সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সিরাজুল ইসলামকে সম্মাননা প্রদান

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুর জেলার সর্বজন শ্রদ্ধেও গাংনীর কৃতিসন্তান সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সিরাজুল ইসলাম স্যারকে সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যায় মেহেরপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে সম্মাননা প্রদান করা হয়। গুণী সৃজনশীল সংগঠক হিসাবে বিশেষ অবদান রাখার জন্য জেলা শিল্পকলা একাডেমী এ সম্মাননা প্রদান করা হয়। এছাড়াও বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখার জন্য আরো ৯ গুণীজনকে সম্মাননা প্রদান করে । এরা হলেন-অ্যাডভোকেট এসএম ইব্রাহিম শাহীন, শ্বাশত চক্রবর্তী নিপ্পন, মোমিনুল ইসলাম, ফৌজিয়া আফরোজ তুলি, শওকত আরা মিমি, নুর-এ ইয়াসমিন জলি,আক্কাছ আলী ও আব্দুর রব। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মেহেরপুর জেলা প্রশাসক ও জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সভাপতি আতাউল গনি। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে ১০জন গুনী ব্যক্তিকে সম্মাননা প্রদান করেন জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। এ সময় প্রধান অতিথি গুণীজনদের উত্তরীয় পরিয়ে দেন। এছাড়া তাদের ক্রেস্ট পদক, সনদ ও প্রত্যেককে নগদ ১০ হাজার টাকা প্রদান করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, মেহেরপুর পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মহাম্মদ গোলাম রসুল। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা শিল্পকলা একাডেমীর (সাবেক) সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক সাইদুর রহমান, মেহেরপুর সরকারী কলেজের সহযোগি অধ্যাপক আব্দুল্লাহ আল আমিন প্রমুখ।

গাংনীতে চৈত্র সংক্রান্তি উপলক্ষে ব্যতিক্রমি আয়োজন

গাংনী প্রতিনিধি ॥ ৩০ শে চৈত্র, ১৪২৫বঙ্গাব্দ; চৈত্র সংক্রান্তি ও বর্ষবিদায় উপলক্ষে প্রতিবারের ন্যায় আয় বাঙ্গালি খায় বাঙ্গালি এ রসাত্মক শ্লোগানকে প্রাণে ধারণ করে মেহেরপুরের গাংনীতে ব্যতিক্রমধর্মী আয়োজন করা হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেলে গাংনী ফুলকুঁড়ি কিন্ডার গার্টেন স্কুল চত্বরে ব্যতিক্রমধর্মী আয়োজন করা হয়। আয়োজনের মধ্যে ছিল আলোচনা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, কুইজ প্রতিযোগিতা ও বিভিন্ন ধরণের পিঠা-পায়েস খাওয়া। নানা বর্ণের, নানা স্বাদের পিঠা-পুলির সম্ভারে সাজানো খাবারের মৌ-মৌ গন্ধে এ যেনো প্রাণের মিলন মেলায় পরিণত হয়। সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সর্বজন শ্রদ্ধেও সিরাজুল ইসলাম স্যারের আহবানে ব্যতিক্রমধর্মী আয়োজনে অংশগ্রহণ করেন বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সিরাজুল ইসলাম স্যাার। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত  থেকে অনুষ্ঠান উপভোগ করেন গাংনী উপজেলা পরিষদের নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও মেহেরপুর জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক এমএ খালেক। বিশেষ অতিথি হিসাবে অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফারহানা ইয়াসমিন। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, গাংনী সরকারী ডিগ্রী কলেজের সাবেক সহকারী অধ্যাপক ও গাংনী উপজেলা সুজন-এর সভাপতি আব্দুর রশীদ, গাংনী সরকারী কলেজের প্রভাষক ফজলুল হক সেন্টু, করমদী কলেজের প্রভাষক এসএম সায়েম পল্টু,বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির মেহেরপুর জেলা শাখার সভাপতি সৈয়দ জাকির হোসেন, গাংনী মহিলা ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক মহিবুর রহমান মিন্টু, গীতিকার আব্দুল হামিদ, গীতিকার শহিদুল ইসলাম শাওন। অনুষ্ঠানে পদ্মা পাতায় করে পিঠা-পায়েস খাওয়ার পাশাপাশি সকল বয়সের মানুষের অংশগ্রহণে কুইজ প্রতিযোগিতা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। দুর্যোগ ও বৈরী আবহাওয়া উপেক্ষা করে বিভিন্ন বয়সের শত-শত মানুষ এ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সাংবাদিক আমিরুল ইসলাম অল্ডাম ও কুইজ প্রতিযোগিতা পরিচালনা করেন সাংস্কৃতিক কর্মী মুনজুর মুর্শেদ শান্তি। অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে সাংবাদিক আমিরুল ইসলাম অল্ডাম ও গাংনী উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক হাজী মুহাম্মদ শফি কামাল পলাশের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অনুভূতি ব্যক্ত করেন, গাংনী উপজেলা পরিষদের নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ খালেক ও তার সহধর্মিনী পাপিয়া খাতুনসহ আরও অনেকে।

মাদ্রাসা অধ্যক্ষের নির্দেশে নুসরাতকে আগুন দেওয়া হয় -পিবিআই

ঢাকা অফিস ॥ ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যাকান্ডে এখন পর্যন্ত ১৩ জনের সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে। তাঁদের মধ্যে পুলিশের হাতে আটক সাতজন। ওই হত্যাকান্ডে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার নির্দেশে ঘটেছে বলে গতকাল শনিবার এক প্রেস ব্রিফিংয়ে দাবি করেছে মামলার তদন্ত সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। পিবিআইয়ের প্রধান মনোজ কুমার মজুমদার গতকাল বেলা একটার দিকে রাজধানীর ধানমন্ডির পিবিআইয়ের প্রধান কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিং করেন। ওই ব্রিফিংয়ে বলা হয়, অধ্যক্ষের নির্দেশে হত্যাকান্ডের এ ঘটনা ঘটেছে। ৪ এপ্রিল সিরাজ উদ দৌলার মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন করেন আসামি নুর উদ্দীনসহ কয়েকজন। পরে তাঁরা সিরাজ উদ দৌলার সঙ্গে দেখা করেন। নুসরাতকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে করা মামলায় ২৭ মার্চ অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর তাঁর মুক্তির দাবিতে ‘সিরাজ উদ দৌলা সাহেবের মুক্তি পরিষদ’ নামে কমিটি গঠন করা হয়। ২০ সদস্যের এ কমিটির আহ্বায়ক নুর উদ্দিন এবং যুগ্ম আহ্বায়ক হন শাহাদাত হোসেন। তাঁদের নেতৃত্বে অধ্যক্ষের মুক্তির দাবিতে গত ২৮ ও ৩০ মার্চ উপজেলা সদরে দুই দফা মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হয়। তাঁরাই নুসরাতের সমর্থকদের হুমকি-ধমকি দিয়ে আসছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে। পিবিআইয়ের ভাষ্য, নুর উদ্দিনসহ কয়েকজন সিরাজ উদ দৌলার সঙ্গে দেখা করে নির্দেশ নিয়ে আসেন। ৫ এপ্রিল সকাল নয়টা থেকে সাড়ে নয়টার দিকে মাদ্রাসার কাছে থাকা হোস্টেলের পশ্চিম অংশে তাঁর মূল পরিকল্পনা করেন। সেখানেই নুসরাতকে পুড়িয়ে মারার সিদ্ধান্ত নেন তাঁরা। অধ্যক্ষকে আটক করায় আলেম সমাজকে হেয় করা হয়েছে বলে মনে করেন তাঁরা। এই হেয় করা ও প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখানের ক্ষোভ থেকে নুসরাতকে পুড়িয়ে মারার সিদ্ধান্ত নেন। এ ঘটনায় দুজন মাদ্রাসাছাত্রী ও তিনজন ছাত্র জড়িত। এঁদের একজন মাদ্রাসাসংলগ্ন সাইক্লোন সেন্টারে তিনটি বোরকা ও কেরোসিন শাহদাতকে দিয়েছেন। পরে দুজন ছাত্র ও দুজন ছাত্রী বোরকা পরে সাইক্লোন সেন্টারের টয়লেটে লুকিয়ে ছিলেন। তাঁরাই নুসরাতের শরীরে আগুন লাগিয়েছেন। ৬ এপ্রিল নুসরাত পরীক্ষা দিতে গেলে দুর্বৃত্তরা তাঁর গায়ে আগুন দেন। গুরুতর দগ্ধ অবস্থায় ওই দিন রাতে তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। গত বুধবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে নুসরাত মারা যান। এর আগে গত ২৭ মার্চ ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগে মামলা করেন নুসরাতের মা। গত রোববার নুসরাত চিকিৎসকদের কাছে দেওয়া শেষ জবানবন্দিতে বলেছিলেন, নেকাব, বোরকা ও হাতমোজা পরা চারজন তাঁর গায়ে আগুন ধরিয়ে দেন। ওই চারজনের একজনের নাম শম্পা।

 

কবে শবে বরাত জানা যাবে ১৭ এপ্রিল

ঢাকা অফিস ॥ শবে বরাতের তারিখ নিয়ে বিভ্রান্তি দূর করতে ১০ সদস্যের কমিটি গঠন করেছে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি। আগামী ১৭ এপ্রিল বুধবার এই কমিটি তারিখ ঘোষণা করবে। শনিবার বেলা ১১টার দিকে ইসলামিক ফাউন্ডেশন বায়তুল মোকাররমের সভাকক্ষে এক বিশেষ বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন জাতীয় চাঁদ কমিটির সভাপতি ও ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ মো. আবদুল্লাহ। এর আগে, গত শনিবারের সভায় ২১ এপ্রিল রাতে শবে বরাত পালনের সিদ্ধান্ত হয়। সভা শেষে ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ মো. আবদুল্লাহ বলেন, পবিত্র শবে বরাত কবে হবে এটার সিদ্ধান্ত নেওয়া সরকারের বিষয় নয়। শরিয়ত অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য ১০ সদস্যের একটি সাব কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই কমিটি আগামী ১৭ এপ্রিলের মধ্যে জানিয়ে দিবে কবে শবে বরাত পালিত হবে। এর আগে, গত ৬ এপ্রিল জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছিল আগামী ২১ এপ্রিল রোববার দিবাগত রাতে পবিত্র শবে বরাত পালিত হবে। ওই সভায় বলা হয়ছিল, গত ৬ এপ্রিল বাংলাদেশের আকাশে কোথায়ও চাঁদ দেখা না যাওয়ায় আগামী ২১ এপ্রিল দিবাগত রাতে পবিত্র শবে বরাত পালিত হবে। তবে আন্তর্জাতিক চাঁদ দেখা সংক্রান্ত মজলিসু রুইয়াতিল হিলাল নামের একটি সংগঠনের খাগড়াছড়ি শাখা এবং মুন্সিগঞ্জ  জেলার কয়েকজন আলেম দাবি করেন তারা গত ৬ এপ্রিল শাবান মাসের চাঁদ দেখেছেন। সে বিষয়ে প্রশাসনকে অবহিত করা হলেও সে অনুযায়ী সিদ্ধান্ত হয়নি।

কুষ্টিয়ায় বাসন্তী পূজা উপলক্ষে ভজন কীর্ত্তণ

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ায় শ্রীশ্রী বাসন্তী পূজা উপলক্ষ্যে শ্রীমদ্ভগবত পাঠ ও ভজন কীর্ত্তণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। মিল লাইন শক্তির দেবী অর্চনা সংঘ এর আয়োজনে শনিবার রাতে কুষ্টিয়া শহরের মিলপাড়ার মিললাইন ব্যাডমিন্টন মাঠ প্রাঙ্গনে এ ভজন কীর্ত্তণ অনুষ্ঠিত হয়। ভজন কীর্ত্তণ পরিবেশন করেন কালুখালি মদন মোহন মন্দিরের সেবাইত শ্রী গোপাল গোস্বামী। এ সময় জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও মিল লাইন পূজা মন্দির কমিটির সভাপতি নিলয় কুমার সরকার, মিল লাইন শক্তির দেবী অর্চনা সংঘ এর সদস্য সচিব বিপ্লব বিশ্বাস, মিললাইন মন্দিরের সাধারণ সম্পাদক গোবিন্দ বিশ্বাসসহ আয়োজক কমিটির মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন অঙ্কুর, মাইকেল, সাগর, শীপন, মিঠু, হুদয়, শুভ, পিয়ন, লিখন, সীমান্ত, সৌরভ, প্রকাশ প্রমুখ। শ্রী গোপাল গোস্বামী দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনা করে কীর্ত্তণ পরিবেশন করেন। আগামী ১৫ এপ্রিল সোমবার প্রতীমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে এ আয়োজনের সমাপ্তি ঘটবে। এর আগে ১১ এপ্রিল রাতে এ পূজার উদ্বোধন করা হয়। ওই দিন প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া শহর আওয়ামীলীগের সভাপতি তাইজাল আলী খান এবং মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্বলন করে শ্রীশ্রী বাসন্তী দেবীর পূজার উদ্বোধন করেন কুষ্টিয়া জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদের সভাপতি নরেন্দ্রনাথ সাহা।

 

কুষ্টিয়ায় ইসলামী ছাত্র মজলিসের সহযোগী সদস্য ও প্রার্থীদের নিয়ে কর্মশালা

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্র মজলিস কুষ্টিয়া জোনের উদ্যোগে সহযোগী সদস্যর প্রার্থীদের নিয়ে ২ দিনব্যাপী কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতি ও শুক্রবার কুষ্টিয়া মজলিস মিলনায়তনে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। কেন্দ্রিয় প্রশিক্ষন ও বাইতুল মাল সম্পাদক এবং জোনের পরিচালক মনির হুসাইন সভাপতিত্বে কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সংগঠনের কেন্দ্রিয় সভাপতি ইলিয়াস আহমেদ। তিনি বলেন, বর্তমানে শিক্ষাঙ্গনে শিক্ষার্থীরা নিরাপদ নয়। ছাত্রীরা যৌন হয়রানির শিকার হচ্ছে। তিনি বলেন, শিক্ষাঙ্গনের নৈরাজ্য ব্যাপক হারে  বেড়ে গেছে। ছাত্রদের যেখানে  লেখাপড়া নিয়ে ব্যস্ত থাকার কথা ছিল সেখানে আজ তাদের নিরাপত্তার প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ধর্ষণ, রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ, গোলাগুলি, বোমাবাজি, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, ইভটিজিং, ব্যবসা, শিক্ষক ও সাংবাদিক লাঞ্ছনা-নির্যাতন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর হামলা, ভর্তি বাণিজ্য ঘটনা ঘটছে । তিনি বলেন, দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে শিক্ষাঙ্গনে সুস্থ-সুন্দর ও নিরাপদ পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। তিনি ফেনীর সোনাগাজী ইসলামীয়া ফাজিল মাদরাসা ছাত্রী আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার প্রতিবাদ ও হত্যাকারীদের বিচারের দাবি করেন। কর্মশালায় বিষয় ভিত্তিক আলোচনায় অংশ নেন অধ্যাপক সিরাজুল হক, অধ্যাপক আজিরুল ইসলাম, মাওলানা আব্দুল লতিফ খান। কর্মশালায় উপস্থিত বক্তৃতা, লিখিত পরীক্ষা, গ্র“প স্টাডি, ক্লাসগ্রহন করা হয় এবং বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। কেন্দ্রিয় প্রতিনিধি সদস্য ও ইবি শাখার সভাপতি রায়হান আলীর পরিচালনায় কর্মশালায় আরো বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া জোনের সহকারী তত্বাবধায়ক শরীফুল ইসলাম, জেলা শাখার সেক্রেটারী মশিউর রহমান, ইবি শাখার সেক্রেটারী মাহমুদ হাসান, শহর শাখার সেক্রেটারী মনোনিত হয়েছেন শরীফুল ইসলাম, জেলা শাখার বায়তুল মাল সম্পাদক মনিরুল ইসলাম প্রমুখ। কর্মশালার শেষ পর্বে সদ্য প্রয়াত জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক এমএ শামীম আরজুর রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করা হয়। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

চুয়াডাঙ্গায় পুলিশের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে তালিকাভূক্ত শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী নিহত – অস্ত্র ও মাদকদ্রব্য উদ্ধার

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি ॥ চুয়াডাঙ্গায় পুলিশের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে তালিকাভুক্ত শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী রুহুল আমীন (৪৮) নিহত হয়েছেন। এসময় আহত হয়েছেন পুলিশের দুই  -পরিদর্শকসহ তিন সদস্য। শুক্রবার দিনগত রাত ২টার দিকে সদর উপজেলার উকতো গ্রামের একটি বাঁশ বাগানে বন্দুকযুদ্ধের এ ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থ থেকে একটি শুটারগান, কয়েক রাউন্ড গুলি ও এক বস্তা ফেন্সিডিল উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত রুহুল আমীন চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার শান্তিপাড়ার মৃত মফিজ উদ্দীনের ছেলে। পুলিশ জানায়, একদল মাদক ব্যবসায়ী উকতো গ্রামের মধ্যদিয়ে বিপুল পরিমাণ মাদক পাচার করবে এমন সংবাদের ভিত্তিতে চুয়াডাঙ্গা সদর থানার একটি টহল দল ওই এলাকার একটি বাঁশ বাগানে অবস্থান নেয়। রাত দুইটার দিকে ৭/৮ জন মাদক ব্যবসায়ী মাথায় করে বস্তাভর্তি মাদক বহন করছিল। এসময় তাদেরকে চ্যালেঞ্জ করা হলে মাদক ব্যবসীয়রা পুলিশের উপর অতর্কিত  গুলি চালায়। পুলিশও পাল্টা গুলি বর্ষণ করে। চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান জানান, ১৫ মিনিট গুলি বিনিময়ের এক পর্যায়ে মাদক ব্যবসায়ীরা পিছু হটে। এসময় স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় ঘটনাস্থল তল্লাশী চালিয়ে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী রুহুল আমীনকে উদ্ধার করা হয়। পরে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত  ঘোষনা করেন। তিনি আরও জানান, ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ান শুটারগান, দুই রাউন্ড গুলি, দুটি ধারালো হাসুয়া ও এক বস্তা ফেন্সিডিল উদ্ধার হয়েছে। এ সময় মাদক ব্যবসায়দের গুলিতে আহত হয়েছেন পুলিশের উপ-পরিদর্শক একরাম হোসেন, ভবতোষ কুমার ও একজন সদস্য। তারা সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। চুয়াডাঙ্গার পুলিশ সুপার মাহবুবুর রহমান জানান, নিহত রুহুল জেলা পুলিশের তালিকাভুক্ত শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী। তার নামে জেলার বিভিন্ন থানায় ১৬টি মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে মামলা রয়েছে।

বিটিভি চট্টগ্রাম কেন্দ্র দ্বিতীয় স্বাধীন টেলিভিশন কেন্দ্র হবে – তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ তথ্যমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রের সম্প্রচার আগামী ডিসেম্বর নাগাদ ১২ ঘন্টায় উন্নীত করা হবে। গতকাল শনিবার বাংলাদেশ টেলিভিশন (বিটিভি) চট্টগ্রাম কেন্দ্রের অনুষ্ঠান সম্প্রচার ৬ ঘন্টা থেকে ৩ ঘন্টা বাড়িয়ে ৯ ঘণ্টার অনুষ্ঠান সম্প্রচারের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। চট্টগ্রাম কেন্দ্র দেশের দ্বিতীয় জাতীয় স্বাধীন টেলিভিশন কেন্দ্র হিসেবে ক্রমান্বয়ে উন্নীত করা হবে জানিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রকে শুধুমাত্র চট্টগ্রাম ভিত্তিক টেলিভিশন কেন্দ্রে সীমাবদ্ধ রাখা হবেনা। এটা দেশের দ্বিতীয় জাতীয় স্বাধীন টেলিভিশন কেন্দ্র হিসেবে ক্রমান্বয়ে উন্নীত করা হবে। সেই ধারাবাহিকতায় আগামী ডিসেম্বর নাগাদ এটির সম্প্রচার ১২ ঘন্টায় উন্নীত করা হবে। বর্তমানে এটি শুধু ক্যাবল টেলিভিশন হিসেবে সারা দেশে দেখা যায়। পরবর্তীতে এটিকে টেরিস্টেরিয়াল চ্যানেল হিসেবেও উন্নীত করা হবে।’ তথ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রথমবার দেশ পরিচালনার দায়িত্ব পাবার পর ১৯৯৬ সালের ১৯ ডিসেম্বর বাংলাদেশ টেলিভিশন (বিটিভি) চট্টগ্রাম কেন্দ্রের যাত্রা শুরু হয়েছিল। প্রথমে শুধু ১ ঘন্টার অনুষ্ঠান সম্প্রচার হতো। এরপর এই কেন্দ্রের অনুষ্ঠান ৩ ঘন্টায় উন্নীত করা হয়। তিনি বলেন, সে সময় চট্টগ্রাম কেন্দ্র থেকে সম্প্রচার করা অনুষ্ঠান ঢাকা কেন্দ্রে দেখা যেতো না। তারপর চট্টগ্রাম কেন্দ্রকে পূর্ণাঙ্গ কেন্দ্রে রূপান্তর করার জন্য ৪৪ কোটি টাকার একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। সেই ধারাবাহিকতায় ২০১৬ সালে সম্প্রচার ৬ ঘন্টায় উন্নীত করেন প্রধানমন্ত্রী। একইসঙ্গে ক্যাবল নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ক্যাবল টেলিভিশন চ্যানেল হিসেবেও আত্মপ্রকাশ করে। এখন সারাদেশে বিটিভি চট্টগ্রাম কেন্দ্রের অনুষ্ঠান দেখা যায়। আমি নিজেও ঢাকায় বসে এই কেন্দ্রের অনুষ্ঠান দেখি। তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব আবদুল মালেকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, বিটিভি’র মহাপরিচালক এস এম হারুন-অর-রশীদ, আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। বিটিভির অনুষ্ঠান সম্প্রচারে মানের সঙ্গে কোন আপোষ করা হবে না জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, শুধু সম্প্রচার সময় বাড়ালে হবে না, অনুষ্ঠানের মানও বাড়াতে হবে। মান সম্মত নয় এমন অনুষ্ঠান সম্প্রচারের জন্য কেউ পীড়াপীড়ি করবেন না। এ রকম হলে সম্প্রচারের সময় বাড়িয়েও কোনো লাভ হবে না। হাছান মাহমুদ বলেন, দেশের বাকি ৬টি বিভাগীয় শহরে বিটিভির কেন্দ্র স্থাপন করার প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। একনেক ইতোমধ্যে এ প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে। সব মিলিয়ে বিটিভির নেটওয়ার্ককে আমরা এমন জায়গায় উন্নীত করতে চাই- আগে যেভাবে মানুষ ঘরে ঘরে বিটিভি দেখতো, আবার যেনো সেভাবে দেখে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণমাধ্যম বান্ধব উল্লেখ করে তিনি বলেন, ১৯৯৬ সালে সরকার গঠনের পর একুশে টেলিভিশনের মাধ্যমে প্রথম প্রাইভেট টেলিভিশনের যাত্রা শুরু হয়। সেই অভিযাত্রায় বাংলাদেশে এখন ৪৪টি টেলিভিশনের লাইসেন্স দেয়া হয়েছে। তৎমধ্যে ৩২টি সম্প্রচারে আছে। আরো কয়েকটি সম্প্রচারে আসবে। তথ্যমন্ত্রী বলেন, কোলকাতায়ও এত টেলিভিশন চ্যানেল নাই। এক্ষেত্রে আমরা কোলকাতা-পশ্চিমবঙ্গ থেকে এগিয়ে। গত ১০ বছরে পত্রিকা প্রকাশের সংখ্যা ৪০ শতাংশ বেড়েছে। অনলাইন গণমাধ্যমের ব্যাপক বিকাশ ঘটেছে। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ যখন সরকার গঠন করে তখন ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ছিল মাত্র ৪০ লাখ। বর্তমানে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী ৯ কোটি ছাড়িয়ে গেছে। প্রায় ৫ কোটি মানুষ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করেন। তিনি বলে, প্রধানমন্ত্রী আমাকে তথ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দিয়েছেন তিন মাস ১ সপ্তাহ আগে। তিন মাসের মধ্যে প্রকৃতপক্ষে বিটিভি’র চট্টগ্রাম কেন্দ্রকে ৯ ঘন্টায় উন্নীত করার কাজটি করা কঠিন হলেও সকলের সমন্বিত উদ্যোগে আমরা করতে সক্ষম হয়েছি। প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন বিটিভি’র চট্টগ্রাম কেন্দ্রের সম্প্রচার ১২ ঘন্টায় উন্নীত করা হবে এবং পরবর্তীতে এটিকে ২৪ ঘন্টায় উন্নীত করা হবে। সেই ধারাবাহিকতায় ১লা বৈশাখ থেকে ৯ ঘন্টায় উন্নীত করা হয়েছে।

ঝিনাইদহের ২ হাজার বোতল ফেন্সিডিল ৩ জন আটক

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার সামন্তা গ্রাম থেকে ২ হাজার বোতল ফেন্সিডিলসহ ৩ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে ডিবি পুলিশ। শনিবার ভোর রাতে ওই গ্রামের খলিলুর রহমানের বাড়ি থেকে এ বিপুল পরিমাণ ফেন্সিডিল উদ্ধার করা হয়। আটককৃতরা হচ্ছে মহেশপুর উপজেলার কাজিরবেড় গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে  মোহাইমেন (২৫), সামন্তা গ্রামের মিজানুর রহমানের ছেলে তুষার হোসেন (১৬) ও শরীয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলার কুমলিরচর গ্রামের আব্দুল হান্নানের ছেলে সুমন মিয়া (৩০)। তবে পুলিশের অভিযান কালে মাদক ব্যবসায়ী খলিলুর রহমান ও কবির হোসেন পালিয়ে যায়। ঝিনাইদহ পুলিশ সুপার মোঃ হাসানুজ্জামান জানান, মহেশপুর উপজেলার সামন্তা গ্রামের খলিলুর রহমান দীর্ঘদিন যাবৎ মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। পুলিশ গোপন সুত্রে খবর পায় ভারত থেকে আনা বিপুল পরিমাণ ফেন্সিডিল তার বাড়িতে মজুত করা হয়েছে। এ বিপুল পরিমাণ ফেন্সিডিল ট্রাকযোগে ঢাকায় পাঠানো হচ্ছে। এ খবরের ভিত্তিতে ডিবি পুলিশের একটি দল তার বাড়িতে অভিযান চালায়। তার বসতঘরের ভিতর হতে ২ হাজার ফেন্সিডিল উদ্ধার ও তিন জনকে আটক করে। বাড়ির মালিক খলিলুর রহমান ও তার সঙ্গী কবির হোসেন পালিয়ে যায়। এসময় ফেন্সিডিল বহনকারী একটি মিনি ট্রাক জব্দ করা হয়।

সাংবাদিক হাবীব চৌহান ও রনজক রিজভীর পিতা শেখ মোহাঃ সেলিমের তিরোধান দিবস কাল

নিজ সংবাদ ॥ জাতীয় দৈনিক ভোরের কাগজ’র কুমারখালী প্রতিনিধি সাংবাদিক হাবীব চৌহান ও দেশের জনপ্রিয় চ্যানেল এস এ টিভির বার্তা সম্পাদক রনজক রিজভীর বাবা আলহাজ্ব  শেখ মোহা: সেলিমের আগামীকাল সোমবার দ্বিতীয় তিরোধান দিবস। এ উপলক্ষে সোমবার দুপুরে কুষ্টিয়ার কুমারখালীর দুর্গাপুরে নিজ বাসভবনে আলোচনা সভা ও  দোয়া অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়েছে। পাশাপাশি পরিবারের পক্ষ থেকে তাঁর সুহৃদ সতীর্থদের বিশেষভাবে স্মরণ করা হবে। শেখ মোহা: সেলিম এলাকায় একজন সৎজন ও নিষ্ঠাবান ব্যক্তি হিসেবে ব্যাপক পরিচিত। তিনি ব্যক্তি জীবনে ফার্নিচার শিল্পের বিকাশ ও রুচিশীল নির্মাণে উল্লেখযোগ্য ভুমিকা রাখেন। আধুনিক নকশা ও অঙ্কনসহ বৈচিত্র স্থাপনে স্বাধীনতাত্তোর কুমারখালীতে ব্যাপক সুনাম ও পরিচিতিও লাভ করেন তিনি। অবশ্য, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠজন, বরেণ্য রাজনৈতিক, সাবেক সংসদ সদস্য শহীদ  গোলাম কিবরিয়ার সহচার্যে অল্পদিনেই তাঁর এই খ্যাতি এনে  দেয়। শেখ মোহা: সেলিম ভারতের পশ্চিমবঙ্গের হুগলী  জেলার রাজহাটের ভাটুয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৬৫ সালে তিনি বাংলাদেশে আসেন। প্রথমে খুলনা, এরপর কুষ্টিয়া এবং পরে কুমারখালীতে স্থায়ী হন। এক পর্যায়ে বিয়ে করে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন এখানে। বর্ণাঢ্য জীবনের  শেষ ভাগে ২০১৭ সালের ১৪ এপ্রিল নিজ বাসভবনে হৃদরোগে আক্রান্ত হন তিনি। আর ১৫ এপ্রিল উন্নত চিকিৎসার জন্য কুষ্টিয়া থেকে ঢাকা নেয়ার পথে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন রুচিশীল ব্যক্তিত্ব শেখ মোহা: সেলিম।

হারুন সভাপতি ॥ রিন্টু সাধারণ সম্পাদক

কুমারখালী উপজেলা যুবলীগের কমিটি অনুমোদন

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ দীর্ঘ একযুগ পর নতুন কমিটির অনুমোদন পেয়েছে কুমারখালী উপজেলা যুবলীগ। সাবেক ছাত্রনেতা, কুমারখালী পৌরসভার প্যানেল মেয়র হারুন-অর রশিদকে সভাপতি এবং মনির হাসান রিন্টুকে সাধারণ সম্পাদক করে পূর্ণাঙ্গ কমিটির অনুমোদন দেয় কুষ্টিয়া জেলা কমিটি। কুষ্টিয়া জেলা যুবলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল ইসলাম স্বপন স্বাক্ষরিক ওই কমিটির অন্য সম্পাদক মন্ডলির সদস্যরা হলেন সহ-সভাপতি এসএম রফিক, যুগ্ম-সম্পাদক মনছুরুজ্জামান তুহিন, সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল বাশার শাহীন। পরবর্তিতে পূর্ণাঙ্গ কমিটির তালিকা প্রকাশ করা হবে। কুষ্টিয়া জেলা যুবলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল ইসলাম স্বপন জানান আমাদের স্বাক্ষরিত কমিটি ইতোমধ্যে অনুমোদন করা হয়েছে। তিন বছর মেয়াদী এই কমিটি দলীয় কর্মকান্ড যথাযথভাবে পালন করবে বলে জেলা যুবলীগ আশা করে। এ বিষয়ে কুমারখালী উপজেলা কমিটির নতুন সভাপতি হারুন-অর রশিদ বলেন দীর্ঘদিন পর নতুন কমিটি অনুমোদন দেয়ায় জেলা যুবলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ সকলকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানায়। বিশেষ করে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অন্যতম কান্ডারী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ ও কুষ্টিয়া-৪ (কুমারখালী-খোকসা) আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ’র প্রতি আস্থা রেখে শিল্প ও সংস্কৃতিতে সমৃদ্ধ  কুমারখালীর রাজনীতিকে আরো এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

নুসরাত হত্যার প্রতিবাদে কুমারখালিতে মানববন্ধন কর্মসূচি

কুমারখালি অফিস ॥ কুষ্টিয়ার কুমারখালিতে নিজেরা করি ও ভূমিহীন সমিতির উদ্যোগে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসা শিক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফির শ¬ীলতাহানী ও পুড়িয়ে হত্যার প্রতিবাদে গতকাল শনিবার কুমারখালি বাসস্ট্যান্ডে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধা এটিএম আবুল মনসুর মজনু, মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান জোয়ারদার, মুক্তিযোদ্ধা চাঁদআলী, নারী নেত্রী মমতাজ বেগম, নারী নেত্রী হোসনেয়ারা রুবি, নারী নেত্রী রওশন আরা, কুমারখালি উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান মেরিনা আক্তার মিনা, নিজেরা করির অঞ্চল সমন্বয়ক কামাল হোসেন, ভুমিহীন নেতা শাহিদা বেগম, আবদুর রহিম, রাজিয়া বেগম সহ অনেকে।

নুসরাত হত্যার বিচার দাবিতে ইবিতে মানববন্ধন

ইবি প্রতিনিধি ॥ মাদরাসা ছাত্রী নুসরাত জাহানকে পুড়িয়ে হত্যার বিচার ও জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়ে মানববন্ধন করেছে কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ^বিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। শনিবার বেলা ১১টায় বিশ^বিদ্যালয়ের মৃত্যুঞ্জয়ী মুজিবের পাদদেশে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বিশ^বিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ও নারী নির্যাতন প্রতিরোধ সেলের আহ্ববায়ক প্রফেসর ড. নাসিম বানু, সাবেক প্রক্টর প্রফেসর ড. মাহবুবর রহমান, ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আনিছুর রহমান, সহকারী প্রক্টর নাসির উদ্দীন, শাখা ছাত্রলীগের সাবেক উপ-মানব বিষয়ক সম্পাদক মো: মেরাজ হোসাইন ও বাংলা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী এনামুল হক। এদিকে বিশ^বিদালয় শাখা ছাত্রমৈত্রী নুসরাত হত্যার বিচার দাবিতে জড়িত ব্যক্তিদের ফাঁসি দাবি করে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করে।

ইবিতে পহেলা বৈশাখ  উপলক্ষে তিন দিনের কর্মসূচী

কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে পহেলা বৈশাখ ১৪২৬ উপলক্ষে আজ রবিবার সকাল সাড়ে ৯টায় প্রশাসন ভবনের সামনের চত্বর হতে শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী, ছাত্র-ছাত্রী, বিভিন্ন হল, বিভাগ, অফিস, বিভিন্ন সমিতি, পরিষদ/ফোরাম এবং সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের স¦-স¦ ব্যানারসহ অংশগ্রহণে এক বর্ণাঢ্য “মঙ্গল শোভাযাত্রা” অনুষ্ঠিত হবে। শোভাযাত্রায় নেতৃত্ব দেবেন ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী। উপস্থিত থাকবেন প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান, ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা ও ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এস,এম, আব্দুল লতিফ,  বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভাগীয় সভাপতি, প্রভোস্ট, প্রক্টর, ছাত্র-উপদেষ্টা ও অফিস প্রধানবৃন্দ। মঙ্গল শোভাযাত্রাটি ক্যাম্পাসের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে সাং¯কৃতিক অনুষ্ঠানস্থলে সমাবেত হবে। মঙ্গল শোভাযাত্রা শেষে সাং¯কৃতিক অনুষ্ঠান ও তিন দিনব্যাপী বৈশাখী মেলার উদ্বোধন করা হবে।  উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান ও ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা এবং সন্মানিত অতিথি থাকবেন ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এস এম আব্দুল লতিফ। তিন দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করবেন পহেলা বৈশাখ ১৪২৬ উদ্যাপন কমিটির আহবায়ক প্রফেসর ড. মোঃ রেজওয়ানুল ইসলাম। উদ্বোধন শেষে সাংস্কতিক অনুষ্ঠানের প্রথম পর্ব  দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত এবং দ্বিতীয় পর্ব দুপুর  ৩ টা হতে রাত ৮টা পর্যন্ত  চলবে। পহেলা বৈশাখ কেন্দ্রীয় অনুষ্ঠান চলাকালে কোন বিভাগ, হল ও সাংস্কৃতিক সংগঠনকে অনুষ্ঠান না করার জন্য বলা হলো। উলে¬খ্য যে, পহেলা বৈশাখ-১৪২৬ উপলক্ষে বৈশাখী মেলা ১৪ এপ্রিল হতে ১৬ এপ্রিল পর্যন্ত ৩ দিন, প্রতিদিন সকাল ১০ টা হতে রাত ৮ টা পর্যন্ত চলবে। ১৪, ১৫ও ১৬ এপ্রিলের অনুষ্ঠান ভারতীয় জনপ্রিয় সংগীত শিল্পী, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হল, বিভাগ এবং সাংস্কৃতিক সংগঠনের আয়োজনে দুপুর ৩টা হতে রাত ৮টা পর্যন্ত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

কুষ্টিয়ায় নুসরাত হত্যা ও মুন্নীকে আত্মহত্যা প্ররোচনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ায় মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে নৃশংস হত্যাকান্ড ও চাঁদনী আক্তার মুন্নীকে আত্মহত্যা প্ররোচনার তীব্র নিন্দা প্রতিবাদ ও জড়িত সকল অপরাধীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানব বন্ধন করেছে সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন কুষ্টিয়া জেলা শাখা। গতকাল শনিবার বেলা ১১টায় শহরের থানামোড়স্থ বক চত্বরে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ ও মানববন্ধন কর্মসূচীতে জেলার বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ছাত্র সংগঠন, শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকবৃন্দ সংহতি জানিয়ে অংশ গ্রহন করেন। সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন কুষ্টিয়া  জেলার সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে এই প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা বলেন, একের পর এক নারী, শিশু ও শিক্ষার্থীদের ধর্ষণ, যৌন নির্যাতন, উত্যেক্তকরন ও হত্যাকান্ডের মতো সহিংসতার ঘটে চলেছে। এসব ঘটনায় ভুক্তভোগীদের ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠায় অর্পিত দায়িত্ব পালনে সংশ্লিষ্ট আইন প্রয়োগকারী সংস্থার অবহেলা ও নির্লিপ্ত ভূমিকার কারণে ব্যহত হচ্ছে; যার আরও একটি নির্মম চিত্র ফুটে উঠেছে নুসরাত জাহান রাফি হত্যাকান্ডের পূর্ব ও পরবর্তী ঘটনার মধ্যদিয়ে। এসব সহিংসতায় জড়িতদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিতের মধ্যদিয়ে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব। এসময় নেতৃবৃন্দ কুষ্টিয়া মিরপুর উপজেলার কাতলামারি কেবিএইচ হাইস্কুলের ৯ম শ্রেনীর ছাত্রী চাঁদনী আক্তার মুন্নীকে যেসব বখাটেরা দীর্ঘ দুই বছর ধরে উত্যেক্ত ও যৌন হয়রানি করে আত্মহুতি দিতে বাধ্য করেছে সেই সব বখাটেদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি নিশ্চিতে যথাযথ তদন্ত করতে হবে পুলিশকে। এছাড়া আত্মহত্যা প্ররোচনার অভিযোগে মিরপুর থানায় করা মামলা তুলে নেয়ার চাপ সৃষ্টিতে যারা মুন্নীর বাড়িতে এবং পরিবার পরিজনের উপর হামলা করেছে তাদেরও আইনের আওতায় এনে বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করাতে হবে। বক্তারা এসময় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের যৌন হয়রানি ও নির্যাতন বন্ধে জেলার সংশ্লিষ্ট শিক্ষা কর্মকর্তাদের দৃষ্টি আকর্ষন করে বলেন, গড্ডালিকায় গা না ভাসিয়ে অথবা পুলিশের মতো নির্লিপ্ত না থেকে যে কোন বিদ্যালয় বা কলেজে অধ্যায়নরত কোমলমতি কোন মেয়ে শিক্ষার্থী যৌন হয়রানি ও নির্যাতনের শিকার হয়েছে এমন সংবাদ পাওয়া মাত্র তাৎক্ষনিক প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণে উদ্যেগী হতে হবে। প্রয়োজনে বিভাগীয় হস্তক্ষেপের মাধ্যমে দোষী ব্যক্তির শাস্তি ও ভুক্তভোগীর বিচার পাওয়া নিশ্চিত করতে হবে। বক্তব্য রাখেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শিক্ষক নেতা সাহাবুব আলী, কমরেড রফিকুল ইসলাম, অধ্যাপক নাসির উদ্দিন, সিপিবি সভাপতি ওয়াকিল মুজাহিদ, ওয়ার্কার্স পার্টি নেতা কমরেড হাফিজ সরকার, জাসদ নেতা কারশেদ আলম, সমাজকর্মী সৈয়দা হাবিবা, লেখক ও কবি বিলু কবির, কবি হাসান টুটুল, সাংস্কৃতিক সংগঠক কনক চৌধুরী, আওয়ামী লীগ নেতা রবিন্দ্রনাথ সেন, ফেয়ার পরিচালক আক্তারুজ্জামান, লেখক ও শিল্পী আলম আরা জুঁই, বীর মুক্তিযোদ্ধা মঞ্জুরুর আলম, ছাত্রনেতা লাবনী সুলতানা, প্রথম আলো কুষ্টিয়া প্রতিনিধি তৌহিদ হাসান শিপলু, চ্যানেল-২৪ কুষ্টিয়ার স্টাফ রিপোর্টার শরীফ বিশ^াস, মানবাধিকার কর্মী ও বাংলাভিশন কুষ্টিয়া প্রতিনিধি হাসান আলী প্রমুখ।

ঝিনাইদহে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় শিশুসহ নিহত ২

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহে পৃথক দুটি সড়ক দুর্ঘটনায় অনিক হোসেন (৮) নামের এক স্কুল ছাত্রসহ ২ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরো ২ জন। শনিবার সকালে শৈলকুপা উপজেলার কাতলাগাড়ী বাজারে বালু বোঝাই ট্রাক চাপায় অনিক নিহত হয় এবং খড়িখালি দাসপাড়া নামকস্থানে সবজি বাঝায় পিকআপ উল্টে আনিচুর রহমান নামের একজন নিহত হয়। শৈলকুপা ফায়ার স্টেশনের অফিসার আক্কাস আলী জানান, শনিবার সকালে কৃত্তিনগর গ্রামের লিটন মন্ডলের ছেলে তৃতীয় শ্রেণীতে পড়–য়া ছাত্র অনিক বাই সাইকেল যোগে কাতলাগাড়ি বাজার থেকে বাড়ি ফিরছিলো। এসময় বিপরীত দিক থেকে আসা বালুবাহী একটি ট্রাক তাকে চাপা দেয়। এ ঘটনাস্থলেই অনিক মারা যায়, আহত হয় তার সাথে থাকা অপরছাত্র রিমন। এ ঘটনায় বিক্ষুদ্ধ জনতা বালুবাহী দুটি ট্রাকে আগুন লাগিয়ে পুড়িয়ে দেয়। খবর পেয়ে শৈলকুপা ফায়ার সার্ভিসের ১টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। পরে শৈলকুপা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। নিহত অনিক কাতলাগাড়ী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেনীর ছাত্র। অপরদিকে ঝিনাইদহ ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার আব্দুর রউফ মোল্লা জানান, সকালে ঝিনাইদহ-কালীগঞ্জ সড়কের খড়িখালী দাসপাড়া নামকস্থানে সবজি বোঝায় পিকআপ ভ্যান উল্টে বাঘার পাড়া উপজেলার দহখোল গ্রামের আনিচুর রহমান নামের একজন নিহত হয়। এ সময় সোহরাব হোসেন নামের আরেকজন আহত হয়।

কুষ্টিয়া পৌরসভার ১৫০ বছর পূর্তির আলোচনায় সুলতানা আফরোজ

মানব বর্জ্যব্যবস্থাপনায় দেশে ও বিদেশে সুনাম অর্জন করেছে কুষ্টিয়া পৌরসভা

অতিরিক্ত সচিব সুলতানা আফরোজ বলেছেন, এই জেলার মাটি ও মানুষের সাথে আমার গভীর সম্পর্ক রয়েছে। তাইতো প্রাণের টানে ফিরে আসি কুষ্টিয়াতে। কুষ্টিয়ার মেয়ে হিসেবে আমি গর্ভবোধ করি। কুষ্টিয়া পৌরসভার মেয়র মহোদয় আমার নিকট আতœীয়। শৈশব থেকেই মেয়র আনোয়ার আলী ও এই পৌরসভাকে আমি দেখে আসছি। তিনি বলেন, পৌরসভার ১২৫ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে আমার বাবাকে সম্মানীত করা হয়েছিল, আমি তখন বাবা সাথে ঐ অনুষ্ঠানে এসেছিলাম। তিনি আরো বলেন, আলোকিত সমাজ গড়ার লক্ষ্যে মেয়র আনোয়ার আলী শিক্ষাবৃত্তি প্রদান করে থাকেন। তাছাড়া পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ও গোছালো শহর উপহার দিয়েছে  পৌরবাসীকে। আজ কুষ্টিয়া পৌরসভা দেশের মডেল পৌরসভা হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। মানব বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় দেশে ও বিদেশে সুনাম অর্জন করেছে। আর এই সবকিছুর পেছনে যার কৃতিত্ব তিনি কুষ্টিয়া পৌরসভার জননন্দিত মেয়র আনোয়ার আলী। তিনি আরোও বলেন, কুষ্টিয়া পৌরসভা খুব শিঘ্রই সিটি করপোরেশন ঘোষনা হবে বলে আমি আশা করি। কুষ্টিয়া পৌরসভার ১৫০ বছর উদযাপন উপলক্ষ্যে ১৩তম দিনের আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় অর্থ মন্ত্রণালয়ের, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সুলতানা আফরোজ এসব কথা বলেন। কুষ্টিয়া পৌরসভার মেয়র আনোয়ার আলীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মুসতানজীদ। আলোচনা করেন কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ^বিদ্যালয়ের সাবেক ট্রেজারার ড. আনোয়ারুল করিম এবং বিশিষ্ট কবি ও গবেষক বিলু কবির। সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন  কুষ্টিয়া পৌরসভার কাউন্সিলর হেলাল উদ্দিন। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে অধ্যাপক ডা. মুসতানজীদ বলেন, কুষ্টিয়া পৌরসভা ও আনোয়ার আলী এক অবিচ্ছেদ্দ নাম। শুধু বাংলাদেশেই নয় পৃথিবী অনেক জায়গা এই কুষ্টিয়া নাম লেখা আছে। অনেক সমাজ সেবীর জন্ম এই কুষ্টিয়াতে। আমাকে সম্মানিত করার কুষ্টিয়া পৌরসভার মেয়র ও পৌরসভার সকলের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। আলোচনা সভায় আলোচক ড. আনোয়ারুল করিম বলেন, স্বাধীনতা সূর্যদয় হয়েছিল এই কুষ্টিয়াতে। প্রায় ৬৮ বছর ধরে কুষ্টিয়া ও কুষ্টিয়া পৌরসভাকে দেখে আসছি। আনোয়ার আলী আমার অত্যান্ত স্নেহের। তিনি বলেন, মেয়র একজন সৃষ্টিশীল মানুষ। চার বার চেয়ারম্যান, মেয়র নির্বাচিত হয়েছে। একটি জেলাকে উন্নত করতে হলে রাজনৈতিক ব্যাক্তি ও সচেতন মানুষের সমন্যয় প্রয়োজন। কুষ্টিয়া পৌরসভার মেয়র এই কাজটি করে চলেছে। তিনি আরোও বলেন, মেয়র আনোয়ার আলী আমাদেরকে স্বপ্ন দেখাচ্ছে ও ক্রমপর্যায়ে তার বাস্তবায়ন করছে। সভাপতির বক্তৃতায় মেয়র আনোয়ার আলী বলেন, পৌরসভার ১৩ দিন আলোচনা সভায় অনেক জ্ঞানী, গুনী ও রাজনৈতিক ব্যক্তিদের আমন্ত্রন করেছিলাম। অংশগ্রহনকারী অতিথীদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। মেয়র আরো বলেন, অতিথীবৃন্দ প্রতিদিন গুরুত্বপূর্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছেন ও বিভিন্ন তথ্য প্রদান করেছেন। যা আপনাদের অনেকের জানা ও অজানা ছিল। বিশেষ করে আমাদের তরুন প্রজন্মকে মানবিক মূল্যবোধ সৃষ্টির জন্য আমাদের এই আয়োজন। কারন আগামীতে তরুন প্রজন্মকেই কুষ্টিয়া পৌরসভা সহ বাংলাদেশের পরিচালনা দায়িক্ত বহন করতে হবে। আলোচনা শেষে ভারতীয় শিল্পি ও ইন্ডিয়ান আইডলদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গানে গানে মাতিয়ে তোলেন দর্শকদের। অনুষ্ঠান সঞ্চলনা করেন শহর পরিকল্পনাবিদ রানভীর আহমেদ এবং উপ-সহকারী প্রকৌশলী সাবিনা ইসলাম। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

কুষ্টিয়া কেন্দ্রীয় ঈদগাহ কমিটির ত্রি-বার্ষিক সাধারন সভা অনুষ্ঠিত

কুষ্টিয়া কেন্দ্রীয় ঈদগাহ কমিটির ত্রি-বার্ষিক সাধারন সভা গতকাল শনিবার বেলা ১১টায় কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। সভাপতিত্ব করেন ঈদগাহ কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেন। সভার শুরুতে ঈদগাহ কমিটির সহ সভাপতি মরহুম এম এ শামীম আরজু, আজীবন সদস্য মরহুম অধ্যক্ষ মাওঃ নাজমূস সালেহীন, এ্যাডভোকেট মুন্সি ওয়াহিদুর রহমানসহ যারা মৃত্যুবরণ করেছেন তাদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া মোনাজাত করেন ঈদগাহের খতিব মাওঃ আব্দুল হালিম শরিফ। বার্ষিক রিপোর্ট ও বাজেট পেশ করেন সাধারণ সম্পাদক হাজী আনোয়ারুল ইসলাম। নতুন ঈদগাহ কমিটির নাম ঘোষনা করেন নির্বাচন কমিশনার মোঃ শামসুল হক। নতুন কমিটির সহ সভাপতি হলেন হাজি আব্দুর রশিদ, হাজি মোকারম হোসেন মোয়াজ্জেম, সাধারণ সম্পাদক হাজি আনোয়ারুল ইসলাম, যুগ্ন সম্পাদক হাজি গোলাম মহসিন, রেজাউল হক বাবর, অর্থ সম্পাদক হাফিজুল ইসলাম, দপ্তর সম্পাদক সেলিম আহমেদ, প্রচার সম্পাদক সোহানূর রহমান, নির্বাহী সদস্য হলেন মাওঃ আব্দুল আউয়াল, মোঃ মতিয়ার রহমান, মকলেসুর রহমান বাবলু, আব্দুল মান্নান খান, হাজি মালেক রানা, আমির বাদশা, ইব্রাহিম খলিল। জেলা প্রশাসক তার বক্তব্যে বলেন যে, আমি আশা করি যে, নতুন কমিটির নেতৃত্বে কুষ্টিয়ার প্রধান ঈদগাহর আরো উন্নয়ন সাধিত হবে। সকলকে এ জন্য এক যোগে কাজ করতে হবে। আরো নতুন সদস্য বৃদ্ধি করতে হবে। ঈদগাহর অবশিষ্ট কাজ আরো দ্রুত সমাপ্ত করতে হবে।  সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

ইবিতে দ্বিতীয় দিনের ৪র্থ আন্তর্জাতিক ফোকলোর সম্মেলন অনুষ্ঠিত 

কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের টি এস.সি.সি’র বীরশ্রেষ্ট হামিদুর রহমান মিলনায়তনে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফোকলোর বিভাগ, ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসন, ঝিনাইদহ পৌরসভা, লৌকিক কলকাতা ও বাংলাদেশ ফোকলোর রিসার্চ সেন্টার, রাজশাহী ব্শ্বিবিদ্যালয়ের উদ্যোগে শনিবার ৪র্থ আন্তর্জাতিক ফোকলোর সম্মেলন-২০১৯ অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফোকলোর বিভাগের সভাপতি প্রফেসর ড. মোহাঃ সাইদুর রহমানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী বলেন, সারা বিশ্বে ২০৫ মিলিয়ন বাঙালী আছে তাদের প্রাণের সংস্কৃতি বাঙালী সংস্কৃতি। বাংলাদেশে ও রয়েছে ৪০-৫০ টি জাতিসত্বা যারা সকলে মিলে রাষ্ট্র বির্নিমান করছে। তিনি বলেন, বিশ্ব এখন হুমকির মুখোমুখি প্রতিদিনই কোন না কোন দেশে জঙ্গীবাদী হামলার সম্মুখিন হচ্ছে। এতে করে ব্যাপক প্রাণহানি ঘটছে। আমরা ৯/১১ দেখেছি তথাকথিত জিহাদী জঙ্গীবাদের উত্থান দেখেছি। অন্যদিকে আই.এস.এস মোকাবেলার নামে বিশ্বব্যাপী ইসলাম ফোবিয়া সৃষ্টি করা হচ্ছে। তাই চুড়ান্তভাবে আমরা শান্তি প্রতিষ্টার জন্য কাজ করবো এজন্য পরমত ও পরধর্ম সহিষ্ণু হতে হবে। তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল ও চৌকস নেতৃত্বে ডিজিটাল বাংলাদেশ আজ সকল প্রতিকুলতার বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে একের পর এক সাফল্য ছিনিয়ে আনছে। অচিরেই ভিশন ২০-২১ এবং রূপকল্প-২০৪১ বাস্তবায়িত হলে দেশ উন্নত দেশের কাতারে পৌছে যাবে। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন বলেন, শিক্ষা মানুষকে উদার করে এবং মানুষের জানবার দিগন্তকে প্রসারিত করে। পাশাপাশি মানুষকে আলোকিত করে। তিনি বলেন, একটি ভালো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষার গুনগত মান নিশ্চিত করতে পারেন এর উজ্জল উদাহরন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় এবং বর্তমান বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী। অপর বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এ.এইচ. এম মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, আমাদের অরিজিন কি তা বের করে নিয়ে আসে ফোকলোর। তাই জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকলকে মানুষ হিসাবে ভালোবাসতে হবে। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান বলেন, একজন ফোকলোরিস্ট সব থেকে বেশি মানবতাবাদী। তাই ফোকলোর বিভাগের শিক্ষার্থী হওয়া গর্বের বিষয়। মহাবিশ্বের এমন কিছু নাই যা ফোকলোর সাথে যায় না, সব কিছুই ফোকলোর এর সাথে সম্পর্কিত। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আমরা নতুন দেশ ও নতুন পতাকা পেয়েছিলাম। তিনি অসাম্প্রদায়িক ধারার বাংলাদেশ সৃষ্টি করতে চেয়েছিলেন। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা বলেন,বাংলার জনজাতি ও সংস্কৃতি প্রথম চিনেছেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তাই দেশ স্বাধীন হবার পর পরই তিনি উপলব্ধি করেছিলেন দেশের জন্য জরুরীভাবে সংবিধান প্রনয়ন করতে হবে। যেখানে রাষ্ট্র পরিচালনার মুলনীতি ও সংস্কৃতি রক্ষার কথা বলা হয়েছে। পাশাপাশি কিভাব পশ্চাদপদ জনগোষ্টিকে অগ্রসর করে দেশের উন্নয়নের মুল স্রোতে আনতে হবে তা আমাদের সংবিধানে উল্লেখ করা হয়েছে। তিনি মোবাইল ও আকাশ সংস্কৃতির যুগে পারিবারিক ও সামাজিক মুল্যাবোধ যেন ধ্বংস না হয় সেজন্য ফোকলোর চর্চা এর মাধ্যমে আমাদের ইতিহাস, মুল্যবোধকে আরো সমৃদ্ধ করবার জন্য উপস্থিত সকলের প্রতি আহবান জানান। এছাড়া অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ঝিনাইদহ পৌরসভার শেয়র সাইদুল করিম মিন্টু, আমেরিকার নিউ মেক্সিকো বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ও ইতিহাস বিভাগের শিক্ষক ডেমন জোসেফ মন্টিক্লার, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের শিক্ষক প্রফেসর সনৎ কুমার নস্কর ও ভারতের ডায়মন্ড হারবার উইমেন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের ডিন প্রফেসর তপন মন্ডল প্রমুখ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ফোকলোর বিভাগের শিক্ষক ড. মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান। ৪র্থ আন্তর্জাতিক ফোকলোর সম্মেলন-২০১৯ এ মুখ্য আলোচকের বক্তব্য রাখেন কলকাতার রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর এমিরেটস  বরুন কুমার চক্রবর্তী। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভাগীয় সভাপতি, বিভিন্ন হলের প্রভোস্ট, প্রক্টর, ছাত্র-উপদেষ্টা ও শিক্ষক, কর্মকর্তা ও ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

 

দৌলতপুরে বর্ষ বরণের প্রস্তুতি সম্পন্ন  

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে উৎসবের আমেজে ১লা বৈশাখ বাংলা নববর্ষ ১৪২৬ বঙ্গাব্দকে বরণের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। দৌলতপুর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে সকাল ৭টায় ইলিশ বর্জিত পান্তা উৎসব। সাড়ে ৭টায় মঙ্গল শোভাযাত্রা, ৮টায় উপজেলা পরিষদ চত্বরের বৈশাখী মঞ্চে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এরপর গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য হা-ডু-ডু খেলা এবং হাড়ি ভাঙ্গা প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। এসকল অনুষ্ঠানে কুষ্টিয়া-১ দৌলতপুর আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড. আ. কা. ম সরওয়ার জাহান বাদশাহ্ উপস্থিত থাকবেন বলে বর্ষবরণ উদ্যাপন কমিটির সভাপতি ও দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তার জানিয়েছেন। এদিকে দৌলতপুর কলেজ বর্নাঢ্য আয়োজনে বাংলা নববর্ষকে বরণ করবে। এরমধ্যে মঙ্গল শোভাযাত্রা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও দই-চিড়া দিয়ে অতিথি আপ্যায়ন করা হবে বলে জানিয়েছেন দৌলতপুর কলেজের অধ্যক্ষ মো. ছাদিকুজ্জামান খান। এছাড়াও নানা আয়োজনে উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন সংগঠন বাংলা নববর্ষ ১৪২৬ বঙ্গাব্দকে বরণ করবে।

মিরপুর উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের সংবর্ধনা

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত  চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে। শনিবার (১৩ এপ্রিল) মিরপুর মিনি রিসোর্ট এন্ড পার্কে উপজেলা কিন্ডারগার্টেন এ্যসোসিয়েশনের আয়োজনে এই সংবর্ধনা দেওয়া হয়।  উপজেলা কিন্ডার গার্টেন এ্যসোসিয়েশনের সভাপতি মোস্তফার সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন দ্বিতীয় বারের মতো নির্বাচিত মিরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন নব নির্বাচিত উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আবুল কাশেম জোয়াদ্দার ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যন মর্জিনা খাতুন প্রমুখ। পরে উপজেলার নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের হাতে  ক্রেস্ট তুলে দেয়া হয়। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন সংগঠনটির  সেক্রেটারী রহিদুল ইসলাম, সহ-সেক্রেটারী মজিবুল হক ও নির্বাহী সদস্য রফিকুল ইসলাম। অনুষ্ঠানের শেষে মিরপুর উপজেলা কিন্ডারগার্টেন এ্যাসোসিয়েশনের ১১ সদস্য বিশিষ্ট দুই বছর মেয়াদে কমিটি গঠন করা হয়।