কালুখালীতে ভাইস চেয়ারম্যান পদে গণসংযোগ করছেন দেওয়ান আরাফাত

ফজলুল হক ॥ আসছে আগামী কালুখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচনের লক্ষ্যে পদে গণসংযোগ করে বেড়াচ্ছেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সফল সাংগঠনিক সম্পাদক দেওয়ান মোঃ আরাফাত হোসেন। উপজেলা ৭টি ইউনিয়নের মধ্যে বিভিন্ন হাট বাজার, জনবহুল স্থানে দলীয় নেতাকর্মী ও সাধারণ ভোটারদের কাছে গিয়ে দোয়া ও সমর্থন কামনা করছেন। গতকাল বুধবার তিনি উপজেলার সবচেয়ে জনবহুল রতনদিয়া অরুণগঞ্জ বাজার এলাকায় সাধারণ ব্যবসায়ী ও জনসাধারণের সাথে গণসংযোগ করেন। বিগত নির্বাচনে সামান্য ভোটের ব্যবধানে ভাইস চেয়ারম্যান পদে পরাজিত হয়ে দেওয়ান মোঃ আরাফাত হোসেন নিজের অবস্থান ঠিক রেখে দলীয় নেতাকর্মী এবং সাধারণ জনগণের সাথে মিলেমিশে তাদের আপদ বিপদে সব সময় পাশে থেকে কাজ করে আসছেন। এবারের নির্বাচনে তিনি শতভাগ আশাবাদী সাধারণ ভোটাররা অবশ্যই তাকে ভোট এবং সমর্থন করবেন। নির্বাচনে বিজয়ের ব্যাপারে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে দলের এ ত্যাগী নেতা বলেন নির্বাচনে বিজয় অর্জন করতে পারলে নির্বাচনী এলাকার অবহেলিত রাস্তা ঘাট স্কুল কলেজ উন্নয়ন করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

কুষ্টিয়া টেগর লজের অনুষ্ঠানে মুক্তিযোদ্ধা সাংগঠনিক কমান্ড’র যোগদান

নিজ সংবাদ ॥ গতকাল বুধবার সকাল সাড়ে ৬ টায় কুষ্টিয়া মিলপাড়াস্থ টেগর লজে বর্ণাঢ্য আয়োজনে, পালিত হয়ে গেল বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের একশত আটান্নতম জন্মবার্ষিকী। কুষ্টিয়া পৌরসভার মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামীলীগের বর্ষিয়ান নেতা আনোয়ার আলীর সভাপতিত্বে আয়োজিত কবি গুরুর জন্ম বার্ষিকীর অনুষ্ঠানে যোগদান করেন মুক্তিযোদ্ধা জেলা সাংগঠনিক কমান্ডের বীর মুক্তিযোদ্ধারা। নেতৃত্বে ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের মুক্তি যুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক-সাংগঠনিক কমান্ডের কমান্ডার ও মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কমান্ডের সাবেক জেলা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মানিক কুমার ঘোষ। উপস্থিত ছিলেন সাংগঠনিক কমান্ডের ডেপুটি কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ মকবুল হোসেন, যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা ইকবাল মাসুদ, স্বপন নাগ চৌধুরী, সদর উপজেলা কমান্ডের সাবেক উপজেলা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা খন্দকার লিয়াকত আলী নীলা, সহকারী কমান্ডার শেখ আবু হানিফ, মোঃ জাহিদ হোসেন, আহসান হাবিব দুলাল, মোঃ শহিদুল ইসলাম, আঃ হাকিম, ডাক্তার মতিয়ার রহমান, আতাহার হোসেন, আব্দুল মজিদ, আবুল হোসেন, সার্জেন্ট (অব:) সোলাইমান হোসেন, জিল্লুর রহমান জিন্নাহ, যুদ্ধাহত নিজাম উদ্দিন, মকবুল হোসেন, উম্মত আলী, ইয়াছিন আলী, হাকিম লোকমান হোসেন, শাজাহান আলী, ব্যাংকার লিয়াকত হোসেনসহ শতাধিক বীর মুক্তিযোদ্ধা উপস্থিত ছিলেন।

ঝিনাইদহে অস্ত্র ও মাদকসহ ২ জন আটক

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহে অস্ত্র ও মাদকসহ টিটো (২৫) ও সাইদুর (৩১)  নামের ২ জনকে আটক করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। বুধবার ভোররাতে মহেশপুর উপজেলার বড়বাড়ি এলাকা থেকে তাদেরকে আটক করা হয়। আটক টিটো মহেশপুর উপজেলার বড়বাড়ি গ্রামের রমজান আলীর ছেলে ও সাইদুর একই গ্রামের হেদায়েতুল্লাহর ছেলে। ঝিনাইদহ গোয়েন্দা পুলিশের ওসি জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তারা জানতে পারে মহেশপুরের বড়বাড়ি এলাকায় মাদক ব্যবসায়ীরা মাদক ও অস্ত্র কেনাবেচা করছে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে সেখানে অভিযান চালানো হয়। এসময় গ্রামের জনৈক হানিফের বাড়ির পাশ থেকে একটি বিদেশী পিস্তল ও ২০ বোতল ফেন্সিডিলসহ টিটো ও সাইদুল নামের দুইজনকে আটক করা হয়। তারা দীর্ঘদিন যাবত মাদক ও অস্ত্র ব্যবসা করে আসছিল বলে জানিয়েছে পুলিশ।

বিএনপিকে নেতৃত্ব বদলের পরামর্শ হাছানের

ঢাকা অফিস ॥ সন্ত্রাসী সংগঠনের তকমা মুছতে বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্ব পরিবর্তন করার পরামর্শ দিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ। হরতাল-অবরোধে সহিংসতা ও সন্ত্রাসের সঙ্গে বিএনপির সংশ্লিষ্টতার কারণে দুই বছর আগে দলটির এক কর্মীর রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন কানাডার আদালতে খারিজ হয়ে যায়। ওই সময় সেই রায়ের পর্যবেক্ষণে আদালত বলেছিল, বিএনপি সন্ত্রাসে ছিল, আছে বা ভবিষ্যতেও থাকতে পারে- এমন ধারণা করার যৌক্তিক কারণ আছে। সেই প্রসঙ্গ টেনে গতকাল বুধবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক অনুষ্ঠানে হাছান মাহমুদ বলেন, “বিএনপিকে কানাডার আদালতও সন্ত্রাসী দল হিসেবে রায় দিয়েছে। তারা ক্রমাগত সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করে যাচ্ছে।” বিএনপিনেত্রী খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের সমালোচনা করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, “দুর্নীতির মামলায় তাদের শীর্ষ এক নেতা দন্ড নিয়ে কারাগারে, অপর নেতা দন্ড নিয়ে বিদেশে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। “যুদ্ধের ময়দান থেকে কয়েক হাজার মাইল দূরে বসে যুদ্ধক্ষেত্রের নির্দেশনা দিচ্ছে তারেক রহমান। ময়দানে যুদ্ধরতরা এই নির্দেশনা সঠিক নয় বলছে। আসলে যারা প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার জন্য জঙ্গিদের সহযোগিতা নিয়ে গ্রেনেড হামলা করে, তারা রাজনৈতিক দল হতে পারে না। এটা সন্ত্রাসী দল।” তিনি বলেন, “সন্ত্রাসী দলের তকমা মুছতে হলে বিএনপির এই শীর্ষ নেতৃত্বে পরিবর্তন আনতে হবে। আপনারা নেতৃত্বে পরিবর্তন এনে সন্ত্রাসী দলের তকমা মুছতে পারেন।” বিএনপি জোট থেকে বিরেজপির বেরিয়ে যাওয়ার প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, “যাদের মধ্যে কোনো চেতনা নেই, আদর্শ নেই সেই দল বেশি দিন টিকতে পারে না। তারা ক্ষমতার জন্য রাজনীতি করে, দীর্ঘ দিন ধরে ক্ষমতায় না থাকায় দলের নেতাকর্মীরা হতাশ হয়ে দল ছাড়তে শুরু করেছে। তাদের বিশ দলীয় জোট থেকে ইতিমধ্যেই কয়েকটি দল পালাতে শুরু করেছে। “বিএনপির হতাশ নেতাকর্মীরাও দল ছাড়তে শুরু করেছে। দলের জন্মটা ভালো না হলেও অনেকে মনে করেছিল ভালো নেতৃত্বের মাধ্যমে ভালো কিছু পাওয়া যাবে।”

অগ্নিকন্য প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদারের ১০৯তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে এই আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের উপপ্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সামসুল হক টুকু, আওয়ামী লীগ নেতা বলরাম পোদ্দার।

বাজার নিয়ন্ত্রকরাই এখন সরকারকে নিয়ন্ত্রণ করছে – বিএনপি

ঢাকা অফিস ॥ ‘দুষ্টচক্রের সিন্ডিকেটে’ সরকার জিম্মি থাকায় বাজার নিয়ন্ত্রণ ব্যর্থ বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। রোজায় বাজার পরিস্থিতিতে জনজীবনের দুরাবস্থা তুলে ধরতে গিয়ে বুধবার নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এ কথা বলেন। তিনি বলেন, “সাধারণ মানুষের প্রতি সরকারের কোনো দায় নেই। তারা জিম্মি অসাধু সিন্ডিকেটের কাছে। বাজারের দুষ্টচক্র সিন্ডিকেট এখন বাজার নিয়ন্ত্রণ করছে। সরকার তাদের নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না।” “কারণ বাজারের নিয়ন্ত্রকরাই এখন সরকারকে নিয়ন্ত্রণ করছে। গণতন্ত্র ধরাছোঁয়ার বাইরে, জনগণের ভোটের অধিকার হরণ শেষে এখন ভাতের অধিকার এবং ন্যায়বিচারের অধিকার কেড়ে নিতে তৎপর তারা।” রাজধানীতে সিটি করপোরেশন নির্ধারিত মূল্যে গরু ও খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে না অভিযোগ করে রিজভী বলেন, “রমজানে সিটি করপোরেশন নির্ধারিত গরুর মাংসের মূল্য প্রতিকেজি ৫২৫ টাকা এবং খাসির মাংস ৭৫০ টাকা। কিন্তু এখন বিভিন্ন এলাকায় প্রতি কেজি গরু ৬০০ টাকা এবং খাসি ৮০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।” তিনি বলেন, “ব্যবসায়ীরা এর কারণ হিসেবে অতিরিক্ত খাজনা ও সরকারি লোকজনের চাঁদা আদায়কে দায়ী করেছেন। তারা বলছেন, পশুর হাটে চাঁদাবাজি বন্ধ হলে প্রতি কেজি গরুর মাংস ৩০০ টাকায় বিক্রি করা সম্ভব। এই চাঁদাবাজির অর্থ সরকারের ওপর মহলেও যাচ্ছে। আওয়ামী সিন্ডিকেট পবিত্র রমজান মাস এলেই দ্রব্যমূল বাড়িয়ে মানুষকে জিম্মি করে ফেলে। লুটপাটতন্ত্র সর্বত্র আজ জেঁকে বসেছে।” নিত্যপ্রয়োজনীয় সকল দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির জন্য সরকারি দলের সিন্ডিকেটকে দায়ী করেন রিজভী। পাটকল শ্রমিকদের দাবি মেনে নেওয়ারও দাবি জানান তিনি।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, “২০১৫ সালের মজুরি কমিশন রোয়েদাদ এখনও বাস্তবায়ন করা হয়নি। মিলগুলোতে শ্রমিকদের ১০ থেকে ১৫ সাপ্তাহের মজুরি বাকি পড়ে রয়েছে। স্টাফদের তিন মাসের বেতন বাকি। সামনে ঈদ আসছে, তাদের সন্তানদেরকে কাপড় দেওয়া দূরে থাক, তাদের পেটের আহারটুকু যোগাতে পারবে কিনা- আজকে শ্রমিকরা সন্দিহান। রমজান মাসে পাটকল শ্রমিকদের এই যৌক্তিক দাবিগুলো মেনে নিতে আমি দলের পক্ষ থেকে জোর দাবি জানাচ্ছি।” সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য শাহিদা রফিক, আবুল খায়ের ভুঁইয়া, কেন্দ্রীয় নেতা মুনির হোসেন, মাহবুবুল হক নান্নু, খান রবিউল ইসলাম রবি ও শ্রমিকদলের সভাপতি আনোয়ার হোসেইন উপস্থিত ছিলেন।

সভাপতি অর্ণব লাহিড়ী ॥ সাধারণ সম্পাদক শুভ বিশ্বাস

বাংলাদেশ ছাত্র ঐক্য পরিষদ কুষ্টিয়া ইসলামিয়া কলেজ শাখার পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন

বাংলাদেশ ছাত্র ঐক্য পরিষদ কুষ্টিয়া ইসলামিয়া কলেজ শাখার পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়েছে। গতকাল বুধবার বাংলাদেশ ছাত্র ঐক্য পরিষদ কুষ্টিয়া জেলা শাখার আহবায়ক পরিতোষ দাস ও সদস্য সচিব মানব চাকী স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এই কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়। ২১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির সভাপতি অর্ণব লাহিড়ী ও সাধারণ সম্পাদক শুভ বিশ্বাস। কমিটির সহ-সভাপতি রুদ্র গুহ ও পুলোক রাসকেশী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হৃদয় কর্মকার ও অনিক কুমার সরকার, সাংগঠনিক সম্পাদক নয়ন পোদ্দার, দপ্তর সম্পাদক আকাশ সাত্ত, প্রচার সম্পাদক সজীব দাস, অর্থ বিষয়ক সম্পাদক প্রান্ত সাহা, তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক মোহন অধিকারী, সমাজসেবা সম্পাদক সুজিত দাস, সাংস্কৃতিক সম্পাদক জর্জ ম্যারিথন, মহিলা সম্পাদিকা দিপা সরকার, যুগ্ম মহিলা সম্পাদিকা পূজা কর্মকার, সদস্য প্রদীপ কুমার, হৃদয় বিশ্বাস, দ্বীপ সেন গুপ্ত, রমিত পাল, রাজিব সহরাব ও নির্মল দে।  সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

দৌলতপুরে সেলাই মেশিন ও ইফতার সামগ্রী বিতরণ

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে দুস্থদের মাঝে সেলাই মেশিন ও ইফতার সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল বুধবার বিকেলে উপজেলার বৈরাগীরচর বাজারে লোকমান হোসেন কল্যাণ ট্রাষ্টের উদ্যোগে সেলাই মেশিন ও ইফতার সামগ্রী বিতরণ করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, লোকমান হোসেনের সহধর্মিনি সাহানারা খাতুন, মরিচা ইউপি চেয়ারম্যান শাহআলমগীর, সাবেক চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান, হযরত আলী মাষ্টার, প্রভাষক শফিউল আলম, মুক্তিযোদ্ধা গোলাম রহমান, সাংবাদিক সাইদুর রহমান, সাবেক মেম্বর হাবিবুর রহমান, আব্দুল লতিব ও হাফিজুর রহমানসহ স্থানীয় সুধীজন। লোকমান হোসেনের ছেলে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী আবু জাহিদ বিন লিপনের অর্থায়নে ৫০ জন অস্বচ্ছল ও দুস্থদের মাঝে সেলাই মেশিন ও ইফতার সামগ্রী বিতরণ করেন অতিথিবৃন্দ।

দৌলতপুর শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৮তম জন্মবার্ষিকী পালন

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৮তম জন্মবার্ষিকী পালন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে গতকাল বুধবার বেলা ১১টায় দৌলতপুর উপজেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা, নৃত্য ও রবীন্দ্র সংগীত পরিবেশিত হয়। দৌলতপুর শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক সরকার আমিরুল ইসলামের নেতৃত্বে দৌলতপুর শিল্পকলা একাডেমির শিল্পিবৃন্দ নৃত্য ও সংগীত পরিবেশন করে। এরআগে কবি গুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনায় অংশ নেন দৌলতপুর শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক সরকার আমিরুল ইসলাম।

আলমডাঙ্গা ইসলামি ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ, মাদক, বাল্যবিবাহ, দুর্নীতি, নারী ও শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে জনমত গঠন উপলক্ষে মতবিনিময় সভা

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ আলমডাঙ্গা উপজেলা ইসলামী ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে উপজেলা মসজিদ প্রাঙ্গনে সকাল ১০টার দিকে সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ, মাদক, বাল্যবিবাহ, দুর্নীতি, নারী ও শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে জনমত গঠন ও ধর্মিয় সম্প্রিতি প্রতিষ্ঠায়, আলেম, উলামা, ইমাম-খতিব, শিক্ষক, জনপ্রতিনিধি, পেশাজীবি ও ধর্মীয়  নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় সভার আয়োজন করেছে। মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন ইসলামী ফাউন্ডেশন আলমডাঙ্গা উপজেলা সুপারভাইজার আব্দুল হাকিম। প্রধান অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গা জেলা ইসলামী ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক এবিএম রবিউল হক। বিশেষ অতিথি ছিলেন থানার এসআই আমিনুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা মনীন্দ্রনাথ দত্ত, প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা হামিদুল ইসলাম, আলমডাঙ্গা পুজা উদযাপন কমিটির সভাপতি ডাঃ অমল কুমার বিশ্বাস, মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষক আতিয়ার রহমান। পৌর সুপারভাইজার হাফেজ ওমর ফারুকের উপস্থাপনায় বক্তব্য রাখেন মও মাসুদ কামাল, মাও.লুৎফর রহমান, আবুল বাসার, মাকসুদুর রহমান, হজরত আলী, আব্দুর রহমান, আক্রাম হোসেন, মিনারুল ইসলাম, আব্দুর রহিম, আরাফাত উল¬াহ প্রমুখ।

এ্যাডোর উদ্যোগে প্রবীণ জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে প্রবীণ ভাতাসহ বিশেষ সহায়তা ও শিক্ষা বৃত্তি প্রদান

অ্যাক্শন্ ফর হিউম্যান ডেভেলপমেন্ট অরগানাইজেশন ‘এ্যাডো” এর প্রবীণ জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন কর্মসূচির আওতায় কুষ্টিয়া জেলার ভেড়ামারা উপজেলার জুনিয়াদহ ইউনিয়নে গতকাল রোজ বুধবার সকাল ১১টায় প্রবীণদের বিশেষ সহায়তা হিসেবে ওয়াকিংস্টিক, ছাতা, কমোড, হুইল চেয়ার ও প্রবীণভাতা প্রদানসহ সমৃদ্ধি কর্মসূচির আওতায় শিক্ষাবৃত্তি প্রদানের জন্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির আসন অলংকৃত করেন ভেড়ামারা উপজেলার ভাইস-চেয়ারম্যান বুলবুল আহমেদ পিপুল। সভায় সভাপতিত্ব করেন সংস্থার নির্বাহী কমিটির সন্মানিত সদস্য ও কুচিয়ামোড়া বি.জি.এম.কলেজের সহকারী অধ্যাপক মো: ইদ্রিস আলী, উপস্থিত ছিলেন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক ও প্রাতষ্ঠাতা পরিচালক জে.এম.নাজিমুদ্দীন আক্কেল। আরও উপস্থিত ছিলেন জুনিয়াদহ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সিহাবুল ইসলাম, ২ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য, তরিকুল ইসলাম, রিজওয়াজুল হক পিন্টু, সভাপতি, যুবলীগ, জুনিয়াদহ ইউনিয়ন এবং সুখকৃতি অধিকারী, কর্মসূচি সমন্বয়কারী ও ফোকাল পার্সন প্রবীণ জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন কর্মসূচি ও সমৃদ্ধি কর্মসূচির সকল পর্যায়ের কর্মকর্তা কর্মচারীসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও প্রবীণ কমিটির সদস্যগণ। অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী আলোচনায় সংস্থার পক্ষ থেকে  প্রবীনদের জীবনমান উন্নয়ন কর্মসূচির ও সমৃদ্ধি কর্মসূচির বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপন করেন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক জে.এম.নাজিমুদ্দিন আক্কেল তিনি তার বক্তব্যে সমৃদ্ধি কর্মসূচির আওতায় এ পর্যন্ত স্বাস্থ্যসেবা খাত, শিক্ষাখাত, কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট, ভিক্ষুক পুর্ণবাসন, শিক্ষাবৃত্তি প্রদানসহ প্রবীনদের জীবনমান উন্নয়ন কর্মসূচিতে গৃহীত কর্মসূচির মধ্যে মৃত ব্যক্তির সৎকারের জন্য অনুদান প্রদান, প্রবীনদের একত্রীকরন, প্রশিক্ষণ প্রদান, প্রবীণ ভাতাপ্রদানসহ ভবিষ্যতে গৃহীত কর্মসূচির বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপন করেন। এর মধ্যে রয়েছে অসুস্থদের জন্য থেরাপীর ব্যবস্থা করা, পঙ্গুদের জন্য হুইল চেয়ারের ব্যবস্থা, শীতার্তদের জন্য কম্বল ও চাদরের ব্যবস্থা করা, তাদের মানসিকভাবে সবল করার জন্য প্রবীন সামাজিক কেন্দ্র তৈরী, অস্বচ্ছল প্রবীনদের জন্য ভরন পোষন ও আবাসন এবং প্রবীন সম্মাননা প্রদানসহ আরও বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। এরপর তার শুভেচ্ছা বক্তব্যে শিহাবুল ইসলাম, সাবেক চেয়ারম্যান, জুনিয়াদহ ইউনিয়ন ও অন্যান্যরা জুনিয়াদহ ইউনিয়নে এ্যাডো কর্তৃক গৃহীত বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মসূচির ভূয়সী প্রসংসা করেন। তরিকুল ইসলাম, ইউপি সদস্য ২নং ওয়ার্ড, জুনিয়াদহ ইউনিয়ন, তার বক্তব্যে জুনিয়াদহ ইউনিয়নে উন্নয়নের কর্ণধার হিসেবে এ্যাডোকে চিহ্নিত করেন। অত:পর প্রধান অতিথি ভেড়ামারা উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান বুলবুল আহমেদ পিপুল তাঁর শুভেচ্ছা বক্তব্যে জুনিয়াদহ ইউনিয়নে উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় এ্যাডো কর্তৃক গৃহীত বিভিন্ন কর্মসূচির প্রশংসা করেন এবং ভবিষ্যতে সকল কর্মসূচিতে তার সহযোগীতা থাকবে বলে আশ^স্ত করেন ও প্রবীণ ভাতা প্রদান অনুষ্ঠানের শুভ সুচনা করেন। উক্ত অনুষ্ঠানে ৭৫ জন অস্বচ্ছল প্রবীণদের মাঝে জনপ্রতি মাসিক ৬শ টাকা হিসেবে ৪মাসের ভাতা বাবদ ২৪০০/- করে প্রবীন ভাতা প্রদান করা হয়, যাহা ঐ প্রবীণের জ্বীনকাল পর্যন্ত প্রতিমাসে প্রদান করা হবে। এছাড়া ২ জন চলাচলে অক্ষম প্রবীণকে হুইলচেয়ার, ২০ জনকে কমোড চেয়ার, ২০ জনকে ওয়াকিং ষ্টিক ও  ২০ জনকে ছাতা প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকলে এ্যাডোর প্রশংসা ও সমৃদ্ধি কামনা করেন। অনুষ্ঠানটি সার্বিক পরিচালনায় সঞ্চালকের ভুমিকা পালন করেন ইসতিকার হোসেন শাকিল,  প্রোগ্রাম অফিসার, প্রবীণ জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন কর্মসূচি। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

কুষ্টিয়া রেড ক্রিসেন্টের উদ্যোগে বিশ্ব রেডক্রিসেন্ট দিবস পালন

গতকাল ৮ মে ছিল বিশ্ব রেডক্রস ও রেড ক্রিসেন্ট দিবস। সারা বিশ্বের ন্যায় যথাযোগ্য মর্যাদায় কুষ্টিয়াতেও দিবসটি পালিত হয়। গতকাল সকাল সাড়ে ১০টায় কুষ্টিয়া রেড ক্রিসেন্টের নিজস্ব কার্যালয়ে সাবেক ম্যানেজিং বোর্ড সদস্য ও ইউনিটের সেক্রেটারী আসগর আলী ও ইউনিটের ভাইস  চেয়ারম্যান চৌধুরী মুরশেদ আলম মধু জাতীয় সংগীতের সুরে  রেড ক্রিসেন্টের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন এবং বিশ্ব মানবতার শান্তির প্রতীক হিসেবে পায়রা উড়িয়ে দিবসের শুভ সুচনা করেন। ইউনিটের কার্য নির্বাহী কমিটির আজীবন সদস্য, বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষক মন্ডলী, সাংবাদিকসহ প্রায় ৫ শতাধিক স্বেচ্ছাসেবক সমন্বয়ে এক বিশাল র‌্যালী শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন শেষে ইউনিট কার্যালয়ে শেষ হয়। আলোচনা সভায় ইউনিট সেক্রেটারী আসগর আলী বলেন, চিন্তার গভীরতায় এবং মননশীলতায় আমাদেরকে মানব  সেবায় নিয়োজিত হয়ে জ্বীন হেনরী ডুনান্টের মত মানুষ তৈরী করতে হবে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

ব্যবসায়ীদের মাঝে ক্ষোভ

নির্দেশ অমান্য পোড়াদহ কাপড়ের হাটের ভাংচুরকৃত গোসলখানা, পায়খানা ও প্রসাবখানা এখনও পুননির্মাণ করেনি দুষ্কৃতিকারীরা

ব্যবসায়ীদের মাঝে ক্ষোভনিজ সংবাদ ॥ কুষ্টয়ার মিরপুর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী পোড়াদহ কাপড়ের হাট সংলগ্ন ভাংচুরকৃত পায়খানা, গোসলখানা ও প্রসাবখানা এখনও পুননির্মাণ করা হয়নি। জেলা প্রশাসকের নির্দেশ অমান্য করে বীরদর্পে ঘুরে বেড়াচ্ছে ভূমিখোর লেবাচধারী দুস্কৃতকারী ব্যবসায়ী ও তার দোসরা। এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে সাধারন ব্যবসায়ীরা। এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, যোগাযোগ ব্যবস্থা ভাল হওয়ার কারনে পোড়াদহে গড়ে ওঠে কাপড়ের হাট। দেশের উত্তরবঙ্গ ও দক্ষিন-পশ্চিমাঞ্চলের ক্ষুদ্র থেকে সব শ্রেনীর কাপড় ব্যবসায়ীরা ছুটে আসত এখানে। এক সময় জমজমাট ছিল হাটটি। হাটে আগত ব্যবসায়ীদের কথা চিন্তা করে হাটের এক কোনে মিরপুর উপজেলা পরিষদের উদ্যোগে মসজিদ সংলগ্ন পায়খানা, প্রস্রাবখানা ও গোসলখানা নির্মান করা হয়। কিন্তুু এক শ্রেনীর ভূমিদস্যু লেবাসধারী ব্যবসায়ী দুর দুরান্ত থেকে এই হাটে আসা ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন রকম ভয়ভীতি দেখিয়ে তাদের বসার জায়গাটুকু কেড়ে নেয়। এছাড়া যৎ সামান্য টাকা দিয়েও জায়গাগুলো কিনে নেয়। আর সেখানে গড়ে তোলা হয়েছে পাকা বিল্ডিং ঘর। যা সরকারী আইন মতে নিষিদ্ধ। যেগুলো প্রশাসন দেখেও না  দেখার ভান করে অজ্ঞাত কারনে। তবে এরই সুযোগে সম্প্রতি কাপড়ের হাট সংলগ্ন প্রস্রাবখানা, পায়খানা গোসলখানাগুলো রাতের আধারে ভাংচুর করে গুড়িয়ে দেয়া হয়। আর এ কাজটি করে পোড়াদহ কাপড়ের হাট বনিক সমিতির তথাকথিত নামধারী সভাপতি ভূমিদস্যু ফজলুর রহমান (মনি খাঁ) ও তার সহযোগী আব্দুর রাজ্জাকসহ কতিপয় দুস্কৃতকারী। পরে গত ১৯ ফেব্র“য়ারী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন মিরপুর উপজেলা চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন, মিরপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি আনোয়ারুজ্জামান বিশ্বাস মজনুসহ ব্যবসায়ীরা। পরে বিষয়টি তদন্ত শেষে গত ২৪ ফেব্র“য়ারী কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক একটি স্মারকে পোড়াদহ কাপড়ের হাট সংলগ্ন পায়খানা, গোসলখানা, প্রস্রাবখানা ভাংচুর এবং পোড়াদহ কাপড়ের হাটবনিক সমিতির অফিস বেদখলের বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য নির্দেশ দেন। কিন্তু অনেক দিন হয়ে গেলেও দুস্কৃতিকারীরা তা পুনর্নিমাণ করেনি। বরং গত ২৯ এপ্রিল দিনগত রাত আনুমানিক ১টার দিকে ফজলুর রহমান মনি খা তার লোকজন নিয়ে ভাংচুরকৃত ইটগুলো তাদের মার্কেটের সামনে বিছিয়ে দিয়েছে। এতে সাধারন ব্যবসায়ীসহ এলাকাবাসী ফুঁসে উঠেছে। দুস্কৃতিকারীদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য ব্যবসায়ীরা জোর দাবী জানিয়েছে।

কুষ্টিয়া পৌরসভার আয়োজনে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মদিন উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতি অনুষ্ঠান

২৫শে বৈশাখ বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৮তম জন্মোউৎসব উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বুধবার সকালে কুষ্টিয়া পৌরসভার আয়োজনে শহরের কবি আজিজুর রহমান সড়কে অবস্থিত রবীন্দ্র স্মৃতি বিজীড়ত কুষ্টিয়া কুঠিবাড়িতে (টেগর লজ) প্রতি বছরের ন্যায় এবছর অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। কুষ্টিয়া পৌরসভার মেয়র আনোয়ার আলী’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় আলোচক ছিলেন প্রাবন্ধিক ও গবেষক এ্যাডঃ লালিম হক, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রফেসর ড. সরওয়ার মূর্শেদ রতন,  জাতীয় রবিন্দ্র সম্মেলন পরিষদ কুষ্টিয়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক আকলিমা খাতুন ইরা। আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে মেয়র আনোয়ার আলী বলেন, রবীন্দ্রনাথ মানব জীবনের সব বিষয়ের কথা বলে গেছেন। রবিন্দ্রনাথ পৃথিবীর সকল মতপথ আদর্শের এক মেলবন্ধন তৈরি করে গেছেন। তিনি তাঁর নোবেল পুরষ্কারের টাকা দিয়ে কৃষকদের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য অনেক কাজ করে গেছেন। তাই আমাদের জীবনের সাথে তার কথাগুলো যদি এক করতে না পারি, তাহলে আমাদের জীবন বৃথা। মেয়র আরও বলেন, রবীন্দ্রনাথ শুধু কবি, সাহিত্যিক ও দার্শনিকই ছিলেন না, তিনি ছিলেন একজন সমাজ কর্মী ও সমাজ সংস্কারক। রবীন্দ্রনাথ তাঁর সৃষ্টিকর্ম দিয়ে মানুষের ভেতরের মনুষ্যত্বকে জাগিয়ে তুলেছেন। এছাড়াও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া পৌরসভা ও পৌরসভায় চলমান প্রকল্পের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ সহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন কুষ্টিয়া পৌরসভার স্বাস্থ্য সহকারী দেবাশীষ বাগচী। আলোচনা সভা শেষে জাতীয় রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মিলন পরিষদ কুষ্টিয়া জেলা শাখা ও স্থানীয় শিল্পীবৃন্দের পরিবেশনায় এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। উল্লেখ্য অনুষ্ঠানের শুরুতে কুষ্টিয়া কুঠিবাড়িতে (টেগর লজ) অবস্থিত কবিগুরুর আবক্ষমূর্তিতে ফুলের মালা অর্পন ও মঙ্গল প্রদ্বীপ জ্বালিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা করেন মেয়র আনোয়ার আলী। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

১২ দিনেও গ্রেপ্তার হয়নি হত্যাকারীরা

দৌলতপুরে গৃহবধুকে গণধর্ষনের পর নির্যাতন করে হত্যার অভিযোগ

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে বিথী আক্তার (২২) নামে এক গৃহবধুকে গণধর্ষনের পর হত্যা করা হয়েছে বলে থানায় অভিযোগ হয়েছে। ঘটনার ১২দিন অতিবাহিত হলেও হত্যার সাথে জড়িত ধর্ষকরা কেউ গ্রেপ্তার না হওয়া নিহত গৃহবধুর দরিদ্র অসহায় পিতা চরম আতংক ও উৎকণ্ঠার মধ্যে রয়েছে। নিহতের পরিবার ও স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার চিলমারী ইউনিয়নের নতুন চরবাহিরমাদী গ্রামের আইয়ুব খা’র মেয়ে বিথী আক্তারকে একই ইউনিয়নের সাতেরমোড় এলাকার সাহাব উদ্দিনের ছেলে শাহীন (২৭) সহ ২-৩ জন গত ২৪ এপ্রিল রাতে বাড়ি থেকে কৌশলে ডেকে নিয়ে মাঠের মধ্যে গণধর্ষণ করে। একপর্যায়ে ধর্ষিতাকে তারা শারীরিক নির্যাতন ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে সিগারেটের আগুনের ছ্যাকা এবং মুখের ভেতর এসিড জাতীয় পদার্থ ঢেলে দিলে ধর্ষিতা জ্ঞান হারায়। পরে ধর্ষক শাহীন ও তার সঙ্গীরা ধর্ষিতা বীথিকে নিয়ে তার বাড়িতে রেখে পালিয়ে যায়। বাড়ির লোকজন মুমূর্ষু অবস্থায় বিথীকে উদ্ধার করে স্থানীয় চিকিৎসা কেন্দ্রে ভর্তি করে। ধর্ষিতার জ্ঞান ফিরে পেলে বাড়ির লোকজনকে সে লৌহমর্ষক ঘটনার বর্ণনা দেয়। এ ঘটনার দু’দিন পর ২৬ এপ্রিল বিকেল ৩টার দিকে সে মারা যায়। এ ঘটনায় দৌলতপুর থানায় নিহতের পিতা আইয়ুব খা অভিযোগ দিলে দৌলতপুর থানা পুলিশ নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের নিকট হস্তান্তর করে। এরপর ১২ দিন অতিবাহিত হলেও পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত কাউকে গ্রেফতার করতে না পারায় নিহতের পরিবারের লোকজন চরম উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার মধ্যে রয়েছে। এদিকে থানার অভিযোগ তুলে নিতে নিহতের বাবাকে ধর্ষক শাহীনসহ তার সঙ্গীরা বিভিন্ন ধরণের হুমকি দিচ্ছে বলে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ আহমেদ নিশ্চিত করেছেন। এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক খসরু আলম জানান, নিহতকে ধর্ষণের পর নির্যাতন করার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। ঘটনার সাথে জড়িত শাহীনসহ তার সঙ্গীরা ঘটনার পরপরই এলাকা থেকে পালিয়েছে। তাদের গ্রেপ্তার অভিযান চলমান আছে।

উল্লেখ্য নিহত বিথীর সাথে শাহীনের বিয়ে হওয়ার একবছর পর তারা আলাদা হয়ে যায়। পূর্ব পরিচয় ও স্বামীর সূত্র ধরে মোবাইল ফোনে শাহীন বিথীর সাথে সম্পর্ক করে এবং ২৪ এপ্রিল রাতে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গণধর্ষনের পর পাশবিক নির্যাতন করে।

রোহিঙ্গাদের জন্য বিশ্বব্যাংকের ১৬৫ মিলিয়ন ডলারের অনুদান

ঢাকা অফিস ॥ বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের জরুরী পরিসেবা, প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং সামাজিক সুরক্ষায় বিশ্বব্যাংক ১৬৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার অনুদান দেবে। স্থানীয় মুদ্রায় যার পরিমাণ প্রায় ১ হাজার ৩৮২ কোটি ২৯ লাখ টাকা। ‘জাংরী ভিত্তিতে রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় মাল্টি-সেক্টর’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় এ অর্থ খরচ করা হবে। গতকাল বুধবার এ বিষয়ে বাংলাদেশ সরকার ও বিশ্বব্যাংকের মধ্যে একটি অনুদান চুক্তি সই হয়েছে। রাজধানীর শেরেবাংলানগর এনইসি সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত চুক্তিতে সই করেন অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) ভারপ্রাপ্ত সচিব মনোয়ার আহমেদ এবং বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিসের ভারপ্রাপ্ত কান্ট্রি ডিরেক্টর ড্যান ড্যান চ্যান।

ইআরডি সচিব মনোয়ার আহমেদ বলেন,বাংলাদেশ ১৯৭৮-৭৯, ১৯৯১-৯২ এবং ২০১৬ সালে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়। এরপরেও ২০১৭ সালে মিয়ানমার থেকে জোর পূর্বক স্থানচ্যুত ১০ লাখের বেশি রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের কারণে বাংলাদেশের সার্বিক প্রবৃদ্ধি ও উন্নয়ন প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। জলবায়ু ও পরিবেশ,জীব-বৈচিত্র্য ও স্থানীয় পর্যায়ের আর্থ-সামাজিক অবকাঠামোর ওপর ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব তৈরি হচ্ছে। এজন্য তিনি রোহিঙ্গা সমস্যার একটি চিরস্থায়ী সমাধানের পথ খুঁজে বের করতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি অনুরোধ জানান। ড্যান ড্যান চ্যান বলেন,রোহিঙ্গাদের জন্য সহায়তা করতে পেরে আমরা আনন্দিত। দুই বছর আগে সহিংসতার শিকার হয়ে মিয়ানমার থেকে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী বাংলাদেশ আসে। রোহিঙ্গা এবং স্থানীয় জনগোষ্ঠির সহায়তার জন্য প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে। চুক্তি সই অনুষ্ঠানে জানানো হয়, প্রকল্পের আওতায় স্থানচ্যুত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠির (এফডিআরপি) মৌলিক পেির সবাদি ও প্রবেশাধিকার এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও সামাজিক সুরক্ষা নিশ্চিত করতে সরকারের প্রচলিত দুর্যোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করা হবে। প্রকল্পের মাধ্যমে পানি সরবরাহ,স্যানিটেশন, রাস্তা নির্মাণ, সড়কবাতি ও বর্জ্য-নিরোধ ব্যবস্থা স্থাপন, প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় সক্ষম বহুমুখী আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ, লিঙ্গ বৈষম্য দূরীকরণ এবং সরকারের দীর্ঘ মেয়াদী দুর্যোগ মোকাবিলার সক্ষমতা বাড়ানোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর ও স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতর এই প্রকল্পের বাস্তবায়নকারী সংস্থা।

মেহেদী রুমী সভাপতি ॥ সাধারণ সম্পাদক সোহরাব উদ্দিন ॥ সাংগঠনিক এ্যাড. অপু

কুষ্টিয়া জেলা বিএনপির কমিটি অনুমোদন

নিজ সংবাদ ॥ বর্তমান সভাপতি ও সাধারন সম্পাদককে একই পদে রেখে কুষ্টিয়া জেলা বিএনপির নতুন কমিটি অনুমোদন দিয়েছে কেন্দ্রীয় কমিটি। তবে অপেক্ষাকৃত তরুণদের নতুন কমিটিতে স্থান দেয়া হয়েছে। পূর্বের কুষ্টিয়া জেলা বিএনপির কমিটি বাতিল করে জেলা বিএনপির নতুন কমিটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। গতকাল বুধবার বেলা ১১টায় এ কমিটির অনুমোদন দেওয়া হয়। বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মৌখিক নির্দেশে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পরামর্শে বিএনপির কেন্দ্রিয় কমিটির সহ-সভাপতি ও জেলা কমিটি গঠনের দায়িত্বপ্রাপ্ত মোহাম্মাদ শাহজাহানের সুপারিশক্রমে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ৩ বছর মেয়াদে ১৫১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্নাঙ্গ এ কমিটির অনুমোদন দেন। কমিটির সভাপতি সৈয়দ মেহেদী আহমেদ রুমী ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ সোহরাব উদ্দিন ও সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়েছে এ্যাড. শামীমূল হাসান অপুকে।

মিরপুরে উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসনের ইফতার মাহফিল

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসনের যৌথ উদ্যোগে গতকাল বুধবার স্থানীয় অডিটোরিয়ামে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম জামাল আহমেদ’র সভাপতিত্বে ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অ্যাড. আব্দুল হালিম, পৌর মেয়র হাজী এনামুল হক, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কামান্ডের সাবেক কমান্ডার নজরুল করিম, আফতাব উদ্দিন খান, উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান আব্দুল কাশেম জোয়ার্দ্দার, মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান মর্জিনা খাতুন, লেডিস ক্লাবের সভাপতি তানভীরা আহমেদ, জেলা পরিষদের সদস্য আলহাজ্ব মহাম্মদ আলী জোয়ার্দ্দার, সুফিয়া বানু জুঁই, মিরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুলি আলিম। এ সময়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সেলিম হোসেন ফরাজী, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রমেশ চন্দ্র ঘোষ, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা সাবিহা সুলতানা, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জুলফিকার হায়দার, উপজেলা ভারপ্রাপ্ত প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ সোহাগ রানা, কুষ্টিয়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম এনামুল হক, উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা নূরুল ইসলাম নান্নু, সদরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রবিউল হক রবি, আমলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম মালিথা, ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী আব্দুস সালাম, চিথলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন, ধুবইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাহাবুর রহমান মামুন, উপজেলা পরিষদের সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শারমিন আক্তার নাসরিন, প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি তাঞ্চন কুমার, সাধারণ সম্পাদক রাশেদুজ্জামান রিমন, উপজেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান মিঠু, বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক শাহিনুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। ইফতারের পূর্বে দেশ ও জাতির শান্তি, উন্নয়ন ও অগ্রগতি কামনা করে এক দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া পরিচালনা করেন উপজেলা পরিষদ জামে মসজিদের ঈমাম আলহাজ্ব হাফেজ মাওঃ আব্দুল মতিন।

কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের জন্মবার্ষিকীতে সরওয়ার জাহান বাদশা

রবীন্দ্রনাথ আমাদের জাতিসত্বা ও অনুপ্রেরণার প্রতীক

আরিফ মেহমুদ ॥ কুষ্টিয়া-১ (দৌলতপুর) আসনের এমপি আঃ কাঃ মঃ সরওয়ার জাহান বাদশা বলেছেন, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর আমাদের চেতনা, আমাদের অনুপ্রেরণা, বাঙালির জাতিসত্বা ও  চলার শক্তি এবং প্রতিবাদের হাতিয়ার। বাঙালী জাতি বড় ভাগ্যবান যাদের সঠিক পথের দিশারী হিসেবে পেয়েছেন রবীন্দ্রনাথকে। এই শিলাইদহে এসেই রবীন্দ্রনাথ নিজেকে নতুন এক রবীন্দ্রনাথ হিসেবে আবিস্কার করেন। তিনি একমাত্র কবি যিনি বাংলা সাহিত্যকে সর্বপ্রথম বিশ্ব সভায় উপস্থাপন ও পরিচিত করান। গতকাল বুধবার শিলাইদহের কুঠিবাড়ি আঙ্গিনায় বাংলা সাহিত্য সৌধের কালজয়ী প্রতিভা বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৮ তম জন্মবার্ষিকীর ৩ দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধনী দিনের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। প্রধান অতিথি আরো বলেন, সাহিত্য ও জীবনের এমন কোন জায়গা নেই যেখানে রবীন্দ্রনাথ নেই। তাঁর জীবনের গুরুত্বপূর্ন সময় কুষ্টিয়ার এই পূণ্যভূমিতে কাটিয়েছেন। রচনা করেছেন নবেল জয়ী গীতাঞ্জলীর মত বিখ্যাত সব সাহিত্যকর্ম। তাঁর গান, কবিতা আজও মানুষকে বিমোহিত করে। রবীন্দ্রনাথ ছিলেন বাঙালীর অসাম্প্রদায়িক  চেতনার বাতিঘর, মহান কাব্যিক ও প্রবাদ পুরুষ। তিনি আরো বলেন, রবীন্দ্রনাথের সাথে আরেকজনকে তুলনা করা যায়। তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি রবীন্দ্রনাথের আদর্শে অনুপ্রানীত হয়ে বলেছিলেন সাত কোটি মানুষকে বাঙালি কওে রেখেছো মানুষ করোনি। ১৯৭৫ সালে জাতিরজনককে স্বপরিবারে হত্যা করে সেটিই প্রমান করেছে এদেশের বিপথগামী কুলাঙ্গারা। তিনি বলেন, আমাদের প্রতিটি সংকটে আমরা বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের অনুপ্রেরণার হাত ধরে উঠে এসেছি। এভাবেই বাঙালি জাতিকে সঠিক পথ দেখিয়েছেন রবীন্দ্রনাথ। রবীন্দ্রনাথের পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালি জাতিকে আবারো বিশে^ও বুকে বাঙালি হিসেবে পরিচয় করিছেন।  প্রধান অতিথি বাদশা বলেন, বাংলা সাহিত্যের এই কালজয়ী প্রতিভা শিলাইদহের মাটি-হাওয়ার গন্ধে একাকার হয়ে এখানে বসেই নোবেল জয়ী গীতাঞ্জলির অধিকাংশ রচনা করেন। খুব কাছে থেকে দেখেছেন গ্রাম-বাংলার প্রকৃত রূপ। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ছিলেন বাঙালি চেতনার একজন আলোকিত মানুষ। যিনি সাধারণ মানুষের কল্যাণে ভেবেছেন, তাদের কাছে থেকে কষ্ট অনুভব করেছেন। আমাদের মজ্জায় মিশে আছে সংস্কৃতির প্রভাব। তিনি নতুন প্রজন্মের  প্রতি আহবান রেখে বলেন, এই দুই মহামানবের শিক্ষা এবং আদর্শে অনুপ্রানীত হয়ে উন্নত জাতি এবং উন্নত দেশ গড়ে তুলতে হবে।  কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের পরিচালক-২ ওয়াহিদা মুসাররত অনীতা, কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার একেএম জহুরুল ইসলাম, কুষ্টিয়া শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি তাইজাল আলী খান প্রমুখ। স্মারক বক্তব্য রাখবেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. সরওয়ার মুর্শেদ রতন। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখবেন কুমারখালি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাজীবুল ইসলাম খান।

আলোচনা শেষে জেলার বিভিন্ন সাংস্কৃতিক গোষ্ঠির শিল্পীরা কবিতা আবৃত্তি, নাটক ও সঙ্গীত পরিবেশনায় অংশ নেয়। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পাশাপাশি কুঠিবাড়ি সংলগ্ন চত্বরে বসেছে গ্রামীণ মেলা। মেলার স্টলগুলোতে হস্ত ও কুটির শিল্প ছাড়াও বিভিন্ন সামগ্রীর পসরা সাজিয়ে বসেছে দোকানীরা। এতে গ্রাম-বাংলার নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিষপত্র আর হস্ত ও কুটির শিল্পসহ রয়েছে রকমারী পণ্যের সমাহার। মেলায় বিকিকিনিও হচ্ছে ভালো। অনুষ্ঠানকে ঘিরে উৎসবের আমেজে দুর-দুরান্ত থেকে আগত দর্শক-শ্রোতার পদচারনায় মুখরিত হয়ে উঠেছে কুঠিবাড়ী চত্বর।

রমজানুল মোবারক

ইফতার : মাসয়ালা ও উপকারিতা

আ.ফ.ম নুরুল কাদের ॥ একজন মুমিন সারা দিন রোজা রাখার পর সূর্যাস্তের সাথে সাথে যে খাবার গ্রহনের মধ্যদিয়ে তার রোজাকে ভঙ্গ করেন, ইসলামের পরিভাষায় তাকে ইফতার বলা হয়। ইফতার একটি ইবাদত। যেকোনো ইবাদতের জন্য কুরআন-সুন্নার বিধান রয়েছে; সে বিধান অনুযায়ী যদি ইবাদত করা যায় তাহলে আল্লাহর নিকট তা গ্রহণযোগ্য হবে এবং সাওয়াব পাওয়া যাবে। ইফতারের সুন্নত নিয়ম হলো সূর্যাস্তের সাথে সাথে ইফতার করা। সাহল রা: হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সা: বলেছেন, যত দিন পর্যন্ত মানুষ তাড়াতাড়ি ইফতার করবে তত দিন পর্যন্ত কল্যাণ লাভ করতে সক্ষম হবে। (বুখারি, মুসলিম)। এখানে তাড়াতাড়ি বলতে সূর্যাস্তের পরপরই বুঝানো হয়েছে। অন্য হাদিসে আবু হুরায়রা রা: হতে বর্ণিত আছে, রাসূল সা: বলেছেন, দ্বীন বিজয়ী থাকবে তত দিন যত দিন পর্যন্ত মানুষ ইফতার তাড়াতাড়ি করবে। কারণ ইহুদি-নাসারারা ইফতার বিলম্বে করে। (আবু দাউদ, ইবনে মাজা)। আবু হুরায়রা রা: হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সা: বলেছেন, আল্লাহতায়ালা বলেছেন,  সেই বান্দা আমার নিকট বেশি প্রিয় যে ইফতার তাড়াতাড়ি করে। অর্থাৎ সূর্য ডোবার সাথে সাথেই ইফতার করে। (তিরমিজি)। আবু আতিয়া হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি ও মাসরুক একদিন আয়েশা রা:-এর নিকট গেলাম এবং বললাম, হে উম্মুল মুমিনীন! রাসূলুল্লাহ সা:-এর দু’জন সাহাবি রয়েছেন, তাদের একজন তাড়াতাড়ি ইফতার করেন, তাড়াতাড়ি সালাত আদায় করেন। আর একজন দেরিতে ইফতার করেন, দেরিতে সালাত আদায় করেন। আয়েশা রা: জিজ্ঞেস করলেন কে তাড়াতাড়ি ইফতার করেন এবং তাড়াতাড়ি সালাত আদায় করেন? আমরা বললাম, আব্দুল্লাহ বিন মাসউদ রা:। আয়েশা রা: বললেন, রাসূলুল্লাহ সা: তা-ই করতেন। আর অপর ব্যক্তি যিনি ইফতার ও সালাত আদায়ে বিলম্বে করতেন, তিনি হলেন আবু মুসা রা:। (মুসলিম)। উপরিক্ত হাদিসগুলো দ্বারা প্রমাণিত হলো যে ইফতার সূর্য  ডোবার পর পরই করা উত্তম। তবে কোনো কারণে যদি বিলম্ব হয়ে যায়, তাহলেও ইফতার করে নেবে। ইফতার  খেজুর দিয়ে করা উত্তম। যদি খেজুর না পাওয়া যায় তাহলে শুধু পানি দিয়ে ইফতার করা উত্তম। সালমান বিন আমের হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সা: বলেছেন, তোমাদের কেউ যখন ইফতার করবে সে যেন  খেজুর দিয়ে ইফতার করে। কেননা  খেজুর বরকতময়। যদি খেজুর না পাওয়া যায় তাহলে সে  যেন পানি দিয়ে ইফতার করে। কেননা পানি পবিত্র জিনিস। (তিরমিজি, আবু দাউদ)। আনাস রা: হতে বর্ণিত, নবী করিম সা: সালাতের আগে কিছু তাজা খেজুর দিয়ে ইফতার করতেন। যদি তাজা খেজুর না পেতেন, তাহলে শুকনা  খেজুর দিয়ে ইফতার করতেন। যদি শুকনা খেজুরও না পেতেন, তাহলে কয়েক চুমুক পানি পান করে ইফতার করতেন। (তিরমিজি, আবু দাউদ)। ইফতারের উপকারিতা- ১. আল্লাহর নির্দেশ পালন। কেননা আল্লাহ আদেশ করেছেন- অতঃপর রোজা পালন করো রাত পর্যন্ত। (বাকারা-১৮৭)। সূর্য ডোবার সাথে সাথেই রাত শুরু হয়ে যায়। রাসূলুল্লাহ সা: বলেছেন, যখন ওদিক (পূর্ব দিক) থেকে রাত নেমে আসে, আর এদিক (পশ্চিম) থেকে দিন চলে যায় এবং সূর্য ডুবে যায়; তখনই  রোজাদার ইফতার করবে। (বুখারি, মুসলিম)। অতএব সূর্য ডোবার সাথে সাথে ইফতার করার মাধ্যমেই আল্লাহর এই নির্দেশকে যথাযথভাবে পালন করা সম্ভব। ২. রাসূলুল্লাহ সা:-এর পূর্ণ আনুগত্য লাভ। কেননা রাসূলুল্লাহ সা: ইফতার তাড়াতাড়ি করতে বলেছেন এবং নিজেও ইফতার তাড়াতাড়ি করেছেন। ৩. ইহুদি-খ্রিষ্টানের বিরোধিতা করা। কেননা তারা অন্ধকার হওয়ার পর ইফতার করে। তিনি আরো বলেছেন- যে ব্যক্তি যে জাতির সামঞ্জস্যপূর্ণ কাজ করবে, সে জাতি তাদের দলভুক্ত বলে গণ্য হবে। ৪. আল্লাহর প্রিয় বলে গণ্য হওয়া। কেননা যে ব্যক্তি তাড়াতাড়ি ইফতার করে সে ব্যক্তি আল্লাহর প্রিয় ব্যক্তিদের অন্তর্ভুক্ত। আল্লাহ তাদের প্রতি রহম করবেন। ৫. আল্লাহর নেয়ামতের শুকরিয়া আদায়ের সুযোগ লাভ করা। সারা দিন না খেয়ে থাকার পর ইফতারের মাধ্যমে আল্লাহ খাওয়ার সুযোগ করে দিলেন, তাই তাঁর শুকরিয়া আদায় করা। ৬. কল্যাণ লাভ করা সম্ভব। কেননা রাসূলুল্লাহ সা: বলেছেন, উম্মত কল্যাণ লাভে সমর্থ হবে যতক্ষণ তারা তাড়াতাড়ি ইফতার করবে। ৭. ইফতারের মাধ্যমে দোয়া কবুলের সুযোগ লাভ করা। রাসূলুল্লাহ সা: বলেছেন, ইফতারের আগে রোজাদারের দোয়া কবুল হয়। ৭. ইফতারের মাধ্যমে রোজাদার আনন্দ লাভ করার সুযোগ পায়। ৮. দ্বীন সহজ বলে প্রমাণিত হওয়া। আল্লাহ বলেছেন, আল্লাহ তোমাদের জন্য যা সহজ তা চান, যা কঠিন তা চান না। (সূরা বাকারাহ-১৮৫)। আল্লাহ ইচ্ছা করলে রোজাকে একাধারে রাখা বাধ্যতামূলক করতে পারতেন,  যেমন সাওমে বিছাল, কিন্তু আল্লাহ ইফতার করার সুযোগ করে দিয়ে আমাদের প্রতি দয়া করেছেন এবং সহজ করে দিয়েছেন। ৯. বান্দাহ যে আল্লাহর হুকুম পালনে তৎপর, তাড়াতাড়ি ইফতার করার মাধ্যমে তা প্রমাণিত হয় এবং বান্দাহর বন্দেগি প্রকাশ পায়। ১০. ইফতার করার পর সালাত আদায় করলে প্রশান্তির সাথে সালাত আদায় করা যায়। রাসূলুল্লাহ সা: বলেছেন, খাবার মিশ্রিত সালাতের চেয়ে সালাত মিশ্রিত খাবার অনেক উত্তম। (তিরমিজি)। ১১.  খেজুর দ্বারা ইফতার শুরু করলে স্বাস্থ্যের জন্য কল্যাণকর হয়। এতে পাকস্থলী ভালো থাকে এবং শরীরে শক্তি সঞ্চয় হয়। ১২. অন্য রোজাদারকে ইফতার করালে, রোজাদার ব্যক্তি রোজা রেখে যে পরিমাণ সাওয়াব পান, যিনি ইফতার করাবেন, তিনি তার সমপরিমাণ সওয়াব পাবেন, এতে কারো সাওয়াবে কোনো কমতি হবে না। রাসূলুল্লাহ সা: বলেছেন,  যে ব্যক্তি কোনো রোজাদারকে এ মাসে ইফতার করাবে, এ ইফতার তার গুনাহের মাগফিরাত ও জাহান্নাম থেকে মুক্তির কারণ হবে। আর তার সাওয়াব হবে রোজাদারের সমপরিমাণ অথচ  রোজাদারের সাওয়াব একটুও কমিয়ে দেয়া হবে না।

ফখরুলের আসনে ভোট ২৪ জুন

ঢাকা অফিস ॥ বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর শপথ না নেওয়ায় শূন্য হয়ে যাওয়া তার বগুড়া-৬ আসনে আগামী ২৪ জুন ভোট করবে নির্বাচন কমিশন। গতকাল বুধবার নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ এই ভোটের তফসিল ঘোষণা করেন। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, এ আসনে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়ন দাখিলের শেষ সময় ২৩ মে। মনোনয়নপত্র বাছাই ২৭ মে এবং প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ৩ জুন। ইসি সচিব জানান, বগুড়া-৬ আসনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে নির্বাচন হবে। সকাল ৯টায় ভোট শুরু হয়ে একটানা চলবে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত। একাদশ সংসদ নির্বাচনে বগুড়া-৬ আসনে নির্বাচিত বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল শপথ না নেওয়ায় আসনটি গত ৩০ এপ্রিল শূণ্য ঘোষণা করা হয়। একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে নির্বাচিত পাঁচজন সংসদ সদস্য নানা নাটকীয়তার পর শপথ নিলেও দলটির মহাসচিব ফখরুল নেননি। নানা নাটকীয়তার মধ্যে একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেওয়ার পর ফখরুল দুটি আসনে ভোটের লড়াইয়ে নেমেছিলেন। নিজের জেলা ঠাকুরগাঁও-১ আসনে তিনি হারলেও বিজয়ী হন দলীয় প্রধান খালেদা জিয়ার আসন বগুড়া-৬ এ। বগুড়ার আসনে ধানের শীষ প্রতীকের ফখরুলের সঙ্গে আওয়ামী লীগের কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী ছিল না। ওই আসনে মহাজোট থেকে প্রার্থী ছিলেন জাতীয় পাটির নুরুল ইসলাম ওমর। ৩০ ডিসেম্বরের ওই নির্বাচনে ভোট ডাকাতির অভিযোগ তুলে বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট পুনর্নির্বাচনের দাবি তোলে। সেই সঙ্গে ঘোষণা দেয়, তাদের জোট থেকে বিজয়ীরা শপথ নেবেন না। কিন্তু কিছু দিন পর ঐক্যফ্রন্ট থেকে বিজয়ী গণফোরামের দুজন শপথ নেন; আর গত ২৫ এপ্রিল বিএনপির একজন শপথ নিলেও আগের সিদ্ধান্তেই থাকার কথা জানিয়েছিল বিএনপি। কিন্তু ২৯ এপ্রিল আরও চারজন শপথ নেওয়ার পর ফখরুল বলেছিলেন, দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে ওই চারজন শপথ নিয়েছেন। একদিন পর বিএনপি মহাসচিব জানান, তিনি সংসদে যাচ্ছেন না। পরদিন স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী সংসদ অধিবেশনে ফখরুলের আসনটি শুন্য হওয়ার ঘোষণা দেন।

কুষ্টিয়া জেলা পুলিশের সফল অভিযান

 ১৮ মামলার পলাতক আসামী নোভা জুয়েলার্সের মালিক আরিফ আহাম্মেদ করিমকে সীতাকুন্ড থেকে গ্রেফতার

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ার ১৮ মামলার পলাতক আসামী নোভা জুয়েলার্সের মালিক আরিফ আহাম্মেদ করিমকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কুষ্টিয়া ও সীতাকুন্ড থানা পুলিশ  যৌথভাবে অভিযান চালিয়ে চট্টগ্রামের সীতাকুন্ড এলাকা থেকে গতকাল বুধবার তাকে গ্রেফতার করে কুষ্টিয়া মডেল থানায় নিয়ে আসে। গ্রেফতারকৃত আরিফ আহাম্মেদ করিম কুষ্টিয়া শহরের আমলাপাড়ার মৃত ফজলে করিমের ছেলে। আরিফ আহমেদ করিমের বিরুদ্ধে  সেশন ২৯৭/১৮ ধারা এন আই এসিটি এর ১৩৮ যুগ্ম দায়রা দ্বিতীয় আদালত কুষ্টিয়া, সেশন ৯০৪/১৭ যুগ্নদায়রা জজ দ্বিতীয় আদালত কুষ্টিয়া, সেশন ১০৬৪/২০১৭ ধারা এন আই এসিটি এর ১৩৮ যুগ্ম দায়রা জজ প্রথম আদালত কুষ্টিয়া। সেশন ৭৭৩/১৬ যুগ্নদায়রা জজ দ্বিতীয় আদালত কুষ্টিয়া। সি আর ৩৮৪/১৬ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কুষ্টিয়া। সেশন ৯০৯/১৮ যুগ্নদায়রা জজ দ্বিতীয় আদালত কুষ্টিয়া। সিআর ৪৮৩/১৬ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৃতীয় আদালাত কুষ্টিয়া সেশন ১০০০/১৫, সি আর ৬২৯/১৫ অতিরিক্ত দায়রা জজ দ্বিতীয় আদালত কুষ্টিয়া। সেশন ৯৮১/১৬ যশোর যুগ্ন দায়রা জজ আদালত স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল ৬ যশোর। সেশন ৫৫৬/১৪,  সি আর ৯৪/১৪ ধারা এন আই এ সি টি এর ১৩৮, সেশন ১০১১/১৫, সি আর ১৮৪/১৫ অতিরিক্ত দায়রা জজ দ্বিতীয় আদালত কুষ্টিয়া। সি আর ৩৪০/১৩ ধারা ৪২০ পিসি জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দ্বিতীয় আদালত কুষ্টিয়া এবং সি আর ৪২০/১৩ জেনারেল সার্টিফিকেট অফিসার কুষ্টিয়া সদর।  সি আর ৪২৩/১৩ জেনারেল সার্টিফিকেট অফিসার কুষ্টিয়া সদর, সেশন ৭৬৭/১৪ যুগ্মদায়রা জজ প্রথম আদালত কুষ্টিয়া, সেশন ৫৬৫/১৫ যুগ্ম দায়রা জজ তৃতীয় আদালত কুষ্টিয়া, সি আর ৪৪২/১৫ অতিরিক্ত দায়রা জজ দ্বিতীয় আদালত কুষ্টিয়া।  কুষ্টিয়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ নাসির উদ্দিন জানান, আরিফ আহাম্মদ করিমের বিরুদ্ধে কুষ্টিয়াতেই ১৮টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে ১৩টিতে সাজাপ্রাপ্ত হয়েছে এবং ৬টি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা মাথায় নিয়ে চতুর এই আসামী পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে আতœগোপন করেছিল। আমরা গোপন সংবাদের ভিত্যিতে এক অভিযান চালিয়ে চট্টগ্রামের সীতাকুন্ড এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করি।