গাংনীতে অগ্নিকান্ডের ছাগলের মৃত্যু

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার কাজীপুর গ্রামে এক কৃষকের বাড়িতে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় একটি ছাগলের মৃত্যু হয়েছে। এসময় ঘরে থাকা নগদ টাকা, ধান-চাউলসহ ২ লক্ষাধিক টাকার মালামাল পুড়ে ছাই হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালের দিকে কাজীপুর গ্রামের কৃষক শহিদুল ইসলামের বাড়িতে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানান, সকালে কাজীপুর গ্রামের মাঠপাড়ার বিশারত আলীর ছেলে কৃষক শহিদুল ইসলামের রান্না ঘর থেকে আগুন ছড়িয়ে বসতঘরে লাগে। এ সময় ঘরের বারান্দায় বেঁধে রাখা একটি ছাগল,ঘরে রাখা নগদ টাকা, ধান-চাউলসহ আনুমানিক ২ লক্ষাধিক টাকার মালামাল পুড়ে যায়। গৃহকর্তা শহিদুল ইসলাম জানান, আমার রান্না ঘরসহ বসত ঘরে আগুন লাগার ফলে সব জিনিসপত্র পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এ সময় আগুন লেগে একটি ছাগল মারা যায়।  বর্তমান আমার কোনো সম্পদ বলতে কিছু নাই।

কুষ্টিয়ার মিলপাড়ায় ৫ দিনব্যাপী বাসন্তী পূজার উদ্বোধন

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ায় ৫ দিনব্যাপী শ্রীশ্রী বাসন্তী পূজার উদ্বোধন করা হয়েছে। মিল লাইন শক্তির দেবী অর্চনা সংঘ এর আয়োজনে, ১১ এপ্রিল রাতে কুষ্টিয়া শহরের মিলপাড়ার মিললাইন ব্যাডমিন্টন মাঠ প্রাঙ্গনে এ পূজার উদ্বোধন করা হয়। রাতে এ উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া শহর আওয়ামীলীগের সভাপতি তাইজাল আলী খান। তিনি বলেন, ধর্ম যার যার উৎসব সবার। বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। এ দেশে সকল ধর্মের মানুষ শান্তিতে বসবাস করে চলেছে। কিন্তু একটি কুচক্রি মহল দেশের শান্তি নষ্ট করার জন্য মাঝে-মধ্যে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়। এসব ষড়যন্ত্রকারীদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শান্তি দিতে হবে। যাতে করে আর কেউ দেশের শান্তি নষ্ট করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত না হয়। মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্বলন করে শ্রীশ্রী বাসন্তী দেবীর পূজার উদ্বোধন করেন কুষ্টিয়া জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদের সভাপতি নরেন্দ্রনাথ সাহা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও মিল লাইন পূজা মন্দির কমিটির সভাপতি নিলয় কুমার সরকার। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা রবীন্দ্রনাথ সেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা স্বপন কুমার নাগ চৌধুরী, ১১ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মুছা আলী খান, মিল লাইন পূজা মন্দির কমিটির উপদেষ্টা অশোক কুমার সেন প্রমুখ। এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদের সভাপতি চিত্ত রঞ্জন পাল, মিলপাড়া সার্বজনীন পূজা মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক স্বপন কুমার পাড়ই কালা, জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদের সহ-কোষাধ্যক্ষ পরেশ রায় নাড়–, জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদের প্রচার সম্পাদক সাংবাদিক সুজন কুমার কর্মকার প্রমুখ। পরে মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করে ৫ দিনব্যাপী শ্রীশ্রী বাসন্তী পূজার উদ্বোধন করা হয়। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মিল লাইন শক্তির দেবী অর্চনা সংঘ এর সদস্য সচিব বিপ্লব বিশ্বাস। এ সময় আয়োজক কমিটির মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন অঙ্কুর, মাইকেল, সাগর, শীপন, মিঠু, হুদয়, শুভ, পিয়ন, লিখন, সীমান্ত, সৌরভ, প্রকাশ প্রমুখ।

ঝিনাইদহে বিশ্ব পানি দিবস পালিত

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ‘পানি সবার অধিকার, বাদ রবে না কেউ আর’ এ শ্লোগানকে সামনে রেখে ঝিনাইদহে বিশ্ব পানি দিবস পালিত হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের আয়োজনে বৃহস্পতিবার সকালে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে থেকে একটি র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক ঘুরে একই স্থানে গিয়ে শেষ হয়। পরে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। ঝিনাইদহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সারোয়ার জাহান সুজন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ। বিশেষ অতিথি ছিলেন ঝিনাইদহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (শৈলকুপা সার্কেল) তারেক আল মেহেদি, স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক সাইফুর রহমান খান, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ছাদেকুর রহমান, পরিবেশবিদ মাসুদ আহম্মেদ সঞ্জু। বক্তারা সমাজের সবার জন্য পানির প্রাপ্যতা নিশ্চিত করার দাবি জানান।

মিরপুরে দৈনিক সত্যখবর পত্রিকার ৭ম বর্ষপূর্তি পালন

মিরপুর অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে দৈনিক সত্যখবর পত্রিকার ৭ম বর্ষপূর্তি উদযাপন করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকলে মিরপুর উপজেলা পরিষদের কনফারেন্স রুমে এ উপলক্ষে কেক কাটা আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সত্য খবর পত্রিকার সিনিয়ার স্টাফ রিপোর্টার আলম মন্ডলের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন মিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম জামাল। বিশেষ অতিথি ছিলেন মিরপুর  পৌরসভার মেয়র হাজী এনামুল হক, মিরপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জুলফিকার হায়দার, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সেলিম হোসেন ফরাজী, সদরপুর ইউপি  চেয়ারম্যান রবিউল হক, আমল ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম, মিরপুর থানার সেকেন্ড অফিসার বুরহানুল ইসলাম, মিরপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আসাদুজ্জামান বাবু, সহ-সভাপতি কাঞ্চন হালদার, মিরপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রাশেদুজ্জামান রিমন, জেলা মাদক প্রতিরোধ কমিটির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এম সোহাগ হাসান, সাংগঠনিক সম্পাদক সাংবাদিক শাহারিয়া ইমন রুবেল, মিরপুর মাদক প্রতিরোধ কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক হাসানুর খান তাপস, সাংবাদিক সুমন মাহমুদ প্রমুখ।

ব্যাংকগুলো ‘ডাকাতি’ করছে -বাণিজ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ ব্যাংকগুলোর ঋণ এবং আমানতের সুদের পার্থক্য ৫ শতাংশের বেশি হওয়াকে ‘ডাকাতি’ বলেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকায় এক আলোচনা অনুষ্ঠানে একথা বলেন তিনি। টিপু মুনশি বলেন, “যে টাকা তারা (ব্যাংক) সুদ দেয় জনগণকে এবং যে টাকা তারা সুদ নেয় এই ডিফারেন্সটা পৃথিবীর কোথাও ২ শতাংশ বা ৩ শতাংশের বেশি না। বাংলাদেশেই একমাত্র যেখানে ৫ শতাংশের ওপরে এই ডিফারেন্স। এটা রীতিমতো ডাকাতি।” ব্যাংক ঋণে উচ্চ সুদ হার নিয়ে ব্যবসায়ীরা অসন্তোষ প্রকাশ করে আসছে। তারা বলছে, এতে বিনিয়োগ ব্যাহত হচ্ছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী সুদের হার এক অঙ্কে নামিয়ে আনতে বলেন। তৈরি পোশাক ব্যবসায়ী টিপু মুনশি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার পরও ব্যাংকগুলো তা মানছে না। “মানুষের ডিপোজিটের এগেইনেস্টে কত টাকা তারা পে করছে, আর কত টাকা তারা নিচ্ছে, এটা একটা সিস্টেমে আনার দরকার। এই ব্যাপারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বার বার নির্দেশনা দিচ্ছেন, সুদের হার সিঙ্গেল ডিজিটে নামিয়ে আনা হোক।” সুদের হার কমলে ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি হলে তাতে সাধারণ মানুষেই উপকৃত হবে, বলেন বাণিজ্যমন্ত্রী। আব্দুল গণি রোডে বিদ্যুৎ ভবনে কনজুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) আয়োজিত ‘ভোক্তা অধিকার শক্তিশালীকরণ’ শীর্ষক ওই সেমিনারে বক্তব্য রাখেন টিপু মুনশি। পণ্য কেনার আগে মানুষকে সচেতন করার উপর জোর দিয়ে তিনি বলেন, “আমি যা কিনছি, সেই বিষয়ে আমার জানতে হবে, আমি যা কিনছি সেই পণ্যের দাম কত এবং তা মেনটেইন করতে হবে। এসব ক্ষেত্রে আমরা পিছিয়ে আছি।” বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ব্যবসার দিকে যেমন লক্ষ্য রাখতে হবে, তেমনি ভোক্তাদের অধিকারও সংরক্ষণ করতে হবে। “ব্যবসার পরিবারেশ ভালো না থাকলে ভোক্তাদের কেনার সামর্থ্য থাকবে না। অর্থনৈতিকভাবে সচ্ছল থাকতে হবে। আমার যদি একটি টাকাও না থাকে, তাহলে আমি কীভাবে কিনব? তাই আমাদের মানুষের আয় বাড়াতে হবে, যাতে তাদের কেনার সামর্থ্য বাড়ে।” ক্যাবের সভাপতি গোলাম রহমান বলেন, “ব্যাংক খাতে অব্যবস্থাপনার কারণে ঋণ খেলাপির পরিমাণ বেড়ে যায়। এতে ব্যাংকে যারা টাকা জমা করে, তারা সুফল পাচ্ছে না। আবার ব্যাংকগুলো বেশি হারে ভোক্তাদের কাছ থেকে সুদ আদায় করে। এই বৈষম্য দূর করতে হবে।” ভোক্তাদের স্বার্থে নতুন যেসব আইন প্রণয়ন হয়েছে, সেগুলো কার্যকরে যেসব প্রতিষ্ঠানকে সরকার দায়িত্ব দিয়েছে, সেগুলো শক্তিশালী নয় বলে দাবি করেন সাবেক এই সচিব। ভোক্তাদের ‘পকেট কাটার’ বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। জাতীয় বাজেটে ভোক্তাদের স্বার্থ সংরক্ষণ নিশ্চিতের আহ্বানও তিনি জানান। খাদ্যপণ্যে ভেজালের ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে বাণিজ্য সচিব মো. মফিজুল ইসলাম বলেন, “বাজারে একটি বেগুনও পাওয়া যাবে না যে তাতে ফরমালিন বা কীটনাশক দেওয়া হয়নি। এই সমস্যা দূর করতে সবার সম্মিলিত উদ্যোগ প্রয়োজন।” তিনি বলেন, “কিছু কিছু ব্যবসায়ী আছে, তারা এমন কাজ করছে, যা মানুষকে হত্যা করার মতো। এই জায়গাতে আমাদের ব্যবস্থা নিতে হবে।” সভায় জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম লস্কর, বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মাহফুজুল হক, ক্যাবের সহ-সভাপতি এস এম নাজের হোসেইনও বক্তব্য দেন।

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে বিদ্যুত স্পৃষ্ট হয়ে কিশোরের মৃত্যু

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে বিপ্লব হোসেন(১৩) নামে এক কর্মজীবী কিশোরের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নিজ বাড়িতে সে বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে মারা যায়। বিপ্লব কালীগঞ্জ উপজেলার বাবরা গ্রামের লোকমান শেখের ছেলে। নিহতের প্রতিবেশি নাসিম উদ্দীন জানান, সকালে নিজেদের ঘরে বিদ্যুতের তার নিয়ে কাজ করছিল বিপ্লব। এসময় সে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়। পরিবারের সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করলে সে মারা যায়। বিপ্লব একজন কর্মজীবি কিশোর বলেও জানান এ প্রতিবেশী। কালীগঞ্জ থানার অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) ইউনুচ আলী জানান, একজন কিশোর বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে হাসপাতালে মারা গেছে। সেখানে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক অরুণ কুমার তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, হাসপাতালে আনার আগেই বিপ্লব মারা গিয়েছিল।

খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে তামাশার রাজনীতি থেকে বেরিয়ে আসুন – ড. হাছান মাহমুদ

ঢাকা অফিস ॥ তথ্যমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বেগম খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে তামাশার রাজনীতি থেকে বেরিয়ে আসতে বিএনপির নেতাদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন। তিনি গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন। আওয়ামী লীগের অন্যতম মুখপাত্র ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘সরকার নয়, বিএনপির নেতারাই বেগম খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে তামাশা করছে। তার শরীরের তাপমাত্রা কতটুকু বাড়ল বা কমল তা নিয়ে তারা দিনে দু’বার সংবাদ সম্মেলন করেন।’ তিনি বলেন, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সকালে বেগম জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে একবার সংবাদ সম্মেলন করেন। আবার বিকেলে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকার জন্য দলটির যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ সংবাদ সম্মেলন করেন। ড. হাছান বলেন, বিএনপির রাজনীতি বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসার মধ্যে আটকে গেছে। তারাই তার চিকিৎসাসেবার মাধ্যমে রাজনীতি করে তামাশার নাটক করছে। তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান বলেন, বিএনপি নেত্রী বেগম জিয়ার হাঁটু ও কোমরের ব্যথা অনেক আগে থেকেই ছিল। এ ধরণের ব্যথা নিয়েই তিনি দু’বার দেশের প্রধানমন্ত্রী এবং বিএনপির মত একটি বড় দলের চেয়ারপার্সনের দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি বলেন, তাই সরকার বেগম জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে নাটক করছে না, বরং বিএনপির নেতারাই তার চিকিৎসা নিয়ে দিনে দু’বার সংবাদ সম্মেলন করে তামাশার নাটক করছেন। বেগম খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তি নিয়ে তথ্যমন্ত্রী বিএনপির নেতাদের বক্তব্যের জবাবে বলেন, প্যারোলে কিভাবে মুক্তি পাওয়া যায় সে বিষয়ে বিএনপির নেতাদের আগে জানা উচিত। প্যারোলের আইন কানুন ও বিধি-বিধান সম্পর্কে তাদের পড়াশুনা করা দরকার। তিনি বলেন, সরকার জোর করে কাউকে প্যারোলে মুক্তি দিতে পারে না। যিনি প্যারোলে মুক্তি চান তাকে আবেদন করতে হয়। আন্দোলন করে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে আনা হবে বিএনপির নেতাদের এমন বক্তব্যের জবাবে ড. হাছান বলেন, তাদের (বিএনপি) আন্দোলনের তর্জন-গর্জন হচ্ছে খাঁচায় আবদ্ধ রোগাক্রান্ত সিংহের গর্জনের মতো। তিনি বলেন, এ ধরনের গর্জনে দর্শকরা যেমন আনন্দ পায় তেমনি বিএনপির আন্দোলনের তর্জন-গর্জনেও দেশের মানুষ বিনোদন পায়। বেগম জিয়াকে মুক্ত করতে আন্দোলনের কৌশল নির্ধারণে সহযোগী সংগঠনের সংগে বিএনপির বৈঠকের বিষয়ে আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, সরকার দশ বছর ধরে বিএনপির আন্দোলনের হুমকির মধ্যে রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ তৃতীয়বারের মত সরকার গঠন করেছেন।এ বিষয়ে তিনি আরো বলেন, বিএনপির আন্দোলনের কৌশল নির্ধারণ করতে আরো কত বছর লাগে সেটাই দেখার বিষয়। আর তাদের আন্দোলনের তর্জন-গর্জন দিয়ে কোন লাভ হবে না। তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর রাষ্ট্রযন্ত্র থেকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস মুছে ফেলার চেষ্টা করা হয়েছিল। পাকিস্তানের দোসর ও পরিস্থিতির কারণে স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ নেয়া একজন মুক্তিযোদ্ধাকে মুক্তিযুদ্ধের নায়ক বানানোর অপচেষ্টা চালানো হয়েছিল। তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াতের সেই অপচেষ্টা সফল হয় নি। কারণ, ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর নতুন প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানতে পেরেছে। ড. হাছান বলেন, জামায়াতে ইসলামী মুক্তিযুদ্ধের সময় দেশের মুক্তিকামী মানুষের বিরুদ্ধে অস্ত্র ধরেছিল। সেই জামায়ত এখন বিএনপির ছত্রছায়ায় রাজনীতি করার চেষ্ঠা করছে। তাদের অপচেষ্টা এখনও অব্যাহত রয়েছে। তিনি বলেন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান পাকিস্তানের এজেন্ট হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহন করেছিলেন। তা এখন দেশের মানুষের কাছে পরিষ্কার হয়ে গেছে। মুক্তিযুদ্ধের সময় জিয়াউর রহমানকে লেখা পাকিস্তানী সেনাকর্মকতার চিঠির মাধ্যমে তা প্রমাণ হয়েছে। তথ্যমন্ত্রী বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা নিয়ে প্রশ্ন তোলে পাকিস্তান আর বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। আর যুদ্ধাপরাধীর বিচার নিয়ে বিএনপি যেমন বিরোধীতা করে, তেমনি পাকিস্তান তাদের জাতীয় পরিষদে যুদ্ধাপরাধের বিচারের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব আনে। এতেই প্রমাণ হয়, বিএনপির সঙ্গে পাকিস্তানের যোগসাজশ ছিল এবং এখনও রয়েছে। তিনি আরো বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় মুক্তিযোদ্ধাদের পানি খাওয়ানোর সামান্য অপরাধে অনেককে হত্যা করা হয়েছে এবং বাড়ী-ঘর জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছে। আর যেখানে জিয়াউর রহমান মুক্তিযুদ্ধ করছেন, আর তার স্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে আদর-যতœ করে সেনানিবাসে রাখা হয়েছে। এটাও প্রমাণ করে তাদের সঙ্গে পাকিস্তানের যোগসাজশ ছিল। ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগের সাবেক সভাপতি মো. মুনির উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগ নেতা এডভোকেট বলরাম পোদ্দার, আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগের সভাপতি এডভোকেট আসাদুজ্জামান দূর্জয় ও বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুন সরকার রানা।

মিরপুরে বিশ্ব পানি দিবস পালিত

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে বিশ্ব পানি দিবস পালিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা প্রশাসন ও কুষ্টিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের যৌথ উদ্যোগে এ উপলক্ষে এক বর্নাঢ্য র‌্যালী বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করেন। পরে উপজেলা সভাকক্ষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম জামাল আহমেদের সভাপতিত্বে এ সময়ে বক্তব্য রাখেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শরীফ আসিফ রহমান, সদরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রবিউল হক রবি, আমলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম মালিথা, কুষ্টিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী শামীম হাসনাইন মাহমুদ, উপ-সহকারী প্রকৌশলী আশিকুর রহমান, প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি কাঞ্চন কুমার হালদার, সাধারণ সম্পাদক রাশেদুজ্জামান রিমন, উপজেলা শ্রমিকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফুল আলম হীরা, সাংবাদিক সুমন মাহমুদ প্রমুখ।

নুসরাতের মামলা ফার্স্ট ট্র্যাক করার নির্দেশ দেব – আইনমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, আপনারা জানেন মামলা হয়েছে। মামলার তদন্ত শেষে একটি অভিযোগপত্র দিতে হবে। আমি আপনাদের বলছি এইরকম মামলা যখনই হবে এটাকে ফার্স্ট ট্র্যাক করবে। আমি প্রসিকিউশসনকে নির্দেশ দেব, যাতে এটাকে ফার্স্ট ট্র্যাক করা হয়। কোনো প্রশ্নেরও প্রয়োজন হবে না। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের সঙ্গে বৈঠক শেষে বেরিয়ে যাওয়ার সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা জানান। আইনমন্ত্রী বলেন, যৌন হয়রানির প্রতিবাদের কারণে ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে গায়ে কেরোসিন ঢেলে পুড়িয়ে হত্যা মামলা প্রয়োজনে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর করা হবে। প্রসঙ্গত, ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার ছাত্রী নুসরাত এ বছর আলিম পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছিলেন। ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ এস এম সিরাজ উদ দৌলার বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ এনে গত মার্চে সোনাগাজী থানায় একটি মামলা করে নুসরাতের পরিবার। সেই মামলা তুলে না নেয়ায় অধ্যক্ষের অনুসারীরা গত ৬ এপ্রিল (শনিবার) পরীক্ষার কেন্দ্র থেকে ডেকে নিয়ে নুসরাতের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় বলে মেয়েটির পরিবারের অভিযোগ। ঢাকা মেডিকেলে পাঁচদিন চিকিৎসাধীন থাকার পর বুধবার (১০ এপ্রিল) রাতে মারা যান তিনি।

কালুখালীতে সায়েন্স ক্লাবের উদ্যোগে ২য় গণিত উতসবের ফলাফল ও পুরস্কার বিতরণ

ফজলুল হক ॥ গতকাল বৃহস্পতিবার রাজবাড়ীর কালুখালীতে সায়েন্স ক্লাবের আয়োজনে ২য় গণিত উৎসব ২০১৯ এর ফলাফল ঘোষণা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল ১১টায় এ উপলক্ষ্যে উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে এক আলোচনা সভায় অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট যশোর মো. আকরাম হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কালুখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার কামরুন নাহার। তিনি তার বক্তব্যে উপজেলা পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে গণিতের ধারনা পৌছে দেওয়ার জন্য সায়েন্স ক্লাবকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে উপস্থিত শিক্ষার্থীদের গণিত বিষয়ে সকলকে বেশি বেশি পড়ালেখায় মনোযোগী হওয়ার তাগিদ প্রদান করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সিহাব হোসেন এর সঞ্চালণায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মৃগী বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ শাহজাহান আলী, কালুখালী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আয়ুব আলী, কালুখালী দাখিল মাদরাসার ভারপ্রাপ্ত সুপার মাওঃ মোঃ ইমারত হোসেন খান, আলহাজ্ব্ আমেনা খাতুন বিদ্যাপীঠের প্রধান শিক্ষক শাজাহান আলী, খাগজানা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নজরুল ইসলাম এছাড়াও ক্লাবের সভাপতি আসিবুর রহমান (অংকন), সাধারণ সম্পাদক নাসিরুল হুসাইন, সদস্য মোঃ জাকারিয়া জিকু, ইব্রাহিম হোসেন ও আশরাফুলসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতির সমাপনী বক্তব্যে মো. আকরাম হোসেন বলেন, তথ্য প্রযুক্তির বিজ্ঞানের এ যুগে সকল শিক্ষার্থীকে বিজ্ঞান ও গণিত সম্পর্কে বিষদ ধারনা থাকতে হবে। এই দুটির মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দেশ ও দেশের জনগনের উন্নয়নের জন্য কাজ করতে পারবে। আলোচনা শেষে অংশগ্রহণকারী উপজেলার সকল বিদ্যালয়ের মধ্যে ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের প্রতি ক্লাসে ৫ জনকে পুরস্কৃত করা হয়। এছাড়াও অনুষ্ঠানের সভাপতি মো. আকরাম হোসেন ও বিশেষ অতিথি উপজেলা নির্বাহী অফিসার কামরুন নাহারকে ক্লাবের পক্ষ থেকে সম্মাননা ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়।

গাংনীতে ৯ লক্ষাধিক টাকা মূল্যের ভারতীয় রুপি উদ্ধার

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার সহড়াতলা সীমান্ত থেকে ৯ লক্ষাধিক টাকা মূল্যের ভারতীয় রুপি উদ্ধার করেছে বিজিবির একটিদল। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৬টার দিকে সহড়াতলা সীমান্তের ১৪২/৬ নাম্বার পিলারের নিকট হাজীবাড়ি গেট নামক স্থানে অভিযান চালিয়ে পরিত্যক্ত অবস্থ্ায় একটি বস্তায় রাখা রুপি উদ্ধার করে। সহড়াতলা বিওপি কমান্ডার আব্দুল হাই দৈনিক আন্দোলনের বাজারকে  জানান, সকালের দিকে সহড়াতলা সীমান্ত দিয়ে মালামাল পাঁচার হচ্ছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালানো হয়। পাঁচারকারীরা বিজিবির উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায়। এ সময় সহড়াতলা হাজীবাড়ির গেট নামক স্থান থেকে বস্তা ভর্তি ৯ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা মূল্যের ভারতীয় রুপি উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনার সাথে জড়িত পাঁচারকারীদের আটক করতে বিজিবি কাজ করছে।

নুসরাত হত্যাকান্ডে জড়িতদের অবশ্যই শাস্তি পেতে হবে – স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ যৌন হয়রানির প্রতিবাদের কারণে ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রীকে নুসরাত জাহান রাফিকে গায়ে কেরোসিন ঢেলে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় জড়িত অপরাধীকে শাস্তি পেতেই হবে বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, পিবিএর ইনভেস্টিগেশনের পর জানা যাবে অধ্যক্ষ দোষী কি না বা কতখানি তিনি দোষ করেছেন। এটা অবশ্যই আমরা বের করব। অবশ্যই অপরাধীকে শাস্তি পেতে হবে এবং যারা অধ্যক্ষের মুক্তির দাবিতে আন্দোলন করছেন, তারা তখন তাদের ভুলের প্রমাণ পাবেন। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের করা এক প্রশ্নের জবাবে আসাদুজ্জামান খান কামাল এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, আমরা এটাকে (নুসরাত হত্যার ঘটনা) খুবই সিরিয়াসলি নিয়েছি। কোনো আসামি কিংবা যারা এখানে বিন্দুমাত্র জড়িত ছিল, তাদের কেউ আইনের হাত থেকে বাদ যাবে না। তাদের সবাইকে বিচারের মুখোমুখি আমরা করব। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, নুসরাত হত্যার ঘটনায় আমরা সবাই দুঃখ প্রকাশ করছি। আসলেই আমরা সবাই ব্যথিত। এ ধরনের মৃত্যু আমাদের সবাইকে ব্যথিত করে। তাকে যে অমানসিক নির্যাতন করা হয়েছে, পুড়িয়ে মারা হলো, এটা কারও কাম্য নয়। তিনি বলেন, আসলে সেখানে কী ঘটনা ঘটেছে, সে জন্য পিবিআই তদন্তভার গ্রহণ করেছে। আইনমন্ত্রীও বলেছেন এটা যাতে খুব তাড়াতাড়ি বিচারকার্য শেষ হয়, তার ব্যবস্থা তিনি করবেন। পিবিএও যত দ্রুত সম্ভব এটার চার্জশিট প্রদান করবে। ‘অপরাধীদের মুক্তির দাবিতে কেউ কেউ আন্দোলন করছেন, এরা কারা’ এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দেখুন এই ধরনের কর্মকান্ড যারা করছেন, তারা হয়তো না জেনেই করছেন। কারণ এই অধ্যক্ষ বা যারা এই ঘটনাটি ঘটিয়েছেন তাদের বিষয়ে আন্দোলনকারীরা যদি জানতো তাহলে তারা এই আন্দোলন করতো না।

কুষ্টিয়ায় জন্মগত ঠোঁটকাটা-তালুকাটা রোগীদের অপারেশন কার্যক্রমের উদ্বোধন

নিজ সংবাদ ॥ শেখ হাসিনা ফ্রি স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্র কুষ্টিয়া এর আয়োজনে ও জার্মান-বাংলাদেশ ক্লেফট প্রোজেক্ট এর সহযোগিতায় দুই দিনব্যাপী জন্মগত ঠোঁটকাটা-তালুকাটা রোগীদের সম্পূর্ন বিনামূল্যে ঔষধসহ অপারেশন কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে। ১১ এপ্রিল বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় কুষ্টিয়া শহরের এনএস রোডস্থ ডাঃ লিজা- ডাঃ রতন ম্যাটস গ্যালারীতে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ রবিউল ইসলাম। সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সহযোগী অধ্যাপক ডাঃ মুহাম্মদ কামরুজ্জামান ও জর্মানীর বিশিষ্ট চিকিৎসক ডাঃ উলরিকা লামলে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন শেখ হাসিনা ফ্রি স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্র কুষ্টিয়া এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডাঃ আসমা জাহান লিজা। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মোঃ মনিরুজ্জামান, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন শেখ হাসিনা ফ্রি স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্র কুষ্টিয়ার প্রতিষ্ঠাতা ডাঃ আমিনুল হক রতন। এ সময় কুষ্টিয়ার বিভিন্ন স্তরের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

 

দৌলতপুর আল্ল¬ারদর্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ

দৌলতপর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার আল্ল¬ারদর্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১ টায় আল্ল¬ারদর্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয় চত্বরে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আল্ল¬ারদর্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও জেলা পরিষদের সদস্য আসাদুজ্জামান লোটন চৌধুরী সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক সাংসদ সদস্য আলহাজ্ব মো. রেজাউল হক চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা শিক্ষা অফিসার মো. জায়েদুর রহমান। উপস্থিত ছিলেন দৌলতপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার নাজমুল হক, জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন মাষ্টার, জেলা পরিষদেরর সদস্য আব্দুল্লাহেল বাকী, হোগলবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যন সেলিম চৌধুরী, আলহাজ্ব গোলাম মোস্তাকিম, আল্ল¬ারদর্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক মখলেছুর রহমান, বিডিএস মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইয়াকুব আলী, বিসিকে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আকমল হোসেন প্রমুখ। আলোচনা শেষে পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়। এরপর অনুষ্ঠিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও এলাকার সুধীজন উপস্থিত ছিলেন।

গাংনী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান-ভাইস চেয়ারম্যানদের গণসংবর্ধনা

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও মেহেরপুর জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ খালেক, গাংনী উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট রাশেদুল হক জুয়েল ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফারহানা ইয়াসমিনকে গণসংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে গাংনী বাসস্ট্যান্ডের  রেজাউল চত্বরে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে  গাংনী উপজেলা যুবলীগ। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মোশাররফ হোসেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন,   মেহেরপুর-২ (গাংনী) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন। বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন, জেলা আ.লীগের সহ-সভাপতি সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সিরাজুল ইসলাম স্যার, গাংনী পৌরসভার সাবেক মেয়র ও আ.লীগ নেতা আহমেদ আলী। এ সময় বক্তব্য রাখেন গাংনী পৌর আ.লীগের সভাপতি সানোয়ার হোসেন বাবলু, সাধারণ সম্পাদক আনারুল ইসলাম বাবু । উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী মহাম্মদ শফি কামাল পলাশের সঞ্চালনায় এ সময় বক্তব্য রাখেন গাংনী উপজেলা পরিষদের নব-নির্বাচিত ভাইস  চেয়ারম্যান রাশেদুল হক জুয়েল, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফারহানা ইয়াসমিন, যুবলীগ নেতা রাহিবুল ইসলাম প্রমুখ। অনুষ্ঠানের শুরুতে গাংনী উপজেলা পরিষদের নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান এম এ খালেক, ভাইস চেয়ারম্যান রাশেদুল হক জুয়েল ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফারহানা ইয়াসমিনকে ফুলের তোড়া দিয়ে বরণ করে নেন যুবলীগের নেতৃবৃন্দ। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ,আ.লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষকলীগসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

জাবিতে হামলার প্রতিবাদে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে মানববন্ধন

ইবি প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় বৃহত্তর বরিশাল বিভাগ ছাত্রকল্যাণ সমিতির আয়োজন ইবির খেলোয়াড় শিক্ষক ও  কোচের উপর জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচি বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায়  মৃত্যুঞ্জয়ী মুজিব চত্বরে মানববন্ধন ককর্মসূচী পালিত হয়। মানববন্ধনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক আরিফুর রহমান, অর্থ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) মোস্তাফিজ রাকিব, ছাত্রী বিষয়ক সম্পাদক মুশফিকা জাহান, মোঃ ইব্রাহিম, হৃদয় আকন, আবু জাফর সালেহসহ অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী। এসময় বক্তাগণ বলেন এরকম অমানবিক হামলার প্রতিবাদে আমাদের আজকের এই মানববন্ধন। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি সেই সাথে জড়িতদের চিহ্নিত করে দ্রুত বিচারের দাবি জানাচ্ছি। উল্লেখ্য বুধবার বিকেলে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় হ্যান্ডবল-২০১৯ এর সেমিফাইনালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের হাতে ইবির ১২ খেলোয়াড়সহ তিন শিক্ষক এবং ইবি ক্রীড়া বিভাগের পরিচালক ড. মোঃ সোহেল আহত হয়েছেন।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে আন্তর্জাতিক চাপ অব্যাহত রাখার আহ্বান ফিনল্যান্ডের

ঢাকা অফিস ॥ বাংলাদেশে নিযুক্ত ফিনল্যান্ডের অনাবাসিক রাষ্ট্রদূত নিনা ভাসকুনলাতি রাখাইন থেকে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদেরকে দ্রুত নিজ বাসভূমে ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমার সরকারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ অব্যাহত রাখার আহ্বান জানিয়েছেন। অনাবাসিক রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘মিয়ানমারকে তাদের নাগরিকদের দেশে ফিরিয়ে নিতে বিশ্ব সম্প্রদায়ের চাপ অব্যাহত রাখতে হবে।’ তিনি গতকাল বৃহস্পতিবার অপরাহ্নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে গণভবনে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে এসে এ আহ্বান জানান। সাক্ষাতের পর প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। ১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থীর প্রবেশ এবং কক্সবাজারে আশ্রয় গ্রহণের প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কক্সবাজারে আশ্রয় নেয়া মিয়ানমারের নাগরিকদের সংখ্যা বর্তমানে স্থানীয়দেরকেও ছাড়িয়ে গেছে।’ তিনি বলেন, ‘কক্সবাজারের স্থানীয় জনগণ কেবল মানবতার স্বার্থে তাদের সকল দুর্ভোগ বরণ করে নিয়েছে।’ ফিনল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত এ সময় বিগত নির্বাচনে বিপুল বিজয় অর্জন করে চতুর্থবারের মত প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানান। তিনি প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশের চমকপ্রদ উন্নয়নেরও ভূয়সী প্রশংসা করেন। ‘আপনার গতিশীল নেতৃত্বে বাংলাদেশের অর্থনীতি দ্রুতলয়ে এগিয়ে চলছে,’ বলেন তিনি। বাংলাদেশের বস্ত্র এবং জ্বালানি খাতে তার দেশের বিনিয়োগের আগ্রহ প্রকাশ করে রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘আমরা বর্জ্য থেকে বাংলাদেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে চাই।’ তিনি বলেন, ফিনল্যান্ড বাংলাদেশের সঙ্গে শিক্ষা এবং তথ্য প্রযুক্তি খাতে সহযোগিতা বাড়াতে আগ্রহী। বাংলাদেশের অনেক শিক্ষার্থীর ফিনল্যান্ডে পড়াশোনার কথাও উল্লেখ করেন তিনি। দুই দেশের মধ্যে বিদ্যমান দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে সন্তোষ প্রকাশ করে ফিনল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত বলেন, দুটি দেশের মধ্যে আগামী মে মাসে ফরেন অফিস কনসালটেন্সি অনুষ্ঠিত হবে। বাংলাদেশ উচ্চ মানসম্পন্ন চামড়া এবং চামড়াজাত দ্রব্য প্রস্তুত করে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ফিনল্যান্ড চাইলে এখান থেকে এসব পণ্য নিজ দেশে আমদানি করতে পারে। দেশের সামগ্রিক উন্নয়নই তাঁর সরকারের লক্ষ্য উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘জনগণের মৌলিক চাহিদা পূরণে তাঁর সরকার আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।’ দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, চলতি অর্থবছরের শেষ নাগাদ তাঁর সরকার জিডিপি ৮ দশমিক ১ শতাংশে বৃদ্ধির আশা করছে। তিনি বলেন, ‘আমাদের সময়োচিত পদক্ষেপের ফলে মানুষের ক্রয় ক্ষমতা উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পেয়েছে।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর সরকার আগামী প্রজন্মের জন্য একটি সুন্দর বাসযোগ্য আবাসস্থল গড়ে তুলতে নেদারল্যান্ড সরকারের সহযোগিতায় ডেল্টা প¬ান-২১০০ প্রণয়ন করেছে। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান, সামরিক সচিব মেজর জেনারেল মিয়া মোহাম্মদ জয়নুল আবেদীন এবং ফিনল্যান্ডের অনারারী কনসাল জেনারেল আজিজ খান এ সময় উপস্থিত ছিলেন। এরআগে সফররত ভারতীয় প্রতিরক্ষা সচিব সঞ্জয় মিত্র প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে গণভবনে সাক্ষাৎ করেন। এসময় প্রধানমন্ত্রী ভারতের সঙ্গে ঐতিহাসিক ল্যান্ড বাউন্ডারি এগ্রিমেন্টের (এলবিএ) কথা উল্লেখ করে চুক্তিটি ভারতের জাতীয় সংসদে সর্ব সম্মতিক্রমে পাশ হওয়ায় ভারত সরকার এবং দেশটির সকল রাজনৈতিক দলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ‘ভারতের সকল রাজনৈতিক দল দেশটির সংসদে সর্বসম্মতিক্রমে এই সীমান্ত চুক্তি বিলটি পাশ করেছে।’ প্রধানমন্ত্রী এ সময় বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ভারতের দ্ব্যর্থহীন সমর্থনের কথা স্মরণ করেন। ভারতের প্রতিরক্ষা সচিব অনুষ্ঠানে প্রতিরক্ষা বিষয়ে দুই দেশের সহযোগিতার বিষয়গুলো উল্লেখ করেন। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার লেফটেন্যান্ট জেনারেল মাহফুজুর রহমান, প্রধানমন্ত্রীর সামরিক সচিব মেজর জেনারেল মিয়া মোহাম্মদ জয়নুল আবেদীন এবং ঢাকায় ভারতীয় হাইকমিশনার রীভা দাস গাগুলী এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

দৌলতপুরে আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

দৌলতপর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে চোরাচালান নিরোধ, নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ এবং আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তারের সভাপতিত্বে উপজেলা পরিষদ কনফারেন্স রুমে এসব সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন, দৌলতপুর থানার উপ-পরিদর্শক আব্দুর রহিম, দৌলতপুর দুর্ণীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম, আদাবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান মকবুল হোসেন, মথুরাপুর ইউপি চেয়ারম্যান সরদার হাসিম উদ্দিন হাসু, খলিশাকুন্ডি ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম, প্রাগপুর ইউপি চেয়ারম্যান আশরাফুজ্জামান মুকুল, পিয়ারপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু ইউসুফ লালু, মরিচা ইউপি চেয়ারম্যান শাহ আলমগীর, রামকৃষ্ণপুর ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজ মন্ডল ও প্রভাষক শরীফুল ইসলাম। এসময় উপস্থিত ছিলেন, দৌলতপুর সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আজগর আলী সহ উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও সীমান্ত রক্ষী বিজিবি প্রতিনিধি। সভায় দৌলতপুরের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখা, চোরাচালান ও মাদক প্রতিরোধে সীমান্তে কড়া নজরদারি, বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে জনসচেতনতা সৃষ্টি এবং চুরি বন্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন সভার সভাপতি ও দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তার। এরপর মাসিক সমন্বয় সভায় অনুষ্ঠিত হয়। দৌলতপুর উপজেলা চেয়ারম্যান ফিরোজ আল মামুনের সভাপতিত্বে সমন্বয় সভায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তারসহ বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। বিদায়ী উপজেলা চেয়ারম্যানের সভাপতিত্বে সর্বশেষে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

নদী দূষণ প্রতিরোধে সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ঢাকা অফিস ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নদীতে বর্জ্য ফেলা বন্ধ করে নদী দূষণ প্রতিরোধে এগিয়ে আনার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানিয়েছেন। বর্জ্য ব্যবস্থাপনা পানিসম্পদ দূষণের অন্যতম কারণ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বব্যাপীই এটি একটি সমস্যা। এই সমসাটি নদীতেই কেবল নয়, সাগরেও দেখা দিচ্ছে, সমুদ্রগামী জাহাজের মাধ্যমে বর্জ্য ফেলা। আমি সকলকে বলবো যে, নদীতে বর্জ্য ফেলা সকলকে বন্ধ করতে হবে। কারণ এটি একটি সমস্যা হিসেবে দেখা দিয়েছে।’ ‘কাজেই প্রতিটি শিল্প প্রতিষ্ঠান যারা গড়ে তুলবেন তারা যেন নদী দূষণ না করেন। সেজন্য তাদের আধুনিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নির্মাণ করতে হবে, পানি শোধনাগার করতে হবে, যোগ করেন তিনি।সেই সাথে রাস্তা-ঘাটে চলাচল করার সময়ও এদিক সেদিকে বর্জ্য না ফেলার প্রতি লক্ষ্য রাখতে সকলের প্রতি আহবান জানান প্রধানমন্ত্রী।প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বিশ্ব পানি দিবস উপলক্ষে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে একথা বলেন।্রধানমন্ত্রী বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য বাংলাদেশ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সেটা আমরা জানি। আর সেজন্যই নিজস্ব অর্থ দিয়ে ট্রাস্ট ফান্ড গঠন করে এই জলবায়ুর ক্ষতিকর প্রভাব মুক্ত করতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। এজন্য সব থেকে বেশি প্রয়োজন প্রচুর বৃক্ষরোপণ করা।তিনি বলেন, ‘এজন্য আমি পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়কে বলবো কেবল নদী ড্রেজিং করলেই হবে না, সেখানে বৃক্ষরোপণটাও করে দিতে হবে। প্রতিটি উপকূল অঞ্চলে সবুজ বেষ্টনির সৃষ্টি করতে হবে।’ প্রধানমন্ত্রী এ সময় নদী ড্রেজিংয়ের মাটি আবার নদীতেই না ফেলে পাড়ে জুট জিও টেক্সটাইলের সাহায্যে পকেট সিস্টেম করে দেয়ার পরামর্শ দিয়ে বলেন, তাহলে সেখান থেকে অনেক ভূমিও উদ্ধার করা সম্ভব হবে যেখানে পরবর্তীতে কৃষি এবং শিল্পায়ন দুটি কাজই করা যাবে। নদী দূষণমুক্ত করার ওপর গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘নদী সংরক্ষণের সঙ্গে যারা জড়িত তারা যার যার দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করবেন যেন ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য আমরা নিরাপদ পরিবেশ নিশ্চিত করতে পারি।’ শেখ হাসিনা এ সময় শহরাঞ্চলে দৈনন্দিন কাজে পানির অপচয় রোধ করা প্রত্যেকের নাগরিক কর্তব্য বলেও উল্লেখ করেন। পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম এবং একই মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান রমেশ চন্দ্র সেন বক্তৃতা করেন। মন্ত্রণালয় সচিব কবির বিন আনোয়ার অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন। এতে বাংলাদেশের পানিসম্পদ ব্যবস্থাপনা এবং বাংলাদেশ ডেল্টা প্লান-২১০০ এর উপর নির্মিত দুটি ভিডিও চিত্র প্রদর্শিত হয়। অনুষ্ঠানে পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী এবং উপমন্ত্রী মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীকে শত বর্ষের ব-দ্বীপ পরিকল্পনার একটি স্মারক উপহার দেন। মন্ত্রিপরিষদের সদস্যবৃন্দ, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টাবৃন্দ, সংসদ সদস্যবৃন্দ, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত এবং মিশন প্রনিনিধি ও প্রধান, উন্নয়ন সহযোগি সংস্থার প্রতিনিধি এবং আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। ভৌগোলিক অবস্থানগত কারণে আমাদের দেশের পানি ব্যবস্থাপনা উজানের দেশের উপর নির্ভরশীল উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিষয়টির গুরুত্ব অনুধাবন করেই জাতির পিতা আন্তঃসীমান্ত পানি ব্যবস্থাপনার জন্য ১৯৭২ সালে ‘যৌথ নদী কমিশন-জেআরসি’ গঠন করেন। তিনি বলেন, তারই ধারাবাহিকতায় আওয়ামী লীগ সরকার ১৯৯৬ সালে ভারতের সঙ্গে ৩০ বছর মেয়াদি গঙ্গা নদীর পানি বণ্টন চুক্তি স্বাক্ষরও বাস্তবায়ন করে। তিনি বলেন, আমরা ভারতের সঙ্গে অন্যান্য নদীর পানি বণ্টন নিয়ে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছি। ২০১১ সালে ভারতের সঙ্গে স্বাক্ষরিত হয়েছে ‘ফ্রেমওয়ার্ক এগ্রিমেন্ট অন কো-অপারেশন ফর ডেভেলপমেন্ট।’ বিভিন্ন কারণে এক সময়ের খর¯্রােতা নদীগুলো মরে গেছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর সরকার ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে নদীর গতিপথ ও নাব্যতা পুনরুদ্ধারের উদ্যোগ নিয়েছে। পাশাপাশি উপকূলীয় এলাকায় বাঁধ শক্তিশালীকরণ এবং প্লাবনভূমির সঙ্গে নদীর সংযোগ স্থাপন করা হচ্ছে। পরিবেশ ও প্রতিবেশ সুরক্ষায় নদীর তীর বরাবর বাফারজোন তৈরির ওপর বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। সরকার প্রধান বলেন, নদ-নদীর সুরক্ষা ও নৌপরিবহনকে নির্বিঘœ করার লক্ষ্যে স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু সরকার ৭টি ড্রেজার সংগ্রহ করেছিলেন। এর দীর্ঘ সময় পর আওয়ামী লীগ সরকার ২০০৯-’১৩ মেয়াদকালে আরও ১৪টি ড্রেজার সংগ্রহ করে। বর্তমানে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের ২২টি, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় এবং সেনাবাহিনীর আওতায় ৪০টি ড্রেজার রয়েছে। আরও ৮০টি ড্রেজার সংগ্রহ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। শেখ হাসিনা দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, ‘চলতি মেয়াদে ১০ হাজার কিলোমিটার নৌপথ পুনঃখনন করে নৌ চলাচলের উপযোগী করা হবে।  প্রধানমন্ত্রী এ সময় বালু মহল করা নিয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে সতর্ক করে বলেন, ‘এজন্য আমি ডিসিদের নির্দেশ দিয়েছি এক জায়গায় বেশিদিন বালু মহাল করা যাবে না। বালু মহালগুলো ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে করতে হবে যাতে করে আমাদের ঐ অঞ্চলটা নদী ভাঙ্গনের হাত থেকে মুক্তি পেতে পারে।’ তিনি এ সময় হাওর-বাওড় ও জলাধার সংরক্ষনের প্রয়োজনীয়তার উল্লেখ করে বলেন, তিনি প্রথমবার (’৯৬ সালে) সরকারে এসেই এ সংশ্লিষ্ট ‘জলাধার সংরক্ষণ আইন’ প্রণয়ন করেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইতোমধ্যে আমরা পানি আইন ২০১৩ করেছি এবং এর বিধিমালাও ২০১৮ প্রণয়ন করেছি। যা বাস্তবায়ন করা একান্তভাবে দরকার। সরকার প্রধান বলেন, ‘বৃষ্টির পানিকে সংরক্ষণ করা। ভূ-উপরিস্থ পানি যত বেশি সম্ভব ব্যবহার করা এবং ভূগর্ভস্থ পানি যথা সম্ভব ব্যবহার না করা-সেদিকেও আমরা বিশেষভাবে দৃষ্টি দিচ্ছি।’ ‘অর্থাৎ আমাদেরকে প্রকৃতির সঙ্গে বসবাস করতে হবে সেদিকে লক্ষ্য রেখে পানিকে সংরক্ষণ করা এবং পানির যথাথভাবে ব্যবহার আমাদের নিশ্চিত করতে হবে,’ বলেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী সর্বাগ্রে নদী শাসন, নদী ড্রেজিং এবং খাল, বিল, নদী-নালা বৃদ্ধির ওপর গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, ‘ইতোমধ্যে আমরা একটা নির্দেশ দিয়েছি- যেখানে আমাদের পুকুর-খাল যত যা আছে তার কোনটা যেন নষ্ট না হয়।’ এ সময় তিনি সুন্দরবনের ঘষিয়া খাল বন্ধ করে দিয়ে চিংড়ি চাষের কঠোর সমালোচনা করেন তিনি বলেন, ‘আমি মোংলা বন্দরের ঘষিয়া খালটি যখন ড্রেজিংয়ের নির্দেশ দেই তখন দেখি প্রায় আড়াইশো খালের মুখ বন্ধ। তবে, এগুলো অধিকাংশই খুলে দিতে বাধ্য করা হয়েছে। যার ৮০টি এখনও বাকী আছে, সেগুলোও খুলে দেয়া হবে। এরফলে পশুর নদী ও ঘষিয়া খাল এবং সর্বোপরি সুন্দরবনও রক্ষা পাবে।’ বাংলাদেশটাকে টিকিয়ে রেখেছে সুন্দরবন উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী দেশের স্থলভূমিকে যেকোন প্রাকৃতিক বিপর্যয় খেকে রক্ষার জন্য উপকূলীয় অঞ্চলে সুন্দরবনের আদলে ম্যানগ্রোভ বন বেষ্টনি গড়ে তোলার ওপরও গুরুত্ব আরোপ করেন। প্রধানমন্ত্রী বন্যার দুর্ভোগের কথা স্মরণ করে বলেন, এর একটি ভাল দিকও রয়েছে যে, এটি প্রচুর পলি মাটি বহন করে আনে। কাজেই দেখা যায়- যে বছর বন্যা হয় তার পরের বছর ফসলও ভালো হয়। তিনি বলেন, ‘প্রকৃতি যেমন নেয়, তেমনি ফিরিয়েও দেয়। এখন আমরা কতটুকু এই প্রকৃতির কাছ থেকে গ্রহণ করে কাজে লাগাতে পারি সেটাই হল বড় কথা।’ প্রধানমন্ত্রী ‘ব¬ু ইকোনমির’ প্রসঙ্গে বলেন, ‘২০১৪ সালে প্রতিবেশি দেশের সঙ্গে সমুদ্রসীমা বিরোধ নিষ্পত্তি করে আমরা সর্বমোট ১ লাখ ১৮ হাজার ৮১৩ বর্গকিলোমিটার সমুদ্র অঞ্চল লাভ করেছি। এই বিস্তীর্ণ সমুদ্র অঞ্চল ‘ব¬ু ইকোনমির’ বিকাশে অপার সম্ভাবনা সৃষ্টি করেছে। আমরা সমুদ্রসম্পদের সর্বোচ্চ ও টেকসই ব্যবহার নিশ্চিত করতে চাই।’ বিশ্বের বহু দেশে পানির অভাব থাকলেও নদী মাতৃক বাংলাদেশে পানির কোন অভাব না থাকায় এই প্রাকৃতিক সম্পদটিকে ভবিষ্যতে রপ্তানীযোগ্য পণ্য হিসেবে ব্যবহার করা যায় কি না সে বিষয়েও তিনি এখন থেকেদৃষ্টি দেয়ার আহবান জানান। দেশের ৮০ ভাগ জনগণ সুপেয় পানির আওতায় এসেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন,‘বাংলাদেশে পানির কোন অভাব নেই। বৃষ্টির পানি আমাদের অনেক বেশি সেটা আমরা সংরক্ষণ করে আমাদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের যেমন কাজে লাগাতে পারি তেমনি যে সব দেশে সুপেয় পানির অভাব রয়েছে ইনশাআল্লাহ সেসব দেশে আমরা ভবিষ্যতে পানি সরবরাহর করতে পারবো। এমনকি এই পানি বোতলজাত করে বিশ্বের অনেক জায়গায় বিক্রিও করতে পারি। আমাদের সেই সুযোগটাও রয়েছে।’ দেশবাসী ২০২০ সালে জাতির পিতার জন্ম শতাবার্ষিকী এবং ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন করবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই সময়টাকে মুজিব বর্ষ হিসেবে ঘোষণা দেয়া হয়েছে। তখন বাংলাদেশে আর কোন হতদরিদ্র থাকবে না। তিনি ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নত-সমৃদ্ধ করে গড়ে তোলতে তাঁর দৃঢ় অঙ্গীকার ব্যক্ত করে ভবিষ্যত প্রজন্মের সুন্দর জীবন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বর্তমান সরকারের শতবর্ষ মেয়াদি ব-দ্বীপ পরিকল্পনা গ্রহণের কথাও উল্লেখ করেন। শেখ হাসিনা বলেন, ‘জলবায়ুর ঘাত-প্রতিঘাত মোকাবেলা করে কাক্সিক্ষত উন্নয়ন নিশ্চিত করতে আমরা ‘বাংলাদেশ ব-দ্বীপ পরিকল্পনা ২১০০’ প্রণয়ন করেছি।’

 

জনগণ ঠিকমতো সেবা পেলে জবাবদিহিতা নিশ্চিত হবে – ভূমিমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী বলেছেন, ‘ভূমি মন্ত্রণালয়ের (আওতাধীন সব দফতর) সবার জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে। সরকারি কর্মকর্তা এবং কর্মচারীদের জবাবদিহিতা দুই জায়গায়, নিজ ধর্মীয় অনুশাসনের প্রতি এবং রাষ্ট্র ও জনগণের কাছে।’ তিনি বলেন, ‘জনগণ ঠিকমতো সেবা পেলে ভূমি মন্ত্রণালয়ে কর্মরত সবার জবাবদিহিতা নিশ্চিত হবে।’ বৃহস্পতিবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালায় ঢাকা মহানগরী অঞ্চলের ভূমি সেবা ক্যাম্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন ভূমিমন্ত্রী। ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার এবং জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের যৌথ উদ্যোগে, ‘ভূমি সেবা সপ্তাহ এবং ভূমি উন্নয়ন কর মেলা ২০১৯’ উপলক্ষে এ সেবা ক্যাম্পের উদ্বোধন করা হয়। মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের মাইন্ডসেট চেঞ্জ করতে হবে। গতানুগতিক চিন্তা করলে কোনো লাভ হবে না। গুণগত পরিবর্তন আনতে পারলে এবং সিস্টেম ডেভেলপমেন্ট করতে পারলে কাজ অনেক সহজ হবে।’ তিনি বলেন, ‘সিস্টেম ডেভেলপমেন্টের অংশ হিসেবে আমরা গোটা ভূমি ব্যবস্থাপনা অটোমেশনের উদ্যোগ নিয়েছি। এতে দেশের মানুষ যেমন উপকৃত হবেন তেমন অনাবাসী বাংলাদেশীরাও উপকৃত হবেন। আমাদের নির্বাচনী ইশতেহারে ভূমি ব্যবস্থাপনার জটিলতা দূর করা এবং ব্যবহার পরিকল্পনার কথা বলা আছে। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে আমরা সেভাবেই কাজ করছি।’ ভূমি মন্ত্রণালয়ের কর্মচারীদের ধর্মীয় অনুশাসনের কথা স্মরণ করে দিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের কাজ আমাদের ঈমানী দায়িত্ব। দেশের মানুষ যেন ভালোভাবে সেবা পেতে পারে সেভাবে আমাদের কাজ করে যেতে হবে।’ মন্ত্রী তার বক্তব্যে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কঠোরভাবে নির্দেশ প্রদান করেন যেন তাদের দ্বারা মানুষের কোনো ধরনের হয়রানি না হয়। সভায় আরও বক্তব্য দেন- ভূমি সচিব (ভারপ্রাপ্ত) মাকছুদুর রহমান পাটওয়ারী, ভূমি সংস্কার বোর্ডের চেয়ারম্যান মুনশী শাহাবুদ্দীন আহমেদ, ভূমি আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল হান্নান, ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদফতরের পরিচালক (জরিপ) মোঃ শাহজাহান প্রমুখ। ভূমি সেবা সপ্তাহ এবং ভূমি উন্নয়ন কর মেলা, ২০১৯ উপলক্ষে ঢাকা মহানগরী অঞ্চলের ভূমি সেবা ক্যাম্প আজ শুধু একদিনের জন্য (১১ এপ্রিল) শিল্পকলা একাডেমির চিত্রশালায় হয়। আজ ১২ এপ্রিল থেকে থেকে আগামী ১৬ এপ্রিল পর্যন্ত দেশের অন্যান্য অঞ্চলের মতো ঢাকা মহানগরীতেও ভূমি অফিস কিংবা অফিস প্রাঙ্গণে ভূমি সেবা ক্যাম্প নিয়মিত থাকবে।

গাংনীতে বন্দুকযুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ী নিহত 

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনীতে মাদক ব্যবসায়ীদের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় ফজুলল হক ওরফে ফজু (৪৫) নামের এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন বলে পুলিশ জানিয়েছে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র ও মাদকদ্রব্য উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত ফজুলল গাংনী উপজেলার সীমান্তবর্তি কাজীপুর গ্রামের খন্দকারপাড়ার শামসুল হকের ছেলে।  গত বুধবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে গাংনী উপজেলার কাজীপুর ইউনিয়নের হাড়াভাঙ্গা গ্রাম সংলগ্ন একটি মাঠে দু’পক্ষের গোলাগুলিতে নিহতের ঘটনা ঘটে। গাংনী থানার ওসি হরেন্দ্রনাথ সরকার (পিপিএম) দৈনিক আন্দোলনের বাজারকে জানান হাড়াভাঙ্গা গ্রাম সংলগ্ন একটি মাঠে গোলাগুলির শব্দ হচ্ছিল। খবর পেয়ে গাংনী থানা পুলিশের কয়েকটিদল ওই স্থানে পৌঁছে যায়। পুলিশের অবস্থান বুঝতে পেরে দুর্বৃত্তরা পিছু নেয়। এসময়  ঘটনাস্থলে একজনের গুলিবিদ্ধ লাশ ও একটি এলজি শার্টারগান এবং এক কেজি গাঁজা উদ্ধার করা হয়। পরে গুলিবিদ্ধ লাশ কাজীপুর গ্রামের  মাঠপাড়ার শামসুল হকের ছেলে ফজুলল হক ওরফে ফজুর বলে স্থানীয়রা সনাক্ত করে। ওসি হরেন্দ্রনাথ সরকার (পিপিএম) আরো জানান মাদক ব্যবসা সংক্রান্ত কোন্দলের কারণে মাদক কারবারীদের মধ্যে গোলাগুলিতে নিহতের ঘটনা ঘটেছে। নিহত ফজলুল হক একজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসার অভিযোগে একাধিক মামলা রয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে নিহত ফজলুল হকের ময়না তদন্ত শেষে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।