দীর্ঘ তেরো বছরেও পূর্ণতা পাইনি মেহেরপুর বিসিক শিল্প নগরী

মেহেরপুর প্রতিনিধি ॥ তেরো বছর অতিক্রান্ত হলেও এখনো পূর্ণতা পাইনি মেহেরপুরে বিসিক শিল্প নগরী। প্লট বরাদ্দ নিলেও উদ্যোক্তারা কোন প্রতিষ্ঠান স্থাপন করছেন না। আছে নিরাপত্তার অভাব। তবে উদ্যোক্তা সৃষ্টি করে বিসিকের কার্যক্রম চালু করা হবে বলছে কর্মকর্তারা। কৃষি নির্ভর মেহেরপুর জেলায় স্বাধীনতার পর থেকে এখন পর্যন্ত গড়ে উঠেনি বড় কোন শিল্প কলকারখানা। মেহেরপুর-কুষ্টিয়া সড়কে খড়ের মাঠ এলাকায় ২ কোটি ৮৮ লাখ টাকা ব্যয়ে দশ একর জায়গা নিয়ে ২০০৬ সালে যাত্রা শুরু করে মেহেরপুর বিসিক শিল্প নগরী। নির্মাণ করা হয় ৭০ টি প্লট। বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ৬৪টি প্লট। তের বছরের মধ্যে মাত্র ১১টি প্রতিষ্ঠান উৎপাদনে আছে বললেও বাস্তবে চালু রয়েছে ৭টি। পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধা না পাওয়াসহ নানা অব্যস্থাপনার কারনে অনেকেই বিসিক ছেড়ে চলে গেছেন ইতোমধ্যে। নেই নিরাপত্তা ব্যবস্থা। সড়ক বাতি না থাকায় সন্ধ্যার পর ভুতুড়ে এলাকায় পরিণত হয় বিসিক এলাকা। প্লট বরাদ্দ নেওয়ার তের বছর অতিক্রান্ত হলেও এখন পর্যন্ত পূর্নতা পয়নি বিসিক শিল্প নগরী। স্থানীয় উদ্যোক্তারা নিজেদের বরাদ্দকৃত প্লটগুলো সীমানা প্রাচীর দিয়ে রেখে ফেলে রেখেছে বছরে পর বছর। পর্যাপ্ত জনবল সংকট রয়েছে অফিসটিতে। ৫ জন কর্মকর্তার মধ্যে দায়িত্ব পালন করছেন মাত্র একজন। আল মদিনা ফার্নিচার ব্যবসায়ী মনিরুজ্জামান বলেন, বিসিক শিল্প নগরী যখন প্রতিষ্ঠা হয়েছে তখন থেকে যে সুযোগ সুবিধা দেওয়ার কথা ছিল সে সুযোগ সুবিধা থেকে আমরা বঞ্চিত হয়েছি। যার ফলে অনেক উদ্যোক্ত তাদের প্লট বিক্রি করে চলে যাচ্ছে কারন শিল্পঋণের জন্য উদ্যোক্তাদের ব্যাংক কোন সহযোগীতা করে না। যার ফলে বিনিয়োগ করে টিকতে না পেরে চলে যায়। সড়কে একটি ছাড়া আরো কোন বাতি নেই। সন্ধ্যার পর পুরো এলাকা অন্ধকার থাকে। ফলে নিরাপত্তার ঘাটতি থাকায় সন্ধ্যার আগেই বিসিক ছেড়ে চলে যেতে হয়।

উদ্যোক্তা বুশরা ইন্টারন্যাশনালে  স্বত্বাধীকারী লোটন জানান, আমাদের মত অনেক উদ্যেক্তা এখানে আসলেও যারা ব্যবসা করতে চাই তাদেরকে প্লট দেওয়ার কথা অথচ যারা প্লট নিয়েছে এক যুগ পার হলেও তাদের কোন কর্মকান্ড নেই। সামান্য বাউন্ডারি দিয়ে ফেলে রেখেছে বছরের পর বছর। কর্মকর্তাদের উচিত যারা বিনিয়োগ করতে আসছে তারা প্লট পাচ্ছে না যেহেতু আর কোন প্লট খালি নেই তা ছাড়া বর্তমানে এর মুল্যে অনেক বেশি। পূর্বে প্লটের মুল্যে কম থাকায় ভালো প্লটগুলো ভালো ব্যক্তিদের কাছে চলে গেছে। যারা ব্যবসা করছে না তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিকভাবে কোন ব্যবস্থাও নিচ্ছে না। বরং আমরা যারা বিনিয়োগ করছি তাদের উপর নানা আইন দেখানো হচ্ছে। একই অবস্থা মেসার্স মোমিনুল ম্যানুফ্যাকচারিং কোম্পানীর মালিক আজিজুল ইসলাম জানান, প্রথম থেকেই আমি প্লট নিয়ে ব্যবসা করি। আমার এখানে কৃষি ভিত্তিক বিভিন্ন ধরনের সামগ্রী তৈরী করা হয়। বিসিক থেকে কোন সহযোগীতা পাওয়া যায় না। তাদের বিরুদ্ধে কোন কথা বললে নানাভাবে হয়রানী করে এবং ক্ষুদ্ধ হয়। মেহেরপুর বিসিক শিল্প নগরীর ভারপ্রাপ্ত উপ-ব্যবস্থাপক আশরাফুল হকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি এখানে নতুন এসেছি। জেলা ভূমি বরাদ্দ কমিটির কাছে ব্যবহার না হওয়া প্লটগুলো পুনরায় বরাদ্দ দেওয়ার প্রস্তাবনা করা হয়েছে। এবং বন্ধগুলো সহ অন্যগুলো সচল করার জন্য সুপারিশ করা হয়েছে। যাদের জায়গা নেওয়া আছে অথচ ব্যবহার করছে তারা শুধু সুযোগ চাই এবং সময় পেলে চালু করার কথা বলে। বাস্তবতা হলো তাদেরকে এগিয়ে আসতে হবে আমরা চেষ্টা করলে হবে না। তবে দ্রুত বিসিকের সকল প্রতিষ্ঠানগুলোকে উৎপাদনে আনার জন্য উদ্যোক্তাদের সাথে যোগাযোগ চলছে।

গাংনীতে জমি দখল নিয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় মহিলাসহ ৭ জন আহত

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার সাহারবাটি গ্রামে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় একইপক্ষের ৩ জন মহিলাসহ ৭ জন গুরুতর আহত হয়েছেন। দীর্ঘদিনের জমি সংক্রান্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে হামলার ঘটনা ঘটে। আহতরা হলেন, সাহারবটি গ্রামের বাঙ্গালপাড়ার আব্দুল জব্বার শাহ (৬৫), তার স্ত্রী সরলা খাতুন ( ৫৮), আব্দুল জব্বারের ছেলে সোহেল রানা (৩০), আব্দুল হামিদের স্ত্রী আছিয়া খাতুন (৫৫), আব্দুল হামিদের ছেলে উজ্জ্বল আলী (৩৫), লাল বাবু ওরফে লাল চাঁদ (৩০), লালবাবুর স্ত্রী সোনিয়া খাতুন (২৮), রফিকুলের ছেলে রাসেল আহমেদ (২২)। আহতের গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে।  পরে আব্দুল জব্বার ও উজ্জল এর অবস্থা আশঙ্কজনক হলে তাদের কুষ্টিয়া ও নাটোরে রেফার্ড করা হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল ৮ টার সময় সাহারবাটি গ্রামের বাঙ্গাল পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানায়, সাহারবাটি গ্রামের কৃষক জব্বার শাহের বাড়ীর সামনে ৫ শতক খাস জমি রয়েছে। ওই জমি নিয়ে আব্দুল জব্বার এর ভাই আব্দুর রশীদের সাথে প্রতিবেশী মফেজউদ্দীনের ছেলেদের বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে মফেজউদ্দীনের ছেলে শুকুর আলী, রইছদ্দীন, সেন্টু, বাবলুর সাথে প্রায় একযুগ ধরে দেওয়ানী মামলা চলছে। গতকাল শনিবার সকালে শুকুর আলীর নেতৃত্বে রইছদ্দীন, বাবলু, সেন্টু, মজিবর, তইজু, শরিফুল, বাবলু লোকজন নিয়ে গাংনী-কাথুলী সড়কের পার্শ্বের ঐ ৫ শতক জমি দখল করতে যান। ওই জমির ভোগ দখলকারী আব্দুল জব্বার তার শরীকদের নিয়ে বাঁধা দেয়। এক পর্যায়ে প্রতিপক্ষ মফেজউদ্দীনের ছেলেরা দেশীয় বাঁশের লাঠি, ফলা, বাটাম, রড, দা নিয়ে হামলা চালিয়ে প্রতিপক্ষ আব্দুল জব্বার পরিবারের উপর হামলা চালিয়ে তাদের রক্তাক্ত জখম করে। আহত উজ্জ্বল জানায়, আমাদের বাড়ি সংলগ্ন রাস্তার পার্শ্বের পতিত জমি। আমরা দীর্ঘদিন যাবত সরকারী খাস জমি হিসাবে ভোগ দখল করে আসছি। হঠাৎ আমাদের বাড়ীর রাস্তা বন্ধ করতে জমির ভূয়া কাগজ পত্র দেখিয়ে লাঠি সোটা হাতে দলবল নিয়ে জমি দখল করতে আসে। এ নিয়ে হামলাকারী দলের শুকুর আলী জানান, উক্ত জমি আমাদের  নিজস্ব। আমরা সরকারের কাছ থেকে বন্দোবস্ত নিয়েছি। এমনকি একযুগ ধরে মামলা করে আমরা  রায় পেয়ে জমি দখলে গিয়েছি। আমাদের জমি নিয়ে যদি জেল খাটতে হয় তবুও জমি ছেড়ে দিব না। গাংনী থানার ওসি হরেন্দ্রনাথ সরকার (পিপিএম) জানান, ঘটনার বিবরণ শুনেছি, অভিযোগও পেয়েছি। সরেজমিনে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

 

বন্দুকের জোরে আ’লীগ ক্ষমতায় – মির্জা ফখরুল

ঢাকা অফিস ॥ ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ বন্দুক-পিস্তল আর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর জোরে ক্ষমতা দখল করে বসে আছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।গতকাল শনিবার একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময় ক্ষতিগ্রস্ত নেতাকর্মীদের সঙ্গে সাক্ষাতের উদ্দেশে কুমিল্লা যাওয়ার সময় বুড়িচং এলাকায় পথসভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।মির্জা ফখরুল বলেছেন, আওয়ামী লীগ সরকার দেশের গণতন্ত্রকে ধ্বংস করে দিয়েছে, মানুষের অধিকারকে হরণ করে নিয়েছে। বন্দুক-পিস্তল আর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর জোরে ক্ষমতা দখল করে বসে আছে তারা। বিএনপির মহাসচিব বলেন, সবাইকে শক্ত হয়ে দাঁড়িয়ে থাকার জন্য ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে এবং আন্দোলন করার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। এই কঠিন লড়াইয়ে আমাদের পার হতে হবে। আর তার একমাত্র উপায় হলো নিজেদের মধ্যে ঐক্য থাকা। তিনি বলেন, আমরা যে চিন্তা-ভাবনা থেকে দেশের জন্য যুদ্ধ করেছিলাম, সেই চিন্তা-ভাবনা আওয়ামী লীগ সরকার নষ্ট করে দিয়েছে।

মির্জা ফখরুল আরও বলেন, এই লড়াইয়ের মাধ্যমে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে হবে, দেশনেত্রীকে মুক্ত করার জন্য লড়াই করতে হবে, বাংলাদেশে সত্যিকার অর্থে জনগণের জন্য একটা সরকার প্রতিষ্ঠায় লড়াই করতে হবে। পথসভায় মির্জা ফখরুল নির্বাচনের সময় যে সমস্ত নেতাকর্মীরা নির্যাতিত হয়েছিলেন, মামলা হয়েছে এবং যারা কারাবরণ করেছেন তাদের প্রতি দলের পক্ষ থেকে প্রতিবাদ জানান।

 

ভেড়ামারা ৮৮ব্যাচের অফিস উদ্বোধন ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত

ভেড়ামারা প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় এসএসসি ব্যাচ ভিত্তিক সাংগঠনিক ভাবে সোচ্চার।এই সর্ব প্রথম ভেড়ামারার ( ঢাকা কোচ ষ্ট্যান্ডের দক্ষিণে ) পূর্বের সজনী সিনেমা হলের সামনে “৮৮ এসএসসি ব্যাচের” অফিস উদ্বোধন ও মিলাদ মাহফিল গতকাল সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত হয়। লাল ফিতা কেটে কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিয়দের চেয়ারম্যান ৮৮’বন্ধুবর আতাউর রহমান আতা “৮৮ এসএসসি ব্যাচের” অফিসের শুভ উদ্বোধন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ৮৮ ব্যাচের পরিচালনা কমিটির সভাপতি মাসুদ রানা মামুন, সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী সুলতান মাহমুদ, কোষাধ্যক্ষ একরামুল হক, সাংবাদিক ইসমাইল হোসেন বাবু, মাসুদুজ্জামান মাসুদ, মোঃ আবু দাউদ, ডক্টর মোঃ আনিছুর রহমান, ইব্রাহিম আব্দুল্লাহ্ সিজার, আছাদুজ্জামান আছা, প্রধান শিক্ষক রবিউল ইসলাম, প্রকৌশলী হাবিবুর রহমান রতন, প্রকৌশলী শফি উল্লাহ, আসাদুজামান, জাহাঙ্গীর হোসেন, শিক্ষক এনামুল হক, আব্দুল মান্নান, মোছাঃ রোকশানা লিপি, উম্মে কুলসুম রানী, বিউটি, মজিবর রহমান, সালাউদ্দিন, সাইফুল ইসলাম, আসাদুজ্জামান জামাল, শফিকুল ইসলাম টিটু, মামুন অর রশিদ, আবু বকর সিদ্দিকি, আব্দুস সালাম, আজিজুল হক, সাইদুল ইসলাম, নাহারুল ইসলাম, রুহুল আমিন, মতিয়ার রহমান, মমিন, আসাদুল ইসলাম, সাজ্জাদ, রবজেল হোসেন, তরিকুল ইসলাম বিশু ও মোছাঃ মর্জিনা খাতুন প্রমুখ।

ধর্ষন, শিশু হত্যা, অপহরণ বন্ধসহ নুসরাতের খুনিদের শস্তির দাবিতে মেহেরপুরে মানববন্ধন

মেহেরপুর প্রতিনিধি ॥ সারা দেশে ধর্ষন, শিশু হত্যা, অপহরণ বন্ধসহ ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসা শিক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফির হত্যাকারী সিরাজ উদদৌলা ও তার সহযোগীদের ফাঁসির দাবিতে মেহেরপুরে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেছে অংকুর নামের ছাত্র কল্যানমূলক একটি সংগঠন। গতকাল দুপুরে মেহেরপুর প্রেসক্লাবের সামনে এ কর্মসূচী পালন করা হয়। এতে নেতৃত্ব দেন লেখক ও সাংবাদিক সুখী ইসলাম। বক্তব্য রাখেন সংগঠনটির সভাপতি নাসিম নেজা বাধন, সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ রহমান সান, সিনিয়র সহসভাপতি মোহাম্মদ মুন, সহ সভাপতি হুসাইন কাদের সাজুসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। বক্তারা বলেন, সারা দেশে একর পর এক ধর্ষন ও শিশু নির্যাতন হলেও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হচ্ছেনা। ফলে এধরনের অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে অনেকেই। দ্রুত নুসরাত হত্যাকারীদের বিচারের আওতায় এনে ফাঁসির দাবি জানান তারা।

কুমারখালীর প্রাইভেট হাসপাতাল ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের স্বাস্থ্য সেবা সপ্তাহ পালন

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ সরকারি হাসপাতালের পাশাপাশি কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার প্রাইভেট হাসপাতাল ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের উদ্যোগে জাতীয় স্বাস্থ্য সেবা সপ্তাহ পালন করা হয়েছে। সিভিল সার্জন কুষ্টিয়া ডা: রওশন আর বেগম ও উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: আকুল উদ্দিনের নির্দেশনা অনুযায়ী জাতীয় স্বাস্থ্য সেবা সপ্তাহ’র (১৬-২০এপ্রিল) পালন উপলক্ষে স্ব-স্ব ভবনে আলোকসজ্জায় সজ্জিত করা হয়। সেই সাথে সেবামূল্য  ১০ শতাংশ কমিয়ে সেবা প্রদান করা হয়েছে।  এ প্রসঙ্গে ফ্যামিলি কেয়ার হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের পরিচালক সুজয় চাকী জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক জাতীয় স্বাস্থ্য সেবা সপ্তাহ’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর থেকেই তার প্রতিষ্ঠান বর্ণিল আলোকসজ্জায় সজ্জিত করা হয়। এ ছাড়াও সিভিল সার্জন কুষ্টিয়া ও উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা কুমারখালীর নির্দেশনা অনুযায়ী সেবা গ্রহীতাদের  (রোগী) নিকট থেকে ১০ শতাংশ হারে সেবামূল্য ছাড় দেওয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে সোহাগ ক্লিনিক ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের পরিচালক নুরুল আমিন সোহাগ জানিয়েছেন, জাতীয় স্বাস্থ্য  সেবা সপ্তাহ পালন উপলক্ষে তাদের প্রতিষ্ঠানে বর্ণিল আলোকসজ্জায় সজ্জিত করা হয় এবং ১০ শতাংশ সেবামুল্য ছাড় দেওয়া হয়। এ ছাড়াও বিশ্বাস কমিউনিটি চক্ষু হাসপাতালের পরিচালক মো: সুরুজ আলী বিশ্বাস ও নোভা ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের পরিচালক মো: আব্দুল আলিম শেখ জানিয়েছেন, জাতীয় স্বাস্থ্য  সেবা সপ্তাহ পালন উপলক্ষে তাদের প্রতিষ্ঠানে বর্ণিল আলোকসজ্জায় সজ্জিত করা হয় এবং ১০ শতাংশ সেবামুল্য ছাড় দেওয়া হয়।

জাতীয় স্বাস্থ্য সেবা সপ্তাহ ১৬-২০এপ্রিল পর্যন্ত তারা সকল শ্রেণীর উল্লেখযোগ্য সংখ্যক রোগীকে সেবা প্রদান করেছেন। কুমারখালীর প্রাইভেট হাসপাতাল ও ডায়াগনষ্টিক মালিকেরা জানান, তারা শুধু ব্যবসার জন্য নয়, স্বাস্থ্য সেবার সঠিক মান বজায় রেখে মানুষকে সেবা প্রদানের উদ্দেশ্যেই প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করে থাকেন। স্বাস্থ্য সেবা সপ্তাহ সমাপ্ত হলেও চিকিৎসা সেবা প্রদানে অসহায় ও দরিদ্র শ্রেণীর রোগীদের জন্য তাদের সহানুভুতি ও সহযোগীতা অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তারা।

দৌলতপুর পাইলট হাইস্কুল মাঠে বৈশাখী মেলার উদ্বোধনকালে এমপি বাদশা

বৈশাখী উৎসব গ্রাম বাংলার প্রাচীণ ঐতিহ্য, এ ঐতিহ্য আমাদের লালন করতে হবে

শরীফুল ইসলাম ॥ কুষ্টিয়া-১ দৌলতপুর আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড. আ. কা. ম. সরওয়ার জাহান বাদশা বলেছেন, বাংলা নববর্ষ ও বৈশাখী উৎসব গ্রাম বাংলার প্রাচীন ঐতিহ্য, এ ঐতিহ্য আমাদের অন্তরে লালন করতে হবে। সম্রাট অকবর এ উৎসবের প্রচলন করে আর সেই সময় থেকে এই উৎসব পালন হয়ে থাকে। তিনি বলেন, বৈশাখী উৎসব পালন করতে গিয়ে বৈশাখী মেলায় যেন কোন অপসংস্কৃতি কর্মকান্ড না ঘটে। লক্ষ্য রাখতে হবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার পরিবেশ যেন বিঘিœত না হয়। মেলার পরিবেশ সুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ণ থাকে সে বিষয়টি খেয়াল রাখতে হবে। শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টায় দৌলতপুর সরকারী পাইলট হাইস্কুল মাঠে সপ্তাহব্যাপী বৈশাখী মেলা উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি সরওয়ার জাহান বাদশা এসব কথা বলেন। মেলা উদ্যাপন কমিটির সভাপতি আব্দুল আওয়ালের সভাপতিত্বে বৈশাখী মেলা উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন দৌলতপুর উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান এ্যাড. এজাজ আহমেদ মামুন, দৌলতপুর থানার ওসি মো. নজরুল ইসলাম, দৌলতপুর কলেজের অধ্যক্ষ মো. ছাদিকুজ্জামান খান। বক্তব্য রাখেন, দৌলতপুর কলেজের বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সরকার আমিরুল ইসলাম, দৌলতখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মজিবর রহমানসহ স্থানীয় সুধীজন। তবে মেলা উদ্বোধনকালে বেশ কয়েকটি স্থানে জুঁয়ার আশর বসতে দেখা গেলেও পুলিশি হস্তক্ষেপে তা বন্ধ হয়।

 

গাংনীতে গলায় বিস্কুট আটকিয়ে শিশুর মৃত্যু

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার ধানখোলা ইউনিয়নের নিত্যান্দপুর গ্রামে গলায় বিষ্কুট বেঁধে মিতা মন্ডল (৩) নামের এক শিশু কন্যার মৃত্যু হয়েছে। সে খ্রীষ্টান সম্প্রদায়ের নিত্যান্দপুর গ্রামের বাসিন্দা ও মেহেরপুর সরকারী কলেজের প্রভাষক মিলন মন্ডলের মেয়ে। গতকাল শনিবার দুপুর দেড়টার দিকে বিষ্কুট খাওয়ার সময় গলায় বেঁধে মারা যাওয়ার ঘটনা ঘটে। স্থানীয় যুবক নান্টু সরকার জানান শিশু মিতা দুপুর ১২টার দিকে নিজ বাড়িতে বিষ্কুট খাচ্ছিল। ওই বিষ্কুট তার গলায় বেঁধে গেলে অসুস্থ হয়ে পড়ে। এ সময় প্রতিবেশীরা তাকে উদ্ধার করে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্যকমপে¬ক্সে নিলে, কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ঝিনাইদহে সন্ত্রাসীরা গুলিতে ১জন নিহত

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহ সদর উপজেলার কুবিরখালী গ্রামে জামিরুল ইসলাম (৩০) নামে এক আওয়ামীলীগ কর্মীকে অজ্ঞাত সন্ত্রাসীরা গুলি ও কুপিয়ে হত্যা করেছে।  শুক্রবার রাত ৯টায় কুবিরখালী গ্রামের খালের ধারে এই হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। নিহত জামিরুল কুবিরখালী গ্রামের মজনুর রহমানের ছেলে। ঝিনাইদহের সদর থানার ওসি মিজানুর রহমান খাঁন বলেন,আটলিয়া বাজারে হার্ডওয়ার ব্যবসায়ী জামির রাতে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে বাড়ীতে যাচ্ছিল। পথের মধ্যে দূর্বৃত্তদের কলা গাছ ফেলে গতিরোধ করে। এসময় সন্ত্রাসীরা বুকে ও মাথায় গুলি করে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয় বলে তিনি জানান।

গণফোরাম এখন আগের চেয়ে শক্তিশালী – ড. কামাল

ঢাকা অফিস ॥ গণফোরাম এখন আগের চেয়ে শক্তিশালী হয়েছে দাবি করে একে আরও শক্তিশালী করতে দলীয় নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন দলটির সভাপতি কামাল হোসেন। গতকাল শনিবার নিজের ৮২তম জন্মবার্ষিকীতে শুভেচ্ছসিক্ত হয়ে গণফোরামের কেন্দ্রীয় কমিটির এক সভায় এই আহ্বান জানান তিনি। কামাল হোসেন বলেন, “এবার ভালো ভালো লোকজন এগিয়ে এসে আমাদের দলে যোগ দিয়েছেন। তারা যোগদান করছেন এজন্য যে, আমাদের দল কর্মক্ষম, আমাদের দলের জনপ্রিয়তা বাড়ছে এবং তারা এসে অবদান রাখতে চান। আমাদের সবচেয়ে বড় কাজ হবে সাংগঠনিক কাজে নিজেদের নিয়োজিত করা। সদস্য সংগ্রহ বাড়াতে হবে। এটা বাড়াতে হবে এই কারণে যে আমরা মনে করি, এই দলটি দেশের জাতীয় দল যেখানে সকল মহলের্ প্রতিনিধিত্ব করবে।” প্রায় তিন দশক আগে আওয়ামী লীগ ছেড়ে গণফোরাম গঠনের পর এখনই দলটি সবচেয়ে বেশি আলোচিত। গত একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিএনপির সঙ্গে জোট বেঁধে ভোটে অংশ নেওয়ার পর অনেকে এই দলে যোগ দেন। এই প্রথম সংসদ নির্বাচনে দুটি আসনে বিজয়ীও হয়েছে কামাল হোসেনের দল। ভোটের ফল প্রত্যাখ্যানের পর পুনর্নির্বাচনের দাবিতে বিএনপির সঙ্গে সক্রিয় রয়েছে গণফোরাম। ‘গঠনমূলক’ রাজনীতির মধ্য দিয়ে পরিবর্তন আনতে চাওয়ার কথা জানিয়ে কামাল বলেন, “যে পরিবর্তন সবাই চাচ্ছে সেটা হচ্ছে কার্যকর গণতন্ত্র। আমাদের এই গঠনমূলক রাজনীতির মধ্য দিয়ে, গঠনমূলক কর্মসূচির ভিত্তিতে যে রাজনীতি দেশে গড়ে উঠছে, তার মধ্য দিয়ে আকাঙ্ক্ষিত পরিবর্তন আমরা আগামীতে আনতে পারব দেশে।” দলকে শক্তিশালী করার উপর জোর দিয়ে কামাল বলেন, “আমাদের মনে রাখতে হবে শক্তিশালী সংগঠন ছাড়া অর্থপূর্ণ কাজ করা যাবে না, দেশে পরিবর্তন আনা যাবে না। আমরা গর্ব করি যে, আমরা টাকার বিনিময়ে রাজনীতি করি না। আমরা ধর্মকে কাজে লাগিয়ে রাজনীতি করি না। আমরা অসাম্প্রদায়িক রাজনীতি করি জনগণের ওপর ভিত্তি করি।” সকালে মতিঝিলের ইডেন কমপ্লেক্সে গণফোরামের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে কামাল হোসেন এসে পৌঁছালে নেতা-কর্মীরা ফুল দিয়ে তাকে শুভেচ্ছা জানান। তাদের নিয়ে পরে কেক কাটেন তিনি। দলের নেতা সুব্রত চৌধুরী ও মোস্তফা গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্র্রত চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু দলের সভাপতিকে কেক খাইয়ে দেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন গণফোরাম নেতা মফিজুল ইসলাম খান কামাল, আলতাফ হোসেন, সিরাজুল হক, অধ্যাপক আবু সাইয়িদ, রেজা কিবরিয়া, আ ম সা আ আমিন, মহসিন রশিদ, জগলুল হায়দার আফ্রিক, মোশতাক আহমেদ, রফিকুল ইসলাম পথিক প্রমুখ। অবিভক্ত ভারতে কলকাতায় ১৯৩৭ সালে কামাল হোসেনের জন্ম। তিনি বিয়ে করেছেন মানবাধিকার কর্মী হামিদা হোসেনকে। তাদের দুই মেয়ে সারা হোসেন ও দিনা হোসেন। কামালের শিক্ষাজীবন শুরু কলকাতার সেন্ট জেভিয়ার্স স্কুলে ১৯৪৪ সালে। ঢাকার সেন্ট গ্রেগরিজ স্কুলে মাধ্যমিক এবং নটর ডেম কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় পাস করে তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের ইন্ডিয়ানা অঙ্গরাজ্যের নটর ডেম ইউনিভার্সিটি থেকে ১৯৫৫ সালে অর্থনীতিতে ডিগ্রি নেন কামাল। এরপর ১৯৫৭ সালে যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন শাস্ত্রে স্নাতক এবং একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৫৮ ও ১৯৬৪ সালে যথাক্রমে বিসিএল ও ডক্টরেট ডিগ্রি নেন। ১৯৫৯ সালে তিনি ঢাকা হাই কোর্টে আইনজীবী হিসেবে কাজ শুরু করেন। তিনি বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতিও ছিলেন। স্বাধীনতার আগে আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়া কামাল ১৯৭২ সালে স্বাধীন বাংলাদেশের সংবিধান তৈরির জন্য যে কমিটি হয়েছিল, সেই কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাসনামালে তিনি প্রথমে আইনমন্ত্রী, পরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন। আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্যও ছিলেন কামাল। ১৯৯২ সালে আওয়ামী লীগ থেকে বেরিয়ে এসে ১৯৯৩ সালে গঠন করেন গণফোরাম। গত বছরের অক্টোবরে একাদশ নির্বাচনকে সামনে রেখে তিনি বিএনপি, জেএসডি, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ, নাগরিক ঐক্যকে নিয়ে গঠন করেন সরকারবিরোধী নির্বাচনী জোট ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট’। এই জোটের শীর্ষনেতা হিসেবে সক্রিয় রয়েছেন তিনি। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট মনে করে, আওয়ামী লীগের শাসনে দেশে গণতন্ত্র নেই। তা ফিরিয়ে আনা তাদের লক্ষ্য।

কুষ্টিয়া জেলা শ্রমিকলীগের বর্ধিত সভায় মহান মে দিবস প্রস্ততি ও বিভিন্ন সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত

কুষ্টিয়া জেলা জাতীয় শ্রমিকলীগের বর্ধিত সভা গতকাল শনিবার সকাল ১১ টায় কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের কার্যালয় সভায় সভাপতিত্ব করেন তমেজ উদ্দিন ইউসুপ। স্বাগতিক বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাধারন সম্পাদক মো আমজাদ আলী খান । অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় আইন বিষয়ক ও দরকষাকষি বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল লতিফ। আলোচ্য সূচী উপর সহসভাপতি জিল্লুর রহমান, মিরাজ উদ্দিন, গোলাম সরোয়ার, আঃ রশিদ, ইয়াকুব আলী, হাফিজুর রহমান, যুগ্ন সাধারন সম্পাদক এইচ এম মতিউর রহমান, হামিদুল ইসলাম  মোঃ পলাশ মিয়া, শাহিনুর ইসলাম লেবু,  সহ-সাধারন সম্পাদক আফজাল হোসেন, বাদশা আলমগীর, আনোয়ার হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস হোসেন,  জাহাঙ্গীর আলম তরিকুল ইসলাম মিন্টু, রাহায়াত হোসেন, জহির রায়হান রিয়াজুর হক প্রচার সম্পাদক শংকর বিশ্বাস, প্রচার আঃ রশিদ, অর্থ সম্পাদক  রেজাউল করিম, দপ্তর সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেনসহ দপ্তর সম্পাদক কাবুল চৌধুরী, ক্রীড়া সম্পাদক এনামুল হক, সহ ক্রীড়া সম্পাদক শফিকুল ইসলাম, সমাজ কল্যান সম্পাদক মাহবুব  হোসেন,  সহ-সমাজ কল্যান সম্পাদক খোমিনী আহমেদ, ত্রাণ পুনর্বাসন সম্পাদক সরোউদ্দিন, সহ-ত্রাণ পুনর্বাসন সম্পাদক তাইজাল প্রামানিক, শহর শ্রমিকলীগের সভাপতি দেওয়ান মাসুদুর রহমান স্বপন, সাধারন সম্পাদক আলতাফ হোসেন নির্বাহী সদস্য সমছের উদ্দিন, আঃ মালেক, রবিউল ইসলাম, তমিজউদ্দিন আশরাফ উদ্দিন,  আসাদুল হক, অগ্রনী ব্যাংক সোনানী ব্যাংক জনতা ব্যাংক, মটর শ্রমিকলীগ, বিড়ি শ্রমিক, কুষ্টিয়া   পৌরসভা কর্মচারী ইউনিয়ন।   ১। সিদ্ধান্ত হয়  যে প্রতি উপজেলায় যথাযথ মর্যাদায় দিবস পালন করা ২। জেলা শ্রমিকলীগ  জেলা আওয়ামীলীগের কার্যালয়ের সামনে থেকে সকাল ৮টায় আলোচনা র‌্যালী করে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে পুষ্পমাল্য অর্পন ৩। যে ৬ জন দীর্ঘ পর পর ৫ সভায় উপস্থিত হয়না তাহাদের বিরুদ্ধে  নোটিশ জারী  করে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহন করার প্রস্তাব গৃহীত হয় ৪। আনোয়ারুল হক এর বিরুদ্ধে বিদ্যুৎ অফিসের ভিতরে বহু গাছ  কেটে বিক্রি দলে ও সরকারের এবং শ্রমিকলীগের ভাবমূর্তি খুন্ন করায় দায়ে বিদ্যুৎ অফিসের কর্মচারী দাবী অনুয়ায় সভাপতি পদ  থেকে বহিস্কার প্রস্তাব কেন্দ্রীয় কমিটির নিকট পাঠানো সুপারিশের প্রস্তাব গৃহীত হয় ৫। দৌলতপুর, কুমারখালী, খোকসা, ভেড়ামারা  যে কমিটি সম্মেলন করার জন্য দায়িত্ব  দেয়া হয়েছে আগামী জুন ২০/৪/২০১৯ মধ্য সম্মেলন করতে না পারলে ২১ জুনের নতুন আহবায়ক কমিটির গঠন করে দায়িত্ব দেওয়া হবে সভায় সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

স্বাস্থ্য সেবা সপ্তাহ সমাপনী উপলক্ষে

কুমারখালীর দূর্গম চরাঞ্চলে দিনব্যাপী ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প উদ্বোধন

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ জাতীয় স্বাস্থ্য সেবা সপ্তাহ সমাপনী উৎসব উপলক্ষে কুষ্টিয়ার কুমারখালীর দূর্গম চরাঞ্চলে দিনব্যাপী ফ্রি স্বাস্থ্য সেবা ক্যাম্প উদ্বোধন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে গতকাল সকালে সিভিল সার্জন অফিসের আয়োজনে “স্বাস্থ্য সেবা অধিকার, শেখ হাসিনার অঙ্গীকার” প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র চত্বরে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কুষ্টিয়ার সিভিল সার্জন ডা: রওশন আরা বেগমের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, জেলা প্রশাসক মো: আসলাম হোসেন। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন কুমারখালী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো: আব্দুল মান্নান খান, কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো: আতাউর রহমান আতা, পরিবার পরিকল্পনা কুষ্টিয়ার উপ-পরিচালক সরদার আব্দুল হান্নান, কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজীবুল ইসলাম খান, শিলাইদহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: সালাহ্ উদ্দিন খান তারেক, চর সাদীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: তোফাজ্জেল হোসেন। জাতীয় স্বাস্থ্য সেবা সপ্তাহ’র সমাপনী ও ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য  দেন, কুমারখালী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: আকুল উদ্দিন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে  বক্তব্যদানকালে জেলা প্রশাসক বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশে সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ থাকবেনা, আমরা সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ বিতাড়িত করেছি। তিনি (প্রধানমন্ত্রী) বলেছেন, মাদক নির্মুল করতে হবে, আমরা মাদক নির্মুলে সমন্বিতভাবে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এবার প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, স্বাস্থ্যসেবা দৌড়গোড়ায় পৌঁছে দিতে হবে। এ জন্য আমরা এই দুর্গম চরাঞ্চলের মানুষের কাছে স্বাস্থ্য সেবা পৌঁছে দিতে এসেছি। জেলা প্রশাসক আরো বলেন, দেশকে এগিয়ে নিতে হলে আমাদেরকে একটি সুস্থ্য-সবল জাতি এবং মাদক ও দুর্নীতি মুক্ত সমাজ গড়ে তুলতে হবে। তাহলেই আমাদের সকল ক্ষেত্রে সফলতা আসবে এবং আমরা কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছে যাবো।  এ সময় কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক সহ স্থানীয় বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও চিকিৎসাসেবা নিতে আসা চরাঞ্চলের নারী-পুরুষ ও শিশুসহ নানা শ্রেণী-পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।  আলোচনা অনুষ্ঠান শেষে জেলা প্রশাসক মো: আসলাম হোসেন জনপ্রতিনিধি ও চিকিৎসকদের সাথে নিয়ে ফিতা কেটে (ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে) দিনব্যাপী ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। পরে দূর্গম চরাঞ্চলের রোগীদের সেবাদান কার্যক্রম পরিদর্শন করেন জেলা প্রশাসক। এর আগে জেলা প্রশাসক চর সাদীপুর ইউনিয়ন পরিষদের সার্বিক কার্যক্রম পরিদর্শন ও দিকনির্দেশনা দেন এবং পরিদর্শন বহিতে মন্তব্য লিপিবদ্ধসহ স্বাক্ষর করেন।

অবৈধভাবে বাংলাদেশে আসায় ৪৯৫ জন আটক – স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, অবৈধভাবে আসায় বাংলাদেশে ৪৯৫ জন আটক হয়েছে। এদের মধ্যে ৫৭ জনের শাস্তি হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে রাজধানীর একটি হোটেলে মানব পাচার প্রতিরোধে ইউএনডিপির সহযোগিতায় জাতীয় মানবাধিকার কমিশন আয়োজিত দিনব্যাপী সেমিনারের প্রথম সেশনে এসব কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, প্রলুব্ধ হয়ে দেশ থেকে মানব পাচার হচ্ছে। তিনি বলেন, প্রলুব্ধ হয়ে কেউ যেন দেশ ছেড়ে না যায়, তা নিশ্চিত করতে সবাই মিলে একযোগে কাজ করতে হবে। এ ক্ষেত্রে করণীয় সবকিছু করবে সরকার। তবে দেশের সামগ্রিক উন্নয়নের কারণে প্রলুব্ধ হয়ে পাচারের সংখ্যা কমে আসছে।

মন্ত্রী বলেন, পাচার ঠেকাতে সব আইন যথাযথভাবে প্রয়োগ করা হচ্ছে। সব জেলায় কমিটি কাজ করছে। জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক বলেন, পাচারের শিকার হয়ে বিভিন্ন দেশে যারা দু:সহ জীবন যাপন করছে, তাদের মানবাধিকার নিশ্চিত করে ফিরিয়ে আনতে হবে। পাচার ঠেকাতে আইনের কঠোর প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে। ২০১২ সালে এ সংক্রান্ত আইন হলেও ৭ বছরে ট্রাইব্যুনাল গঠন করা যায়নি, তাই অপরাধীদের শাস্তি নিশ্চিত করা যাচ্ছে না। এটা দ্রুত করা জরুরি। জাতিসংঘের প্রতিষ্ঠান আইওএম এর বাংলাদেশ মিশনের প্রধান জর্জি গিগাওরি বলেন, কেন, কীভাবে পাচার হচ্ছে তা খুঁজে বের করতে হবে। সবাই মিলেই বাংলাদেশ থেকে এবং বিশ্ব থেকে মানব পাচার বন্ধ করতে হবে। সেমিনারে আরও বক্তব্য দেন সাংসদ নাহিম রাজ্জাক, ভারতের এটিএসইসি এর জাতীয় সমন্বয়কারী ও মহাসচিব মানবেন্দ্র নাথ মন্ডল। সেমিনারটি চারটি ভাগে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত চলবে।

খোকসায় কৃষকদের মাঝে বিনা মূল্যে প্রণোদনা ধান বীজ ও সার বিতরন

খোকসা প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার খোকস্ায় কৃষকদের মাঝে বিনা মুল্যে প্রণোদনা আউশ ধান বীজ ও সার বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুরে উপজেলা কৃষি অফিসের আয়োজনে উপজেলার ৮৮০ জন কৃষকের মাঝে বিনা মুল্যে প্রণোদনা ধান বীজ ও সার বিতরন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও খোকসা উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্জ্ব সদর উদ্দিন খান। সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাফফারা তাসনীন। অতিথি ছিলেন পৌর মেয়র ও আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক প্রভাষক তারিকুল ইসলাম, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিম রেজা, উপজেলা কৃষি অফিসার সবুজ কুমার সাহা, খোকসা প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক শেখ সাইদুল ইসলাম প্রবীন, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন-সাধারন সম্পাদক ও কৃষক প্রতিনিধি জিল্লুর রহমান, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান, খোকন প্রমুখ। এ ছাড়াও বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, ইউপি চেয়ারম্যান, উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের কৃষক, সাংবাদিক ও সুধীবৃন্দ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। এ বছর উপজেলার ৮৮০ জন কৃষকের মাঝে বিনা মূল্যে ৫ কেজি ধান বীজ, ১৫ কেজি ডিওপি, ১০ কেজি এমওপি সার দেওয়া হয়।

দুদককে দিয়ে সরকার কুৎসা রটাচ্ছে – রিজভী

ঢাকা অফিস ॥ দুদককে দিয়ে সরকার তারেক রহমান ও জিয়া পরিবারের বিরুদ্ধে কুৎসা রটাচ্ছে বলে দাবি করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। গতকাল শনিবার নয়াপল্টনে দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে লন্ডনে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জব্দে আদালতের আদেশের বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানাতে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। রিজভী বলেন, বাংলাদেশের আদালতে ব্যবহার করে সরকার বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার স্ত্রী ডা. জোবায়দা রহমানের নামে যুক্তরাজ্যের একটি ব্যাংকে থাকা তিনটি হিসাব জব্দের নির্দেশের আদেশ করিয়েছে বলে গণমাধ্যমে খবর বেরিয়েছে। সরকারের নির্দেশে দুর্নীতি দমন কমিশনের একটি আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত একটি আদেশ দিয়েছে বলে জানা গেছে। মিথ্যা সাজানো মামলায় বেগম খালেদা জিয়াকে কারাবন্দী করে আটকে রাখা হয়েছে অন্যায়ভাবে। এখন বিএনপিকে চাপে ফেলতে এই সরকার দুদককে দিয়ে একটি কাল্পনিক ও মিথ্যা আবেদনের মাধ্যমে আদালতকে দিয়ে আদেশ করিয়েছে। এটি একটি আষাঢ়ে গল্প। তিনি বলেন, তারেক রহমানের নেতৃত্বে বিএনপি সুসংগঠিত হচ্ছে, সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাতে সরকার ভীত হয়ে সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে কাল্পনিক মিথ্যা অভিযোগ সামনে এনেছে। কারণ এখন সরকার যা বলে নিম্ন আদালত তাই করে। এক্ষেত্রেও তার ব্যতিক্রম হয়নি। আর যদি সরকারের নির্দেশ না মেনে কোন বিচারক ন্যায় বিচার করেন তাহলে তাদেরকে দেশ ছাড়তে হয়, যার উৎকৃষ্ট প্রমাণ বিচারক মোতাহার হোসেন ও প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহা। রিজভী আরও বলেন, আমরা পরিষ্কার বলতে চাই, তারেক রহমানের কোন অবৈধ অর্থ নেই। সেখানে তার যা অর্থ আছে তা ইনল্যান্ড রেভিন্যুতে ট্যাক্সপেইড অর্থ। সেদেশে আইনের শাসন রয়েছে, সুতরাং সেখানে আনডিসক্লোজড মানি ট্র্যানজেকশন হওয়ার সুযোগ নেই। বাংলাদেশের বর্তমান সরকার ও তাদের আন্দোলনের ফসল’রা বারো বছর ধরে তন্নতন্ন করে খুঁজে তারেক রহমান এর অবৈধ সম্পদের কোন সন্ধান পায়নি। অথচ ঢালাওভাবে তার বিরুদ্ধে কত যে মিথ্যা গল্প সাজিয়ে অপপ্রচার করেছে সেটির ইয়ত্তা নেই। এখন দুদককে দিয়ে আরেকটি কুৎসা রটনার নতুন অধ্যায় শুরু করলো। একাদশ জাতীয় নির্বাচন প্রসঙ্গে রিজভী বলেন, এটি বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে কলঙ্কিত ও বিতর্কিত নির্বাচন। যে নির্বাচনে ভোটারদের দরকার পড়েনি। দরকার পড়েছে চতুস্পদী প্রাণীর। আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ও প্রশাসন মিলে আগের রাতে ব্যালটে সিল মেরে বাক্স ভর্তি করে রাখে, ভোটের দিন ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে যেতে দেয়া হয়নি, আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের ভোট কেন্দ্রের ৪০০ গজ দুরে রাখা হয়েছিল সাধারণ ভোটারদেরকে ভোটকেন্দ্রে আসতে বাধা দেয়ার জন্য। সে নির্বাচনের দৃশ্য দেশি ও আর্ন্তজাতিক মিডিয়ায় কিভাকে ফোলাও করে প্রচারিত হয়েছে তা নিশ্চয়ই ক্ষমতাসীনদের জানা থাকলেও এখন সেটি চেপে গিয়ে মুখস্থ মিথ্যা কথা বলছেন।

না ফেরার দেশে সবার প্রিয় ওয়ারেশ স্যার

নিজ সংবাদ ॥ না ফেরার দেশে চলে গেলেন সবার প্রিয় ওয়ারেশ হোসেন (ওয়ারেশ স্যার) ইন্নালিল্লাহে ওয়া ইন্না এলাইহে রাজিউন। শনিবার রাত সাড়ে ৯ টায় রাজধানী ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল(সিএমএইচ)এ চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮২ বছর। বুধবার সন্ধ্যায় তিনি হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে কুষ্টিয়ার মান্নান হার্ট সেন্টারে ভর্তি করা হয়। সেখানে তাঁর অবস্থার অবনতি ঘটলে রাত পৌনে ১২টার দিকে ঢাকার উদ্দেশ্যে নেয়া হয়। বৃহস্পতিবার সকালে ভর্তি করা হয় সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে। সেখানে সিসিউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় হার্ট এ্যাটাক হলে লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয় তাকে। শনিবার রাত ১০টার দিকে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন ওয়ারেশ হোসেন।  আজ রোববার বাদ এশা ঢাকা সেনানিবাস কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে জানাযা অনুষ্ঠিত হবে। পরদিন তাঁকে নেয়া হবে তাঁর নিজ জেলা কুষ্টিয়ায়। ওয়ারেশ হোসেন কুষ্টিয়া সিরাজুল হক মুসলিম হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক ছিলেন। সকলের প্রিয় ওয়ারেশ স্যার না ফেরার দেশে চলে যাওয়ার সংবাদে শোকের ছায়া নেমে আসে গোটা কুষ্টিয়াজুড়ে। তাঁর অসংখ্য প্রিয় শিক্ষার্থী প্রিয় স্যারের মৃত্যুতে গভীর শোক ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন। ওয়ারেশ হোসেনের বাড়ি কুষ্টিয়া শহরের থানাপাড়া এলাকায়। দুই পুত্র ও এক কন্যা সন্তানের জনক তিনি। তাঁর দুই সন্তানই সেনাবাহিনীতে চাকরী করেন। বড় ছেলে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবুল হাসনাত মো: খায়রুল বাশার। তিনি বর্তমানে সুদানে সেনা  প্রধানের সাথে সফরসঙ্গী রয়েছেন। বাবার মৃত্যু সংবাদে তিনি আজ রোববার দেশে ফিরবেন বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে। ছোট ছেলে  মেজর আবুল হাসনাত মো: মোফাজ্জেল করিম।

সোমবার কুষ্টিয়ায় জানাযা শেষে কুষ্টিয়া পৌর গোরস্থানে দাফন সম্পন্ন হবে। ওয়ারেশ হোসেনের মরদেহ বর্তমানে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হয়েছে।

 

কুষ্টিয়ায় এক ঘন্টার ব্যবধানে একই সড়কে ট্রাক চাপায় প্রাণ গেল দুইজনের

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ায় পৃথক দুটি দুর্ঘটনায় ট্রাকের চাপায় পিষ্ট হয়ে দুইজনের প্রাণ গেল। গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ছয়টা থেকে সাড়ে সাতটার মধ্যে কুষ্টিয়া-ঈশ্বরদী মহাসড়কে পৃথক এদুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন, মিরপুর উপজেলার রানাখড়িয়া এলাকার রমজান আলী (৬৫) ও মির্জানগর গ্রামের সাবুল মন্ডল (৪৫)। পুলিশ দুটি লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাসির উদ্দীন বলেন, সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে কুষ্টিয়া শহরতলীর ত্রিমোহিনী এলাকায় একটি দ্রুতগামী ট্রাক একটি ভ্যানকে পেছন থেকে সজোরে ধাক্কা দেয়। এতে ভ্যানচালক সাবুল মন্ডল সড়কে ছিটকে পড়ে। এসময় ট্রাক চাপায় তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান। এ দুর্ঘটনায় সাব্দার মুন্সী ও আসহাব প্রামাণিক নামে ভ্যানের দুই আরোহী আহত হয়। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। এদিকে অপর দুর্ঘটনাটি ঘটে একই সড়কের চার কিলোমিটার দূরে জ্যোতি তেল পাম্পের কাছে। ঘটনাস্থল থেকে চৌড়হাস হাইওয়ে পুলিশের উপপরিদর্শক জয়নুল ইসলাম বলেন, সকাল সাড়ে ৭টার দিকে মিরপুর উপজেলার রানাখড়িয়া এলাকার ট্রাকের চাপায় পিষ্ট হয়ে পথচারী রমজান আলী প্রমাণিক (৬৫)  নামে এক বৃদ্ধা ঘটনাস্থলেই মারা যান। লাশ উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

আজ পবিত্র শবেবরাত

ঢাকা অফিস ॥ যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় আজ রোববার দিবাগত রাতে সারাদেশে পবিত্র শবেবরাত পালিত হবে। হিজরি সালের শাবান মাসের ১৪ তারিখ দিবাগত রাতটি বিশ্ব মুসলিম উম্মাহ শবে বরাত বা সৌভাগ্যের রজনী হিসেবে পালন করে। মুসলিম সম্প্রদায়ের জন্য এ রাতটি ‘লাইলাতুল বরাত’ হিসেবে পরিচিত। পবিত্র শবেবরাত উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। এ উপলক্ষে সোমবার সরকারি ছুটি থাকবে। বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বের ধর্মপ্রাণ মুসলমানগণ মহান আল¬াহর রহমত ও নৈকট্য লাভের আশায় নফল নামাজ, কোরআন তেলাওয়াত, জিকির, ওয়াজ ও মিলাদ মাহফিলসহ এবাদত-বন্দেগির মধ্য দিয়ে রাত অতিবাহিত করবেন। মহিমান্বিত এ রজনীতে মুসলিম উম্মাহর সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশ্বের মুসলমানরা বিশেষ মোনাজাত করবেন। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এক বাণীতে পবিত্র শবেবরাতে দেশের অব্যাহত অগ্রগতি, কল্যাণ এবং মুসলিম উম্মাহর বৃহত্তর ঐক্য কামনা করেছেন। এ উপলক্ষে দেশবাসীসহ সমগ্র মুসলিম উম্মাহর প্রতি আন্তরিক মোবারকবাদ জানিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘শবেবরাত মুসলমানদের জন্য এক মহিমান্বিত ও বরকতময় রজনী। মাহে রমজান ও সৌভাগ্যের আগমনী বারতা নিয়ে লায়লাতুল বরাত প্রতিবারের ন্যায় এবারও আমাদের মাঝে সমাগত।’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শান্তির ধর্ম ইসলামের চেতনাকে ব্যক্তি, সমাজ ও জাতীয় জীবনের সকল স্তরে প্রতিষ্ঠা এবং পবিত্র শবেবরাতের মাহাত্ম্যে উদ্বুদ্ধ হয়ে মানব কল্যাণ ও দেশ গড়ার কাজে আত্মনিয়োগে সকলের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘আসুন, সকল প্রকার কুসংস্কার ও কূপমন্ডূকতা পরিহার করে আমরা শান্তির ধর্ম ইসলামের চেতনাকে ব্যক্তি, সমাজ ও জাতীয় জীবনের সকল স্তরে প্রতিষ্ঠা করি।’ এ রজনীতে বাসাবাড়ি ছাড়াও মসজিদে মসজিদে সারা রাত নফল নামাজ, পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত, ওয়াজ মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। এ উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশন আগামীকাল বাদ মাগরিব থেকে বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদে রাতব্যাপী বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। এ কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, কুরআন তিলাওয়াত, হামদ-না’ত, ওয়াজ মাহফিল, মিলাদ ও বিশেষ মোনাজাত। ফজরের নামাজের পর আখেরি মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে। মোনাজাত পরিচালনা করবেন বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা মুহাম্মদ মিজানুর রহমান। বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতারসহ বেসরকারি টিভি চ্যানেল ও রেডিও এ উপলক্ষে ধর্মীয় বিভিন্ন অনুষ্ঠান সম্প্রচার করবে। এছাড়া দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে জাতীয় দৈনিকগুলো বিশেষ নিবন্ধ প্রকাশ করবে।

 

প্রধানমন্ত্রী আজ ব্রনাই যাচ্ছেন

ঢাকা অফিস ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্র“নাই দারুসসালামের সুলতান হাজী হাসানাল বলকিয়ার আমন্ত্রণে ৩ দিনের সরকারি সফরে আজ ব্র“নাইয়ের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করবেন।প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর সফর সঙ্গীদের নিয়ে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি বিশেষ ফ্লাইট আজ সকালে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ব্র“নাইর উদ্দেশে যাত্রা করবে। বিমানটি স্থানীয় সময় দুপুর পৌনে ৩টায় ব্র“নাইয়ের রাজধানী বন্দরসেরী বেগাওয়ানে ব্র“নাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছবে। ব্র“নাইয়ের যুবরাজ হাজী আল-মাহতাদী বিল্লাহ বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানাবেন।

বিমানবন্দরে আনুষ্ঠানিকতা শেষে প্রধানমন্ত্রীকে মোটর শোভাযাত্রা সহকারে ইম্পায়ার হোটেল এন্ড কান্ট্রি ক্লাবে নেয়া হবে। সফরকালে তিনি এই হোটেলে অবস্থান করবেন।

সংবাদ সম্মেলনে আ’লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হানিফ

খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে বিএনপির দরকষাকষি রাজনীতির জন্য বাজে দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে 

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, এমপি বলেছেন, দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে বিএনপির দরকষাকষি দেশের রাজনীতির জন্য বাজে দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। তিনি বলেন, ‘বিএনপির নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের সংসদে যাওয়া না যাওয়ার সঙ্গে কারো (বেগম জিয়া) মুক্তির সম্পর্ক নেই। কারণ, যারা নির্বাচিত হয়েছেন তারা ভোটারদের কাছে দায়বদ্ধ। কোন দন্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তির মুক্তির জন্য ভোটাররা তাদের ভোট দেয় নি।’ আওয়ামী লীগের অন্যতম মুখপাত্র মাহবুব-উল আলম হানিফ গতকাল শনিবার দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের সম্পাদকমন্ডলীর সভা শেষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যরিস্টার মওদুদ আহমদের বক্তব্যের জবাবে একথা বলেন। ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ শুক্রবার এক আলোচনা সভায় বেগম জিয়া মুক্তি পেলেই বিএনপির নির্বাচিত সংসদ সদস্যরা সংসদে যাবেন বলে মন্তব্য করেন। সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপুমনি, এডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক, এডভোকেট মেজবাহ উদ্দিন সিরাজ, দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সবুর, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন ও কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন নাহার লাইলী প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন। মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, বেগম খালেদা জিয়া দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে কারাগারে রয়েছেন। তিনি রাজনৈতিক কোন মামলায় সাজা ভোগ করছেন না। তিনি বলেন, আইন অনুযায়ীই বেগম জিয়াকে মুক্তি পেতে হবে। এর বাইরে মুক্তি পেয়ে বিদেশে যাওয়ার কোন সুযোগ নেই। তবে রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা চাইলে তিনি সাজা মাফ করে দিতে পারেন। এ বিষয়ে হানিফ বলেন, কারাগারে থাকা কারো নিকট আত্মীয়দের মধ্যে কেউ মারা গেলে বা অসুস্থ হয়ে পড়লে যথাযথ কতৃপক্ষের কাছে আবেদন করে প্যারোলে মুক্তি পাওয়া যায়। এজন্য যিনি প্যারোলে মুক্তি নিতে চান তাকে, অথবা তার পরিবারের কোন সদস্যকে আবেদন করতে হবে। বেগম জিয়ার মুক্তির জন্য বা প্যারোলের জন্য কেউ আবেদন করেছে বলে তার জানা নেই উল্লেখ করে হানিফ আরো বলেন, কারাগারে থাকা কোন ব্যক্তি যদি গুরুতরভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ে তাহলে মেডিকেল বোর্ডের সুপারিশ নিয়েও চিকিৎসার জন্য তিনি বিদেশে যেতে পারেন। তিনি আরো বলেন, বেগম জিয়ার প্যারোলে মুক্তি চেয়ে বিএনপির নেতারা বা তার পরিবারের কোন সদস্য আবেদন করেন নি। তার চিকিৎসার জন্য মেডিকেল বোর্ডও বিদেশে চিকিৎসার জন্য কোন পরামর্শ দেয় নি। এ ধরনের কোন পরিস্থিতি হলে আদালত বিবেচনা করবেন। দলের সম্পাদকমন্ডলীর সভার বিষয়ে হানিফ বলেন, শুক্রবার বিকেলে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ ও কেন্দ্রীয় কার্য নির্বাহী সংসদের যৌথসভায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন এবং দলকে তৃণমূল থেকে ঢেলে সাজানোর বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে জাতির পিতার দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের সঙ্গে নানা ধরনের স্মৃতি জড়িত রয়েছে। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে কারো কোন স্মৃতি থাকলে, সে সকল স্মৃতির সঙ্গে জড়িত কেউ বেঁচে থাকলে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে সেসকল স্মৃতি সংগ্রহ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। হানিফ বলেন, বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবনে কারো কাছে কোন ছবি থাকলে সেগুলো সংগ্রহ করা এবং বঙ্গবন্ধুর হাতের লেখা চিঠি কারো কাছে থাকলে তা সংগ্রহ করার জন্যও নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সারাদেশে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কার্যক্রমকে জোরদার করতে গঠিত আটটি টিমের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদকরা এ কার্যক্রম দেখভাল করবেন উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগের বিভিন্ন উপ-কমিটি বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মপরিকল্পনা গ্রহন করে জমা দেবে। দলের কেন্দ্রীয় কার্য নির্বাহী সংসদ তা অনুমোদন দেয়ার পর তা বাস্তবায়িত হবে। হানিফ এ বিষয়ে আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে গঠিত জাতীয় কমিটির সঙ্গে সমন্বয় করে দলীয় কর্মসূচি প্রণয়নও বাস্তবায়ন করা হবে। সাংগঠনিক কার্যক্রম সম্পর্কে আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক বলেন, তৃণমূল থেকে আওয়ামী লীগকে ঢেলে সাজানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এ জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদকরা কর্মপদ্ধতি ঠিক করবেন। এ বিষয়ে তিনি আরো বলেন, দলের ডাটাবেজ তৈরি করতে সকল পর্যায়ের নেতাদের যাবতীয় তথ্য কেন্দ্রে পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এর আগে মাহবুব-উল আলম হানিফের সভাপতিত্বে দলের সম্পাদক মন্ডলীর এক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

গ্রীষ্মকালীন সবজি ডাটা চাষ পদ্ধতি

কৃষি প্রতিবেদক ॥ ডাটা বাংলাদেশের অন্যতম গ্রীষ্মকালীন সবজি। ডাটায় পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন-এ, বি, সি, ডি এবং ক্যালসিয়াম ও লৌহ বিদ্যমান। ডাটার কান্ডের চেয়ে পাতা বেশি পুষ্টিকর। খুব কম সবজিতে এত পরিমাণে বিভিন্ন প্রকার ভিটামিন ও খনিজ লবণ থাকে। মাটির বৈশিষ্ট্য ডাটার জন্য উর্বর ও গভীর মাটি প্রয়োজন। সুনিষ্কাশিত অথচ ‘জো’ থাকে এমন মাটিতে এটি সবচেয়ে ভাল জন্মে। উৎপাদন কৌশল বাংলাদেশে ডাটার আবাদ খরা মৌসুমেই করা হয়। শীত প্রকট ও দীর্ঘস্থায়ী নয় বলে রবি মৌসুমেও এর চাষ সম্ভব, তবে সেই সময় অন্য অনেক সবজি পাওয়া যায়। জমি তৈরি ডাটার জন্য জমি গভীর করে কর্ষণ ও মিহি করে প্রস্তুত করতে হবে। জমিতে বড় ঢেলা থাকবে না। বাংলাদেশে ডাটা প্রধানত কান্ড উৎপাদনের জন্য চাষ করা হয়। আমাদের বেশি জাতসমূহ কান্ডপ্রধান, এগুলো ডালপালা খুব কম উৎপাদন করে। এসব জাত ৩০ সে.মি. দূরত্বে সারি লাগানো যেতে পারে। চারা গজানোর পর ক্রমান্বয়ে পাতলা করে দিতে হবে।  যেন শেষ পর্যন্ত সারিতে পাশাপাশি দুটি গাছ ৮/১২ সে.মি. দূরত্বে থাকে। যেসব জাতের কান্ড অনেক মোটা ও দীর্ঘ হয় এবং  দেরিতে ফুল উৎপাদন করে সেগুলো আরও পাতলা করা উচিত। বীজের পরিমাণ ডাটা চাষের জন্য শতাংশ প্রতি ১৫ গ্রাম বীজের প্রয়োজন হয়। বীজ বপন জমি গভীরভাবে চাষ দিয়ে বড় ঢেলা ভেঙে মাটি ঝুরঝুরে করতে হবে। সারিতে কাঠির সাহায্যে ১.০-১.৫ সে.মি. গভীর লাইন টানতে হবে। লাইনে বীজ বুনে হাত দিয়ে সমান করে দিতে হবে। ছিটিয়ে বুনলে বীজের সঙ্গে সমপরিমাণ ছাই বা পাতলা বালি মিশিয়ে নিলে সমভাবে বীজ পড়বে। বপনের পর হাল্কাভাবে মই দিয়ে বীজ ঢেকে দিতে হবে। জমিতে পর্যাপ্ত রস না থাকলে ঝাঝরি দিয়ে হাল্কা করে পানি ছিটিয়ে দিতে হবে। তাহলে বীজ দ্রুত এবং সমানভাবে গজাবে। অর্ন্তবতীকালীন পরিচর্যা গাছের স্বাভাবিক বৃদ্ধির জন্য জমিকে আগাছামুক্ত রাখা আবশ্যক। প্রয়োজনমতো জমিতে সেচ না দিলে কান্ড দ্রুত আঁশমুক্ত হয়ে ডাটার গুণগতমান ও ফলন কমে যাবে। মাটির চটা ভেঙে ঝুরঝুরে করে দিলে গাছের বৃদ্ধির সুবিধা এবং গোড়াপচা রোগও রোধ হয়। চারা গজানোর ৭ দিন পর হতে পর্যায়ক্রমে একাধিকবার গাছ পাতলাকরণের কাজ করতে হবে। জাত ভেদে ৫-১০ সে.মি. অন্তর গাছ রেখে বাকি চারা তুলে শাক হিসেবে ব্যবহৃত হতে পারে। যেহেতু দ্রুত বর্ধনশীল ফসল তাই সঠিক সময়ে ইউরিয়া সার উপরি প্রয়োগ করতে হবে। ফসল তোলা কান্ড প্রধান জাতে ফসল সংগ্রহের কোনো নির্দিষ্ট সময় নেই। গাছে ফুল আসার পূর্ব পর্যন্ত যে কোনো সময় ফসল তোলা যেতে পারে। ফুল আসলেই কান্ড আঁশময় হয়ে যায়। ডাটার কান্ডের মাঝামাঝি ভাঙার চেষ্টা করলে যদি সহজে ভেঙে যায় তাহলে বুঝতে হবে আঁশমুক্ত অবস্থায় আছে। তখনই সংগ্রহের উপযুক্ত সময় বলে বিবেচিত হয়। জীবনকাল লাল তীর সীড লিমিটেড উদ্ভাবিত জাতসমূহের জীবনকাল বপন থেকে ৪০-৬০ দিন। ফলন ডাটা একটি উচ্চ ফলনশীল সবজি। বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে উন্নত জাতের চাষ করলে প্রতি একরে ১০০-১২০ টন ডাটা পাওয়া সম্ভব।