অভিনন্দনকে ব্যঙ্গ করে বিশ্বকাপের বিজ্ঞাপন পাকিস্তানের

ঢাকা অফিস ॥ ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে উত্তেজনা আবারো তুঙ্গে। তবে এবার বিমান হানা নিয়ে নয় বরং ক্রিকেট নিয়ে। আগামী ১৬ জুন রোববার অনুষ্ঠিত হবে ভারত-পাকিস্তানের ক্রিকেট ম্যাচ। এ ম্যাচকে ঘিরে ক্রিকেটপ্রেমীদের উত্তেজনা তুঙ্গে থাকার সময়টিতেই পাকিস্তানের একটি টিভি চ্যানেল ভারতের সেই পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে ব্যঙ্গ করে বিশ্বকাপের জন্য একটি বিজ্ঞাপন বানিয়েছে। গত ২৭ ফেব্র“য়ারি ভারতের আকাশসীমা লঙ্ঘনকারী পাকিস্তানের যুদ্ধবিমানকে ধাওয়া করতে গিয়ে পাকিস্তানের মাটিতে পড়েছিলেন ভারতীয় বিমান বাহিনীর উইং কমান্ডার অভিনন্দন। পাকিস্তানের হাতে ধরা পড়ার পর এই অভিনন্দনকে ‘শান্তির নিদর্শন’ হিসাবে ভারতের কাছে ফেরত দেয় ইমরান খান সরকার। বিবিসি জানায়, পাকিস্তানি সেনাদের সঙ্গে অভিনন্দন যেভাবে আলাপ করেছিলেন বিজ্ঞাপনটি সেভাবেই বানানো হয়েছে। অভিনন্দন বর্তমানের মতো চায়ের কাপ হাতে মোচওয়ালা এক ব্যক্তিকেই বিজ্ঞাপনে দেখানো হয়েছে। তার পরনে ছিল ক্রিকেট জার্সি। অভিনন্দনের আসল ভিডিও’র মত এ বিজ্ঞাপনে যে ব্যক্তিকে দেখানো হয়েছে তাকেও ‘জিজ্ঞাসাবাদ’ করতেই দেখা গেছে। তবে এই জিজ্ঞাসাবাদের বিষয় ছিল ক্রিকেট নিয়ে। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ভারতের দল আর স্ট্র্যাটেজি কী হবে এসব বিষয় নিয়েই বিজ্ঞাপনের সেই চরিত্রকে প্রশ্ন করা হয়। অভিনন্দন যেমন প্রশ্নের উত্তর দিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে বলেছিলেন,“সরি, আই অ্যাম নট সাপোজড টু টেল ইউ সার।” বিজ্ঞাপনেও তেমনি বারবার শোনা গেছে ওই একটাই সংলাপ, “সরি, আই অ্যাম নট সাপোজড টু টেল ইউ সার।” বিজ্ঞাপনটির শেষে দেখা যায়, ওই ব্যক্তি বেরিয়ে যাচ্ছিলেন হাতে ওই চায়ের কাপ নিয়ে। তখনই পিছন থেকে তাকে কেউ থামিয়ে কাপটি রেখে যেতে বলে। এ বিজ্ঞাপন প্রচারের পরই ক্ষেপে উঠেছেন ভারতীয়রা। স্যোশাল মিডিয়ায় এ ঘটনাটিকে কান্ডজ্ঞানহীন এবং লজ্জাজনক বলে এর নিন্দা জানানো হয়েছে।

পাকিস্তানের আকাশপথ ব্যবহার করবেন না মোদী, জানাল ভারত

ঢাকা অফিস ॥ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর জন্য আকাশসীমা ব্যবহারের সম্মতি দিয়েছিল পাকিস্তান। কিন্তু ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, পাক আকাশপথ ব্যবহার করবেন না মোদী। ঘুরপথে মোদী যাবেন কিরঘিজস্তানের বিশকেকে আয়োজিত শাংহাই কোঅপারেশন অর্গানাইজেশন (এসসিও) সম্মেলনে যোগ দিতে। পাকিস্তানের আকাশসীমা এড়িয়েই উড়বে তার বিমান। ওমান এবং ইরান হয়ে বিশকেক পৌঁছবেন তিনি। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রবীশ কুমার বুধবার জানিয়েছেন, ‘‘বিশকেক যাওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর ভিভিআইপি বিমানের দু’টি যাত্রাপথের কথা ভেবেছিল সরকার। তবে এখন ওমান, ইরান এবং মধ্য এশিয়ার দেশগুলো হয়েই ভিভিআইপি বিমান উড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’’ আগামী ১৩-১৪ জুন বিশকেকে এসসিও সম্মলেনে অংশ নেবেন ভারত এবং পাকিস্তান, দুই দেশের রাষ্ট্রনেতারাই। কিরঘিজস্থান যেতে হলে পাকিস্তানের আকাশপথ হয়ে যাওয়া সহজ। কিন্তু পাকিস্তানের বালাকোটে ভারতের বিমান হানার পর থেকে দেশটি তাদের আকাশপথ ভারতের ব্যবহারের জন্য পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়। ফলে, সম্প্রতি ইসলামাবাদকে তাদের আকাশসীমা খুলে দেওয়ার বিশেষ অনুরোধ জানিয়েছিল দিলি¬, যাতে মোদীর বিমান যেতে পারে। পাকিস্তানও সে অনুরোধ মেনে মোদীর বিমানের জন্য বিশেষ সম্মতি দিয়েছিল। তারপরও পাক আকাশসীমা এড়িয়েই কিরঘিজস্তান যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদী।

সিআইসিএ পঞ্চম সম্মেলনে যোগ দিতে তাজিকিস্তান গেলেন রাষ্ট্রপতি

ঢাকা অফিস ॥ এশিয়ার ২৭টি দেশ নিয়ে অনুষ্ঠেয় ‘কনফারেন্স অন ইন্টারেকশন অ্যান্ড কনফিডেন্স বিল্ডিং মেজারস ইন এশিয়ার (সিআইসিএ) পঞ্চম সম্মেলনে যোগ দিতে তাজিকিস্তান গেলেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের উড়োজাহাজ ‘হংসবলাকা’র বিশেষ ফ্লাইটে রাষ্ট্রপতি তাজিকিস্তানের রাজধানী দুশানবের উদ্দেশে ঢাকা ছাড়েন। হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে রাষ্ট্রপতিকে বিদায় জানান মুক্তিযুদ্ধবিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হকসহ ঊধ্বতন সরকারি কর্মকর্তারা। রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব মো. জয়নাল আবেদীন বলেন, সম্মেলেনে এশিয়ার বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানরা যোগ দেবেন। মূল সম্মেলনের বাইরে বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানদের সঙ্গে রাষ্ট্রপতির বৈঠক হতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে। এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে শান্তি, নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা প্রসারে কাজ করে সিআইসিএ। কাজাখস্তানের রাজধানী নুর সুলতানে এই সংস্থার সদর দপ্তর অবস্থিত। বর্তমানে ২৭টি দেশ এই সংস্থার সদস্য। সদস্য দেশগুলো হলো- আফগান্স্তিান, আজারবাইজান, বাহরাইন, বাংলাদেশ, কম্বোডিয়া, চায়না, মিশর, ভারত, ইরান, ইরাক,ইসরাইল, জর্ডান, কাজাখস্তান, কিরগিজস্তান, মঙ্গোলিয়া, পাকিস্তান, ফিলিস্তিন, কাতার, দক্ষিণ কোরিয়া, রাশিয়া, শ্রীলঙ্কা, তাজিকিস্তান, থাইল্যান্ড, তুরস্ক, সংযুক্ত আরব আমিরাত, উজবেকিস্তান ও ভিয়েতনাম। এছাড়া বেলারুশ, ইন্দোনেশিয়া, জাপান, লাওস, মালয়েশিয়া, ফিলিপিন্স, ইউক্রেইন এবং যুক্তরাষ্ট্র এর পর্যবেক্ষক হিসেবে রয়েছে। জাতিসংঘ ছাড়াও আন্তর্জাতিক অভিবাসনসংস্থা-আইওএম, লিগ অব আরব স্টেটস, অর্গানাইজেশন ফর সিকিউরিটি অ্যান্ড কোঅপারেশন ইন ইউরোপ, পার্লামেন্টারি অ্যাসেম্বলি অব দ্যা টার্কিক স্পিকিং কান্ট্রিজ এরসিআইসি’র পর্যবেক্ষক। এশিয়াভিত্তিক এই সংস্থার বর্তমান সভাপতির দায়িত্বে আছে তাজিকিস্তান। ১৯৯২ সালে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে এই সংস্থা প্রতিষ্ঠার প্রথম প্রস্তাব করে কাজাখস্তানের প্রেসিডেন্ট নুর সুলতান নাজারবায়েভ। এর প্রথম সম্মেলন হয় ২০০২সালে। ২০১৪ সালে বাংলাদেশ এই ফোরামের সদস্য হয়। প্রেস সচিব জানান, দুশানবেতে সম্মেলন শেষে রাষ্ট্রপতি উজবেকিস্তান সফর করবেন। সফর শেষে ১৯ জুন দেশে ফেরার কথা রয়েছে আবদুল হামিদের।

দুই রোহিঙ্গার পেটে ৯ হাজার ইয়াবা

ঢাকা অফিস ॥ হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রায় ৯ হাজার পিস ইয়াবাসহ দুই রোহিঙ্গাকে আটক করেছে বিমানবন্দর আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন)। যদিও আটককৃতদের কাছে বাংলাদেশি জাতীয় পরিচয়পত্র মিলেছে। জব্দকৃত জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য অনুযায়ী, আটক দুই রোহিঙ্গা হলেন- নজরুল ইসলাম (৪৬) ও মোহাম্মদ জোবায়ের (২২)। বুধবার (১২ জুন) দিবাগত রাত ৯টার দিকে তাদের আটক করা হয় বলে নিশ্চিত করেছেন বিমানবন্দর আর্মড পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপস অ্যান্ড মিডিয়া) আলমগীর হোসেন। তিনি বলেন, বুধবার রাতে বিমানবন্দরের অভ্যন্তরীণ টার্মিনালের বহিরাঙ্গনে সন্দেহজনকভাবে ঘোরাফেরা করছিলেন দুই ব্যক্তি। সন্দেহ হওয়ায় এপিবিএন সদস্যরা তাদের ডেকে নেন। জিজ্ঞাসাবাদে তারা বিভ্রান্তিকর তথ্য দেয়। পরবর্তীতে নজরুল ইসলাম ও মোহাম্মদ জোবায়ের নামে ওই দুজনকে হেফাজতে নিয়ে তল্লাশি ও বিশদ জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তখন দুজনই স্বীকার করেন, তারা পেটের ভেতর ইয়াবা বহন করছেন। প্রায় ৯ হাজার ইয়াবা কালো টেপ দিয়ে প্যাঁচানো অবস্থায় গিলে পেটে ঢোকানো হয়েছে বলেও জানান তারা। এপিবিএনের এ কর্মকর্তা আরও বলেন, অনেক আগে বাংলাদেশে অবস্থান নেয়া নজরুল ইসলাম ও মোহাম্মদ জোবায়ের ওষুধ কোম্পানিতে চাকরিও করেছেন। সেই সুবাদে রাঙ্গুনিয়ার লক্ষ্মীরখিল এলাকায় বসবাস করে আসছিলেন তারা। আর সেই ঠিকানা ব্যবহার করেই তারা বাংলাদেশের জাতীয় পরিচয়পত্র সংগ্রহ করেন। দুজনের বিরুদ্ধে বিমানবন্দর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়েরপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

ব্যাংক থেকে ৪৭ হাজার ৩৬৪ কোটি টাকা ঋণ নিতে চায় সরকার

ঢাকা অফিস ॥ নতুন (২০১৯-২০) অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে ঘাটতি ধরা হয়েছে এক লাখ ৪৫ হাজার ৩৮০ কোটি টাকা। বিশাল ঘাটতি মেটাতে এবার ব্যাংক থেকে ৪৭ হাজার ৩৬৪ কোটি টাকা ঋণ নিতে চায় সরকার। গতকাল বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে নতুন অর্থবছরের জন্য পাঁচ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার বাজেট পেশ করার সময় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এ তথ্য জানান। প্রস্তাবিত বাজেটে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে তিন লাখ ৭৭ হাজার ৮১০ কোটি টাকা এবং ব্যয় ধরা হয়েছে তিন লাখ ১০ হাজার ২৬২ কোটি টাকা। আয়-ব্যয়ের বিশাল পার্থক্যের কারণে এবার বাজেট ঘাটতিও অন্য যেকোনও সময়ের চেয়ে বেশি। ২০১৯-২০ অর্থবছরে অনুদান ছাড়া বাজেট ঘাটতি দাঁড়াতে পারে এক লাখ ৪৫ হাজার ৩৮০ কোটি টাকা। এই ঘাটতি মেটাতে বিদেশ থেকে ঋণ নেওয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছে ৬৩ হাজার ৮৪৮ কোটি টাকার। আর ব্যাংক থেকে সরকার ৪৭ হাজার ৩৬৪ কোটি টাকা ঋণ নিতে চায়। এছাড়া, জাতীয় সঞ্চয়পত্র থেকে নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২৭ হাজার কোটি টাকা। অর্থনীতিবিদরা বলছেন, সরকার অভ্যন্তরীণ ব্যাংক খাত থেকে ঋণ না নিয়ে কম সুদে বৈদেশিক ঋণ সুবিধা গ্রহণ করতে পারতো। তাতে উন্নয়ন খাতে বরাদ্দ বেশি রাখা সম্ভব হতো। তারা বলছেন, সরকার যদি ব্যাংক থেকে ৪৭ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেয় তাহলে বেসরকারি খাত চাহিদা অনুযায়ী ঋণ পাবে না। এ প্রসঙ্গে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, বর্তমানে ব্যাংকে তারল্য সংকট রয়েছে। এখন যদি সরকার ৪৭ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেয় তাহলে বেসরকারি খাত চাপে পড়বে। সরকার ব্যাংক খাত থেকে আরও ঋণ নিলে ব্যাংকিং খাতে আরও তারল্য সংকট তৈরি হবে। তাতে নতুন করে ব্যাংখগুলো ঋণ দেওয়ার সক্ষমতা হারাবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৮-১৯ অর্থবছরের শুরু থেকে ২৬ মে পর্যন্ত ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে সরকারের নিট ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে প্রায় ১৪ হাজার কোটি টাকা। অনেকেই বলছেন, অর্থবছরের শেষ সময়ে সরকারের উন্নয়ন কর্মকা-ের গতি বৃদ্ধি এবং রাজস্ব আদায় আশানুরূপ না হওয়ায় সরকারের ঋণ বেড়েছে। গত অর্থবছর শেষে ব্যাংক খাতে সরকারের ঋণস্থিতি ছিল ৮৮ হাজার ২৫৮ কোটি টাকা। চলতি অর্থবছরের ২৬ মে মাসে এর পরিমাণ দাঁড়ায় ১ লাখ ২ হাজার ২০৮ কোটি টাকায়। চলতি অর্থবছরের ২৬ মে পর্যন্ত সরকারের নিট ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৩ হাজার ৯৫০ কোটি টাকা। এরমধ্যে বাণিজ্যিক ব্যাংক থেকে সরকার নিয়েছে ৮ হাজার ৩৮৭ কোটি টাকা। আর বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে নিয়েছে ৫ হাজার ৫৬৩ কোটি টাকা। সব মিলিয়ে ব্যাংক ব্যবস্থায় সরকারের মোট ঋণস্থিতির মধ্যে বাণিজ্যিক ব্যাংকে রয়েছে ৭২ হাজার ৯৯৯ কোটি টাকা। আর বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ২৯ হাজার ২০৯ কোটি টাকা। সরকার ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে বিল ও বন্ডের মাধ্যমে ঋণ নেয়। ৯১ দিন, ১৮২ দিন ও ৩৬৪ দিন মেয়াদি বিলের মাধ্যমে ঋণ নেয়, যা স্বল্পমেয়াদি ঋণ হিসেবে বিবেচিত। এ ক্ষেত্রে বর্তমানে সুদ হার রয়েছে সাড়ে ৪ থেকে ৫ শতাংশের মতো। আর বন্ডের মাধ্যমে সরকার ২ বছর, ৫ বছর, ১০ বছর, ১৫ বছর ও ২০ বছর মেয়াদি ঋণ নেয়। বর্তমানে সরকারকে এসব ব্যাংকের সুদ হার বাবদ ৬ দশমিক ৩২ থেকে ৮ শতাংশ ব্যয় করতে হয়।

 

সহজ শর্ত রেখে নতুন আমদানি নীতি করতে যাচ্ছে সরকার

ঢাকা অফিস ॥ সরকার আমদানি নীতি আরো সহজ করতে যাচ্ছে। প্রতি ৩ বছর পর পর আমদানীতি নবায়ন (রিনিউ) করা হয়। দেশের অবস্থা, পণ্য এবং বৈদেশিক বাণিজ্য বিবেচনা করে নতুন আদেশে সংযোজন-বিয়োজন করা হয়। সর্বশেষ ২০১৫-১৮ মেয়াদের জারি করা আমদানি নীতির মেয়াদ ২০১৮ সালের ৩০ জুন শেষ হয়। তবে নতুন আদেশ জারি না হওয়া পর্যন্ত আগের নীতি কার্যকর থাকে। আমদানি নীতি আদেশ, ২০১৮-২০২১ অর্থনৈতিক সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির অনুমোদনের পর এখন আইন মন্ত্রণালয়ে ভেটিংয়ের জন্য পাঠানো হবে। তারপর প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। তারপর বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ওই নীতি কার্যকর করতে আদেশ জারি করবে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়। সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, রফতানিমুখী শিল্পের কাঁচামাল আমদানিতে বন্ডেড সুবিধাসহ আরো সহজ শর্ত রেখে সরকার নতুন আমদানি নীতি করতে যাচ্ছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের নতুন আমদানি নীতি আদেশ সম্প্রতি অর্থনৈতিক মন্ত্রিসভা কমিটিতে অনুমোদনের জন্য উঠেছিল। তবে কমিটির আহ্বায়ক অর্থমন্ত্রী দেশের বাইরে থাকায় কৃষিমন্ত্রীর সভাপতিত্বে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত বৈঠকে আমদানি নীতিতে সরকারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মতামত শোনা হয়। সূত্র জানায়, বৈদেশিক বাণিজ্যের ক্ষেত্রে এলসি খোলা হয়ে থাকে। যখন রিজার্ভ কম থাকে, তখনো এলসি খোলার প্রয়োজন হয়। আর তা খুলতে অনেক ফরম পূরণ করতে হয়, যা জোগান দিতে ব্যবসায়ীদের বেশ বেগ পেতে হয়। যা ডুয়িং বিজনেসের ক্ষেত্রে অন্তরায়। এখন রিজার্ভ ভাল। তাই এখন ফরম পূরণের জটিলতা কমিয়ে আনা হবে। বিশেষ করে এলসি খোলার ক্ষেত্রে কিছু বিষয়ে শিথিল করা হচ্ছে।

এদিকে নতুন আমদানী নীতি প্রসঙ্গে অর্থনৈতিক মন্ত্রিসভা কমিটিতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোসাম্মৎ নাসিমা খাতুন জানান, বাংলাদেশ অর্থনৈতিক মন্ত্রিসভা কমিটিতে ব্যাংকের এক প্রতিনিধি মতামত দেন- আমদানির ক্ষেত্রে লেটার অব ক্রেডিট ফরম আর দরকার পড়বে না। একসময় দেশের প্রবাসী আয় এবং বাংলাদেশের বৈদেশিক রিজার্ভ কমে যাওয়ায় এলসি ফরমের বিষয়টি যুক্ত করা হয়েছিল। কিন্তু এখন বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বেড়ে যাওয়ায় ওই এলসি রেস্ট্রিকশন আর রাখার দরকার নেই। আগে রিজার্ভ কম ছিল, তাই নিরাপত্তার জন্য বেশকিছু শর্ত ছিল। তারপর পর্যালোচনা করে ওই প্রস্তাবটি মৌখিকভাবে অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা কমিটি। এখন বাংলাদেশ ব্যাংক প্রস্তাবটি লিখিতভাবে জানানোর পর আমদানি নীতি সংযুক্ত করা হবে।

দৌলতপুরে ক্রিকেট টুর্ণামেন্টের পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে ড. মোফাজ্জেল হক

যুবসমাজকে মাদক থেকে নিরাপদ রাখতে পারে একমাত্র বাবা মা

নিজ সংবাদ ॥ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা উপ-কমিটির অন্যতম সদস্য ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক নেতা ড. মোফাজ্জেল হক বলেছেন মাদক শুধু যুবসমাজকেই ধংস করেনা সমাজ ও রাষ্ট্রকেও অনিশ্চিত পরিনতির দিকে ঠেলে দেয়। তাই সবারই উচিৎ মাদক থেকে দুরে থাকা। এজন্য যুবসমাজকে পড়ালেখার পাশাপাশি ক্রীড়া ও সংস্কৃতিমনা হতে হবে। তিনি গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার ছাতারপাড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে ফাইভ স্টার ক্লাব আয়োজিত ক্রিকেট  টুর্ণামেন্টের ফাইনাল খেলার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ছাতারপাড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি নওয়াব আলী, সহকারী শিক্ষক হাসেম আলী, ছাতারপাড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ’র অন্যতম সদস্য সিরাজুল ইসলাম সর্দ্দার, কুষ্টিয়া ইসলামিয়া কলেজের প্রভাষক স্বপন আলী প্রমুখ।

প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে খলিশাকুন্ডি ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা উপ-কমিটির অন্যতম সদস্য ড. মোফাজ্জেল হক আরো বলেন বর্তমান শেখ হাসিনার সরকার মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সনীতি অবলম্বন করেছে। মাদকের সাথে কোন আপস নেই। এরই মধ্যে দেশব্যাপী মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর অভিযান পরিচালিত হচ্ছে। তবে সরকার তথা আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মাদক বিরোধী অভিযান চালালেও মাদক প্রতিরোধে কার্যকরী ভুমিকা রাখতে পারে অভিভাবকরাই। তাদের সন্তান কোথায় যাচ্ছে কি করছে তা একমাত্র তার বাবা মা’ই বেশি খবর জানেন। তাই মাদক থেকে সন্তানদের দুরে রাখতে একমাত্র বাবা মা’ই বড় হাতিয়ার। বিকেল ৩টায় ফাইনাল খেলা শুরু হলেও শেষ হয় সন্ধ্যার কিছু সময় আগে। প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ এই টুর্ণামেন্টের ফাইনালে আমলা এসডিএফ ক্লাবকে ৭৯ রানে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে আমলা স্মার্ট ওয়ারিয়ার্স ক্লাব। খেলা শেষে বিজয়িদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন প্রধান অতিথি ড. মোফাজ্জেল হক।

গাংনীতে বোমা বিস্ফোরণ – ২টি বোমা উদ্ধার

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার আমতৈল মাধ্যমিক বিদ্যালয় চত্বর বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ সদস্যরা ২টি তাজা বোমা উদ্ধার করেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার দিকে স্থানীয় হেমায়েতপুর পুলিশ ক্যাম্পের সদস্যরা আমতৈল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বারান্দা থেকে ২টি তাজা বোমা উদ্ধার করে। স্থানীয়রা জানান, বুধবার মধ্যরাতে আমতৈল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে বিকট শব্দে একটি বোমা বিস্ফোরণ হয়। এ সময় বিদ্যালয়ের আশেপাশে বসবাসকারী মানুষ ঘুম থেকে জেগে উঠে আতঙ্কিত হয়ে পড়ে। পরে সকালে হেমায়েতপুর পুলিশ ক্যাম্পে খবর দেয়া হয়। পুলিশ সকাল ৮টার দিকে পানি ভর্তি বালতি করে বোমা দু’টি ক্যাম্পে নিয়ে যায়।  হেমায়েতপুর পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই সাকিল জানান, বোমা বিস্ফোরণের আলামত ও দু’টি তাজা বোমা উদ্ধার করে ক্যাম্পে নেয়া হয়েছে। বিস্ফোরণের ঘটনায় হতাহতের কোনো আলামত উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। ধারণা করা হচ্ছে,সন্ত্রাসী চক্র এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টির লক্ষ্যে বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে। তবে ঘটনার সাথে জড়িতদের আটকের চেষ্টা চলছে।

ভেড়ামারায় ইসলামী আন্দোলনের সম্মেলন, কমিটি গঠন

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ভেড়ামারা থানা শাখার সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সোমবার ভেড়ামারা আইএবি মিলনায়তনে উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইসলামী আন্দোলন কুষ্টিয়া জেলার সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আহাম্মাদ আলী। এছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলার সহ সভাপতি আলহাজ্ব আব্দুল্লাহ আখন্দ, সেক্রেটারী আলহাজ্ব এনামুল হক, জয়েন্ট সেক্রেটারী মু.আব্দুল মোমিন, সাংগঠনিক সম্পাদক মুফতি মুজ্জাম্মিল হক কাসেমীসহ জেলা ও থানার নেতৃবৃন্দ। উক্ত অনুষ্ঠান শেষে ইসলামী আন্দোলন ভেড়ামারা উপজেলার ২০১৯-২০ সেশনের জন্য আলহাজ্ব আবুল কালাম আজাদকে সভাপতি ও মু. ফজলুল হককে সেক্রেটারী করে ২৬ সদস্যের কমিটি ঘোষনা করা হয়। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতা প্রয়োজন: ডিএমপি কমিশনার

ঢাকা অফিস ॥ সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে জনপ্রতিনিধিদের জোরালো ভূমিকা রাখার আহ্বান জানিয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া। তিনি বলেছেন, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতা প্রয়োজন। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) নগর ভবনের মিলনায়তনে ‘সহিংস উগ্রবাদ প্রতিরোধে জনপ্রতিনিধিদের করণীয়’ শীর্ষক এক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন। ডিএমপি কমিশনার আরও বলেন, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ মুক্ত একটি সুখী সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণে জনগণ যেভাবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সহযোগিতা করেছে সেভাবে জনপ্রতিনিধিরা যদি সহযোগিতা করেন তাহলে দেশে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ থাকবে না। তিনি বলেন, হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলার ঘটনার পর ডিএমপিতে কোনও অপ্রীতিকর কোনও ঘটনা ঘটেনি। এ কৃতিত্ব শুধু পুলিশের নয়, নগরবাসীরও। জঙ্গিবাদ দমনে আমাদের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। জঙ্গিদের মাথাচাড়া দিয়ে ওঠার কোনও সুযোগ নেই। তবে এ বিষয়ে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। তিনি আরও বলেন, আমরা বিট পুলিশিংসহ প্রত্যেক থানাকে কেন্দ্র করে পুলিশিং কমিউনিটি ফোরাম গঠন করেছি। মাদক, ইভটিজিং, অজ্ঞানপার্টিসহ সব অপকর্ম প্রতিরোধে আমরা জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতা চাই। নগরবাসীর উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনার সন্তান আবদ্ধ রুমে ইন্টারনেটে কী করছে সে বিষয় লক্ষ্য রাখতে হবে। কারণ ইন্টারনেটে শান্তির ধর্ম অপব্যাখ্যা দিয়ে ধর্মের নামে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করছে কেউ কেউ। আর একে ঘিরেই সৃষ্টি হচ্ছে দ্বন্দ্ব-সংঘাত। ডিএমপি কমিশনার দাবি করেন, এবার ঈদে ছিনতাই কিংবা অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ার মতো ঘটনা তেমন ঘটেনি। এসব ঘটনা আগের চেয়ে অনেক কমেছে।

গাংনীতে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে শ্যামলী কাউন্টারে জরিমানা

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনীতে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে শ্যামলী পরিবহনের কাউন্টার মাস্টারকে জরিমানা করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে গাংনী উপজেলা শহরের শ্যামলী কাউন্টারের মাস্টার আশরাফুল ইসলামকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। আদালত পরিচালনা করেন,ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও গাংনী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) বিষ্ণুপদ পাল। যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অপরাধের কারণে এ জরিমানা করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা যায়,গাংনী উপজেলা শহর থেকে ঢাকা পর্যন্ত নির্ধারিত বাসের ভাড়া ৫৫০ টাকা। অথচ ঈদ যাত্রায় যাত্রীর চাহিদাকে কাজে লাগাতে গাংনী শ্যামলী পরিবহনের কাউন্টার মাস্টার আশরাফুল ইসলাম যাত্রীদের কাছ থেকে ৮শ টাকা নিয়েছিলেন। কয়েকজন যাত্রীর অভিযোগের সত্য প্রমাণিত হওয়ায় এবং আশরাফুল ইসলাম তার দোষ স্বীকার করায় ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

বাজেট দিতে হাসপাতাল থেকেই সংসদে গেলেন অসুস্থ অর্থমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ অসুস্থ অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল হাসপাতাল থেকেই সরাসরি জাতীয় সংসদ ভবনে গেছেন নতুন অর্থবছরের বাজেট উপস্থাপনের জন্য। অর্থ মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানান, গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে অ্যাপোলো হাসপাতাল থেকে সংসদ ভবনে যান অর্থমন্ত্রী। সেখানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে বাজেট সংক্রান্ত মন্ত্রিসভার বৈঠকেও তিনি অংশ নেন। সংসদে তোলার জন্য এই বৈঠকেই আগামি অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়। বিকাল ৩টায় সংসদ বসলে অর্থমন্ত্রী ২০১৯-২০ অর্থবছরের এই বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপন করেন। অর্থমন্ত্রী হিসেবে এটাই হবে তার প্রথম বাজেট। সাদা পাজামা-পাঞ্জাবির ওপর কালো মুজিব কোট পরিহিত মুস্তফা কামাল বেলা সোয়া ১টার দিকে সংসদে পৌঁছালে সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তারা তাকে হাত ধরে ভেতরে নিয়ে যান। অসুস্থতার মধ্যে গত বুধবারও হাসপাতাল থেকে বাজেট অধিবেশনে যোগ দিতে সংসদে গিয়েছিলেন অর্থমন্ত্রী। কয়েক দিন জ¦রে ভোগার পর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকার অ্যাপোলো হাসপাতালে গিয়েছিলেন ৭২ বছর বয়সী মুস্তফা কামাল। পরে চিকিৎসকের পরামর্শে রাতে তিনি হাসপাতালেই থেকে যান বলে সংবাদমাধ্যমে খবর আসে। বাজেটের দুদিন আগে অর্থমন্ত্রীর অসুস্থতার খবরে উদ্বেগ তৈরি হলে মঙ্গলবার রাতেই অর্থ মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা গাজী তৌহিদুল ইসলাম এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দেন। সেখানে তিনি বলেন, অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল রুটিন মেডিকেল চেকআপের জন্য সন্ধ্যায় ঢাকার অ্যাপোলো হাসপাতালে গিয়েছিলেন। তিনি আল্লাহর রহমতে সম্পূর্ণ সুস্থ আছেন। আগামী ১৩ জুন, ২০১৯ তারিখে তিনি ইনশাল্লাহ ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট মহান জাতীয় সংসদে উপস্থাপন করবেন। অর্থমন্ত্রীর অসুস্থতার কারণ নিয়ে মন্ত্রণালয় বা পরিবারারের পক্ষ থেকে স্পষ্ট করে কিছু বলা হয়নি। অ্যাপোলো হাসপাতাল কর্তৃপক্ষও এ বিষয়ে কোনো তথ্য প্রকাশ করেনি। মুস্তফা কামাল ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছিলেন বলে কয়েকটি সংবাদমাধ্যমে খবর এসেছে। অর্থমন্ত্রীর একজন রাজনৈতিক সহকর্মীও একই ধরনের কথা বলেছেন। তবে চিকিৎসকদের মাধ্যমে এ খবরের সত্যতা নিশ্চিত করতে পারেনি।

গাংনীতে অপহরণের ৯ ঘণ্টা পর যুবক উদ্ধার – আটক-১

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনীতে  অপহরণের ৯ ঘণ্টা পর তুহিন হোসেন (২৭) নামের এক যুবককে উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একজনকে থানা নিয়েছে পুলিশ। মুক্তিপণের দাবীতে তুহিনকে অপহরণ করা হয়েছিল বলে পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে। উদ্ধারকৃত তুহিন সাহেবনগর গ্রামের হাফিজুল ইসলামের ছেলে। নির্যাতন শেষে তুহিনকে অপহরণকারী উপজেলার কামারখালী গ্রামের মাঠে ফেলে যায়। পারিবারিক সূত্র জানায়, বুধবার রাতে তুহিনকে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করে সন্ত্রাসীরা। অপহরণের পর রাতেই সন্ত্রাসীরা মোবাইল ফোনে মুক্তিপণ হিসেবে ২লক্ষ টাকা দাবী করে। দাবীকৃত টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় তুহিনকে কামারখালী গ্রামের একটি নির্জন মাঠে নিয়ে রাতভোর নির্যাতন শেষে  ফেলে যায়। পরের দিন গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয় কৃষকরা আহত তুহিনকে উদ্ধার করে স্থানীয় একটি ক্লিনিকে ভর্তি করেন। গাংনী থানার ওসি (তদন্ত) সাজেদুল ইসলাম  জানান,এ ঘটনায় সন্দেহভাজন হিসাবে একজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নেয়া হয়েছে।

আন্দোলনের মুখে কমিটির কার্যক্রম সাময়িক স্থগিত

জেলার নেতাদের বিরুদ্ধে অনৈতিক সুবিধা নেয়ার অভিযোগ

কুষ্টিয়ায় উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটিতে অছাত্র, চাকুরিজীবি, ব্যবসায়ী ও মাদকসেবি

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ায় অনৈতিক সুবিধা নিয়ে অছাত্র, চাকুরিজীবি, মাদকসেবি ও ব্যবসায়ীকে উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটিতে পদ দেয়ার অভিযোগ উঠেছে জেলা ছাত্রলীগের শীর্ষ দুই নেতার বিরুদ্ধে। দুই উপজেলা কমিটি বাতিলের দাবিতে মাঠে নেমেছে ছাত্রলীগের বঞ্চিত নেতা-কর্মিরা। ইতিমধ্যে আন্দোলনের মুখে মিরপুর ও কুমারখালী উপজেলা ছাত্রলীগের কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে। গঠন করা হয়েছে আলাদা তদন্ত কমিটি। তদন্ত অভিযোগের সত্যতা মিলেছে বলেও জানা গেছে।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ৪ জুন কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ইয়াসির আরাফাত তুষার ও সাধারণ সম্পাদক সাদ আহম্মেদ স্বাক্ষরিত ছাত্রলীগের দলীয় প্যাডে এস.এম মেহেদী হাসানকে সভাপতি ও আলী হোসেনকে সাধারণ সম্পাদক করে দুই সদস্যের কুমারখালী উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়। একই তারিখে মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক ও বিজয় আলী তুফানকে সাধারণ সম্পাদক করে ৭ সদস্যের মিরপুর উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়। এরপর থেকে শুরু হয় জটিলতা। বিভিন্ন অভিযোগ এনে কমিটি বিলুপ্তের দাবিতে সভা সমাবেশ করতে থাকে পদবঞ্চিতরা।

এরপর থেকেই ফূঁসে উঠেছে উপজেলা ছাত্রলীগের নেতা-কর্মিরা। তারা কমিটি বাতিল করে প্রকৃত ছাত্রদের নিয়ে কমিটি দেয়ার দাবি জানিয়েছেন। কুমারখালী কমিটির নতুন সভাপতি মেহেদী হাসানের ছাত্রত্ব নেই। মুদি দোকানী বাবার ব্যবসা দেখাশুনা করেন তিনি। আর সাধারন সম্পাদক আলী হোসেন কয়া ইউনিয়নের বাড়াদি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরি কাম নৈশ প্রহরী পদে চাকুরি করতেন। নৈতিকতা বিরোধী কার্যকলাপ ও কর্মস্থলে ১৮৫ কার্যদিবস অনুপস্থিত থাকায় ২০১৬ সালে তাকে চাকুরি থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়। এরপর আলী হোসেন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ইয়াসির আরাফাত তুষারের মা জেলা পরিষদের সদস্য সাদিয়া জামিল কণার সাথে সার্বক্ষনিক থাকতেন। কিছুদিন আগে মাদক সেবনের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। তাতে দেখা যাচ্ছে আলী হোসেন মাদক সেবন করছেন। পাশে আরো কয়েকজন বসা রয়েছে।

মিরপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাকের ছাত্রত্ব নেই। তিনি এইচএসসি পাশ। এ জেলায় তার বাড়ি নয় বলেও জানাগেছে। তিনি জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি পদেও আছেন। আর সাধারন সম্পাদক বিজয় আলী তুফানের বাবা আব্দুর রশিদ বিশ্বাস বহুলবাড়িয়া ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি। একই ইউনিয়ন বিএনপির সহ-সভাপতি তিনি। তুফান জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। তাকে নিয়ে নানা বিতর্ক রয়েছে আগেও। জেলা ছাত্রলীগের এক নেতাকে ৭ লাখ টাকা নিয়ে পদ নেয়ার অভিযোগ আছে তুফানের বিরুদ্ধে। মিরপুর উপজেলা ছাত্রলীগে সাংগঠনিক হিসেবে পদ দেয়া হয়েছে আশিক মালিথা নামের এক কিশোরকে। এর আগে ছাত্রলীগের কোন কমিটিতে তার পদ ছিল না। দলীয় কার্যক্রমেও তাকে কেউ দেখেনি। তার চাচা আব্দুল মালেক জেলা যুবদলের নেতা।

জেলা ছাত্রলীগের একাধিক সূত্র জানিয়েছে, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ইয়াসির আরাফাত তুষার ও সাধারন সম্পাদক সাদ আহম্মেদের বিরুদ্ধে এমনিতেই নানা অভিযোগ রয়েছে। এরা দলের দায়িত্ব নেয়ার পর একের পর ঘটনা ঘটে চলেছে। অর্থ নিয়ে এর আগে জেলা ছাত্রলীগে ছাত্রদল, মাদক ব্যবসায়ী, মাদক সেবনকারি ও অছাত্রকে পদ দেন এই দুই নেতা। এবার কারো সাথে আলাপ না করেই নিজেদের মন মত উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষনা করেছেন। সাদ পদ দেয়ার নামে অর্থ নিয়ে দেশের বাইরে চিকিৎসা করাতে চলে গেছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। এছাড়া ছাত্রলীগ সভাপতির বিরুদ্ধে বালুবাহী নৌকা থেকে অর্থ নেয়ার অভিযোগ আছে।

চলতি মাসে জেলার মিরপুর ও কুমারখালী উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করে জেলা কমিটি। আর এই ছাত্রলীগের কমিটি  ঘোষণার পর থেকেই শুরু হয় জটিলতা। সড়ক অবরোধ, মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলের মত কর্মসূচী নিয়ে মাঠে আছেন ছাত্রলীগের কর্মিরা। কমিটির বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন সাংসদসহ দলীয় নেতারাও।

আন্দোলনকারী কুমারখালী উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক রাসেল বলেন, ছাত্রলীগে কোন অছাত্র, মাদক ব্যবসায়ী, নাইট গার্ড থাকতে পারে না। আমরা অবৈধভাবে নবগঠিত কমিটি মানিনা, মানবো না। এই কমিটি ভাঙতে হবে। তা না হলে অনির্দিষ্টকালের জন্য আমাদের সমাবেশ চলতে থাকবে।’

কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ইয়াসির আরাফাত তুষার বলেন, কমিটি নিয়ে যে বিতর্ক চলছে তার সত্যতা যাচাই করার জন্য দুটি তদন্ত টিম কাজ করছে। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। ইতিমধ্যে কমিটির কার্যকম সাময়িক ভাবে বন্ধ রাখা হয়েছে। আর অর্থ নিয়ে কমিটি নেয়া হয়েছে এমন বিষয় ঠিক না।’

তদন্ত কমিটির প্রধান জেলা ছাত্রলীগের নেতা আতিকুর রহমান অনিক বলেন,‘ তদন্ত চলছে। বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে। প্রতিবেদন কমিটির কাছে জমা দেয়া হবে। পরে মিডিয়ায় জানানো হবে প্রয়োজনে।

কুষ্টিয়া-৪ (কুমারখালী-খোকসা) আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ বলেন, অছাত্র, মাদকসেবি সহ বিতর্কিতদের নিয়ে কমিটি দেয়া হয়েছে। অর্থ নেয়ার অভিযোগও পাওয়া গেছে। এ কমিটি দেয়ায় ছাত্রলীগের প্রকৃত নেতা-কর্মিরা ক্ষুব্ধ। তাই প্রকৃত ছাত্রদের নিয়ে যাতে ছাত্রলীগের কমিটি গঠন করা যায় সে ব্যাপারে জেলার নেতাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।’

 

মাইকে ঘোষণা দিয়ে ধর্ষনের আসামিকে পিটিয়ে হত্যা

ঢাকা অফিস ॥ সিলেটে ডাকাতি করতে গেলে মসজিদের মাইকে তা ঘোষণা করা হয়। এলাকাবাসীর গণপিটুনিতে দুদু খান (৩৫) নামে একজনের মৃত্যু হয়। তিনি এক তরুণীকে গণধর্ষণের অভিযোগে দায়ের করা   মামলারও আসামি। বুধবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে নগরীর সুবিদবাজার বনকলাপাড়ায় তার সহযোগীদের নিয়ে ডাকাতি করতে যায়। গণপিটুনিতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। নিহত দুদু বনকলাপাড়া ১১২ নম্বর বাসার বাসিন্দা কামাল খানের ছেলে। তার বিরুদ্ধে নগর পুলিশের বিভিন্ন থানায় গণধর্ষণসহ চারটি মামলা ছিলো। এসব মামলায় জেল থেকে সম্প্রতি জামিনে বেরিয়ে এসেছিলেন দুদু।

সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (মিডিয়া) মো. জেদান আল মুসা বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, ২ থেকে ৩ সপ্তাহ আগে কারাগার থেকে জামিন নিয়ে বেরিয়ে আসেন দুদু। বুধবার রাতে সে বন কলাপাড়া এলাকায় ডাকাতির জন্য হানা দিলে স্থানীয়রা মসজিদের মাইকে তা জানিয়ে দেয়। এলাকাবাসী রাস্তায় বের হয়ে আসেন। তাদের গণপিটুনিতে গোলাপমিয়া পয়েন্টে দুদুর মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে বিমানবন্দর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে রাত দেড়টার দিকে লাশের সুরতহাল শেষ করে ময়নাতদন্তের জন্য ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ মর্গে পাঠায় বলেও জানান তিনি।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু না হওয়ায় জাতিসংঘের উদ্বেগ

ঢাকা অফিস ॥ নিপীড়নের মুখে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন দুই বছরেও শুরু না হওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেজ। বুধবার দুপুরে নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘের কার্যালয়ে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের সময় তিনি উদ্বেগ প্রকাশ করেন বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, বৈঠকে রোহিঙ্গা ইস্যু ও জাতির পিতার জন্ম শতবার্ষিকী উদযাপনসহ বাংলাদেশ ও জাতিসংঘ সংশি¬ষ্ট গুরুত্বপূর্ণ বিষয়াদি নিয়ে ‘ফলপ্রসূ’ আলোচনা হয়। পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে হালনাগাদ তথ্য তুলে ধরার পাশাপাশি মিয়ানমার সরকারের অসহযোগিতাসহ অন্যান্য সমস্যাও অবহিত করেন। “রোহিঙ্গা সঙ্কটের ক্ষেত্রে মিয়ানমারের দায়বদ্ধতার ইস্যুটি আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে সাম্প্রতিক ওআইসি শীর্ষ সম্মেলনে গৃহীত পদক্ষেপ সম্পর্কেও মহাসচিবকে অবহিত করেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী। এছাড়া বিশ্বব্যাপী জাতির পিতার জন্ম শতবার্ষিকী এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তী উদযাপনে জাতিসংঘ ও জাতিসংঘের মহাসচিবের অংশগ্রহণ ও সম্পৃক্ততার অনুরোধ জানান প্রতিমন্ত্রী।” বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু না হওয়ার কারণে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে বরাবরের মতোই রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশ সরকার ও জনগণের উদারতা ও মানবিক সহযোগিতার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন জাতিসংঘ মহাসচিব। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের অভূতপূর্ব অগ্রগতির প্রশংসার পাশাপাশি জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুতে বাংলাদেশের সক্রিয় কার্যক্রমের জন্য সাধুবাদ জানান আন্তোনিও গুতেরেজ। তিনি বলেন, “আসন্ন ক্লাইমেট অ্যাকশন সামিটে বাংলাদেশের সক্রিয় এবং ফলপ্রসূ অংশগ্রহণের দিকে তাকিয়ে আছে জাতিসংঘ।” অন্যদের মধ্যে পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক এবং জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন এসময় উপস্থিত ছিলেন। সন্ধ্যায় জাতিসংঘের পিস অপারেশন বিভাগের প্রধান আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল জ্যঁ পিয়েরে ল্যাক্রুয়ার সঙ্গেও বৈঠক করেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী। বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের ডিফেন্স অ্যাডভাইজর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল খান ফিরোজ আহমেদ ও মিনিস্টার ড. মো. মনোয়ার হোসেন এসময় উপস্থিত ছিলেন।

বাজেটকে স্বাগত জানিয়ে আ.লীগের আনন্দ মিছিল

ঢাকা অফিস ॥ প্রস্তাবিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটকে স্বাগত জানিয়ে আনন্দ মিছিল করেছে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখা আওয়ামী লীগ। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে এ আনন্দ মিছিল করেন নেতাকর্মীরা। মিছিল পূর্ব সমাবেশে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ বলেন, ‘ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রী যৌথভাবে একটি জনমুখী এবং কল্যাণমুখী বাজেট উত্থাপন করেছেন। এ বাজেটের জন্য বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানাই।’ এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলার গড়ার স্বপ্ন অদম্য গতিতে এগিয়ে যাবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। এদিকে আনন্দ মিছিল বের করে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখা যুবলীগ। এবারের বাজেটকে গরিবের বাজেট বলে অভিহিত করে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখা যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট বলেন, ‘এবারের বাজেট গরিরের বাজেট। এ বাজেট কর্মসংস্থানের বাজেট। বাজেটে মেট্রোরেলের মতো মেগা প্রজেক্ট বাস্তবায়িত হবে। যা দেশকে এগিয়ে নেবে।’ এর আগে বিকেল ৩টায় জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বাজেট অধিবেশন শুরু হয়। ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত এ বাজেট দেশের ৪৮তম এবং বর্তমান সরকারের তৃতীয় মেয়াদের প্রথম বাজেট। ‘সমৃদ্ধ আগামীর পথযাত্রায় বাংলাদেশ : সময় এখন আমাদের, সময় এখন বাংলাদেশের’ শিরোনামে প্রস্তাবিত বাজেটের আকার ধরা হয় পাঁচ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা। দেশের ৪৮ বছরের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাজেট এটি। বরাবরের মতো বাজেট পেশ করেন অর্থমন্ত্রী। নতুন অর্থমন্ত্রী হিসেবে এটি আ হ ম মুস্তফা কামালের প্রথম বাজেট। শুরুতে দাঁড়িয়ে বাজেট বক্তৃতা শুরু করলেও পরে স্পিকারের অনুমতি নিয়ে অর্থমন্ত্রী নিজ আসনে বসে প্রস্তাবিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট উপস্থাপন করেন। কিন্তু বিকেল ৪টার পর অসুস্থ অর্থমন্ত্রীর পক্ষে প্রস্তাবিত বাজেট উপস্থাপন সম্ভব না হওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্পিকারের অনুমতি নিয়ে বাকি অংশ সংসদে উপস্থাপন করেন। বিকেল ৪টা ৪১ মিনিটে ‘প্রস্তাবিত বাজেট সংসদে উপস্থাপিত হলো’ মর্মে ঘোষণা দেন স্পিকার। প্রস্তাবিত বাজেট পাস হবে ৩০ জুন। ১ জুলাই থেকে শুরু হবে নতুন অর্থবছর।

ইবি প্রগতিশীল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে আলোচনায় কুষ্টিয়া সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আতা

আমি সবসময় আপনাদের পাশে আছি এবং থাকবো

কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা বলেছেন, ইসলামী বিশ^বিদ্যালয়ে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পাশে আমি সবসময় আছি এবং থাকবো।  তিনি বলেন, স্বাধীনতা পরবর্তী প্রথম বিশ^বিদ্যালয় হচ্ছে ইসলামী বিশ^বিদ্যালয়। অনেক আন্দোলন সংগ্রামের মধ্যদিয়ে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে এই বিশ^বিদ্যালয়টি। এ বিশ^বিদ্যালয়ের সার্বিক উন্নয়নে এক এবং ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা গড়ার অসমাপ্ত কাজ জননেত্রী শেখ হাসিনা বাস্তবায়ন করে চলেছেন। আশারাখি আপনারা নিজ নিজ অবস্থান থেকে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার চলমান উন্নয়ন কাজে অবদান রাখবেন। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও কুষ্টিয়া সদর আসনের সংসদ সদস্য মাহবুবউল আলম হানিফ-এর বাসভবনে কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রথমবারের মতো বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক আতাউর রহমান আতা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ায় তাঁকে ইসলামী বিশ^বিদ্যালয়ে কর্মরত কুষ্টিয়াতে বসবাসকারী প্রগতিশীল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পক্ষ থেকে ফুলেল  শুভেচ্ছা জানানো  শেষে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় আতাউর রহমান আতা এসব কথা বলেন। পরিকল্পনা ও উন্নয়ন বিভাগের পরিচালক (ভার:)  এইচ এম আলী হাসান আলহাজ’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় কর্মকর্তাদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন দেওয়ান টিপু সুলতান, মিজানুর রহমান, রুহুল আমিন, মোঃ রবিউল ইসলাম, আসাদুজ্জামান মাখন, মোঃ রাশিদুজ্জামান খান টুটুল, মাসুদুর রহমান, মাসুদ পারভেজ, জাহাঙ্গীর আলম শিমুল, আরিফুল হক, রেহানা খন্দকার, ওয়ালিউর রহমান সেতু, জাহিদুর রহমান সোহাগ, কেপিএম শামসুজ্জামান রানা এবং কর্মচারীদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন আল-আসাদ রেমন, মাহমুদ হাসান দুলু, আফতাব আহমেদ, আয়শা খাতুন, লাভলী খাতুন, মনিরুল ইসলাম, আরিফুজ্জামান, শরিফুল ইসলাম, গোলাম কুদ্দুস চিনা, মারুফ সিরাজী, জাহিদুর রহমান জাহিদ ও আরিফুল ইসলাম প্রমুখ। এ সময় প্রায় অর্ধশতাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারী উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

 

অনির্বাচিত সরকারের বাজেট দেয়ার নৈতিক অধিকার নেই -খসরু

ঢাকা অফিস ॥ অনির্বাচিত সরকারের বাজেট দেয়ার কোনো নৈতিক অধিকার নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে রাজধানীর বনানীতে নিজ দফতরে বাজেট প্রতিক্রিয়ায় তিনি সাংবাদিকদের এ মন্তব্য করেন। তবে এটি বিএনপির কোনো আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া নয়। দলীয়ভাবে বিএনপি আজ শুক্রবার প্রতিক্রিয়া দেবে বলে জানা গেছে। আমির খসরু বলেন, দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে একমাত্র অনির্বাচিত সরকার রয়েছে বাংলাদেশে। এই সরকারের বাজেট দেয়ার নৈতিক অধিকার নেই। কারণ তারা জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয়। তারা জনগণের কাছে দায়বদ্ধও নয়। তিনি বলেন, দেশের অর্থনীতি কিছু সংখ্যক মানুষের কাছে জিম্মি হয়ে গেছে। তারা বাজেট প্রণয়ন করছে। তারা অর্থনীতি নিয়ন্ত্রণ করছে। আবার তারাই সরকার পরিচালনা করছে। তিনি আরও বলেন, সামষ্টিক অর্থনীতি নষ্ট হয়ে গেছে। এখন ঋণনির্ভর বাজেট দিতে হচ্ছে। এক মিলিয়নের বাজেট তিন মিলিয়ন দেয়া হচ্ছে, এই টাকা আমার-আপনার পকেট থেকেই নেয়া হবে। করের মাধ্যমে, ভ্যাটের মাধ্যমে বা অন্যান্য মাধ্যমে এই টাকা সরকার মানুষের পকেট কেটে নেবে। আমির খসরু বলেন, অনির্বাচিত সরকার, অনির্বাচিত সংসদে এই বাজেট দিয়েছে। গণতন্ত্র না থাকায় সুশাসন নেই দেশে। সু-শাসনের অভাবে দেশের সামষ্টিক অর্থনীতি বাধাগ্রস্ত। ব্যক্তিখাতের বিনিয়োগ বন্ধ, শেয়ার বাজারে অস্থিরতা, ব্যাংকে তারল্য সংকট চলছে। সরকার দেশকে ঋণনির্ভর অর্থনীতির দিকে নিয়ে যাচ্ছে উলে¬খ করে খসরু বলেন, এই ঋণ শোধ দিতে দেশের মানুষের ওপর সরাসরি প্রভাব পড়বে। নাগরিকদের ভুগতে হবে চরমভাবে। রফতানির চেয়ে আমদানি বেশি হচ্ছে। দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বেশি বেকার বাংলাদেশে। প্রবৃদ্ধির যে কথা বলা হচ্ছে, তার সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন আছে। দেশের অর্থনীতির ব্যবস্থাপনা একটি শ্রেণির কাছে জিম্মি রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, অনির্বাচিত সরকারের নৈতিক অধিকার নেই বাজেট দেয়ার। জনগণকে বাইরে রেখে যেভাবে নির্বাচন করেছে, একইভাবে বাজেটও দিচ্ছে। যেভাবে জনগণ এই নির্বাচন গ্রহণ করেনি, তেমনি বাজেটও গ্রহণ করবে না।

শেখ হাসিনার নির্বাচিত উক্তি নিয়ে দু’টি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

ঢাকা অফিস ॥ দেশে ও আন্তজার্তিক পর্যায়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্য, ভাষণ ও লেখনি থেকে বাছাই করা উদ্ধৃতি নিয়ে বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় প্রকাশিত দুটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হয়েছে। ‘শেখ হাসিনা: নির্বাচিত উক্তি’ ও ‘শেখ হাসিনা: সিলেক্টেড সেয়িংস’ বই দুটির সংকলন ও সম্পাদনা করেছেন প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া ও সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম। মুখবন্ধ লিখেছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ রেহানা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত বুধবার তার সংসদ ভবনের কার্যালয়ে বই দুটির মোড়ক উন্মোচন করেন বলে জানিয়েছেন তার উপ-প্রেস সচিব হাসান জাহিদ তুষার। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য ও লেখা থেকে ১১৫টি বিষয়ে এই বইয়ের উদ্ধৃতি সংগ্রহ করা হয়েছে। এতে প্রশাসন, রাজনীতি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সেনাবাহিনী, নারীর ক্ষমতায়নসহ বিভিন্ন বিষয়ে বক্তব্য রয়েছে। তুষার বলেন, ছাত্রছাত্রী, পেশাজীবী ও রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের জন্য বইটি বিশেষ দিক নির্দেশনা হিসেবে ভূমিকা রাখবে। বই দুটি পাঠক সমাবেশ থেকে প্রকাশিত হয়েছে।

বেনাপোলে একদিনে আমদানি পণ্যের চালানে রেকর্ড

ঢাকা অফিস ॥ চলতি অর্থবছর শেষ হওয়ায় রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা পূরণে বিশেষ উদ্যোগ নেওয়ায় বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানি ত্বরান্বিত হয়েছে; একদিনে সর্বোচ্চ সংখ্যক আমদানি পণ্যের চালান বাংলাদেশে ঢুকেছে। বেনাপোল শুল্কভবনের কমিশনার মোহাম্মদ বেলাল হোসাইন চৌধুরী জানান, বুধবার রাত ১০টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ডসংখ্যক প্রায় ৮০০ ট্রাক পণ্যের চালান বেনাপোল বন্দরে ঢুকেছে, যা বন্দরের ইতিহাসে প্রথম। ভারতে নির্বাচন ও বাংলাদেশে ঈদের লম্বা ছুটির কারণে রাজস্ব আদায়ের ঘাটতি পুষিয়ে নিতে দুই দেশের মধ্যে আলোচনাসাপেক্ষে নেওয়া বিশেষ উদ্যোগের ফলে এটা সম্ভব হয়েছে। তিনি বলেন, সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টার পরিবর্তে এখন সকাল ৮টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত আমদানি পণ্যের চালান গ্রহণ করা হচ্ছে। ‘দিনের রাজস্ব দিনে’ আদায়ে ভারত থেকে আমদানি করা ২৬টি পণ্যের ক্ষেত্রে ‘ট্রাক টু ট্রাক’ খালাসের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়া উচ্চ শুল্কের পণ্য দ্রুত পরীক্ষণ ও মূল্যায়ন করতে শুল্কভবনে জনবল সমন্বয় করা হয়েছে। বেনাপোল শুল্কভবনের সহকারী কমিশনার আকরাম হোসেন জানান, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বেনাপোল শুল্কভবনের রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৫ হাজার ১৮৩ কোটি টাকা। এর মধ্যে মে মাস পর্যন্ত আদায় হয়েছে ৩ হাজার ৭৭০ কোটি টাকা। বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান স্বজন বলেন, বন্দর থেকে উচ্চ শুল্কের পণ্য দ্রুত খালাসে ব্যবসায়ীরা শুল্কভবনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে সহযোগিতা করে যাচ্ছে। বেনাপোল বন্দরের উপ-পরিচালক মামুনুর রহমান তরফদার জানান, দ্রুত রাজস্ব আদায়ে কাস্টমসের বিশেষ উদ্যোগের পর বেনাপোল বন্দর দিয়ে আমদানি বাণিজ্য গতি পেয়েছে। বন্দরে পণ্যজট কমাতে দ্রুত পণ্য খালাসের জন্য সংশি¬ষ্টদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।