গাংনীতে স্কুল ছাত্র আত্মহত্যার ঘটনায় ২জনসহ অজ্ঞাতদের নামে মামলা

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার কড়–ইগাছি গ্রামে স্কুল ছাত্র রাব্বি আহমেদ আত্মহত্যার ঘটনায়  ২জনসহ অজ্ঞাতদের নামে মামলা হয়েছে। গতকাল বুধবার দুপুরে রাব্বি আহমেদ-এর বাবা চিনির উদ্দীন বাদি হয়ে আত্মহত্যার প্ররোচণার অভিযোগে দু’জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৫জনের নামে মামলা দায়ের করেছেন।’ গাংনী থানা সূত্রে জানা যায়, স্থানীয় কেএবি মাধ্যমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন একটি মোড়ে কছিম উদ্দীন নামের একজনের চা-সিগারেটের দোকান রয়েছে। ওই দোকানে সম্প্রতি সিগারেট চুরি হয়। মঙ্গলবার সকাল ৭টার দিকে রাব্বি ও তার বন্ধু ওই দোকানের পাশে বসে গল্প করছিল। এ সময় দোকানদার কছিম উদ্দীন তাদের বিরুদ্ধে সিগারেট চুরির অভিযোগ তোলেন। পরে স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুল হান্নানসহ কয়েকজন সালিস বৈঠকের মাধ্যমে দু’বন্ধুকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এনিয়ে অভিমানে এদিন সকাল সাড়ে ১১টার দিকে স্কুল ছাত্র রাব্বি নিজ ঘরে আড়ার সাথে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে। এ ঘটনায় কড়–ইগাছি গ্রামের দোকানদার কচিম উদ্দীন ও নকিমুদ্দীনের ছেলে হুদার নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরো ৫ জনের বিরুদ্ধে আত্মহত্যার প্ররোচণার অভিযোগে ৩০৬/৩৪ দন্ড বিধিতে মামলা দায়ের করেন। মামলা নং- ৩১ তাং-২২-০৫-১৯ ইং।

গাংনীতে খিচুড়ি খেয়ে অসুস্থ সুমিতা চিকিৎসাধীন মারা গেছে

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার বামন্দী শহরে ইফতারির খিচুড়ি খেয়ে অসুস্থ ১৫ জনের মধ্যে সুমিতা খাতুন নামের এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল বুধবার দুপুরে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। সুমিতা খাতুন বামন্দী শহরের কলেজপাড়ার আশিফ হোসেনের স্ত্রী ও একই এলাকার আব্দুর রহিম আলীর মেয়ে। স্থানীয়রা জানান, গত ১৭ ই মে সন্ধ্যায় বামন্দী বাজারের শাজাহান আলীর বাড়ির ইফতারের খেচুড়ি খেয়ে সুমিতাসহ ১৫ জন অসুস্থ হয়ে পড়ে। অসুস্থ্যদের তাৎক্ষনিকভাবে স্থানীয় কয়েকটি ক্লিনিকে ভর্তি করে। তারা সুস্থ্যবোধ করলে বাড়িতে নেয়া হয়। পরে গতকাল বুধবার সকালের দিকে আবারো অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।

পাটিকাবাড়ীর কৃতিসন্তান সৌদি প্রবাসী আ’লীগ নেতা আব্দুল  মোমিনের পক্ষ থেকে ঈদ বস্ত্র বিতরণ

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া সদর উপজেলার পাটিকাবাড়ী ইউপির কৃতি সন্তান সৌদি প্রবাসী আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুুল মোমিনের পক্ষ থেকে তার নিজ বাসভবন পাটিকাবাড়ী গ্রামের হতদরিদ্র মানুষের আনন্দঘন পরিবেশে  ঈদ উদযাপনের জন্য কয়েক শত শাড়ী, লঙ্গী, গেঞ্জি বিতরণ করেন। প্রতি বছর  সৌদি প্রবাসী আ.লীগ নেতা ঈদ উল ফিতর ও ঈদুল আযহা উপলক্ষে তার গ্রামে ও আশে পাশের গ্রামে গ্রামে হতদরিদ্র মানুষের সাথে ঈদের আনন্দ ভাগ করে নেওয়ার জন্য বস্ত্র বিতরন করেন। সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে আব্দুল মোমিন বলেন, ধনি দরিদ্রের বৈষম্য লাঘব করার জন্য বিশ্ব নবী হযরত মোহাম্মদ (সঃ) সকলের সাথে মিলে মিশে এক কাতারে সামিল হয়ে ঈদ উদযাপন করেছেন। আমরাও বিত্তবানরা যদি একটু  সহযোগীতার হাত সম্প্রসারন করি তাহলে সমাজ থেকে বৈষম্য চিরতরে লাঘব হয়ে যাবে।

কুষ্টিয়ায় স্বর্গীয় দেবী প্রসাদ চক্রবর্তী কানু বাবুর ৫১তম মৃত্যু বার্ষিকীতে স্মরণ সভা

নিজ সংবাদ ॥ স্বর্গীয় দেবী প্রসাদ চক্রবর্তী কানু বাবুর ৫১তম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে, পুষ্পস্তবক অর্পণ ও স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। স্বর্গীয় দেবী প্রসাদ চক্রবর্তী কানু বাবু স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদ কুষ্টিয়া’র আয়োজনে এ পুষ্পস্তবক অর্পণ ও স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। ২২ মে বুধবার বিকেলে কুষ্টিয়া মহাশ্মশান মন্দির প্রাঙ্গনে স্বর্গীয় দেবী প্রসাদ চক্রবর্তী কানু বাবুর বেদীতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। পরে কুষ্টিয়া শহরস্থ মিললাইন সাংস্কৃতিক অডিটোরিয়ামে স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। স্বর্গীয় দেবী প্রসাদ চক্রবর্তী কানু বাবু স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদ কুষ্টিয়া’র আহবায়ক নিলয় কুমার সরকার এর সভাপতিত্বে স্মরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া শহর আওয়ামীলীগের সভাপতি তাইজাল আলী খান। বিশেষ অতিথি ছিলেন আদর্শ মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ আলতাফ হোসেন, ডিপ্লোমা ডাক্তার এ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ডাঃ রমা প্রসাদ দে, জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদের দপ্তর সম্পাদক বিপ্রজিৎ বিশ্বাস খোকন, ১১নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি বাবলু কুন্ডু, সাধারণ সম্পাদক মুসা আলী খান প্রমুখ। স্মরণ সভা শেষে এ উপলক্ষে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। স্মরণ সভা পরিচালনা করেন স্বর্গীয় দেবী প্রসাদ চক্রবর্তী কানু বাবু স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদ কুষ্টিয়া’র সদস্য বাপ্পী বাগচী।

বালিশ দুর্নীতি নিয়ে দুদকের চোখ-কান বন্ধ ঃ রিজভী

ঢাকা অফিস ॥ রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কর্মকর্তাদের আবাসন প্রকল্পে কেনাকাটায় দুর্নীতির অনুসন্ধানে না নামায় দুদকের সমালোচনা করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেছেন, “এতে জনগণের মধ্যে আলোড়ন সৃষ্টি হলেও দুদক চোখ-কান বন্ধ করে বোবা-কালার ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছে।” দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদের এক বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বুধবার নয়া পল্টনে দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন রিজভী। রূপপুরের ‘দুর্নীতি’র ঘটনা গণমাধ্যমে আসার পর মঙ্গলবার সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে দুদক চেয়ারম্যান বলেছিলেন, তারা এনিয়ে গৃহায়ন ও গণপূর্ত অধিদপ্তরের তদন্তে ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করছেন। রিজভী বলেন, রূপপুরে পারমাণবিক প্রকল্পের ‘মহাদুর্নীতি’ হয়েছে। “এর আগে বড় পুকুরিয়া থেকে লাখ লাখ টন কয়লা উধাও, বালিশ-কেটলি দুর্নীতিসহ নানা সেক্টরের দুর্নীতির সাগরচুরি এখন মহাসাগর চুরিতে পরিণত হয়েছে।” দুদকের ভূমিকায় প্রশ্ন তুলে বিএনপি নেতা বলেন, ‘‘র‌্যাব-পুলিশের মতো দুদকও বিরোধী দল দমনে সরকারের একটি মারণাস্ত্র হিসেবেই কাজ করছে।”

 

আইন অনুযায়ী কেরানীগঞ্জে আদালত স্থাপন করা হয়েছে – তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বেগম খালেদা জিয়ার সুবিধার্থেই সরকার আইন ও বিধান অনুযায়ী কেরানীগঞ্জে আদালত স্থাপন করেছে। গতকাল বুধবার প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ (পিআইবি)তে পিআইবি-এটুআই গণমাধ্যম পুরস্কার-২০১৮ প্রদান অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘সরকার আইন ও বিধান অনুযায়ী যেকোন জায়গায় আদালত স্থাপন করতে পারে এবং সরকারের দায়িত্ব হচ্ছে আইন ও আদালতকে সহযোগিতা করা। যেহেতু বিএনপি দাবি করছে বেগম জিয়া অসুস্থ্য এবং তার আর্থাইটিজের পুরনো কিছু সমস্যা রয়েছে। এসব সমস্যা নিয়ে তিনি প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেছেন। তার সুবিধার্থেই কেরানীগঞ্জে আদালত স্থাপন করা হয়েছে। সরকারের দায়িত্ব হচ্ছে বিচারকার্যে সহযোগিতা করা। আইনী প্রক্রিয়াকে সহায়তা করার জন্য এবং একই সাথে বেগম খালেদা জিয়ার সুবিধার্থে এটি স্থাপন করা হয়েছে। তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এখানে সংবিধানের কোন বিষয় নেই, আদালত স্থাপন করা, আর বিচারকার্য পরিচালনা করা দুটি ভিন্ন বিষয়। বিচারক সেখানে বিচারিক প্রক্রিয়ায় বিচারান্তে কি করবেন এটা বিচারালয়ের বিষয়, কিন্তু বেগম জিয়ার সুবিধার্থেই সেখানে আদালত স্থাপন করা হয়েছে, তাকে আর অনেক দূরে আদালতে আনতে হবে না, তার শারিরীক কষ্ট লাঘব হবে। এতে তো বিএনপির খুশী হওয়ারই কথা।’ অপর এক প্রশ্নের জবাবে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, আইনী প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে কোন রাজনৈতিক দলের চাওয়া-পাওয়ার বিষয় থাকতে পারে না। এক্ষেত্রে আদালতের সুবিধার বিষয়টিই হচ্ছে মুখ্য। একই সাথে যিনি আসামী তার সুবিধার বিষয়টিও বিবেচনায় নিতে পারে। খুলনা পাটকল শ্রমিকদের বিষয়ে খুলনার এক নেতার সাথে বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভীর ফোনালাপ ফাঁস হওয়া বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘বিএনপি আগেও অনেক নাশকতা করেছে, বাংলাদেশের মানুষের উপর পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে শত শত মানুষ হত্যা করেছে, হাজার হাজার মানুষকে আগুনে জ্বলসে দিয়েছে, হাজার হাজার কোটি টাকার সরকারি এবং বেসরকারি সম্পত্তি ক্ষতি করেছে। এখন নিজেদের আন্দোলন করার সামর্থ নেই, অন্যরা যখন আন্দোলন করে সেখানে তারা টাকা পয়সা দিয়ে সেটিকে বিভ্রান্ত ও নাশকতামূলক কার্যক্রম করার জন্য প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। তাদের এধরনের কার্যক্রম অতীতেও অনেকবার ফাঁস হয়েছে। কিন্তু তাদের চরিত্র বদলায়নি।’ তথ্যমন্ত্রী বলেন, বিএনপি ২০১৩ থেকে ২০১৫ সালে যে কার্যক্রমগুলো করেছে, তা থেকে আপাতত বিরত থাকলেও রিজভীর এই ফোনালাপের মাধ্যমেই প্রমাণিত হয় যেকোন সময় সুযোগ পেলে তারা একই ধরনের কার্যক্রম করবে, কিংবা অন্যদের দিয়ে করাবার চেষ্টা করবে এবং করছে। পিআইবি পরিচালনা বোর্ডের চেয়ারম্যান সাংবাদিক আবেদ খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, সম্মানিত অতিথি ছিলেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য সচিব আব্দুল মালেক, এটুআই’র পলিসি এডভাইজর আনীর চৌধুরী, বক্তব্য রাখেন ভোরের কাগজ সম্পাদক ও জুরিবোর্ডের সদস্য শ্যামল দত্ত। স্বাগত বক্তব্য রাখেন পিআইবি’র মহাপরিচালক জাফর ওয়াজেদ। পিআইবি-এটুআই গণমাধ্যম পুরস্কার অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রী অনুসন্ধানী প্রতিবেদন বিশেষ করে মানবিক প্রতিবেদনের জন্য একটি পুরস্কার প্রবর্তনের জন্য পিআইবির প্রতি আহবান জানান। তিনি বলেন, ডিজিটাল প্রযুক্তির সঙ্গে বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়ে গেছে। যন্ত্রের ব্যবহারের সাথে যাতে মানুষের মানবিক গুণগুলো যাতে হারিয়ে না যায়, এজন্য মানবিক গুণগুলোকে সংরক্ষণ করতে হবে। তথ্যমন্ত্রী বলেন, দেশের শুধু মাত্র বস্তুগত বা কাঠামোগত উন্নয়ন নয়, আমরা দেশের মানুষের আত্মীক উন্নয়ন ঘটাতে চাই। এর পাশাপাশি একটি উন্নত জাতি গঠন করতে চাই। এজন্য গণমাধ্যমসহ সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে। ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘এদেশ এখন ডিজিটাল রূপান্তরের যুগে এসে পৌঁছেছে, দেশের সাথে ডিজিটাল শব্দটি যোগ হয়ে বাংলাদেশ বিশ্বে এখন ডিজিটাল বাংলাদেশ হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে, এদেশকে বিশ্ব এখন সম্মান করে, উন্নয়নশীল দেশগুলো বাংলাদেশকে অনুকরণ করে।’ চলতি বছরের শেষ নাগাদ দেশের প্রতিটি ইউনিয়ন অপটিক্যাল ফাইবার নেটওয়ার্কের আওতায় আসবে উলে¬খ করে তিনি বলেন, ১০ হাজারের মতো ডাকঘর ডিজিটাল ডাকঘরে রূপান্তর হচ্ছে। চিঠি হারিয়ে গেলেও এদেশ থেকে ডাকঘর হারিয়ে যাবে না। তথ্যসচিব বলেন, বর্তমান সরকার গণমাধ্যমের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে। ২০০৯ সালের আগে এদেশে পত্রিকা ছিল ৭৭৮টি, বর্তমানে ৩১২৪টি পত্রিকা রয়েছে, ৪৫টি প্রাইভেট টেলিভিশন চ্যানেল রয়েছে। সরকার কমিউনিটি রেডিও চালু করেছে, যা উপকূলের মানুষকে প্রাকৃতিক দুর্যোগে আগাম খবর দিয়ে সহায়তা করে। অনুষ্ঠানে ৭টি ক্যাটাগরিতে ৭ জন সাংবাদিককে পুরস্কার প্রদান করেছে। এরা হলেন, টেলিভিশন ক্যাটাগরিতে বুদ্ধদেব কুন্ডু (বৈশাখী টিভি), অনলাইন সংবাদপত্র ক্যাটাগরিতে রফিকুল ইসলাম মন্টু (রাইজিং বিডি), জাতীয় পত্রিকা (ইংরেজি) ক্যাটাগরিতে ইব্রাহিম হোসাইন (ঢাকা ট্রিবিউন), বেতার ক্যাটাগরিতে মো. মোস্তাফিজুর রহমান (বাংলাদেশ বেতার), আঞ্চলিক সংবাদপত্র ক্যাটাগরিতে উজ্জ্বল বিশ্বাস (দৈনিক গ্রামের কাগজ), ফটোগ্রাফি ক্যাটাগরিতে সৈয়দ জাকির হোসেন (ঢাকা ট্রিবিউন) এবং জাতীয় পত্রিকা (বাংলা) ক্যাটাগরিতে মোহাম্মদ ওয়ালীউল¬াহ (দৈনিক শেয়ার বিজ)।

অনির্বাচিত সরকারের জন্য মানুষকে মূল্য দিতে হচ্ছে – ড. কামাল

ঢাকা অফিস ॥ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন সরকারকে সব ক্ষেত্রে ব্যর্থ উলে¬খ করেছেন। তিনি বলেছেন, অনির্বাচিত সরকারকে বহন করার কারণে মানুষকে মূল্য দিতে হচ্ছে। তিনি সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে নির্বাচনের মাধ্যমে গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানান। গতকাল বুধবার সকালে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে গণফোরাম আয়োজিত ‘কৃষক-জনতা এক হও, সরকার হটাও-দেশ বাঁচাও’ শীর্ষক এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। কামাল হোসেন বলেন, কৃষক ধান বুনে রেকর্ড ভঙ্গ করে উৎপাদন করেছেন। তার মূল্য পাওয়া তো দূরের কথা, তা না কেনায় তিনি বাধ্য হচ্ছেন পোড়াতে। সরকারের কৃষিনীতি না থাকায় এ সংকটগুলো সৃষ্টি হচ্ছে। কৃষক যাতে উৎপাদনের জন্য খরচ তুলে আনতে পারেন, তার ব্যবস্থা করতে ব্যর্থ হয়েছে সরকার। সরকারকে সব ক্ষেত্রে ব্যর্থ উলে¬খ করে গণফোরাম সভাপতি বলেন, শুধু কৃষকদের ধান উৎপাদনের ক্ষেত্রে না, সব ক্ষেত্রেই সরকার ব্যর্থ। কামাল হোসেন বলেন, ‘এটা দায়িত্বহীন সরকার। তাদের যে একটা দায়িত্ব আছে কৃষকদের প্রতি, ক্রেতাদের প্রতি, নাগরিকদের প্রতি। কোনো রকমের দায়িত্ব বোধ না রেখেই কিন্তু তারা দায়িত্বহীনভাবে এই সংকটগুলো সৃষ্টি করার ব্যাপারে মুখ্য ভূমিকার রাখছে।’ কামাল হোসেন বলেন, মানুষের বোঝা দরকার যে একটি অনির্বাচিত সরকারকে এভাবে বহন করায় সব মানুষকে মূল্য দিতে হচ্ছে। দ্রুত নির্বাচন করে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে হবে। সংবিধান লঙ্ঘন করে সরকার চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। দেশের মানুষের ঐক্যবদ্ধ হয়ে একটা নির্বাচনের মধ্য দিয়ে একটা গণতান্ত্রিক সরকারে প্রতিষ্ঠার জন্য এগিয়ে আসতে হবে। গণতান্ত্রিক সরকার ও জবাবদিহিমূলক সরকার না থাকায় মূল্য দিতে হচ্ছে। সরকার মানুষের আস্থা নিয়ে দায়িত্ব নেয়নি জানিয়ে কামাল হোসেন বলেন, সরকার ক্ষমতার অপপ্রয়োগ করছে। তারা দায়িত্ব পালন করতে সরাসরি ব্যর্থ হচ্ছে। সংসদের বাইরে অন্যতম বিরোধী জোট হিসেবে তারা কোনো কর্মসূচি দেবে কি না, তা জানতে চাইলে কামাল হোসেন বলেন, তাঁরা কিছু সুপারিশ দিয়েছেন। এ ছাড়া সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে প্রতিনিধিত্বশীল সরকার গঠনের আহ্বান জানান। গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক রেজা কিবরিয়া বলেন, কৃষক বাঁচাও আন্দোলন সব সরকারের সময়েই করতে হয়। কারণ, কৃষকদের দাবিগুলো কেউ তুলে ধরতে চায় না। সরকার ঋণখেলাপিদের প্রতি সহানুভূতিশীল উলে¬খ করে রেজা কিবরিয়া সরকারের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে বলেন, ‘যতটুকু সহানুভূতি ঋণখেলাপিদের দেখানো হচ্ছে, তার সামান্য যদি কৃষকদের প্রতি দেখানো হয়, অনেক কিছু হতে পারে।’ গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি আবু সাইয়িদ সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। সেখানে অভিযোগ করে বলা হয়, সরকার ফড়িয়া-মিলমালিক সিন্ডিকেটের সঙ্গে আঁতাত ও লেনদেন করছে। ধান-চাল ক্রয়ে অনিয়ম ও দুর্নীতি রয়েছে। গণফোরাম উদ্ভূত পরিস্থিতি সামলাতে চারটি সুপারিশ দেয়Ñ হাটগুলোয় ক্রয়কেন্দ্র খুলে সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে ধান কেনা, শস্য বহুমুখী ও দেশে কৃষি যন্ত্রপাতি তৈরিতে সহায়তা, শস্যবিমা চালু এবং খাদ্যগুদাম না থাকলে কৃষকের গোলাতেই ধান রাখা। সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, সভাপতিমন্ডলীর সদস্য মোহসীন রশিদ, মেসবাহ উদ্দিন আহমেদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোশতাক আহমেদ প্রমুখ।

বেস্ট ইলেকট্রনিক্স লিঃ কুষ্টিয়া কে.টি.এ শাখা থেকে ঈদ অফার ফ্রিজ পেয়েছে গ্রাহক

নিজ সংবাদ ॥ বেস্ট ইলেকট্রনিক্স লিঃ কুষ্টিয়া কে.টি.এ শাখা থেকে ম্যাজিক এসএমএস ঈদ অফার পেয়েছেন গ্রাহক কুষ্টিয়া শহরের পেয়ারাতলার মুনতাসির মাহমুদ। ১৯ মে বেস্ট ইলেকট্রনিক্স লিঃ কুষ্টিয়া কে.টি.এ শাখা ৬৪ এনএস রোড কুষ্টিয়া (রথ খোলার সামনে) থেকে ১টি মিডিয়া দেড়টন এসি ক্রয় করে, ম্যাজিক এসএমএস ঈদ অফার এর মাধ্যমে ১টি ওয়ারপুল সাইডবাই সাইড ফ্রিজ পেয়েছেন গ্রাহক মুনতাসির মাহমুদ। যার মূল্য ১ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা। কে.টি.এ শাখার ম্যানেজার আক্তারুজ্জামান হাসান গ্রাহকের হাতে এ ঈদ অফার তুলে দেন। কে.টি.এ শাখার ম্যানেজার আক্তারুজ্জামান হাসান জানান, ঈদ অফার ৭ মে থেকে চলবে ২০জুন ২০১৯ পর্যন্ত। এছাড়াও ১০০%, ৫০%, ২৫%সহ আকর্শনীয় ঈদ অফার রয়েছে।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আমান উল্লাহকে রাষ্ট্রিয় মর্যাদায় দাফন

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধা আমান উল্লাহ ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না…..রাজিউন)। গতকাল বুধবার সকালে আমলা সদরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে তাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় গার্ড অন অনার দেওয়া হয়। পরে মুক্তিযোদ্ধা, বিভিন্ন দলের নেতৃবৃন্দরা, আমলার সর্ব স্তরের মানুষের পক্ষ থেকে তার কফিনে ফুলেল শুভেচ্ছা দেওয়া হয়। সকালে জানাযা নামাজে উপস্থিত ছিলেন মিরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক কামারুল আরেফিন। এছাড়াও অনান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম জামাল আহম্মেদ, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল গফুর, মিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক কমান্ডার নজরুল করিম, যুদ্ধকালিন কমান্ডার আফতাব উদ্দিন, ডেপুটি কমান্ডার এনামূল হক বিশ্বাসসহ মিরপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের নেতৃবৃন্দরা, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের নেতৃবৃন্দরা, আমলা, সদরপুর, মালিহাদসহ বিভিন্ন ইউনিয়নের মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের নেতৃবৃন্দরা, সন্তান কমান্ডের নেতৃবৃন্দরা, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানগণ, সহকারী শিক্ষকবৃন্দ, বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দরাসহ সাধারন মুসলি¬রা। উল্লে¬খ্য মঙ্গলবার অসুস্থ্য হয়ে পড়লে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপালে নেওয়ার পথে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন এই বীর মুক্তিযোদ্ধা।

বালিশ দুর্নীতি

গণপূর্তের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রত্যাহার

ঢাকা অফিস ॥ রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে আসবাব কেনা ও ফ্ল্যাটে উঠানোর ক্ষেতে অনিয়মের ঘটনায় গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মাসুদুল আলমকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। গতকাল বুধবার গণপূর্ত বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী মো. শাহাদাৎ হোসেন গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এ ছাড়া এ বিষয়ে তদন্তে গত রোববার দুটি কমিটি গঠন করেছে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়। এদিকে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে কেনাকাটায় দুর্নীতির বিষয়টিতে নজর রাখছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পরই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। মঙ্গলবার ইকবাল মাহমুদ বলেন, গণমাধ্যমের প্রতিবেদন দুদকের নজরে এসেছে। দুদক তার নিজস্ব পদ্ধতিতে এগোবে। তিনি বলেন, কথা হলো দুর্নীতি হয়েছে বা হয়নি। গণমাধ্যমের যে তথ্য সেখানে আমি দেখেছি বালিশ, কেটলি এসব বিষয়। দেখেন দুর্নীতি দমন কমিশনের কিছু প্রসিডিউর আছে। একটা রিপোর্ট পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমরা তো জাম্প দিতে পারি না। সেটি দেখতে হয়, বুঝতে হয় এবং চারদিক দেখতে হয়। প্রসঙ্গত সম্প্রতি একটি জাতীয় দৈনিকে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পের আবাসন পল¬ীতে আসবাব কেনাসহ অন্য আনুষঙ্গিক কাজে দুর্নীতি নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। এ নিয়ে দেশজুড়ে ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়। পরিপ্রেক্ষিতে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় থেকে একজন অতিরিক্ত সচিব এবং গণপূর্ত অধিদফতর থেকে একজন অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলীর নেতৃত্বে আলাদা দুটি তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন না পাওয়া পর্যন্ত ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের সব ধরনের বিল পরিশোধ না করতে ইতিমধ্যে নির্দেশনা দিয়েছে মন্ত্রণালয়। এদিকে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের গঠিত কমিটি ওই প্রকল্পের অনিয়ম খতিয়ে দেখতে দরপত্র, কার্যাদেশ, কেনাকাটা এবং বিল পরিশোধ সংক্রান্ত সার্বিক বিষয় খতিয়ে দেখছে বলে জানিয়েছেন গণপূর্ত অধিদফতরের সংশি¬ষ্টরা। এ ছাড়া রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র ও গ্রিন সিটি সম্পর্কিত দুর্নীতির অভিযোগ খতিয়ে দেখবে বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ (আইএমইডি)।

নবগঠিত জেলা বিএনপির কমিটিকে কুমারখালী থানা যুবদলের সংবর্ধনা ও ইফতার মাহফিল

সৈয়দ মেহেদী আহমেদ রুমী ও অধ্যক্ষ সোহরাব উদ্দিনের নেতৃত্বে কুষ্টিয়া জেলা বিএনপির নতুন কমিটিকে সংবর্ধানা কুমারখালী থানা যুবদল। বুধবার বিকালে জেলা বিএনপির কার্যালয়ে এ সংবর্ধনা দেওয়া হয়। কুমারখালী থানা যুবদলের সভাপতি এ্যাড.শাতিল মাহমুদের নেতেত্বে এ সংবর্ধনা দেওয়া হয়। সংবর্ধনা শেষে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক এমপি সৈয়দ মেহেদী আহমেদ রুমী বলেন, বিএনপির আগে যে জনসমর্থন ছিল, সরকারের অত্যাচার নির্যাতনের কারণে এই জনপ্রিয়তা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি বলেন, সব দিক থেকে সরকার বাংলাদেশকে একটি অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করছে। রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। কৃষকরা তাদের পাকা ধানে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিচ্ছে। কৃষক তাদের ধানের ন্যায্যমূল্য পাচ্ছে না। তিনি বলেন, সরকার সব দিক থেকে দেশকে অকার্যকর ও ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করছে। এসময় উপস্থিত ছিলেন নবগঠিত জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি বশিরুল আলম চাদ, যুগ্ম সম্পাদক মিরাজুল ইসলাম রিন্টু, আব্দুর রাজ্জাক বাচ্চু, সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড. শামীম উল হাসান অপু, যুব বিষয়ক সম্পাদক মেজবাউ রহমান পিন্টু, স্থানীয় সরকার বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড.আব্দুল ওয়াদুদ মিয়া, সদস্য প্রফেসর আকমল হোসেন, সহ-দপ্তর সম্পাদক হেলাল উদ্দিন, কুমারখালী থানা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আল কামাল মোস্তফা, জেলা যুবদলের সহ-সভাপতি ওহিদুল ইসলাম সাবু, থানা বিএনপি নেতা আমিরুল ইসলাম, মোহাম্মাদ আলী, শহীদ উদ্দিন মেম্বার, শফিউল আলম মোল্লা, ফজলুর রহমান, থানা মৎস্যজীবি দলের সভাপতি ঝনটু বিশ^াস, থানা যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল মান্নান, রাশেদ মল্লিক, দপ্তর সম্পাদক ফেরদৌস সানি, সদকী ইউপি যুবদলের সভাপতি হুমায়ুন কবির মিটুল জগন্নাথপুর ইউপি যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক আহম্মাদ ইমতিয়াজ, বাগুলাট ইউপি যুবদলের আহবায়ক বিএম এলাহী পান্না মেম্বার, যদুবয়রা ইউপি যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক সাগর আহম্মেদ ঝনটু, জেলা আইনজীবি ফোরামের অন্যতম নেতা এ্যাড.আবুল হাশেম বাদশা, এ্যাড.নাজিম উদ্দিন, এ্যাড.তরিকুল ইসলাম সাগর, যুব নেতা বিপ্লব হোসেন রাজা, আল রাইহান, ছাত্র নেতা তৌনিক দিপন, আলমগীর হোসেন, জুন্নু রাইম জুন্না প্রমুখ।

ঝাউদিয়া ইউনিয়নে ২০১৯-২০ অর্থ বছরের উন্মুক্ত বাজেট ঘোষনা

কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ঝাউদিয়া ইউপি কার্যালয় মাঠে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কেরামত আলী বিশ্বাসের সভাপতিত্বে এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তির উপস্থিতিত্বে উন্মুক্ত পরিবেশে স্থানীয় আদায়, বিভিন্ন উৎসহ থেকে প্রাপ্ত আদায়ের অর্থের সমন্ন সাধন করিয়া সর্ব মোট ৯০ লক্ষ পঁয়ত্রিশ হাজার সাত শত চুরাআশি টাকার বাজেট ২০১৯-২০ অর্থ বছরের উন্মুক্ত বাজেট ঘোষনা করা হয়। উক্ত বাজেটটি সর্বসাকুল্যে ব্যয় ধরা হয়েছে ৮৯ লাখ ৮৮ হাজার ৭শত ৮৪ টাকা এবং উদ্বিত্ত রাখা হয়েছে ৩৭ হাজার টাকা। ইউনিয়ন পরিষদের সচিব হাফিজ উদ্দিনের পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন,  আব্দুল জলিল মন্ডল, বাজেটের উপর বক্তব্য রাখেন ইউপি সদস্য সামছুল রহমান বাটুল, আব্দুল মজিদ, পল্টু আলী, কুবাদ আলী, নুরুল ইসলাম, মহিলা সদস্য ইসমত জাহান নাসরিন খাতুন, বুলবুলি খাতুন।  সভাপতির বক্তব্যে ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতা কেরামত আলী বলেন, এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও সম্মানিত ইউপি সদস্যদের সাথে বার বার আলোচনা করে যুগের সাথে তালমিলিয়ে আজকের ঝাউদিয়া ইউপির এই বাজেট প্রনয়ন করা হয়েছে। আমি আসা করি এলাকার অবকাঠামো উন্নয়ন শিক্ষার মানসম্প্রসারন ও দারিদ্র বিমোচনে এই প্রনয়নটি দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

ভেড়ামারা উপজেলা পরিষদের আয়োজনে ইফতার মাহফিল

আল-মাহাদী ॥ কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলা পরিষদের আয়োজনে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় উপজেলা অডিটরিয়ামে এ ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহেল মারুফের সভাপতিত্বে ইফতার ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথি ছিলেন ভেড়ামারা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী আক্তারুজ্জামান মিঠু। এসময় দৌলতপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ্যাডঃ এজাজ আহমেদ মামুন, ভেড়ামারা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বুলবুল হাসান পিপুল, ভেড়ামারা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোল্লা খবির উদ্দিন, ওসি (তদন্ত) আন-নূর-জায়েদ, ভেড়ামারা সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুর রাজ্জাক রাজা, উপজেলা জাসদের সভাপতি এমদাদুল ইসলাম আতা, সাধারণ সম্পাদক আনছার আলী, উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি ডাঃ সুজা উদ্দিনসহ শিক্ষক, সাংবাদিক, সরকারী কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ইফতারের পূর্বে দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা করে বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন ভেড়ামারা উপজেলা জামে মসজিদের পেশ ঈমাম মোঃ রফিকুল ইসলাম।

সেতু’র আয়োজনে বিজ্ঞান ক্লাব সদস্যদের নেতৃত্ব উন্নয়ন বিষয়ক কর্মশালা

গতকাল ২২শে মে ২০১৯ সেতু’র আয়োজনে এবং বিজ্ঞান শিক্ষার উন্নয়ন প্রকল্পের অধীনে বিজ্ঞান ক্লাবের সদস্যদের নেতৃত্ব বিকাশ বিষয়ক কর্মশালার আয়োজন করা হয়। বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশনের সহায়তায় সেতু মিরপুর উপজেলায় উক্ত প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। কর্মশালায় মিরপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, মিরপুর নাজমুল উলুম সিদ্দিকিয়া ফাজিল মাদ্রাসা এবং সুলতানপুর সিদ্দিকিয়া ফাজিল মাদ্রাসার বিজ্ঞান ক্লাবের কার্যকরী কমিটির সদস্যরা অংশগ্রহণ করে। উক্ত কর্মশালায় উদ্বোধনী বক্তব্যে মিরপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ জুলফিকার হায়দার বলেন, বিজ্ঞান মানে বিশেষ জ্ঞান, পরীক্ষা নিরীক্ষার মাধ্যমে এ শিক্ষার উন্নয়নের জন্য আমরা এক সঙ্গে কাজ করব। তিনি আরো বলেন, হাতে কলমে না শিখতে পারলে বিজ্ঞান শিক্ষার কোন মানে হয় না। উক্ত কর্মশালায় আরো উপস্থিত ছিলেন মিরপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আনোয়ারুল ইসলাম, সহকারী প্রধান শিক্ষক মোঃ মুনতাজ উদ্দিন, মিরপুর নাজমুল উলুম সিদ্দিকিয়া ফাজিল মাদ্রাসার বিজ্ঞান শিক্ষক মোঃ সোহেল রানা এবং সুলতানপুর সিদ্দিকিয়া ফাজিল মাদ্রাসার বিজ্ঞান শিক্ষক মোঃ মওলা বক্স। কর্মশালায় সমাপনী বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম জামাল আহমেদ। তিনি সেতু’কে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, আমরা আশা করি বিজ্ঞানকে সহজ ও আনন্দ মুখর করতে এই প্রকল্প সাহায্য করবে, আর তা বাস্তবায়ন করা একার পক্ষে সম্ভব নয়, সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় আমরা সফলকাম হবে। ইতোপূর্বে প্রকল্পাধীনে মিরপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ১১ সদস্য বিশিষ্ট জন ডালটন বিজ্ঞান ক্লাব, মিরপুর নাজমুল উলুম সিদ্দিকিয়া ফাজিল মাদ্রাসায় ইবনে সিনা বিজ্ঞান ক্লাব এবং সুলতাপুর সিদ্দিকিয়া ফাজিল মাদ্রাসায় ড: কুদরত-ই-খুদা বিজ্ঞান ক্লাব গঠন করা হয়। উক্ত কর্মশালা পরিচালনা করেন, সেতু’র প্রকল্প সম্বয়নকারী মোঃ আমজাদ হোসেন। সহায়ক হিসাবে ছিলেন প্রকল্প কর্মকর্তা রিমন আহমেদ ও কল্পনা খাতুন।

আজ ১৭ রমজান ঐতিহাসিক বদর দিবস

ইসলামের ইতিহাসে আতত্যাগের এক বিরাট নিদর্শন বদর যুদ্ধ

আলহাজ্ব আব্দুম মুনিব ॥ ৬২৪ সালের ১৭ মার্চ মোতাবেক দ্বিতীয় হিজরির ১৭ রমজান মদিনা থেকে ৭০ মাইল দূরে ঐতিহাসিক বদর নামক স্থানে সংঘটিত এক সম্মুখ যুদ্ধ যা ইতিহাসে বদর যুদ্ধ নামে পরিচিত। এ যুদ্ধ ইসলামের ইতিহাসে মুসলমানদের প্রথম সশস্ত্র যুদ্ধ। এ যুদ্ধে মুসলিম বাহিনীর নেতৃত্ব দেন বিশ্বনবী মুহাম্মাদ (সাঃ)। আর মুশরিক বাহিনীর নেতৃত্ব দেয় আবু জেহেল। আজ সেই ১৭ রমজান ঐতিহাসিক বদর দিবস। এ যুদ্ধে সল্পসংখ্যক মাত্র ৩১৩ জন মুসলমান যোদ্ধা মক্কার ১ হাজার সশস্ত্র প্রশিক্ষিত কাফের যোদ্ধার মোকাবেলায় বিজয় অর্জন করে। আল্লাহ তাআলা এ যুদ্ধ সম্পর্কে কুরআনে বলেন, ‘নিশ্চয়ই দু’টি দলের মোকাবিলার মধ্যে তোমাদের জন্য নিদর্শন ছিল। একটি দল আল্লাহর রাহে যুদ্ধ করে। আর অপর দল ছিল কাফেরদের। এরা স্বচক্ষে তাদেরকে দ্বিগুণ দেখছিল। আর আল্লাহ যাকে নিজের সাহায্যের মাধ্যমে শক্তি দান করেন। এরই মধ্যে শিক্ষনীয় রয়েছে দৃষ্টি সম্পন্নদের জন্য। (সুরা ইমরান : আয়াত ১৩)। আর নব গঠিত মদিনা রাষ্ট্রের জন্য বদর যুদ্ধে জয়লাভ, যুদ্ধের গুরুত্ব ও তাৎপর্য ছিলো অনেক। দ্বিতীয় হিজরী সনে ১৭ই রমজান সকাল হতেই কুরাইশগণ এগিয়ে এল এবং পাহাড় অতিক্রম করে ইয়াল ইয়াল উপত্যকায় নামল। দূর  থেকে তাদের দেখে রাসূলে খোদা আল্লাহ্র কাছে প্রার্থনা করলেন,  হে আল্লাহ এখানেই কুরাইশগণ এসেছে, তারা তাদের ঔদ্ধত্য এবং গর্ব নিয়ে এসেছে। তারা তোমাকে এবং তোমার প্রেরিত পুরুষকে অস্বীকার করে এসেছে। হে মহান প্রভু, তুমি আমাদের সাহায্য কর, যে সাহায্যের প্রতিশ্র“তি তুমি আমাকে দিয়েছিলে। বদর যুদ্ধ ছিল আতœত্যাগের এক বিরাট নিদর্শন। যুদ্ধ আরম্ভ হলে দেখা গেল, পিতা-পুত্রের বিরুদ্ধে, ভ্রাতা-ভ্রাতার বিরুদ্ধে, বন্ধু-বন্ধুর বিরুদ্ধে দন্ডায়মান। হজরত আবু বকর তাঁর পুত্র আব্দুর রহমানের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছেন, কুরাইশ সেনাপতি ওত্বা তার পুত্র হুজায়ফার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছেন। ইসলামের ইতিহাসে অনেক সংঘর্ষের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে কিন্তু শেষ পর্যন্ত সংঘর্ষ হয়নি, শান্তি স্থাপিত হয়েছে। কিন্তু মহানবী এবারে স্থির নিশ্চয় ছিলেন যে, এই যুদ্ধ এড়ানোর কোনই উপায় নেই। তিনি জানতেন সত্য তাঁর সপক্ষে এবং মহান প্রভু আল্লাহ্ তাঁকে সাহায্য করবেন। বদর যুদ্ধ ছিল মুসলিম মুহাজিরদের জন্য ঈমানের অগ্নি পরীক্ষা। কারণ, সদ্য ছেড়ে আসা তাদের আপন রক্ত সম্পর্কীয় আত্মীয়-স্বজনের বিরুদ্ধে ছিল এ যুদ্ধ। ঈমানের পরীক্ষায় তারা জয়লাভ করেছিল। এ সকল মুহাজির নিজের আত্মীয়-স্বজনদের পরিহার করে আল্লাহ এবং তাঁর রাসুলকেই বেশি ভালোবেসে ছিলেন। যার প্রমাণও তারা দিয়েছিলেন ঐতিহাসিক বদর প্রান্তরে অনুষ্ঠিত যুদ্ধের ময়দানে। এ যুদ্ধে মক্কার কুরাইশদের প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ৭০ জন সৈন্য নিহত হয় এবং সমান সংখ্যক লোক বন্দি হয়। আর মুসলমানদের পক্ষে মাত্র ৬ জন আনসার এবং ৮ জন মুহাজিরসহ ১৪জন শাহাদাত বরণ করেন। ইসলামের প্রথম যুদ্ধে আল্লাহ তাআলা মুসলিম বাহিনীকে বিজয় দান করেন। বিশ্ব মানবতার মুক্তির দিশারী হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) এর আবির্ভাবের পূর্বে আরবসহ গোটা বিশ্ব ছিলো জাহেলিয়াতের চরম তমসায় আচ্ছন্ন। পরবর্তীতে রাসুল (সাঃ) এর নবুয়ত লাভ, মদিনায় হিজরত, মদিনা সনদ, হুদাইবিয়ার সন্ধি, উহুদ যুদ্ধ ও খন্দক যুদ্ধের অসংখ্য ছোট বড় যুদ্ধ, সর্বপরি মক্কা বিজয় এর মাধ্যমে গোটা জাহানে ইসলাম তথা এক আল্লাহর একত্ববাদ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। বদর যুদ্ধ ইসলাম এবং মুসলমানদের জন্য এক ঐতিহাসিক গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা। ইসলাম যে শিক্ষা মুসলমানদের প্রতিনিয়ত দিয়ে আসছে। আর তা হলো- সব কাজে আল্লাহর ওপর অগাধ বিশ্বাস এবং ভরসা। বিপদ-আপদসহ সর্বাবস্থায় আল্লাহর ওপর আস্থাশীল হওয়াই হলো বদরের ঐতিহাসিক সুমহান শিক্ষা।

লেখক ঃ কামিল (আল হাদিস) মাস্টার্স (ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ) ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়।

সমবেদনার মাস রমজান

আ.ফ.ম নুরুল কাদের ॥ রমজানুল মোবারকের আজ ১৭ তারিখ। অফুরন্ত কল্যাণের বার্তাবাহী এ মাসের মাহাত্ম প্রসঙ্গে হজরত সালমান ফারসি রাজিয়াল্লাহ আনহু বর্ণিত হাদীসে মহানবী সঃ ইরশাদ করেছেন, এটা সমবেদনার মাস। পারস্পরিক সম্প্রীতি ও সহানুভূতি পৃথিবীতে মানবজাতির অস্তিত্ব ও স্থায়িত্বের অন্যতম শর্ত। তাই ইসলামে এই দিকটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কুরআন মজিদে মাতা-পিতা, আত্মীয়স্বজন ও সব মানুষের সাথে সদাচার ও সহানুভূতিমূলক আচরণের ওপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে। ইসলামে আত্মীয় ও প্রতিবেশীদের প্রতি কর্তব্য পালনের ওপর এতই  জোর দেয়া হয়েছে, বিশ্বের অন্য কোনো ধর্ম ও আদর্শে যার নজির পাওয়া যায় না। মহানবী সঃ বলেন, জিবরাইল আল্লাইহিস সালাম আমাকে প্রতিবেশীর অধিকার আদায়ে এতই তাগিদ দিতে থাকেন যে আমি মনে করেছিলাম প্রতিবেশীকে উত্তরাধিকারী সাব্যস্ত করা হবে। আদম -হাওয়ার সন্তান হিসেবে পৃথিবীর সব মানুষ একই পরিবারের সদস্য এবং তাদের পারস্পরিক সম্পর্ক হতে হবে সহমর্মিতা ও সহানুভূতিমূলকÑ এটাই ইসলামের শিক্ষা। কুরআন মজিদে মুসলমানদের একে অপরের ভাই বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে। (সূরা হুজুরাত-১০) । হাদিস শরীফে পুরো সৃষ্টিজগৎকে আল্লাহর পরিবার সাব্যস্ত করে সৃষ্টির সেবাকে আল্লাহর প্রিয়পাত্র হওয়ার উপায় বলে বর্ণনা করা হয়েছে। হজরত আনাস (রাঃ) আনহু বর্ণনা করেন, হজরত নবী করিম সাঃ এরশাদ করেন, সৃষ্টিকুল আল্লাহর পরিবার। এই পরিবারের কল্যাণে যে ব্যক্তি আত্মনিয়োগ করে সে আল্লাহর নিকট সবচেয়ে প্রিয়। মহানবী সঃ পুরো মুসলিম উম্মাহকে একটি দেহের সাথে তুলনা করেছেন। তিনি বলেন, কারো  চোখে যন্ত্রণা হলে যেমন পুরো শরীর অস্বস্তিবোধ করে, মাথা ব্যথা হলে যেমন পুরো শরীর অসুস্থ হয়, গোটা মুসলিম উম্মাহ এমনই। পারস্যের কবি শেখ সাদি রহ: তার বিখ্যাত গুলিস্তান গ্রন্থে কাব্যিক ভাষায় বিষয়টি তুলে ধরেছেন। তিনি বলেন, আদম সন্তানেরা একটি দেহের অঙ্গ প্রত্যঙ্গের মতো। কেননা তাদের সৃষ্টির মূল উৎস একটাই। একটি অঙ্গে যখন যন্ত্রণা হয় অন্য অঙ্গগুলোরও তখন স্বস্তি থাকে না। অন্যদের ব্যথায় যদি নির্বিকার থাক, তাহলে তুমি মানুষ নামে আখ্যায়িত হওয়ার যোগ্য নও। ইসলাম এমন সমাজব্যবস্থার নির্দেশনা দেয় যেখানে একে অপরের সুখ ও আনন্দে  যেমন শরিক হবে তেমনি দুঃখকষ্টের বেলায়ও সবাই একে অপরের পাশে এসে দাঁড়াবে। মাহে রমজানে সিয়াম সাধনার মাধ্যমে মুমিনদের মধ্যে পরস্পরের মধ্যে সহানুভূতি ও সমবেদনার গুণ অর্জিত হয়। বিশেষ করে যারা দুস্থ, অনাহারের কষ্ট যাদের সহ্য করতে হয় তাদের ব্যথা বোঝার সুযোগ হয় সিয়াম পালনের কারণে। যারা কখনো ক্ষুধার যন্ত্রণা পোহায়নি, খাবারের অভাব কাকে বলে তা যারা জানে না তারা কিভাবে বুঝবে অভাবী লোকদের ব্যথা? লাগাতার একমাস রোজা রাখার কারণে এই ব্যক্তিরা নিরন্ন মানুষের প্রতি সদয় হওয়ার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করতে পারে। পুরো একমাস  রোজার হুকুম দেয়ার একটা তাৎপর্য বোঝা যায় এখান থেকে। কেননা দু-এক দিন খাবার গ্রহণে ব্যত্যয়ের কোনো প্রভাব নাও পড়তে পারে। কিন্তু লাগাতার একমাস সুনির্দিষ্ট দীর্ঘ সময় খাবার গ্রহণ থেকে বাধ্যতামূলক বিরত থাকার অভিজ্ঞতা অবশ্যই একজন মানুষকে সচেতন করবে। অভাবী ও গরিব মানুষের প্রতি অন্তরে দয়ার উদ্রেক হবে এবং তাদের কল্যাণে ভূমিকা পালনের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করবে। প্রকৃতপে অধীনস্থদের প্রতি সদয় আচরণের তাগিদ রয়েছে সারা বছরের জন্য। তাই রমজানের এই শিক্ষা যদি সারা বছর অনুসরণ করা যায় তাহলে  যেমন সিয়াম পালন সার্থক হবে তেমনি সমাজে  নেমে আসতে পারে জান্নাতি পরিবেশ।

কুষ্টিয়া জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর

জন্ম ও একাডেমিক সদনে দুই জন্ম সাল

ক্যাশিয়ার আশরাফুল ইসলামের বিরুদ্ধে সার্ভিস বইয়ে বয়স জালিয়াতির অভিযোগ

বিশেষ প্রতিনিধি  ॥ কুষ্টিয়ায় জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের ক্যাশিয়ার আশরাফুল ইসলামের বিরুদ্ধে বয়স জালিয়াতির অভিযোগ উঠেছে। জন্মসনদ ও একাডেমিক সনদপত্রে দুই রকম জন্ম তারিখ ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে। বিষয়টি নিয়ে ধুম্রুজাল সৃষ্টি হওয়ায় তদন্ত করার জন্য সম্প্রতি অধিদপ্তরকে চিঠি দেয়া হয়। এদিকে বিষয়টি ধামাচাপা দিতে বিভিন্ন দপ্তরকে ম্যানেজ করতে উঠে পড়ে লেগেছেন আশরাফুল। অনিয়মের অভিযোগ ওঠার পরও তিনি ক্যাশিয়ার পদে কুষ্টিয়া অফিসে দাপটের সাথে চাকুরি করছেন। তার বিরুদ্ধে শুধু বয়স জালিয়াতিই নয় ঠিকাদারদের সাথে আঁতাত করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ারও অভিযোগ আছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ৩০ জানুয়ারি কুষ্টিয়া অফিস থেকে মাগুরা জেলায় বদলি করা হয় ক্যাশিয়ার আশরাফুলকে। তখন তার ছাড়পত্র তৈরি করতে গিয়ে দেখা যায় অফিসে কোন সার্ভিস বুক নেই। সার্ভিস বুকটি আশরাফুল নিজের কাছে রেখে দেন। পরে বইটি জমা দেয়ার জন্য তাকে চিঠি দেয়া হয়। চিঠি পেয়ে তিনি বইটি অফিসে জমা দেন।

কুষ্টিয়া জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর সুত্রে জানাগেছে, বইটি পর্যালোচনা করে তার সম্পর্কে প্রতিবেদন লিখতে দিয়ে কর্মকর্তারা দেখতে পান আশরাফুল ইসলামের বয়স চাকুরী নিয়মিত করণ, পদ পরিবর্তন ও বইটিতে জন্ম তারিখ একাধিক দেখা যায়। এ বিষয়ে অধিদপ্তরকে অনিয়মের বিষয়টি জানিয়ে একটি চিঠি দিয়ে তদন্ত পুর্বক ব্যবস্থা নেয়ার অুনরোধ জানানো হয়।

চিঠি ঘেঁটে দেখা গেছে, তিনি যখন অধিদপ্তরে যোগদান করেন তখন তার জন্ম তারিখ ছিল ০১-০২-১৯৬৯ সাল। সার্ভিস বইয়ের ৫ম খন্ডে প্রধান প্রকৌশলী বরাবর ২০১০ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর যে চিঠি দেয়া হয় তাতে সার্ভিস বইটিতে বয়সের ঘরটি ওভার রাইটিং বলে মনে হয় বলে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে। বিষয়টি সন্দেহজনক হওয়ায় খতিয়ে দেখতে বলা হয়েছে। অন্য পৃষ্ঠায় ৪র্থ খন্ডে ১৭ নম্বর পৃষ্ঠায় সিসিটি থেকে ক্যাশিয়ার পদে পরিবর্তন করে যোগদানের করার কোন নথি সার্ভিস বইতে উল্লেখ করা হয়নি।

সার্ভিস বই ঘেঁটে কর্মকর্তারা আরো দেখতে পান, আশরাফুল ইসলাম ২০১০ সালের ২১ জানুয়ারি নড়াইল জেলায় স্ব-বেতনে বদলি করা হয়। সেই মোতাবেক তিনি এখনো ক্যাশিয়ার না আগের সিসিটি পদেই আছেন সেটিও নিয়ে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

আবার ৫ম খন্ডে ১ম পাতায় আশরাফুল ইসলামের চাকুরি বইতে এসএসসি সনদপত্র অনুযায়ী বয়স উল্লেখ করা হয়েছে ০১-০১-১৯৫৯। সেই মোতাবেক তার অবসরে যাওয়ার কথা ছিল ২০১৮ সালের  ১ ফেব্র“য়ারি। আবার আগের জন্ম তারিখ অনুযায়ী (০১-০২-১৯৬৯) তিনি যখন (১৯৮৫) চাকুরিতে যোগদান করেন তখণ বয়স ছিল মাত্র ১৬ বছর ৯ মাস ১১দিন। বিষয়টিতে ব্যাপক গরমিল রয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে আশরাফুল ইসলামের সাথে কথা হলে বলেন,‘ বিষয়টি নিয়ে কিছু ঝামেলা হয়েছিল, সব ঠিকঠাক হয়ে গেছে। ভুল করে দুই রকম জন্ম তারিখ বসানো হয়েছিল। এখন আর কোন সমস্যা নেই।’

এদিকে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের এক কর্মকর্তা জানান,‘ আশরাফুল ইসলামের খুটির জোর অনেক। তাই নানা অনিয়ম করে বারবার পার পেয়ে যান। বয়স জালিয়াতিসহ নানা অনিয়মের পরও বহাল তবিয়তে আছে।

মাগুরা জেলায় বদলির দুই মাসের মাথায় ওপর মহলকে ম্যানেজ করে ফের কুষ্টিয়া এসে যোগদান করেছেন কয়েক সপ্তাহ আগে। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠায় যোগদান করাতে কিছুটা বিলম্ব হওয়ায় ওপর থেকে আশরাফুলকে দ্রুত যোগদান করানোর জন্য বারবার তাগাদা দেয়া হয়। এ জন্য তাকে যোগদান করাতে বাধ্য হয়েছে স্থানীয় কর্মকর্তারা।

নানা অনিয়ম দুর্নীতির মাধ্যমে তিনি লাখ লাখ টাকার মালিক বনে গেছেন। ঠিকাদারদের সাথে আঁতাত করে ভুয়া বিল পাশ করানোসহ নানা অভিযোগও আছে দপ্তরে।

এসব বিষয়ে কথা হলে কুষ্টিয়া জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. হাচানুজ্জামান বলেন, আশরাফুলের বিরুদ্ধে বয়স জালিয়াতিসহ একাধিক অভিযোগ পাওয়ায় তদন্তের জন্য চিঠি দেয়া হয়েছিল। মাগুরা জেলায় বদলি হওয়ার দুই মাসের মাথায় ফের তাকে কুষ্টিয়ায় বদলি করা হয়। পরে ওপর থেকে চাপ দেওয়ায় তাকে ক্যাশিয়ার পদে যোগদান করানো হয়েছে।’

গাংনীতে  গোলাগুলিতে মাদক ব্যবসায়ী নিহত 

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনীতে দু’পক্ষের গোলাগুলির ঘটনায় নাজমুল হোসেন (৩০) নামের এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। পরে ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র-মাদক ও একটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত নাজমুল হোসেন গাংনী উপজেলার সীমান্ত ঘেষা সহড়াতলা গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে। গত মঙ্গলবার দিবাগত মধ্যেরাতে উপজেলার করমদী মাঠপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অদূরে  দু’পক্ষের গোলাগুলির ঘটনায় নিহত হয় নাজমুল। গাংনী থানার ওসি হরেন্দ্রনাথ সরকার (পিপিএম) জানান, মঙ্গলবার মধ্যরাতে করমদী মাঠপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নিকটে গোলাগুলির শব্দ শুনে পুলিশের একটি দল ওই স্থানে অভিযান চালায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে সন্ত্রাসীরা পিছু হটে। পরে ঘটনাস্থল থেকে একজনের গুলিবিদ্ধ লাশ ও ১টি দেশীয় পিস্তল এবং ১টি টিভিএস মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়। এ সময় এলাকাবাসির সহযোগিতা গুলিবিদ্ধ লাশটি নাজমুল হোসেন বলে সনাক্ত করা হয়। মাদক ব্যবসায়ীদের মধ্যে দ্বন্দ্বের জের ধরে দু’পক্ষের গোলাগুলির ঘটনায় নাজমুল নিহত হয় বলে ধারণা করা হচ্ছে। নাজমুল হোসেনের নামে মাদক ব্যবসার অভিযোগে একাধিক মামলা রয়েছে। নিহত নাজমুলের লাশ বুধবার সকালে উদ্ধার করে থানায় নেয়া হয়। পরে দুপুরে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে তার ময়না তদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এদিন বিকেলে জানাজা শেষে সহড়াতলা গোরস্থান ময়দানে দাফন সম্পন্ন হয়।

৩০ হাজার টাকা জরিমানা আদায়

কুমারখালীতে বাজার মনিটরিং ও মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করলেন ইউএনও -এসিল্যান্ড

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে বাজার মনিটরিং ও মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেছেন ইউএনও রাজীবুল ইসলাম খান ও এসিল্যান্ড মুহাম্মদ নূর এ আলম। গতকাল বুধবার দুপুরে শহরের আগ্রাকুন্ডা এলাকার দু’টি আইসক্রিম কারখানা ও বাজারে বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অভিযান পরিচালনা করেন। এ সময় বিএসটিআই এর পরীক্ষায় ৫২ টি পণ্যের মান নিম্নমানের হওয়ায় মহামান্য হাইকোর্টের নিদের্শনার প্রেক্ষিতে বাজারের বিভিন্ন দোকান পরিদর্শন করেন। মিষ্টি, ফল, মুদি, খাবার হোটেল, কাঁচা বাজার, কাপড়ের দোকান, মুরগির দোকান পরিদর্শন করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ইউএনও এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও এসিল্যান্ড। এ সময়  মেয়াদ উত্তীর্ণ পণ্য রাখার দায়ে ইউএনও রাজীবুল ইসলাম খান হল মোড়ে মানিক ষ্টোরে  মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন-২০০৯ এ ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।  অন্যদিকে, প্রাণ আইসক্রিম ফ্যাক্টরী ও আশা আইসক্রিম ফ্যাক্টরীতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়েছে। এ সময় প্রাণ আইসক্রিম ফ্যাক্টরীর মালিক পালিয়ে যাওয়ায় ফ্যাক্টরীটি সীলগালা করে বন্ধ করা দেয়া হয় এবং আইসক্রিম তৈরীতে  টেক্সটাইল কালার, অনুমোদিত ও মানবস্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপুর্ণ ক্যামিকেল ব্যবহার করায় এসিল্যান্ড মোহাম্মদ নূর-এ-আলম  মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে আশা আইসক্রিম ফ্যাক্টরীকে ২০ হাজার টাকা অর্থদন্ড প্রদান করেন। এ সময় কারখানার সকল আইসক্রিম, কাঁচামাল এবং অন্যান্য পন্য এলাকাবাসীর উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হয়।

২৯ মে কুষ্টিয়া চিনিকল শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের নির্বাচন

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া চিনিকল শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন ২৯ মে। সোমবার ইউনিয়নের সাধারণ সভায় চিনিকল শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি মিরাজুল ইসলাম নির্বাচনের তারিখসহ নির্বাচন পরিচালনার দায়িত্বে কারা থাকছেন তা ঘোষণা করেন। চিনিকলের মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন) আকুল উদ্দিনকে চেয়ারম্যান করে ৩ সদস্যের নির্বাচন কমিশন গঠন করা হয়। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামীকাল শুক্রবার মনোনয়নপত্র ক্রয়, জমা এবং যাচাই বাছাই অনুষ্ঠিত হবে।  এদিকে নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণার সাথে সাথে নির্বাচনী প্রস্তুতিও শুরু হয়েছে বেশ জোরে সোরে। এরই মধ্যে সম্ভাব্য দু’টি প্যানেল মিথুন-মিরাজ, ফারুক-আনিচ পরিষদ আগাম প্রস্তুতি শুরু করেছে। ১১ পদের বিপরিতে দু’টি প্যানেলের ২২জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করবেন বলে জানা গেছে। এছাড়া কয়েকজন স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েও প্রতিদ্বন্দ্বীতায় মাঠে থাকতে পারেন বলে জানা গেছে। তবে আসন্ন নির্বাচনে যারাই নির্বাচিত হোউননা কেন ভোটারদের সূচিন্তিত মতামতের ওপর ভিত্তি করেই দুই বছরের জন্য প্রতিনিধি নির্বাচিত হবেন। এবিষয়ে একজন শ্রমিক অবশ্য জানিয়েছেন শ্রমিক কর্মচারীদের স্বার্থ নিয়ে যারাই কাজ করবেন তাদেরকেই নির্বাচিত করা হবে। সম্প্রতি মোটা অংকের কমিশনে বেতন নেয়াসহ বিভিন্ন দুর্দশার কথা তুলে ধরে ওই শ্রমিক বলেন এতে আমরা আশাহত হয়েছি চিনিকল কর্তৃপক্ষ তাদের প্রতি সুবিচার করেনি। তাদের পাশে দাঁড়ায়নি। আগামীতে তারা আর এমন পরিস্তিতিতে পড়তে চাননা। অর্থাৎ যারাই এই পরিস্থিতি মোকাবিলায় পাশে থাকবেন তাদেরকেই নির্বাচিত করা হবে।  অবশ্য মিথুন-মিরাজ ও ফারুক-আনিচ পরিষদ উভয়ই শ্রমিক কর্মচারীদের স্বার্থে পাশে থাকার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করে আসন্ন নির্বাচনে জয়ি হবেন বলে প্রত্যাশা করেন

 জামিন পেলেন কুষ্টিয়ার দুই সম্পাদক ও সাংবাদিকসহ ৭ জন

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ার মডেল থানায় সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে দায়ের করা একটি মিথ্যা হয়রানীমূলক মামলায় জামিন পেয়েছেন কুষ্টিয়া হতে প্রকাশিত দৈনিক সত্য খবর পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক হাসিবুর রহমান রিজু, সম্পাদক শাহরিয়া ইমন রুবেলসহ সাত জন।  গতকাল বুধবার বেলা ১১টার দিকে কুষ্টিয়া আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করলে অতিরিক্ত জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটরেজাউল করিম এর আদালতে শুনানীশেষে তাদের জামিন মঞ্জুর করেন। উল্লেখ্য, গত ২০ মে রাতে কুষ্টিয়ার মডেল থানায় সাংবাদিক হাসিবুর রহমান রিজুসহ সাত জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়, আসামীদের মধ্যে ৫ জন স্থানীয় পত্রিকার সাংবাদিক।