নাদালকে হারিয়ে উইম্বলডনের ফাইনালে ফেদেরার, প্রতিপক্ষ জকোভিচ

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ দীর্ঘদিনের প্রতিদ্বদ্বী রাফায়েল নাদালকে পরাজিত করে রেকর্ড ১২তম উইম্বলডন টেনিসের ফাইনালে উঠেছেন রজার ফেদেরার। ২০০৮ সালে সর্বশেষ অল ইংল্যান্ড ক্লাবের ফাইনালে স্প্যানিশ তারকা নাদালকে পরাজিত করেছিলেন ফেদেরার। যে ম্যাচটিকে উইম্বলডনের ইতিহাসে অন্যতম সেরা ম্যাচ হিসেবে এখনো বিবেচনা করা হয়। ৩৭ বছর বয়সী ফেদেরার গতকাল ৭-৬ (৭/৩), ১-৬, ৬-৩, ৬-৪ গেমে নাদালকে পরাজিত করে ফাইনাল নিশ্চিত করেন। যেখানে তার জন্য অপেক্ষায় আছেন বর্তমান চ্যাম্পিন নোভাক জকোভিচ। এই নিয়ে ফেদেরার-নাদাল একে অপরের বিপক্ষে ৪০তম ম্যাচে মুখোমুখি হলেন। আটবারের চ্যাম্পিয়ন ফেদেরার এই নিয়ে ৩১তম ফাইনালে উত্তীর্ণ হলেন। এদিকে শীর্ষ বাছাই ও চার বারের বিজয়ী জকোভিচ ক্যারিয়ারের ষষ্ঠ উইম্বলডন ফাইনাল ও ২৫তম মেজর ফাইনালের পথে স্পেনের ২৩তম রবার্তো বাতিস্তা আগুতকে ৬-২, ৪-৬, ৬-৩, ৬-২ গেমে পরাজিত করেছেন। ম্যাচ শেষে ফেদেরার বলেন, ‘আমি সত্যিই হাঁপিয়ে উঠেছিলাম। শেষের দিকে ম্যাচটা বেশ কঠিন ছিল। ম্যাচে টিকে থাকার জন্য রাফা অবিশ্বাস্য কিছু শট খেলেছে। রাফার সাথে লড়াইটা সবসময়ই বিশেষ কিছু। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে কিছু কিছ লম্বা র‌্যালি বেশ কষ্টকর ছিল।’৩৯ বছর বয়সী কেন রোসওয়াল ১৯৭৪ সালে উইম্বলডন ও ইউএস ওপেনের ফাইনালে খেলার পর তৃতীয় বয়ষ্ক খেলোয়াড় হিসেবে গ্র্যান্ড ¯¬্যামের ফাইনাল নিশ্চিত করেছেন সুইস সেনসেশন। ১৫বারের ¯¬্যাম বিজয়ী জকোভিচের সাথে ফাইনালে লড়াইয়ে টিকে থাকতে হলে ফেদেরারকে বেশ কঠিন পরীক্ষার মোকাবেলা করতে হবে। এ পর্যন্ত দু’জনের মোকাবেলায় জকোভিচ ২৫-২২ ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন।ফেদেরার বলেন, নোভাক বর্তমান চ্যাম্পিয়ন এবং চলতি সপ্তাহে তিনি সেটা প্রমাণ করেছেন। আমি নিজের সেরাটা দেবার চেষ্টা করবো। তবে নাম্বার ওয়ান খেলোয়াড়ের বিপক্ষে খেলাটা মোটেই সহজ নয়। ফাইনালে নামার জন্য আমি মুখিয়ে আছি।মাত্র এক মাস আগেই ফ্রেঞ্চ ওপেনের সেমিফাইনালে ১১ বছরের মধ্যে নাদালের কাছে সবচেয়ে বাজে পরাজয়ের লজ্জা পেয়েছিলেন ফেদেরার। গতকাল ৫১ মিনিটে প্রথম সেটে নাদাল আট গেমে মাত্র একটি ব্রেক পয়েন্ট রক্ষা করছিলেন। টাই-ব্রেকে ফেদেরার টানা পাঁচ পয়েন্ট জয় করে প্রথম সেটটি নিজের করে নেন। দ্বিতীয় সেটের চতুর্থ গেমে নাদাল প্রথম ব্রেক পয়েন্ট অর্জণ করেন। এরপর আবারো ব্রেক পয়েন্ট আদায় করে ৫-১ ব্যবধানে এগিয়ে যান। ১৯৯১ সালে ইউএস ওপেনে জিমি কনর্সের পর সবচেয়ে বেশি বয়সী খেলোয়াড় হিসেবে গ্র্যান্ড ¯¬্যামের সেমিফাইনালে খেলতে নামা ফেদেরার তৃতীয় সেটের চতুর্থ গেমে ব্রেক পান। এরপর তিনটি ব্রেক পয়েন্ট বাঁচিয়ে ৪-১ ব্যবধানে এগিয়ে যান। চতুর্থ সেটে নাদাল মূলত দাঁড়াতেই পারেননি। নবম

 

সংসদীয় বিশ্বকাপ ক্রিকেটে রানার্স-আপ বাংলাদেশ

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ বিশ্বকাপ খেলা দেশুগুলোর সংসদ সদস্যদের নিয়ে প্রথমবারের মত ইংল্যান্ডে আয়োজিত ইন্টার-পার্লামেন্টারি বিশ্বকাপে রানার্স-আপ হতে হলো বাংলাদেশের সংসদীয় দলকে। গতকাল কেন্ট ক্রিকেট কাউন্টি ক্লাব মাঠে অনুষ্ঠিত ফাইনালে পাকিস্তানের কাছে ৯ উইকেটে হেরে শিরোপা হাতছাড়া করে বাংলাদেশ। গ্রুপ পর্বের ম্যাচে এই পাকিস্তানকে ১৩ রানে হারিয়েছিলো দূর্জয়ের দল। শিরোপা নির্ধারনী ম্যাচে প্রথমে আগে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১০৪ রান করে বাংলাদেশ সংসদীয় দল। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ১১ দশমিক ৪ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে ১০৫ রান তুলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে পাকিস্তান। গত বুধবার (১০ জুলাই) চলমান দ্বাদশ বিশ্বকাপের আয়োজক দেশ ইংল্যান্ডের মাঠে গড়ায় ইন্টার পার্লামেন্টারি বিশ্বকাপ বা আন্তঃসংসদীয় বিশ্বকাপ। স্বাগতিক ইংল্যান্ডসহ এই ইন্টার পার্লামেন্টারি ক্রিকেট বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করছে মোট আটটি দেশ। বাকি দেশগুলো হলো- বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা ও আফগানিস্তান। দুই গ্রুপে ভাগ হয়ে ‘এ’ গ্রুপে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, ভারত ও আফগানিস্তান। আর বি’ গ্রুপে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ছিলো নিউজিল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা ও পাকিস্তান। টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ দলকে নেতৃত্ব দেবেন জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক ও প্রথম টেস্ট ক্যাপ্টেন নাঈমুর রহমান দুর্জয়। এছাড়াও বাংলাদেশ দলে রয়েছেন শেখ তন্ময়, নাহিম রাজ্জাক, আবদুল¬াহ আল ইসলাম জ্যাকব, মুজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন, জুনায়েদ আহমেদ পলক ও মোহাম্মদ আয়েন উদ্দিন মতো জনপ্রিয় তরুণ এমপিরা। ৬ ওভারের অভিনব টুর্নামেন্টের ধারণাটি এসেছে ব্রিটেনের সংসদ সদস্য ক্রিস হিটন-হ্যারিসের পরিকল্পনায়। গত শীত মৌসুমে অস্ট্রেলীয় সংসদ সদস্যদের সঙ্গে একটি ম্যাচ খেলার সময়ই এ টুর্নামেন্টের কথা ভেবে রেখে রাখেন হিটস-হ্যারিস।

ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ-অ্যাশেজ জিতলেও দায়িত্ব ছাড়বেন কোচ বেলিস

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ মনস্থির করে ফেলেছেন ট্রেভর বেলিস। বিশ্বকাপ ফাইনাল আর আসন্ন টেস্ট সিরিজে ফল যাই হোক অ্যাশেজ শেষেই দায়িত্ব ছাড়বেন ইংল্যান্ডের প্রধান কোচ। আজ রোববার লর্ডসে বিশ্বকাপের ফাইনালে নিউ জিল্যান্ডের মুখোমুখি হবে ইংল্যান্ড। এরপর নিজেদের মাটিতে খেলবে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পাঁচ টেস্টের সিরিজ। ২০১৫ সাল থেকে ইংল্যান্ডের প্রধান কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন বেলিস। গত বছর দলকে নিয়ে যান আইসিসি ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে। সেপ্টেম্বর পর্যন্ত রয়েছে তার চুক্তির মেয়াদ। পঞ্চম ও শেষ টেস্ট শুরু হবে ১২ সেপ্টেম্বর। বিসিবি রেডিওকে বেলিস জানান, দা ওভালের ওই ম্যাচ দিয়েই ইতি টানবেন তিনি। “আমি সব সময়ই বিশ্বাস করে এসেছি, চার কিংবা পাঁচ বছর ভালো করছেন, না করছেন না তা দেখার জন্য যথেষ্ট দীর্ঘ সময়। এখন ছেলেদের নতুন কণ্ঠ শোনার সময়। আশা করি, সেটা ওদের অন্য পর্যায়ে নিয়ে যাবে।” “চার বছর আগে, গত বিশ্বকাপটা ইংল্যান্ডের ভালো কাটেনি। ওই আসরের পর আমরা ২০১৯ আসরের শিরোপা জেতার জন্য পরিকল্পনা করেছিলাম। এটা দারুণ একটা অনুভূতি যে, সেই স্বপ্ন পূরণের একটা সম্ভাবনা এখন আমাদের সামনে রয়েছে।” বার্মিংহামের এজবাস্টনে বৃহস্পতিবার অস্ট্রেলিয়াকে ৮ উইকেটে হারিয়ে ২৭ বছর পর বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠে ইংল্যান্ড। তিনবারের রানার্সআপদের সামনে প্রথম শিরোপার হাতছানি। ৫৬ বছর বয়সী অস্ট্রেলিয়ান কোচের আশা ইংল্যান্ডের লম্বা অপেক্ষার অবসান ঘটবে এবার।

“ম্যাচ শেষে আমরা চেঞ্জিং রুমে কথা বলেছি এবং উপলব্ধি করেছি, এখনও আমরা কিছু জিতিনি। ‘তোমরা ফেভারিট’ এমন প্রচুর কথা হবে এখন, আমরা এর কোনোটাতেই কান দিতে পারি না।” বিশ্বকাপ শেষে ২৪ জুলাই শুরু হবে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ইংল্যান্ডের একমাত্র টেস্ট। এরপর ১ অগাস্ট এজবাস্টন টেস্ট দিয়ে শুরু হবে ক্রিকেটের সবচেয়ে পুরনো দুই প্রতিদ্বন্দ্বীর মর্যাদার সিরিজ, অ্যাশেজ।

ফাইনালেও আক্রমণাত্মক মানসিকতা ধরে রাখতে চান আর্চার

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ সেমি-ফাইনালে জফরা আর্চারের বাউন্সারে রক্তাক্ত হয়েছিলেন অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যান অ্যালেক্স কেয়ারি। বিশ্বকাপের ফাইনালেও যে এমনটা হবে না তার নিশ্চয়তা দিচ্ছেন না ইংলিশ পেসার। জানিয়েছেন, নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে আক্রমণাত্মক মানসিকতা ধরে রাখবেন। সেমি-ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে নতুন বলে আগুন ঝরান আর্চার। ইনিংসের দ্বিতীয় আর নিজের প্রথম ওভারের প্রথম বলেই শূন্য রানে ফেরান টুর্নামেন্টে পাঁচশর বেশি রান করা অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চকে। তার দারুণ এক বাউন্সার অ্যালেক্স কেয়ারির হেলমেটের নিচ দিয়ে থুতনিতে ছোবল দেয়। রক্ত মুছে ব্যান্ডেজ বেঁধে খেলতে হয় উইকেট-কিপার ব্যাটসম্যানকে। পরে থুতনিতে দিতে হয় ছয়টা সেলাই। রোববার লর্ডসে শিরোপার লড়াইয়ে কিউইদের মুখোমুখি হবে ইংল্যান্ড। ব্যাটসম্যানদের আঘাত করার ইচ্ছা না থাকলেও গতি আর বাউন্সে নিজের কাজটা করে যেতে চান আর্চার। “আপনি সবসময় তাদের আঘাত করতে চাইবেন না। এটা হতে পারে একটা উইকেট-নেওয়ার মতো বল বা ডট বল। যখন এটা তাদেরকে আঘাত করে, এমনটা করার জন্য আপনি কিছুটা খারাপ অনুভব করেন। কিন্তু এটাই ক্রিকেট। আর সে আঘাত পাওয়া শেষ ব্যক্তি হবে তেমনটা আমি মনে করি না।” নিয়মিত দারুণ গতিতে বল করে যাওয়ার জন্য পরিচিত আর্চার সেমি-ফাইনালে দারুণ এক স্লোয়ারে ফেরান গে¬ন ম্যাক্সওয়েলকে। অন্যান্য বৈচিত্র্যের পাশাপাশি শর্ট বলকে সবসময় নিজের গুরুত্বপূর্ণ একটা অস্ত্র বলে মনে করেন ২৪ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার। “প্রতিটা ওভারে যে কোনোভাবেই আমি বরাদ্দ দুটো বাউন্সার ব্যবহার করার চেষ্টা করি। এটা শুধু আগে থেকে ঠিক করা কোনো পরিকল্পনা ছিল না। আমি সবসময় এটা করি।” কেয়ারি আহত হওয়ার পর আর্চারের ২০১৩ সালে করা একটি টুইট আলোচনায় আসে। সেখানে তিনি বলেছিলেন, “সব ব্যাটসম্যান দুটো করে হেলমেট কিনুন কারণ যখন আমাদের দেখা হবে, তখন সেগুলো কাজে লাগবে।” তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ নিয়ে আলোচনাকে খুব বেশি গুরুত্ব দিতে চান না আর্চার। “আমি এটা দেখেছি কিন্তু কেন এটা একটা বড় ব্যাপার হওয়া উচিত তা আমি জানি না। এটা শুধুই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম।”