দৌলতপুরে হেযবুত তওহীদের সংবাদ সম্মেলন

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমাহীন অপপ্রচার, হত্যার হুমকি, হামলার উস্কানি ও ফতোয়া দিয়ে দাঙ্গা সৃষ্টির ষড়যন্ত্রকারীদের  গ্রেফতারের দাবীতে হেযবুত তওহীদের সংবাদ সম্মেলন করেছে। গতকাল শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টায় উপজেলার আল্লারদর্গা প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন কুষ্টিয়া জেলা হেযবুত তওহীদ এর সভাপতি মোঃ মহররম আলি বিশ্বাস। এ সময় উপস্থিত ছিলেন হেযবুত তওহীদ জেলা আইন সম্পাদক মোঃ মিজানুর রহমান মজনু, শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ সম্পাদক মোঃ লতিফ-উল-এসলা, দৌলতপুর উপজেলা শাখার সভাপতি মোঃ আকিদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ সাহারুল ইসলাম, সদস্য মোঃ আজিম শেখ। সংবাদ সম্মেলনে হেযবুত তওহীদ নেতারা দাবী করেন, আল্লাহ ও রসুলের প্রকৃত ইসলাম নিয়ে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও সাম্প্রদায়ীকতার বিরুদ্ধে গণসচেতনতা সৃষ্টিতে নিঃস্বার্থভাবে তারা কাজ করে চলেছে। সমাজের এক শ্রেণির মানুষ তাদের বিরুদ্ধে নানা প্রকার অপপ্রচার চালিয়ে তাদের সমাজে হেয় প্রতিপন্ন করছে। হেযবুত তওহীদ তাদের দাবী, গ্রাম-গঞ্জে, শহরে-বন্দরে ওয়াজ মাহফিলে, খুতবায় হেযবুত তওহীদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার কারী, হুমকি প্রদান কারী, ফতোয়াবাজ বক্তাদের গ্রেফতার করে আইনে সৌপর্দ করা হউক। সোশ্যাল মিডিয়াতে জীবন-নাশ ও ক্ষতি সাধনের হুমকি প্রদানকারীদের আইসিটি আইনের আওতায় নেওয়া হউক। দেশ ও জাতির সার্থে ধর্মান্ধতা, জঙ্গিবাদ, ধর্ম নিয়ে অপরাজনীতি ও মাদকের বিরুদ্ধে হেযবুত তওহীদ কাজ করে চলেছে, এ কাজে ষড়যন্ত্র কারীরা যেন বাঁধা প্রদান না করতে পারে এ ব্যাপারে প্রশাসন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবে। হেযবুত তওহীদ সদস্যদের প্রাণনাশ আত্মঘাতি হামলার আশংকায় রয়েছে। এ ব্যাপারে সরকারের কাছে তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবী জানান। সংবাদ সম্বেলনে দৌলতপুরের প্রিন্ট মিডিয়া ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকগণ উপস্থিত ছিলেন।

পরিবারের চেয়ে বড় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পৃথিবীর কোথাও নাই – আরেফিন সিদ্দিক

ঢাকা অফিস ॥ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেছেন, পরিবারের চেয়ে বড় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পৃথিবীর কোথাও নাই। পৃথিবীর সবচেয়ে বড় বিশ্ববিদ্যালয় হলো পরিবার। যে পরিবারে সুশিক্ষা দেওয়া হয়েছে, সে পরিবারের সন্তান কোনদিনও খারাপ পথে যায়নি, যাবেও না। কিন্তু যে খারাপ হয়েছে, খোঁজ নিয়ে দেখেন, তার পরিবার তাকে ভালো শিক্ষা দিতে পারেনি। গতকাল শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে বাংলাদেশ সিনিয়র সিটিজেনস অ্যাসোসিয়েশন (বাচকা) ও জেরিয়াট্রিক ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের অভিষেক ও লোগো উন্মোচন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক এই উপাচার্য আরও বলেন, ক্রমান্বয়ে আমরা আত্মকেন্দ্রিক হয়ে যাচ্ছি। প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম দিন দিন আত্মস্বার্থ নিয়ে চিন্তা করছে। প্রত্যেক পরিবারেই প্রবীণ মানুষ রয়েছেন। আমাদের দেশ ও সংস্কৃতি যৌথ পরিবারের সংস্কৃতি। তাই প্রতিটি পরিবারে ছোট সদস্যদের এ ব্যাপারে শিক্ষা দিয়ে গড়ে তুলতে হবে। নাট্য ব্যক্তিত্ব ইনামুল হক বলেন, আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ৬৪তম ব্যাচের ছাত্র ছিলাম। আমরা বিশেষ সময়ে যখন একসঙ্গে সমবেত হই, তখন সবাই যার যার সন্তানের খোঁজ খবর নেই। আমি যখন কাউকে বলি, আপনার ছেলেমেয়ে কোথায়? তারা গর্বের সঙ্গে বলেন, ছেলে আমেরিকাতে ও মেয়ে অস্ট্রেলিয়াতে। এরপরই তাদের গৌরবটা ভেঙে যায়। পরে দীর্ঘশ্বাস ফেলে তারা বলেন, নাহ্, আমরা বড় একা। তিনি নতুন প্রজন্মকে সংস্কৃতমনা করে তুলতে অভিভাবকদের প্রতি আহ্বান জানান। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব কাজী আখতার হোসেন, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সাবেক যুগ্ম সচিব মো. রাশিদুল হাসান আজাদ প্রমুখ।

বন্যা থেকে বাঁচতে গৃহস্থের বিছানায় ঠাঁই নিল বাঘ!

ঢাকা অফিস ॥ অনেকটা রূপকথার গল্পে বাঘের কবলে পড়াদের মানুষদের মতোই অবস্থা হয়েছিল ভারতের আসামের এক ব্যক্তির। কাজিরাঙা জঙ্গলের কাছেই তাঁর বাড়ি। নিজের ঘরে ঢুকতে গিয়ে হঠাৎই দেখতে পান যে বিছানার ওপরে দিব্যি আরাম করে বসে আছে রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার। বিছানায় গুছিয়ে বসে থাকা বাঘের ছবি বৃহস্পতিবার ভাইরাল হয়ে ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। আসামে প্রবল বৃষ্টিতে ভাসছে কাজিরাঙা অভয়ারণ্য। বন্যায় মারা গিয়েছে বহু পশু। এই অবস্থায় বন্যার থেকে বাঁচতে এক গৃহস্থের বাড়ি আশ্রয় নেয় বাঘটি। বাঘটিকে ঘুমের ওষুধ দিয়ে ওখান থেকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছেন বনকর্মীরা। নিরাপদে তাকে জঙ্গলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা চলছে। বাঘটি আহত কিনা, তাও বোঝার চেষ্টা করছেন বন দফতরের কর্মীরা। উল্লেখ্য, ভারতের আসাম রাজ্যের বন্যা পরিস্থিতির চরম অবনতি হয়েছে। বন্যায় আসামের ৫২ লাখের বেশি মানুষ পানিবন্দি হয়েছে। এছাড়া এতে এখন পর্যন্ত অন্তত ৬৭ জনের প্রাণহানি ঘটেছে।

ধর্ষক-নিপীড়ক ও হত্যাকারীদের কঠিন শাস্তির দাবি মহিলা ফোরামের

ঢাকা অফিস ॥ নারী ও শিশু ধর্ষক, নিপীড়ক ও হত্যাকারীদের দ্রুত বিচার এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরাম। গতকাল শুক্রবার রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সংগঠনটি সমাবেশের আয়োজন করে এ দাবি জানায়। সমাবেশে বক্তারা বলেন, সারাদেশে নারী ও শিশু নির্যাতন, হত্যা ও ধর্ষণের মতো ঘটনা ঘটেই চলেছে। একটি নির্যাতনের ঘটনার বর্বরতা আরেকটিকে পেছনে ফেলে দিচ্ছে। এ বছরের প্রথম ছয় মাসে দুই হাজার ৮৩ জন নারী ও শিশু নির্যাতন, ধর্ষণসহ উত্ত্যক্তকরণের শিকার হয়েছেন। এর মধ্যে গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন ১১৩ জন এবং ধর্ষণ করা হয়েছে ৭৩১ জনকে। বক্তারা আরও বলেন, প্রতিনিয়ত এসব ঘটনা ঘটলেও প্রতিবাদকারীদের ওপর হামলা ও হত্যার ঘটনা ঘটছে। ফেনীর নুসরাত অন্যায়ের প্রতিবাদ করেছিল, তাকে পুড়িয়ে মারা হলো। বরগুনায় হত্যায় বাধা দেওয়ায় মিন্নিকে রিমান্ডে নেওয়া হলো। অথচ যারা প্রকাশ্যে খুন করলো, তারা এখনও সবাই গ্রেফতার হয়নি। এসব খুনিদের গডফাদারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয় না। মিন্নির পক্ষে কোনো আইনজীবী নেই। এসব ধর্ষক, নিপীড়ক ও হত্যাকারীদের দ্রুত বিচার এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি যদি দেওয়া হতো, তাহলে এ ঘটনার পুনরাবৃত্তি আর হতো না। সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরামের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার শম্পা বসুর সভাপতিত্বে আয়োজিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সংগঠনটির সাংগঠনিক সম্পাদক দিলরুবা নূরী, নারীনেত্রী ডা. মনিষা চক্রবর্তী, জেসমিন আক্তার, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের নগর সাধারণ সম্পাদক মুক্তা বাড়ৈ প্রমুখ।

দুদক চেয়ারম্যানের ‘সরল বিশ্বাস’ কী, পরিষ্কার নয় – কাদের

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান সরল বিশ্বাস বলতে কী বুঝিয়েছেন, তা পরিষ্কার নয়। বিষয়টি পরিষ্কার হতে হবে। তিনি বলেন, সরকার যেকোনো দুর্নীতিকে দুর্নীতি হিসেবেই দেখবে। গতকাল শুক্রবার সকালে আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের এ কথা বলেন। ঢাকায় ডিসি সম্মেলনে দুদক চেয়ারম্যানের বক্তব্যের বিষয়ে সাংবাদিকেরা জানতে চাইলে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী কাদের এ কথা বলেন। ডিসি সম্মেলনে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, ফৌজদারি আইনে সরল বিশ্বাসে অপরাধ করলে তা অপরাধ হিসেবে গণ্য হয় না। তবে তিনি এও বলেন, সরল বিশ্বাস বিষয়টি প্রমাণিত হতে হবে। অবশ্য ওবায়দুল কাদের এও বলেন, দুদক চেয়ারম্যানের বক্তব্যকে ভিন্নভাবে দেখার সুযোগ নেই। এইচ এম এরশাদ পরবর্তী জাতীয় পার্টির রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ সম্পর্কে বলতে গিয়ে মন্ত্রী কাদের বলেন, সংসদে জাতীয় পার্টির অনেক আসন আছে। এরশাদের অবর্তমানে তাদের দলীয় রাজনীতি কেমন হবে, সেটা দলটির অভ্যন্তরীণ ব্যাপার। তিনি বলেন, রাজনীতিতে তারাই টিকে থাকবে, যারা সময়োপযোগী ও যুগোপযোগী রাজনীতি করবে। স্থানীয় সরকার নির্বাচনে নৌকার বিরোধী হিসেবে কাজ করা দলীয় নেতারা কী ধরনের শাস্তি পেতে পারেন, এই প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, এখন কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে। এরপর তাঁদের জবাবের পরিপ্রেক্ষিতে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী কাদের বলেন, বিএনপিকে রাজনৈতিক কর্মকর্তা পরিচালনায় কোথাও বাধা দেওয়া হচ্ছে না। বিএনপির সাংগঠনিক কাজে সরকারি বাধার অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে কাদের বলেন, ‘বিএনপির কোথাও কোনো সভায় পুলিশ বাধা দেয়নি। সবখানে তারা সভার অনুমতি পেয়েছে। সরকারের বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগ বিএনপির কল্পিত।’ সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে আগে নিজেদের সচেতন হতে হবে – স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ ডেঙ্গু রোগ বহনকারী এডিস মশা নিধনে নিজেদের যার যার অবস্থান থেকে আগে সচেতন হতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। গতকাল শুক্রবার রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউতে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া রোগের বাহক এডিস মশা সম্পর্কে নগরবাসীকে সচেতন করতে র‌্যালির আগে তিনি এমন মন্তব্য করেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, গেল বছরের আগ পর্যন্ত এটি (ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া) নিয়ে আমরা তেমন একটা চিন্তিত ছিলাম না। কিন্তু এখন চিন্তার বিষয় আছে। আর তাই এই এডিস মশা নিধনে সরকারের যেসব প্রচেষ্টা ছিল, সকল প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। তিনি বলেন, বৃষ্টিতে কোথাও পানি জমে থাকলে এই মশা সহজে বিস্তার লাভ করে। আমাদের নিজ নিজ আঙিনা পরিষ্কার রাখতে হবে। নিজেদের আগে সচেতন হতে হবে। তাহলেই এই রোগ ও মশা থেকে আমরা মুক্তি পাব। এদিকে ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়ায় সমালোচনার মধ্যে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মশক নিয়ন্ত্রণ ও পরিচ্ছন্নতা বিভাগের সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিলের ঘোষণা দেন মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম। শোভাযাত্রার শুরুতে মেয়র বলেন, উত্তর সিটি করপোরেশন ডেঙ্গু প্রতিরোধে দুটি বিভাগের কর্মীদের ছুটি বাতিল করেছে। যারা মশক নিয়ন্ত্রণে নিয়োজিত আছেন এবং যারা পরিচ্ছন্নতার কাজে নিয়োজিত আছেন তাদের সকল ছুটি আমি ক্যান্সেল করেছি। ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া যতদিন নিয়ন্ত্রণে না আসবে, মৌসুম যতদিন থাকবে এ আদেশ ততদিন বলবৎ থাকবে। এ বছরের জানুয়ারি থেকে ১৭ জুন পর্যন্ত রাজধানীতে ৫৫৮ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হওয়ার তথ্য দিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা। সে সময় পর্যন্ত দুজন রোগীর মৃত্যু হয়েছিল। এরপর ১৭ জুলাই পর্যন্ত ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা পাঁচ হাজার ১৬৬ জনে দাঁড়ায়। অর্থাৎ এক মাসে ডেঙ্গু রোগী বেড়েছে চার হাজার ৬০৮ জন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ডেঙ্গুর কারণে এ পর্যন্ত মোট পাঁচজনের মৃত্যুর খবর দিলেও সংবাদমাধ্যমে ১৯ জনের মৃত্যুর তথ্য পাওয়া গেছে। ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব বেড়ে যাওয়ায় ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলে গত ২ জুলাই উষ্মা প্রকাশ করে হাই কোর্ট। ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়ার বিষয়ে সচেতনতা তৈরি এবং নিজ নিজ বাড়ির আঙিনা পরিস্কার রাখতে সবার প্রতি আহ্বান জানান মেয়র আতিকুল ইসলাম। ডেঙ্গু মশার উৎপত্তিস্থল জমে থাকা স্বচ্ছ পানি। আমি সবাইকে অনুরোধ করব তিনদিন জমে থাকা স্বচ্ছ ও পরিষ্কার পানিতে ডেঙ্গুর জন্ম হয়। আপনারা এ ধরনের পানি জমতে দেবেন না। বাড়ির আঙ্গিনায়, ফুলের টবে, পরিত্যক্ত টায়ারে, জমে থাকলে তা পরিষ্কার করুন। আমাদের স্ব-উদ্যোগে এসব কাজ করতে হবে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল, সাংসদ আসলামুল হক, সাদেক খান, সাবেক ক্রিকেটার আকরাম খান, ক্রিকেটার মেহেদী হাসান মিরাজ, চলচ্চিত্র অভিনেতা ফেরদৌস, রিয়াজ, অরুণা বিশ্বাস, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকসহ সরকারের বিভিন্ন সংস্থার কর্মকর্তা-কর্মচারী, সিটি করপোরেশনের ওয়ার্ড কাউন্সিলর, রাজধানীর বিভিন্ন ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা এ শোভাযাত্রায় অংশ নেন।

বন্যার্ত কেউই সরকারি ত্রাণ থেকে বঞ্চিত হবে না – ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান এমপি বলেছেন, সরকারের ত্রাণ ভান্ডারে যথেষ্ট পরিমাণের ত্রাণ সামগ্রী মজুদ রয়েছে। কোনও বন্যার্ত মানুষ সরকারি ত্রাণ পাওয়া থেকে বঞ্চিত হবে না। পর্যায়ক্রমে বন্যার্ত এলাকার সব মানুষই ত্রাণ পাবে। আওয়ামী লীগ সরকার বন্যার্ত মানুষের পাশে অতীতেও ছিল, বর্তমানেও আছে, ভবিষ্যতেও থাকবে। গতকাল শুক্রবার দুপুর ১টার দিকে গাইবান্ধা জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির বিশেষ সভা শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি। প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, গাইবান্ধার বানভাসী মানুষের জন্য ৫০০ বান্ডিল টিন, ১৫ লাখ টাকা, ২০০ মেট্রিক টন চাল ও শিশুখাদ্য, গো-খাদ্যের জন্য আরও ৫ লাখ টাকা, বিশুদ্ধ পানির ২ হাজার জেরিক্যান ও ৫০০ তাবু (ত্রিপল) বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া নতুন করে আরও চাল, নগদ টাকা বরাদ্দে প্রক্রিয়া চলছে। এসময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম বলেন, বন্যা আক্রান্ত এলাকা ও বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ রক্ষায় সরকার সর্বোচ্চ আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করছে। সেই লক্ষ্যে গাইবান্ধা শহর রক্ষায় একটি বেড়ি বাঁধ নির্মাণের প্রকল্প অনুমোদন করা হয়েছে। ২৫০ কোটি টাকার ব্যয়ে বাঁধটি নির্মাণ কাজ দ্রুতই শুরু করা হবে। এই বাঁধটি নির্মাণ হলে একদিকে যেমন গাইবান্ধা শহর রক্ষা হবে, তেমনি বর্ন্যাত মানুষও ক্ষয়ক্ষতির হাত থেকে বাঁচবে। সভা শেষে গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার ফজলুপুরে বর্ন্যাত এলাকা পরির্দশন ও ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারে মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেন প্রতিমন্ত্রী এমানুর রহমান। এ সময় ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী এমপি, হুইপ মাহাবুব আরা বেগম গিণি এমপি, গাইবান্ধা-১ আসনের এমপি ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী, গাইবান্ধা পৌর মেয়র শাহ্ মাসুদ জাহাঙ্গীর কবীর মিলন উপস্থিত ছিলেন। গাইবান্ধা জেলা প্রশাসক (ভারপ্রাপ্ত, রুটিন দায়িত্ব) রোকসানা বেগমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বিশেষ সভায় সরকারি বিভিন্ন দফতরের কর্মকর্তা, গাইবান্ধার সদর, ফুলছড়ি, সাদুল্যাপুর, পলাশবাড়ী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের জনপ্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

 

খালেদার মুক্তির আন্দোলন বেগবান করতে শিগগিরই কঠোর কর্মসূচি – ফারুক

ঢাকা অফিস ॥ বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও সাবেক চিফ হুইপ জয়নুল আবদিন ফারুক বলেছেন, খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন বেগবান করতে শিগগিরই কঠোর কর্মসূচি দেওয়া হবে। আমি আশা করবো সরকার তার আগেই খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেবে। গতকাল শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অপরাজেয় বাংলাদেশ নামে একটি সংগঠন আয়োজিত মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। জয়নুল আবদিন ফারুক বলেন, দেশের মানুষ মানবেতর জীবনযাপন করছে। ২০১৪ সালের নির্বাচনের পর থেকে দেশে যে দলটি ক্ষমতাসীন তাদের অত্যাচার-নির্যাতন ও গুম, খুনে জর্জড়িত বিএনপি এবং দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। যিনি দেশের সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। তিনি মিথ্যা মামলায় কারাগারে বন্দি। তার মুক্তির দাবিতে আমরা রাজপথে দাঁড়িয়েছি। তিনি বলেন, কার কাছে আমরা দাবি করবো। একটি কাল্পনিক ও অসত্য মিথ্যা মামলায় খালেদা জিয়ার এতদিন জেলে থাকার কথা নয়। যদি সত্যিকার অর্থেই এ সরকার মানবিক হতো গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকার হতো তাহলে খালেদা জিয়ার এতদিন জেলে থাকার কথা নয়। আমরা বারবার সরকারের কাছে এ দাবি করে আসছি। তিনি আরও বলেন, সরকার আমাদের নেতাকর্মীদের অত্যাচার ও নির্যাতন করছে। ২৫ লাখের অধিক নেতাকর্মী মামলা নিয়ে জীবন-যাপন করছে। আমাদের নেত্রী অসুস্থ তার চিকিৎসার জন্য কেন আপনার (প্রধানমন্ত্রী) কাছে বারবার দাবি জানাতে হবে। আপনি যদি একটি প্রাচীন রাজনৈতিক দলের সভাপতি হয়ে থাকেন মুক্তিযুদ্ধে খালেদা জিয়ার স্বামীর (জিয়াউর রহমান) কথা যদি স্মরণ করতেন তাহলে তাকে মিথ্যা মামলায় কারাগারে বন্দি থাকতে হতো না। সরকারের সমালোচনা করে ফারুক বলেন, বর্তমান সরকারের কাছে দাবি করে লাভ কি? যে সরকার বানভাসি মানুষের পাশে দাঁড়ায় না। যে সরকার পৌরসভার কর্মচারীদের বেতন দিতে পারে না, একটু বৃষ্টি হলেই চট্টগ্রাম শহর তলিয়ে যায়, সে খবরও রাখে না। তারা কি করে খালেদা জিয়ার খবর রাখবে। তারা কোনোভাবেই চায় না খালেদা জিয়ার মুক্তি হোক, দেশে গণতান্ত্রিক আন্দোলন হোক। দলীয় নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, আসুন আমরা সব ভেদাভেদ ভুলে খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনে রাস্তায় নামি। আয়োজক সংগঠনের সহ-সভাপতি খলিলুর রহমান ইব্রাহিমের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন সিরাজীর সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, সহ-শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ফরিদা মনি শহীদুল্লাহ, ঢাকা মহানগর বিএনপি নেতা ফরিদ উদ্দিন, ওলামা দলের নেতা মাওলানা রফিকুল ইসলাম, কৃষকদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন, এম জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ।

ফেইসঅ্যাপ

এফবিআইকে তদন্ত করতে বললেন মার্কিন সিনেটর

ঢাকা অফিস ॥ ব্যবহারকারীদের বৃদ্ধ অথবা তরুণ দেখানোর ফেইসঅ্যাপের বিষয়ে এফবিআইকে তদন্ত করে দেখতে বলেছেন মার্কিন সিনেটের সংখ্যালঘু ডেমোক্রেট নেতা চাক শুমার। টুইটারে পোস্ট করা এক চিঠিতে তিনি মার্কিন নাগরিকদের ব্যক্তিগত তথ্য ‘শক্রভাবাপন্ন বিদেশি শক্তির’ হাতে চলে যেতে পারে আশঙ্কা প্রকাশ করে বিষয়টিকে ‘গভীর উদ্বেগজনক’ বলে বর্ণনা করেছেন, জানিয়েছে বিবিসি। রাশিয়ার একটি কোম্পানির তৈরি করা অ্যাপটি সাম্প্রতিক সময়ে ভাইরাল হয়েছে। এর সঙ্গে সঙ্গে ব্যক্তিগত গোপনীয়তা লঙ্ঘনের উদ্বেগও দেখা দিয়েছে। তবে আগেই এসব অভিযোগ অস্বীকার করে সেইন্ট পিটার্সবার্গভিত্তিক ওয়্যারলেস ল্যাব কোম্পানি জানিয়েছে, প্রায় আট কোটি ব্যবহারকারী তাদের অ্যাপটি ব্যবহার করছে। কিন্তু তারা ব্যবহারকারীদের ছবি স্থায়ীভাবে জমা রাখে না এবং মূল্যবান তথ্যও সংগ্রহ করে না, ব্যবহারকারীরা যেসব ছবি এডিটিংয়ের জন্য নির্বাচন করে শুধু সেগুলো আপলোড করে তারা। “মূল রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট টিমের অবস্থান রাশিয়ায় হলেও ব্যবহারকারীদের তথ্য রাশিয়ায় পাঠানো হয় না,” সম্প্রতি এক বিবৃতিতে বলেছে কোম্পানিটি। কিন্তু কোম্পানিটির এসব বক্তব্য সত্বেও এফবিআই ও মার্কিন ফেডারেল ট্রেড কমিশনকে (এফটিসি) ফেইসঅ্যাপের বিষয়টি তদন্ত করে দেখতে বলেছেন সিনেটর শুমার। “যে সব তথ্য জড়ো করা হচ্ছে সেগুলোর সুরক্ষার পাশাপাশি কারা এ তথ্যভান্ডারে প্রবেশ করতে পারবে সে বিষয়ে ব্যবহারকারীরা সচেতন কি না, এই উভয় বিষয় নিয়ে আমি গভীরভাবে উদ্বিগ্ন,” চিঠিতে বলেছেন তিনি। ডেমোক্রেট পার্টির জাতীয় কমিটি ২০২০ সালের নির্বাচনে তাদের দলের প্রেসিডেন্ট প্রার্থীদের ও তাদের প্রচারণা কর্মকর্তাদের ফেইসঅ্যাপ ব্যবহার না করার জন্য সতর্ক করার পর শুমার এ তদন্তের আহ্বান জানিয়েছেন বলে মার্কিন গণমাধ্যমের প্রতিবেদনগুলোতে বলা হয়েছে।

মালেশিয়া থেকে লাশ হয়ে ফিরেছে দৌলতপুরের কামরুল ইসলাম 

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ মালেশিয়া থেকে লাশ হয়ে ফিরেছে কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের কামরুল ইসলাম। গতকাল শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার প্রাগপুর ইউনিয়নের ময়রামপুর নতুনপাকুড়িয়া গ্রামে তার লাশ পৌঁছায়। সে একই গ্রামের আনোয়ারুল ইসলামের ছেলে। জয়পুর গ্রামের আনারুল ইসলাম টেংগর নামে এক আদম ব্যবসায়ী ২০১৮ সালের জুন মাসে মোটা অংকের টাকা নিয়ে কামরুল ইসলামকে মালেশিয়ায় পাঠায়। কিন্তু তাকে মালেশিয়ায় না নিয়ে ইন্দোনেশিয়ায় নামিয়ে দেওয়া হয়। পরে কামরুল ইসলামসহ অনেকে অবৈধভাবে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে মালেশিয়ায় প্রবেশের সময় মালেশিয়ার সীমান্তরক্ষীদের হাতে পড়ে। এসময় তাদের শারীরিক নির্যাতন করা হয়। নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে একপর্যায়ে একমাস পূর্বে কামরুল ইসলাম মারা যায়। এমন বর্ণনা দিয়ে কামরুল ইসলামের বাবা আনোয়ারুল ইসলাম গতকাল দৌলতপুর থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। এদিকে বাদ আছর নামাজে জানাযা শেষে জয়পুর কবর স্থানে কামরুল ইসলামের দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

ইবিতে ফিন্যান্সসিয়াল ম্যানেজমেন্ট টু পাবলিক সেক্টর: ফোকাস অন ইউনিভার্সিটি ফিন্যান্সসিয়াল ম্যানেজমেন্ট শীর্ষক দুই দিনব্যাপী সেমিনারের উদ্বোধন

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের কনফারেন্সরুমে গতকাল শুক্রবার সকাল হতে দুই দিনব্যাপী ফিন্যান্সসিয়াল ম্যানেজমেন্ট টু পাবলিক সেক্টর: ফোকাস অন ইউনিভার্সিটি ফিন্যান্সসিয়াল ম্যানেজমেন্ট শীর্ষক দুইদিনব্যাপী সেমিনারের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রেজিস্ট্রার (ভারঃ) এস.এম আব্দুল লতিফ এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী (ড. রাশিদ আসকারী)  বলেন, সময় এসেছে এখন পরিবর্তনের। প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ ও চৌকস নেতৃত্বে দেশ আজ প্রতিক্ষণে উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাচ্ছে। আর উন্নয়নকে টেকসই করতে হলে আমাদেরকে আর্থিক ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রো ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান বলেন, আর্থিক শৃঙ্খলা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। শৃঙ্খলার জায়গাগুলো ভালো না হলে একটি প্রতিষ্ঠান ভালোভাবে চলতে পারে না। তিনি যেকোন দুর্নীতির বিরুদ্ধে বর্তমান সরকারের জিরো টলারেন্স এর বিষয়টি সেমিনারে উপস্থিত সকলকে স্মরণ করিয়ে দেন। এছাড়া সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্য ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা বলেন, বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিদিনই কোন না কোন বিষয়ে সেমিনার সিম্পোজিয়াম হচ্ছে যাতে করে নতুন নতুন তথ্যে সম্পর্কে আমরা অবহিত হচ্ছি। তিনি বলেন, প্রশিক্ষনের মাধ্যমেই উদ্ভাবনী বিষয় সম্পর্কে জানা যায়। সেমিনারে উপস্থিত সকলের উদ্দ্যেশে তিনি বলেন, আপনারা সমৃদ্ধ হলে বিশ্ববিদ্যালয় সমৃদ্ধ হবে আর বিশ্ববিদ্যালয় সমৃদ্ধ হলে দেশ সমৃদ্ধ হবে এবং দেশ সমৃদ্ধ হলে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠিত হবে। দিনব্যাপী সেমিনারে রিসোর্স পারসনের বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের অর্থ ও হিসাব বিভাগের পরিচালক (চলতি দায়িত্ব) মোঃ রেজাউল করিম হাওলাদার। সেমিনারটি ফোকাল পয়েন্ট ও সঞ্চালনার দায়িত্বে ছিলেন উপ-রেজিস্ট্রার ড. নওয়াব আলী খান। দিনব্যাপী ফিন্যান্সসিয়াল ম্যানেজমেন্ট টু পাবলিক সেক্টর: ফোকাস অন ইউনিভার্সিটি ফিন্যান্সসিয়াল ম্যানেজমেন্ট শীর্ষক সেমিনারে বিভিন্ন অফিস ও বিভাগের বিভিন্ন  পর্যায়ের কর্মকর্তারা  উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

কুষ্টিয়া এডিটরস্ ফোরাম’র জরুরী সভা ২৩ জুলাই

আগামী ২৩ জুলাই ২০১৯ খ্রীঃ সকাল ১১টায় কুষ্টিয়া প্রেসক্লাব আব্দুর রাজ্জাক মিলনায়তনে এডিটরস্ ফোরাম’র এক জরুরী সভা আহবান করা হয়েছে। উক্ত সভায় ফোরামের সকল কার্যনির্বাহী সদস্যসহ, সাধারণ সদস্যসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে যথাসময়ে উপস্থিত হওয়ার জন্য ফোরামের সভাপতি মুজিবুল শেখ ও সাধারণ সম্পাদক নুর আলম দুলাল ফোরামের সকল সদস্যদের পক্ষ থেকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

আন্দোলনে খালেদা জিয়ার মুক্তি নেই – তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ নিজেদের মধ্যে চেয়ার ছোঁড়াছুড়ি না করে বরিশালের সমাবেশ শেষ করায় বিএনপিকে ধন্যবাদ জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, মনে রাখতে হবে আন্দোলন করে বেগম জিয়ার মুক্তি সম্ভব নয়, আইনই একমাত্র পথ। গতকাল শুক্রবার দুপুর ১২টায় রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির স্বাধীনতা হলে বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদ আয়োজিত ‘গণতন্ত্রের মানসকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার কারাবন্দী দিবস উপলক্ষে আলোচনা’ শীর্ষক সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন। বরিশালে বিএনপির সভায় মীর্জা ফখরুলের দুটি মন্তব্যের জবাবে ড. হাছান বলেন, সুষ্ঠু ভোট হলে না কি আওয়ামী লীগ একটা ভোটও পাবে না- বিএনপি মহাসচিবের এ মন্তব্য তার মানসিক সুস্থতার পরিচায়ক নয়। আর উন্নয়নের নামে আওয়ামী লীগ পকেট ভারি করছে- একথা তাদের বেলায় প্রযোজ্য কারণ তারা সেটা করে দেশকে পরপর পাঁচবার দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন করেছেন। আর আওয়ামী লীগ দেশের যে উন্নয়ন করেছে, সেটা শুধু বিএনপির চোখে পড়ে না, কিন্তু সারা বিশ্বে তা আজ এক রোল মডেল। এক-এগারো’র কথা স্মরণ করে এ সময় আওয়ামী লীগের অন্যতম মুখপাত্র ড. হাছান বলেন, ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে নয়, বন্দী করা হয়েছিল দেশের গণতন্ত্রকে। সে সময় অনেক নেতা বেসুরে কথা বললেও দলের তৃণমূল কর্মীরা নেত্রীর ওপর বিশ্বাসে অটল ছিলেন। আওয়ামী লীগের আন্দোলনের কারণেই শেখ হাসিনার পাশাপাশি খালেদা জিয়াও মুক্তি পান। মানুষের অধিকার হরণের প্রতিবাদের কারণেই শেখ হাসিনাকে আটক করা হয় বলেই ১৬ জুলাই ‘গণতন্ত্র বন্দী দিবস’ বলে আখ্যা পাচ্ছে। বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদের উপদেষ্টা এড. মোঃ জাহাঙ্গীর আলম খানের সভাপতিত্বে ও সিনিয়র সহ সভাপতি শেখ নওশের আলীর সঞ্চালনায় সভায় আওয়ামী লীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন। অন্যদের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির উপপ্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, স্বাধীনতা পরিষদের সভাপতি মো. জিন্নাত আলী জিন্নাহ, সাধারণ সম্পাদক মো. শাহাদাত হোসেন টয়েল, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক আখতার হোসেন, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা প্রমুখ।

মিয়ানমারের সেনা কর্মকর্তাদের উপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা অপর্যাপ্ত – জাতিসংঘ

ঢাকা অফিস ॥ রোহিঙ্গা মুসলমানদের মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে মিয়ানমারের সেনা কর্মকর্তাদের উপর যুক্তরাষ্ট্র যে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে তা যথেষ্ট নয় বলে মনে করেন জাতিসংঘের দূত ইয়াংহি লি। ওয়াশিংটন এ সপ্তাহে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর প্রধান মিন অং হলাইং এবং আরো তিন জ্যেষ্ঠ সেনা কর্মকর্তা ও তাদের পরিবারের সদস্যদের উপর যুক্তরাষ্ট্র প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। সন্ত্রাস দমনে সেনা অভিযানের নামে পশ্চিমের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা মুসলমান অধ্যুষিত এলাকাগুলোতে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর ‘জাতিগত নিধনের’ বিরদ্ধে এটাই এখন পর্যন্ত ওয়াশিংটনের সবচেয়ে কঠোর শস্তিমূলক পদক্ষেপ। যদিও এই নিষেধাজ্ঞা একেবারেই যথেষ্ট নয় বলে মত জাতিসংঘের তদন্ত কর্মকর্তা ইয়াংহি লি। বৃহস্পতিবার কুয়ালালামপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, “তারা কখনোই যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণে যায়নি…আসুন আরো বাস্তববাদী হই।” যদিও মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে তাদের পদক্ষেপ যথাযথ বলে বর্ণনা করে অন্যান্য দেশকেও একই উদ্যোগ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে। সম্মেলনে লি বলেন, সেনাপ্রধান মিন অং হলাইং, উপ সেনা প্রধান সোয়ে উইন এবং ব্রিগেডিয়ার জেনারেল থান ও এবং অং অং ছাড়াও রোহিঙ্গা নিপীড়ন বিষয়ে ২০১৮ সালে প্রকাশিত জাতিসংঘের তদন্ত প্রতিবেদনে অন্য যে দুইজন সেনা কর্মকর্তার নাম এসেছে তাদের সবাইকে গণহত্যার অভিযোগে বিচারের মুখোমুখি করা উচিত। ২০১৭ সালে মিয়ানমারের কয়েকটি সীমান্তপোস্টে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হামলার পর রাখাইন রাজ্যে সেনা অভিযান শুরু হয়। সেনাবাহিনী ওই অভিযানে সাধারণ মানুষকে হত্যা, ধর্ষণ এবং বাড়িঘরেতে আগুন ধরিয়ে দেয় বলে অভিযোগ রয়েছে। যদিও মিয়ানমার সেনাবাহিনী ওই অভিযোগ অস্বীকার করেছে। সেনা অভিযান শুরু হওয়ার পর প্রাণ বাঁচাতে প্রায় সাড়ে সাত লাখ রোহিঙ্গা মুসলমান পালিয়ে প্রতিবেশী বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। জাতিসংঘ একে ‘জাতিগত নিধন’ বলে বর্ণনা করলেও যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এখনো একে গণহত্যা বলেনি; মিয়ানমারের উপর কঠোর আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে এ স্বীকৃতি প্রয়োজন। এছাড়া স্থায়ী সদস্য চীনের বাধার কারণেও জাতিসংঘ মিয়ানমারের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারছে না।

রোহিঙ্গা সংকট নিরসনে শক্ত অবস্থান নেবে যুক্তরাষ্ট্র

ঢাকা অফিস ॥ যুক্তরাষ্ট্র রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানের পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন চালানোর জন্য মিয়ানমারকে কৈফিয়ত দিতে বাধ্য করতে শক্ত অবস্থান গ্রহণ করবে। যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্্স গত বৃহস্পতিবার মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গুরুত্বপূর্ণ মৌলিক অধিকার লংঘনের বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করতে গিয়ে এই মন্তব্য করেন। গতকাল প্রাপ্ত পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা বলা হয়। পেনস ‘এডভান্সিং রিলিজিয়াস ফ্রিডম’ শীর্ষক দ্বিতীয় মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তৃতা করছিলেন। ওয়াশিংটন ডিসিতে ৪০ জন পররাষ্ট্রমন্ত্রীসহ ১০৬টি দেশের প্রতিনিধিরা এ অনুষ্ঠানে যোগদান করেন। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও-এর আমন্ত্রণে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর আয়োজিত এ বৈঠকে অংশ নেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী পম্পেও তার উদ্বোধনী বক্তৃতায় মার্কিন শীর্ষ পররাষ্ট্রনীতির অগ্রাধিকার সকলের ধর্মীয় স্বাধীনতা নিশ্চিতের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেন তার বক্তৃতায় বাংলাদেশে ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দানে সহায়তার জন্য যুক্তরাষ্ট্র সরকার ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে ধন্যবাদ জানান। বাংলাদেশকে মানবতার দেশ হিসেবে উল্লেখ করে তিনি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি বাংলাদেশ থেকে মিয়ানমারকে তার নাগরিকদের সেদেশে ফিরিয়ে নেয়ার জন্য সেদেশের ওপর চাপ বৃদ্ধির আহ্বান জানান। পররাষ্ট্রমন্ত্রী দেশের জনগণের মৌলিক অধিকারসমূহ নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ সরকারের অঙ্গীকারের বিষয় তুলে ধরেন। ড. মোমেন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশ ধর্মীয় বহুত্ববাদ ও সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের অধিকার সমুন্নত করেছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকার যে কোন প্রকার সহিংসতা ও বৈষম্যের বিরুদ্ধে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি অবলম্বন করছে। তিনি আরো বলেন, অসাম্প্রদায়িক চেতনা ও শান্তিপূর্ণ সহ অবস্থানের নীতির কারণে আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে বাংলাদেশের নজিরবিহীন উন্নতি অর্জিত হয়েছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী সম্মেলনের ফাঁকে হাঙ্গেরী, ইরাক, বাহরাইন ও মাল্টার পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক করেন।

স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যা করে থানায় ধরা দিলেন স্বামী

ঢাকা অফিস ॥ রাজশাহীতে স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যা করে গভীর রাতে থানায় এসে আত্মসমর্পণ করেছেন স্বামী। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে রাজশাহীর পবা উপজেলায় এ ঘটনা ঘটে। শহরের দামকুড়া থানায় ধরা দেওয়া ব্যক্তির নাম রেন্টু আহমেদ ওরফে শরিফুল (৩৬)। তাঁর স্ত্রীর নাম লাভলী বেগম (২৮)। শরিফুলের বাড়ি উপজেলার কলার টিকর গ্রামে। গৃহবধূ লাভলী একই উপজেলার সাইরপুকুর গ্রামের বাবলু মিয়ার মেয়ে। দামকুড়া থানা-পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, প্রথমে শরিফুল ঘুমন্ত স্ত্রীর মাথায় আঘাত করেন। অচেতন হওয়ার পর গলা ও পায়ের রগ কেটে স্ত্রীকে খুন করেন তিনি। এরপর গোসল করে নতুন কাপড় পরে রাত সাড়ে তিনটার দিকে বাড়ি থেকে প্রায় ছয় কিলোমিটার দূরে দামকুড়া থানায় এসে হাজির হন। স্ত্রীকে হত্যার কথা স্বীকার করলে তাঁকে আটক করে পুলিশ। দামকুড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম বলেন, ডিউটি অফিসারের কাছে ঘটনা শুনে প্রথমে লোকটিকে পাগল ভেবেছিলেন তিনি। কিন্তু পরে শরিফুলের কথা অনুযায়ী তাঁর বাড়িতে গিয়ে চৌকির নিচ থেকে চাকু ও রক্তমাখা কাপড় উদ্ধার করে পুলিশ। তিনি আরও বলেন, আত্মসমর্পণের আগে দুই সন্তানের ব্যাপারে ভাইয়ের কাছে একটি চিঠি লিখে রেখে গেছেন শরিফুল। শরিফুলকে আদালতে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন ওসি মাজহারুল ইসলাম। লাভলীর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি। এ ঘটনায় লাভলীর বাবা শরিফুলের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেছেন।

রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির পরিদর্শন করবে আইসিসি প্রতিনিধিদল

ঢাকা অফিস ॥ মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের শরণার্থী শিবির পরিদর্শনের লক্ষে কক্সবাজার পৌঁছেছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিসি) প্রতিনিধি দল। আজ শনিবার তারা রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির পরিদর্শন করবেন বলে জানা গেছে। গতকাল শুক্রবার বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে কক্সবাজার পৌঁছান তারা। শনিবার দুপুরে এ দলটির উখিয়ার রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে যাওয়ার কথা। জানা যায়, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের ওপর গণহত্যাসহ মানবতাবিরোধী অপরাধ সংগঠিত হয়েছে কিনা এ বিষয়ে দেশটির জেনারেলদের বিরুদ্ধে পূর্ণাঙ্গ তদন্ত শুরু করতে পারে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিসি)। এ প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে আইসিসির ডেপুটি প্রসিকিউটর জেমস স্টুয়ার্টের নেতৃত্বে চার সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল রোহিঙ্গাদের পরিস্থিতি পর্যালোচনা ও তাদের সঙ্গে কথা বলতে কক্সবাজার আসেন। কক্সবাজার শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের কার্যালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, কাল শনিবার দুপুরের দিকে আইসিসি প্রতিনিধি দল উখিয়ার রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শনে যাবেন এবং সেখানে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলবেন। রোববার তাদের কক্সবাজার ছেড়ে যাওয়ার কথা। এছাড়াও এ দলটি শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের কার্যালয় ও বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকও করতে পারেন বলে তিনি জানান। এদিকে আইসিসি প্রতিনিধি দলের কক্সবাজার সফর নিয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তর থেকে কঠোর গোপনীয়তা রক্ষা করা হচ্ছে। এমনকি এ দলের সফরসূচি সম্পর্কে গণমাধ্যমকেও বিস্তারিত জানানো হচ্ছে না। এর আগে গত মঙ্গলবার আইসিসির ডেপুটি প্রসিকিউটর জেমস স্টুয়ার্টের নেতৃত্বে চার সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল বাংলাদেশে আসে।

বন্যায় ৪০ লাখের বেশি মানুষ ঝুঁকিতে

ঢাকা অফিস ॥ কয়েক দিনের ব্যাপক বৃষ্টিতে বাংলাদেশের উত্তর ও দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় ৪০ লাখের বেশি মানুষ খাদ্য নিরাপত্তাহীনতা ও রোগের ঝুঁকিতে পড়েছে। গতকাল শুক্রবার ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব রেড ক্রস অ্যান্ড রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটিজ (আইএফআরসি) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ আশঙ্কা প্রকাশ করেছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বন্যা ও ভূমিধসের কারণে সড়ক ও গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামো ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় কয়েকলাখ মানুষ বিদ্যুৎহীন অবস্থায় আটকে পড়েছে। ৬৬ হাজারের বেশি বাড়িঘর ধ্বংস হয়েছে। “খাদ্য ও পরিষ্কার পানির সংকটের সঙ্গে পানিবাহিত রোগ বাড়ার খবরও পাওয়া গেছে।” আইএফআরসির বাংলাদেশ প্রধান আজমত উল্লাহ বলেন, এসব মানুষ মওসুমি বৃষ্টি, বন্যার প্রকোপ ও ভূমিধসের মধ্যে নাকাল হচ্ছে। বৃষ্টি কমলেও উজান থেকে নদীগুলোর উপচেপড়া প্রবাহে সামনের দিনগুলোতে বন্যার অবনতি ঘটাবে। বিস্তৃর্ণ কৃষি অঞ্চলে বন্যায় খাদ্য শস্য নষ্ট হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে, যাতে খাদ্য সংকটের হুমকিও তৈরি হয়েছে। এর ফলে শিশু, প্রসূতি মা, গর্ভবতী মা ও বৃদ্ধরা সবচেয়ে ঝুঁকির মুখে পড়বে বলে শংকা প্রকাশ করা হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে। আইএফআরসি বলছে, বন্যাকবলিত এলাকাগুলোতে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্টের ৬৭৫ জন স্বেচ্ছাসেবী কাজ করছে। তারা খাবার, সুপেয় পানি, পরিচ্ছনতা সরঞ্জাম এবং বন্যায় বা ভূমিধসে বাড়িঘর হারানো মানুষদের মধ্যে তাঁবু বিতরণ করছে। বন্যাদুর্গতদের এর মধ্যেই আইএফআরসি ৪ লাখ ৫২ হাজার ৪৩৯ সুইস ফ্রাঁ (প্রায় ৩ কোটি ৮৯ লাখ টাকা) ছাড় করেছে।

সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের

দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের শোকজ করা হবে

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিভিন্ন নির্বাচনে যারা দলের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে দাঁড়িয়েছে তাদেরকে শোকজ করা হবে। তিন সপ্তাহের মধ্যে তাদেরকে শোকজের জবাব দিতে হবে। জবাব সন্তোষজনক না হলে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ছাড়া যারা বিদ্রোহী প্রার্থীদের ইন্ধন দিয়েছে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে। শুক্রবার সকালে রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। জাতীয় পার্টির রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, জাতীয় পার্টি সংসদের বিরোধী দল। তাদের আসন সংখ্যা অনেক। এরশাদের অবর্তমানে তাদের দলীয় রাজনীতি ও সাংগঠনিক রূপ কী হবে, এটা তাদের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার। বন্যা প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আজকেও জামালপুর ও গাইবান্ধায় আমাদের প্রতিনিধি গেছেন। আমাদের দলীয় টিম বন্যাদুর্গত এলাকায় যাচ্ছে। কেন্দ্রীয়ভাবে প্রত্যেক স্থানে ত্রাণ পাঠানো হচ্ছে। স্থানীয়ভাবেও নেতাকর্মীদের ত্রাণ দেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক প্রকৌশলী আবদুস সবুর, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, উপদফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় সদস্য এসএম কামাল হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আদালতে রিফাত হত্যার স্বীকারোক্তি দিলেন মিন্নি

ঢাকা অফিস ॥ বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন মামলার প্রধান সাক্ষী ও নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি। পাঁচদিনের রিমান্ডের দু’দিন শেষে মিন্নিকে গতকাল শুক্রবার দুপুরে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে পুলিশ। পরে আদালতের বিচারক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজীর কাছে রিফাত হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দেন মিন্নি। স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি শেষে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এ বিষয়ে রিফাত হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও বরগুনা সদর থানা পুলিশের ওসি (তদন্ত) মো. হুমায়ুন কবির বলেন, মিন্নি রিফাত হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন। জবানবন্দি গ্রহণ শেষে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এর আগে গত মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বরগুনার মাইঠা এলাকার বাবার বাসা থেকে বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোরসহ মিন্নিকে জিজ্ঞাসাবাদ ও তার বক্তব্য রেকর্ড করতে বরগুনা পুলিশ লাইন্সে নিয়ে যায় পুলিশ। এরপর দীর্ঘ ১০ ঘণ্টার জিজ্ঞাসাবাদ ও বিভিন্ন মাধ্যম থেকে পাওয়া তথ্য-উপাত্ত পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে বিশ্লেষণ ও পুলিশের কৌশলী এবং বুদ্ধিদীপ্ত প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে আটকে যান মিন্নি। বেরিয়ে আসে হত্যাকান্ডে তার সম্পৃক্ততার প্রমাণ। এরপরই তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এরপর বুধবার বিকেল ৩টার দিকে বরগুনার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মিন্নিকে হাজির করে সাতদিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। শুনানি শেষে মিন্নির পাঁচদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালতের বিচারক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজী। পরদিন বৃহস্পতিবার বরগুনার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন জানিয়েছিলেন, মঙ্গলবার দিনভর জিজ্ঞাসাবাদ ও বুধবার রিমান্ড মঞ্জুরের পর পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে রয়েছেন আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি। ইতোমধ্যে মিন্নি স্বামী রিফাত শরীফ হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন। এ হত্যার পরিকল্পনার সঙ্গেও তিনি যুক্ত ছিলেন। আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় এখন পর্যন্ত ১৬ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এদের মধ্যে মিন্নিসহ ১৩ জন অভিযুক্ত রিফাত হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। এছাড়া এ মামলার দুজন অভিযুক্ত রিমান্ডে রয়েছেন। আর এ মামলার প্রধান অভিযুক্ত নয়ন বন্ড বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন।

 

লন্ডনের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঢাকা ত্যাগ

ঢাকা অফিস ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল শুক্রবার সকালে যুক্তরাজ্যে সরকারী সফরে লন্ডনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেছেন। প্রধানমন্ত্রী এবং তাঁর সফরসঙ্গীদের বহনকারী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইট সকাল ৯টা ৩৫ মিনিটে লন্ডনের উদ্দেশে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করে। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম, জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটন, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী এবং ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান। একইসঙ্গে মন্ত্রী পরিষদ সচিব, সেনাবাহিনী প্রধান ও নৌবাহিনী প্রধান, বিমানবাহিনীর ভারপ্রাপ্ত প্রধান, ডিপে¬ামেটিক কোরের ডিন, বাংলাদেশে ব্রিটেনের হাইকমিশনার এবং পদস্থ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তাবৃন্দ এ সময় উপস্থিত ছিলেন। ফ্লাইটটির লন্ডন স্থানীয় সময় আজ বিকেল ৩টা ৫৫ মিনিটে হিথরো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণের কথা রয়েছে। লন্ডনে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনীম বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাবেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রেসসচিব ইহসানুল করিম বলেন, ‘সফরকালে প্রধানমন্ত্রী ২০ জুলাই লন্ডনে ইউরোপের দেশগুলোতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতদের একটি সম্মেলনে যোগ দেবেন।’ প্রেসসচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশী ডাক্তারদের পরামর্শ অনুযায়ী লন্ডনে চোখের চিকিৎসাও গ্রহণ করবেন। প্রেসসচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রী আগামী ৫ আগস্ট দেশে ফিরবেন বলে আশা করা হচ্ছে।