এবার যাকে মন দিতে চলেছেন শ্রাবন্তী!

বিনোদন বাজার ॥ বিতর্কিত অ্যাপ টিকটক ছাড়া টালিউড অভিনেত্রী শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়ের চলে না একদিনও।সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ সক্রিয় এই টালি সেলিব্রেটি। ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, টুইটারে ব্যক্তিগত ও পেশাগত নানা ছবি, ভিডিও শেয়ার করার পাশাপাশি টিকটক ভিডিও প্রকাশ করে থাকেন এই অভিনেত্রী।আর তা দেখতে হুমড়ি খেয়ে পড়ে ভক্ত-অনুরাগীরা। যদিও এসব টিকটক ভিডিও মজার ছলে তৈরি করেন বলে জানিয়েছেন তিনি। সম্প্রতি তার একটি টিকটক ভিডিও বেশ ভাইরাল। ভাইরাল হওয়ার আগুনে ঘি ঢেলেছে টিকটকে ঠোঁট আওড়ানো একটি বক্তব্য।ভক্তরা বলছেন, টিকটক দিয়ে মনের ভাব জানিয়ে দিয়েছেন তিনি।ওই টিকটকে দেখা গেছে, শ্রাবন্তী বলছেন- বন্ধুত্ব ধীরে ধীরে বদলে যাচ্ছে প্রেমে। তাতে একেবারেই আপত্তি নেই তার।এমন ভিডিওর পালে হাওয়া দিয়েছে আরেকটি গুঞ্জন। টালিপাড়ায় গুঞ্জন- ব্যক্তিগতজীবনে তৃতীয়বারের মতো প্রেমে পড়েছেন শ্রাবন্তী।জানা গেছে, রোশন সিং মন্টি নামের এক পাঞ্জাব নাগারিকের সঙ্গে বেশ সখ্যতা গড়ে উঠেছে তার।গত চার মাস ধরেই ওই ব্যক্তির সঙ্গে ঘুরে বেড়াচ্ছেন শ্রাবন্তী। বর্তমানে কলকাতাতেই নিবাস এই মন্টির। ছেলে ঝিনুককে নিয়ে মন্টির বাড়িতে ইতিমধ্যে গেছেন শ্রাবন্তী। মন্টিকে বেশ কিছু পার্টিতে শ্রাবন্তীর সঙ্গে দেখা গেছে। ঝিনুকও রোশনকে পছন্দ করতে শুরু করেছে।এ বিষয়ে শ্রাবন্তী জানিয়েছেন, মন্টি তার নতুন বন্ধু। একটি বিমান সংস্থার কেবিন ক্রু মন্টি।

শ্রাবন্তীর মুখে বন্ধুত্বের কথা শুনলেও টালিউডপাড়ার অনেকেই বলছেন, সম্প্রতি মন্টির সঙ্গে শ্রাবন্তীর বন্ধুত্ব অন্যদিকে মোড় নিচ্ছে।তবে বিষয়টিকে একেবারেই উড়িয়ে দিয়েছেন শ্রাবন্তী। ওই টিকটক ভিডিওর সঙ্গে ব্যক্তিগতজীবনের কোনো সম্পর্ক নেই বলে জানিয়েছেন।গুঞ্জন তাতেও থেমে নেই। শ্রাবন্তীর ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে জানা গেছে, রোশন সিংয়ের সঙ্গে সম্পর্কটা ভেবেচিন্তেই এগিয়ে নিতে চান শ্রাবন্তী। বিষয়টি এখনই প্রকাশ্যে আনতে চাইছেন না তারা।প্রসঙ্গত দীর্ঘ ১৩ বছর সংসার জীবনের পর ২০০৩ সালে টালি সিনেমার পরিচালক রাজীব বিশ্বাসের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদ ঘটে শ্রাবন্তীর। এর পর গত বছর ১০ জুলাই কৃষ্ণ ভিরাজের সঙ্গে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন তিনি। বিয়ের তিন মাস যেতে না যেতেই সে সম্পর্কও বিচ্ছেদে রূপ নেয়।

মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত রাফী হত্যার প্রতিবাদে কুষ্টিয়ায় বিক্ষোভ মিছিল

ফেনীর সোনাগাজী ইসলামীয়া ফাজিল মাদরাসা ছাত্রী আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে আগুনে পুরিয়ে হত্যার প্রতিবাদ ও হত্যাকারীদের বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ হয়েছে কুষ্টিয়ায়। বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্র মজলিস কুষ্টিয়া শহর শাখার উদ্যোগে শুক্রবার বাদ জুম্মা থানাপাড়া ৬ রাস্তার মোড় জামে মসজিদ থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি বের হয়ে চাদ মুহাম্মাদ সড়ক প্রদক্ষিন করে দলীয় কার্যালয়ে শেষ হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রিয় প্রশিক্ষন ও বাইতুল মাল সম্পাদক মনির হুসাইন, কেন্দ্রিয় প্রতিনিধি সদস্য ও ইবি শাখার সভাপতি রায়হান আলী, কুষ্টিয়া জোনের সহকারী তত্বাবধায়ক শরীফুল ইসলাম, জেলা শাখার সেক্রেটারী মশিউর রহমান, ইবি শাখার সেক্রেটারী মাহমুদ হাসান, শহর শাখার সেক্রেটারী মনোনিত হয়েছেন শরীফুল ইসলাম, জেলা শাখার বায়তুল মাল সম্পাদক মনিরুল ইসলাম, শহর শাখার বায়তুল মাল সম্পাদক হাসিবুল ইসলাম প্রমুখ। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

 ভারতে নির্বাচন

ভোটকেন্দ্রে ইভিএম ভাঙচুর, সংঘর্ষ-সহিংসতা

ঢাকা অফিস ॥ ভারতে সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরুর দিনই বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রে ইভিএম ভাঙচুর, সংঘর্ষ, প্রার্থীর ওপর হামলা এবং সহিংসতায় প্রাণহানিসহ নানা অপ্রীতিকর ঘটনায় পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়েছে। নানামুখী অভিযোগের মাঝেই চলেছে ভোটগ্রহণ। পশ্চিমবঙ্গের দিনহাটায় চার ঘন্টাতেই নির্বাচন কমিশনে ৪৬২ টি অভিযোগ এসেছে বলে জানিয়েছে ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকা। বৃহস্পতিবার প্রথম দফায় ২০টি রাজ্যের ৯১টি আসনে ভোটগ্রহণ করা হয়েছে। রাজ্যগুলো হচ্ছে অন্ধ্রপ্রদেশ, অরুণাচল প্রদেশ, আসাম, বিহার, ছত্তিশগড়, জম্মু ও কাশ্মীর, মহারাষ্ট্র, মনিপুর, মেঘালয়, মিজোরাম, নাগাল্যান্ড, ওড়িশা, সিকিম, তেলেঙ্গানা, ত্রিপুরা, উত্তর প্রদেশ, উত্তরাখন্ড, পশ্চিমবঙ্গ, আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ এবং লক্ষদ্বীপ। পশ্চিমবঙ্গে বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ, ইভিএম ভাঙচুর: পশ্চিমবঙ্গে সকালে ভোট চলার মধ্যেই রাজ্যের দিনহাটায় একটি বুথে ঢুকে ইভিএম, ভিভিপ্যাট ভাঙচুরের ঘটনায় উত্তেজনা দেখা দেয়। এ ঘটনায় বিজেপি-তৃণমূল একে অপরকে দোষারোপ করেছে। পশ্চিমবঙ্গের দুটি কেন্দ্র কোচবিহার এবং অলিপুরদুয়ারেও ভোট চলছে। দুই আসনেই মূল লড়াই তৃণমূল এবং ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) মধ্যে। কোচবিহারের তুফানগঞ্জে ক্ষমতাসীন দল তৃণমূল কংগ্রেস ও বিজেপি সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে চারজন বিজেপি কর্মীর গুরুতর জখম হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তৃণমূলের বিরুদ্ধে বিজেপি কার্যালয় ভেঙে দেয়ার অভিযোগও উঠেছে। ওদিকে, কংগ্রেস কোচবিহারে সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফের বিরুদ্ধে ভোটে প্রভাব খাটানোর অভিযোগ তুলেছে । তৃণমূল নেতা রবীন্দ্রনাথ ঘোষ জানিয়েছেন, নিয়ম না মেনে বুথের মধ্যে ঢুকে পড়ছেন বিএসএফ জওয়ানরা। পাশাপাশি ইভিএম কারচুপির অভিযোগও তুলেছেন তিনি। তৃণমূল এবং বিজেপি কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ ঘিরে উত্তপ্ত হয়েছে দিনহাটাও। তৃণমূল কর্মীদের বিরুদ্ধে ভোটারদের মারধরের অভিযোগ তুলেছে বিজেপি। তৃণমূল কর্মীদের হামলায় এক বিজেপি সমর্থক আহতও হয়েছে। অন্ধ্রপ্রদেশে রক্তক্ষয়: অন্যদিকে, প্রথম দফার ভোটেই রক্ত ঝরেছে অন্ধ্রপ্রদেশে। রাজ্যটির তাড়িপাত্রী কেন্দ্রে ওয়াইএসআর কংগ্রেস এবং তেলুগু দেশম পার্টির (টিডিপি) সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে এক টিডিপি নেতা নিহত হয়েছেন। সংঘর্ষের সময় বেধড়ক মারধর করা হয় নেতা চিন্তা ভাস্কর রেড্ডিকে। যার জেরেই মৃত্যুর হয় তার। ঘটনাটিকে ঘিরে উত্তাল অন্ধ্রপ্রদেশের অনন্তপুর। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই অন্ধ্রপ্রদেশের বিভিন্ন বুথে ইভিএম-এর গন্ডগোলের জন্য ভোটগ্রহণ প্রক্রিয়ায় বাধা পড়ে। যা নিয়ে দুই রাজনৈতিক দলের মধ্যে কলহ চরমে ওঠে। ভোটকর্মীদের সঙ্গে বাগ্বিতন্ডায় জড়িয়ে তুলকালাম করে ফেলেন এ প্রার্থী। ইভিএম তুলে আছাড় মারেন তিনি। সঙ্গে সঙ্গেই ওই প্রার্থীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। অন্ধ্র প্রদেশের গুন্টাকাল বিধানসভা কেন্দ্রের একটি বুথে এ ঘটনা ঘটেছে। অন্যদিকে, ইলুরু শহরে ওয়াইএসআর কংগ্রেসের এক মন্ডল পারিষদের উপর আক্রমণ অভিযোগ এসেছে টিডিপি কর্মীদের বিরুদ্ধে। কুর্নুলেরও টিডিপি এবং ওয়াইএসআরসিপি কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে পাথর ছোড়াছুড়ি হয়। সবমিলিয়ে এ রাজ্যে উত্তপ্ত পরিবেশেই চলছে ভোটগ্রহণ। মহারাষ্ট্রে বোমা বিস্ফোরণ: মহারাষ্ট্রে গড়চিরৌলি বুথের কাছে আইইডি বিস্ফোরণ ঘটেছে। গোটা দেশের সঙ্গে  এখানেও ভোট হচ্ছে। বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ভোট বানচালের চেষ্টা করেছে মাওবাদীরা। গড়চিরৌলি জেলার এটাপল্লিতে একটি ভোটগ্রহণ কেন্দ্রের সামনে এ হামলা চালানো হয়। তবে এ হামলায় হতাহতের কোনও খবর পাওয়া যায়নি।

ছত্তিসগড়ে সংঘর্ষ: ছত্তিসগড়ের বস্তারেও ভোটের দিন সকালে মাওবাদী-সেনা সংঘর্ষ হয়েছে। চলেছে গোলাগুলি। নারায়ণপুরে আইটিবিপি জওয়ানদের একটি কনভয় ভোটগ্রহণ কেন্দ্রের দিকে যাওয়ার সময় হামলা চালায় মাওবাদীরা। পাল্টা গুলি চালিয়ে মাওবাদীদের দলটিকে হঠিয়ে দেন জওয়ানরা।

উত্তরপ্রদেশে ভুয়া ভোটার ঠেকাতে গুলি: উত্তরপ্রদেশের কৈরানায় ভুয়া ভোটারদের ছত্রভঙ্গ করতে গুলি চালিয়েছে বিএসএফ।  ২০-২৫ জন ভুয়া ভোটার ভোটগ্রহণ কেন্দ্রে ঢোকার চেষ্টা করছিলেন। তাদের কারো কাছে পরিচয়পত্র ছিল না। তারা আক্রমণাত্মক আচরণ করায় তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করতে গুলি চালায় ঘটনাস্থলে উপস্থিত বিএসএফ জওয়ানরা। কিছু ক্ষণের মধ্যে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলে ফের শুরু হয় ভোটগ্রহণ।

‘নমো ফুডস’ বিতরণ নিয়ে অভিযোগ: উত্তরপ্রদেশের গৌতম বুদ্ধ নগরের একটি বুথে পুলিশকর্মীদের ‘নমো ফুডস’ লেখা জলখাবারের প্যাকেট বিলির অভিযোগ উঠেছে। বলা হয়েছে, বিজেপি’র পক্ষ থেকেই ওই খাবারের প্যাকেট বিলি করা হয়েছে পুলিশ কর্মীদের। গেরুয়া রঙের প্যাকেটের গায়ে লেখা ছিল ‘নমো ফুডস’।

কমিশন এ ব্যাপারে রিপোর্ট তলব করলেও পুলিশ প্রশাসনের দাবি, এটি নেহাতই কাকতালীয়। যে দোকান থেকে খাবারের অর্ডার দেওয়া হয়েছে, তার নাম ‘নমো ফুডস’। এর সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নাম বা বিজেপি’র কোনও যোগ নেই।

স্নাইপারের নিশানায় রাহুল, কেন্দ্রকে চিঠি কংগ্রেসের

ঢাকা অফিস ॥ ভারতে লোকসভা নির্বাচন চলার মধ্যেই রাহুল গান্ধীর জীবনের নিরাপত্তা নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে ভারতীয় কংগ্রেস পার্টি। স্নাইপাররা রাহুলকে নিশানা করেছিল বলে অভিযোগ উঠেছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়কে চিঠি লিখে কংগ্রেস সভাপতি রাহুলের প্রাণনাশের আশঙ্কার কথা জানিয়েছে দলটি। স্পেশাল প্রোটেকশন গার্ডের সুরক্ষা বলয়ে থাকার পরও গত বুধবার নির্বাচনী প্রচারে বেরোনো রাহুল গান্ধীকে লক্ষ্য করে আমেঠিতে সাত বার লেজার তাক করা হয় বলে কংগ্রেসের অভিযোগ। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং এর কাছে চিঠি পাঠিয়ে গোটা বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করার দাবি জানিয়েছে কংগ্রেস।  উত্তরপ্রদেশে রাহুল গান্ধীর নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে। চিঠিতে কংগ্রেসের মন্ত্রীদের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ৭ বার আমেঠিতে রাহুল গান্ধীকে নিশানায় রেখেছে স্নাইপাররা। আমেঠিতে মনোনয়ন পেশের দিন মিছিল করে যাওয়ার সময়ই রাহুলের মাথা লক্ষ্য করে গুলি করার লক্ষ্য ছিল ওই বন্দুকধারীর। তবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রলায় রাহুলের নিরাপত্তা বিঘিœত হওয়ার সম্ভাবনা উড়িয়ে দিয়েছে বলে জানিয়েছে এনডিটিভি। মন্ত্রণালয় বলেছে, বুধবারের ওই ভিডিও ফুটেজ খতিয়ে দেখা হচ্ছে। প্রাথমিক তদন্তের পর বলা হয়েছে, সবুজ রঙের ওই লেজার রশ্মি মোবাইলে ছবি তোলার সময় হতে পারে। প্রাথমিক তদন্তে রাহুলের নিরাপত্তা বিঘিœত হওয়ার মতো কোনও বিষয় নজরে আসেনি।

কলম সৈনিক সাহিত্য পরিষদের উদ্যোগে আমলা পাবলিক লাইব্রেরীতে কবি-সাহিত্যিকদের সাহিত্য আড্ডা

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়া জেলার নবীন ও প্রবীন সাহিত্যনুরাগীদের একত্র করার সাথে সাথে তরুন সাহিত্যিকদের উঠে আসার প্লাটফর্ম এবং লেখকের বোধকে সকলের মাঝে পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে আমলায় কবি সাহিত্যিকদের এক সাহিত্য আড্ডা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে মিরপুর উপজেলার আমলা পাবলিক লাইব্রেরীতে কলম সৈনিক সাহিত্য পরিষদের উদ্যোগে এ সাহিত্য আড্ডা অনুষ্ঠিত হয়। এতে কুষ্টিয়ার অন্যতম কবি ও কলম সৈনিক সাহিত্য পরিষদের সভাপতি জসীম উল্লাহ আল হামিদের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন আমলা সদরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক আমলা পাবলিক লাইব্রেরীর সভাপতি মকবুল হোসেন বিশ^াস। সাহিত্য আড্ডায় এলাকার সাহিত্য বিস্তারের উপরে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়ার বিশিষ্ট কবি ও কথা সাহিত্যিক নজরুল ইসলাম জীবন, কবি সাইদুল ইসলাম, কবি ও লেখক হাসমত আলী, তরুন কবি শান্ত ইসলাম, সমাজসেবক ইয়াছিন আলী প্রমুখ। আড্ডায় স্ব-রচিত কবিতা আবৃতি করেন কবি জসীম উল্লাহ আল হামিদ, সাইদুল ইসলাম, হাসমত আলী, নজরুল ইসলাম জীবন, শান্ত ইসলাম।

ফেইসবুকে মন্তব্য

 জগন্নাথের ওই ছাত্র রিমান্ডে

ঢাকা অফিস ॥ ফেইসবুকে ধর্ম নিয়ে কটূক্তির অভিযোগে গ্রেপ্তার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ফরহাদ হোসাইন ফাহাদকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ডে পাঠিয়েছে ঢাকার একটি আদালত। ঢাকার মহানগর হাকিম দেবব্রত বিশ্বাস গতকাল শুক্রবার তার দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন বলে আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা এসআই হেলালুদ্দিন জানিয়েছেন। গত সপ্তাহে একটি টেলিভিশন চ্যানেলের ফেইসবুক পেইজে শেয়ার করা নিউজের নিচে ‘ফরহাদ এইচ ফাহাদ’ নামের অ্যাকাউন্ট থেকে করা মন্তব্যের একটি স্ক্রিনশট ছড়িয়ে পড়ে। এরপর ফাহাদের ‘ফাঁসির’ দাবিতে ক্যাম্পাসে মিছিল-সমাবেশ শুরু করে ধর্মভিত্তিক ছাত্র সংগঠন ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন। এদিকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগের দুই নেতাও তাদের সঙ্গে যোগ দেন। বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতা নূর-ই-আলম কোতোয়ালি থানায় ফাহাদের বিরুদ্ধে তথ্যপ্রযুক্তি আইনের একটি মামলা দায়ের করেন। আরেক ছাত্রলীগ নেতা মিজানুজ্জামান খান শামীম বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে ফাহাদের স্থায়ী বহিষ্কার চেয়ে আবেদন করেন।

বৃহস্পতিবার কোতোয়ালি থানা পুলিশকে চিঠি পাঠিয়ে ফাহাদকে গ্রেপ্তার করতে বলে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এরপর রাতেই খুলনা থেকে জগন্নাথের বাংলা বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের এই ছাত্রকে ধরে আনে পুলিশ। তথ্যপ্রযুক্তি আইনের মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে শুক্রবার তাকে আদালতে হাজির করে পাঁচ দিনের রিমান্ড চান কোতোয়ালি থানার এসআই রুবেল খান। রিমান্ড আবেদন বাতিল চেয়ে ফাহাদের পক্ষে কোনো আবেদন পড়েনি। ফাহাদ নিজেই আদালতে কথা বলেছেন জানিয়ে এসআই হেলাল বলেন, ছেলেটি ‘ভুল স্বীকার করে’ আদালতের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। “ফাহাদ বলেছে, আমি দরিদ্র পরিবার থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করতে এসেছি। রিমান্ডে দিলে আমার শিক্ষা জীবন ধ্বংস হয়ে যাবে। আমি সচেতনভাবে মহানবীকে (সা.) হেয় করিনি।

খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে না পারলে তাকে হারাতে হবে – নজরুল

ঢাকা অফিস ॥ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়ে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, ‘দেশনেত্রীকে মুক্ত করতে হবে। তিনি দারুণভাবে অসুস্থ। তাকে যদি মুক্ত আলো-বাতাসে আনা না যায়, যদি তার সঠিক চিকিৎসা করা না যায়, তবে তাকে আমরা হারাব। তাই তার আন্দোলনের সঙ্গী হাবিব-উন নবী খান সোহেলের মতো যারা বন্দি আছেন, তাদের মুক্ত করার জন্য যে লড়াই প্রয়োজন, আসুন সেই লড়াইয়ের প্রস্তুতি নিই।’ গতকাল শুক্রবার রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের মাওলানা আকরাম খাঁ হলে জিয়া আদর্শ একাডেমি আয়োজিত ‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন নবী খান সোহেলসহ সব কারাবন্দি নেতাকর্মীর নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে এক প্রতিবাদ সভায় তিনি এসব কথা বলেন। বিশ্বের কোনো স্বৈরাচার বেশি দিন টিকেনি উলে¬খ করে এই বিএনপি নেতা বলেন, কোনো স্বৈরাচারী সরকার জনগণের আন্দোলনের মধ্যে টিকে থাকতে পারেনি। ‘ফিলিপিন্সের মার্কোসের দমননীতির বিরুদ্ধ জনগণ যখন রাজপথে ট্যাংকের সামনে শুয়ে পড়েছিল, তখনই মার্কোসের পতন হয়েছিল। ওই পরিমাণ সাহস কী আপনাদের আছে? মুখে আছে, যেদিন কাজে দেখাতে পারবেন, সেদিন এই সরকারের পতন হবে’-যোগ করেন নজরুল। স্বাধীনতাযুদ্ধে নিজের অবদানের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে নজরুল বলেন, ২৬ মার্চ মুক্তিযুদ্ধ শুরু হওয়ার আগে, ১৯ মার্চ গাজীপুরের জয়দেবপুরে আর্মির অস্ত্র কেড়ে নিয়ে আমরা লড়াই করেছিলাম। ঢাকায় মিছিল হয়েছিল ‘জয়দেবপুরের পথ ধরো, বাংলাদেশ স্বাধীন করো’। আজকে ৭২ বছর বয়সে আমাকেই সেই কাজ করতে বলেন? না আপনাদেরও দায়িত্ব আছে। তার পরও বলছি- আছি আপনাদের সঙ্গে। শুধু সঙ্গে না, আপনাদের সামনেই থাকব। চলেন আমরা একসঙ্গে মাঠে নামি খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে।’ আয়োজক সংগঠনের সভাপতি আজম খানের সভাপতিত্বে  প্রতিবাদ সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল¬াহ বুলু, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সাবেক স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা আক্তারুজ্জামান বাচ্চু, কৃষক দল নেতা মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ার, কেএম রকিবুল ইসলাম রিপন, এম জাহাঙ্গীর আলম, মৎসজীবী দল নেতা ইসমাইল হোসেন সিরাজী প্রমুখ বক্তৃতা করেন। আওয়ামী লীগ প্রশাসনের দয়া দাক্ষিণ্য নিয়ে চলছে মন্তব্য করে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, এ আওয়ামী লীগ সরকার প্রশাসন, বিজিবি, পুলিশ-র‌্যাবের ভিক্ষা দেয়া ভোটে নির্বাচিত হয়েছে। তাদের ভিক্ষা দেয়া ভোটে শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন। তাই এ সরকারের কাছে আমরা এর চেয়ে বেশি কী আশা করতে পারি। ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত হত্যার বিচার দাবি করে বিএনপির এ নেতা বলেন, ‘আজ নুসরাতের যে অবস্থা হয়েছে, এটি তো বাংলাদেশের একটি খন্ডচিত্র মাত্র। আজ গোটা দেশই তো নুসরাতে পরিণত হয়েছে। সারা দেশ আজ ধর্ষিত, অগ্নিদগ্ধ। আর ফেনীর সোনাগাজীতে কী হয়েছে তা আল¬াহ রাব্বুল আলামিনই ভালো জানেন।’ তিনি বলেন, ‘নুসরাত আজ চলে গেছে। তাকে যে ওসি জিজ্ঞাসাবাদ করেছে, সেই ওসির কত বড় দুঃসাহস সেই জিজ্ঞাসাবাদ ভিডিও করল। সেই ভিডিওটি আবার প্রকাশ করল কীভাবে? তার বিরুদ্ধে প্রথম সাইবার সিকিউরিটি আইনে একটি মামলা করে তাকে রিমান্ডে আনা উচিত। কিন্তু সেটি এ আওয়ামী শাসকরা করবে না। কারণ এরা তো সরকার না- এরা হচ্ছে শাসক।’

জয়পুরহাটে বাস খাদে পড়ে নিহত ৮

ঢাকা অফিস ॥ জয়পুরহাট সদর উপজেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় আটজন নিহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে তিন শিশু ও পাঁচ নারী রয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও অন্তত ২০ জন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জয়পুরহাট সদর থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম। স্থানীয়রা জানান, গতকাল শুক্রবার দুপুর ১টার দিকে উপজেলার বানিয়াপাড়া এলাকার জয়পুরহাট-বগুড়া সড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়ক থেকে খাদে পড়ে হতাহতের এ ঘটনা ঘটে। ওসি সিরাজ জানান, জয়পুরহাট থেকে বগুড়া যাওয়ার পথে যাত্রীবাহী বাসটি নিয়ন্ত্রণ হরিয়ে রাস্তার পাশে একটি খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই আটজনের মৃত্যু হয়। স্থানীয়রা জানান, এমপি পরিবহনের বাসটি বগুড়া যাওয়ার পথে জয়পুরহাট-বগুড়া সড়কের বানিয়াপাড়া এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই পাঁচ নারী ও তিন শিশু নিহত হয়। স্থানীয় লোকজন ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আহতদের উদ্ধার করে জয়পুরহাট আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করায়। আহতদের মধ্যে আটজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য তাদের বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজে স্থানান্তর করা হয়েছে। নিহতদের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ ঘটনার চালক ও চালকের সহকারীর খোঁজ পাওয়া যায়নি। সরেজমিনে দেখা যায়, বাসটি উল্টে পড়ে আছে। সেখানে অনেক মানুষ জড়ো হয়েছে। আহত ব্যক্তিদের হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। লাশ সব উদ্ধার করে সারিবদ্ধভাবে রাখা হয়েছে। নিহতদের মধ্যে ৫ জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। এরা হচ্ছেন জয়পুরহাট জেলার পাঁচবিবি উপজেলার রতনপুর গ্রামের জাকিয়া সুলতানা (৬৫), পশ্চিম কড়িয়া গ্রামের ৭ মাস বয়সের শিশু হুমায়দা, কালাই উপজেলার মোলামগাড়ীহাট এলাকার কাদিরপুর গ্রামের হেনা (৩২)। এ ছাড়াও রয়েছেন জয়পুরহাট নার্সিং ইনস্টিটিউটের ১ম বর্ষের ছাত্রী শারমিন (১৯), তার বাড়ি গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ি উপজেলার আমমবাড়ী গ্রামে এবং রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার রিপা মূর্ম (৩)। ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার অভিযান শুরু করে। স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় আহতদের দ্রুত হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয় বলে জানান, ফায়ার সার্ভিসের ওয়্যার হাউজ ইন্সপেক্টর সিরাজুল ইসলাম। এছাড়াও বাসের জানালার গ্লাস ভেঙ্গে ২৫ জনকে বের করেন বলে জানান স্থানীয় বানিয়াপাড়া মহল্লার শরিফ উদ্দিন। গুরুতর আহতদের মধ্যে জেলা আধুনিক হাসপাতালে যাদের ভর্তি করা হয়েছে তারা হলেন, পপি (২৮), মীর্জা একরামূর কবীর (২৭), মুকুল (৩৫), আবু বকর সিদ্দিক (৪৭) ও তার স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা (৩৪), ফেরদৌস (৩৪), সিয়াবুল (২১), আলা উদ্দিন (৩৪), সঞ্জয় বিশ্বাস (২৭), আলম (৪৩) , আসলাম (২৭), সোহাগী (২৩), সুরভী (২৫), ছোনেকা (৩৫) ও সাজেদা (৫৬)। আবেদ আলী (৫৫), সোয়ানা মিশু (১৯), কলিম উদ্দিন (৬৮), আবুল হোসেন (৬০), অরুণ মন্ডল (৬১), রাসেল (৩০), সিরাজুল (২১), প্রমীলা (২৮), জবা (২৬) ও মতিউর (৩৬)। এছাড়া ৪ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে বলে জানান কর্তব্যরত চিকিৎসক। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাৎক্ষণিকভাবে মৃত পরিবারের সহায়তা হিসেবে ২০ হাজার টাকা দেয়া হবে বলে ঘোষণা দেয়া হয়। আহতদের চিকিৎসার যাবতীয় ব্যয়ভার বহন করছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও মেডিক্যাল এসোসিয়েশন।

 

নুসরাতের মাদ্রাসার অধ্যক্ষের এমপিও স্থগিত চেয়ে চিঠি

ঢাকা অফিস ॥ যৌন হয়রানির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করায় পুড়িয়ে মারা নুসরাত জাহান রাফির মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলার এমপিও স্থগিত করেছে সরকার। একই সঙ্গে ওই মাদ্রাসার ইংরেজির প্রভাষক আফসার উদ্দিনের এমপিও স্থগিত করতে বলা হয়। এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে চিঠি পাঠিয়েছে মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর।চিঠিতে বলা হয়, মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে শ্লীলতাহানির ঘটনায় মামলা এবং হত্যা মামলার প্রেক্ষিতে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ এবং ইংরেজি বিষয়ের প্রভাষক গ্রেফতার হন। এজন্য তাদের এমপিও স্থগিত হওয়া প্রয়োজন। এই চিঠির প্রেক্ষিতে এখন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর এই দুই শিক্ষকের এমপিও স্থগিত করে আদেশ জারি করবে। এদিকে অধ্যক্ষ সিরাজকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ। তিনি এখন কারাগারে আছেন। ৬ এপ্রিল সকালে আলিম পরীক্ষা দিতে ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসায় যান নুসরাত জাহান রাফি। তার বান্ধবী নিশাতকে মাদ্রাসার ছাদে মারধর করা হচ্ছে বলে একজন এসে তাকে জানায়। এমন সংবাদে তিনি ছাদে যান। সেখানে বোরকা পরা চারজন তাকে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলার বিরুদ্ধে করা অভিযোগ মিথ্যা বলতে চাপ দেয়। এসময় নুসরাত এর প্রতিবাদ করেন। বলেন, অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমি শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত লড়ব। এরপর তার হাত-পা বেঁধে গায়ে কেরোসিন দিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয় অধ্যক্ষের অনুসারীরা। ১০৮ ঘণ্টা আইসিইউতে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে বুধবার রাত সাড়ে ৯টায় মারা যান অন্যায়ের কাছে মাথা নত না করা নুসরাত জাহান রাফি। তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন ছিলেন। মৃত্যুর আগে লাইফ সাপোর্টে ছিলেন। এ ঘটনায় অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলা ও পৌর কাউন্সিলর মুকছুদ আলমসহ আটজনের নাম উলে¬খ করে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা করেন নুসরাতের বড় ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান। এর আগে গত ২৭ মার্চ অধ্যক্ষ সিরাজউদদৌলার বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে মামলা করেন মেয়েটির মা। আর এ মামলা প্রত্যাহারের চাপ দেওয়া হচ্ছিল।

নুসরাত হত্যায় আসামি নুর উদ্দীন আটক

ঢাকা অফিস ॥ ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যা মামলার আসামি নুর উদ্দিনকে ভালুকা থেকে আটক করা হয়েছে। মামলার তদন্ত সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) একটি দল গতকাল শুক্রবার সকালে তাঁকে আটক করে।পিবিআইয়ের একটি সূত্র জানায়, দুপুরে ময়মনসিংহের ভালুকা সিড স্টোর এলাকায় অভিযান চালিয়ে নূর উদ্দিনকে আটক করা হয়। পরে তাঁকে ফেনীতে পাঠানো হয়েছে। ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত জাহানকে পুড়িয়ে মরার ঘটনায় অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলার ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত নুর উদ্দিন ও শাহাদাত হোসেন ওরফে শামীম সরাসরি জড়িত বলে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তাঁরা দুজনই রয়েছেন সন্দেহের কেন্দ্রবিন্দুতে। তাঁদের ধরতে পারলেই মূল রহস্য বের হবে বলে এলাকার মানুষ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের ধারণা। অবশ্য মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব নিয়ে সন্দেহভাজনদের ধরতে বুধবার রাত থেকে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) অভিযান শুরু করেছে। নুসরাতকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে করা মামলায় ২৭ মার্চ অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এর পর তাঁর মুক্তির দাবিতে ‘সিরাজ উদদৌলা সাহেবের মুক্তি পরিষদ’ নামে কমিটি গঠন করা হয়। ২০ সদস্যের এ কমিটির আহ্বায়ক নুর উদ্দিন এবং যুগ্ম আহ্বায়ক হন শাহাদাত হোসেন। তাঁদের নেতৃত্বে অধ্যক্ষের মুক্তির দাবিতে গত ২৮ ও ৩০ মার্চ উপজেলা সদরে দুই দফা মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হয়। তাঁরাই নুসরাতের সমর্থকদের হুমকি-ধমকি দিয়ে আসছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

 

ঝিনাইদহে চতুর্থ আন্তর্জাতিক ফোকলোর সম্মেলন শুরু

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহে শুরু হয়েছে ২ দিনব্যাপী চতুর্থ আন্তর্জাতিক ফোকলোর সম্মেলন। এ উপলক্ষে শুক্রবার সকালে শহরের পুরাতন ডিসি কোর্ট চত্বর থেকে একটি শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক ঘুরে প্রেরণা একাত্বর চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি ও কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে অংশগ্রহণকারীরা। পরে শহরের জোহান ড্রীম ভ্যালী পার্কের সম্মেলন কক্ষে মুল সম্মেলন শুরু হয়। সম্মেলনের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন এমপি। জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথের সভাপতিত্বে সম্মেলনে প্রধান আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন, রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক প্রফেসর এমিরিটাস বরুন চক্রবর্তী। তিনি বলেন, বাংলাদেশ এখন উন্নতশীল দেশ। আমি এদেশকে নিজের দেশের মত ভালোবাসি। বাংলার মুখকে দেখার পর বিশ্বের মুখ দেখার আগ্রহ আমার নেই। বাংলা ভাষা প্রতিষ্ঠাদান এই বাংলাতেই হয়েছে। ফোকলোর চর্চায় বাংলাদেশ পশ্চিমবঙ্গ থেকে অনেক এগিয়ে। তিনি আরও বলেন, দু:খের বিষয় ফোকলোর বিভাগে পাশ করে চাকুরীর সুযোগ মেলে না। পশ্চিমবঙ্গে কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ে ফোকলোর বিভাগে অধিকাংশ সিট ফাকা থাকে। পড়ার মত ছাত্র মেলে না। বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের অভিন্ন সমস্যা হচ্ছে বেকারত্ব ও দুর্নীতি। আমরা এক যুগে বাস করছি যেখানে মানুষের বাসযোগ্য পরিবেশ ধ্বংস হচ্ছে। এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফোকলোর স্ট্যাটিজ বিভাগের সভাপতি প্রফেসর ড. মোহাঃ সাইদুর রহমান, বাংলাদেশ টাইমস ইউনিভার্সিটির উপাচার্য ড. এ এইচ এম আক্তারুল ইসলাম, খুলনা বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়া, পশ্চিমবঙ্গের কথাসাহিত্যিক নলিনী বেরা, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফোকলোর বিভাগের সভাপতি প্রফেসর ড. মোঃ আখতার হোসেন, ভারতের আসাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর বেলা দাস, গৌরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর রজত কুমার দে, কলকাতার লৌকিক এর সম্পাদক ড. কোয়েল চক্রবর্তী, যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি ও নিউ মেক্সিকোর আটর্স ও হিসট্রি বিভাগের ফ্যাকাল্টি মেম্বর ডেমন জোসেফ মন্টেক্লর, ঝিনাইদহের পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামান, ঝিনাইদহ পৌরসভার মেয়র সাইদুল করিম মিন্টু। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগি অধ্যাপক তপন কুমার রায়, ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলাদেশ ফোকলোর গবেষণা কেন্দ্রের সভাপতি প্রফেসর ড. মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন। এসময় বক্তারা বলেন, লোকসংস্কৃতি আমাদের সাহিত্যে পাখির মায়ের মত আকড়ে আছে। আমাদের লোকসংস্কৃতি চর্চা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাংলার লোকসংস্কৃতি বিশ্বের দরবারে তুলের ধরার জন্যই এ আয়োজন। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফোকলোর গবেষণা কেন্দ্র, ভারতের লৌকিক কলকাতা, ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফোকলোর স্ট্যাডিজ বিভাগ, ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসন ও ঝিনাইদহ পৌরসভার যৌথ আয়োজনে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এতে দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী, ভারত, শ্রীলংকা, যুক্তরাষ্ট ও সোমালিয়ার বিভিন্ন ফোকলোর গবেষক অংশ নিচ্ছেন। আগামীকাল সন্ধ্যায় আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে শেষ হবে এ সম্মেলন। ২ দিনব্যাপী এ কর্মসূচীতে রয়েছে লোকআড্ডা, সাংষ্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ নানা আয়োজন।

 

মসজিদে শিশুর লাশ

হত্যা মামলায় ৫ শিক্ষক গ্রেপ্তার

ঢাকা অফিস ॥ চট্টগ্রামের মসজিদে মাদ্রাসা ছাত্র মো. হাবিবুর রহমানের লাশ উদ্ধারের ঘটনায় শিক্ষকদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেছেন তার বাবা। গতকাল শুক্রবার ওই মামলা হওয়ার পর ফারুক আল ইসলামীয়া মাদ্রাসার শিক্ষক তারেকুর রহমান ও অধ্যক্ষ আবু দারদাসহ পাঁচজনকে ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়েছে পুলিশ। গ্রেপ্তার বাকি তিনজন হলেন- মাদ্রাসা শিক্ষক মো. জোবায়ের, মো. আনাস আলী ও মো. আব্দুস সামাদ। বায়েজিদ বোস্তামী থানার ওসি আতাউর রহমান খন্দকার বলেন, হাবিবুরের বাবা আনিসুর রহমান দ-বিধির ৩০২/৩৪ ধারায় হত্যার অভিযোগে এই মামলা দায়ের করেছেন। মামলার এজাহারে তারেক ও আবু দারদার নাম উল্লেখ করে সন্দেহভাজন আরও ছয়-সাতজনকে আসামি করেছেন আনিসুর। ওসি বলেন, “আমরা মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ও হাফেজ তারেকসহ পাঁচজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় এনেছিলাম। মামলা হওয়ার পর তাদের পাঁচজনকেই গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।” নগরীর ওয়াজেদিয়া এলাকার ওমর ফারুক আল ইসলামীয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানার মসজিদ থেকে বুধবার রাতে হাবিবের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায় পুলিশ। মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ এ ঘটনাকে আত্মহত্যা বললেও তা নিয়ে সন্দেহ আছে ছেলেটির পরিবারের। তাদের ধারণা, হাবিবকে হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। ১১ বছর বয়সী হাবিব ওই মাদ্রাসার হেফজ শ্রেণিতে পড়ত। খাগড়াছড়ির দিঘীনালা উপজেলার মধ্য বোয়ালখালী পশ্চিম পাড়ায় তাদের বাড়ি। তার বাবা আনিসুর রহমান চট্টগ্রাম নগরীতে অটো রিকশা চালান। পরিবার নিয়ে থাকেন শেরশাহ বাংলাবাজার এলাকায়। তবে হাবিব মাদ্রাসার ছাত্রাবাসে থেকেই লেখাপড়া করত। বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে আনিসুর বলেছিলেন, তিন-চারদিন আগে ওই মাদ্রাসার শিক্ষক মোহাম্মদ তারেক মারধর করলে হাবিব বাসায় চলে যায়। পরে তাকে বুঝিয়ে মাদ্রাসায় ফেরত পাঠানো হয়। ‘‘বুধবার সন্ধ্যায় মাগরিবের নামাজের পর হাফেজ তারেক ফোন করে আমাকে বলে, হাবিবকে পাওয়া যাচ্ছে না। মাদ্রাসা থেকে এ খবর পাওয়ার পর বাসায় খবর নিয়ে জানতে পারি সে সেখানে আসেনি। পরে রাত ১০টার দিকে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মুফতি আবু দারদা আমাকে মোবাইলে ফোন করে ছেলের আত্মহত্যার খবর দেন।” কিন্তু রাতে ওই মসজিদের চতুর্থ তলায় জানালর গ্রিল থেকে হাবিবের লাশ যেভাবে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখেছেন, তাতেই সন্দেহ তৈরি হয়েছে বাবার মনে। তিনি বলেছেন, হাবিবের একটি হাত গ্রিলের ভেতরে ছিল, পা মাটির সাথে লাগানো ছিল। বাম পায়ের হাঁটুতে আঘাতের চিহ্ন ছিল। পুলিশের দেওয়া বর্ণনা আর ঘটনাস্থল থেকে পাওয়া ছবিতেও একই চিত্র দেখা যায়। ওসি আতাউর বলেন, “এটি নিয়ে তদন্ত চলছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন ও তদন্তে অন্য যাদের নাম আসবে তাদেরও গ্রেপ্তার করা হবে।”

আলমডাঙ্গায় মিলন মেলা কমিটির উদ্যোগে স্মৃতির বাঁধনে প্রীতির মিলনে  শ্লোগানে ৮ম মিলন অনুষ্ঠিত

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ আলমডাঙ্গা উপজেলায় সরকারি বহুমুখি পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্রদের মিলন মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সকাল ১০টার দিকে পাইলট স্কুল প্রাঙ্গন থেকে র‌্যালী প্রদক্ষিন শেষে স্কুল চত্বরে মাদক ও সন্ত্রাসকে না বলুন। “মাদক সন্ত্রাস মুক্ত বাংলাদেশ গড়ুন”ও ” স্লোগানকে সামনে রেখে স্মৃতির বাঁধনে প্রীতির মিলনে ” এই  স্লোগানে আলমডাঙ্গা মিলন মেলা কমিটির উদ্যোগে ৮ম মিলন মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানে মিলন মেলা কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাডঃ আব্দুর রশিদ মোল্লার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাহাত মান্নান। তিনি বলেন আপনাদের মিলন মেলায় এসে আজ আমার শৈশব, কৈশরের কথা মনে পড়ছে। স্কুল জীবনে আমরা কত কিছু করেছি। আজ বাস্তব জীবনে এসে সেই সব বন্ধু ও শিক্ষকদের কথা খুব মনে পড়ে। আমি আপনাদের অগ্রযাত্রা কামনা করছি, যে কোন ভাল কাজে আমাকে আপনাদের পাশে পাবেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রবিউল ইসলাম খান, থানা অফিসার ইনচার্জ তদন্ত লুৎফুল কবির, মিলন মেলা কমিটির উপদেষ্টা মীর আব্দুল হামিদ  চৌধুরি, মিলন মেলা কমিটির সাধারন সাম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব শেখ নুর মোহাম্মদ জকু, সাবেক উপ-সচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা লুৎফর রহমান, আলহাজ্ব ডাঃ একরামুল হক, মাহবুবুর রহমান, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুল কুদ্দুস, বিশিষ্ট শিল্পপতি প্রকৌশলী কাউছার আহম্মদ, সিনিয়র ব্যাংক কর্মকর্তা লিয়াকত আলী, প্রেসক্লাকের সভাপতি খন্দকার শাহ আলম মন্টু। প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা হামিদুল ইসলাম আজমের উপস্থাপনায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাডঃ নাসির উদ্দিন মন্জু, আলহাজ্ব রবিউল হক পকো, প্রভাষক মিজানুর রহমান, এ্যাডঃ আলফাজ উদ্দিন, ডাঃ মন্জুরুল ইসলাম  বেলু, আলমডাঙ্গা বনিক সমিতির সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব মীর শফিকুল ইসলাম, সোনালী ব্যাংকের ব্যাবস্থাপক আলহাজ্ব সিরাজুল ইসলাম, আলহাজ্ব আহম্মদ আলী, প্রভাষক একে এম ফারুক, ক্রীড়া সংগঠক মিজানুর রহমান, উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারন সম্পাদক খন্দকার জিহাদী জুলফিকার টুটুল, আহসান উল্লাহ, হারদী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্যাথলজিষ্ট আজিজুল হক শোমা, এস আই সাইফুল ইসলাম, এসআই সুফল প্রমুখ। অনুষ্ঠান শেষে সাধারন সম্পাদক সকল সদস্যের উপস্থিতিতে মিলন মেলা কমিটির নতুন কমিটি গঠনকল্পে আলোচনা শেষে সর্বসম্মতিক্রমে বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব এ্যাডঃ আব্দুর রশিদকে সভাপতি ও বীর মক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব শেখ নুর মোহাম্মদ জকুকে সাধারন সম্পাদক করে ৩১ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটি ঘোষনা করেন। এই কমিটি আগামি ৩ বছর দায়িত্ব পালন করবেন। এরপর প্রধান শিক্ষক রাকিবুস সালেহীন, প্রভাষক একে এম ফারুক ও প্রভাষক মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে র‌্যাফেল ড্র অনুষ্ঠিত হয়। এতে মোট ৫০ জনকে পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়।

কমলাপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শতবর্ষ উদযাপন উপলক্ষে এসএসসি ব্যাচ ১৯৯১ এর রেজিষ্ট্রেশন মিলনমেলা

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া শহরতলি কমলাপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার শতবর্ষ উদযাপন উপলক্ষে এসএসসি ব্যাচ ১৯৯১ (স্কুল ব্যাচ ১৯৮৬-১৯৯০) এর রেজিষ্ট্রেশন মিলনমেলা ও আলোচনা সভা গতকাল সকাল ১০টায় ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে মডার্ণ স্টীল মিলের স্বত্তাধিকারী শিল্পপতি  মো. রাশেদ খান, ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের এভিপি  মো. শরীফুল ইসলাম মোগল, সরকার স্টীলের পরিচালক  মো. জামিল হোসেন সরকার, ব্যবসায়ী মো. মোখলেসুর রহমান বিপ্লব, জিল্লুর রহমান,  জাহিদুর রহমান, রফিকুল ইসলাম, শেখ সেলিম উদ্দিন, মীর আঃ ওয়াদুদ, ফারহানা নাজনীন মিতা, সোহেলী আক্তার জেলী সহ উক্ত ব্যাচের ঢাকাস্থ অন্যান্য সদস্যগণ অংশগ্রহণ করেন। উল্লেখ্য যে, কুষ্টিয়া সদর উপজেলার জিয়ারখী ইউনিয়নাধীন কমলাপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় ১৯১৯ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। বিদ্যালয়টি কুষ্টিয়ার অন্যতম প্রাচীন ও  সুনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসাবে  জেলা ও যশোর শিক্ষা বোর্ডে সুপরিচিত। আগামী ২০-২২ ডিসেম্বর বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার শতবর্ষ পূর্তি উদযাপনে অনুষ্ঠানটি সর্বাত্তক সফলতা অর্জনে তিন দিনব্যাপী ব্যাপক কর্মসুচী গ্রহণ করা হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় শতবার্ষিকীর অনুষ্ঠান সফল করার জন্য বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মিলন মেলায় আলোচনা করা হয়। বিদ্যালয়ের গৌরব, ঐতিহ্য, মর্যাদা ও অনুষ্ঠানের তাৎপর্য বিবেচনায় রেখে একে সাফল্য মন্ডিত করার জন্য সময়মত রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করার জন্যও সকল ছাত্র/ছাত্রীদের প্রতি উদাত্ত আহবান জানানো হয়।

গাংনীতে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে কৃষক নিহত

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার রাইপুর ইউনিয়নের হাড়িয়াদহ গ্রামে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে সিদ্দিকুর রহমান (৬৫) নামের এক কৃষক নিহত হয়েছেন। ৪ কন্যা সন্তানের জনক নিহত সিদ্দিকুর হাড়িয়াদহ গ্রামের দক্ষিণপাড়ার মৃত আবুল শেখের ছেলে। এ ঘটনায় জহুরুল ইসলাম (৪০) নামের এক ট্রাক চালক ও দূর্ঘটনা কবলিত ট্রাকটি হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ। ট্রাক চালক জহুরুল একই উপজেলার ধানখোলা ইউনিয়নের ঢেপা গ্রামের বাসিন্দা ও গাংনী মোটরশ্রমিক ইউনিয়নের সদস্য। গতকাল শুক্রবার  সকাল পৌনে ১১টার দিকে গাংনী-বারাদী সড়কের হাড়িয়াদহ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অদূরে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে নিহতের ঘটনা ঘটে। স্থানীয় যুবক কামরুল ইসলাম জানান কৃষক সিদ্দিকুর বাইসাইকেলযোগে গ্রামের মাঠ থেকে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় গাংনী শহরের দিক থেকে আসা একটি ট্রাক তাকে ধাক্কায় দিলে চাকার নিচে পড়ে পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই নিহত হন। এদিকে ঘটনার সাথে-সাথে স্থানীয়রা ঘাতক ট্রাকের চালককে তাৎক্ষনিকভাবে আটকে রেখে পুলিশ হেফাজতে দেয়। এ সময় পুলিশ ঘাতক ট্রাকটি (যার নং-কুষ্টিয়া-ট-১১-২৭৮৫) জব্দ করে থানায় নেয়। গাংনী থানার ওসি হরেন্দ্রনাথ সরকার (পিপিএম) জানান নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে বাদি না হওয়ায় ময়না তদন্ত ছাড়াই লাশ দাফনের অনুমতি দেয়া হয়েছে। এদিকে গতকাল শুক্রবার বাদ আসর নিহতের জানাজা শেষে হাড়িয়াদহ গোরস্থান ময়দানে দাফন করা হয়।

সরকার গৃহীত মেগা প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন হলে চট্টগ্রাম হবে ইকোনমিক হাব – তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, চট্টগ্রামের গুরুত্ব অনুধাবন করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনেক মেগা প্রকল্প হাতে নিয়েছেন। দেশে ১০০টি ইকোনোমিক জোন হচ্ছে। চট্টগ্রামের মিরসরাই, সীতাকুন্ড ও ফেনী নিয়ে বঙ্গবন্ধু শিল্পনগর হচ্ছে। চায়না ইপিজেড, কুরিয়ান ইপিজেড, বে-টার্মিনাল, কর্ণফুলী টানেল, মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্রবন্দর, বঙ্গবন্ধু শিল্পনগর, এলএনজি টার্মিনালসহ মেগা প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন হলে চট্টগ্রাম ইকোনমিক হাব হবে। তিনি বলেন. এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি রয়েছে। ৫ বছর পর ২-৩ লাখ বিদেশি চট্টগ্রামে থাকবে। চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে দেশের ১৭ শতাংশ যাত্রী ওঠানামা করে। তাই এ বিমানবন্দরের উন্নয়নের পাশাপাশি হাটহাজারীতে আরেকটি বিমানবন্দর করা যেতে পারে। ব্রিটিশ আমলে হাটহাজারীতে একটি বিমান বন্দর ছিল।গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রামের আগ্রাবাদে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে চট্টগ্রাম চেম্বারের ২৭তম আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।তথ্যমন্ত্রী বলেন, একসময় কোলকাতা ছিল পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর। এরপর ছিল চট্টগ্রাম। পঞ্চাশের দশক পর্যন্ত চট্টগ্রাম থেকে জাহাজে করে মানুষ বম্বে-করাচি হয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে যেত। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের অনেক বিদেশযাত্রা জাহাজে হয়েছিল। এরপরই বিমানের যাত্রা শুরু হয়। ষাটের দশকে ঢাকা ও চট্টগ্রামের সমৃদ্ধি একসাথে শুরু হলেও ক্রমান্বয়ে চট্টগ্রাম পিছিয়ে যেতে থাকে।চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের প্রেসিডেন্ট মাহাবুবুল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশ কমিশনার মাহাবুবুর রহমান, ভারতীয় হাই কমিশন চট্টগ্রামের সহকারি হাই কমিশনার অনিন্দ্য ব্যানার্জি ও ব্যবসায়ী নেতা সৈয়দ জামাল আহমেদ।ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ভারত পাকিস্তানে নদীর তলদেশে টানেল নেই। ভারতীয় উপমহাদেশের প্রথম কর্ণফুলী নদীর তলদেশে টানেল নির্মাণ করছে সরকার। কোলকাতায় নদীর নিচ দিয়ে টানেল নির্মাণের একটি প্রকল্প নেয়া হলেও তা কখন চালু হবে জানা নেই। দুয়েক বছর পর সম্ভবত ভারতীয় উপমহাদেশের প্রথম কর্ণফুলী নদীর তলদেশে টানেল চালু হবে।চট্টগ্রামে মেট্টরেল স্থাপনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর সাথে কয়েক দফা আলোচনা হয়েছে জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, এতে তিনি সম্মতি জানিয়েছেন। ১৯৭৮ সালে চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন এরিয়ার সৃষ্টি হলেও এরপর আয়তন আর বাড়েনি। তখন চট্টগ্রাম শহরের লোক সংখ্যা ছিল ১০ থেকে ১২ লাখ। বর্তমানে সেটা ৭০ লাখে পৌঁছেছে। ভাটিয়ারী, মদুনাঘাট, কালুরঘাট সেতুর অপর প্রান্তসহ অনেক জায়গা মেট্রোপলিটন এরিয়ার বাইরে। তাই মেট্টোপলিটন এরিয়া বাড়ানোর পাশাপাশি সিটি করপোরেশন এরিয়া বাড়ানো প্রয়োজন।তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স একটি অন্যন্য সাধারণ কাজ করেছেন। বোম্বের পরে ভারতীয় উপমহাদেশে চট্টগ্রাম ছাড়া আর কোথাও ওর্য়াল্ড ট্রেড সেন্টার নেই। এটি সম্ভব হয়েছে বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সহায়তায়। তিনি ১৯৯৬ সালে দেশ পরিচালনার দায়িত্ব পাবার পর চট্টগ্রাম চেম্বারকে এই জায়গাটি দিয়েছিলেন। চেম্বারের মেলার জন্য স্থায়ী ভেন্যু চাই। রেল, বন্দর, সিডিএ কোন সংস্থার কাছে জায়গা আছে তা খুঁজে দেখেন। সবাই উদ্যোগ নিলে তারপর সেটির সংস্থান হয়ে যাবে।তথ্যমন্ত্রী বলেন, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ১৩ টনের ওজন স্কেলের কারণে চট্টগ্রামের ব্যবসায়ীদের কস্ট অব ডুয়িং বেড়ে গেছে। ১৩ টন হলে সারা দেশের জন্য হওয়া উচিত। সব কিছু ঢাকা কেন্দ্রিক করা উচিত নয়। ঢাকা, চট্টগ্রাম ও খুলনা থেকে কৃষি পণ্যের ইমপোর্ট পারমিট ইস্যুর উদ্যোগ নেয়া হবে।অনুষ্ঠান শেষে মন্ত্রী বাণিজ্য মেলায় অংশগ্রহণকারী বিভিন্ন কোম্পানীর শ্রেষ্ঠ স্টল দাতাদের মাঝে ক্রেস্ট ও সনদ বিতরণ করেন।

যৌন হয়রানরি ঘটনাকে নাটক বানাতে চয়েছেলিনে ওসি

ঢাকা অফসি ॥ শরীরে আগুন ধরয়িে পুড়য়িে হত্যার আগইে যৌন হয়রানরি অভযিোগ করতে গয়িে ফনেীর সোনাগাজী থানার ওসরি কক্ষে আরকে দফা হয়রানরি শকিার হতে হয়ছেলি ছাত্রী নুসরাতক।ে ওসি নয়িম ভঙেে জরো করতে করতইে নুসরাতরে বক্তব্য ভডিওি করনে। মৌখকি অভযিোগ নওেয়ার সময় দুই পুরুষরে কণ্ঠ শোনা গলেওে সখোনে নুসরাত ছাড়া অন্য কোনো নারী বা তার আইনজীবী ছলিনে না। আইনজীবীরা বলছনে, যৌন হয়রানরি অভযিোগ করার সময় ওসরি ভডিওি ধারণরে ঘটনায় তার বরিুদ্ধে ডজিটিাল সকিউিরটিি আইনে মামলা করার সুযোগ রয়ছেে নুসরাতরে পরবিাররে। ওসরি এ ধরনরে আচরণরে বষিয়ে পুলশি র্কতৃপক্ষ বলছনে, আইন না মনেে অভযিোগ করতে যাওয়া কারোর ভডিওি করলে তার বরিুদ্ধে ব্যবস্থা নওেয়ার সুযোগ আছ।ে ভডিওি করার সময় নুসরাত অঝোরে কাঁদছলিনে এবং তার মুখ দু’হাতে ঢকেে রখেছেলিনে। তাতওে ছলি ওসরি আপত্ত।ি বারবারই ‘মুখ থকেে হাত সরাও, কান্না থামাও’ বলার পাশাপাশি তনিি এও বলনে, ‘এমন কছিু হয়নি যে এখনও তোমাকে কাঁদতে হব।ে’ দায়ত্বিে অবহলোর দায়ে গত ৯ এপ্রলি ফনেীর সোনাগাজী মডলে থানার ওসি মোয়াজ্জমে হোসনেকে প্রত্যাহার করা হয়ছে।ে ভডিওিতে দখো যায়, থানার ভতেরে নুসরাতকে জরো করা হচ্ছে ‘কসিে পড়? ক্লাস ছলি?’ ঘটনা জানাতে গয়িে নুসরাত বারবার কান্নায় ভঙেে পড়ছলিনে। সে সময় তাকে জজ্ঞিাসা করা হয় ‘কারে কারে জানাইসো বষিয়টা?’ নুসরাত যখন জানায় তাকে অধ্যক্ষ ডকেে নয়িে গয়িছেলি, তখন প্রশ্ন করা হয় ‘ডকেছেলি, নাকি তুমি ওখানে গছেলিা?’ পয়িনরে মাধ্যমে ডকেছেলি বলে নুসরাত জানালে প্রশ্ন করা হয় ‘পয়িনরে মাধ্যমে ডকেছেলি? পয়িনরে নাম কী?’ নুসরাত সে সময় পয়িনরে নাম বলনে ‘নূর আলম।’ পুরো ভডিওি’তে নুসরাত কাঁদছলিনে। একসময় ভডিওিধারণকারী তাকে ধমকরে সুরে বলনে ‘কাঁদলে আমি বুঝবো কী কর,ে তোমাকে বলতে হব।ে এমন কছিু হয়নি যে তোমাকে কাঁদতে হব।ে’ ভডিওির শষেে নুসরাতরে কথা বলা শষে হলে ধারণকারী বলনে ‘এইটুকুই?’ আরও কছিু অশালীন উক্তরি পাশাপাশি তাকে উদ্দশে করে ওই ব্যক্তি বলনে ‘এটা কছিু না, কউে লখিবওে না তোমার কথা। আমি আইনগত ব্যবস্থা নবেো। কছিু হয়ন।ি রাখো। তুমি বসো।’ এ ব্যাপারে পুলশিরে সহকারী মহাপরর্দিশক (মডিয়িা অ্যান্ড পআির) মো. সোহলে রানা বলনে, ‘যদি কোনও রূঢ় অশালীন উপায়ে সুনর্দিষ্টি আইনপিন্থা না মনেে এ ধরনরে কোনও ভডিওি করা হয়ে থাক,ে তাহলে তার বরিুদ্ধে ব্যবস্থা নওেয়ার সুযোগ আছ।ে এটি তার ব্যক্তগিত বচ্যিুত।ি’

নুসরাত হত্যা মামলা

মোকসুদকে ৭ দনিরে রমিান্ডরে আবদেন

ঢাকা অফসি ॥ ফনেীর সোনাগাজী ইসলাময়িা সনিয়ির ফাজলি ডগ্রিি মাদ্রাসার আলমি পরীর্ক্ষাথী নুসরাত জাহান রাফি হত্যা মামলার অন্যতম আসামি সোনাগাজী পৌর আওয়ামী লীগরে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক, পৌর কাউন্সলির মোকসুদ আলমকে ৭ দনিরে রমিান্ড আবদেন করছেে পুলশি ব্যুরো অব ইনভস্টেগিশেন (পবিআিই)। গতকাল শুক্রবার ফনেীর সোনাগাজীর সনিয়ির জুডশিয়িাল ম্যাজস্টিটে শরাফ উদ্দনিরে আদালতে আবদেন করা হয়। আদালত আগামী সোমবার রমিান্ড শুনানি অনুষ্ঠতি হবে বলে জানান। এরআগে বৃহস্পতবিার রাত ১০টায় ঢাকার একটি আবাসকি হোটলে থকেে মোকসুদ আলমকে গ্রফেতার করে পুলশি ব্যুরো অব ইনভস্টেগিশেন (পবিআিই)। তনিি বলনে, এ বষিয়ে বস্তিারতি তথ্য গণমাধ্যমকে পরে জানানো হব।ে নুসরাতরে ভাই নোমানরে করা মামলার এজাহারনামীয় আসামি ছলিনে তনি।ি এছাড়া হত্যা মামলার প্রধান আসামি অধ্যক্ষ সরিাজ উদ্দৌলা সাত দনিরে রমিান্ডে আছনে। ওই মাদ্রাসার ইংরজেি বভিাগরে প্রভাষক আফসার উদ্দনি এবং নুসরাতরে সহপাঠী আরফিুল ইসলাম, নুর হোসনে, কফোয়াত উল্লাহ জন,ি নুসরাতরে সহপাঠী ও মামলার প্রধান আসামি সোনাগাজী ইসলাময়িা ফাজলি মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সরিাজউদ্দৌলার ভাগ্নি উম্মে সুলতানা পপি ও আরকে মাদ্রাসা শক্ষর্িাথী জোবায়রে আহমদে পাঁচ দনিরে রমিান্ডে আছ।ে এজাহারভুক্ত আসামদিরে মধ্যে এখনও পলাতক রয়ছেনে- সোনাগাজী পৌরসভার উত্তর চরচান্দয়িা গ্রামরে ওই মাদ্রাসার ছাত্র শাহাদাত হোসনে শামমি, হাফজে আবদুল কাদরে। গত ৬ এপ্রলি সোনাগাজী ইসলাময়িা সনিয়ির ফাজলি মাদ্রাসায় আলমি পরীক্ষার কন্দ্রেে গলেে মাদ্রাসার ছাদে ডকেে নয়িে নুসরাতরে গায়ে করেোসনি ঢলেে আগুন ধরয়িে পালয়িে যায় মুখোশধারী র্দুবৃত্তরা। এর আগে ২৭ র্মাচ মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সরিাজউদ্দৌলার বরিুদ্ধে করা শ্লীলতাহানরি মামলা প্রত্যাহাররে জন্য নুসরাতকে চাপ দয়ে তারা। পরে আগুনে ঝলসে যাওয়া নুসরাতকে প্রথমে স্থানীয় হাসপাতালে এবং পরে ঢামকে হাসপাতালে র্ভতি করা হয়। বুধবার রাত সাড়ে ৯টায় না ফরোর দশেে চলে যান ফনেীর সোনাগাজী ইসলাময়িা সনিয়ির ফাজলি মাদ্রাসার ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফ।ি চকিৎিসকদরে প্রাণপণ চষ্টোর পরও তাকে বাঁচানো গলে না। টানা ১০৮ ঘণ্টা মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে অবশষেে হার মাননে এ ছাত্রী। প্রসঙ্গত ৬ এপ্রলি ফনেীর সোনাগাজীতে পরীক্ষাকন্দ্রেরে ভতের ওই ছাত্রীর গায়ে করেোসনি ঢলেে আগুন ধরয়িে হত্যাচষ্টো চালায় র্দুবৃত্তরা। শনবিার সকালে সোনাগাজী পৌর এলাকার ইসলাময়িা সনিয়ির ফাজলি মাদ্রাসাকন্দ্রেে এ ঘটনা ঘট।ে ওই ছাত্রী ওই মাদ্রাসা থকেইে আলমি পরীক্ষা দচ্ছিলিনে। পরীক্ষার জন্য নর্ধিারতি কক্ষ থকেে ছাদে ডকেে নয়িে কয়কেজন বোরকাপরা নারী পরকিল্পতিভাবে তাকে হত্যার চষ্টো করে বলে অভযিোগ করছেনে ওই শক্ষর্িাথীর পরবিাররে সদস্যরা। তারা জানান, মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা সরিাজউদ্দৌলার বরিুদ্ধে শ্লীলতাহানরি অভযিোগে করা মামলা তুলে না নয়োয় এ ঘটনা ঘটছে।ে এ তথ্য ফনেী সদর হাসপাতালে চকিৎিসাধীন স্থানীয় পুলশিকওে জানয়িছেনে নুসরাত। তার অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ায় এদনি বকিালে ঢাকা মডেকিলে কলজে (ঢামকে) হাসপাতালরে র্বান ইউনটিরে ১০২ নম্বর কক্ষে র্ভতি করা হয়। পরে তাকে নবিড়ি পরর্চিযাকন্দ্রেে (আইসইিউ) র্ভতি করা হয়। তাকে লাইফসার্পোট দয়ো হয়। পরবিার ও স্থানীয় সূত্র জানায়, ২৭ র্মাচ সোনাগাজী ইসলাময়িা সনিয়ির ফাজলি মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা সরিাজউদ্দৌলার বরিুদ্ধে শ্লীলতাহানরি অভযিোগে মামলা করনে ওই ছাত্রীর মা। মামলার এজাহারে উল্লখে করা হয়ছে,ে ২৭ র্মাচ সকাল ১০টার দকিে অধ্যক্ষ তার অফসিরে পয়িন নূরুল আমনিরে মাধ্যমে ছাত্রীকে ডকেে ননে। পরীক্ষার আধাঘণ্টা আগে প্রশ্নপত্র দয়োর প্রলোভন দখেয়িে ওই ছাত্রীর শ্লীলতাহানরি চষ্টো করনে অধ্যক্ষ। পরে পরবিাররে করা মামলায় গ্রফেতার হন অধ্যক্ষ। সইে মামলা তুলে না নয়োয় অধ্যক্ষরে লোকজন ওই ছাত্রীর গায়ে আগুন দয়িছে।ে

র্ধষণরে বচিারে বশিষে ট্রাইব্যুনাল গঠনরে দাবি

ঢাকা অফসি ॥ র্ধষক ও যৌন নপিীড়কদরে র্সবােচ্চ শাস্তি দ্রুততম সময়ে নশ্চিতি করার জন্য বচিাররে সময় বঁেধে দয়িে বশিষে ট্রাইব্যুনাল গঠনরে দাবি উঠছে।ে গতকাল শুক্রবার রাজধানীতে গণপদযাত্রার এক র্কমসূচি থকেে এ দাবি তোলা হয়। স্বচ্ছোসবেী সংগঠন গৌরব ৭১ ‘যৌন নপিীড়ন ও র্ধষণবরিোধী’ এই গণপদযাত্রার আয়োজন কর।ে র্ধষকরে ফাঁসরি দাবি নয়িে তাদরে সঙ্গে যোগ দয়ে র্পূনমিা ফাউন্ডশেন ও চতেনা পরষিদ। বলো সাড়ে ১১ টায় শাহবাগ থকেে শুরু হয়ে এই গণপদযাত্রা কন্দ্রেীয় শহীদ মনিারে যায়। বভিন্নি শ্রণেী-পশোর শতাধকি মানুষ এই র্কমসূচতিে অংশ নয়িে ‘ফাঁসি চাই, ফাঁসি চাই, র্ধষকরে ফাঁসি চাই’ স্লোগান দনে। গণপদযাত্রা শষেে এক সংক্ষপ্তি সমাবশেে সম্মলিতি সাংস্কৃতকি জোটরে সভাপতি গোলাম কুদ্দুস বলনে, “এ অপরাধরে শাস্তি নশ্চিতি করতে হলে প্রচলতি আইনে এটি সম্ভব নয়। যার কারণে আমরা বলছি বশিষে ট্রাইব্যুনাল গঠন করতে হব।ে” বশিষে ট্রাইব্যুনাল গঠন করে বচিার শষে করার জন্য একটি সময় বঁেধে দওেয়ার দাবি জানয়িে তনিি বলনে, “সটেি ৩০ দনি হোক, ৬০ দনি হোক বা ৯০ দনি হোক। এর মধ্যে এই বচিাররে প্রক্রয়িা সমাপ্ত করে অপরাধীর শাস্তি নশ্চিতি করতে হব।ে এটইি আমাদরে দাব।ি আরকেটি দাবি হল- এই নর্যিাতনরে শকিার হল নারী। অথচ নারীকে পুলশিি তদন্তসহ বভিন্নি র্পযায়ে যে হয়রানরি শকিার হতে হয়, তার জন্য আমরা মনে করি যে তদন্ত ও বচিার প্রক্রয়িার সকল ক্ষত্রেে শুধুমাত্র নারীদরে অর্ন্তভুক্ত করা হোক।”বাংলাদশেরে নারী ও শশিু নর্যিাতন দমন আইন অনুযায়ী, র্ধষণরে র্সবােচ্চ শাস্তি যাবজ্জীবন কারাদন্ড। আর র্ধষণরে শকিার নারী বা শশিুর মৃত্যু হলে দোষী ব্যক্তরি র্সবােচ্চ শাস্তি হবে মৃত্যুদন্ড। এর পাশাপাশি দুই ক্ষত্রেইে র্অথ দন্ডরে বধিান আছ।েএ আইনরে মামলায়  নারী ও শশিু নর্যিাতন দমন ট্রাইব্যুনালে তদন্ত প্রতবিদেন দওেয়ার জন্য সাত দনি থকেে এক মাস এবং মামলা নষ্পিত্তরি জন্য একশত আশি দনি (ছয় মাস) সময় বঁেধে দওেয়া থাকলওে বাস্তবে ওই সময়রে মধ্যে রায় দওেয়া সম্ভব হয় না।তাছাড়া র্ধষণ এবং নারী ও শশিু নর্যিাতনরে এক একটি ঘটনা কছিু দনি পর পর সারা দশেকে নাড়া দয়িে গলেে এসব ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক বচিার ও শাস্তরি নজরি কম।র্ধষণরে বশেরিভাগ মামলা বচিাররে র্দীঘসূত্রতায় ধামা চাপা পড়ে যায়। তাছাড়া ঠকিমত ডাক্তারি পরীক্ষা না হওয়া, সামাজকি জড়তা, প্রভাবশালীদরে হস্তক্ষপেসহ নানা কারণে বচিার পাওয়া কঠনি হয়ে যায়।সরকাররে হসিাব অনুযায়ী ২০১৪ সালরে জানুয়ারি থকেে ২০১৭ সালরে ডসিম্বের র্পযন্ত দশেে ১৭ হাজার ২৮৯টি নারী ও শশিু নর্যিাতনরে মামলা হলওে তার মধ্যে মাত্র ৩ হাজার ৪৩০টি মামলার বচিার শষে হয়ছে।ে নম্নি আদালতে এসব মামলায় ১৭ জনকে মৃত্যুদন্ড, ৮০ জনরে যাবজ্জীবনসহ ৬৭৩ জনরে সাজা হলওে বাকি মামলার আসামরিা বচিাররে বাইরইে থকেে গছে।েগণপদযাত্রা শষেে গৌরব একাত্তররে সাধারণ সম্পাদক এফ এম শাহীন ঘোষণা দনে, ফনেীর মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফরি মৃত্যুর জন্য দায়ী সবাইকে আগামী এক সপ্তাহরে মধ্যে গ্রপ্তোর করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তরি ব্যবস্থা করা না হলে আগামী সপ্তাহে শাহবাগ থকেে সংসদ ভবন র্পযন্ত গণপদযাত্রা করবনে তারা। তনিি বলনে, “আজকে আমার মনে হয় প্রত্যকেটি শক্ষিা প্রতষ্ঠিান, ব্যবসা প্রতষ্ঠিানসহ বসেরকারি প্রতষ্ঠিান র্ধষকদরে নরিাপদ আশ্রয়। এইসব প্রতষ্ঠিানে আমাদরে বোনরো নরিাপদ নয়। তাই আমার মনে হয়, মা-বোনদরে নরিাপদ রাষ্ট্র দতিে গলেে আমাদরে রাস্তায় নামা ছাড়া কোনো বকিল্প নইে।”মাদ্রাসার অধ্যক্ষরে যৌন নপিীড়নরে প্রতবিাদ করায় ফনেীর সোনাগাজীর আলমি পরীর্ক্ষাথী নুসরাতরে গায়ে করেোসনি ঢলেে আগুন দওেয়া হয়। বুধবার রাতে হাসপাতালে চকিৎিসাধীন অবস্থায় মারা যায় ওই কশিোরী।র্পূণমিা ফাউন্ডশেনরে সভাপতি র্পূণমিা রানী শীল বলনে, “নুসরাতরে মৃত্যুর জন্য দায়ী অধ্যক্ষ সরিাজ উদ দৌলাসহ তার সহযোগীদরে আমরা আইনরে কাঠগড়ায় দখেতে চাই। এবং তনি মাসরে মধ্যে এই বচিাররে রায় চাই।”২০০১ সালরে নর্বিাচনে বএিনপ-িজামায়াত জোটরে জয়রে পর র্ধষণরে শকিার হন র্পূণমিা। দশ বছর পর সইে মামলার রায়ে ১১ জনকে যাবজ্জীবন কারাদ- দয়ে আদালত।র্পূণমিা বলনে, “ফাঁসটিাই আমাদরে কাম্য। আমরা ফাঁসি ছাড়া অন্য কছিু চাই না। নয়ত আমাদরে হাতে তুলে দনি, আমরা পুড়য়িে মারব, আমরা পুড়য়িে মারার জন্যই রাস্তায় নমেছে।ি” অন্যদরে মধ্যে চতেনা পরষিদরে সভাপতি জাহদি সোহলে এই র্কমসূচতিে বক্তব্য দনে।

পহলো বশৈাখে রাজধানীর উৎসবস্থলগুলো সসিটিভিি ক্যামরোর আওতায় থাকবে

ঢাকা অফসি ॥র্ যাপডি এ্যাকশন ব্যাটালয়িানরে র্(যাব) ভারপ্রাপ্ত মহাপরচিালক (ডজি)ি র্কনলে মো. জাহাঙ্গীর আলম বলছেনে, পহলো বশৈাখে র্বষবরণে নরিাপত্তা নশ্চিতি করতে রাজধানীর উৎসবস্থলগুলো সসিটিভিি ক্যামরোর আওতায় থাকবে এবং তা র্সাবক্ষণকি মনটিরংি করবের্ যাব। তনিি বলনে, নবর্বষকে ঘরিের্ যাবরে পক্ষ থকেে বশিষে নরিাপত্তা পরকিল্পনা গ্রহণ করা হয়ছে।ে যে কোন ধরনরে নাশকতা ঠকোতে প্রস্তুত রয়ছেের্ যাব । গতকাল শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর রমনা বটমূলে পহলো বশৈাখ অনুষ্ঠানকে ঘরিের্ যাবরে র্সাবকি নরিাপত্তা ব্যবস্থা র্পযবক্ষেণ শষেে তনিি এসব কথা বলনে। এসময়র্ যাবরে আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরচিালক কমান্ডার মূফতি মাহমুদ খান,র্ যাব-৩ এর অধনিায়ক লফেটন্যোন্ট র্কনলে এমরানুল হাসানসহর্ যাবরে অন্যান্য ব্যাটালয়িন র্কমর্কতারা উপস্থতি ছলিনে।র্ যাব ডজিি বলনে, পহলো বশৈাখে র্বষবরণ অনুষ্ঠানকে কন্দ্রে করে নগরীর রমনা র্পাক, সোহরওর্য়াদী উদ্যান, ঢাকা বশ্বিবদ্যিালয়, ধানমন্ডসিহ বভিন্নি গুরুত্বর্পূণ এলাকায় নাশকতা ঠকোতের্ যাবরে নরিাপত্তা বলয় জোরদার করা হয়ছে।ে পহলো বশৈাখ ঘরিে কোনো ধরনরে হুমকি আছে কি না এমন এক প্রশ্নরে জবাবে র্কনলে মো. জাহাঙ্গীর আলম বলনে, কোনো হুমকি নইে। রাজধানীতের্ যাবরে পাঁচটি ব্যাটলেয়িানরে অধকিাংশ র্কমর্কতারাই নবর্বষরে নরিাপত্তায় নয়িোজতি থাকবনে। তনিি বলনে, রমনা বটমূলসহ গুরুত্বর্পূণ সব ভন্যেুতে ডগ স্কোয়াডসহ বোম্ব ডস্পিোজাল ইউনটি সুইপংি করব।ে এছাড়া টহল টমি, মোটরসাইকলে পট্রেোল ও অবজারভশেন পোস্ট থাকব।ে তনিি আরো বলনে, বড় ভন্যেুগুলো মনটিরংি করার জন্য আমরা নয়িন্ত্রণকক্ষ স্থাপন করছে।ি বড় ভন্যেুতে মোবাইল র্কোটসহ মডেকিলে টমি থাকব,ে যাতে দশেরে মানুষ নবিঘিœে নবর্বষ উদযাপন করতে পার।ে অপর এক প্রশ্নরে জবাবের্ যাবরে এই র্কমর্কতা বলনে, গতকাল শুক্রবার থকেইে র্বষবরণ উপলক্ষে রাজধানীসহ দশেরে বভিন্নিস্থানের্ যাবরে গোয়ন্দো র্কাযক্রম চলছে এবং আজ থকেে র্পূণাঙ্গভাবে তা মনটিরংি করা হব,ে যা নববষর্রে রাত দশটা র্পযন্ত চলমান থাকব।ে তনিি বলনে, নবর্বষ উদযাপনে রমনায় স্ট্রাইকংি রজর্িাভ র্ফোস, ইভটজিংি প্রতরিোধে মোবাইল র্কোট থাকছ।ে টহল টমি, ফুট পট্রেোল, ওয়াচ টাওয়ার ও মোটর সাইকলে পট্রেোলরে ব্যবস্থা থাকছ।ে

 

দৌলতপুরে সংবর্ধনা, সম্মাননা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে এমপি বাদশা

শিক্ষার কোন বিকল্প নাই, সুশিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দেশ ও জাতির কল্যানে কাজ করতে হবে

শরীফুল ইসলাম ॥ কুষ্টিয়া-১ দৌলতপুর আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড. আ. কা. ম সরওয়ার জাহান বাদশা শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, শিক্ষার কোন বিকল্প নাই, সুশিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দেশ ও জাতির কল্যানে কাজ করতে হবে। তিনি বলেছেন শিক্ষিত জাতি মানে উন্নত জাতি তাই শিক্ষা অর্জনের কোন বিকল্প নাই। গতকাল শুক্রবার বিকেলে দৌলতপুর উপজেলার ফিলিপনগর হাইস্কুল মাঠে সংবর্ধনা, সম্মাননা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপস্থিত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি এসব কথা বলেছেন। ফিলিপনগর হাইস্কুলের সাবেক প্রধান শিক্ষক, অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সাংসদ এ্যাড. আ. কা. ম সরওয়ার জাহান বাদশা এমপি’র পিতা সকলের শ্রদ্ধাভাজন মুহা. শাজাহান আলীর সভাপতিত্বে সংবর্ধিত প্রধান অতিথি এ্যাড. সরওয়ার জাহান বাদশা তার বক্তব্যে বলেছেন, শিক্ষা, সংস্কৃতি, ইতিহাস ও ঐতিহ্যে ফিলিপনগর সবসময় এগিয়ে। অর্থ-সম্পদে ফিলিপনগর পিছিয়ে থাকলেও মাতুব্বরী বা নেতৃত্বে সবসময় ফিলিপনগর এগিয়ে থাকে। মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দিয়েছেন ফিলিপনগরের কৃতি সন্তান আজিজুর রহমান আক্কাস। মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী দেশ স্বাধীন হওয়ার পরও তিনি এমপি নির্বচিত হয়ে নেতৃত্ব দিয়েছেন। তিনি বলেন, সবকিছুর ভাগ নেওয়া সম্ভব হলেও লেখা-পড়ার ভাগ কেউ নিতে পারবেনা। তাই লেখা পড়া শিখে নিজেদের উন্নত জাতিতে পরিণত করতে হবে। তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে আরও বলেন, একটি পরাজিত গোষ্ঠী কৌশলে মৌলবাদ ছড়িয়ে দেওয়ার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে সে বিষয়ে লক্ষ্য রাখতে হবে যেন তারা কোনভাবেই মাথা চাড়া দিতে না পারে। এমপি বাদশা আগামীতে উন্নত ফিলিপনগরসহ দৌলতপুর দেখার স্বপ্ন পুরণ ও বাস্তবায়নের জন্য রায়টা-প্রাগপুর-মুজিবনগর রেল পথ, প্রাগপুর স্থলবন্দর বাস্তবায়ন, মরা হিসনা নদী খনন, ভেড়ামারা-প্রাগপুর সড়ক চারলেনে রূপান্তর, থানামোড়-কাতলামারী সড়ক প্রশস্তকরণ, শেখ রাসেল ষ্টেডিয়াম নির্মান, শিল্পকলা ভবন নির্মান, কারিগরি প্রশিক্ষন কেন্দ্র নির্মাণ ও দৌলতপুরের ৫০ শয্যা হাসপাতালকে ১০০ শয্যায় রূপান্তর করার প্রতিশ্র“তির কথা বলেন। আর এসব স্বপ্ন পুরণ ও বাস্তবায়নের জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানান। শেষে তিনি যে যার অবস্থান থেকে দুর্নীতি, মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানিয়ে অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষকদের সম্মান জানিয়ে বক্তব্য শেষ করেন। ‘আমাদের ছোট গ্রাম মায়ের সমান’ এই ¯ে¬াগান নিয়ে ভয়েস অব ফিলিপনগর, ফিলিপনগর ছাত্রকল্যাণ পরিষদ, শিকড় ও প্রকৃতির পাঠশালা সংগঠনের আয়োজনে সংবর্ধনা, সম্মাননা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, আরমা গ্র“পের চেয়ারম্যান ফিলিপনগরের কৃতি সন্তান আব্দুর রাজ্জাক ও জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক এ্যাড. হাসানুল আসকার হাসু। বক্তব্য রাখেন, ফিলিপনগর ইউপি চেয়ারম্যান একেএম ফজলুল হক কবিরাজ, শরিফুল কবীর স্বপন, এ্যাড. মো. গোলাম সরোয়ার, সরকার আমিরুল ইসলাম, শামসুল আলম, প্রকৌশলী ইলিয়াস হোসেন, জাফর আহমেদ ও এস এম মিজানুর রহমানসহ সংশি¬ষ্ট অনেকে। অনুষ্ঠানে কুষ্টিয়া-১ দৌলতপুর আসনের সংসদ সদস্য ফিলিপনগরের কৃতি সন্তান এ্যাড. আ. কা. ম সরওয়ার জাহান বাদশাকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। ফিলিপনগর এলাকার অবসরপ্রাপ্ত বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৫৫জন শিক্ষককে সম্মাননা প্রদান করা হয় এবং কৃতি শিক্ষার্থীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন অতিথিবৃন্দ। ব্যতিক্রমী অনুষ্ঠানে এলাকার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও আমন্ত্রিত সুধীজন উপস্থিত ছিলেন।