের রেফারি দুজনকেই সরাসরি লালকার্ড দেখান। ব্রাজিলের কাছে ২-০ গোলে সেমি-ফাইনালে হারের পর আর্জেন্টিনার দুটি পেনাল্টির আবেদনের ক্ষেত্রে রেফারি ভিএআর প্রযুক্তির সহায়তা না নেওয়ায় সমালোচনা করেছিলেন মেসি। ব্রাজিলে হওয়া এই টুর্নামেন্টে প্রতিপক্ষের সীমানায় সবচেয়ে বেশি ফাউলের শিকার হওয়া মেসি ম্যাচের পর তৃতীয় স্থানের পদক নেওয়ার জন্য পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে যাননি। ব্রাজিলকে শিরোপা জেতাতে দুর্নীতি হয়েছে বলে অভিযোগ তোলা আর্জেন্টিনা অধিনায়ক ধুয়ে দেন আয়োজক এবং কনমেবলকে। ২০১৫ ও ২০১৬ সালের কোপা আমেরিকার আসরের সেরা একাদশে ছিলেন পাঁচ বারের বর্ষসেরা ফুটবলার মেসি। ২০১৯ কোপা আমেরিকা সেরা একাদশ: আলিসন (ব্রাজিল), দানি আলভেস (ব্রাজিল) হোসে মারিয়া হিমেনেস (উরুগুয়ে), চিয়াগো সিলভা (ব্রাজিল), মিগেল ত্রাওকো (পেরু), আর্থার (ব্রাজিল), লেয়ান্দ্রো পারেদেস (আর্জেন্টিনা), আর্তুরো ভিদাল (চিলি), হামেস রদ্রিগেস (কলম্বিয়া), পাওলো গেররেরো (পেরু), এভেরতন (ব্রাজিল)