কুমারখালীতে ইসলামী আন্দোলনের আলোচনা সভা, কমিটি ঘোষনা

ইসলামী আন্দোলন কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলা শাখার উদ্যোগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার কুমারখালী পাবলিক লাইব্রেরী মিলনায়তনে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলার সভাপতি ডাঃ গোলাম সরোয়ারের সভাপতিত্বে এবং সেক্রেটারী মাওঃ মিজানুর রহমানের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ইসলামী আন্দোলন কুষ্টিয়া জেলা সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আহাম্মদ আলী। বিশেষ অতিথি হিসেবে আরোও উপস্থিত ছিলেন ইসলামী আন্দোলন কুষ্টিয়া জেলা সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আব্দুল্লাহ আখন্দ, সেক্রেটারী আলহাজ্ব এনামুল হক, সাংগাঠনিক সম্পাদক মুফতি মোজাম্মেল হক কাসেমী, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মু. গোলাম তাওহীদ, ক্বারী নিজাম উদ্দিন, মাওঃ  মোস্তাফিজুর রহমান, মু. আসাদুল্লাহিল গালিব প্রমূখ। আলোচনা সভা শেষে ইসলামী আন্দোলন কুমারখালী উপজেলার ২০১৯-২০ সেশনের কমিটি গঠন করা হয়। উক্ত কমিটিতে সভাপতিঃ ক্বারী খন্দকার নিজাম উদ্দিন, সহ-সভাপতিঃ ডাঃ গোলাম সরোয়ার, মাওঃ মুস্তাফিজুর রহমান, সেক্রেটারীঃ মু.  গোলাম তাওহীদ জয়েন্ট সেক্রেটারীঃ হাফেজ আবু হুরায়রা। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

দৌলতপুর সীমান্তে ভারতীয় মদ উদ্ধার

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তে বিজিবি’র পৃথক অভিযানে ভারতীয় মদ উদ্ধার হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে চরচিলমারী বিওপি’র টহল দল বাবলাতলা মাঠে অভিযান চালিয়ে ২০ বোতল ভারতীয় জেডি মদ উদ্ধার করেছে। অপরদিকে একই বিওপি’র অভিযানিক দল শুক্রবার রাত সোয়া ৮টার দিকে বাবলাতলা মাঠে অভিযান চালিয়ে ২৫ বোতল ভারতীয় জেডি মদ উদ্ধার করেছে। তবে বিজিবি’র এসব মাদক বিরোধী অভিযানে কোন মাদক ব্যবসায়ী বা পাচারকারী আটক হয়নি।

গাংনীতে বন্দুকযুদ্ধে ৯ মামলার আসামী মনি নিহত

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনীতে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় মনিরুল ইসলাম ওরফে মনি (৩০) নামের ৯ মামলার আসামী নিহত হয়েছে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে ১টি পিস্তল ও ১ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে বলে পুলিশের পক্ষ থেকে দাবী করা হয়। নিহত মনি গাংনী উপজেলার ধানখোলা ইউনিয়নের কসবা গ্রামের মৃত ওসমান মোল্লার ছেলে। শুক্রবার দিবাগত রাত ২টার দিকে উপজেলার কসবা-কচুইখালি গ্রামের মধ্যবর্তি মাঠে দু’দল সন্ত্রাসীদের মধ্য বন্দুকযুদ্ধে নিহতের ঘটনা ঘটে। গাংনী থানার ওসি ওবাইদুর রহমান জানান রাতে কসবা ও কচুইখালি গ্রামের মাঝামাঝি মাঠের গোলাগুলি শব্দ হচ্ছিল। খবর পেয়ে স্থানীয় কসবা পুলিশ ক্যাম্পের একটিদল ঘটনাস্থল পৌঁছায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে গোলাগুলি বন্ধ হয়ে যায়। এ সময় ওই স্থান থেকে ১টি পিস্তল ও ১ রাউন্ড গুলি এবং গুলিবিদ্ধ এক ব্যক্তিকে উদ্ধার করা হয়। তাকে দ্রুত গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে নিলে,কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।    নিহত ব্যক্তি সন্ত্রাসী মনিরুল ইসলাম ওরফে মনি বলে পরিচয় নিশ্চিত করে স্থানীয়রা। নিহত মনির বিরুদ্ধে হত্যা-চাঁদাবাজ-বোমাবাজ  ও মাদকদ্রব্য আইনে গাংনী থানায় ৯টি মামলা রয়েছে।  গতকাল শনিবার দুপুরে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে মনির লাশের ময়না তদন্ত শেষে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। পরে বিকেলে জানাজা শেষে স্থানীয় গোরস্থান ময়দানে দাফন সম্পন্ন হয়। উল্লেখ্য, গত এক বছর আগে মনির বড় ভাই জমশেদ আলী গাংনী উপজেলার হেমায়েতপুর ও আমতৈল মানিকদিয়া গ্রামের একটি কলাবাগানে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় নিহত হয়।

কালুখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করলেন সিভিল সার্জন মাহফুজর রহমান সরকার

ফজলুল হক ॥ গতকাল শনিবার রাজবাড়ী জেলাধীন কালুখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করলেন রাজবাড়ী জেলা সিভিল সার্জন মাহফুজর রহমান সরকার। সকাল ১১টায় তিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বিভিন্ন কক্ষ পরিদর্শন করেন এবং স্বাস্থ্য সেবার বিষয়ে ডাক্তারদের দিক নির্দেশনা প্রদান করেন। পরিশেষে তিনি ২দিনব্যাপী কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডারদের অনলাইন ডাটাবেজ প্রশিক্ষণ অবলোকন করেন। এসময় উপজেলা স্বাস্থ্য ও  পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ নুরুল ইসলাম, মেডিকেল অফিসার ডাঃ আব্দুর রহমান, স্বাস্থ্য পরিদর্শক সুশীল কুমার রাহা, সেনেটারী ইন্সপেক্টর মোঃ তালেবুর রহমান ও ইপিআই টেকনোলজিস্ট শম্ভুনাথ দেবনাথ সহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

ইবিতে নতুন একাডেমিক ক্যালেন্ডারের মোড়ক উন্মোচন

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষের একাডেমিক ক্যালেন্ডারের মোড়ক উন্মোচন করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী। গতকাল দুপুর ৩টার দিকে ভিসি কার্যালয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে তিনি দেয়াল, ডেস্ক ও টেবিল ক্যালেন্ডারের মোড়ক উন্মোচন করেন। এসময় প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান, ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা, ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এস. এম. আব্দুল লতিফ, ক্যালেন্ডার মুদ্রণ কমিটির আহ্বায়ক প্রেস প্রশাসক প্রফেসর ড. মোঃ হাবিবুর রহমান (ড. রহমান হাবিব), কমিটির সদস্য প্রফেসর ড. মোঃ জাকারিয়া রহমান, কমিটির সদস্য-সচিব উপ-পরিচালক (জনসংযোগ) মোঃ আতাউল হক, কমিটির অপর সদস্য উপ-রেজিস্ট্রার (জনসংযোগ) মোঃ সাহেদ হাসান প্রমুখ সেখানে উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

১৪তম স্প্যান বসানোয় পদ্মা সেতুর ২ দশমিক ১ কিলোমিটার এখন দৃশ্যমান

ঢাকা অফিস ॥ পদ্মা বহুমুখি সেতু প্রকল্পের মাওয়া প্রান্তে আরো একটি স্প্যান বসানো হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেলে মূল সেতুর মাওয়া প্রান্তে ১৪তম স্প্যানটি বসানো হয়।‘৩-সি’ নম্বর এ স্প্যানটি ১৫ ও ১৬ নং পিলারের উপর স্থাপিত হওয়ায় পদ্মা সেতুর ২ দশমিক ১ কিলোমিটার এখন দৃশ্যমান।প্রথমে গত বৃহস্পতিবার ১৪তম স্প্যানটি বসানোর কথা থাকলেও ১৫ ও ১৬ নং পিলারের কাছে প্রচুর পলি জমে থাকায় ওইদিন স্প্যানটি বসানো সম্ভব হয়নি। পরেরদিন শুক্রবারও পলির কারণে এটি বসানো যায়নি।পদ্মা সেতু প্রকল্পের দায়িত্বশীল প্রকৗশলীদের সূত্রে জানা গেছে, উল্লেখিত পিলার দু’টি সার্ভের পর ড্রেজিং করে পলি সরিয়ে স্প্যানবাহী ক্রেনজাহাজ গতকাল শনিবার যথাস্থানে নোঙ্গর করে। একইদিন বিকেল পৌণে ৪টার দিকে ক্রেনের সাহায্যে ১৪তম স্প্যানটি ১৫ ও ১৬ নং পিলারের উপর বসানোর কাজ সম্পন্ন করা হয়। কর্তব্যরত প্রকৌশলীরা এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।বৃহস্পতিবার স্প্যানবহনকারী ক্রেনজাহাজটি কুমারভোগ কন্সট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে রওয়ানা দিয়ে ১৫ নম্বর খুঁটির কিছু কাছে নোঙর করে রাখা হয়। বৃহস্পতিবার সকালে এটি রয়াওনা হওয়ার কথা থাকলেও প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে দুপুরে রওয়ানা হয়। পরে মাওয়ার কাছাকাছি পদ্মা নদীতে গত দু’দিন (বৃহস্পতি ও শুক্রবার) স্প্যানসহ ক্রেনজাহাজটি নোঙ্গর করা ছিল। ড্রেজিং করে পলি অপসারণের পর আজ শনিবার দুপুরে জাহাজটি যথাস্থানে পৌঁছে স্প্যান বসানোর প্রক্রিয়া শুরু করে এবং বিকেল পৌণে ৪টায় স্প্যানটি বসানোর কাজ শেষ হয়।ধূসর রঙের ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের ৩ হাজার ১৪০ টন ওজনের স্প্যানটিকে মাওয়া কন্সট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে বহন করে যথাস্থানে নিয়ে যায় তিন হাজার ৬০০ টন ধারণ ক্ষমতার ক্রেনজাহাজ ‘তিয়ান ই’।সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীরা জানান, পুরো সেতুতে ২ হাজার ৯৩১টি রোডওয়ে ¯¬্যাব বসানো হবে। আর রেলওয়ে স্ল্যাব বসানো হবে ২ হাজার ৯৫৯টি।২০১৪ সালের ডিসেম্বরে সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হয়। ৪২টি খুঁটির মধ্যে এ পর্যন্ত ২৯টি খুঁটির কাজ সম্পন্ন হয়েছে। ২৯৪টি পাইলের মধ্যে ২৯০টি পাইল স্থাপনের কাজ শেষ হয়েছে। ৪১টি স্প্যানের এ পর্যন্ত ১৪টি স্প্যান বসেছে।মূল সেতু নির্মাণের জন্য কাজ করছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কো¤পানি (এমবিইসি) ও নদী শাসনের কাজ করছে দেশটির আরেকটি প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো করপোরেশন।৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা বহুমুখী সেতুর মূল আকৃতি হবে দোতলা। এ সেতুর কাঠামো কংক্রিট ও স্টিল দিয়ে নির্মিত হচ্ছে বলে সেতু প্রকল্পের প্রকৌশলীরা জানান।

শেখ হাসিনা উন্নয়ন ও অর্জনের মাধ্যমে বিশ্বে বাঙ্গালীর পরিচয় বদলে দিয়েছেন – ড. হাছান

ঢাকা অফিস ॥  আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এবং তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর অসাধারণ নেতৃত্বে উন্নয়ন ও অর্জনের মাধ্যমে বিশ্বে বাঙ্গালীর পরিচয় বদলে দিয়েছেন।তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা দীর্ঘ ৩৮ বছর ধরে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তাঁর নেতৃত্বে দল চারবার ক্ষমতায় এসেছে। উন্নয়ন ও অর্জনের মাধ্যমে তিনি দেশকে বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন।’ড. হাছান বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশ বিশ্ব খাদ্য সংস্থার কাছে কেস স্টাডি। কারণ খাদ্য ঘাটতির দেশ এখন খাদ্য উদ্বৃত্তের দেশে পরিণত হয়েছে। দেশ এখন নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ, অবিস্মরণীয় অর্থনৈতিক উন্নয়নের দেশ।ড. হাছান মাহমুদ গতকাল শনিবার দুপুরে রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা কমিটির উদ্যোগে ‘গৌরবের অভিযাত্রায় ৭০ বছর : তারুণ্যের ভাবনায় আওয়ামী লীগ’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় এ কথা বলেন।সভায় প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এবং আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এইচ টি ইমাম, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, শিক্ষা উপ-মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, দলের উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, কার্য নির্বাহী কমিটির সদস্য অধ্যাপিকা মেরিনা জাহান বক্তব্য রাখেন।সভা পরিচালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার শাহ আলী ফরহাদ।এইচ টি ইমাম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশকে আমরা যে পর্যায়ে নিয়ে এসেছি, সেই দেশকে তরুণ প্রজন্ম কোথায় নিয়ে যাবে সেটাই বড় প্রশ্ন।তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিশন-২০২১, ২০৪১ এবং ২১০০, ডেল্টা প্লান ঘোষণা করেছেন। তা বাস্তবায়নে তরুণ প্রজন্মকে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে উঠতে হবে।আওয়ামী লীগের অন্যতম মুখপাত্র হাছান মাহমুদ বলেন, এক সময় বাংলাদেশ প্রাকৃতিক দুর্যোগের জন্য বিশ্ব গণমাধ্যমে স্থান পেত। সে সময় বাংলাদেশকে বিশ্বের অন্যতম দরিদ্র দেশ বলেও উল্লেখ করা হতো।তিনি বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশ আর প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও দরিদ্র দেশ হিসেবে বিশ্ব গণমাধ্যমের খবর হয় না। এখন বাংলাদেশ ক্রিকেটে সাউথ আফ্রিকা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারানোর জন্য বিশ্ব গণমাধ্যমে স্থান পায়।তিনি বলেন, এখন বাংলাদেশকে আর দরিদ্র দেশ বলার সুযোগ নেই। কারণ এখন বাংলাদেশ নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ, অল্প কিছু দিনের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে।হাছান মাহমুদ বলেন, এখন ২১ ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা দেশের জন্য এই বিরল সম্মান বয়ে এনেছেন।তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ শুধু সরকারী দল হিসেবেই দেশের উন্নয়ন ও সমৃদ্ধি বয়ে আনে নি, বিরোধী দল হিসেবে দায়িত্ব পালন কালেও মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য সংগ্রাম করেছে। দেশে সংসদীয় পদ্ধতির সরকার প্রতিষ্ঠা করে দেশের রাজনৈতিক উন্নয়নে নেতৃত্ব দিয়েছে আওয়ামী লীগ।তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, ২০০৮ সালের আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইস্তেহারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রথমবারের মত তথ্য ও প্রযুক্তি নির্ভর ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। বর্তমানে ডিজিটাল বাংলাদেশ কোন প্রতিশ্রুতি নয়, বাস্তবতা।তিনি বলেন, দেশের তরুণদের চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের উপযোগী নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে বাজেটে প্রয়োজনীয় টাকা বরাদ্ধ রাখা হয়েছে।সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব বন্ধে করণীয় বিষয়ে তিনি বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ছড়ানো অনেকাংশে বন্ধ করা সম্ভব হয়েছে। কিন্তু কিছু কিছু অনলাইন ওয়েব পোর্টালের মাধ্যমে এখনও কিছু কিছু ক্ষেত্রে গুজব ছড়ানো হচ্ছে। এই অনলাইন ওয়েব পোর্টালগুলো নিবন্ধিত হওয়ার পর তা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে।পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, বিদেশে পলাতক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনীদের দেশে ফিরিয়ে আনতে না পারাটা নিজের জন্য সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা বলে মনে করি।তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর ছয় খুনীর বিচারের রায় এখনো কার্যকর করা সম্ভব হয় নি। তার মধ্যে একজন বিদেশে মারা গেছেন বলে জানা গেছে, তিনজন কোন দেশে পালিয়ে রয়েছে তা এখনও জানা যায় নি। তবে দু’জনের অবস্থান সম্পর্কে জানা রয়েছে।দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে আসা ছাত্র-ছাত্রী এবং তরুণ পেশাজীবীরা ভবিষ্যতে আওয়ামী লীগকে কিভাবে দেখতে চায়, সে বিষয়ে নানা প্রশ্ন করেন। মঞ্চে থেকে প্যানেল বক্তারা নিজ নিজ ক্ষেত্রে নানা বিষয়ের প্রশ্নের জবাব দেন।

স্বস্তিপুর পশুহাটে ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষের সাথে মতবিনিময় করলেন অধ্যক্ষ সোহরাব উদ্দিন

গতকাল বিকেলে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার স্বস্তিপুর পশুহাটে ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষের সাথে মতবিনিময় করেন কুষ্টিয়া-৩ (সদর) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও কুষ্টিয়া  জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ সোহরাব উদ্দিন। এসময় তিনি ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষের কাছে গিয়ে তাদের  খোঁজখবর নেন। অনেকেই তাদের জনপ্রিয় নেতা অধ্যক্ষ সোহরাব উদ্দিনকে কাছে পেয়ে আবেগপূর্ণ হয়ে ওঠে। এসময় অনেকেই দলের খোঁজখবর নেন। সাধারণ মানুষের উদ্দেশ্যে অধ্যক্ষ সোহরাব উদ্দিন বলেন, বিএনপির আপনাদের দল। ঝড়-ঝাপটা আসবেই। এতে ভেঙে পড়ার কিছু নেই। একটু ধৈর্য ধরেন আবারো আকাশ পরিষ্কার হবে।  সোনালী রোদ্দুর আপনাদের গায়ে লাগবে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

মেহেরপুরে দু’দিনব্যাপি কুষ্ঠরোগ বিষয়ক কর্মশালার উদ্বোধন

মেহেরপুর প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরে দু’দিনব্যাপি কুষ্ঠরোগ বিষয়ক সচেতনতামূলক কর্মশালা উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল শনিবার মেহেরপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে কর্মশালার আয়োজন করে  বেসরকারী স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা রুরাল ভিশন সংস্থা (আরভি)। দি  নেপ্রসি মিশন ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ ও পিএনএসপির সহযোগিতায় কুষ্ঠরোগ নিরসনের লক্ষ্যে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথি হিসাবে কর্মশালার উদ্বোধন করেন মেহেরপুর জেলা সমাজ সেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আবু তালেব। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা প্রতিবন্ধী কর্মকর্তা তুলশী কুমার পাল, বিটিভির সংবাদ পাঠক আরিফুল ইসলাম, পিএনএসপির জেলা সেক্রেটারী সালমা মাহমুদ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন রুরাল ভিশন সংস্থার পরিচালক আনোয়ারুল ইসলাম। এ সময় কুষ্ঠরোগের লক্ষণ, কারণ ও সচেতনতামূলক বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন দি নেপ্রসি মিশন ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ-এর  সমন্বয়কারী আব্দুল খালেক। কর্মশালায় বক্তব্য প্রদানকালে অতিথি বলেন কুষ্ঠ একটি দীর্ঘমেয়াদি জীবাণু ঘটিত মৃদু সংক্রামক রোগ। যা অধিকাংশ  ক্ষেত্রেই চামড়ার মাধ্যমে এ রোগের বহিঃপ্রকাশ ঘটে। কুষ্ঠরোগের জীবাণু অত্যন্ত ধীর গতিতে বংশ বিস্তার করে। একটি কুষ্ঠ জীবাণুতে পরিণত হতে সময় লাগে ১২ থেকে ১৪দিন। বাংলাদেশের সব উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে বক্ষব্যাধি ক্লিনিক, সরকারী ও বেসরকারী কুষ্ঠ হাসপাতালে কুষ্ঠরোগের চিকিৎসা বিনামূল্যে পাওয়া যায়। এ রোগ দেখা দিলে প্রাথমিক পর্যায়ে চিকিৎসা নেয়া খুবই জরুরি।

ইবি ভিসির শাপলা ফোরামের নির্বাচন পরিদর্শন

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাপলা ফোরামের নির্বাচন পরিদর্শন করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী। দুপুর ১টার দিকে তিনি মমতাজ উদ্দিন ভবনে ভোটকেন্দ্র পরিদর্শনে যান এবং ভোট প্রদান করেন। এসময় ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা তাঁর সঙ্গে ছিলেন এবং তিনিও ভোট প্রদান করেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

মিরপুরে ছায়া ইউনিয়ন পরিষদ অধিবেশন অনুষ্ঠিত

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে ছায়া ইউনিয়ন পরিষদ অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ইউনিক ইয়ুথ অর্গানাইজেশনের আয়োজনে ও আলো স্বেচ্ছাসেবী পল্লী উন্নয়ন সংস্থার বাস্তাবায়নে এবং একশন এইড বাংলাদেশের সহযোগিতায় গতকাল শনিবার বিকেলে উপজেলার ফুলবাড়িয়া ইউনিয়নের কামিরহাট মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে এক ছায়া ইউনিয়ন পরিষদ অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ফুলবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম। আলো সংস্থার সভাপতি অধ্যাপক আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন কামিরহাট মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষাক আব্দুল মান্নান, ফুলবাড়ীয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহ আলম, প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আছাদুর রহমান বাবু, সাধারণ সম্পাদক রাশেদুজ্জামান রিমন, ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মীর জাকিরুল ইসলাম, আরশেদা খাতুন, ছাতিয়ান ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য এম এ মমিন মল্লিক, উপজেলা শ্রমিকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফুল আলম হীরা প্রমুখ। ইউরোপ-আমেরিকার বিভিন্ন দেশে ছায়া পার্লামেন্ট আয়োজন করে থাকে সেখানকার তরুণ-তরুণীরা। তারা দেশের পার্লামেন্টের আদলে ছায়া পার্লামেন্টের মাধ্যমে তুলে ধরে বিভিন্ন আইন, নীতিমালা প্রণয়ন পদ্ধতি ও উন্নয়ন কর্মকান্ডের সমাচার ও অসঙ্গতি। এরই আদলে দেশের পল্লী এলাকার স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালীকরণের জন্য একশনএইড বাংলাদেশের সহযোগিতায়, আলো স্বেচ্ছাসেবী পল্লী উন্নয়ন সংস্থার বাস্তবায়নে এবং স্থানীয় তারুণ্যনির্ভর সংগঠন ইউনিক ইয়ুথ অর্গানাইজেশনের আয়োজনে এই ছায়া ইউনিয়ন পরিষদ অধিবেশন আয়োজন করা হয়। প্রথম অধিবেশনে ছায়া ইউনিয়ন পরিষদ অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন ছায়া ইউপি চেয়ারম্যান শেফুল আহমেদ দীপ্ত। ইউপি সচিব পলাশ কুমার দাশের পরিচালনায় ছায়া ইউনিয়ন পরিষদের বিভিন্ন সদস্যবৃন্দ ইউনিয়ন পরিষদের বিভিন্ন কমিটি, বিভিন্ন কমিটির সভা, ইউনিয়ন পরিষদের কার্যাবলী, বাজেট, গ্রাম আদালত, এলজিএসপি, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা, সুশাসন, ইউনিয়নের আয় ও ব্যয়, সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচী ইত্যাদি বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন। সভার দ্বিতীয় অধিবেশনে ফুলবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম বলেন, যুবক-যুবতীরা ইউনিয়ন পরিষদ সম্পর্কে অনেক জ্ঞান রাখে। এ সম্পর্কে আমার আগে ধারণা ছিল না। আমরা এদের দিয়েই আগামীর বাংলাদেশ গড়তে চাই। এইরকম ছায়া ইউনিয়ন পরিষদ অধিবেশন অন্যান্য ইউনিয়নে আয়োজন করা হলে সেই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান-মেম্বারগণ জানতে পারবে কিভাবে বিধি মোতাবেক ইউনিয়ন পরিষদ পরিচালনা করা যায়। আমি এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই এবং ভবিষ্যতেও আলো সংস্থার সমাজসেবামূলক কার্যক্রম উত্তোরোত্তর বৃদ্ধি পাক এই কামনা করি। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন ছিলেন আলো স্বেচ্ছাসেবী পল্লী উন্নয়ন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক ফিরোজ আহাম্মেদ।

দৌলতপুরে বঙ্গবন্ধু-বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে চরদিয়াড় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় চ্যাম্পিয়ন

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে বঙ্গবন্ধু-বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট ২০১৯ এর ইউনিয়ন পর্যায়ের খেলায় হোড়লবাড়িয়া ইউনিয়নের চরদিয়াড় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। রানারআপ হয়েছে সোনাইকুন্ডি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। গতকাল শনিবার তারাগুনিয়া ফুটবল মাঠে এ খেলা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে চ্যাম্পিয়ন ও রানারআপ দলের হাতে পুরস্কার তুলে দেন আওয়ামীলীগ নেতা ও তারাগুনিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি কামাল মল্লিক। এ সময় তারাগুনিয়া মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক  মাহাবুবুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। ইউনিয়ন পর্যায়ের চ্যাম্পিয়ন দল উপজেলার চুড়ান্ত পর্বে অংশ নেবে। উল্লেখ্য, হোগলবাড়ীয়া ইউনিয়নের ১৮টি স্কুলের ১৮টি করে পুরুষ ও নারী দল মিলে মোট ৩৬টি দল অংশ নেয়। তারাগুনিয়া ফুটবল মাঠে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। গত ২৬ জুন এ টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করা হয়। গতকাল শনিবার এ খেলা শেষ হয়। ৪ দিন ব্যাপি খেলার সার্বিক সহযোগিতা করেন প্রধান শিক্ষক আবু নাইম তুহিন, প্রধান শিক্ষক মেহেদী মনজুর সঞ্চয়, প্রধান শিক্ষক  ফারুক আহমেদ, সহকারী শিক্ষক হাসানুজ্জামান তৌহিদ, সহকারী শিক্ষক আবুল বাশার, শরীফুল ইসলাম ও মোহামেডান ক্লাবের কর্মকর্তাবৃন্দ।

মিরপুরে বিভিন্ন মসজিদে আতাহার আলীর উদ্যোগে মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি’র বোনের মাগফেরাত কামনায় দোয়া

মিরপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আতাহার আলীর উদ্যোগে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও কুষ্টিয়া সদর আসনের সংসদ সদস্য মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি’র বড় বোনের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিভিন্ন মসজিদে দোয়া ও তবারক বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল দুপুরে যোহরের নামাযের পরে উপজেলার ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়নের শিমুলিয়া জামে মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি’র প্রয়াত বোনের জন্য আত্মার মাগফেরাত ও দোয়া পরিচালনা করেন শিমুলিয়া মসজিদের ইমাম মহিবুল ইসলাম। এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আতাহার আলী, ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জয়নাল আবেদীন, স্থানীয় সমাজ সেবক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল জলিল মেম্বার, ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি হাজী জহির উদ্দিন, ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ১নং ওয়ার্ড সভাপতি শহিদুল ইসলাম, উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোর্শেদ আলী, উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক সাদ্দাম হোসেন প্রমুখ।

ইবির বাজেট হস্তান্তর

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৮-২০১৯ অর্থসালের সংশোধিত এবং ২০১৯-২০২০ অর্থসালের মূল অনুন্নয়ন বাজেট বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী এবং প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান-এর নিকট হস্তান্তর করেছেন ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা। ভিসি কার্যালয়ে বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে বাজেট-বই হস্তান্তরকালে হিসাব পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ ছিদ্দিক উল্যা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। ২০১৮-২০১৯ অর্থসালে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের নিকট ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের দাবিকৃত ২২৩ কোটি ৪১ লক্ষ টাকার বিপরীতে কমিশন ১৩৮ কোটি ১৫ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেয়।  ২০১৯-২০২০ অর্থসালে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের দাবিকৃত ২৪৭ কোটি ৫৪ লক্ষ টাকার বিপরীতে কমিশন ১৩৭ কোটি ১৬ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দিয়েছে। ১৯৯৫-১৯৯৬ অর্থবছর থেকে ২০১৭-২০১৮ অর্থবছর পর্যন্ত ২৩টি অর্থবছরে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাজেট ঘাটতি ৭০ কোটি ৪৪ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

লোহার পরিবর্তে বাঁশের ব্যবহার, কর্তৃপক্ষ বলছে অতিরিক্ত সতর্কতা

ভেড়ামারা-মিরপুর রেল সেতুতে বাঁশ আতঙ্ক

কাঞ্চন কুমার ॥ লোহার পেরেক এর পরিবর্তে কুষ্টিয়ার বেশ কিছু রেল সেতুতে দেখা গেছে বাঁশের ব্যবহার। সেই সাথে রয়েছে সাইকেল ও মোটরসাইকেলের অব্যবহৃত টায়ারের অংশ। শতবর্ষের বেশি এসব রেল সেতুগুলো মাঝে মাঝেই এর কাঠের স্লিপার পরিবর্তন করা হয়। তবে এসব স্লিপার যাতে উঠে না যায় এজন্য পেরেক দিয়ে এসব বিকল্প ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এছাড়া সেতুর উপরে বেশ কিছু লোহার বোল্ট না থাকায় বিকল্প হিসাবে ব্যবহার করা হয়েছে বাঁশের গোজ। ১৮৬৭ সালে ব্রিটিশ সরকার দর্শনা হতে কুষ্টিয়ার জগতি পর্যন্ত রেল লাইন স্থাপন করেন এবং এরপর পর্যায়ক্রমে সংস্কার হয়। কুষ্টিয়ার পোড়াদহ  রেল যোগে রাজশাহী-ঢাকা-রাজবাড়ী-খুলনা রুটে ট্রেন যোগে ইত্যাদি স্থানে যাওয়া যায়। ১৮৯৭ সালে দর্শনা-পোড়াদহ সেকশনটি সিঙ্গেল লাইন থেকে ডাবল লাইনে উন্নীত করা হয়। পর্যায়ক্রমে ১৯০৯ সালে  পোড়াদহ-ভেড়ামারা এবং ১৯১৫ সালে ভেড়ামারা-ঈশ্বরদী  সেকশনগুলোকে ডাবল লাইনে উন্নীত করা হয়। গত বৃহস্পতিবার কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার পোড়াদহ-হালসা রেলওয়ে ষ্টেশনের মধ্যবর্তী কাটদহচর এলাকায় দেখা মেলে একটু রেলওয়ে সেতু। যার নম্বর ১৯১। এ সেতুটি তৈরী করা হয় ১৮৯৭ সালে। আপ এবং ডাউন মিলিয়ে সেতুটির উপর দিকে প্রায় ২৫টি ট্রেন চলাচল করে। এছাড়াও মালবাহী গাড়ী চলাচল করে। দর্শনা-পোড়াদহ রুটের সকল ট্রেন ও মালবাহী গাড়ী চলে এই সেতুর উপর দিয়েই। তবে এই সেতুটির কাঠের স্লিপারগুলো বেশ পুরাতন হয়ে গছে। সেগুলো যাতে ট্রেন চলাচল করার সময় পানিতে পড়ে না যায় এজন্য বাঁশের বাতা এবং বাঁশের গোজ দিয়ে আটকানো রয়েছে। তার দুই কিলোমিটারের মধ্যেই রয়েছে আরো দুইটি  সেতু। সেগুলোর অবস্থাও একই রকম। যেন বাঁশেরই উত্তম ব্যবহার করা হয়েছে। এছাড়া সেতুর সাথে রেল লাইনের আটকানো ক্লিপ বেশ কিছু স্থানে নেই। লোহা দিয়ে আটকানোর কথা থাকলেও মাঝে মাঝে বাঁশ দিয়ে যেন আরো বেশি শক্তিশালী করা হয়েছে এমনটাই আক্ষেপ স্থানীয়দের। ১৯২ এর সেতুটি অবস্থা কিছুটা ভালো। কয়েকদিন আগেই পরিবর্তন করা হয়েছে কিছু কিছু স্লিপার। তবে সেখানেও ব্যবহার করা হয়েছে বাঁশের তৈরী গেজ। স্থানীয় বাসিন্দা ইউনুস আলী জানান, সেতুটির কাঠগুলো অনেক পুরাতন হয়ে গেছে। এই কাঠগুলো পরিবর্তন করা দরকার। আর অনেক স্থানে পিন না থাকায় ট্রেন গেলে রেল সরে যায়। পিন কম থাকার কারনে কোনরকম চলার জন্য লোহার পরিবর্তে বাঁশ দিয়ে পিন তৈরী করে স্লিপার আটকে দিয়েছে। এক কিলোমিটার উত্তরে কামারডাঙ্গা (১৯৪) রেল সেতুতেও রয়েছে বাঁশের ব্যবহার। সেই সাথে কিছু কিছু স্থানে নেই কোন ক্লিপ। স্থানীয় আব্দুল হান্নান জানান, রেলগাড়ী এই ব্রিজের উপর দিয়ে যাওয়ার সময় যাতে স্লিপার উঠে বা সরে না যায় এজন্য বাঁশ দিয়ে রেখেছে। নাট না থাকায় বাঁশের গোজ ব্যবহার করেছে। তিনি আরো বলেন, যারা এর দায়িত্বে আছেন তারা নাট না দিয়ে বাঁশের গোজ দিয়েছে। বাপের জন্মে রেল সেতুতে বাঁশ দিয়েছে তা কোনদিন দেখিও নি। এছাড়াও বেশ কিছু রেল লাইনের ক্রসিং এ গেট ও গেটম্যান না থাকায় আতঙ্কে থাকে ছোট ছোট যানবাহনে চলাচলরত যাত্রী ও চালকরা। পাখিভ্যানের এক যাত্রী শায়েদা খাতুন জানান, রেলের গেট না থাকায় বুকের ভেতর ভয় লাগে যদি গাড়ী চলে আসে। এই ভয় নিয়েই প্রতিনিয়ত রেল পার হতে হয়। এদিকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আসা হেঁটে রেল সেতু পার হওয়া ইয়ার আলী জানান, সেতুটির বেশি কিছু স্লিপার নড়বড়ে হয়ে গেছে। মাঝে মধ্যেই পরির্তন করে তবে কি যে করে বলতে পারবো না। লোহার পরিবর্তে বাঁশ দিয়ে গেছে। হেঁটে আসা আরেকজন স্কুল ছাত্র মিরাজুল ইসলাম জানান, আর কোন রাস্তা না থাকায় আমি এই রেল ব্রিজের উপর দিয়েই স্কুলে যায়। যদি রেল চলে আসে তাহলে পাশের লাইনে ঝাঁপ দেবো।   পোড়াদহ রেলওয়ে জংশনের সহকারী ষ্টেশন মাস্টার নাজমুল হাসান জানান, আমাদের এই অঞ্চলের রেল সেতুগুলো অনেক পুরাতন হলেও এখনো অনেকটা ভালো। আজ অবধি কোন দূর্ঘটনা ঘটেনি। পোড়াদহ রেলওয়ে জংশনের ষ্টেশন মাস্টার শরিফুল ইসলাম জানান, যাতে রেল চলার সময় জাম্পিং এ ক্লিপারগুলো সরে বা নড়ে না যায় এজন্য বাঁশের বাতা বাধা হয়েছে। নাটের পরিবর্তে বাঁশের গোজ তো স্থায়ী থাকবে না। এটা হলো অতিরিক্ত সতর্কতা।

আওয়ামীলীগ যুগ্ন সাধারন সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ এমপির বড় বোনের কুলখানি অনুষ্ঠিত

ভেড়ামারা প্রতিনিধি ॥ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ মন্ডলীর সদস্য রশিদুল আলম আনিস ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, কুষ্টিয়া-৩ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য মাহবুবউল আলম হানিফ এম.পি এবং জেলা আওয়ামীলীগের অন্যতম সদস্য রফিকুল আলম চুনুর বড় বোন সদ্য প্রয়াত আশরাফুন আলেয়া  বেগমের এর কুলখানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার ভেড়ামারা কোচষ্ট্যান্ড সংলগ্ন উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি মরহুমার ছেলে আতিকুজ্জামান বিটু বাসভবনের পাশে দোয়া ও ভোজনের মধ্যদিয়ে দিনব্যাপী কুলখানি অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি, কুষ্টিয়া-১ দৌলতপুর আসনের সংসদ সদস্য আ. ক. ম সরোয়ার জাহান বাদশা, কুষ্টিয়ার  জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম উদ্দীন, পুলিশ সুপার এসএম তানভীর আরাফাত, কুষ্টিয়া-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য রেজাউল হক চৌধুরী, কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব সদর উদ্দীন খান, সাধারন সম্পাদক আজগর আলী,  জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হাজী রবিউল ইসলাম, কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা, ভেড়ামারা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আখতারুজ্জামান মিঠু, মিরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন,  দৌলতপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ্যাড. এজাজ আহমেদ মামুন, ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহেল মারুফ, কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য রফিকুল আলম চুন্নু,  ভেড়ামারা পৌরসভার মেয়র শামিমুল ইসলাম ছানা, ভেড়ামারা উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এ্যাড. তৌহিদুল ইসলাম আলম প্রমুখ।

উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ গড়তে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহবান অর্থমন্ত্রীর

ঢাকা অফিস ॥ অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল প্রস্তাবিত বাজেট বাস্তবায়ন করে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ গড়তে সংসদ সদস্যসহ সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহবান জানিয়েছেন।তিনি গতকাল শনিবার সংসদে ২০১৯-২০ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সমাপনি বক্তব্যে এ আহবান জানান।বক্তব্যের শুরুতেই তিনি গত ১৩ জুন বাজেট উত্থাপনকালে অসুস্থ্য হয়ে পড়ায় বাজেটের বাকি অংশ অত্যন্ত দক্ষতার সাথে উপস্থাপন করায় প্রধান্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে তাঁর প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তার অসুস্থ্যতার সময় সংসদে তার প্রতি সংসদ সদস্যদের সহানুভূতি প্রকাশের জন্য তিনি তাদের প্রতি ধন্যবাদ জানন।অর্থমন্ত্রী বলেন, প্রস্তাবিত বাজোট বিশেষ দিক থেকে বৈশিষ্ট্যপূর্ণ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা ও পরামর্শ অনুযায়ি এ বাজেট প্রণনয়ন করা হয়েছে। বাজেটে এবার নতুন নতুন উপাদান সংযোজন করা হয়েছে। বিশেষ করে এবারই প্রথম বাজেটে কোন কর না বাড়িয়ে করের আওতা সম্প্রারণের মাধ্যমে রাজস্ব আয় বৃদ্ধির ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।তিনি বলেন, কেবল মাত্র দু’টি খাতে স্বচ্ছতা আনা গেলে রাজস্ব আয় লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা সম্ভব হবে। এর মধ্যে বন্ডেড ওয়্যার হাউজ থেকে ১ লাখ কোটি টাকা রাজস্ব আয় করা যাবে। অন্য সব রাজস্ব খাত থেকেও আরো অধিক রাজস্ব আয় সম্ভব হবে।তিনি বাজেট সম্পর্কে আরা বলেন, এবারের বাজেট কাগজ-পত্রে আগামী অর্থ বছরের জন্য হলেও এটা এমনভাবে তৈরী হয়েছে যে, এর ধারবাহিকতা ’৪১ সাল পর্যন্ত বজায় থাকবে।তিনি বাজেটে বিভিন্ন খাতে বরাদ্দ, রাজস্ব আহরণে বিভিন্ন ব্যবস্থাসহ এর বৈশিষ্ট্য তুলে ধরে বলেন, এ বাজেটে প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ৮ দশমিক ১০ শতাংশ স্থির করা হয়েছে। এর ধারাবাহিকতায় ২০২৪ সাল নাগাদ প্রবৃদ্ধি দুই অংকে (ডাবল ডিজিট) উন্নীত হবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ ধারাবাহিকভাবে ১০ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করবে।তিনি ঋণ গ্রহণের সমালোচনার জবাবে বলেন, বাংলাদেশে ঋণ গ্রহণের শতকরা হার ৩৪ ভাগের কম। চীনে ঋণের পরিমান শতকরা ২৮৫ ভাগ। তবে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকলে বাংলাদেশ ২০৩০ সাল নাগাদ আর ঋণ গ্রহণ করবে না, ঋণ দিবে। তিনি অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও সমৃদ্ধি অর্জনে চীন, মালেয়শিয়া ও দক্ষিণ কোরিয়ার উদাহরণ তুলে ধরে বলেন, এ সব দেশ পারলে বাংলাদেশও পারবে। লক্ষ্যভূক্ত সময়ের আগেই বাংলাদেশ উন্নত-সমৃদ্ধ দেশে পরিনত হবে।

এভাবে তো আন্দোলন হয় না – মান্না

ঢাকা অফিস ॥ নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, যারা সংসদের লড়াইয়ের কথা ভাবেন তারা সংসদে ২ মিনিট সময় পান। তাদেরকে ২ মিনিট সময় দেয়া হয়। ১ মিনিট পার হলেই মাইক বন্ধ করে দেয়া হয়।‘আর বক্তব্য দেয়ার আগে স্পিকার বলে দেন- যেন কোনো অসঙ্গতিমূলক বক্তব্য দেয়া না হয়। এভাবে তো আন্দোলন হয় না। এভাবে তো গণতন্ত্রের মুক্তি আসবে না।’গতকাল শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে শহীদ জিয়া স্মৃতি পরিষদের উদ্যোগে ‘জাতীয় রাজনীতি: গণতন্ত্রের মুক্তি কোন পথে’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।মান্না বলেন, যত তাড়াতাড়ি আন্দোলনে নামতে পারব তত তাড়াতাড়ি দেশ মুক্তি পাবে। আমি না পারলে আপনি করবেন। আপনি না পারলে তৃতীয় কোনো পক্ষ করবে। তবে আন্দোলন করতেই হবে।‘গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় কোনও দেশে হয়তো ৩০ বছর লেগেছে, কোন দেশে ১০ বছর লেগেছে, তবে আমরা যত তাড়াতাড়ি আন্দোলনে নামতে পারবো তত তাড়াতাড়ি গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হবে। আন্দোলনে নামতে পারলে বড়জোর দুই বছর লাগবে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে।’রাজপথের লড়াই বাদ দিয়ে যারা সংসদের লড়াইয়ের কথা ভাবেন তারা আসলে কোনো লড়াই করতে পারবেন না মন্তব্য করে মান্না বলেন, দেশ আজ অবরুদ্ধ। দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে হলে রাজপথে আন্দোলন করতে হবে। গণঅভ্যুত্থান ছাড়া এ দেশের মুক্তি মিলবে না।

মিরপুর প্রেসক্লাবের উন্নয়ন কাজের উদ্বোধনকালে কামারুল আরেফিন

বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমে সমাজ সংস্কার সম্ভব

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুর প্রেসক্লাব ভবনের দ্বিতীয় তলার উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুরে বার্ষিক উন্নয়ন প্রকল্পের (এডিপি) আওতায় এ উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন। এ সময়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন বলেন, সাংবাদিকরা জাতির বিবেক। তাদের বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমে সমাজ সংস্কার সম্ভব। দেশকে এগিয়ে নিতে সাংবাদিকদের অগ্রণী ভুমিকা রাখতে হবে। প্রেসক্লাবের সভাপতি আলহাজ্ব মহাম্মদ আলী জোয়ার্দ্দারের সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা যুবলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম। প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রাশেদুজ্জামান রিমন’র পরিচালনায় এ সময়ে ক্লাবের উপস্থিত ছিলেন সাবেক সভাপতি বাবলু রঞ্জন বিশ্বাস, আছাদুর রহমান বাবু, সহ-সভাপতি কাঞ্চন কুমার হালদার, সাবেক আহ্বায়ক হুমায়ূন কবির হিমু, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মারফত আফ্রিদী, দপ্তর সম্পাদক ফিরোজ আহাম্মেদ, প্রচার সম্পাদক আহসান হাবীব উজ্জল, সাবেক কোষাধ্যক্ষ শাহীন আলী, সোহেল রানা, সদস্য অধ্যাপক আব্দুস সালাম, সাংবাদিক জাহিদ হোসেন, সুমন মাহমুদ, উপজেলা শ্রমিকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফুল আলম হীরা, ব্যবসায়ী তজির উদ্দিন প্রমুখ।

টাকা সাদা করার সুযোগ দিতে হবে – রওশন

ঢাকা অফিস ॥ আগামী অর্থবছরের বাজেটে কালো টাকা সাদা করার প্রস্তাব বাস্তবায়নে জোর দিয়েছেন বিরোধীদলীয় উপনেতা রওশন এরশাদ।গতকাল শনিবার প্রস্তাবিত বাজেটের উপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে রওশন বলেন, “কালো টাকা সাদা করার সুযোগ প্রত্যেক দেশেই আছে। আমাদের ব্যবসায়ীদের এই সুযোগ দিতে হবে।”এর কারণ তুলে ধরে তিনি বলেন, “কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দিলে বিত্তশালীরা বিনিয়োগ করবেন। না হলে টাকা পাচার হয়ে যাবে। এসব টাকা বিনিয়োগ হলে, শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হলে আমাদের ছেলে-মেয়েদের কর্মসংস্থান বাড়বে।“জাতীয় পার্টির জ্যেষ্ঠ কো-চেয়ারম্যান রওশন বলেন, “ব্যাংকগুলোতে নগদ অর্থ নেই। বেসরকারি খাত ব্যাংক থেকে ঋণ পাচ্ছে না। অথচ বাজেটের ঘাটতি পূরণে ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়ার পদক্ষেপ নিয়েছেন।”কৃষকদের জন্য প্রণোদনা বাড়ানোর দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, “ধান বেশি হল, কিন্তু কৃষকরা মাথায় হাত দিয়ে বসে আছেন। কৃষক শস্য ফলাবে, তার প্রয়োজনীয় টাকা পাবে। কিন্তু তাদের মাথায় হাত। আগুন দিয়ে ধান পুড়িয়ে দিল।“তাদের প্রণোদনা দিতে হবে। যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্যেও কৃষকদের শতভাগ ভর্তুকি দেওয়া হয়। কৃষককে কেন ধান ক্ষেতে আগুন দিতে হল। আমি কৃষিমন্ত্রীর কাছে এর জবাব চাই।”তিনি বলেন, “আমাদের কৃষকরা অনেক দুস্থ। দিন আনে দিন খায়। তাদের জন্য যা যা করা প্রয়োজন তা করতে হবে। দিনাজপুর পঞ্চগড়ের দিকে বেশি ধান হয়। সেখানে যদি এই অবস্থা হয়! গুদা- সাইলো গড়ে তুলতে হবে।”র্থবছর জুলাই থেকে না করে জানুয়ারি থেকে করার পরামর্শও দেন রওশন।তিনি বলেন, “যখন অর্থবছর শুরু হয় তখন ভরা বর্ষা থাকে। এ বিষয়টি বিবেচনায় নেওয়া উচিত।”তিনি শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ বাড়ানো এবং শিক্ষার গুণগত মান নিশ্চিত করতে উদ্যোগ নেওয়ার, অনলাইনে কেনাকাটায় কর প্রত্যাহার, বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির ক্ষেত্রে সাংসদদের মতামত নেওয়ার আহ্বান জানান।বাজেটের ইতিবাচক দিকের প্রশংসা করে রওশন বলেন, এর আগে কখনো সংসদ সদস্যরা এত আগ্রহ উৎসাহ নিয়ে বক্তব্য দেননি।কর্মসংস্থান সৃষ্ঠি করা বড় চ্যালেঞ্জ আখ্যা দিয়ে বিরোধী দলীয় উপনেতা বলেন, “বড় চ্যালেঞ্জ হলো বেসরকারি খাতে বিনিয়োগের মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টি। কর্মসংস্থান বাড়াতে হবে। না হলে বৈষম্য কমবে না। এজন্য এখন থেকেই পরিকল্পনা করতে হবে।”বিরোধীদলীয় নেতা এইচ এম এরশাদ অসুস্থ থাকায় তিনি বাজেট অধিবেশনে ছিলেন না। নিজের বক্তব্যে এরশাদের জন্য সবার কাছে দোয়া প্রার্থনা করেন তার স্ত্রী রওশন।তিনি বলেন, “আমাদের চেয়ারম্যান অনেক বেশি অসুস্থ। আস্তে আস্তে ভালোর দিকে যাচ্ছেন। তবে তিনি অনেক দুর্বল। আমরা মানসিকভাবে বিপর্যস্ত। তার আরোগ্য লাভের জন্য দোয়া চাচ্ছি। সবাই দোয়া করবেন।”

অসৎ ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর হবে সরকার- রাষ্ট্রপতি

ঢাকা অফিস ॥ অসৎ ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে সরকার কঠোর হতে পিছপা হবে না বলে জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।গতকাল শনিবার ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার-২০১৭’ অনুষ্ঠানে তিনি সম্প্রতি ভেজাল ও নিম্নমানের বেশকিছু পণ্য বাজার থেকে প্রত্যাহারে হাই কোর্ট নির্দেশের কথা উল্লেখ করে বলেন, “কিছু সংখ্যক অসাধু ব্যবসায়ীর কারণে আজ সৎ ও ভালো ব্যবসায়ীদের সুনামও নষ্ট হচ্ছে। আপনাদেরকেই এই অশুভ তৎপরতার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে।“তাই শিল্প উদ্যোক্তাদের প্রতি আমার আহ্বান থাকবে পণ্য ও সেবা উৎপাদনে আপনারা কখনও গুণগত মানের সাথে আপস করবেন না, ক্রেতাদের ঠকাবেন না, ভেজাল ও প্রতারণা থেকে দূরে থাকবেন। সৎ ও ভালো উদ্যোক্তাদের জন্য সরকারের সহযোগিতার দ্বার সবসময় উন্মুক্ত থাকবে। পক্ষান্তরে অসৎ ও অসাধু ব্যবসায়ীদের জন্য কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা নিতে সরকার পিছপা হবে না।”ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে রাষ্ট্রপতি বলেন, “আপনারা সমাজের সম্মানিত ব্যক্তি। দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে আপনাদের ভূমিকা ও অবদান অত্যন্ত প্রসংশনীয়।  ইউরোপ-আমেরিকাসহ উন্নত বিশ্বের বিভিন্ন সুপার স্টোরে পণ্যের গায়ে যখন ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ লেখা দেখি তখন গর্বে আমাদের বুক ভরে ওঠে। আবার  যখন ভেজাল বা নিম্নমানের কারণে বিদেশে বাংলাদেশি কোনো পণ্য নিষিদ্ধ হয় বা বাজার থেকে প্রত্যাহার করতে হয় তখন বাণিজ্যিক ক্ষতির পাশাপাশি দেশের ভাবমূর্তিও ক্ষুণœ হয়।”ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসারে সরকারের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরে আব্দুল হামিদ বলেন, “শিল্পায়নের কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য অর্জনে বেসরকারি খাতের বিকাশ অপরিহার্য। দেশে বেসরকারি খাত যত বেশি শক্তিশালী হবে, শিল্পায়নের ধারা তত বেশি বেগবান হবে।”“এ বাস্তবতা বিবেচনা করে সরকার বেসরকারি খাতের উদ্যোক্তাদের বিভিন্ন ধরনের প্রণোদনা দিয়ে আসছে। বিশেষ করে, এসএমই খাতের উদ্যোক্তাদের সিঙ্গেল ডিজিট সুদে ঋণ প্রদান এবং এসএমই নারী উদ্যোক্তাদের জামানতবিহীন ঋণ ও অগ্রাধিকারভিত্তিতে প্লট বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে। আজকের রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার প্রদানও এ প্রণোদনারই একটি অংশ।”হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে ওই অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের শিল্পখাত তথা জাতীয় অর্থনীতিতে সামগ্রিক অবদান রাখায় ছয়টি ক্যাটাগরিতে ১৪টি প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কার দেওয়া হয়।প্রতিষ্ঠানগুলো হলো- বৃহৎ শিল্পে প্রথম পুরস্কার স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস, দ্বিতীয় পুরস্কার এনভয় টেক্সটাইল, তৃতীয় পুরস্কার অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ।মাঝারি শিল্পে প্রথম পুরস্কার গ্রিন টেক্সাইল, দ্বিতীয় পুরস্কার ডি অ্যান্ড এস প্রিটি ফ্যাশনস, তৃতীয় পুরস্কার জিএমই এগ্রো।

ক্ষুদ্র শিল্পে প্রথম পুরস্কার অকো-টেক্স, দ্বিতীয় পুরস্কার এপিএস অ্যাপারেলস, তৃতীয় পুরস্কার বিএসপি ফুড প্রোডাক্টস।মাইক্রো শিল্পে স্মার্ট লেদার প্রোডাক্টস, কুটির শিল্পে প্রথম পুরস্কার কোর দ্য জুট ওয়ার্কস, দ্বিতীয় পুরস্কার প্রতিবেশী প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ও কুটির শিল্প উন্নয়ন সংস্থা।হাইটেক শিল্পে প্রথম পুরস্কার সার্ভিস ইঞ্জিন লিমিটেড, দ্বিতীয় পুরস্কার ন্যাসেরিয়া লিমিটেড।শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার, শিল্প সচিব মো. আবদুল হাকিম, এনভয় টেক্সাটাইলের চেয়ারম্যান কুতুবউদ্দিন।