সদরপুর সিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসায় ফুটবল প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরের সদরপুর সিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসায় ফুটবল প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দিনব্যাপি মাদ্রাসার উদ্যোগে মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন সদরপুর সিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মাজেদুর আলম বাচ্চু, সুপার শেখ মহিউদ্দিন আহম্মেদ, সহকারী সুপার আব্বাস উদ্দিন, সহকারী শিক্ষক কাঞ্চন কুমার, আবু হেনা মস্তফা কামাল, হাবিবুর রহমান, উকিল আলী, হামিদুল ইসলাম, খালেদা খাতুন, আসাদুজ্জামান, ওবাইদুল হক, আরজিনা খাতুন, মহিবুল হক, সাইদুল ইসলাম, মনিরুল ইসলাম, ক্বারী হাবিবুর রহমান, অফিস সহকারী গোলাম কিবরিয়া মাসুম, অফিস ষ্টাফ আশিকুল ইসলাম, মহসীন আলী প্রমুখ। খেলায় মাদ্রাসার আটটি দল অংশগ্রহণ করে। ক্রীড়া প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ী দলের মধ্যে পুরষ্কার বিতরণ করেন মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মাজেদুর আলম বাচ্চু।

এশিয়া কাপ শেষ পান্ডিয়ার

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ স্ট্রেচারে করে যখন নিয়ে যাওয়া হয়েছিল মাঠ থেকে, খারাপ কিছুর ইঙ্গিত মিলেছিল তাতেই। সেই শঙ্কাই সত্যি হলো ভারতের জন্য। পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে পাওয়া চোটে এশিয়া কাপ থেকে ছিটকে গেছেন অলরাউন্ডার হার্দিক পান্ডিয়া। একই ম্যাচে ফিল্ডিংয়ের সময় চোট পেয়ে টুর্নামেন্ট শেষ স্পিনিং অলরাউন্ডার আকসার প্যাটেলেরও।বুধবার দুবাইয়ে পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচটিতে নিজের পঞ্চম ওভারে এই চোট পান পান্ডিয়া। বোলিংয়ে ফলো থ্রুতে টান লাগে পিঠের নিচের দিকে। তখনই শুয়ে পড়েন মাঠে, দাঁড়াতে পারছিলেন না। স্ট্রেচারে করে নিয়ে যাওয়া হয় বাইরে। পরে দাঁড়াতে পেরেছেন বলে জানানো হয় ভারতীয় দল থেকে। তবে খেলার মতো অবস্থায় নেই। এশিয়া কাপ তো বটেই, এরপর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজের শুরুটায়ও তাকে পাওয়া নিয়ে আছে শঙ্কা। অলরাউন্ডার পান্ডিয়ার বদলে ভারত দলে নিয়েছে পেসার দীপক চাহারকে। সম্প্রতি ইংল্যান্ড সফরে টি-টোয়েন্টি দিয়ে আন্তর্জাতিক অভিষেক হয়েছে ২৬ বছর বয়সী চাহারের।পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচেই চোট বাধিয়েছেন আকসার। এদিন তিনি একাদশে ছিলেন না। কিন্তু অতিরিক্ত ফিল্ডার হিসেবে মাঠে নেমে বাঁহাতের তর্জনিতে পেয়েছেন চোট। তার বদলে জায়গা পেয়েছেন আরেক বাঁহাতি স্পিনিং অলরাউন্ডার রবীন্দ্র জাদেজা। একসময় ওয়ানডে দলের নিয়মিত সদস্য ছিলেন জাদেজা। তবে গত বছরের জুলাইয়ের পর আর সুযোগ পারনি ওয়ানডে খেলার। গ্র“প পর্বে দুটি ম্যাচেই জয়ী ভারত সুপার ফোরে প্রথম ম্যাচ খেলবে শুক্রবার, দুবাইয়ে বাংলাদেশের বিপক্ষে।

মেহেরপুর পৌরসভা-মেহেরপুর প্রেসক্লাব মুখোমুখি

আজ বিকেল ৩টায় প্রীতি ফুটবল ম্যাচ

মেহেরপুর প্রতিনিধি ॥  সারাদিনের কর্ম ব্যস্ততায় একটু অবসর সময় বের করা কঠিন হয়ে পড়ে জনপ্রতিনিধি ও গণমাধ্যম কর্মীদের। তাই একটু বিনোদনের জন্য মেহেরপুর পৌরসভা আয়োজন করেছে এক প্রীতি ফুটবল ম্যাচ। যার একদিকে অংশ নেবে পৌর পরিষদ একাদশ। অপরদিকে অংশ নেবে মেহেরপুর প্রেস ক্লাব। খেলাটি শুরু হবে আজ শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৩টায় মেহেরপুর সরকরারি উচ্চ বালক বিদ্যালয় মাঠে। খেলা দেখার আমন্ত্রন জানিয়েছেন পৌরসভার মেয়র মাহফুজুর রহমান রিটন ও প্রেসক্লাবের সভাপতি আলামিন হোসেন। পৌরসভার পক্ষে খেলায় অংশ নেবে পৌর মেয়র মাহফুজুর রহমান রিটন, প্যানেল মেয়র শাহিনুর রহমান রিটনসহ বিভিন্ন ওয়ার্ডের কাউন্সিলসহ পৌরসভার কর্মকর্তাবৃন্দ। আর প্রেসক্লাবের পক্ষে অংশ নেবে ইরেকট্রনিক্স ও প্রিন্ট মিডিয়ার জৈষ্ঠ ও কনিষ্ট সাংবাদিকরা। খেলাটি দেখার জন্য দিনব্যাপী মাইকিং করা হয়েছে পৌরসভার পক্ষ থেকে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অনুর্ধ-১৭ গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনালে কুষ্টিয়া পৌরসভা

আজ খোকসা মুখোমুখি মিরপুর উপজেলা দল

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অনুর্ধ-১৭ গোল্ড কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের গতকালের খেলায় কুমারখালী উপজেলা দলকে ট্রাইবেকারে ৫-৪ গোলে পরাজিত করে ফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে কুষ্টিয়া পৌরসভা দল। কুষ্টিয়া ষ্টেডিয়ামে গতকাল বৃহস্পতিবারের খেলা নির্ধারিত সময়ে কোন দল গোল করতে না পারলে খেলা ট্রাইব্রেকারে গড়াই। ট্রাইব্রেকারে কুষ্টিয়া পৌরসভা ৫-৪ গোলে জয়ী হয়ে ফাইনালে খেলার যোগ্যতা লাভ করলো। কুষ্টিয়া পৌরসভার গোল রক্ষক শাওন ম্যান অব দি ম্যাচের পুরস্কার লাভ করে। বিপুল সংখ্যক ফুটবল প্রেমী দর্শকের উপস্থিতিতে সেমি ফাইনালের প্রথম খেলায় কুষ্টিয়া পৌরসভা এবং কুমারখালী দল আক্রমন পাল্টা আক্রমন শানিয়ে খেলতে থাকে। উভয় দলই একাধিকবার সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেনি।  খেলা প্রথমার্ধ অমিমাংশিত থাকে। দ্বিতীয়ার্ধেও শুরু থেকেই কুষ্টিয়া পৌরসভা দল আক্রমনের পর আক্রমন চালিয়েও গোল করতে ব্যর্থ হয়। পৌরসভার ষ্টাইকারদের এলোমেলো ও ছন্দহীন শর্টের কারনে গোল করতে পারেনি। কুমারখালীও বেশ কয়েকটি আক্রমন চালিয়ে ব্যর্থ হয়। নির্ধারিত সময়ে গোল না হওয়ায় খেলা ট্রাইব্রেকারে গড়াই। ট্রাইবেকারে ৪টি শর্টে উভয় দলই গোল করে কিন্তু ৫ম শর্টে কুমারখালী মিস করে। একইভাবে কুষ্টিয়া পৌর দলের খেলোয়াড় ৫ম শর্টটি মিস করে। ফলে খেলা ৪-৪গোলে সমতা থাকে। ৬ষ্ঠ শর্টে কুমারখালীর বল কুষ্টিয়া পৌরসভার গোলরক্ষক প্রতিহত করে। ৬ষ্ঠ বলে কুষ্টিয়া পৌরসভার খেলোয়াড় সহজ সুযোগটি কাজে লাগিয়ে বল জালে ফেলতে সক্ষম হলে খেলায় ৫-৪ গোলে পৌরসভা দল জয়ী হয়। এসময় পৌরসভা দলের খেলোয়াড় কর্মকর্তা ও সমর্থকদের উল্লাসে মাঠের পরিবেশ ভিন্ন রূপ নেয়। খেলা শেষে পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে ম্যান অব দি ম্যাচের পুরস্কার তুলে দেয়া হয় কুষ্টিয়া পৌরসভার  গোলরক্ষক শাওনের হাতে। পৌর মেয়র সাবেক কৃতি খেলোয়াড় আনোয়ার আলী পুরো সময় মাঠে উপস্থিত থেকে খেলা উপভোগ করেন এবং উভয় দলের খেলোয়াড়দের মাঝে শক্তি ও সাহস যোগান। এসময় উপস্থিত ছিলেন টুর্নামেন্টের আহবায়ক কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) তরফদার সোহেল রহমান, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারন সম্পাদক এ্যাড. অনুপ কুমার নন্দী, এনডিসি রবিউল ইসলাম, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সম্পাদক খন্দকার ইকবাল মাহমুদ, কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ উভয় দলের কর্মকর্তা ও ক্রীড়া সংগঠকেরা। পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে বক্তব্যে পৌর মেয়র আনোয়ার আলী বলেন, খেলাধুলার মাধ্যমে আমাদের সমাজকে সঠিক পথে নেয়া সম্ভব। খেলাধুলা না থাকায় সমাজে নানা রকমের অশান্তি পরিবেশ বিরাজ করছিল। বিশেষ করে মাদকাশক্তি গ্রাস করেছিল। সরবকার যুব সমাজকে লেখাপাড়া আর খেলার মাঠে আনার জন্য এখন বেশি পরিমান খেলার উপর জোর দিয়েছে আজ তারই ধারবাহিকতায় এই ফুটবল টুর্নামেন্টের আয়োজন যা আমাদের সমাজে ইতিবাচক প্রতিফলন লক্ষ্য করা গেছে। কুমারখালীর খেলোয়াড় ঃ জয়, রানা, রাজু, হৃদয়, ইব্রাহিম, তারিকুল, রুবেল, রনি, আলিম, আশা, হৃদয়, পপি, রাসেল, পলাশ, হেলাল, আরজু। কুষ্টিয়া পৌরসভার খেলোয়াড় ঃ শাওন, উজ্জল, তারিকুল, রাকিব, জীবন, রঞ্জন, সজীব, রাকিব, আকাশ, সিয়াম, তোরাব, সোহাগ, তাজমুল, নয়ন, শাওন, আলমগীর অমি। রেফারীঃ খন্দকার সাদাতউল আনাম পলাশ। সহকারী রেফারী হেলাল ও আরজু। আজকের খেলাঃ সেমিফাইনাল খোকসা উপজেলা বনাম মিরপুর উপজেলা দল।

‘নেইমার একা নয়, সবাই দায়ী’

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ চ্যাম্পিয়ন্স লিগে লিভারপুলের কাছে হারের কারণে নেইমারকে দোষারোপ করা উচিত হবে না বলে মনে করেন পিএসজি অধিনায়ক চিয়াগো সিলভা। তার মতে, এর জন্য দলের সবাই দায়ী। অ্যানফিল্ডে মঙ্গলবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ‘সি’ গ্র“পে নিজেদের প্রথম ম্যাচে লিভারপুলের কাছে ৩-২ গোলে হারে লিগ ওয়ান চ্যাম্পিয়নরা। ২-০ ব্যবধানে পিছিয়ে পড়ার পর তমা মুনিয়ে ও কিলিয়ান এমবাপের গোলে সমতা ফেরালেও হার এড়াতে পারেনি পিএসজি। বদলি হিসেবে নামা রবের্তো ফিরমিনোর যোগ করা সময়ের গোলে নাটকীয় জয় পায় স্বাগতিকরা। ৮৩তম মিনিটে খেলার ধারার বিপরীতে করা এমবাপের সমতাসূচক গোলটিতে অবদান ছিল নেইমারের। তবে পুরো ম্যাচে ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডের পারফরম্যান্স অনেকের দৃষ্টিতে সন্তোষজনক ছিল না। তাকে দমিয়ে রাখতে লিভারপুলের পরিকল্পনা ছিল বলে ম্যাচ শেষে জানান ইংলিশ ক্লাবটির কোচ ইয়ুর্গেন ক্লপ। এরপরও ম্যাচটিতে হারের জন্য নেইমারের অনেক সমালোচনা হচ্ছে বলে মনে করেন সিলভা। ব্রাজিলিয়ান এই ডিফেন্ডার জানালেন, কোচ টমাস টুখেলের কৌশল অনুযায়ীই খেলেছে তার স্বদেশি। “নেইমার দলকে সাহায্য করতে চেষ্টা করেছিল। কোচ যা বলেছে সে তাই করেছিল। মানুষ একজনকে দায়ী করার চেষ্টা করবে। যদিও আমরা সবাই দায়ী।” “প্রথমার্ধে আমরা সমস্যায় ছিলাম। তবে আমরা দৃঢ়তা দেখিয়েছি এবং গোল করেছি। আমার দলের পারফরম্যান্সে আমি খুশি-এটা উচ্চ পর্যায়ের একটা ম্যাচ ছিল।” “ম্যাচের পুরো সময়টার দিকে আমাদের মনোযোগ দেওয়া দরকার। এখানে ফুটবল আমাদের শাস্তি দিয়েছে। আক্রমণভাগে কিলিয়ান, এদিনসন কাভানি বা নেইমারকে খুঁজে পাওয়ার মতো কোনো সুযোগ আমাদের ছিল না।”

লেবাননকে উড়িয়ে শীর্ষে বাংলাদেশের মেয়েরা

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ লেবানন পাত্তাই পেল না বাংলাদেশের কাছে। দাপুটে জয়ে নিয়ে এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ মহিলা ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাইপর্বের শীর্ষে উঠেছে বাংলাদেশ। গতকাল বুধবার দুপুরে কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে লেবাননকে ৮-০ গোলে হারায় বাংলাদেশ। দলের জয়ে তহুরা খাতুন, সাজেদা খাতুন ও শামসুন্নাহার জুনিয়র জোড়া গোল করেন। বাকি দুই করেন আনাই মোগিনি ও রোজিনা আক্তার। বাহরাইনকে ৮-০ গোলে উড়িয়ে দেওয়ার পর আমিরাতকে ৬-৩ ব্যবধানে হারানো লেবানন প্রথম হারের স্বাদ পেল। বাহরাইনকে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ১০-০ গোলে গুঁড়িয়ে দিয়ে বাছাই শুরু করে বাংলাদেশ। এক ম্যাচ বেশি খেলা লেবাননের সঙ্গে সমান ৬ পয়েন্ট নিয়ে গোল পার্থক্যে এগিয়ে থেকে শীর্ষে আছে স্বাগতিকরা। একাদশ মিনিটে প্রতিপক্ষের ডিফেন্ডারের ভুলে বল পেয়ে যাওয়া সাজেদা গোলরক্ষককে একা পেয়েও লক্ষ্যভেদে ব্যর্থ হন। তিন মিনিট পর আর ভুল করেননি তিনি। মনিকার বাড়ানো বল গায়ের সঙ্গে সেঁটে থাকা ডিফেন্ডারের পায়ের ফাঁক দিয়ে বের করে নিয়ে নিখুঁত শটে লক্ষ্যভেদ করেন সাজেদা। ১৯তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করার দারুণ সুযোগ নষ্ট করেন সাজেদা। গোলরক্ষককে লক্ষ্য করে বাড়ানো ব্যাক পাস থেকে বল পেয়ে গোলরক্ষকের গায়ে মারেন তিনি। পরের মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন তহুরা। ডি-বক্সের জটলার মধ্যে থেকে সাজেদার বাড়ানো বলে শট নেন তহুরা। বল গোলরক্ষকের গায়ে লাগার পর প্রতিপক্ষের এক খেলোয়াড়ের পায়ে লেগে বল জালে জড়ায়। ২৩তম মিনিটে আঁখি খাতুনের লম্বা করে বাড়ানো বল তহুরা নিয়ন্ত্রণে নিয়ে কোনাকুনি শটে স্কোরলাইন ৩-০ করেন। তিন মিনিট পর আঁখির বাড়ানো বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ডান দিক দিয়ে ডি বক্সের ভেতরে ঢুকে কোনাকুনি শটে দূরের পোস্ট দিয়ে লক্ষ্যভেদ করেন আনাই। ৪০তম মিনিটে আঁখির বাড়ানো বল ডি-বক্সের ভেতর থেকে জোরালো শটে জালে জড়িয়ে দেন সাজেদা।

দ্বিতীয়ার্ধের প্রথম সুযোগটি কাজে লাগিয়ে লেবাননকে আরও কোণঠাসা করে ফেলে বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষের ভুল থেকে পাওয়া বল বাঁ দিক দিয়ে কোনাকুনি শটে গোল করেন শামসুন্নাহার জুনিয়র। ৬৩তম মিনিটে বাঁ দিক থেকে সুলতানার ক্রস থেকে পাওয়া বল বাঁ পায়ের সাইড ভলিতে জালে জড়িয়ে দেন শামসুন্নাহার জুনিয়র। ৭০তম মিনিটে গোলমুখ থেকে ইলামনির শট ফেরান লেবানন গোলরক্ষক। পাঁচ মিনিট পর ইলামনির বাড়ানো বল প্লেসিং শটে জালে জড়িয়ে স্কোরলাইন ৮-০ করেন রোজিনা। শেষ দিকে হ্যাটট্রিকের সুযোগ কাজে লাগাতে পারেননি সাজেদা। সুলতানার শট গোলরক্ষককে বোকা বানিয়ে গোললাইন পেরুনোর আগে ইলামনি পা ছোঁয়ালেও বল বাইরে দিয়ে যাওয়ায় ব্যবধান আর বাড়েনি। আগামী শুক্রবার ‘এফ’ গ্র“পে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে সংযুক্ত আরব আমিরাতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।

মেসির হ্যাটট্রিকে

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ অসাধারণ এক হ্যাটট্রিকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শুরুটা দুর্দান্ত করলেন লিওনেল মেসি। মাঝে জালের দেখা পেলেন উসমান দেম্বেলে। তাতে পিএসভি আইন্দহোভেনকে উড়িয়ে প্রতিযোগিতায় শুভ সূচনা করল বার্সেলোনা। কাম্প নউয়ে মঙ্গলবার স্থানীয় সময় বিকালে ইউরোপ সেরা প্রতিযোগিতার গ্র“প পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ডাচ চ্যাম্পিয়নদের ৪-০ গোলে হারায় এরনেস্তো ভালভেরদের দল। ম্যাচের শুরু থেকে একের পর এক আক্রমণ করতে থাকা বার্সেলোনা ২১তম মিনিটে প্রথম ভালো সুযোগ পায়। মেসির দারুণ পাস পেয়ে দুরূহ কোণ থেকে পাশের জালে মারেন লুইস সুয়ারেস। মেসির অসাধারণ নৈপুণ্যে ৩১তম মিনিটে এগিয়ে যায় বার্সেলোনা। প্রায় ২২গজ দূর থেকে বাঁকানো ফ্রি-কিকে পোস্ট ঘেঁষে জাল খুঁজে নেন অধিনায়ক। দ্বিতীয়ার্ধের নবম মিনিটে ডান দিক থেকে ডি-বক্সে ঢোকা সুয়ারেসের কাটব্যাক ফাঁকায় পেয়ে উড়িয়ে মারেন ফিলিপে কৌতিনিয়ো। তিন মিনিট পর ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডারের বাঁকানো শট কর্নারের বিনিময়ে ঠেকান পিএসভি গোলরক্ষক। ৬৭তম মিনিটে ডি-বক্সের ঠিক বাইরে থেকে সুয়ারেসের উঁচু শট গোলরক্ষককে পরাস্ত করলেও ক্রসবারে বাধা পায়। দেম্বেলের একক নৈপুণ্যে দ্বিতীয় গোলের দেখা পায় বার্সেলোনা। ৭৪তম মিনিটে কৌতিনিয়োর পাস পেয়ে দুই মিডফিল্ডারের মধ্যে দিয়ে বল নিয়ে বের হয়ে একটু এগিয়ে আরেক জনকে কাটিয়ে বুলেট গতির শটে লক্ষ্যভেদ করেন ফরাসি ফরোয়ার্ড। আর ৭৭তম মিনিটে ইভান রাকিতিচের উঁচু করে বাড়ানো বল ডি-বক্সে পেয়ে প্রথম ছোঁয়ায় ব্যবধান আরও বাড়িয়ে জয় প্রায় নিশ্চিত করে ফেলেন মেসি। চার মিনিট পর ১০ জনের দলে পরিণত হয় বার্সেলোনা। লোসানোকে ফাউল করায় দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠছাড়া হন ফরাসি ডিফেন্ডার সামুয়েল উমতিতি। তবে তাতে পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নদের আক্রমণের ধার একটু কমেনি। তারই ধারাবাহিকতায় ৮৭তম মিনিটে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন মেসি। সুয়ারেসের বাড়ানো বল ধরে ডি-বক্সে ঢুকে কোনাকুনি শটে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন পাঁচবারের বর্ষসেরা ফুটবলার। ইউরোপ সেরা প্রতিযোগিতায় আর্জেন্টাইন তারকার এটি ১০৩তম গোল। ‘বি’ গ্র“পের অন্য ম্যাচে টটেনহ্যাম হটস্পারের বিপক্ষে ঘরের মাঠে পিছিয়ে পড়ার পর ঘুরে দাঁড়িয়ে দারুণ এক জয় তুলে নিয়েছে ইন্টার মিলান। সান সিরোয় ৫৩তম মিনিটে ডেনমার্কের মিডফিল্ডার ক্রিস্তিয়ান এরিকসেনের গোলে এগিয়ে যায় টটেনহ্যাম। ৮৫তম মিনিটে আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড মাউরো ইকার্দির গোলে সমতায় ফেরার পর যোগ করা সময়ে জয়সূচক গোলটি করেন উরুগুয়ের মিডফিল্ডার মার্তিয়াস ভেসিনো।

 

ভারতকে কাঁপিয়ে দিয়ে হারল হংকং

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ শুরুর জুটির দারুণ ব্যাটিংয়ে ভারত বধের আশা জাগিয়েও হংকং পারল না শেষ পর্যন্ত। শিখর ধাওয়ানের সেঞ্চুরিতে লড়াইয়ের পুঁজি পাওয়া ভারত এশিয়া কাপ শুরু করল জয় দিয়ে। ‘এ’ গ্র“পের ম্যাচে ২৬ রানে জিতেছে ভারত। ২৮৬ রানের লক্ষ্য তাড়ায় হংকং থমকে যায় ২৫৯ রানে। রোহিত শর্মাদের এই জয়ে সুপার ফোরে বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানের সঙ্গী হল ভারত ও পাকিস্তান। শ্রীলঙ্কার পর দ্বিতীয় দল হিসেবে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিল হংকং। জয়ের জন্য শেষ ১৬ ওভারে ১১২ রান প্রয়োজন ছিল হংকংয়ের, হাতে ছিল ১০ উইকেট। কিন্তু সে সময়ে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে স্বস্তির জয় তুলে নেয় রবি শাস্ত্রির শিষ্যরা। দুবাই ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ৪৫ রানের উদ্বোধনী জুটিতে শুরুটা ভালো করে ভারত। দ্বিতীয় উইকেটে অম্বাতি রাইডুর সঙ্গে ১১৬ রানের জুটিতে দলকে দৃঢ় ভিতের ওপর দাঁড় করান ধাওয়ান। ৭০ বলে দুই ছক্কা আর তিন চারে ৬০ রান করে ফিরে যান রাইডু। দিনেশ কার্তিকের সঙ্গে ৭৯ রানের আরেকটি দারুণ জুটিতে ভারতকে শেষের ঝড় তোলার মঞ্চ তৈরি করে দেন ধাওয়ান। ২ উইকেটে ২৩৭ রান নিয়ে ডেথ ওভারে যায় ভারত। কিন্তু হাতে ৮ উইকেট আর ক্রিজে দুই থিতু ব্যাটসম্যান থাকার পরও প্রত্যাশিত ঝড় তুলতে পারেনি সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। এক সময়ে তিনশর বেশি রানে নজর রাখা দলটি শেষ ১০ ওভারে মাত্র ৪৮ যোগ করে থামে ২৮৫ রানে। ১২০ বলে ১৫ চার আর দুই ছক্কায় ১২৭ রান করে ফিরেন ধাওয়ান। ওয়ানডেতে এটি বাঁহাতি এই ওপেনারের চতুর্দশ সেঞ্চুরি। মুম্বাইয়ে জন্ম নেওয়া হংকংয়ের অনিয়মিত অফ স্পিনার কিনচিত সাহ ৩৯ রানে নেন ৩ উইকেট। তার শেষের দারুণ বোলিংয়ে তিনশ ছাড়ানো লক্ষ্য দিতে পারেনি ভারত। অভিজ্ঞ ভুবনেশ্বর কুমার, অভিষিক্ত মোহাম্মদ খলিল কিংবা শার্দুল ঠাকুর- ভারতের তিন পেসারের কেউ নতুন বলে উইকেট এনে দিতে পারেননি। শুরু থেকে শট খেলতে শুরু করেন নিজাকাত খান। একটু সময় নিয়ে থিতু হয়ে আনশুমান রাথও মনোযোগ দেন রানের গতি বাড়ানোর দিকে। তাদের ব্যাটে হংকং পায় প্রথম শতরানের উদ্বোধনী জুটি। দুই ওপেনারের ব্যাটে তরতর করে এগিয়ে যায় হংকং। দুই তুরুপের তাস যুজবেন্দ্র চেহেল ও কুলদীপ যাদবও পরীক্ষায় ফেলতে পারছিলেন না নিজাকাত-আনশুমানকে। দুই জনের ব্যাটে হংকং পেয়ে যায় নিজেদের ইতিহাসের সেরা জুটি। ২০১৬ সালে দেশের মাটিতে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে চতুর্থ উইকেটে ১৭০ রান করেছিলেন আনশুমান-নিজাকাত। সেটা ছাড়িয়ে দুই জনে যোগ করেন ১৭৪ রান। ৩৪.১ ওভার স্থায়ী এই জুটি ভাঙেন কুলদীপ। রিস্ট স্পিনারের বলে ড্রাইভ করতে গিয়ে এক্সটা কাভারে ধরা পড়েন হংকং অধিনায়ক। ৯৭ বলে খেলা আনশুমানের ৭৩ বলের ইনিংসে ৪টি চারের পাশে ছক্কা একটি। ২০১৬ সালে ৯৪ রানে ফিরেছিলেন নিজাকাত। গত বছর করেছিলেন ৯৩। এবার আউট হলেন ৯২ রানে। সেঞ্চুরি অধরাই থেকে গেল এই ওপেনারের। ১১৫ বলের ইনিংসে ১২ চার ও ১ ছক্কা হাঁকানো নিজাকাতকে কট বিহাইন্ড করে নিজের প্রথম উইকেট নেন খলিল। ১ রানের ভেতরে দুই ওপেনারকে হারানো হংকং আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি। শেষের দিকে নিয়মিত উইকেট হারিয়ে দলটি কোনোমতে আড়াইশ ছাড়ায়। লেগ স্পিনার চেহেল ও বাঁহাতি পেসার খলিল নেন তিনটি করে উইকেট। বাঁহাতি রিস্ট স্পিনার কুলদীপ দুটি। সংক্ষিপ্ত স্কোর: ভারত: ৫০ ওভারে ২৮৫/৭ (রোহিত ২৩, ধাওয়ান ১২৭, রাইডু ৬০, কার্তিক ৩৩, ধোনি ০, কেদার ২৮*, ভুবনেশ্বর ৯, ঠাকুর ০, কুলদীপ ০*; আফজাল ০/৩৪, নওয়াজ ১/৫০, এজাজ ১/৪১, এহসান ২/৬৫, নাদিম ০/৩৯, নিজাকাত ০/১৫, কিনচিত ৩/৩৯)। হংকং: ৫০ ওভারে ২৫৯/৮ (নিজাকাত ৯২, আনশুমান ৭৩, বাবর ১৮, কার্টার ৩, শাহ ১৭, এহসান ২২, এজাজ ০, স্কট ৭, আফজাল ১২*, নওয়াজ ২*; ভুবনেশ্বর ০/৫০, খলিল ৩/৪৮, ঠাকুর ০/৪১, চেহেল ৩/৪৬, কুলদীপ ২/৪২, কেদার ০/২৮)। ফল: ভারত ২৬ রানে জয়ী। ম্যান অব দ্য ম্যাচ: শিখর ধাওয়ান।

মোহামেডানের দায়িত্বে ইংলিশ কোচ ইভান্স

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ ইংলিশ কোচ ক্রিস্টোফার ইভান্সকে এক বছরের জন্য দায়িত্ব দিয়েছে ঘরোয়া ফুটবলের ঐতিহ্যবাহী দল মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব। ১৯৯৯ সাল থেকে কোচিং শুরু করা ইভান্স কোনো ক্লাবের প্রধান কোচের দায়িত্ব পেলেন এই প্রথম। আগে নরউইচ সিটির যুব দলের সঙ্গে কাজ করেছেন তিনি। চেলসির ইয়ুথ ডেভেলপমেন্ট প্রধানের দায়িত্বেও ছিলেন। নতুন দায়িত্ব নিয়ে দারুণ রোমাঞ্চিত ইভান্স মঙ্গলবার সাংবাদিকদের জানান, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর পল স্মলির মাধ্যমেই এ দেশের ফুটবল সম্পর্কে তার জানাশোনা। “পল স্মলি বাফুফের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর হওয়ার পর থেকেই বাংলাদেশ সম্পর্কে আমার ধারণা জন্মায়। পলের মাধ্যমে যোগাযোগ শুরু। পরবর্তীতে মোহামেডানের ম্যানেজার আমিরুল ইসলাম বাবুর প্রস্তাব পাই। তার প্রস্তাবে সাড়া দিয়ে এলাম।” “আমি চ্যালেঞ্জ নিতে পছন্দ করি। মোহামেডানে সেই চ্যালেঞ্জ নেওয়ার সুযোগ করে দিয়েছে। আমি মোহামেডানকে সর্বোচ্চ প্রতিদান দিতে চাই। এখানে আসার আগে আমি এখানকার ফুটবল নিয়ে পড়াশোনা করেছি। আমি মনে করি না, কাজটা আমার জন্য কঠিন হবে।” প্রিমিয়ার লিগ হওয়ার পর এখনও শিরোপা স্বাদ পায়নি মোহামেডান। গত লিগেও তারা হয়েছিল পঞ্চম। শিরোপা জয়ী আবাহনী লিমিটেডের সঙ্গে তাদের পয়েন্ট ব্যবধান ছিল ২০।

‘রোনালদোর চলে যাওয়া লা লিগার জন্য নেতিবাচক’

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর চলে যাওয়াটা লা লিগার জন্য নেতিবাচক বলে মনে করেন বার্সেলোনার সভাপতি জোজেপ মারিয়া বার্তেমেউ। পর্তুগিজ তারকাকে দলে টেনে ইউভেন্তুস চ্যাম্পিয়ন্স লিগের বড় প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে উঠেছে বলেও মত তার। নেইমার বার্সেলোনা ছেড়ে পিএসজিতে যোগ দেওয়ার এক বছর পর ইউভেন্তুসে পাড়ি জমান রোনালদো। দুই তারকা খেলোয়াড়কে হারিয়ে স্প্যানিশ ফুটবল কিছুটা দুর্বল হয়েছে বলে মনে করেন বার্তোমেউ। লা গাজ্জেত্তা দেল্লো স্পোর্তকে বার্তেমেউ বলেন, “আন্দ্রেয়া আননিয়েল্লি (ইউভেন্তুস সভাপতি) চমৎকার একটি চুক্তি করেছেন। লা লিগা এক জন তারকাকে হারানোয় আমার খারাপ লাগছে। নেইমারের পর দুইবছরের মধ্যে এটা দ্বিতীয়।” “এটা আমাদের ফুটবলের জন্য নেতিবাচক। রিয়াল তুলনামূলক দুর্বল হলো কিনা তা নিয়ে আমি আগ্রহী নই। কারণ আমরা চাই, এখানে সেরা ফুটবল খেলা হোক। সেটাই একমাত্র পথ যার মাধ্যমে আপনি সবচেয়ে ধনী প্রিমিয়ার লিগের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারবেন।” “রোনালদো শুধু ইউভেন্তুসের নয়, বরং পুরো ইতালিয়ান ফুটবলের উন্নতি ঘটাবে। আমি লিওনেল মেসির সঙ্গে একমত যে, রোনালদোসহ ইউভেন্তুস চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ে আরও শক্তিশালী প্রতিদ্বন্দ্বী।”

হতাশ ম্যাথুজ, উফুল্ল আসগর

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ এশিয়া কাপ ক্রিকেটের ১৪তম আসরের তৃতীয় ম্যাচে আফগানিস্তানের কাছে ৯১ রানে পরাজিত হয়ে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে পড়েছে শ্রীলংকা। কারন গ্র“প পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশের কাছে ১৩৭ রানে হেরেছিলো শ্রীলংকা। টানা দ্বিতীয় হারে টুর্নামেন্ট থেকে দল বিদায় নেয়ায় হতাশ শ্রীলংকার অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ। অপরদিকে, শেষ চার নিশ্চিত হওয়ায় বেশ খুশী আফগানিস্তানের অধিনায়ক আসগর আফগান। বাংলাদেশের কাছে লজ্জার হার দিয়ে এবারের এশিয়া কাপ শুরু করে শ্রীলংকা। তাই আফগানিস্তানের বিপক্ষে শ্রীলংকার ম্যাচটি ছিলো বাঁচা-মরার। শেষ চারে খেলতে হলে জয় ছাড়া বিকল্প পথ খোলা ছিলো না তাদের। এমন ম্যাচে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং বেছে নেয় আফগানিস্তান। রহমত শাহ’র ৭২ রানের উপর ভর করে ২৪৯ রানের সংগ্রহ পায় তারা। জবাবে আফগানিস্তান বোলারদের তোপের মুুখে পড়ে ১৫৮ রানেই অলআউট হয় শ্রীলংকা। দলের কোন ব্যাটসম্যানই হাফ-সেঞ্চুরির স্বাদ নিতে পারেননি। তবে দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে হাফ-সেঞ্চুরি করেছেন ওপেনার উপুল থারাঙ্গা ও ধনঞ্জয়া ডি সিলভা। যা পরাজয়ের লজ্জা এড়ানোর জন্য যথেষ্ট ছিলো না। তাই ম্যাচ শেষে হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন শ্রীলংকার অধিনায়ক ম্যাথুজ। তিনি বলেন, ‘দলের এমন পারফরমেন্স সত্যিই হতাশাজনক। ব্যাটসম্যানরা টানা দুই ম্যাচ ব্যর্থ। আফগানিস্তান দলকে অভিনন্দন। তারা খুবই ভালো খেলেছে। আমরা ব্যাটিং-এ ভালো শুরু করেছিলাম। কিন্তু মিডল-অর্ডারে দ্রুত উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়ি। বোলাররা ভালো করেছে। আগের ম্যাচের চেয়ে এবার ভালো বোলিং করেছে তারা। ফিল্ডিংও উন্নতি হয়েছে। তবে ব্যাটসম্যানরা দলের জন্য কিছুই করতে পারেনি। আমরা চাপ নিতে পারিনি। আমাদের মানসিকভাবে আরও দৃঢ় হতে হবে।’ দ্বিতীয়বারের মত এশিয়া কাপে খেলতে এসেই প্রথম রাউন্ডের বাধা টপকাতে পারলো আফগানিস্তান। শ্রীলংকার মত দলকে হারিয়ে শেষ চার নিশ্চিতের জন্য বেশ খুশী আফগানিস্তানের অধিনায়ক আসগর আফগান। ম্যাচ শেষে তিনি বলেন, ‘প্রত্যক ব্যাটসম্যানই পরিকল্পনা অনুযায়ী খেলেছে। বিশেভাবে তিনটি বড় জুটি আমাদের ম্যাচ জয়ে প্রধান ভূমিকা রাখতে পারে। কৃতিত্ব দিতে হবে দলের বোলার ও ফিল্ডারদের। তারাও দুর্দান্ত পারফরমেন্স করেছে। জয়ের জন্য দলের সকল খেলোয়াড় মুখিয়ে ছিলো। এছাড়া এখানকার দর্শকদের সমর্থনও আমাদের সাহস যুগিয়েছে। তাদেরকেও ধন্যবাদ।’ ব্যাট হাতে ৯০ বলে ৫টি চারে ৭২ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলেন আফগানিস্তানের ব্যাটসম্যান রহমত শাহ। সঙ্গত কারণেই ম্যাচ সেরা পুরস্কার পান তিনি। দলের জয়ে অবদান রাখতে পেরে খুশী রহমত বলেন, ‘আমি যখন ক্রিজে যাই ব্যাট করতে তখন ব্যাট করার জন্য উইকেট বেশ ভালো ছিলো । কোচ-অধিনায়ক আমাকে স্বাভাবিক খেলা খেলতে বলেছিলেন এবং আমি তাই করার চেষ্টা করেছি। ম্যাচ সেরা হতে পেরে ভালো লাগছে। বিশেষভাবে দলের জয়ে অবদান রাখতে পেরে ভালো অনুভব করছি।’

মুশফিককে বিশ্রাম দেওয়ার কথা ভাবছে দল

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ একেকটি শট খেলেছেন আর ব্যথায় হাত চেপে ধরেছেন বুকে। মুখে ফুটে উঠছে যন্ত্রণার ছাপ। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুর্দান্ত সেঞ্চুরির ম্যাচে মুশফিকুর রহিম খেলেছেন পাঁজরে ব্যথা নিয়ে। গ্র“পের শেষ ম্যাচে যেহেতু হিসাব-নিকাশ আছে খুব সামান্যই, আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচটিতে তাই মুশফিকুর রহিমকে বিশ্রাম দেওয়ার কথা ভাবছে দল। সোমবার এশিয়া কাপে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে ‘বি’ গ্র“পের ফয়সালা করে দিয়েছে আফগানিস্তান। প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশ হারিয়েছিল শ্রীলঙ্কাকে। প্রথম তিন দিনের মধ্যে দুটি ম্যাচ হেরেই টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিয়েছে পাঁচ বারের চ্যাম্পিয়ন শ্রীলঙ্কা। সুপার ফোরে উঠেছে বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান। মুশফিককে বিশ্রাম দেওয়ার সুযোগ করে দিচ্ছে দুই দলের গ্র“পের নির্ধারিত হয়ে যাওয়াই। বৃহস্পতিবার আবু ধাবিতে আফগানদের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। গ্র“প চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ নির্ধারণ হওয়া ছাড়া দৃশ্যত আর কোনো হিসাব নেই এই ম্যাচে। বাংলাদেশের টিম ম্যানেজমেন্ট তাতে একটু স্বস্তির নিশ্বাস ফেলার সুযোগ পাচ্ছে। তামিম ইকবাল ছিটকে গেছেন চোট নিয়ে। মুশফিকও না খেলা মানে দলের সেরা দুই ব্যাটসম্যানকে ছাড়া মাঠে নামা। তবে ম্যাচের ওজন কম বলেই এটা ভাবতে পারছে দল। গত শনিবার টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচের আগে মুশফিকের পুরোনো পাঁজরের ব্যথা মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে আবার। এক পর্যায়ে খেলা নিয়েও জমেছিল শঙ্কার মেঘ। শেষ পর্যন্ত ব্যথানাশক নিয়ে ম্যাচটি খেলেছেন মুশফিক। শুরুর বিপর্যয় থেকে বাংলাদেশকে উদ্ধার করেছেন ১৪৪ রানের অসাধারণ ইনিংসে। পাঁজরের ব্যথার কারণে বেশ কবারই বেশ ধুঁকেতে হয়েছে মুশফিককে। কিন্তু হাল ছাড়েননি। দেড়শ বলের ইনিংসটিই গড়ে দিয়েছিল বাংলাদেশের জয়ের ভিত। ম্যাচের পরও যায়নি মুশফিকের ব্যথা। এমনিতে যিনি কখনও ঐচ্ছিক অনুশীলনও মিস করেন না, সেই মুশফিক সোমবার অনুশীলন করতে পারেননি ব্যথার তীব্রতায়। মূলত এরপরই তাকে বিশ্রাম দেওয়ার কথা জোড়ালো ভাবে ভাবতে শুরু করেছে দল। চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত যদিও হবে ম্যাচের আগের দিন। তবে আফগানদের চ্যালেঞ্জ সামলাতে শেষ পর্যন্ত তামিমের পাশাপাশি মুশফিককে না পাওয়ার সম্ভাবনা বেশ প্রবল।

বাহরাইনকে উড়িয়ে শুরু বাংলাদেশের মেয়েদের

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ বড় জয়ে এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ মহিলা চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাই শুরু করল বাংলাদেশ। কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে সোমবার বাহরাইনকে ১০-০ গোলে উড়িয়ে দেয় বাংলাদেশ। জোড়া গোল করেন আনুচিং মোগিনি, মারিয়া মান্ডা ও শামসুন্নাহার জুনিয়র। বাকি চার গোলদাতা সাজেদা খাতুন, শামসুন্নাহার সিনিয়র, আনাই মোগিনি ও তহুরা খাতুন। এ নিয়ে টানা দুই ম্যাচ হারল বাহরাইন। নিজেদের প্রথম ম্যাচে লেবাননের কাছে ৮-০ গোলে উড়ে গিয়েছিল তারা। সোমবার প্রথম ম্যাচে সংযুক্ত আরব আমিরাতকে ৬-৩ গোলে হারায় লেবানন। টানা দুই ম্যাচ জেতা দলটির বিপক্ষে আগামী বুধবার নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। নবম মিনিটে এগিয়ে যাওয়ার ভালো সুযোগ নষ্ট হয় বাংলাদেশের। আনাইয়ের বাড়ানো বলে আনুচিংয়ের নেওয়া শট ক্রসবারের ওপর দিয়ে যায়। দ্বাদশ মিনিটে আনাইয়ের দারুণ গোলে এগিয়ে যায় বাংলাদেশ। ডান দিক থেকে এই ডিফেন্ডারের ক্রস গোলরক্ষককে বোকা বানিয়ে ঠিকানা খুঁজে পায়। চার মিনিট পর অধিনায়ক মারিয়ার গোলে ব্যবধান দ্বিগুণ হয়। ডি-বক্সের ওপর থেকে এই মিডফিল্ডারের শট গোলরক্ষকের মাথার ওপর দিয়ে জালে জড়ায়। ১৯তম মিনিটে আনাইয়ের বাড়ানো বলে শামসুন্নাহারের শট প্রতিপক্ষের এক ডিফেন্ডারের পায়ে লাগার পর বল এসে পড়ে আনুচিংয়ের পায়ে। ছোট ডি-বক্সের ওপর থেকে সহজেই লক্ষ্যভেদ করেন এই ফরোয়ার্ড। প্রতিপক্ষের রক্ষণে চাপ ধরে রেখে ৩৫তম মিনিটে স্কোরলাইন ৪-০ করে নেয় বাংলাদেশ। বাঁ দিক দিয়ে আক্রমণে ওঠা ঋতুপর্ণা চাকমার শট গোলরক্ষক ফেরানোর পর ফিরতি শটে নিজের দ্বিতীয় গোলটি করেন আনুচিং। প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে ব্যবধান আরও বাড়িয়ে নেয় বাংলাদেশ। আনাইয়ের ক্রসে শামসুন্নাহার জুনিয়রের হেডে পরাস্ত গোলরক্ষক। যোগ করা সময়েই গোলের দুটি দারুণ সুযোগ নষ্ট হয় স্বাগতিকদের। মনিকা চাকমার বাড়ানো বলে মারিয়ার নেওয়া শট গোলরক্ষক ফিস্ট করার পর ক্রসবারে লেগে ফিরে। এরপর ছোট ডি বক্সের একটু ওপর থেকে আনুচিংয়ের শট ক্রসবারের ওপর দিয়ে যায়। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে ঋতুপর্ণার শট ফিরিয়ে ব্যবধান বাড়াতে দেননি বাহরাইন গোলরক্ষক জাহরা নেজার আলি। একটু পর মারিয়ার শট ক্রসবারের ওপর দিয়ে যায়। ৫৫তম মিনিটে আঁখি খাতুনের বাড়নো বল নিখুঁত শটে জালে জড়িয়ে দেন আনুচিংয়ের বদলি নামা ফরোয়ার্ড সাজেদা। দুই মিনিট পর স্কোরলাইন ৭-০ করেন শামসুন্নাহার জুনিয়র। প্রথম প্রচেষ্টা গোলরক্ষক ফেরানোর পর ফিরতি শটে লক্ষ্যভেদ করেন এই ফরোয়ার্ড। ৫৮তম মিনিটে ডান দিক দিয়ে আক্রমণে ঢোকা শামসুন্নাহার জুনিয়রকে ডি বক্সের মধ্যে ফাউল করে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড পান ডানা বাসেম। শামসুন্নাহার সিনিয়রের স্পট কিক গোলরক্ষকের তাকিয়ে দেখা ছাড়া কিছুই করার ছিল না। ৭১তম মিনিটে ডি বক্সের বাইরে থেকে মারিয়া কোনাকুনি শটে ব্যবধান আরও বাড়ান। ৮০তম মিনিটে তহুরা খাতুনের গোলে স্কোরলাইন হয় ১০-০।

আলমডাঙ্গা বন্ডবিলে ১৬ দলের ফুটবল টুর্ণামেন্টের উদ্বোধন

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ আলমডাঙ্গা বন্ডবিল একতা ক্লাবের উদ্যোগে ১৬ দলের ফুটবল টুর্ণামেন্ট উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল সোমবার বিকেলে বন্ডবিল ফুটবল মাঠে টুর্ণামেন্টের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি পৌর মেয়র হাসান কাদির গনু। টুর্ণামেন্ট কমিটির আহবায়ক আওয়ামী লীগ নেতা শিক্ষানুরাগী লিয়াকত আলী লিপু মোল্লার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাহাত মান্নান, এসআই নাজিমুদ্দিন, আলমডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক খন্দ. হামিদুল ইসলাম আজম, ৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলার মামুনার রশীদ হাসান, ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ফারুক মোল্লা, মজিবর রহমান মোল্লা, পৌর পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি পরিমল কুমার কালু ঘোষ, আব্দুল হামিদ, সাবেক উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা আব্দুস সালাম। নজরুল ইসলামের উপস্থাপনায় অন্যান্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন বন্ডবিল গ্রামের শাফায়েত আলী মন্ডল, সেলিম উদ্দিন, শহিদুল হক মোল্লা, আকবর আলী, আব্দুর রহিম সর্দার প্রমুখ। ১ম দিনের উদ্বোধনী খেলায় হালসা স্পোর্টিং ক্লাব শিবপুর ক্লাবকে ৩-০ গোলে পরাজিত করে।  খেলায় রেফারীর দায়িত্ব পালন করেন মিজানুর রহমান, আফজাল ও ইয়াছিন।

ইবিতে আন্তঃবিভাগ ও আন্তঃহল ফুটবল প্রতিযোগিতার উদ্বোধন

কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর, ভাইস চ্যান্সেলরের অতিরিক্ত দায়িত্বে নিয়োজিত প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান বলেছেন, ফুটবল একটি জনপ্রিয় খেলা। শুধু বাংলাদেশে নয়, পৃথিবী জুড়ে রয়েছে এর জনপ্রিয়তা। বিশ্বকাপ ফুটবলে আবারও প্রমাণিত হয়েছে যে, বিশ্বব্যাপি এ খেলার রয়েছে অগণিত পুরুষ ও মহিলা দর্শক। তিনি বলেন, বর্তমান সরকার তথা প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ফুটবলের হারানো ইতিহাস ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছেন। ইতোমধ্যে আমরা লক্ষ্য করেছি যে, দেশব্যাপি  প্রতিবছর বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা ফুটবল লীগ আয়োজনের মধ্যদিয়ে ফুটবলার তৈরীর কাজ চলছে। এমনকি উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে ফুটবলার বাছাই করে জাতীয় দল গঠন করা হচ্ছে। বর্তমান সরকারের এ কর্মসূচির সাথে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় একাত্মতা ঘোষণা করে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অবদান রাখতে চাই। তিনি বলেন, আমরা আজ গর্বিত যে, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কয়েকজন খেলোয়াড় জাতীয় ফুটবল দলে এবং ঢাকার বিভিন্ন ক্লাবে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে। তিনি আরও বলেন,  লেখাপড়ার পাশাপাশি ক্রীড়া ও সংস্কৃতি চর্চায় আমরা আরও এগিয়ে যেতে চাই। এজন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে খেলোয়াড়দের সার্বিক সহযোগিতা করা হবে। প্রধান অতিথি বলেন, যুব সমাজকে জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস ও মাদক মুক্ত করতে হলে ক্রীড়া চর্চার কোন বিকল্প নেই। আজ নিয়মিত ক্রীড়া ও সংস্কৃতি চর্চার আয়োজন করায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়কে জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস ও মাদক মুক্ত করা সম্ভব হয়েছে বলে আমি মনে করি। এ ফুটবল লীগের আয়োজন করায় শারীরিক শিক্ষা বিভাগকে আন্তরিক ধন্যবাদ  জানান ড. শাহিনুর রহমান। গতকাল রবিবার সকালে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুটবল মাঠে আন্তঃবিভাগ ও আন্তঃহল ফুটবল প্রতিযোগিতা ২০১৮’র উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান এসব কথা বলেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রীড়া কমিটির আহবায়ক ও ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা বলেন, আমি ফুটবলার ছিলাম। এজন্য ফুটবল আমার অত্যন্ত প্রিয় খেলা। তিনি বলেন, একসময় আমাদের দেশে নিয়মিত পাড়া-মহল¬ায়, জেলা-উপজেলায় এমনকি স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় ভিত্তিক ফুটবল খেলার আয়োজন করা হতো। কিন্তু আজ আকাশ সংস্কৃতির এ যুগে সেই আয়োজন আর নেই, কারণ আমাদের যুব সমাজ এখন খেলার মাঠে যেতে চায় না। তারা মাঠমুখি নয়, ঘর মুখি হয়ে পড়েছে। তিনি বলেন, যুব সমাজকে যদি মাঠ মুখি করা না যায় তাহলে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা পূর্ণাঙ্গ ভাবে গড়ে তোলা কঠিন হয়ে পড়বে। তাই যুব সমাজকে আবারও মাঠমুখি হতে হবে। ট্রেজারার বলেন, একজন খেলোয়াড় দেশের রাষ্ট্রদূতের সমান কাজ করেন। যেমন আমরা একটি দেশের রাষ্ট্রপতির নাম না জানলেও সেই দেশের সেরা খেলোয়াড়কে আমরা চিনি এবং জানি। তাই লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলার কোন বিকল্প নেই। সুশৃংঙ্খল পরিবেশে ক্রীড়া নৈপূণ্য দেখাতে খেলোয়াড়দের প্রতি আহবান জানান ড. সেলিম তোহা। এছাড়াও তিনি আন্তঃবিভাগ ও আন্তঃহল ফুটবল প্রতিযোগিতার সফল সমাপ্তিসহ এ বিষয়ে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন। শারীরিক শিক্ষা বিভাগের পরিচালক ড. মোহাম্মদ সোহেলের সভাপতিত্বে এবং উপ-পরিচালক শেখ মোস্তাফিজুর রহমানের পরিচালনায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রক্টর প্রফেসর ড. মোঃ মাহবুবর রহমান, ছাত্র-উপদেষ্টা প্রফেসর ড. মোঃ রেজওয়ানুল ইসলাম, ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের সভাপতি প্রফেসর ড. মোঃ মাহবুবুল আরফিনসহ বিভিন্ন পর্যায়ের শিক্ষক ও কর্মকর্তাবৃন্দ। উদ্বোধনী খেলায় আইন বিভাগ ৪-১ গোলে ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগকে পরাজিত করে। খেলাটি পরিচালনা করেন খুলনা, যশোর ও ঝিনাইদহ থেকে আগত রেফারী মোঃ জিল¬ুর রহমান, মোঃ হাবিবুর রহমান, মোঃ রবিউল ইসলাম ও মোঃ জামাল হোসেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

ম্যারাথনে বিশ্ব রেকর্ড কিপচোগের

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ দুই ঘন্টা এক মিনিট ৩৯ সেকেন্ড সময় নিয়ে ছেলেদের ম্যারাথনে বিশ্ব রেকর্ড গড়েছেন কেনিয়ার এলিউড কিপচোগে। গতকাল রোববার বার্লিন ম্যারাথনে এই রেকর্ড গড়েন অলিম্পিক চ্যাম্পিয়ন কিপচোগে। পেছনে ফেলেন ২০১৪ সালে স্বদেশি ডেনিস কিমেটোর দুই ঘন্টা দুই মিনিট ৫৭ সেকেন্ডের রেকর্ড। রেকর্ড গড়ার পর কিপচোগে বলেন, “দিনটিকে বর্ণনা করার ভাষা নেই আমার। আমি সত্যি কৃতজ্ঞ, বিশ্ব রেকর্ড ভাঙ্গতে পেরে খুব খুশি। এটা কঠিন ছিল। আমি নিজের দৌড়টা দৌড়েছিলাম। আমার প্রশিক্ষক ও কোচের ওপর বিশ্বাস রেখেছিলাম। সেটাই আমাকে শেষ কিলোমিটারগুলোতে এগিয়ে নিয়েছিল।” ম্যারাথন দৌড়বিদদের মধ্যে সর্বকালের অন্যতম সেরা ধরা হয় ৩৩ বছর বয়সী কিপচোগেকে। রিও দে জেনেইরোতে গত অলিম্পিকে এই ইভেন্টে সোনা জিতেছিলেন তিনি। চলতি বছরের শুরুতে ক্যারিয়ারে তৃতীয়বারের মতো লন্ডন ম্যারাথনে সেরা হন কিপচোগে। ১২টি ম্যারাথনে অংশ নিয়ে জিতেছেন ১১টিতেই

কৌতিনিয়োর প্রশংসায় সুয়ারেস

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ রিয়াল সোসিয়েদাদের বিপক্ষে বদলি নামা ফিলিপে কৌতিনিয়োর খেলার উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেছেন বার্সেলোনায় তার সতীর্থ লুইস সুয়ারেস। প্রতিপক্ষের মাঠে শনিবার লা লিগার ম্যাচটিতে প্রথমার্ধে পিছিয়ে পড়ার পর শেষ পর্যন্ত ২-১ গোলে জিতে বার্সেলোনা। দ্বিতীয়ার্ধে সুয়ারেস সমতা ফেরানোর তিন মিনিট পর জয়সূচক গোল করেন উসমান দেম্বেলে। এতে চলতি লিগে এখন পর্যন্ত নিজেদের চার ম্যাচের সবকটিতেই জিতল কাতালান ক্লাবটি। দ্বিতীয়ার্ধে কৌতিনিয়ো ও সের্হিও বুসকেতসকে বদলি হিসেবে মাঠে নামানোর পরই যেন বদলে যায় ম্যাচের গতি প্রকৃতি। বার্সেলোনার আক্রমণ গতি পায়। ম্যাচ শেষে ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার কৌতিনিয়ো প্রসঙ্গে বিন স্পোর্টসকে সুয়ারেস বলেন, “ফিলিপে মাঠে নামার পর খুব ভালো খেলে। সে ম্যাচের গতি প্রকৃতি বদলে দেয়।” “আমি মনে করি, এগুলো এমন ধরনের জয় যা মৌসুম শেষে পার্থক্য গড়ে দেয়। এই ধরনের ম্যাচ লা লিগা নির্ধারণ করে দিতে পারে।” এ নিয়ে চলতি মৌসুমে দ্বিতীয়বার বদলি হিসেবে মাঠে নেমে বার্সেলোনার জয়ে বড় অবদান রাখলেন কৌতিনিয়ো। এর আগে লিগে নিজেদের প্রথম ম্যাচে আলাভেসের বিপক্ষে ৩-০ গোলের জয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন লিভারপুলের সাবেক এই খেলোয়াড়।

ভারতের দর্পচূর্ণ করে সাফ চ্যাম্পিয়ন মালদ্বীপ

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ ভারতকে হারিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো সাফ সুজুকি কাপের ট্রফি জিতেছে মালদ্বীপ। গতকাল শনিবার বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ফাইনালে মালদ্বীপ ২-১ গোলে হারিয়েছে গতবারের চ্যাম্পিয়নদের। দুই অর্ধে দুই গোল করে টুর্নামেন্টের সবচেয়ে বড় চমকটি দেখাল টসভাগ্যে গ্র“প পর্ব টপকানো দলটি। সাফ চ্যাম্পিয়নশিপটা ডাল-ভাত বানিয়ে ফেলেছিল ভারত। ১১ আসরে ৭ বার চ্যাম্পিয়ন হয়ে দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বড় দেশটির আচরণেও এসেছিল পরিবর্তন। জাতীয় দলের টুর্নামেন্ট যুব দল পাঠিয়েও ২০০৯ সালে ঢাকা থেকে ট্রফি নিয়ে ঘরে ফিরেছিল তারা। এবারও তেমনটি আশা করেছিল ভারত অনূর্ধ্ব-২৩ দল পাঠিয়ে। দলটির ইংলিশ কোচ স্টিফেন কনস্ট্যানটাইন টুর্নামেন্টের নিয়ম-কানুনও মানেননি। টুর্নামেন্ট শুরুর আগে অফিসিয়াল সংবাদ সম্মেলনে আসেননি। সেমিফাইনালের আগে পাঠিয়েছিলেন সহকারী কোচকে। ফাইনালপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে দম্ভ করে বলেছিলেন, তারা হারতে আসেননি। ভারতের সেই দম্ভ গুঁড়িয়ে দিয়েছে মালদ্বীপ। সাতবারের চ্যাম্পিয়ন ভারতকে হারিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো সাফের ট্রফি জিতল দ্বীপ দেশটি। ১৯ মিনিটে মালদ্বীপ এগিয়ে যায় ইব্রাহিম হোসাইনের গোলে। পাল্টা আক্রমণ  থেকে ভারতের অর্ধে ঢুকে ডিফেন্সচেরা পাস দেন নাইজ হাসান। ইব্রাহিম গতিতে ভারতীয় দুই ডিফেন্ডারকে পরাস্ত করে একটু সামনে এগিয়ে আসা গোলরক্ষকের মাথার উপর দিয়ে চমৎকার প্লেসিংয়ে বল জালে পাঠান। ৬৬ মিনিটে আরেকটি প্রতি আক্রমণে ব্যবধান দ্বিগুণ করে মালদ্বীপ। বাম দিক থেকে মোহাম্মদ হামজার ডিফেন্সচেরা পাস ধরে আগুয়ান গোলরক্ষকের পাশ দিয়ে বল ঠেলে দেন পোস্টে। ভারতের এক ডিফেন্ডার শেষ চেষ্টা করেও বল থামাতে পারেননি। ভারত ব্যবধান কমায় ইনজুরি সময়ে সুমিত পাশির গোলে।

পৌরসভা চ্যাম্পিয়ন ॥ ফুলবাড়ীয়া রানার্সআপ

মিরপুরে বঙ্গবন্ধু জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এবং ক্রীড়া সংস্থার বাস্তবায়নে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেলে স্থানীয় ফুটবল মাঠে ফাইনাল খেলায় পৌরসভা ২-০ গোলের ব্যবধানে ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়নকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেন। তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা পূর্ণ খেলার প্রথমার্ধে উভয় দল গোল করতে ব্যর্থ হয়। দ্বিতীয়ার্ধে পৌরসভার পক্ষে সাহেব রানা দু’টি গোল করে দলের জয় নিশ্চিত করেন। পৌরসভার সাহেব রানা ম্যাচ সেরা এবং শিমুল টুর্ণামেন্ট সেরা নির্বাচিত হন। ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়নের লিখন সর্বোচ্চ গোলদাতা নির্বাচিত হন। খেলাটি পরিচালনা করেন উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্য মোহাম্মদ রফিক। তাকে সহযোগিতা করেন মিরপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ক্রীড়া শিক্ষক শফিউল ইসলাম ও সুলতানপুর সিদ্দিকীয়া মাদ্রাসার ক্রীড়া শিক্ষক সাইদুল ইসলাম। খেলা শেষে প্রধান অতিথি হিসেবে বিজয়ীদের মধ্যে পুরষ্কার বিতরণ করেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন।  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম জামাল আহমেদ’র সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন টূর্ণামেন্ট কমিটির সদস্য সচিব উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মহাম্মদ আলী জোয়ার্দ্দার, পৌরসভার মেয়র হাজী এনামুল হক, উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান বাহাদুর শেখ, মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান শারমিন আক্তার নাসরিন, মিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ রফিকুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল¬াহ-আল-মতিন লোটাস, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জুলফিকার হায়দার, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম, ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী আব্দুস সালাম, তালবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান মন্ডল, কুর্শা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ওমর আলী, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক কমান্ডার আফতাব উদ্দিন খান প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন মিরপুর প্রেসক্লাবের সাবেক আহ্বায়ক হুমায়ূন কবির হিমু।

খোকসায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুনামেন্টের অনুর্ধ্ব-১৭ ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত

খোকসা প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের (অনুর্ধ্ব-১৭)-২০১৮ এর ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়। খেলায় জয়ন্তীহাজরা ইউনিয়ন পরিষদ ২-১ গোলে আমবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়। গতকাল শনিবার বিকেলে উপজেলা সদরের খোকসা জানিপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে খেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সেলিনা বানু। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি প্রধান অতিথি ছিলেন  জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি, খোকসা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সদর উদ্দিন খান। বিশেষ অতিথি ছিলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) মুহম্মদ নুর-এ-আলম, খোকসা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বাবুল আখতার, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক প্রভাষক তারিকুল ইসলাম তারিক, ওসি তদন্ত আসাদুজ্জামান। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন উপজেলা কৃষি অফিসার বিষ্ণুপদ সাহা, উপজেলা যুবউন্নয়ন কর্মকর্তা বদিউজ্জামান, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ফারুক আহম্মেদ, জেলা পরিষদ সদস্য মোজাহেদুল ইসলাম বাবলু, শোমসপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও ক্রীড়া সংস্থার সাধারন সম্পাদক আয়েন উদ্দিন, শিমুলিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আশারাফ হোসেন, বনগ্রাম মাধমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শফিকুল ইসলাম, শোমসপুর বালিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শফিকুজ্জামান,  উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আরিফুল আলম তশর, জয়ন্তীহাজরা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, জানিপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হবিবুর রহমান হবি, ওসমানপুর ইউপি চেয়ারম্যান আনিছুল ইসলাম বাবলু, আমবাড়ীয়া ইউপি চেয়ারম্যান আমিনুর রহমান বিষু প্রমখ। এ ছাড়াও উপজেলা বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাা, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান, সুধী, সাংবাদিকগন উপস্থিত ছিলেন। বঙ্গবন্ধু জাতীয় ফুটবল টুনামেন্টের (অনুর্ধ্ব-১৭)-২০১৮ গোল্ডকাপ ফুটবল টুনামেন্টে উপজেলা নয়টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা একাদশ অংশগ্রহন করে। ফাইনাল খেলায় জযন্তীহাজরা ইউনিয়ন পরিষদ ২-১ গোলে আমবাড়ীয় ইউনয়িন পরিষদকে পরাজিত করে।

চাপড়া ইউনিয়ন ফুটবল একাদশ চ্যাম্পিয়ন

কুমারখালীতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট সমাপ্ত

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল অনুর্দ্ধ-১৭ ফুটবল টুর্ণামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকাল সাড়ে ৪টায় কুমারখালী এম এন পাইলট মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে এই টুর্ণামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ খেলায় জগন্নাথপুর ইউনিয়ন ফুটবল একাদশকে ট্রাইবেকারে ১-০ গোলে পরাজিত করে চাপড়া ইউনিয়ন ফুটবল একাদশ বিজয়ের গৌরব (চ্যাম্পিয়ন) অর্জন করে।  খেলা শেষে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে প্রাণবন্ত পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সহকারি কমিশনার (ভুমি) মুহাম্মদ মুছাব্বেরুল ইসলামের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মো: আসলাম হোসেন। পরে তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে চ্যাম্পিয়ন ও রার্নাসআপ দলের খেলোয়াড়দের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন। পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: শাহীনুজ্জামান। এ সময় বিশেষ অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক, শিক্ষা ও আইসিটি) তরফদার সোহেল রহমান, নন্দলালপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: নওশের আলী বিশ্বাস, শিলাইদহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: সালাহ্উদ্দিন খান তারেক, জগন্নাথপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদ খান, চাপড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মনির হাসান প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন। এর আগে জেলা প্রশাসক মাঠে গিয়ে খেলোয়াড় ও খেলার পরিচালকদের সাথে পরিচিত হন ও বেলুন উড়িয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে টুর্ণামেন্টের ফাইনাল খেলার উদ্বোধন ঘোষনা করেন। চরম প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ এই খেলায় নির্ধারিত সময়ের মধ্যে জগন্নাথপুর ইউনিয়ন ফুটবল একাদশ ও চাপড়া ইউনিয়ন ফুটবল একাদশ প্রাণপন চেষ্টা করেও গোল করতে ব্যর্থ হয় এবং শেষ পর্যন্ত ট্রাইবেকারে ১-০ গোলের ব্যবধানে পরাজয় বরণ করতে হয় জগন্নাথপুর ইউনিয়ন ফুটবল একাদশকে।  খেলা পরিচালনা করেন উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারন সম্পাদক রেজাউর রহমান। এ সময় তার সহযোগী হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন, এম, এন পাইলট মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ক্রীড়া শিক্ষক আশরাফুল ইসলাম ও আতাউর রহমান। এ ছাড়াও চতুর্থ পরিচালক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন কুমারখালী সরকারি কলেজের শারীরিক শিক্ষক চঞ্চল কুমার কর্মকার। খেলার ধারাবিবরণীতে ছিলেন, উপজেলা স্যানিটারী ইন্সপেক্টর মো: আরাফাত আলী, কে.এম জনি ও ইমন।