শ্রমিকলীগ নেতা আমজাদ আলী খানের পিতা-মাতার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ইফতার মাহফিল

পবিত্র মাহে রমজানে কুষ্টিয়া জেলা জাতীয় শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক আমজাদ আলী খানের মাতা মরহুম রাহেলা খাতুন এর ৩২তম ও পিতা মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা রজব আলী খানের ১৮তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার কুষ্টিয়া শহরের পূর্ব মিলপাড়ায় আমজাদ আলী খানের নিজ বাসভবনে এ ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।  জেলা জাতীয় শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক আমজাদ আলী খান ও জেলা  জাতীয় মহিলা শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেরুন  নেসা বিউটির সার্বিক আয়োজনে এবং  ইমরান খান হিরো ও কামরুন খান ঐতিহ্য এর তত্ত্বাবধানে ইফতার ও দোয়া মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও  শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান (আতা), শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি তাইজাল আলী খান সহ  জেলা ও উপজেলা শ্রমিক লীগের নেতাকর্মীসহ বিভিন্ন শ্রেণী  পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন। এসময় মরহুমদ্বয়ের আত্মার শান্তি দেশবাসীর মঙ্গল কামনায় বিশেষ মোনাজাত করা হয়। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

দৌলতপুর সীমান্তে গাঁজা উদ্ধার 

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তে বিজিবি’র অভিযানে গাঁজা উদ্ধার হয়েছে। তবে উদ্ধার হওয়া মাদকের সাথে জড়িত কেউ আটক হয়নি। শুক্রবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের সীমান্ত সংলগ্ন মোহাম্মদপুর মাঠে রামকৃষ্ণপুর বিওপি’র টহল দল অভিযান চালিয়ে মালিক বিহীন অবস্থায় ১ কেজি ২০০ গ্রাম গাঁজা উদ্ধার করেছে। তবে উদ্ধার হওয়া মাদকের সাথে জড়িত কেউ আটক হয়নি।

ঝিনাইদহে ভিজিএফ কার্ডের চাল বিতরণ

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ৩টি ইউনিয়ন পরিষদে ভিজিএফ কার্ডের চাল বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল হলিধানি, কালিচরণপুর ও পাগলাকানাই ইউনিয়নে এই চাল বিতরণ করা হয়। চাল বিতরণ করেন হলিধানী  ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ, কালিচরণপুর ইউপি চেয়ারম্যান কৃষ্ণপদ দত্ত, পাগলাকানাই ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম। এসময় উপস্থিত ছিলেন উক্ত ইউনিয়ন পরিষদের সচিবগন। এছাড়াও ইউনিয়ন পষিদের সকল মেম্বরবৃন্দ ও স্থানীয় বিভিন্ন শ্রেনীপেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন। এসময় হলিধানী ইউনিয়ানে ১৬৯৪ জন, কালিচরণপুর ইউনিয়ানে ১৩৯১ জন ও পাগলাকানাই ইউনিয়নে ১৬০১ জন দুস্থদের মাঝে ভিজিএফ কার্ডের ১৫ কেজি করে চাউল বিতরণ করা হয়।

ঈদ উপলক্ষে পোড়াদহ ইউপিতে চাউল বিতরণ

মিলন আলী ॥ কুষ্টিয়া মিরপুর উপজেলার পোড়াদহ ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সেলিম হাসান ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বর ও গন্যমান্য ব্যক্তির উপস্থিতিতে ঈদ উপলক্ষে হত দরিদ্রদের মাঝে ১৫ কেজি করে চাউল বিতরণ করেন। গরীব অসহায় ছিন্নমুল মানুষের সাথে ঈদের আনন্দকে ভাগ করে নেওয়ার জন্য সরকারের পক্ষ থেকে চেয়ারম্যান ও মেম্বরদের মাধ্যমে ৫৭৫ জনের মধ্যে ১৫ কেজি করে চাউল বিতরন করা হয়। চাউল বিতরন শেষে অতিরিক্ত আরও প্রায় ১০০ জনকে ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে চাউল ক্রয় করে ৫ কেজি করে চাউল বিতরন করা হয়। এ সময়  উপস্থিত ছিলেন, ইউপি সদস্য তৈয়বুর রহমান মন্টু, বশিউর রহমান, মাসুদ আজিজুল হক, আমিরুল ইসলাম , মোজাম্মেল হক, শফি মেম্বর, দুলাল, মহিলা মেম্বর ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ।

মোদীর প্রথম দিনেই ‘দ্রুততম বৃদ্ধির দেশে’র খেতাব হারাল ভারত

ঢাকা অফিস ॥ ভারতে দ্বিতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নরেন্দ্র মোদীর কাজের প্রথম দিনই খারাপ খবর বয়ে এনেছে দেশের অর্থনীতির জন্য। চীনের কাছে প্রথমবারের মতো বিশ্বের দ্রুততম-প্রবৃদ্ধশীল অর্থনীতির দেশের খেতাব হারিয়েছে ভারত। শুক্রবার ২০১৮-১৯ অর্থবর্ষের শেষ ত্রৈমাসিক ও পুরো বছরের বৃদ্ধির হার প্রকাশ করেছে কেন্দ্রীয় পরিসংখ্যান মন্ত্রণালয়। তাতেই দেখা গেছে, প্রায় ৫ বছরে ভারতের অর্থনৈতিক বৃদ্ধি ঘটেছে ধীর গতিতে। এপ্রিল ২০১৮ থেকে মার্চ ২০১৯- এ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হার ছিল ৬ দশমিক ৮ শতাংশ। আর জানুয়ারি-মার্চের ত্রৈমাসিক বৃদ্ধির হার নেমে এসেছে ৫ দশমিক ৮ শতাংশে। এর অর্থ হচ্ছে ভারত এখন আর বিশ্বের দ্রুততম-বৃদ্ধির অর্থনৈতিক দেশ না। ভারতের নতুন অর্থমন্ত্রীর জন্য এটি একটি বড় চ্যালেঞ্জ। প্রধানমন্ত্রী মোদীর সামনেও এখন বড় চ্যালেঞ্জ হবে অর্থনীতিতে আস্থা ফেরানো। প্রবৃদ্ধির হারই যে কেবল কমেছে তাই নয় বেকারত্বের হার নিয়েও বিড়ম্বনায় পড়েছেন মোদী। কেন্দ্রীয় শ্রম মন্ত্রণালয়ের তথ্যানুযায়ী, শহুরে এলাকায় বেকারত্বের হার ৭ দশমিক ৮ শতাংশ। গ্রামীণ এলাকায় তা ৫.৩%। গোটা দেশে পুরুষদের মধ্যে বেকারত্বের হার ৬.২%। মহিলাদের মধ্যে তা ৫.৭%। ২০১৭-১৮ সালেও ভারতে বেকারত্বের হার ছিল ৬.১%। যা ৪৫ বছরে সর্বোচ্চ। নতুন প্রবৃদ্ধির পরিসংখ্যানে ভারতে অর্থনীতির নিম্নগতি স্পষ্ট হয়েছে। দেশীয় ভোক্তাদের ক্রয়ক্ষমতাই গত ১৫ বছরে ভারতের অর্থনীতির চালিকা শক্তি হিসাবে কাজ করেছে। তবে গত কয়েকমাসের পরিসংখ্যানে দেখা গেছে ভোক্তার ক্রয়ক্ষমতা কমছে। ভারতীয় গণমাধ্যমগুলোয় উঠে আসছে কীভাবে বিভিন্ন পন্য বিক্রি কমেছে। মোটরগাড়ি থেকে শুরু করে বিভিন্ন পন্য বিক্রি কমার পাশাপাশি আমদানিও চার মাস ধরেই হ্রাস পেয়েছে। তাছাড়া, বিশ্ব অর্থনীতিতে শক্তিশালী অবস্থান করে নিতে হলে ভারতের রপ্তানি খাতও চাঙ্গা করা জরুরি। ঋণ-জর্জরিত এয়ার ইন্ডিয়ার মত সরকারি মালিকানাধীন এন্টারপ্রাইজগুলো বিক্রি করা কিংবা বেসরকারীকরণ করার প্রতিশ্র“তি পূরণে মোদী সরকার খুব একটা অগ্রগতি করতে পারেনি। এবারে বেসরকারীকরণে সরকার আরো অগ্রগামী ভূমিকা রাখুক সেটাই অনেকের প্রত্যাশা। কৃষি খাতে অসন্তোষ দূর করাও এবার মোদী সরকারের আরেকটি অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ। কৃষিখাতে অসন্তোষের স্বল্পমেয়াদী কারণ হচ্ছে, খাদ্যের দাম কমে যাওয়া। তবে এর দীর্ঘমেয়াদী কারণও আছে। ২০০৪-০৫ অর্থবছরে কৃষি, বনায়ন ও মৎস্য খাত মোট জিডিপির ২১ শতাংশ থেকে কমে বর্তমানে ১৩ দশমিক ১০ শতাংশ হয়েছে।

দারিদ্র্যের হার কমেছে – তোফায়েল

ঢাকা অফিস ॥ বর্তমান সরকারের সময়ে হতদরিদ্র’র সংখ্যা ১০০ জনের মধ্যে ১১ জনেরও কম।আগে দারিদ্র্যের সংখ্য ছিলো শতকরা ৪৪ জন। সেটা এখন ২০-২১ জন হয়েছে। আওয়ামী লীগ উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান তোফায়েল আহমেদ গতকাল শনিবার শহরের ওবায়দুল হক মহা বিদ্যালয় মাঠে ঈদুল ফিতর উপলক্ষে গরিব ও দুঃস্থদের মাঝে যাকাতের শাড়ি-লুঙ্গি বিতরণের সময় এ কথা বলেন। দেশের সর্বস্তরের মানুষের অবস্থা এখন অনেক ভালো হয়েছে এ কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজকে বাংলাদেশকে আন্তর্জাতিক বিশ্বে মর্যাদাশালী করেছেন। তার নেতৃত্বে বাংলাদেশ উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে। জাতির পিতার স্বপ্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা বাস্তবায়ন করবো। অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল মমিন টুলু, জেলা আওয়ামী লীগ যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম নকিব,সাংগঠনিক সম্পাদক মইনুল হোসেন বিপ্লব, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ সম্পাদক নজরুল ইসলাম গোলদার।

 

বইয়ের বিতর্কিত অংশের জন্য জাতির কাছে ক্ষমা চাই – এ কে খন্দকার

ঢাকা অফিস ॥ নিজের লেখা বই ‘১৯৭১: ভেতরে-বাইরে’র বিতর্কিত অংশের জন্য সংবাদ সম্মেলন করে জাতির কাছে প্রকাশ্যে ক্ষমা চেয়েছেন মুক্তিযুদ্ধের উপসর্বাধিনায়ক ও সাবেক মন্ত্রী অবসরপ্রাপ্ত এয়ার ভাইস মার্শাল এ কে খন্দকার (বীরউত্তম)। পাশাপাশি মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতির অভিযোগ উঠায় বইয়ের সেই বিতর্কিত অংশটুকু প্রত্যাহার করে নিয়েছেন এই লেখক।

গতকাল শনিবার রাজধানীর ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন ডাকেন এ কে খন্দকার। সেখানে তার লেখা ‘১৯৭১: ভেতরে বাইরে’ বই নিয়ে কথা বলেন। বইয়ের বিতর্কিত অংশটুকু প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন। সেই সঙ্গে বইয়ে উল্লেখিত অসত্য তথ্যের জন্য জাতি ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিদেহি আত্মার কাছেও ক্ষমা চান তিনি। সংবাদ সম্মেলনে এ কে খন্দকার বলেন, আমার লেখা ‘১৯৭১: ভেতরে বাইরে’ বইটি ২০১৪ সালের আগস্টে প্রথমা প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত হয়। বইটি প্রকাশের পর সেটির ৩২ নম্বর পৃষ্ঠায় উল্লেখিত বিশেষ অংশ ও বইয়ের আরও কিছু শব্দ ও বাক্যচয়নের প্রতি সারাদেশে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। এই লেখার জন্য দেশপ্রেমিক জনগণের অনেকেই কষ্ট পেয়েছেন। তিনি বলেন, এই তথ্যটুকু যেভাবেই আমার বইতে আসুক না কেন এই অসত্য তথ্যের দায়ভার আমার। বঙ্গবন্ধু তার ৭ মার্চের ভাষণে কখনোই ‘জয় পাকিস্তান’ শব্দটি বলেননি। তাই আমি আমার বইয়ের ৩২ নম্বর পৃষ্ঠার উল্লেখিত বিশেষ অংশযুক্ত পুরো অনুচ্ছেদটুকু প্রত্যাহার করে নিচ্ছি। একইসঙ্গ আমি জাতির কাছে ও বঙ্গবন্ধুর বিদেহি আত্মার কাছে ক্ষমতা চাইছি।’ প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালে প্রকাশিত এই বইটি ব্যাপক আলোচনার জন্ম দেয়। বইটির একটি অংশে এ কে খন্দকার লিখেন যে, ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানের ঐতিহাসিক সমাবেশে নিজের ভাষণ শেষ করে ‘জয় পাকিস্তান’ বলে স্লোগান দেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। সেসময় বইটি নিষিদ্ধ করারও দাবি ওঠে। আওয়ামী লীগ সরকারের সাবেক এই পরিকল্পনামন্ত্রীর বিচারও দাবি করেন অনেকে। সম্প্রতি একটি বেসরকারি টেলিভিশনকে দেয়া সাক্ষাৎকারে এ কে খন্দকার জানান যে, তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করতে চান। তিনি বইয়ের বিতর্কিত অংশের জন্য জাতির কাছে ক্ষমা চাইতে চান। গতকাল প্রকাশ্যে সেই ক্ষমা চাইলেন।

পাটিকাবাড়ী ইউপিতে হতদরিদ্রদের মাঝে শাড়ী লুঙ্গী বিতরণ

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া সদর উপজেলার পাটিকাবাড়ী ইউপিতে সদর এমপি আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক ও সদর এমপি মাহবুবউল আলম হানিফের পক্ষ থেকে দরিদ্র অসহায় মানুষদের মাঝে শাড়ী বিতরণ করা হয় । ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক সফর উদ্দিনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি বিশিষ্ট সমাজ সেবক সাইদুর বিশ্বাস। বিশেষ অতিথি ছিলেন ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি নাসির উদ্দিন বিশ্বাস, সাধারন সম্পাদক শাখাওয়াত হোসেন, ইউপি সদস্য আবউল কাশেম, আ.লীগ নেতা আব্দুল মালেক, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোশারফ হোসেন বুদু, যুবলীগ নেতা লাল মিয়া, ইয়াহিয়া খান, মোহাম্মদ আলী, লিটন সহ আরও অনেকে।

 

ব্রিটিশ রাজবধূ মার্কেলের প্রশংসায় ট্রাম্প

ঢাকা অফিস ॥ যুক্তরাজ্য সফরের আগে ব্রিটিশ যুবরাজ হ্যারির স্ত্রী মেগান মার্কেলের প্রশংসায় পঞ্চমুখ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সান পত্রিকাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প বলেন, আমার মনে হয় না ২০১৬ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময় মার্কিন বংশোদ্ভূত ওই ব্রিটিশ রাজবধূ আমার সমালোচনা করেছিলেন। তিনি আরও বলেন, মেগান মার্কেল এতোটা নোংরা না। আমি চাই ব্রিটিশ রাজ পরিবারে নিজের যোগ্যতায় স্থান করে নেবেন তিনি। ২০১৮ সালের মে মাসে ব্রিটিশ যুবরাজ হ্যারির সঙ্গে বিয়ে হয় মার্কিন অভিনেত্রী, মডেল এবং মানবাধিকার কর্মী মেগান মার্কেলের। মার্কলের জন্ম যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া রাজ্যের লস অ্যাঞ্জেলেস শহরে এবং তিনি সেখানেই প্রতিপালিত হন। তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় রাজ্যের ইভানসস্টন শহরে অবস্থিত নর্থওয়েস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে থিয়েটার এবং আন্তর্জাতিক গবেষণা বিষয়ের ওপর স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। বিয়ের পর অভিনয় ছেড়ে দেন। এ মাসেই ডাচেস অব সাসেক্স, মেগান মার্কেল একটি পুত্র সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। এটা তাদের প্রথম সন্তান।

 

বিআরবি গ্রপের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মজিবর রহমানকে বঙ্গবন্ধু উলামা পরিষদের ফুলেল শুভেচ্ছা

দেশবরেণ্য শিল্পপতি বিআরবি গ্র“পের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মজিবর রহমানকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু উলামা পরিষদের কুষ্টিয়া জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ। গতকাল শনিবার দুপুরে বিআরবি’র অফিস কার্যালয়ে আলহাজ্ব মজিবর রহমানের সাথে সৈৗজন্য সাক্ষাত করে বঙ্গবন্ধু উলামা পরিষদের কুষ্টিয়া জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ এ ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু উলামা পরিষদের কুষ্টিয়া জেলা শাখার সভাপতি মাওলানা ফারুক আযম জিহাদী, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা খালিদ হোসাইন, সাংগঠনিক সম্পাদক ইউনুছ আলী, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক প্রভাষক মাওলানা ফারুক সিদ্দিক, সদস্য মাওলানা আবু নাঈমসহ সংগঠনের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। নেতৃবৃন্দ বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায় তার আদর্শের আলেম উলামাদের নিয়ে জঙ্গী, সন্ত্রাস মাদকমুক্ত সমাজ গঠনে কাজ করে ডিজিটাল দেশ গঠনের সহযোগিতা কামনা করেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

কাবুলে মার্কিন সেনা বহরে হামলা

ঢাকা অফিস ॥ আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাদের একটি বহরে গাড়িবোমা হামলায় চার বেসামরিক নাগরিক নিহত এবং চার সেনা আহত হয়েছেন। আহত চারজনই মার্কিন সেনা। আফগান তালেবান শুক্রবারের এ হামলার দায় স্বীকার করেছে। মার্কিন সেনাদের টার্গেট করেই এ হামলা চালানো হয়েছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক কমান্ড। গত দু’দিনে কাবুলে এটি দ্বিতীয় হামলা। একদিন আগেই একটি সেনা প্রশিক্ষণ একাডেমির বাইরে আত্মঘাতী বোমা হামলায় অন্তত ছয়জন নিহত হয়। জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) ওই হামলার দায় স্বীকার করেছিল।

 

ভেড়ামারায় ডাঃ এস. এম. মুসতানজীদের আয়োজনে ইফতার মাহফিল

আল-মাহাদী ॥ কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজে’র অধ্যক্ষ ও সোসাইটি অব বাংলাদেশের সদস্য অধ্যাপক ডাঃ এস. এম. মুসতানজীদ (লোটাস) এর আয়োজনে পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে ইফতার মাহফিল গতকাল শনিবার ভেড়ামারা উপজেলা অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ইফতার মাহফিলে ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহেল মারুফ, ভেড়ামারা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোল্লা খবির উদ্দিন, ওসি (তদন্ত) আন-নূর জায়েদ, ভেড়ামারা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী আক্তারুজ্জামান মিঠু, মিরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন, ভেড়ামারা পৌরসভার মেয়র আলহাজ্¦ শামিমুল ইসলাম ছানা, কেন্দ্রীয় জাসদের সাংগঠনিক সম্পাদক আলহাজ¦ আব্দুল আলীম স্বপন, ভেড়ামারা সরকারি মহিলা কলেজে’র অধ্যক্ষ আব্দুর রাজ্জাক রাজা, বিজেএম ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ আসলাম উদ্দিন, উপজেলা জাসদের সাধারণ সম্পাদক আনসার আলী, ডাঃ আবু সাঈদ, এ্যাড. আশরাফ, ফেমাস সরোয়াদ্দীসহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানগণ, স্থানীয় সাংবাদিকবৃন্দ, এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। ইফতারের পূর্বে দেশ ও জাতির সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।

কুষ্টিয়া জেলা বাস মিনিবাস ও মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়ন, রেজিঃ নং-খুলনা-৭২ এর সদস্য শ্রমিকবৃন্দ যারা দূর্ঘটনা ও স্বাভাবিকভাবে মৃত্যুবরণ করেছেন তাদের তাদের পরিবারকে সংগঠনের পক্ষ থেকে ধারাবাহিকভাবে অনুদান প্রদান অব্যাহত রেখেছে। এদের মধ্যে গতকাল শনিবার ২ জন ড্রাইভার ও ৪ জন হেলপারের পরিবারকে অনুদান প্রদান করা হয়। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

প্রত্যয় যুব সংঘের উদ্যোগে অসহায় পথশিশুদের মাঝে বস্ত্র বিতরণ ও ইফতার মাহফিল

ইভটিজিং মাদক বাল্য বিবাহ, পথশিশুদের নিয়ে কাজ করা কুষ্টিয়ার সামাজিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন প্রত্যয় যুব সংঘের উদ্যোগে অসহায় পথশিশুদের মাঝে নতুন ঈদ বস্ত্র বিতরণ ও ইফতার মাহফিল গতকাল শনিবার কুষ্টিয়ার ফুড জোন চাইনিজ রেষ্টুরেন্টে বস্ত্র বিতরন ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ চলচিত্র শিল্পী সমিতির প্রাক্তন সভাপতি ও প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক অভিনেতা আহমেদ শরীফ, এসময় প্রত্যয় যুব সংঘের সভাপতি এস এম সুমনের সভাপতিত্বে টেলি কন্সফারেন্সের মাধ্যমে বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মামাতো বোন বিশিষ্ট আওয়ামীলীগ নেত্রী শেখ মিলি। উপস্থিত ছিলেন রবীন্দ্র সঙ্গীত সম্মেলন পরিষদের সভাপতি কবি আলম আরা জুই, কুষ্টিয়া পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের ইন্সট্রাক্টর ইমতিয়াজ সুলতান, কুষ্টিয়া পাবলিক স্কুল এর প্রিন্সিপাল শেখ শাহাবুদ্দিন, বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব কনক চৌধুরী, প্রত্যয় যুব সংঘের সহ সভাপতি শফিকুর রহমান শফিক, সাধারণ সম্পাদক তামজিদ বিশ্বাস তনু, সাংগঠনিক সম্পাদক তানজিদুর রহমান সৈকত, অর্থ সম্পাদক সজিবুল ইসলাম, সাংস্কৃতিক সম্পাদক হাসমির রহমান অনিক, সহ সাধারণ সম্পাদক নুর উদ্দিন পিয়াস, তোফাজ্জল  হোসেন তুফান, নির্বাহী সদস্য রাজ আহমেদ মিরাজ জমিদার শান্ত, ফারদিন আহমদ, মাহাদী বিশ্বাস, আকিব বিশ্বাস, ওসাইদ অর্ক, রাকিবুল ইসলাম আপন, আকিব মুর্তাবির সহ অন্যান্য সদস্যবৃন্দ। ইফতার মাহফিল শেষে ১২০ জন গরীব অসহায় পথশিশুদের মাঝে নতুন ঈদবস্ত্র বিতরণ করা হয়। এসময় প্রতিটি টেবিলে গিয়ে পথশিশুদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন অভিনেতা আহমেদ শরীফ। তাকে কাছে পেয়ে খুশিতে মেতে ওঠে অসহায় পথশিশুরা। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

ইসলামে আত্মীয় ও প্রতিবেশীদের প্রতি কর্তব্য পালনে জোর দেয়া হয়েছে

আ.ফ.ম নুরুল কাদের ॥ রমজানুল মোবারকের আজ ২৭ তারিখ। অফুরন্ত কল্যাণের বার্তাবাহী এ মাসের মাহাত্ম্য প্রসঙ্গে হজরত সালমান ফারসি রাজিয়াল¬াহ আনহু বর্ণিত হাদীসে মহানবী সঃ ইরশাদ করেছেন, এটা সমবেদনার মাস। পারস্পরিক সম্প্রীতি ও সহানুভূতি পৃথিবীতে মানবজাতির অস্তিত্ব ও স্থায়িত্বের  অন্যতম শর্ত। তাই ইসলামে এই দিকটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কুরআন মজিদে মাতা-পিতা, আত্মীয়স্বজন ও সব মানুষের সাথে সদাচার ও সহানুভূতিমূলক আচরণের ওপর বিশেষ গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। ইসলামে আত্মীয় ও প্রতিবেশীদের প্রতি কর্তব্য পালনের ওপর এতই জোর দেয়া হয়েছে, বিশ্বের অন্য  কোনো ধর্ম ও আদর্শে যার নজির পাওয়া যায় না। মহানবী সঃ বলেন, জিবরাইল আল¬াইহিস সালাম আমাকে প্রতিবেশীর অধিকার আদায়ে এতই তাগিদ দিতে থাকেন যে আমি মনে করেছিলাম প্রতিবেশীকে উত্তরাধিকারী সাব্যস্ত করা হবে। আদম -হাওয়ার সন্তান হিসেবে পৃথিবীর সব মানুষ একই পরিবারের সদস্য এবং তাদের পারস্পরিক সম্পর্ক হতে হবে সহমর্মিতা ও সহানুভূতিমূলকÑ এটাই ইসলামের শিক্ষা। কুরআন মজিদে মুসলমানদের একে অপরের ভাই বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে। (সূরা হুজুরাত-১০) । হাদিস শরীফে পুরো সৃষ্টিজগৎকে আল¬াহর পরিবার সাব্যস্ত করে সৃষ্টির সেবাকে আল¬াহর প্রিয়পাত্র হওয়ার উপায় বলে বর্ণনা করা হয়েছে। হজরত আনাস (রাঃ) আনহু বর্ণনা করেন, হজরত নবী করিম সাঃ এরশাদ করেন, সৃষ্টিকুল আল¬াহর পরিবার। এই পরিবারের কল্যাণে যে ব্যক্তি আত্মনিয়োগ করে  সে আল¬াহর নিকট সবচেয়ে প্রিয়। মহানবী সঃ পুরো মুসলিম উম্মাহকে একটি দেহের সাথে তুলনা করেছেন। তিনি বলেন, কারো  চোখে যন্ত্রণা হলে যেমন পুরো শরীর অস্বস্তিবোধ করে, মাথা ব্যথা হলে যেমন পুরো শরীর অসুস্থ হয়, গোটা মুসলিম উম্মাহ এমনই। পারস্যের কবি শেখ সাদি রহ: তার বিখ্যাত গুলিস্তান গ্রন্থে কাব্যিক ভাষায় বিষয়টি তুলে ধরেছেন। তিনি বলেন, আদম সন্তানেরা একটি দেহের অঙ্গ প্রত্যঙ্গের মতো। কেননা তাদের সৃষ্টির মূল উৎস একটাই। একটি অঙ্গে যখন যন্ত্রণা হয় অন্য অঙ্গগুলোরও তখন স্বস্তি থাকে না। অন্যদের ব্যথায় যদি নির্বিকার থাক, তাহলে তুমি মানুষ নামে আখ্যায়িত হওয়ার যোগ্য নও। ইসলাম এমন সমাজ ব্যবস্থার নির্দেশনা দেয় যেখানে একে অপরের সুখ ও আনন্দে যেমন শরিক হবে তেমনি দুঃখকষ্টের বেলায়ও সবাই একে অপরের পাশে এসে দাঁড়াবে। মাহে রমজানে সিয়াম সাধনার মাধ্যমে মুমিনদের মধ্যে পরস্পরের মধ্যে সহানুভূতি ও সমবেদনার গুণ অর্জিত হয়। বিশেষ করে যারা দুস্থ, অনাহারের কষ্ট যাদের সহ্য করতে হয় তাদের ব্যথা বোঝার সুযোগ হয় সিয়াম পালনের কারণে। যারা কখনো ক্ষুধার যন্ত্রণা পোহায়নি, খাবারের অভাব কাকে বলে তা যারা জানে না তারা কিভাবে বুঝবে অভাবী লোকদের ব্যথা? লাগাতার একমাস রোজা রাখার কারণে এই ব্যক্তিরা নিরন্ন মানুষের প্রতি সদয় হওয়ার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করতে পারে। পুরো একমাস রোজার হুকুম দেয়ার একটা তাৎপর্য বোঝা যায় এখান থেকে। কেননা দু-এক দিন খাবার গ্রহণে ব্যত্যয়ের কোনো প্রভাব নাও পড়তে পারে। কিন্তু লাগাতার একমাস সুনির্দিষ্ট দীর্ঘ সময় খাবার গ্রহণ থেকে বাধ্যতামূলক বিরত থাকার অভিজ্ঞতা অবশ্যই একজন মানুষকে সচেতন করবে। অভাবী ও গরিব মানুষের প্রতি অন্তরে দয়ার উদ্রেক হবে এবং তাদের কল্যাণে ভূমিকা পালনের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করবে। প্রকৃতপে অধীনস্থদের প্রতি সদয় আচরণের তাগিদ রয়েছে সারা বছরের জন্য। তাই রমজানের এই শিক্ষা যদি সারা বছর অনুসরণ করা যায় তাহলে  যেমন সিয়াম পালন সার্থক হবে তেমনি সমাজে নেমে আসতে পারে জান্নাতি পরিবেশ।

 

জলবায়ু খাতে হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ চায় টিআইবি

ঢাকা অফিস ॥ আসন্ন ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরের জাতীয় বাজেটে জলবায়ু পরিবর্তনসংক্রান্ত খাতে কমপক্ষে এক হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ এবং অর্থের ব্যবহারে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতে কৌশলগত দিক-নির্দেশনার দাবি জানিয়েছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। গতকাল শনিবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ দাবি জানায় প্রতিষ্ঠানটি। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্ট ফান্ড (বিসিসিটিএফ) গঠন এবং ২০০৯ -২০১০ অর্থবছর হতে জাতীয় বাজেট থেকে বাংলাদেশ সরকার এই তহবিলে অর্থ বরাদ্দ করে আসছে। এটি ‘প্যারিস চুক্তি’ স্বাক্ষরকারী উন্নত দেশগুলো থেকে বাংলাদেশের তহবিল প্রাপ্তির যৌক্তিক ভিত্তিকে সুদৃঢ় করেছে। টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, বিসিসিটিএফ গঠনের পর এই তহবিলে প্রথম তিন বছরে প্রতি বছর ৭০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হলেও জলবায়ু পরিবর্তনে ক্ষয়ক্ষতির ঝুঁকির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে বাজেট বরাদ্দ বৃদ্ধি পায়নি, বরং ক্রমান্বয়ে হ্রাস পেয়েছে। অন্যদিকে সবুজ জলবায়ু তহবিলসহ উন্নত দেশগুলো গঠিত অন্যান্য আন্তর্জাতিক জলবায়ু তহবিলে বাংলাদেশের অভিগম্যতাও এখন পর্যন্ত সন্তোষজনক নয়। ঝুঁকি বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে চাহিদার বিপরীতে অর্থের জোগান কমে যাওয়ার এই চিত্র উদ্বেগজনক। তাই জলবায়ু পরিবর্তনের ক্রমবর্ধমান ঝুঁকি মোকাবিলায় বিসিসিটিএফের তহবিলের ঘাটতি পূরণে আসন্ন ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরের জাতীয় বাজেটে কমপক্ষে এক হাজার কোটি টাকা বরাদ্দের জোর দাবি জানায় টিআইবি। টিআইবির নির্বাহী পরিচালক আরো বলেন, জলবায়ু খাতে অর্থ ব্যবস্থাপনায় স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা সম্ভব না হলে, ভবিষ্যতে জলবায়ু পরিবর্তনজনিত ক্ষয়ক্ষতি ও ঝুঁকি যেমন বৃদ্ধি পাবে, তেমনি সবুজ জলবায়ু তহবিলসহ সংশ্লিষ্ট আন্তর্জাতিক তহবিলে বাংলাদেশের অভিগম্যতা চ্যালেঞ্জের মুখে পড়বে, যা কোনোভাবেই কাম্য নয়। তবে, জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাত মোকাবিলা ও অর্থায়নে বাংলাদেশ সরকারের বহুমুখী ও যুগোপযোগী উদ্যোগ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হয়েছে বলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।

 

ঈদের আগে খালেদার মুক্তি দাবি খন্দকার মোশাররফের

ঢাকা অফিস ॥ মানবিক কারণে ঈদের আগে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করেছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন। গতকাল শনিবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে জিয়াউর রহমানের ৩৮তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বহুদলীয় গণতন্ত্র ও বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ দাবি করেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদ। খন্দকার মোশাররফ বলেন, দেশের মানুষ আস্তে আস্তে উত্তেজিত হচ্ছে, বিক্ষিপ্ত হচ্ছে। জনগণের সামনে কোনো শক্তি দাঁড়াতে পারেনি, আগামীতেও পারবে না। তাই সরকারের কাছে দাবি করছি, ঈদের আগেই মানবিক কারণে হলেও খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিন। তিনি বলেন, খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে কারাগারে রাখা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নিজেই বলেছেন, তারেককে লাফালাফি করতে না করো, নইলে ওর মা আর কখনোই কারাগার থেকে মুক্তি পাবে না। এটা থেকেই বোঝা যায় আইনি নয়, রাজনৈতিক কারণে খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে আটকে রাখা হয়েছে। খন্দকার মোশাররফ বলেন, সরকার বিএনপিকে দুর্বল করার জন্য নানাভাবে অপপ্রচার করছে। বিএনপি আগের মতোই শক্তিশালী আছে। তবে ক্ষমতার কাছে নীতি-নৈতিকতা পরাস্ত। তাই এখান থেকে পরিত্রাণের জন্য জিয়াউর রহমানের আদর্শ নিয়ে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। তিনি বলেন, এ সংকটকালীন জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। তাহলেই আন্দোলনের মাধ্যমে আমাদের দাবি আদায় করা সম্ভব বলে মনে করেন তিনি। এমাজউদ্দীন আহমদ বলেন, গণতন্ত্রের জননী খালেদা জিয়া কারাগারে কষ্ট করছেন। মাত্র দুই কোটি টাকাকে কেন্দ্র করে এমনটি করা হয়েছে। অথচ প্রধানমন্ত্রীর কাছের লোকজন দুই হাজার কোটি টাকা বা তার চেয়েও বেশি নিয়ে যাচ্ছে তার কোনো শাস্তি হচ্ছে না। আজ মালয়েশিয়াসহ বিভিন্ন দেশে হাজার হাজার কোটি টাকা চলে যাচ্ছে, এসব টাকার কি হবে বলে তিনি জানতে চান। তিনি বলেন, কোনো ষড়যন্ত্র করে জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় আসেননি। ক্ষমতার শূন্যতা ও জনগণের প্রয়োজনে তিনি দায়িত্বগ্রহণ করেন। দেশে যখন সবদল নিষিদ্ধের মাধ্যমে বাকশাল প্রতিষ্ঠা হয়েছিল, সেখান থেকে আওয়ামী লীগকে পুনর্জীবিত করেছিলেন জিয়াউর রহমান। বাকশাল গঠন করে ৪৩টি রাজনৈতিক দলকে নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। পরবর্তীতে জিয়াউর রহমান এসব রাজনৈতিক দলকে রাজনীতি করার সুযোগ করে দিয়েছিলেন। তিনি গণতন্ত্র ফিরিয়ে এনেছিলেন এজন্যই তাকে বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবক্তা বলা হয় বলেও জানান তিনি। বাংলাদেশ জাতীয় দলের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সৈয়দ এহ্সানুল হুদার সভাপতিত্বে সভায় আরো বক্তব্য রাখেন- কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহীম, ডাকসুর সাবেক জিএস খায়রুল কবির খোকন ও আবু নাসের মো. রহমত উল্লাহ প্রমুখ।

 

কুষ্টিয়া জেলা বিএনপির দোয়া ও ইফতার মাহফিল

শহীদ রাষ্টপতি জিয়াউর রহমানের ৩৮তম শাহাদত বার্ষিকী উপলক্ষে কুষ্টিয়া জেলা বিএনপির উদ্যোগে দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকালে জেলা বিএনপির কার্যালয়ে এ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। ইফতার পূর্ব আলোচনা সভায় বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক এমপি সৈয়দ মেহেদী আহমেদ রুমীর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির স্থানীয় সরকার বিষয়ক সম্পাদক জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি অধ্যক্ষ সোহরাব উদ্দিন।  মেহেদী রুমী তার বক্তব্যে বলেন, আমরা গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করে যাব। যতদিন বাংলাদেশে গণতন্ত্র, আইনের শাসন ও বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ফিরে না আসবে, যতদিন গণতন্ত্রের নেত্রী খালেদা জিয়া মুক্ত না হবেন, ততদিন জাতীয়তাবাদী দল মানুষের সঙ্গে থাকবে এবং আন্দোলন করবে। তিনি আরো বলেন, রণাঙ্গনের বীর মুক্তিযোদ্ধা, নির্ভীক নির্মোহ রাষ্ট্রনায়ক শহীদ জিয়ার আদর্শ, দেশপ্রেম, সততা ও কর্মনিষ্ঠা আজ জাতীয়তাবাদী শক্তির প্রেরণার উৎস। তিনি বলেন, শহীদ জিয়ার আহ্বান আদর্শ, দর্শন ও কর্মসূচি আমাদের স্বাধীনতা রক্ষা, বহুদলীয় গণতন্ত্র এবং  দেশীয় উন্নয়ন ও অগ্রগতির রক্ষাকবচ। অধ্যক্ষ সোহরাব উদ্দিন বলেন, জাতির চরম দুঃসময়গুলোতে জিয়াউর রহমান  দেশ ও জনগণের পক্ষে অবস্থান গ্রহণ করেছিলেন। মহান স্বাধীনতার বীরোচিত ঘোষণা, স্বাধীনতাযুদ্ধে অসামান্য ভূমিকা এবং রাষ্ট্র গঠনে তার ছিলো অনন্য কৃতিত্ব।  তিনি আরো বলেন, দেশ আবারো সেই এক দলীয় শাসনের কবলে।  সেখান থেকে মুক্তির একমাত্র উপায় জিয়ার আদর্শ অনুসরণ করা। জেলা বিএনপির এ্যাড.শামীম উল হাসান অপুর পরিচালনায় সভায় আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটি সদস্য ফরিদা ইয়াসমিন, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি এ্যাড. গিয়াস উদ্দিন, বশিরুল আলম চাঁদ, যুগ্ম সম্পাদক মিরাজুল ইসলাম রিন্টু, আব্দুর রাজ্জাক বাচ্চু, অর্থ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন প্রধান, যুব বিষয়ক সম্পাদক মেজবাউ রহমান পিন্টু, ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক কামাল উদ্দিন, স্থানীয় সরকার বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড.আব্দুল ওয়াদুদ মিয়া, সহ-আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড শাতিল মাহমুদ, সহ-দপ্তর সম্পাদক হেলাল উদ্দিন, কুমারখালী থানা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আল কামাল মোস্তফা, ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক ওহিদুল ইসলাম সাবু প্রমুখ। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

সেনাপ্রধানের সঙ্গে জেনারেল হারপাল সিংয়ের সাক্ষাৎ

ঢাকা অফিস ॥ সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন বাংলাদেশ সফররত ভারতের বর্ডার রোডস অর্গানাইজেশনের ডিরেক্টর জেনারেল লেফটেন্যান্ট জেনারেল হারপাল সিং। গত বৃহস্পতিবার সেনাবাহিনী সদর দফতরে সাক্ষাৎকালে তারা কুশল বিনিময় ছাড়াও বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তের ‘বর্ডার রোড প্রজেক্টে’ কারিগরি সহায়তা নিয়ে আলোচনা করেন। এ ‘বর্ডার রোড প্রজেক্ট’ বাস্তবায়িত হলে বাংলাদেশের প্রত্যন্ত সীমান্ত অঞ্চলের নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরো জোরদার হবে বলে আশাপ্রকাশ করেন তারা। গতকাল শনিবার আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতরের (আইএসপিআর) এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিএনপির নেতৃত্বেই গণতন্ত্রের শুভদিন ফিরবে – রিজভী

ঢাকা অফিস ॥ বিএনপির নেতৃত্বেই দেশে গণতন্ত্রের শুভদিন ফিরবে বলে মন্তব্য করেছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। গতকাল শনিবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন। রিজভী বলেন, বিএনপি বিভেদ-বিভাজন ও হতাশায় বিশ্বাস করে না। খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের নেতৃত্বে দেশে গণতন্ত্রের শুভদিন বিএনপিই ফিরিয়ে আনবেই। মানুষ ফিরে পাবে তার নাগরিক স্বাধীনতা। দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব হবে আরও শক্তিশালী। তিনি বলেন, আমাদের চলমান গণতান্ত্রিক আন্দোলন ব্যর্থ হওয়ার নয়। কোনো বাধা-বিপত্তি-প্রতিবন্ধকতা-উস্কানিমূলক কথাবার্তা, কোনো ষড়যন্ত্র আমাদের রুখতে পারবে না। বর্তমান শ্বাসরোধী দুঃশাসনের অবসান হবেই।

‘অবশ্যই বিএনপির নেতৃত্বে রাষ্ট্রের প্রকৃত বহুদলীয় গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার হবেই। খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধারের আন্দোলন সফল হবে ইনশাল্লাহ।’ বিএনপির এ নেতা আরও বলেন, প্রতিকূল পরিস্থিতির মধ্যেও বিএনপি তার সাংগঠনিক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে। নেতাকর্মীরা নির্যাতন-নিপীড়ন সহ্য করেও দুঃশাসনের বিরুদ্ধে সোচ্চার রয়েছে। কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছতে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান দলের সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে পরামর্শ করে সুপরিকল্পিত ও দূরদর্শী সিদ্ধান্তে দল পরিচালনা করছেন বলে রিজভী জানান। তাদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেই যেকোনো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও কার্যকর করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি। রিজভী বলেন, তারেক রহমান বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনসমূহের সর্বস্তরের নেতাদের সঙ্গে প্রতিনিয়ত কথা বলছেন। জেলা নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় করছেন। তাদের যৌক্তিক পরামর্শ গ্রহণ করে বিভিন্ন জেলা-উপজেলা থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় কমিটিগুলো গঠনতান্ত্রিক ও গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় পুনর্গঠন ও সাংগঠনিক কার্যক্রম তত্ত্বাবধান করছেন। তিনি আরও বলেন, সারা দেশে কাউন্সিল হচ্ছে। তারেক রহমানের নির্দেশনায় সারা দেশে সাংগঠনিক কর্মকান্ডে এসেছে নতুন গতি। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের লড়াইয়ে প্রস্তুত হচ্ছেন সর্বস্তরের নেতাকর্মী-সমর্থকরা। নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, লক্ষ্যে পৌঁছাতে বাধা-বিপত্তি আসবেই। এসব অতিক্রম করে আমাদেরকে শিড়দাঁড়া সোজা করে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে।

ছাত্রলীগের সমস্যার সমাধান অচিরেই – কাদের

ঢাকা অফিস ॥ ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার পর সংগঠনটিতে যে জটিলতা চলছে, তার অবসান অচিরেই ঘটানোর আশা করছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। গতকাল শনিবার দুপুরে মহাখালী বাস টার্মিনাল পরিদর্শনে গেলে ছাত্রলীগ নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নে এই আশাবাদ প্রকাশ করেন তিনি। ওবায়দুল কাদের একথা বলার সময়ও পূর্ণাঙ্গ কমিটি নিয়ে বিক্ষুব্ধ একদল ছাত্রলীগ নেতা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থান কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছিল। দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা রয়েছে তাদের। সম্মেলনের এক বছর পর গত ১৩ মে ছাত্রলীগের ৩০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হলে তা পুনর্গঠনের দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন পদ না পাওয়া কিংবা প্রত্যাশিত পদ না পাওয়া নেতারা। ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি কাদের আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে দীর্ঘদিন ধরে সহযোগী সংগঠনটির দেখভাল করে আসছিলেন। এবার তিনি অসুস্থতার কারণে চিকিৎসার জন্য বিদেশে থাকার মধ্যে জটিলতা দেখা দেয়। ছাত্রলীগের সমস্যার সমাধান কবে নাগাদ হতে পারে- সাংবাদিকদের প্রশ্নে কাদের বলেন, “আমার অনুপস্থিতিতে ছাত্রলীগের কমিটির ব্যাপারে নেত্রী আমাদের দলের চারজন নেতাকে দায়িত্ব দিয়েছেন তাদের কমিটি গঠন, অভ্যন্তরীণ কোন্দল বা সাংগঠনিক সমস্যা সমাধানে। “তাদের সাথে আমার কথাবর্তা হয়েছে, যোগাযোগ হচ্ছে। আন্দোলন-প্রতিবাদ করছে যারা, তাদের সঙ্গে আলাপ আলোচনা হচ্ছে। আমি আশা করি, অচিরেই সমাধান হবে।” সরকার রাজনৈতিক স্বার্থে খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখেছে বলে বিএনপির অভিযোগের জবাবও দেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেন, “খালেদা জিয়াকে বন্দি রেখেছে কে? সরকার না মামলা? তত্ত্ববধায়ক সরকারের মামলার কারণে সাজাপ্রাপ্ত হয়ে আদালতের রায়ের কারাগারে আছে। যদি সরকারকে দায়ী করেন, তাহলে তত্ত্ববধায়ক সরকারকে দায়ী করেন। “দেশে আইন আছে, বিচার ব্যবস্থা আছে। আইন অনুযায়ী তিনি আদালতে গেছেন, আদালত তাকে দোষী সাব্যস্ত করেছেন; সাজা দিয়েছেন। সেভাবেই তিনি জেলে আছেন। আইনি লড়াই করে বিএনপির নেতারা তাকে মুক্ত করে আনতে পারে। এখানে সরকারের কোনো করণীয় নেই। বিষয়টি আদালতের এখতিয়ার।” বিএনপির আন্দোলনের হুমকির জবাবে কাদের বলেন, “খালেদা জিয়ার সাজা পাওয়ার এতদিন চলে গেল, আজ পর্যন্ত বিএনপির আন্দোলনের বিন্দু উত্তাপ রাজপথে নেই। এটা তাদের ব্যর্থতা।” আদালতের বিষয় নিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনের কোনো যৌক্তিকতা নেই বলেও মন্তব্য করেন তিনি।