ভারতে মোদীরই ক্ষমতায় থাকার আভাস

ঢাকা অফিস ॥ ভারতের লোকসভা নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নেতৃত্বাধীন জোটের নিরঙ্কুশ বিজয়ের আভাস দিচ্ছে বুথ ফেরত জরিপগুলো। ভোটারের হিসাবে বিশ্বের সবচেয়ে বড় এই নির্বাচন হয়েছে সাত পর্বে, যা শেষ হল রোববার। ভোট গণনা হবে বৃহস্পতিবার, ওই দিনই স্পষ্ট হবে আগামী পাঁচ বছরের জন্য দিলি¬র সিংহাসন কার দখলে থাকছে। তবে তার আগেই রোববার ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার পরপরই বুথফেরত জরিপের ফলাফল প্রকাশ হতে শুরু করেছে, যাতে মোদীর পাল¬ায়ই ভারী দেখা যাচ্ছে।  হিন্দুস্তান টাইমসে প্রকাশিত সাতটি জরিপের ফলেই মোদীর দল বিজেপি নেতৃত্বাধীন ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্স-এনডিএ’র একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়ার আভাস দেওয়া হয়েছে। রিপাবলিক টিভি-সি ভোটার এক্সিট পোলের হিসাবে, ভোট হওয়া লোকসভার ৫৪২ আসনের মধ্যে ২৮৭টি পাচ্ছে বিজেপি জোট, তাদের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী কংগ্রেস জোট পাচ্ছে ১২৮ এবং অন্যরা ১২৭টি আসন পাচ্ছে। ভারতে সরকার গঠনের জন্য লোকসভার মোট ৫৪৫টি আসনের মধ্যে ২৭২টিতে জয় পেতে হয়। পাঁচ বছর আগের নির্বাচনে মোদী জোয়ারে ৩৩৬টি আসনে জয়ী হয়ে কংগ্রেসকে হটিয়ে সরকার গঠন করে বিজেপি। ২০১৪ সালের ওই নির্বাচনে মাত্র ৬০টি আসনে জয় পেয়েছিল কংগ্রেসের জোট ইউপিএ। প্রিয়াঙ্কা গান্ধী এবার কংগ্রেসের পদ নিয়ে ভোটে নামার পর প্রতিটি বুথ ফেরত জরিপে তাদের আসন সংখ্যা বাড়ার আভাস মিলেছে। তবে কারও হিসাবেই সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় আসন পাওয়ার কথা বলা হয়নি। দলীয় পদ নিয়ে এবারই প্রথম সরাসরি ভোটের প্রচারে নেমেছিলেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী, তাকে ঘিরে আশাবাদী হয়ে উঠেছিলেন কংগ্রেসের নেতাকর্মীরা। দলীয় পদ নিয়ে এবারই প্রথম সরাসরি ভোটের প্রচারে নেমেছিলেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী, তাকে ঘিরে আশাবাদী হয়ে উঠেছিলেন কংগ্রেসের নেতাকর্মীরা। রিপাবলিক-জান কি বাত-এর বুথফেরত জরিপে বিজেপি জোটের ৩০৫টি আসন পাওয়ার আভাস দেওয়া হয়েছে। আর কংগ্রেস জোট ১২৪ এবং অন্যান্যরা ১১৩টি আসন পেতে পারে। নিউজ নেশনের জরিপে বিজেপি জোটের ২৮২ থেকে ২৯০, কংগ্রেস জোটের ১১৮ থেকে ১২৬ এবং অন্যান্যদের ১৩০ থেকে ১৩৮টি আসন পাওয়ার আভাস দেওয়া হয়েছে। আর টাইমস নাও-ভিএমআর-এর এক্সিট পোল অনুযায়ী, বিজেপি জোট ৩০৬টি, কংগ্রেস ১৩২টি এবং অন্যান্যরা ১০৪টি আসন পেতে পারে বলে বলা হয়েছে। সিএনএন-নিউজ১৮-ইপসোস-এর জরিপে বিজেপি জোটের ৩৩৬, কংগ্রেসের ৮২ ও অন্যদের ১২৪টি আসন পাওয়ার আভাস দেওয়া হয়েছে। এপিবি-এসি নিয়েলসেন-এর বুথফেরত জরিপ বলছে, বিজেপি জোট ২৬৭, কংগ্রেস জোট ১২৭ এবং অন্যরা ১৪৮টি আসন পেতে পারে। ইন্ডিয়া টুড-এক্সিস-এর জরিপে বিজেপি জোটের ৩৩৯ থেকে ৩৬৫, কংগ্রেস জোটের ৭৭ থেকে ১০৮ এবং অন্যদের ৭৯ থেকে ১১১টি আসন পাওয়ার আভাস দেওয়া হয়েছে। বুথফেরত জরিপের ফল ঠিক হলে টানা দ্বিতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হতে চলেছেন নরেন্দ্র মোদী বুথফেরত জরিপের ফল ঠিক হলে টানা দ্বিতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হতে চলেছেন নরেন্দ্র  মোদী। প্রতিটি পর্বের নির্বাচন চলাকালে ভোট দিয়ে আসা লোকজনের কাছ থেকে তথ্য নিয়ে এসব জরিপ করা হয়েছে। তবে ভারতের অতীত নির্বাচনগুলোতে সব সময় বুথ ফেরত জরিপের ফলাফল ভোটের ফলের সঙ্গে মেলেনি। ১৯৯৮ সাল থেকে প্রতিটি নির্বাচনের পর বুথফেরত জরিপগুলোতে হয় বিজেপি জোটকে হয় এগিয়ে রাখা হয়েছে বা হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস দেওয়া হয়েছে। কিন্তু বাস্তবে এরমধ্যে দুই দফায় ভোটে জিতে সরকার গঠন করেছে কংগ্রেস। বুথফেরত জরিপ থেকে ভোটের ফল পুরো উল্টে গেছে ২০০৪ সালে, ওই নির্বাচনে অটল বিহারী বাজপাই সরকারকে হটিয়ে সরকার গঠন করেছিল কংগ্রেস। মনমোহন সিং নেতৃত্বাধীন ওই সরকার মেয়াদ পূর্তির পর পরের ভোটেও জয়ী হয়ে আরও পাঁচ বছর ক্ষমতায় থাকে। ২০০৪ সালের ভোটের পর বুথফেরত জরিপের প্রতিটিতে বিজেপি এগিয়ে রাখা হয়েছিল, আউটলুক-এমডিআরএ’র হিসাবে তাদের ২৯০টি আসন পাওয়ার আভাস দেওয়া হয়েছিল। তবে নির্বাচনে মাত্র ১৮৯টি আসন পায় তারা। অপরদিকে ২২২ আসনে জয়ী হয়ে সরকার গঠন করে কংগ্রেস। এরপর ২০০৯ সালের নির্বাচনের পরেও এক্সিট পোলগুলোতে কংগ্রেস-বিজেপির হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস দেওয়া হয়েছিল। তবে ২৬২ আসনে জয় পেয়ে ক্ষমতা ধরে রাখে কংগ্রেস জোট। সর্বশেষ ২০১৪ সালের নির্বাচনের পর বুথফেরত জরিপগুলোতে বিজেপি জোটের জয়ের আভাস দেওয়া হলেও অধিকাংশের হিসাবেই তাদের ২৭০ থেকে ২৮০টি আসন পাওয়ার কথা বলা হয়েছিল। কিন্তু ভোটের ফলে ৩৩৬টি আসন যায় তাদের ঘরে। এবার পশ্চিমবঙ্গেও বিজেপির ভালো করার আভাস দিচ্ছে বুথফেরত জরিপগুলো। সব জরিপেই সেখানে ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষে পাল¬া ভারী থাকলেও বিজেপির আসন বেড়ে ২২টিতেও যেতে পারে বলে আভাস দেওয়া হয়েছে। এপিবি-নিয়েলসনের জরিপে এই রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেস ২৪টি, বিজেপি ১৬টি এবং কংগ্রেস দুটি আসনে জয়ী হতে পারে বলে বলা হয়েছে। গত নির্বাচনে এই রাজ্য থেকে বামফ্রন্টের দুজন লোকসভায় গিয়েছিল, এবার তাদের ভাগে একটিও না জুটতে পারে বলেই অধিকাংশ বুথফেরত জরিপের আভাস।

দৌলতপুরে ড্রাম ট্রাক হেলপারের কারাদন্ড

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে ড্রাম ট্রাক হেলপারের একমাস বিনাশ্রম কারাদন্ড ও অর্থদন্ডে দন্ডিত করেছেন ভ্রাম্যমান আদালত। গতকাল সোমবার বেলা পৌনে ১২টায় উপজেলার ফিলিপনগর ইউনিয়নের বাহিরমাদি সদরঘাট এলাকায় ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়ে কারাদন্ড ও অর্থদন্ড প্রদান করেন। ভ্রাম্যমান আদালত সূত্র জানায়, বাহিরমাদি চর থেকে অবৈধভাবে মাটি কেটে ড্রাম ট্রাকে ইটভাটায় সরবরাহ করা হচ্ছে এমন সংবাদ পেয়ে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালায়। দৌলতপুর সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আজগর আলীর নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত বাহিরমাদি সদরঘাট এলাকায় অভিযান চালিয়ে জহুরুল ইসলাম (২৫) নামে ড্রাম ট্রাকের হেলপারকে আটক করে মোটরযান অধ্যাদেশ আইন ১৯৮০ এর ১৩৮ ধারায় একমাস বিনাশ্রম কারাদন্ড এবং অন্যধারায় ১৭০০ টাকা অর্থদন্ডে দন্ডিত করেন। দন্ডিত হেলাপার উপজেলার আল্লারদর্গা এলাকার মৃত বাবু মন্ডলের ছেলে।

কাজের গতি বাড়াতে মন্ত্রিসভায় পরিবর্তন – কাদের

ঢাকা অফিস ॥ সময়ের প্রয়োজনে কাজের গতি বাড়াতে মন্ত্রিসভায় পরিবর্তন আনা হয়েছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। দু’টি মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীদের দায়িত্ব ভাগ করে দেওয়ার বিষয়টি নিয়ে গতকাল সোমবার সেতু ভবনে এক মতবিনিময় সভায় সাংবাদিকদের প্রশ্নে তিনি বলেন, “এটা কাজের সুবিধার জন্য। কাজের সুবিধার জন্য পুনর্বিন্যাস, পূণর্গঠন অনেক সময় প্রয়োজন হয়ে পড়ে। প্রধানমন্ত্রী যেহেতু টিম লিডার। এই জাহাজের ক্যাপ্টেন, কাজেই রাষ্ট্রীয় জাহাজটি যাতে ভালোভাবে চলে, গতি সম্পন্ন হয়, সমন্বয় নিয়ে যেন চলতে পারে, সেজন্য প্রধানমন্ত্রী সময়ের চাহিদা মেটানো, বাস্তবতাকে আলিঙ্গণ করবেন এবং সেজন্য এই ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।” সরকার গঠনের পাঁচ মাস পর রোববার মন্ত্রিসভায় প্রথম পরিবর্তন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় এবং ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ে দায়িত্বরত মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের দায়িত্ব ভাগ করে দেওয়া হয়। দায়িত্ব ভাগ করে দেওয়ার পর এখন মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার শুধু ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের দেখভালে থাকবেন। আর প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক সামলাবেন মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ। অন্যদিকে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম ইসলামকে স্থানীয় সরকার বিভাগে রেখে প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টচার্য্যকে শুধু পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আর প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানকে স্বাস্থ্য থেকে সরিয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ে দেওয়া হয়েছে। মন্ত্রিসভায় এই পুনর্বিন্যাসের কারণ জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, “মন্ত্রিপরিষদ গঠন, পুনর্বিন্যাস- পরিমার্জন-পরিবর্ধনের এখতিয়ারটি সম্পূর্ণভাবে প্রধানমন্ত্রীর। এ ধরনের পদক্ষেপ সব দেশেই নেওয়া হয়।” মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের দায়িত্ব ভাগ করে দেওয়া মন্ত্রণালয় ভাগ করে দেওয়া নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনা হচ্ছে জানালে জবাবে কাদের বলেন, “সে ধরনের কোনো বিষয় নয়, এটা হচ্ছে কাজের সুসমন্বয়, কাজের গতি, কাজের মান। এই বিষয়টিকে নিশ্চিত করার জন্য কাজটা ভাগ করে দিলে গতিটা বাড়ে, সমন্বয় বাড়ে এবং কাজের কোয়ালিটি বাড়ে, কাজ আরও বেশি করে করা যায়। সে দিকটাকে অবশ্যই প্রধানমন্ত্রী দেখেছেন।” একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিপুল বিজয়ের পর গত ৭ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী হিসেবে টানা তৃতীয় মেয়াদে শপথ নেন শেখ হাসিনা। ২৪ জন মন্ত্রী, ১৯ জন প্রতিমন্ত্রী এবং তিনজন উপমন্ত্রীকে নিয়ে নতুন সরকারের মন্ত্রিসভা সাজান তিনি।

 

কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের নব-নির্বাচিত পরিষদকে ভেড়ামারার সাংবাদিকদের ফুলেল শুভেচ্ছা

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের নব-নির্বাচিত পরিষদকে ভেড়ামারা উপজেলার সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে। গতকাল সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় প্রেসক্লাবের এম এ রাজ্জাক মিলনায়তনে কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের নব-নির্বাচিত সভাপতি গাজী মাহাবুব রহমান ও সাধারণ সম্পাদক আনিসুজ্জামান ডাবলু পরিষদের সকল নেতৃবৃন্দকে ভেড়ামারা উপজেলার সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে এ ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের নব-নির্বাচিত নেতৃবৃন্দকে ভেড়ামারা উপজেলার সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান, ডাঃ আমিরুল ইসলাম মান্নান (দৈনিক সময়ের কাগজ), রেজাউল করিম (দৈনিক যুগান্তর), ইসমাঈল হোসেন বাবু (দৈনিক ভোরের কাগজ), মাসুদ করিম (দৈনিক নয়া দিগন্ত), শাহ্ জামাল (দৈনিক মানব জমিন), এস এম আবু ওবাইদা-আল-মাহদী (দৈনিক খোলা কাগজ ও দৈনিক আন্দোলনের বাজার), ফিরোজ মাহমুদ  দৈনিক আমার সংবাদ), মাসুদ রানা (মানবকণ্ঠ ও দৈনিক মাটির পৃথিবী), নোমান জহির রাজা (দৈনিক আজকের আলো), সোহেল রানা (নিউজ বাংলা), জহুরুল ইসলাম (কুষ্টিয়ার মুখ), সাগর হোসেন পবন (অনলাইন পত্রিকা), জাহিদ হাসান (দেশের বাণী) প্রমুখ।

উল্লেখ্য, গত ৪ মে (শনিবার)শান্তিপূর্ণ পরিবেশের মধ্যদিয়ে কুষ্টিয়া প্রেসক্লাব এর দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন (২০১৯-২০২১) সম্পন্ন হয়। নির্বাচনে গাজী মাহাবুব রহমান-আনিসুজ্জামান ডাবলু পরিষদের পূর্ণ প্যানেল জয়লাভ করে। গাজী মাহাবুব রহমান-আনিসুজ্জামান ডাবলু পরিষদের নেতৃবৃন্দরা হলেন, সভাপতি গাজী মাহাবুব রহমান, সাধারণ সম্পাদক আনিসুজ্জামান ডাবলু, সহ-সভাপতি তারিকুল হক তারিক, লুৎফর রহমান কুমার, যুগ্ম-সম্পাদক নুরুন্নবী বাবু, শরিফ বিশ্বাস, কোষাধ্যক্ষ আবু মনি জুবায়েদ রিপন, দপ্তর সম্পাদক এম.লিটন-উজ-জামান, প্রচার প্রকাশনা ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক তৌহিদী হাসান, ক্রীড়া ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক আ.ফ.ম নূরুল কাদের, নির্বাহী সদস্য মিজানুর রহমান লাকী, আক্তার হোসেন ফিরোজ, আব্দুল জিহাদ, পি.এম.সিরাজুল ইসলাম, ডালিয়া পারভিন (শিউলি), দেবাশীষ দত্ত, সুজন কুমার কর্মকার, মোকাদ্দেস হোসেন সেলিম ও নিজাম উদ্দিন।

অস্ট্রেলিয়ায় ফের স্কট মরিসনের জোটের জয়

ঢাকা অফিস ॥ অস্ট্রেলিয়ার ৪৬তম ফেডারেল নির্বাচনে জয়ে পেয়েছে দেশটির প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসনের নেতৃত্বাধীন ক্ষমতাসীন লিবারেল ও ন্যাশনাল পার্টি জোট। এ নিয়ে টানা তৃতীয়বারের মতো জয় পেলো তারা। শনিবার (১৮ মে) স্থানীয় সময় সকালে ভোট শুরু হয়ে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত চলে। এরপর শুরু হয় গণনা। পরে পূর্ণ ফলাফল প্রকাশের আগেই জানা যায়, জয় নিশ্চিত, এমন ভোটে এগিয়ে গেছে ক্ষমতাসীন মধ্য-ডানপন্থী জোট। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বলছে, ৭০ শতাংশের কিছু বেশি ভোট গণনার পরই নিশ্চিত হয়ে যায় বর্তমান সরকারই জয় পেয়েছে। দেশটিতে ১৫১টি আসনে ভোটগ্রহণ হয়। সরকার গঠন করতে একটি দলের জয় প্রয়োজন ৭৬টিতে। কিন্তু ৭৪টি আসনে জয় পেয়েই নতুন সরকার গঠন নিশ্চিত করেছে লিবারেল ও ন্যাশনাল পার্টি জোট দল। অপরদিকে, প্রতিদ্বন্দ্বী লেবার পার্টি ৬৬টি আসন পেয়েছে। এছাড়া কয়েক ঘণ্টার মধ্যে জানা যাবে পূর্ণ ফলাফল। টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করার সুযোগ দেওয়ায় ভোটারদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন বিজয়ী জোট নেতা প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন। তিনি সমর্থক এবং ভোটারদের বলেছেন, অলৌকিক কাজগুলো সবসময় বিশ্বাস করি। আংশিক ফলাফলেই আমাদের জোট জয় পেয়েছে বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। এটা অলৌকিক। এর অবদান ভোটারদের।

 

বৌদ্ধ ধর্মালম্বীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময়কালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

বাংলাদেশে সবাই স্বাধীনভাবে ধর্ম পালন করবে

ঢাকা অফিস ॥ বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এ দেশে বসবাসকারী সবাই সম্মানের সাথে স্বাধীনভাবে নিজ নিজ ধর্ম পালন করবে, এটাই তার সরকারের চাওয়া। বৌদ্ধপূর্ণিমা উপলক্ষে গতকাল সোমবার গণভবনে বৌদ্ধ ধর্মালম্বীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে তিনি সব ধর্মের মানুষ যেন শান্তিপূর্ণভাবে, সম্মানের সাথে, স্বাধীনভাবে ধর্ম পালন করতে পারে তা নিশ্চিত করতে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ ও সফলতার কথা তুলে ধরেন। শেখ হাসিনা বলেন, “সব ধর্মই শান্তির কথা বলে। এটাই বিশ্বাস করি যে, ধর্ম যার যার, উৎসব সবার এবং এভাবেই বাংলাদেশে উৎসবগুলো পালন করা হয়। যে ধর্মের উৎসবই হোক, সবাই মিলেই কিন্তু সেটা উদযাপন করে।” ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি গ্রহণযোগ্য নয় বলে মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে বাংলাদেশ বিশ্বে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, “সহনশীলতা ও এই ভাতৃত্ববোধ সবার মাঝে থাকুক। যেকোনো সম্প্রদায় যেন নিজেদের অবহেলিত মনে না করে।” সন্ত্রাসী ও জঙ্গি কর্মকান্ডের নিন্দা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ এগুলো এখন সারা বিশ্বে সমস্যা হিসেবে দেখা দিয়েছে। আসলে জঙ্গি জঙ্গিই, তাদের কোনো ধর্ম নাই, দেশ নাই, সমাজ নাই। তারা জঙ্গিই এটাই হল বাস্তবতা। সেই জায়গা থেকে বাংলাদেশকে মুক্ত রেখে আমরা অর্থনৈতিক অগ্রগতি তরান্বিত করতে চাই।” উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ গড়ার প্রত্যয় ব্যক্ত বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, “দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করা, ধর্ম-বর্ণ, দল-মত নির্বিশেষে সকল মানুষেরই জীবনমান উন্নত হোক সেটাই আমরা চাই।” দেশকে পুরোপুরিভাবে দারিদ্র্যমুক্ত তার সরকার কাজ করে যাচ্ছে বলেও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।

দেশীয় মেশিনেই প্রক্রিয়াজাত হচ্ছে পামঅয়েল

কৃষি প্রতিবেদক ॥ পামঅয়েল বর্তমানে বিশ্বের দ্বিতীয় ভোগ্য ভোজ্যতেল। আর প্রতি  হেক্টর জমিতে পামঅয়েলের উৎপাদন সয়াবিনের থেকে প্রায় ১০ গুণ বেশি। পৃথিবীতে বর্ধিত জনসংখ্যার ভোজ্যতেলের স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনে পামঅয়েল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। আবার পুষ্টির চাহিদা পূরণেও পামঅয়েলের ভূমিকা অনেক। আর এসব কারণেই সয়াবিনের স্থান দখল করে নিতে সক্ষম হয়েছে পামঅয়েল। কেবল আমাদের দেশেই নয়, বিশ্বের অনেক দেশেই পামঅয়েল খাওয়ার প্রবণতা কয়েকগুণ বেড়েছে। এ জন্য বাংলাদেশে কয়েক বছর আগে সরকারি উদ্যোগে পাম গাছ থেকে তেল পাওয়ার জন্য ২০ লাখের অধিক পামঅয়েল চারা রোপণ করা হয়েছিল। এ ছাড়াও ব্যক্তিগত উদ্যোগে- সিলেট, দিনাজপুর, পাবত্য অঞ্চলেও লাগানো হয়েছিল প্রচুর পামগাছ। কিন্তু যন্ত্রের অভাবে গাছ থেকে  তেল প্রক্রিয়াজাত করা সম্ভব হচ্ছিল না। এর প্রধান কারণ ছিল বিদেশ থেকে আমদানিকৃত মেশিনের দাম ছিল অনেক বেশি। যা ছোট কৃষকের একার পক্ষে কেনা  কোনোভাবেই সম্ভব ছিল না। অন্যদিকে দেশের বাহির থেকে মেশিন কেনা হলেও তা এ দেশের কৃষকের জন্য উপযোগী ছিল না। এতে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছিলেন পামচাষিরা। এসব বিষয়কে মাথায় রেখে পামঅয়েল প্রক্রিয়াজাতকরণ মেশিন উদ্ভাবন করেছেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) কৃষি শক্তি ও যন্ত্র বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. আবদুল আওয়াল। আর এ দেশীয় প্রযুক্তি ও কাঁচামাল দিয়ে উদ্ভাবিত এই মেশিন দিয়েই প্রক্রিয়াজাত শুরু হয়েছে পামঅয়েলের। এতে করে পামচাষিদের মধ্যে নতুন করে পাম চাষে আগ্রহ তৈরি হয়েছে। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় সারাদেশে মেশিনটি ছড়িয়ে দিতে পারলে পামঅয়েল উৎপাদনে বিপ্লব সাধিত হবে। রপ্তানি করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনেও ভূমিকা রাখতে পারবে পামঅয়েল বলেও জানিয়েছেন এই উদ্ভাবক। মেশিনটি সম্পর্কে জানতে চাইলে উদ্ভাবক বলেন, এটি তৈরি করা অনেকটা চ্যালেঞ্জিং বিষয় ছিল। কারণ মেশিনের একটু এদিক  সেদিক হলে তেল প্রক্রিয়াজাতকরণে অনেক সমস্যা হতো। প্রথমে ডিজাইন থিউরির ওপরে ভিত্তি করে মেশিনটির অটোক্যাড ডিজাইন করা হয়। মেশিনের জন্য স্থানীয়ভাবে সহজলভ্য ও গুণগতমান সম্পন্ন কাঁচামাল ব্যবহার করা হয়েছে। যাতে করে মেশিনটি টেকসই ও কর্মদক্ষতা বৃদ্ধি পায়। সহজে যেন কৃষকরা এটি ব্যবহার করতে পারে সেটির দিকেও যথেষ্ট নজর ছিল আমার। পামঅয়েলের ব্যাঞ্চ কাটা  থেকে ক্রুড ওয়েল তৈরি করতে যত কম সময় লাগে, ততই তেলের উৎপাদন বেশি হয়। কিন্তু বাংলাদেশে সময়োপযোগী মেশিনের অভাবে এটি করা যাচ্ছিল না। এতে কৃষক আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতেন এমনকি এটি চাষের আগ্রহও হারিয়ে  ফেলেছিলেন। কিন্তু বর্তমানে মেশিনটি উদ্ভাবিত হওয়ায় নতুনভাবে এটির সুযোগ  তৈরি হলো। এখন থেকে ছোট ছোট পামচাষিরাও এটি ব্যবহার করে সুফল পাবেন। সারাদেশে এটি পৌঁছাতে পারলে বাহির থেকে পামঅয়েল আমদানি তো বন্ধ হবেই এমনকি বিদেশেও রপ্তানির সুযোগ তৈরি হবে। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় পরিত্যক্ত সমুদ্র অঞ্চলে ও পাবর্ত্য অঞ্চলের পরিত্যক্ত জমিতে পাম গাছ রোপণ করা গেলে পামঅয়েলের চাহিদা মেটানো সম্ভব। এ ক্ষেত্রে লাখ লাখ বেকারের কর্মস্থানও হবে বলে মনে করেন এই উদ্ভাবক। তিনি আরো জানান, পাম ফলকে প্রক্রিয়াজাত করে দুধরনের তেল পাওয়া যায়। ফলটির মাংসল অংশ (মেসোকার্প) থেকে পামঅয়েল আহরণ করা হয়, আর বীজ বা শাঁস থেকে পাওয়া যায় পাম কার্নেল তেল। প্রতিটি ফল থেকে ৯ ভাগ পাম তেল ও ১ ভাগ পাম কার্নেল তেল পাওয়া যায়। সংগৃহীত তাজা ফলকে দ্রুত কারখানায় নিয়ে স্টেরিলাইজ ও গুচ্ছবিহীন করার পর মাড়াই করে অপরিশোধিত তেল আহরণ করা হয়। চূড়ান্ত পরিশোধনের পর তেল খাদ্যে ব্যবহার উপযোগী স্বর্ণাভ তেলে পরিণত হয়। একটি সরল পৃথকীকরণ প্রক্রিয়ায় তরল পাম অলিন ও জমাট পাম স্টিয়ারিনকে পৃথক করা যায়। কোনো দ্রাবক ছাড়াই শুধুমাত্র যান্ত্রিক ও ভৌত প্রক্রিয়ায় পাম তেল আহরণ করা হয় বলে পাম তেল একান্তভাবেই প্রাকৃতিক। আর এ মেশিনটি উদ্ভাবন করার মাধ্যমে পামঅয়েল প্রাপ্তি আরো সহজ হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

মুশফিক টপ ক্লাস ব্যাটসম্যান – আকাশ চোপড়া

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ দুয়ারে কড়া নাড়ছে আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপ-২০১৯। আসন্ন ক্রিকেটের সর্বোচ্চ আসরে বাংলাদেশ দল নিয়ে চুলচেরা বিশে¬ষণ করেছেন ভারতের সাবেক ক্রিকেটার ও জনপ্রিয় ধারাভাষ্যকার। তার মতে, টাইগারদের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য মুশফিকুর রহিম টপ ক্লাস ব্যাটসম্যান। ইউটিউবে নিয়মিত ক্রিকেট নিয়ে নিজস্ব বিশে¬ষণ উপস্থাপন করেন আকাশ। নিজ দেশ ভারত, চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তান ছাড়া বিশ্বকাপ স্কোয়াড ঘোষণা করা অন্য দলগুলোকে নিয়ে নিজের মূল্যায়ন তুলে ধরেন তিনি। এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশের বিশ্বকাপ স্কোয়াড নিয়ে কথা বললেন জনপ্রিয় এ ধারাভাষ্যকার। তাতেই এ কথা বলেন তিনি। আকাশের মতে, বাংলাদেশ টপঅর্ডারের মূল ভরসা সাকিব-মুশফিক। তবে মাহমুদউল¬াহকে নিয়ে বিশেষভাবে আলোচনা করেছেন তিনি। গেল বিশ্বকাপে মাহমুদউল¬াহর টানা দুই সেঞ্চুরির কথা মনে করিয়ে দিয়েছেন জনপ্রিয় ও ধারাভাষ্যকার। এ ভারতীয় বলেন, সাকিব আর মুশফিকের জন্য বাংলাদেশের টপঅর্ডার বেশ ভারী। আরেকজনের কথা না বললেই নয়, মাহমুদউল¬াহ। তার কথা মনে আছে, আগের বিশ্বকাপে কী দারুণ সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছিল। সাকিব তো রান করবেই, মুশফিক টপ ক্লাস ব্যাটসম্যান, সেও রান করবে। মাহমুদউল¬াহকে ব্যাটিং অর্ডারে একটু ওপরের দিকে ৫ বা ৬ নম্বরে ব্যাট করতে দেখাটা দারুণ হবে। আসলে পাঁচে হলে বেশি ভালো হবে। বিশ্বকাপের আগে আয়ারল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ত্রিদেশীয় সিরিজে শিরোপা ঘরে তুলেছে বাংলাদেশ। নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথমবারের মতো কোনো তিন জাতি টুর্নামেন্টের ট্রফি জিতল এশিয়ার নবপরাশক্তি। ইতিমধ্যে আত্মবিশ্বাস নিয়ে বিশ্বকাপের দেশ ইংল্যান্ডে পাড়ি জমিয়েছেন টাইগাররা। ২ জুন দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবেন তারা। স্বাভাবিকভাবেই সাফল্য পেতে সাকিব, মাহমুদউল¬াহ, মুশফিকের দিকে তাকিয়ে লাল-সবুজ জার্সিধারীরা।

পিচিচি ট্রফি জিতে সাররার রেকর্ড স্পর্শ মেসির

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ মৌসুম জুড়ে দুর্দান্ত ছন্দে থাকা লিওনেল মেসি টানা তৃতীয়বারের মতো পিচিচি ট্রফি জিতেছেন। এরই সঙ্গে লা লিগার শীর্ষ গোলদাতার পুরস্কারটি জয়ের তালিকায় শীর্ষে থাকা সাবেক স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড তেলমো সাররাকে স্পর্শ করেছেন বার্সেলোনা ফরোয়ার্ড। রোববার লিগের শেষ রাউন্ডে এইবারের সঙ্গে ২-২ ড্র ম্যাচে দলের দুটি গোলই করেন মেসি। এ নিয়ে আসরে ৩৪ ম্যাচ খেলে মোট ৩৬ গোল করলেন তিনি। সতীর্থদের দিয়েও ১৩টি গোল করিয়েছেন বার্সেলোনা অধিনায়ক। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২১টি করে গোল করেছেন তার সতীর্থ লুইস সুয়ারেস ও রিয়াল মাদ্রিদের করিম বেনজেমা। ২০০৯-১০, ২০১১-১২, ২০১২-১৩ মৌসুমে প্রথম তিনবার পুরস্কারটি জিতেছিলেন মেসি। মেসির আগে টানা তিনবার পুরস্কারটি জিতেছিলেন মেক্সিকোর স্ট্রাইকার হুগো সানচেস। রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে ১৯৮৫-৮৬, ১৯৮৬-৮৭ ও ১৯৮৭-৮৮ মৌসুমে এই কীর্তি গড়েছিলেন তিনি। ক্যারিয়ারে মোট পাঁচবার পুরস্কারটি জিতেছিলেন কিংবদন্তি এই ফরোয়ার্ড।

আফগানিস্তানকে উড়িয়ে দিল আয়ারল্যান্ড

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ রান করা কঠিন এমন উইকেটে পল স্টার্লিং ও উইলিয়াম পোর্টারফিল্ডের ফিফটিতে লড়াইয়ের পুঁজি পেল আয়ারল্যান্ড। ত্রিদেশীয় সিরিজে অনুজ্জ্বল থাকা বোলিং ইউনিট জ্বলে উঠল। প্রথম ওয়ানডেতে আফগানিস্তানকে উড়িয়ে দিল আইরিশরা। বেলফাস্টে বোলারদের দাপটের ম্যাচে ৭২ রানে জিতে দুই ম্যাচের সিরিজে এগিয়ে গেছে আয়ারল্যান্ড। ২১০ রান তাড়ায় ৩৫ ওভার ৪ বলে ১৩৮ রানে গুটিয়ে গেছে আফগানিস্তান। বাংলাদেশ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে নিয়ে হয়ে যাওয়া ত্রিদেশীয় সিরিজে আয়ারল্যান্ডের জয়শূন্য থাকায় সবচেয়ে বড় দায় ছিল বোলারদের। আফগানিস্তান সিরিজের আগে বোলারদের এগিয়ে আসার তাগিদ দিয়েছিলেন অধিনায়ক পোর্টারফিল্ড। তাতে সাড়া দিয়েই যেন আফগানদের গুঁড়িয়ে দিলেন মার্ক অ্যাডায়ার, বয়েড র‌্যানকিনরা। স্টরমন্টের সিভিল সার্ভিস ক্রিকেট ক্লাব মাঠে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি আয়ারল্যান্ডের। জেমস ম্যাককলাম ও অ্যান্ডি বালবার্নিকে দ্রুত ফিরিয়ে দেন দৌলত জাদরান। এরপরই নিজেদের সেরা জুটি পেয়ে যায় আইরিশরা। তৃতীয় উইকেটে অধিনায়ক পোর্টারফিল্ডের সঙ্গে ৯৯ রানের জুটিতে দলকে টানেন স্টার্লিং। ৬ চারে ৫৩ রান করা পোর্টারফিল্ডকে বিদায় করে বিপজ্জনক হয়ে উঠা জুটি ভাঙেন লেগ স্পিনার রশিদ খান। ৯৪ বলে ছয় চার ও দুই ছক্কায় ৭১ রান করা স্টার্লিংকে খানিক পর থামান আফগান অধিনায়ক গুলবাদিন নাইব। এরপর মিডল অর্ডারে একাই লড়াই করেন কেভিন ও’ব্রায়েন। ৪৪ বলে ৩২ রানের ইনিংসে দলকে এনে দেন লড়াইয়ের পুঁজি। ১৮ রানে শেষ ৫ উইকেট হারানো স্বাগতিকরা খেলতে পারেনি পুরো ৫০ ওভার। দুই আফগান পেসার আফতাব আলম ও দৌলত নেন তিনটি করে উইকেট। দুই আক্রমণাত্মক ওপেনার মোহাম্মদ শাহজাদ ও হজরতউল¬াহ জাজাইকে ডানা মেলতে দেননি আইরিশ বোলাররা। মন্থর ব্যাটিংয়ে ১৯ ওভারে ৪০ রান তুলতে প্রথম চার ব্যাটসম্যানকে হারায় সফরকারীরা। রানের গতিতে দম দেন মোহাম্মদ নবি। দুটি করে ছক্কা-চারে ২৫ বলে ২৭ রান করা অলরাউন্ডারকে ফিরিয়ে দেন ও’ব্রায়েন। এক প্রান্ত আগলে রাখা আসগর আফগানের প্রতিরোধ ভাঙেন র‌্যানকিন। পাল্টা আক্রমণে দ্রুত রান তোলার চেষ্টায় ছিলেন নাইব, রশিদ। তাদের কারোর ইনিংসই বড় হয়নি। আফগানিস্তানও পারেনি বড় হার এড়াতে। অ্যান্ডি ম্যাকব্রায়ান আফগান ব্যাটসম্যানদের জন্য ছিলেন যেন দুর্বোধ্য। ১০ ওভারে মাত্র ১৭ রান দেন এই অফ স্পিনার। ১৯ রানে চার উইকেট নিয়ে আয়ারল্যান্ডের সফলতম বোলার অ্যাডায়ার। র‌্যানকিন ৩ উইকেট নেন ৪০ রানে। আজ মঙ্গলবার একই ভেন্যুতে হবে দ্বিতীয় ও শেষ ওয়ানডে। সংক্ষিপ্ত স্কোর: আয়ারল্যান্ড: ৪৮.৫ ওভারে ২১০ (স্টার্লিং ৭১, ম্যাককলাম ৪, বালবার্নি ৪, পোর্টারফিল্ড ৫৩, ও’ব্রায়েন ৩২, উইলসন ১০, ড্করেল ১৪, অ্যাডায়ার ৭, ম্যাকব্রায়ান ৩, মারটাঘ ৩*, র‌্যানকিন ১; দৌলত ৩/৩৫, আফতাব ৩/২৮, মুজিব ০/৩৫, নাইব ১/৪৫, রশিদ ২/৪১, নবি ০/২১)। আফগানিস্তান: ৩৫.৪ ওভারে ১৩৮ (শাহজাদ ২, জাজাই ১৪, রহমত ৪, আফগান ২৯, শাহিদি ১২, নবি ২৭, নাইব ২০, রশিদ ১৬, দৌলত ০, আফতাব ৫*, মুজিব ০; মারটাঘ ২/১২, ম্যাকব্রায়ান ০/১৭, অ্যডায়ার ৪/১৯, ডকরেল ০/২৬, র‌্যানকিন ৩/৪০, ও’ব্রায়েন ১/২১)। ফল: আয়ারল্যান্ড ৭২ রানে জয়ী।

 

ওকসের ছোবলে পাকিস্তানকে হারাল ইংল্যান্ড

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ ফিফটি মাত্র দুটি। তবে প্রায় সব ব্যাটসম্যানই রান পাওয়ায় আরেকটি বড় সংগ্রহ গড়লো ইংল্যান্ড। বোলিংয়ে শুরুতেই পাকিস্তানকে কাঁপিয়ে দিলেন ক্রিস ওকস। বাজে শুরুর পর সরফরাজ আহমেদ ও বাবর আজমের বীরত্বে লড়াই করলেও হারের বৃত্ত ভাঙতে পারেনি সফরকরীরা। পঞ্চম ও শেষ ওয়ানডেতে ৫৪ রানে জিতেছে ইংল্যান্ড। ৩৫১ রান তাড়ায় ৪৬ ওভার ৫ বলে ২৯৭ রানে থমকে যায় পাকিস্তানের ইনিংস। প্রথম ম্যাচ বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়ার পর বাকি চার ম্যাচ জিতে ৪-০ ব্যবধানে সিরিজ জিতল স্বাগতিকরা। হেডিংলিতে রোববার টস জিতে ব্যাট করতে নেমে জনি বেয়ারস্টো ও জেমস ভিন্সের ব্যাটে ভালো শুরু পায় ইংল্যান্ড। তবে সম্ভাবনাময় ইনিংস বড় করতে পারেননি দুই ওপেনারের কেউই। নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ফেরা ওয়েন মর্গ্যানের সঙ্গে শতরানের জুটিতে দলকে দৃঢ় ভিতের ওপর দাঁড় করান জো রুট। ছন্দে থাকা এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান ৯ চারে করেন ৮৪ রান। বাঁহাতি মর্গ্যান ৬৪ বলে ফিরেন ৭৬ রান করে। মিডল অর্ডারে প্রত্যাশিত ঝড় তুলতে পারেননি জস বাটলার, বেন স্টোকস। অলরাউন্ডারসহ এগারো নম্বর পর্যন্ত ব্যাটসম্যান খেলানো ইংলিশরা সাড়ে তিনশ পর্যন্ত যায় লোয়ার অর্ডারের দৃঢ়তায়। খরুচে বোলিংয়ে ৮২ রানে ৪ উইকেট নেন শাহিন শাহ আফ্রিদি। ইমাদ ওয়াসিম ৩ উইকেট নেন ৫৩ রানে। বড় রান তাড়ায় ওকসের ছোবলে শুরুতেই এলোমেলো হয়ে যায় পাকিস্তান। রানের খাতাই খুলতে পারেননি ফখর জামান, মোহাম্মদ হাফিজ। ৫ রান করে ফিরেন আবিদ আলি। ৬ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলে সফরকারীরা। ছন্দে থাকা বাবরের সঙ্গে ১৪৬ রানের জুটিতে শুরুর ধাক্কা সামাল দিয়ে দলকে ম্যাচে ফেরান সরফরাজ। দুই ব্যাটসম্যানই ফিরে যান রান আউট হয়ে। আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান বাবর ৮৩ বলে করেন ৮০। মাত্র তিন রানের জন্য সেঞ্চুরি পাননি সরফরাজ। পাকিস্তান অধিনায়ক ৮০ বলে ৭ চার ও দুই ছক্কায় খেলেন ৯৭ রানের ঝড়ো ইনিংস। এরপর তেমন কোনো জুটি গড়তে পারেনি পাকিস্তান। আসিফ আলি, ইমাদ ওয়াসিমরা টানতে পারেননি দলকে। শতরানে হারের শঙ্কায় পড়ে যাওয়া সফরকারীরা ব্যবধান কমায় আফ্রিদি ও হাসনাইনের ব্যাটে। দশম উইকেটে তারা গড়েন ৪৭ রানের জুটি। শুরুতে ৩ উইকেট নেওয়া ওকস শেষে নেন দুটি। সব মিলিয়ে ৫৪ রানে ৫ উইকেট নিয়ে এই অলরাউন্ডার জেতেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার। বিস্ফোরক ব্যাটসম্যানে ঠাসা ইংল্যান্ডের ব্যাটিংকে স্থিতি দেওয়া রুট জেতেন সিরিজ সেরার পুরস্কার। সিরিজে ব্যাটিংয়ের সুযোগ পাওয়া চার ম্যাচেই তিনশ ছাড়ানো রান পেলো ইংল্যান্ড। আত্মবিশ্বাসের তুঙ্গে থেকে বিশ্বকাপে খেলতে যাচ্ছে মর্গ্যানের দল। অন্য দিকে ফল হওয়া সবশেষ ১০ ম্যাচে হারের তেতো স্মৃতি নিয়ে বিশ্বকাপে খেলতে যাচ্ছে পাকিস্তান। সংক্ষিপ্ত স্কোর: ইংল্যান্ড: ৫০ ওভোরে ৩৫১/৯ (ভিন্স ৩৩, বেয়ারস্টো ৩২, রুট ৮৪, মর্গ্যান ৭৬, বাটলার ৩৪, স্টোকস ২১, মইন ০, ওকস ১৩, উইলি ১৪, কারান ২৯*, রশিদ ২*; হাসান ১/৭০, আফ্রিদি ৪/৮২, হাসনাইন ১/৬৭, ওয়াসিম ৩/৫৩, ফখর ০/২৩, মালিক ০/২৯, হাফিজ ০/২৫)। পাকিস্তান: ৪৬.৫ ওভারে ২৯৭ (জামান ০, আবিদ ৫, বাবর ৮০, হাফিজ ০, সরফরাজ ৯৭, মালিক ৪, আসিফ ২২, ওয়াসিম ২৫, হাসান ১১, আফ্রিদি ১৯*, হাসনাইন ২৮; ওকস ৫/৫৪, উইলি ১/৫৫, কারান ০/৪০, স্টোকস ০/২৮, মইন ০/৬৩, রশিদ ২/৫৪)। ফল: ইংল্যান্ড ৫৪ রানে জয়ী

সিরিজ: পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ইংল্যান্ড ৪-০ ব্যবধানে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: ক্রিস ওকস। ম্যান অব দা সিরিজ: জো রুট।

 

হাবিবেব নতুন গান ‘মন তুই’

বিনোদন বাজার ॥ এবার ‘মন তুই’ শিরোনামের গান ভিডিও প্রকাশ করলেন সঙ্গীতশিল্পী হাবিব ওয়াহিদ। রাকিব হাসান রাহুলের কথায় গাওয়ার পাশাপাশি গানের সুর-সঙ্গীতে যথারীতি হাবিব ওয়াহিদ। ভিডিও নির্মাণেও বরাবরের মতো ‘এইচডব্লিউ’ প্রোডাকশন্স। রবিবার বিকাল ৩টায় হাবিবের অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেল গানটি প্রকাশ পেয়েছে।এদিকে ঈদ উপলক্ষ্যে প্রকাশ পাচ্ছে হাবিবের বিশেষ একটি গান ভিডিও। এর শুটিংয়ে অংশ নিতে মঙ্গলবার কক্সবাজারের যাচ্ছেন এই গায়ক।হাবিব ওয়াহিদ জানান, এটি অন্য কোম্পানির একটি গান। ঈদে গানটি ছাড়া হবে। কক্সবাজারের মনোরম দৃশ্যায়নে তৈরি হচ্ছে গানটির গল্পনির্ভর একটি ভিডিও। তবে গান সম্পর্কে আপাতত বলতে যাচ্ছি। প্রকাশের আগে এ বিষয়ে জানানো হবে।

 

বেতারের ঈদ আড্ডায় মামুনুর রশীদ ও আফসানা মিমি

বিনোদন বাজার ॥ ঈদ আসতে আর অল্প দিন বাকি। এরই মধ্যে টেলিভিশন চ্যানেলগুলো তাদের অনুষ্ঠানমালা সাজাতে ব্যস্ত। রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম বাংলাদেশ বেতারও ঈদ অনুষ্ঠান নিয়ে এবার বেশ সোচ্চার। এ উপলক্ষে তারা প্রস্তুতিও নিয়েছে।এরই অংশ হিসেবে গত ১৫ মে বিকালে রাজধানীর আগারগাঁওস্থ বেতার ভবনে একটি ঈদ অনুষ্ঠানের রেকর্ডিং সম্পন্ন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানটির নাম ‘ঈদ আয়োজন’। এ অনুষ্ঠানের একটি অংশ হল ‘ঈদ আড্ডা’।এতে অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়েছিলেন নাট্যজন মামুনুর রশীদ ও আফসানা মিমি। প্রবাসী শ্রোতাদের জন্যই মূলত অনুষ্ঠানটি নির্মিত হয়েছে। ঈদের দিন ইউরোপ ও মধ্যপ্রাচ্যে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিরা অনুষ্ঠানটি শুনতে পাবেন। অনুষ্ঠানে তারা ঈদের একাল-সেকাল নিয়ে কথা বলেছেন।অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেছেন সৈয়দা ফরিদা ফেরদৌস যাত্রী।এতে অংশগ্রহণ প্রসঙ্গে মামুনুর রশীদ বলেন, ‘আমার মিডিয়া জীবন শুরু হয়েছিল বেতারের মাধ্যমে। তখন অভিনয়ের পাশাপাশি নাটকের গল্পও লিখতাম। অনেক গুণী মানুষের সান্নিধ্য পেয়েছিলাম। ভিজ্যুয়াল মিডিয়ায় কাজের ব্যস্ততা থাকলেও বেতারে আমি নিয়মিতই কাজ করি। এবারের এ অনুষ্ঠানটিও শ্রোতাদের কাছে উপভোগ্য হবে বলে মনে করি। কারণ এখানে আড্ডার ফাঁকে ফাঁকে অনেক বিষয়ের অবতারণা করা হয়েছে।’আফসানা মিমি বলেন, ‘অনুষ্ঠানটিতে অংশ নিয়ে ভালো লেগেছে। কারণ আমরা যখন প্রবাসে যাই, তখন প্রবাসীরা আমাদের খুব সম্মান করেন। তাদের জন্য অনুষ্ঠানে অংশ নিতে ভালো লেগেছে। আশা করছি, এখন থেকে বেতারের নাটক কিংবা বিভিন্ন অনুষ্ঠানে নিয়মিত কাজ করব।’

ঈদের নাটক মাই নেম ইজ জনি

বিনোদন বাজার ॥ ঈদের জন্য সম্প্রতি নির্মিত হয়েছে নাটক ‘মাই নেম ইজ জনি’। নাটকটি রচনা ও পরিচালনা করেছেন হিমু আকরাম।নাটকের গল্পে দেখা যাবে, ৬৫০ টাকার জন্য প্রেমিকা তুলতুলির সামনেই জনিকে অপমান করে চলে যায় ম্যানেজার বাদল। চলে যায় তুলতুলিও।অসহায় জনি মানিব্যাগ না নিয়ে বাসা থেকে বের হওয়ার জন্য নিজেই নিজের চুল ছিঁড়ে। ঝুট ব্যবসায়ী জনি রাগী স্বভাবের। অপমানের প্রতিশোধ নেয়ার জন্য চাচাতো ভাই বাদশা মিয়াকে দায়িত্ব দেয় ৬-৭ জন মোটা মানুষ সংগ্রহ করতে।াদশা মিয়া গ্রাম খুঁজে খুঁজে নিয়ে আসে গায়েন টুক্কা সওদাগর, কৃষক বদু মিয়া, গৃহিণী ময়নার মা, বাবুর্চি কালা চান, সেতারা ভাবি, কটকটি বিক্রেতা জামাল ও বোটকা দেলুকে।জনি প্রেমিকা তুলতুলিকে ফোন করে জানায় সাত জন মোটা বাহিনী নিয়ে প্রতিশোধ নিতে। এ ধরনের একটি নাটকে জনি চরিত্রে অভিনয় করছেন মারজুক রাসেল। আরও রয়েছেন কামাল হোসেন বাবর, আনন্দ খালিদ, শহিদুন্নবি, নীলা ইসলাম, আনোয়ার হোসেন, মাসুদ রানা মিঠু, বিল¬ু ও তাসফিয়া।এতে অভিনয় প্রসঙ্গে মারজুক রাসেল বলেন, ‘এ নাটকের শেষ দিকে দর্শকরা অন্য একটি গল্প পাবেন। যেটা এভাবে ভাবেননি কখনও।’ নির্মাতা জানান, অদ্ভুত কিছু চরিত্র নিয়েই এ নাটক। গ্রাম, শহর, সাত জন মোটা, আর একজন গোঁয়ার মানুষের গল্প নিয়েই মাই নেম ইজ জনি। নাটকটি ঈদে চ্যানেল আইতে প্রচার হবে।

মুক্তির অপেক্ষায় ইমনের তিন ছবি

বিনোদন বাজার ॥ দেশসেরা নায়ক শাকিব খানের সঙ্গে ‘পাসওয়ার্ড’ নামে একটি ছবিতে অভিনয় করেছেন ইমন। মালেক আফসারি পরিচালিত এ ছবির শুটিং সম্প্রতি শেষ হয়েছে।ছবিটি আগামী ঈদুল ফিতরে মুক্তি দেয়ার কথা রয়েছে। পাসওয়ার্ড ছাড়াও চিত্রনায়ক ইমনের আরও দুটি ছবি মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। ছবি দুটি হচ্ছে মোহাম্মদ আসলামের ‘বেগমজান’ ও অরুণ চৌধুরীর ‘ভালোবাসার উত্তাপে’। এর মধ্যে ‘ভালোবাসার উত্তাপে’ ছবি স্বল্পদৈর্ঘ্য বলে নির্মাতা জানান।মুক্তির অপেক্ষায় থাকা তিন ছবি প্রসঙ্গে ইমন বলেন, “ছবি তিনটি নিয়ে আমি খুব আশাবাদী। বিশেষ করে আগামী ঈদুল ফিতরে ‘পাসওয়ার্ড’ ছবি মুক্তির কথা রয়েছে। এ ছবিটি আমার ক্যারিয়ারের জন্য মাইলফলক হয়ে থাকবে বলে আমার বিশ্বাস। বাকি দুটি ছবিতেও আমি আমার সেরা অভিনয় দেয়ার চেষ্টা করেছি। কতটা ভালো অভিনয় করেছি সেটি দর্শক বিচার করবেন। আশা করছি, ছবি তিনটি দর্শকদের ভালো লাগবে।”‘ভালোবাসার উত্তাপে’ ছবিটি চ্যানেল আইয়ে প্রচার করা হবে বলে এ ছবির নির্মাতা জানিয়েছেন। তবে ‘বেগমজান’ কবে নাগাদ মুক্তি পাবে তা এখনও জানা যায়নি। এদিকে ইমন আগামী ঈদের জন্য কয়েকটি নাটকেও অভিনয় করেছেন।নাটকগুলো ঈদের অনুষ্ঠানমালায় কয়েকটি বেসরকারি চ্যানেলে প্রচার হবে বলে জানা গেছে।

 

 

ঈদের পর পূর্ণিমার ‘গাঙচিল’

বিনোদন বাজার ॥ গত বছরের শেষপ্রান্তে ‘গাঙচিল’ উপন্যাস অবলম্বনে চিত্রনায়িকা পূর্ণিমাকে নিয়ে নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামুল নির্মাণ শুরু করেছিলেন ‘গাঙচিল’ সিনেমাটি। নোয়াখালীতে এই সিনেমার শুটিং করতে গিয়ে চিত্রনায়িকা পূর্ণিমা স্কুটি চালাতে গিয়ে দুর্ঘটনার মুখোমুখিও হয়েছিলেন। তারপর নেয়ামুল পূর্ণিমার সহযোগিতায় ‘গাঙচিল’র কাজ এগিয়ে নিয়ে যাবার চেষ্টা করেন। নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামুল বলেন, যেহেতু ওবায়দুল কাদের ভাইয়ের উপন্যাস থেকেই সিনেমাটি নির্মাণ করছি এবং সর্বোপরি তিনি আমাদের দেশের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একজন রাজনীতিবিদ, তাই তার হঠাৎ অসুস্থতায় আমরা অনেকটাই দিশেহারা হয়ে পড়েছিলাম। তাই তার প্রতি সম্মান রেখে, শ্রদ্ধা রেখেই আমরা সিনেমার নির্মাণ কাজ বন্ধ রেখেছিলাম। তিনি আবার সুস্থ হয়ে আমাদের মাঝে ফিরে এসেছেন, এটাই আমাদের কাছে অনেক আনন্দের বিষয়। তাই আমরা এবার সিনেমাটির নির্মাণ কাজ শেষ করার উদ্যোগ নিচ্ছি। আগামী ঈদুল ফিতরের পরপরই সিনেমাটির নির্মাণ কাজ আবারো শুরু করতে যাচ্ছি ইনশাল¬াহ। চিত্রনায়িকা পূর্ণিমা বলেন, এই সিনেমায় কাজ করার জন্য আমি স্কুটি চালানো শিখেছি, আবার স্কুটি চালিয়ে শুটিং করতে গিয়ে দুর্ঘটনারও শিকার হয়েছি। তারপরও চেষ্টা করেছিলাম কাজটি শেষ করার জন্য। কিন্তু কাদের ভাই অসুস্থ হয়ে যাবার কারণে এর নির্মাণ কাজ সাময়িকভাবে স্থগিত করা হয়। আমি যদিওবা এখনো সিডিউল দেইনি। কিন্তু আশা করছি ঈদের পরপরই গাঙচিল’র কাজ শুরু করতে পারব।

নিককে নিয়ে লাল গালিচায় প্রিয়াঙ্কা

বিনোদন বাজার ॥ এবারের কান চলচ্চিত্র উৎসবের লাল গালিচায় এরই মধ্যে জ্যোতি ছড়িয়েছেন বলিউড-হলিউড অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। কালো ঝকঝকে পোশাকে হাজির হয়ে সবাইকে মুগ্ধ করেছেন তিনি।একই আসরে দ্বিতীয়বারের মতো রূপের ঝলক দেখালেন ৩৬ বছর বয়সী এ তারকা। তবে এবার একা নয়, স্বামী নিক জোনাস সমেত লাল গালিচা মাড়িয়েছেন পিসি। প্রিয়াঙ্কা বেছে নিয়েছেন সাদা গাউন, তার সঙ্গে মিল রেখে নিক জোনাস পরেছিলেন সাদা স্যুট। তখন নিককে ছাতা হাতে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়।সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রিয়াঙ্কা তখনকার কয়েকটি ছবি শেয়ার করেছেন। ফরাসি ভাষায় ক্যাপশন লিখেছিলেন, ‘সোম আমর’, যার অর্থ ‘আমার ভালবাসা’।এদিকে প্রিয়াঙ্কা ছাড়াও কানের লাল গালিচা রঙিন করেছেন বলিউড অভিনেত্রী দীপিকা পাড়ুকোন, হিনা খান, কঙ্গনা কঙ্গনা রানাওয়াত ও হুমা কোরাইশি।প্রসঙ্গত, গত ১৪ মে ৭২তম কান চলচ্চিত্র উৎসবের পর্দা উঠলো। ফ্রান্সের দক্ষিণের কান শহরের আয়োজিত চলচ্চিত্রের মর্যাদাপূর্ণ এ আসরের পর্দা নামবে ২৫ মে।