ভেষজ উৎপাদনে দেশে চমৎকার সহায়ক প্রাকৃতিক পরিবেশ বিদ্যমান

কৃষি প্রতিবেদক ॥ চিকিৎসার জন্য ভেষজ উদ্ভিদের উপর নির্ভরশীলতা চিরায়ত। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, পৃথিবীর প্রায় ৭০ ভাগ লোক রোগের নিরাময়ক হিসেবে ভেষজ উদ্ভিদ ব্যবহার করছে। ইউনানী, আয়ুর্বেদীয়, এলোপ্যাথিক, হোমিওপ্যাথিক, কবিরাজিসহ বিভিন্ন ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ভেষজ উদ্ভিদ দিয়ে ওষুধ তৈরি করে থাকে। বিশ্বব্যাপী ভেষজ ওষুধের বাজার দ্রুতগতিতে প্রসার লাভ করেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাব মতে, ২০৫০ সালে আন্তর্জাতিক বাজারে ভেষজের বাণিজ্য হবে পাঁচ ট্রিলিয়ন ডলারের। বাংলাদেশও এই বাণিজ্যের অংশীদার। প্রায় শতকোটি টাকার ঔষধি কাঁচামালের স্থানীয় বাজার সৃষ্টি হয়েছে। ভবিষ্যতে এ বাজার বিস্তৃত হওয়ার সম্ভাবনাও উঁকি দিচ্ছে।
চাহিদা বাড়ছে দেশে ঃ ভেষজ উৎপাদনে চমৎকার সহায়ক প্রাকৃতিক পরিবেশ বাংলাদেশে বিদ্যমান। দেশে প্রায় ৬০০ প্রজাতির ভেষজ উদ্ভিদ থাকলেও ওষুধ শিল্পে বর্তমানে ১০০ ধরনের উদ্ভিদ থেকে দেড় শতাধিক ওষুধ উৎপাদন ও বাজারজাত করা হয়। ইউনানী, আয়ুর্বেদ ও হোমিওপ্যাথি ওষুধ উৎপাদনে কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহারের পাশাপাশি বিউটি পার্লারেও প্রসাধন শিল্পে এখন প্রচুর পরিমাণে ভেষজ উপাদান ব্যবহার হচ্ছে। ফলে ভেষজ উদ্ভিদের চাহিদা বেড়েছে। তাই দেশের বিভিন্ন এলাকায় বেসরকারী উদ্যোগে ভেষজ উদ্ভিদের চাষাবাদ ও উৎপাদন শুরু হয়েছে।
ভেষজের আন্তর্জাতিক বাজার ঃ যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, জাপান, মালয়েশিয়া, সৌদিআরব, কুয়েত, কাতার, পাকিস্তান, কোরিয়া ভেষজ উদ্ভিদের প্রধান আমদানিকারক দেশ । বিশ্ব খাদ্য সংস্থার মতে, বর্তমানে বিশ্বে শুধু ঔষধি উদ্ভিদের বাজার রয়েছে ৬২ বিলিয়ন ডলারের। এই বিশাল বাজারের অধিকাংশই ভারত ও চীনের দখলে। অন্যদিকে ওষুধ ও প্রসাধনসামগ্রী তৈরির কাঁচামাল হিসেবে বাংলাদেশে প্রতিবছর প্রায় ৪০০ কোটি টাকার ভেষজসামগ্রী আমদানি করে থাকে। অথচ দেশের ওষুধ শিল্পে বর্তমানে যে পরিমাণ ভেষজ উদ্ভিদ ব্যবহৃত হয়, তার ৭০ ভাগই স্থানীয়ভাবে উৎপাদন করা সম্ভব। কেবল প্রয়োজন সরকারী পৃষ্ঠপোষকতা ও ব্যক্তিগত উদ্যোগ।
ঔষধিগ্রাম ঃ নাটোরের ‘খোলাবাড়িয়া’ একটি গ্রামের নাম। গ্রামের বৃক্ষপ্রেমিক আফাজ পাগলা বাড়ির পাশে ৫টি ঘৃতকুমারীর গাছ রোপণ করেছিলেন বছর ত্রিশেক আগে। সেই ঘৃতকুমারীরর গাছই বদলে দিয়েছে গ্রামটির নাম। খোলাবাড়িয়া এখন ঔষধি গ্রাম নামেই পরিচিত। গ্রামের প্রায় ষোলশ পরিবারের জীবিকা ঔষধি গাছের ওপর নির্ভর করছে। গ্রামে মোট ২৫ হেক্টর জমিতে ঔষধি গাছের চাষাবাদ করা হচ্ছে। রাস্তার মোড়ে মোড়ে ভেষজ উদ্ভিদ বিক্রির দোকান। বাণিজ্যিক সুবিধার জন্য সেখানে গড়ে উঠেছে ‘ভেষজ বহুমুখী সমবায় সমিতি’। এর মাধ্যমে ক্রেতা-বিক্রেতা আর উৎপাদনকারীর সমন্বয়ে জমে উঠেছে ভেষজ বিপ্লব। আফাজ পাগলের ১৭ কাঠার চাষী জমিতে ৪৫০ প্রজাতির ভেষজ নার্সারি গড়ে তোলা হয়েছে। গ্রামে এ রকম আরও ৮টি নার্সারি আছে। বাসক, সাদা তুলসী, উলটকম্বল, চিরতা, নিম, কৃষ্ণতুলসী, রামতুলসী, ক্যাকটাস, সর্পগন্ধা, মিশ্রিদানা, হরীতকী, লজ্জাবতীসহ হরেক রকমের ঔষধি গাছ এসব নার্সারিতে পাওয়া যায়। ঔষধি গ্রামের এই ভেষজ চাষাবাদ এখন ছড়িয়ে পড়েছে প্রতিবেশী গ্রামগুলোতেও। এ যেন এক ভেষজ বিপ্লব কাহিনী। আফাজ পাগলার দেখানো পথেই ঘটেছে এই ভেষজ বিপ্লব।
গারো পাহাড়ের ২৪ গ্রাম ঃ ‘ঔষধি গ্রাম’ হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে শেরপুরের সীমান্তবর্তী গারো পাহাড়ের ২৪ গ্রাম। এসব গ্রামের আদিবাসীরা ঔষধি গাছের নার্সারি করে ভাগ্যের পরিবর্তনে দিনরাত খেটে যাচ্ছেন। ‘সোসাইটি ফর বায়োডাইভারসিটি কনজারভেশন’ (এসবিসি) নামের সংগঠনটি ২০০৮ সাল থেকে ঝিনাইগাতী উপজেলার পাহাড়ী গ্রামসহ সীমান্তবর্তী ৪ ইউনিয়ন কাংশা, নলকুড়া, ধানশাইল ও গৌরীপুরের ২৪ গ্রামে ৩৭টি কৃষকমৈত্রী সংগঠনের মাধ্যমে ঔষধি গাছ রোপণ ও পরিচর্যার প্রশিক্ষণ দিয়ে আসছে। ভেষজ উদ্ভিদের চাষকে যদি আরো জনপ্রিয় করে তোলা যায় এবং সরকারী ও বেসরকারী উদ্যোগে ভেষজ উদ্ভিদ চাষের বিস্তার ঘটানো যায়, তবে কেবল আমদানী ব্যয় হ্রাসই নয়, বিদেশেও রপ্তানী করে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব হবে।

‘আজারকে ঘিরে দল সাজাতে পারবে রিয়াল’

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ সম্প্রতি দলে নেওয়া এদেন আজারকে ঘিরে রিয়াল মাদ্রিদ নতুন একটি দল তৈরি করতে পারবে বলে মনে করেন বেলজিয়ান তারকা ফরোয়ার্ডের জাতীয় দলের কোচ রবের্ত মার্তিনেস। গত শুক্রবার পাঁচ বছরের চুক্তিতে চেলসি থেকে আজারকে দলে নেওয়ার কথা জানায় রিয়াল। ২০১২ সালে লিল থেকে চেলসিতে যোগ দেওয়ার পর ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের দলটির হয়ে ৩৫২ ম্যাচে ১১০ গোল করেন আজার। আগামী বৃহস্পতিবার বেলজিয়ামের এই ফরোয়ার্ডকে সান্তিয়াগো বের্নাবেউ স্টেডিয়ামে সমর্থকদের সঙ্গে আনুষ্ঠানিকভাবে পরিচয় করিয়ে দেবে রিয়াল। তারকা ফরোয়ার্ড ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো ২০১৮ সালে রিয়াল ছেড়ে ইউভেন্তুসে পাড়ি জমানোর পর কোনো শিরোপার স্বাদ পায়নি স্পেনের দলটি। রিয়ালের ‘নতুন শুরুর’ চাওয়া পূরণে আজার অনুঘটক হতে পারেন বলে বিশ্বাস মার্তিনেসের। “সে অসাধারণ ব্যক্তিত্বের একজন মানুষ। একটা ম্যাচে তার মনোযোগের মধ্যে নিহিত থাকে তা জয়ের বিষয়টি।” “সে এখন তার ক্যারিয়ারের সেরা ফুটবল খেলছে এবং তার মতো একজন খেলোয়াড় নিয়ে একটা নতুন প্রকল্প তৈরি করা যেতে পারে।” “এদেন একজন অসাধারণ ফুটবলার এবং আমি মনে করি, তার ক্যারিয়ারের আরও কিছু নতুন অধ্যায় লেখা হতে পারে। রিয়ালে যাওয়া তার স্বপ্ন ছিল এবং যাওয়াটা তার ক্যারিয়ারের পরবর্তী নিখুঁত পদক্ষেপ।” চেলসিকে গত মৌসুমের ইউরোপা লিগের শিরোপা এনে দেন আজার। প্রিমিয়ার লিগে দলটির তৃতীয় হওয়াতেও দারুণ ভূমিকা রাখেন ২৮ বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ড। রিয়ালে আজারের খেলা দেখতে মুখিয়ে আছেন বলেও জানান মার্তিনেস।

 

আঙ্গুলের চোটে ভারতের পরের দুই ম্যাচে অনিশ্চিত ধাওয়ান

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ আঙ্গুলের চোটে নিউ জিল্যান্ড ও পাকিস্তানের বিপক্ষে ভারতের পরের দুই ম্যাচে খেলতে নাও পারেন শিখর ধাওয়ান। রোববার অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ১১৭ রানের ইনিংস খেলার পথে প্যাট কামিন্সের বলে বাঁ হাতের বুড়ো আঙ্গুলে চোট পান ধাওয়ান। পরে অস্ট্রেলিয়ার ইনিংসে ফিল্ডিং করেননি এই ওপেনার। মঙ্গলবার স্ক্যানের পর তার চোট সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা পাওয়া যাবে বলে জানিয়েছে ইএসপিএন ক্রিকইনফো।

চোটে পড়ায় পাকিস্তানের বিপক্ষে অস্ট্রেলিয়া দলে নেই স্টয়নিস

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ সাইড স্ট্রেইনের জন্য বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে অস্ট্রেলিয়ার পরের ম্যাচে খেলতে পারবেন না অলরাউন্ডার মার্কাস স্টয়নিস। বাংলাদেশ সময় বুধবার বেলা সাড়ে তিনটায় পাকিস্তানের মুখোমুখি হবে অস্ট্রেলিয়া। আগেরদিন দলটির অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ সংবাদ সম্মেলনে বলেন, “মার্কাস স্টয়নিসকে সাইড স্ট্রেইন ভোগাচ্ছে। আগামীকাল সে খেলতে পারবে না।” টুর্নামেন্টে এখন পর্যন্ত বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের খেলা তিনটি ম্যাচেই একাদশে ছিলেন স্টয়নিস। রোববার ওভালে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে চোট পান তিনি। স্টয়নিসের ব্যাক-আপ হিসেবে উড়িয়ে আনা হচ্ছে আরেক অলরাউন্ডার মিচেল মার্শকে। তবে চূড়ান্তভাবে স্টয়নিসের পরিবর্তে মার্শকে ১৫ সদস্যের দলে অন্তর্ভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিতে অপেক্ষা করছে অস্ট্রেলিয়া। “সতর্কতা হিসেবে মিচেল মার্শকে উড়িয়ে আনা হচ্ছে। শুক্রবার অস্ট্রেলিয়া ‘এ’ দলের সঙ্গে তার আসার কথা ছিল।” “সতর্কতার অংশ হিসেবে সে কয়েকটা দিন আগেই আসছে, যদি স্টয়নিস যথেষ্ট দ্রুত সেরে না ওঠে।” ভারতের বিপক্ষে হেরে যাওয়া ম্যাচে ৭ ওভারে ৬২ রানে দুটি উইকেট নেন স্টয়নিস। পরে ব্যাট হাতে ফেরেন শূন্য হাতে। বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম দুই ম্যাচে আফগানিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারায় অস্ট্রেলিয়া।

 

বৃষ্টিতে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচ পরিত্যক্ত

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ বৃষ্টি মাথায় নিয়েই দিনটা শুরু হয়েছে ব্রিস্টলে। বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচ হবে কি না এ নিয়ে অনিশ্চয়তা তাই শুরু থেকেই ছিল। মাঝখানে বৃষ্টি বন্ধ হয়েছিল। কিন্তু আবার বৃষ্টি শুরু যে হয়েছিল, সেটা আর থামেনি। দুই আম্পায়ার তাই নির্ধারিত সময়ের বেশ আগেই ম্যাচ পরিত্যক্ত ঘোষণা করেছেন। স্থানীয় সময় সকাল ১২টা ১৫ মিনিটে দুই আম্পায়ার মাঠ পরিদর্শন করে টস কখন হবে সে সিদ্ধান্ত জানাতে চেয়েছিলেন। কিন্তু বৃষ্টির কারণে মাঠ পর্যবেক্ষণেই যাওয়া হয়নি আম্পায়ারদের। দুপুর ১টা ৪৫ মিনিটের (বাংলাদেশ সময় ৬টা ৪৫ মিনিট) দিকে বৃষ্টি মাথায় নিয়েই মাঠে নেমেছেন দুই আম্পায়ার। কিছুক্ষণ আলোচনার পর জানিয়ে দিয়েছেন আজ আর মাঠে নামা সম্ভব নয় কারও পক্ষে। প্রথমে জানানো হয়েছিল বাংলাদেশ সময় রাত ৯টা ১৫ মিনিট পর্যন্ত অপেক্ষা করা হবে। কারণ কম পক্ষে ২০ ওভারের ম্যাচ খেলতে চাইলে এর পর আর শুরু করা যেত না। কিন্তু টানা বৃষ্টিতে মাঠ অনুপযুক্ত হয়ে পড়ায় ততক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি আম্পায়ারদের। ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ায় পয়েন্ট ভাগ হয়ে গেছে দুই দলের মধ্যে। সবচেয়ে বেশি পরিত্যক্ত হওয়ার রেকর্ড গড়ল ২০১৯ বিশ্বকাপ। ৪ ম্যাচ শেষে বাংলাদেশের পয়েন্ট এখন ৩। বাংলাদেশের সেমিফাইনালে যাওয়ার পথ বেশ কঠিন হয়ে গেল।