‘স্পিড ব্রেকার দিদি’র জবাবে ‘এক্সপায়ারি বাবু’

ঢাকা অফিস ॥ ভারতের পশ্চিমবঙ্গে শুরু হয়েছে লোকসভা নির্বাচনী প্রচার। শুরুর দিনেই জমে উঠেছে বাকযুদ্ধ। মুখ্যমন্ত্রী মমতাকে উন্নয়নের পথে ‘স্পিড ব্রেকার দিদি’ বলে কটাক্ষ করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। জবাবে মোদীকেও ‘এক্সপায়ারি বাবু’ বলে একহাত নিয়েছেন রণমুখী মমতা। বুধবার দুপুরেই শিলিগুড়িতে এক বিশাল জনসভায় যোগ দিয়ে মমতা বন্দোপাধ্যায়কে ‘স্পিড ব্রেকার’ আখ্যা দিয়ে মোদী বলেন, “তিনি কেন্দ্রীয় সব উন্নয়ন প্রকল্প আটকে দিচ্ছেন। গোটা দেশে যে গতিতে উন্নয়ন হয়েছে, বাংলায় তা হয়নি। কারণ পশ্চিমবঙ্গে উন্নয়নের পথে একটি স্পিড ব্রেকার আছে। যাকে আপনারা দিদি বলে ডাকেন। এই দিদি আপনাদের উন্নয়নের স্পিড ব্রেকার।” এ বাধা সরাতে না পারলে রাজ্যের উন্নয়ন হবে না জানিয়ে মোদী বলেন, “আমি এই স্পিড ব্রেকার সরে যাওয়ার অপেক্ষায় আছি, যেন উন্নয়নের গতি দ্রুততর হয়।” আর সেজন্য বাংলার মানুষকে ভারতীয় জনতা পার্টিকে (বিজেপি) ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান মোদী। সারদা চিটফান্ড কান্ডে মমতা সরকারের প্রভাবশালী মন্ত্রী ও বিধায়কদের নাম জড়িয়ে যাওয়া প্রসঙ্গে মোদী বলেন, “দিদি গরিবের কথা ভাবেন না, তিনি রাজনীতি করেন। গরিবকে গরিব রাখাই ওদের লক্ষ্য। গরিবের ভালো তিনি হতে দেবেন না। গরিবের ভাল হলে ওদের রাজনীতি শেষ। নিজের সঙ্গীদের নিয়ে তিনি গরিবকে সর্বশান্ত করেছেন।” দেশজুড়ে মোদীর স্বাস্থ্য প্রকল্প ‘আয়ুষ্মান স্কিম’ পশ্চিম বঙ্গে আটকে দিয়েছেন মমতা। এ প্রসঙ্গে মোদী বলেন, “আমরা গরিব জনগণকে বলেছি, অসুস্থ হলে তারা হাসপাতালে পাঁচ লাখ রুপি পর্যন্ত বিনামূল্যে চিকিৎসা পাবে এবং এজন্য তাদের এক পয়সা খরচ করতে হবে না। কিন্তু স্পিড ব্রেকার দিদি কী করলেন? তিনি এই স্কিমে ব্রেক দিয়ে দিলেন, যেটা থেকে গরিব মানুষ সুবিধা পেত।” মোদীর এ আক্রণের জবাবে বুধবার পশ্চিমবঙ্গের দিনহাটায় নির্বাচনী প্রচারের শুরুতেই মমতা বলেছেন, “তাকে আর প্রধানমন্ত্রী বলব না, এক্সপায়ারি বাবু বলব।” রণমুখী মেজাজে মমতা বলেন, “বাংলাকে চেনেন না আপনি। মানুষ আপনাকে জেলে ভরবে।” এদিন মোদীকে একের পর এক চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেন মমতা। তাতে তাকে সরাসরি বিতর্কে নামার আহ্বান যেমন জানিয়েছেন মমতা তেমনি উত্তরবঙ্গের চা বাগান, ছিট মহল, স্বাস্থ্য-শিক্ষা পরিষেবা সব কিছু নিয়েই প্রধানমন্ত্রীকে আক্রমণ করেছেন। বাংলায় উন্নয়নের জন্য সরকার কি কি করেছে তার ফিরিস্তিও মমতা তুলে ধরেছেন। তৃণমূল কংগ্রেস সরকারের কাজে অগ্রগতি হয়নি বলে মোদীর দাবি মিথ্যা বলে অভিযোগ করেছেন মমতা। তার সরকারের আমলে রাজ্যে কৃষকদের আয় তিনগুণ বেড়েছে বলেও মমতা দাবি করেছেন।

রোহিঙ্গা সংকট মিয়ানমারের সৃষ্টি – ব্রিটিশ হাইকমিশনার

ঢাকা অফিস ॥ রোহিঙ্গা সংকট মিয়ানমারের সৃষ্টি বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার রবার্ট ডিকসন। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর গুলশানে একটি হোটেলে বাংলাদেশ-যুক্তরাজ্য মতবিনিময় অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি। তিনি বলেন, বাংলাদেশ এই সমস্যা সমাধানে বিচক্ষণতার পরিচয় দিয়েছে, যা প্রশংসনীয়। যুক্তরাজ্য এ সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশের পাশে আছে। এ সময় তিনি বলেন, বাংলাদেশ অর্থনৈতিক সম্ভাবনার দেশ, এজন্য যুক্তরাজ্য এ দেশে বিনিয়োগে আগ্রহী। ব্রেক্সিট ইস্যু দক্ষিণ এশিয়ার এই অঞ্চলে কোনো প্রভাব ফেলবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

সরকার দেশে ‘হরণতন্ত্র’ চালু করেছে – রিজভী

ঢাকা অফিস ॥ সরকার ‘গণতন্ত্র নির্বাসনে’ পাঠিয়ে দেশে ‘হরণতন্ত্র’ চালু করেছে মন্তব্য করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে নয়া পল্টনে দলের কার্যালয়ের সামনে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে জাতীয়তাবাদী মহিলা দল আয়োজিত সমাবেশে তিনি প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বলেন, “আপনি এক এক করে গণতন্ত্র হরণ করেছেন, স্বাধীনতাকে ধবংস করেছেন, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা হরণ করেছেন, মানুষের মৌলিক অধিকার হরণ করেছেন। আপনি গণতন্ত্র ধ্বংস করে আপনি হরণতন্ত্র চালু করেছেন।” সরকারপ্রধানের প্রতি প্রশ্ন রেখে রিজভী বলেন, “তারপরও কি টিকে থাকা যাবে? প্রধানমন্ত্রী গণজোয়ারের সম্ভাবনা আপনি হয়ত টের পাচ্ছেন না। কিন্তু অন্যায়-অবিচারের লৌহশৃঙ্খল ভেঙে যে গণজোয়ার তৈরি হবে, সেই গণজোয়ার আপনি কোনোভাবে ঠেকাতে পারবেন না।” খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি জানিয়ে রিজভী বলেন, “মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, বেগম খালেদা জিয়াকে বন্দি করে রেখেছেন। তাতে আপনার সাময়িক লাভ। কিন্তু আপনার মনে কী শান্তি আছে? অবৈধভাবে, অন্যায়ভাবে ক্ষমতায় থাকলে কখনো মনে কখনই শান্তি থাকে না। পতনের আশঙ্কায় আপনার দুঃশ্চিন্তা সব সময় থাকবে।” মহিলা দলের সভানেত্রী আফরোজা আব্বাস বলেন, “যতক্ষণ পর্যন্ত আমরা আমাদের মাতা, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে না পারব, ততক্ষণ পর্যন্ত আমাদের সংগ্রাম চলবে।” মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদের পরিচালনায় সমাবেশে মহিলা দলের হেলেন জেরিন খান, পেয়ারা মোস্তফা, শামসুন্নাহার ভুঁইয়া, সাবিনা ইয়াসমীন, মাসুদা খানম লতা, নিলুফার ইয়াসমীন নিলু, সেলিনা হাফিজ, মর্জিনা আফসারী প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। সমাবেশ শেষে কার্যালয়ের সামনে থেকে কাকরাইলের নাইটিঙ্গেল মোড় পর্যন্ত মিছিল করে মহিলা দল।

ঝিনাইদহের চাঁদপুর ইউনিয়নে মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপন

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ বাঙ্গালী জাতির সর্বশ্রেষ্ঠ অর্জন ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা সংগ্রাম। বাঙালির স্বাধীনতা সংগ্রামের  গৌরবগাঁথা দিন। ১৯৭১ সালের এই দিনে বিশ্বের বুকে বাংলাদেশের স্বাধীন অস্তিত্ব ঘোষণা করেছিল বীর বাঙালি। তাই আজ মুক্তিযুদ্ধের চেতনা হৃদয়ে ধারণ করে সুখী-সমৃদ্ধ দেশ গড়ার প্রত্যয়ের মধ্যদিয়ে ৪৯তম স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করছে জাতি। স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা সকাল ১০ টা থেকে সারাদিন ব্যাপী হরিনাকুন্ডু উপজেলার চাঁদপুর ইউনিয়নে পালিত হল। এই দিবস উপলক্ষে  দূর্লভপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে এক আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও পুরস্কার বিতরনের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলো দূর্লভপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় সভাপতি কামাল হোসেন, বিশেষ অতিথি হিসাবে ছিলো দূর্লভপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক সামসুল ইসলাম, হরিনাকুন্ডু উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম শিলু, কেসি কলেজের সাবেক ভিপি আলম হোসেন, সভাপতিত্ব করেন দূর্লভপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক আনিছুর রহমান, সার্বিক তত্তাবধানে সহকারী প্রধান শিক্ষক আলতাব হোসেন পিন্টুসহ অত্র ইউনিয়নের সকল মাধ্যমিক বিদ্যালয়, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থীগন। অনুষ্ঠানে স্বাধীনতার উপর আলোচনা, কবিতা, পাঠ, রচনা প্রতিযোগিতা ও সংগীত পরিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। শেষে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার তুলে দেন বিদ্যালয়ের সভাপতি কামাল হোসেন।

 

সবাইকে রাজনৈতিকভাবে সচেতন হতে হবে – শিক্ষামন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, সবাইকে রাজনীতি বা দল করতে হবে তেমনটি নাও হতে পারে। তবে সবাইকে রাজনৈতিকভাবে সচেতন হতে হবে। তিনি বলেন, ভালো শিক্ষক-গবেষক বা ভালো ছাত্র হলেই কেবল চলবে না, ভালো-মন্দ বোঝার জন্য রাজনৈতিকভাবে সচেতন হতে হবে। কোন অপরাজনীতি দেশের জন্য ক্ষতিকর, সেটাও বুঝতে হবে। মুক্তিযুদ্ধে ত্রিশ লাখ প্রাণের বিনিময়ে অর্জিত এ স্বাধীন দেশে জঙ্গিবাদ ও অপরাজনীতি ঠাঁই পাবে না। বৃহস্পতিবার দুপুরে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজিত শিক্ষামেলা উদ্বোধন উপলক্ষে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় তিনি শিক্ষামেলার মাধ্যমে স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানের গবেষণা উদ্ভাবনা প্রদর্শন শিক্ষার্থীসহ সর্বসাধারণের জানার সুযোগ হবে বলে অভিমত ব্যক্ত করে এ উদ্যোগের জন্য খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকার উচ্চশিক্ষাসহ শিক্ষার সবস্তরে গুণগতমান অর্জনে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে। একইসঙ্গে কর্মমুখী শিক্ষার প্রসার এবং বিশ্ববিদ্যালয়সমূহে গবেষণা ও উদ্ভাবনে জোর দেওয়া হচ্ছে, যাতে করে বিশ্ব প্রতিযোগিতায় আমরা টিকে থাকতে পারি। তিনি বলেন, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় দেশের এবং বিশেষ করে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের কৃষি, পরিবেশ, প্রতিবেশ, টেকসাই উন্নয়ন, আর্থ-সামাজিক, নগর ও গ্রামভিত্তিক গবেষণা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিভিত্তিক গবেষণা, সামাজিক-সাংস্কৃতিক, ইতিহাস-ঐতিহ্যভিত্তিক গবেষণা এবং চারু ও কারুকলার ওপরও গবেষণা পরিচালিত করছে। যার ইতিবাচক প্রভাব এতদাঞ্চলের নগর থেকে গ্রামের সামাজিক ও আর্থিক উন্নয়নে বিশেষভাবে প্রভাব রাখছে। ‘জীবনযাত্রার মানোন্নয়নে, টেকসই উন্নয়নের সহায়তায় এবং সরকারের এসডিজি অর্জনে ইতিবাচক ভূমিকা রাখছে। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে বছরে কয়েকশ’ গবেষণা কার্যক্রম পরিচালিত হয়। এর মধ্যে আন্তর্জাতিকমানের গবেষণাও পরিচালিত হচ্ছে, কয়েকটি নতুন উদ্ভাবনার দ্বারপ্রান্তে রয়েছে। এসব গবেষণার ফলাফলের ওপর ভিত্তি করে প্যাটেন্টের জন্য আবেদন করা হয়েছে। এসব সাফল্য নিঃসন্দেহে দেশ ও জাতির জন্য আশাব্যঞ্জক।’ দীপু মনি বলেন, আসলে শিক্ষামেলার মাধ্যমে একটি বিশ্ববিদ্যালয় তার শিক্ষা ও গবেষণার ফলাফল সর্বজনসমক্ষে প্রদর্শন করার যে প্রচেষ্টা নিয়েছে এটা প্রাতিষ্ঠানিক দায়বদ্ধতার পরিচায়ক। বিশ্ববিদ্যালয় জ্ঞান চর্চার পীঠস্থান হিসেবে তার সব গবেষণা ও উদ্ভাবনা উন্মুক্ত করবে, তুলে ধরবে, অবারিত করবে, এটাই স্বাভাবিক। জাতির মনন গঠনের মাধ্যমে সমাজ পরিবর্তনে, জাতিকে দিক-নির্দেশনা প্রদানে এবং গবেষণা ও উদ্ভাবনের মাধ্যমে উন্নত দেশ ও জাতি গঠনে বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়িত্ব অপরিসীম। সেক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের অগ্রণী ভূমিকা রয়েছে। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবকাঠামো উন্নয়ন এবং বিশেষ করে একটি একাডেমিক ভবন ও দু’টি আবাসিক হল নির্মাণের ব্যাপারে উপাচার্যের উত্থাপিত প্রস্তাব প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, দেশ পরিচালনার ভার যখন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুরের কন্যা শেখ হাসিনা নিয়েছেন তখন শিক্ষাক্ষেত্রে তো বটেই কোনো ক্ষেত্রেই অপূর্ণতা থাকবে না। তবে তিনি প্রকল্প বাস্তবায়নের সক্ষমতার অর্জনের ওপর জোর দেন। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন- শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সচিব সোহরাব হোসাইন ও খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর সাধন রঞ্জন ঘোষ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন মেলা আয়োজক কমিটির সভাপতি প্রফেসর ড. মনিরুল ইসলাম। এছাড়া আরো বক্তব্য রাখেন- খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. সারওয়ার জাহান। এসময় মঞ্চে খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সদস্য প্রফেসর ড. এম শাহ নওয়াজ আলী, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. কাজী সাজ্জাদ হোসেন, প্রফেসর ড. মুনতাসীর মামুন, বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়াসহ গণ্যমান্য ব্যক্তি, বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন, রেজিস্ট্রার, ডিসিপ্লিন প্রধান, প্রভোস্ট, বিভাগীয় প্রধান, শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন। মেলায় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ডিসিপ্লিনের চতুর্থ বর্ষ, মাস্টার্স ও পিএইচডির শিক্ষার্থীরা তাদের গবেষণার বিষয়বস্তু ৩০টি স্টলে পোস্টারের মাধ্যমে প্রদর্শন করে। প্রধান অতিথি ও অতিথিরা এর আগে মেলায় প্রবেশ করে বেলুন উড়িয়ে মেলার উদ্বোধন করেন এবং মেলার স্টল ঘুরে দেখেন। মেলায় সকাল থেকে বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও উৎসুক দর্শকের সমাগম ঘটে।

বাজেটে দেশি শিল্পকে সুবিধা দিলে বিনিয়োগ বাড়বে – এনবিআর চেয়ারম্যান

ঢাকা অফিস ॥ অতীতের মতো আসন্ন বাজেটেও দেশি শিল্পকে সুবিধা দেয়া হলে বিনিয়োগ বাড়বে বলে মন্তব্য করেছেন অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া। গতকাল বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম চেম্বার আয়োজিত ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের প্রাকবাজেট মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন। এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, দেশি শিল্পকে সুবিধা দিতে হবে। কয়েক বছর ধরে যা যা করার করছি। এটি অব্যাহত থাকলে মানুষ শিল্পায়নে আগ্রহী হবে। বিনিয়োগ বাড়বে। ৪ লাখ ৬৪ হাজার কোটি টাকার চলতি বাজেট। আগামি বাজেট প্রায় ৫ লাখ কোটি টাকা। স্মল ও মিডিয়াম ইন্ডাস্ট্রি দিয়ে শিল্পায়ন শুরু হয়েছে দেশে। পাশাপাশি বৃহৎ শিল্পও হচ্ছে। জনসংখ্যা আমাদের সম্পদ হয়েছে। তুলনামূলক এদেশে সস্তা শ্রম। আবার শ্রমিকদের নিত্যপ্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্যের ক্রয়ক্ষমতা বাড়ছে। আশির দশক থেকে তৈরি পোশাক শিল্প ভালোভাবে এগোচ্ছে। আমরা আয়কর বাড়াতে চাই। কাস্টম শুল্কের ওপর কম গুরুত্ব দিচ্ছি। ব্যাংকের কাছ থেকে আগের তুলনায় সরকার ঋণ কম নিচ্ছে। কর ও ভ্যাটের আওতা বাড়াতে হবে। গ্রামের অনেক ব্যবসায়ী করের আওতার বাইরে। ব্যবসায়ীদের অটোমেশনের আওতায় নিয়ে আসা হবে। সমুদ্রবন্দর ও বিমানবন্দরে স্ক্যানিং মেশিনের ওপরও জোর দিচ্ছে সরকার। জাতীয় আয়ে শিল্পের অবদান ৩৩ শতাংশে উন্নীত হয়েছে সরকারের সহায়তার কারণে। এখনো অনেক সম্ভাবনা আছে। তাই সরকার বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলছে। ঢালাওভাবে ৮-১০ বছর ধরে ক্যাপিটাল মেশিনারির ওপর শুল্ক সুবিধা দিয়ে আসছে। আমরা দেশে গাড়ির সংযোজন চাই না। উৎপাদন চাই। কর্মসংস্থান চাই। তিনি বলেন, বাজেট প্রণয়নের আগে ব্যবসায়ীদের চাহিদা জানার জন্য মতবিনিময় করা হয়। সব প্রস্তাব হয়তো বাস্তবায়ন করতে পারি না। কিছু বাস্তবায়ন হয়। আমরা এমন কিছু করবো না যাতে শিল্প মালিক, ব্যবসায়ী, ভোক্তা ও দেশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সভায় উপস্থিত ছিলেন এনবিআর সদস্য ফিরোজ শাহ আলম, কানন কুমার রায়, সৈয়দ গোলাম কিবরীয়া প্রমুখ। স্বাগত বক্তব্যে চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, এবার শুল্ক সংক্রান্ত ১৪৮টি, আয়কর সংক্রান্ত ৪৪টি প্রস্তাব ও নতুন ভ্যাট আইনের ওপর পর্যবেক্ষণ দিয়েছি। ব্যক্তি কর সীমা সাড়ে ৩ লাখ, নারী ও ৬৫ বছরের ঊর্ধ্বের আয়কর সীমা ৪ লাখ, প্রতিবন্ধীদের পৌনে ৫ লাখ এবং যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের সোয়া ৫ লাখে উন্নীত করার অনুরোধ জানান। বৃহত্তর চট্টগ্রামের মেগাপ্রকল্পগুলো তুলে ধরে মাহবুবুল আলম বলেন, এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে আগামি বাজেটে যথাযথ নির্দেশনা দিতে হবে। ব্যাংক ঋণের সুদহার এক অঙ্কে নামিয়ে আনতে হবে। বড় দারোগা হাটে ওজন স্কেলের কারণে চট্টগ্রামের ব্যবসায়ীদের প্রতি বিমাতাসুলভ আচরণ করা হচ্ছে জানিয়ে এ ব্যবসায়ী নেতা বলেন, দেশের সব মহাসড়কে ওজন স্কেল না বসানো পর্যন্ত ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ওজন স্কেলের কার্যক্রম বন্ধ রাখা হোক। যেসব শিল্প ও আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান নিয়ম মেনে ব্যবসা করে (কমপ¬ায়েন্ট) তাদের দ্রুত ও হয়রানিমুক্ত আমদানি প্রক্রিয়া সম্পন্নের জন্য অথরাইজড ইকোনমিক অপারেটরের (এইও) মর্যাদা দেওয়ার অনুরোধ জানান চেম্বার সভাপতি। তিনি ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের কিছু অংশের কাজ বাকি থাকায় এ প্রতিষ্ঠানের সুদ, মুনাফা ও ঘরভাড়া থেকে আয় করমুক্ত ঘোষণার বিশেষ অনুরোধ জানান।

গণমাধ্যমে বিএনপি’র প্রচারই বেশি – তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ টিভি-সংবাদপত্রে আওয়ামী লীগের চেয়ে বিএনপি’র প্রচারই বেশি। সংসদের বাইরে থেকে বিএনপি টিভি-রেডিও-সংবাদপত্রে যে প্রচার পায়, ক্ষমতায় থেকেও আওয়ামী লীগ তা পায় না বলে দাবি করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। গতকাল বৃহস্পতিবার (৪ এপ্রিল) দুপুরে রাজধানীর দারুস সালামে জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউটের (এনআইএমসি) মিলনায়তনে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন ইনস্টিটিউট (বিসিটিআই) পরিচালিত চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন অনুষ্ঠান নির্মাণ বিষয়ক দু’টি ডিপ্লোমা কোর্স সমাপনী ও সনদ বিতরণ অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ দাবি করেন। তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বিএনপি মহাসচিব ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন- টিভিতে নাকি তাদের এক-দুই সেকেন্ডের বেশি দেখানো হয় না। অথচ একথাটিই তিনি টিভিতে প্রায় এক মিনিট ধরে বলেছেন। তারা প্রায় প্রতিদিনই দু’বার করে গণমাধ্যমে কথা বলেন, প্রেস ব্রিফিং করেন, আর বলেন যে তাদের কথা বলতে দেওয়া হয় না।’ গণমাধ্যম স্বাধীনভাবে কাজ করছে এবং গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে সরকার নানা পদক্ষেপ নিয়েছে উলে¬খ করে ড. হাছান বলেন, ‘সংসদের বাইরে থেকে বিএনপি টিভি-রেডিও-সংবাদপত্রে যে প্রচার পায়, ক্ষমতায় থেকেও আওয়ামী লীগ তা পায় না।’ খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে বিএনপির লাগাতার অভিযোগের বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপির নেতাদের বক্তব্য শুনে মনে হয়, তারা চিকিৎসকদের চেয়েও বেশি জানে। খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে তারা যে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছেন, তা দুঃখজনক। এই হাঁটুর ব্যথা নতুন নয়, এরপরও খালেদা জিয়ার সুস্থতার জন্য সরকার অত্যন্ত আন্তরিক। খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) দু’টি কেবিন অনেকদিন ধরে বরাদ্দ, এমনকি এখনও খালি রাখা আছে। কিন্তু তিনি সেখানে যাবেন না। খালেদা জিয়ার জন্য কারাগারে সার্বক্ষণিক চিকিৎসক, ফিজিওথেরাপিস্ট ও নার্সের পাশাপাশি উপমহাদেশের ইতিহাসের সব রীতিনীতি ভেঙ্গে খালেদা জিয়ার পছন্দের গৃহপরিচারিকা ফাতেমাকে কারাগারে তার সঙ্গে দেওয়া হয়েছে। দেওয়া হয়েছে বিশেষ বিছানা, ফ্রিজ, টিভি এবং পৃথক রান্না ঘরও। তারপরও তারা এনিয়ে বিদেশিদের কাছে ধর্না দিচ্ছেন। তাদের যদি কোনো অভিযোগ থাকে, জনগণের দল হলে বিএনপি জনগণের কাছেই যেতো, কিন্তু তা না করে তারা বিদেশিদের কাছে ধর্না দিচ্ছেন, যার কোনো ফল নেই।’ এদিকে বিসিটিআই’র ডিপ্লোমার শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে মন্ত্রী বলেন, ‘চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন অনুষ্ঠান নির্মাণের সময় তা সমাজের ওপর কি প্রভাব ফেলবে তা সবার আগে বিবেচনায় আনতে হবে। আর মনে রাখতে হবে, ভৌত বা বস্তুগত উন্নয়নের পাশাপাশি আত্মিক ও মানবিকবোধের উন্নয়নের মাধ্যমের সম্ভব জাতির উন্নয়ন।’ বিসিটিআই’র প্রধান নির্বাহী ও অতিরিক্ত সচিব মোহাম্মদ আজহারুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন বিশেষ অতিথি তথ্য সচিব আবদুল মালেক, এনআইএমসি’র মহাপরিচালক শাহিন ইসলাম, বাংলাদেশ টেলিভিশনের সাবেক মহাপরিচালক ম. হামিদ এবং অন্যতম কোর্স পরিচালক মারুফ নেওয়াজ।

অনলাইনে সঞ্চয়পত্র বিক্রি ১ জুলাই থেকে

ঢাকা অফিস ॥ ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রথম দিন ১ জুলাই থেকে ‘জাতীয় সঞ্চয়স্কিম অনলাইন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম’ চালুসহ সঞ্চয়স্কিম-এর সুদ ও আসল বিইএফটিএন এর মাধ্যমে সরাসরি গ্রাহকের ব্যাংক হিসাবে পাঠাতে হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেট ম্যানেজমেন্ট এ বিষয়ে নির্দেশনা দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে। প্রজ্ঞাপনটি সঞ্চয়পত্র বিক্রয়কারী সব তফসিলি ব্যাংক, ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক-প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে পাঠানো হয়েছে। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ‘সরকারি ব্যয় ব্যবস্থাপনা শক্তিশালীকরণ: অগ্রাধিকার কার্যক্রমসমূহের ধারাবাহিকতা রক্ষা (পিইএমএস)’ শীর্ষক কর্মসূচির আওতায় প্রণীত ‘জাতীয় সঞ্চয়স্কিম অনলাইন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম’ চালুর বিষয়ে নিম্নবর্ণিত নির্দেশনা অনুসরণ করার জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে অনুরোধ করা হলো। সিস্টেমটি চলতি বছরের মার্চ মাসের মধ্যে ঢাকা মহানগরীতে, এপ্রিল মাসের মধ্যে বিভাগীয় শহর ও জুন মাসের মধ্যে দেশের অন্যান্য স্থানে অবস্থিত সব দপ্তরে চালু করতে হবে। আগামী ১ জুলাই থেকে এ সিস্টেমের আওতাবহির্ভূতভাবে সঞ্চয়স্কিম লেনদেনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো কোনো সঞ্চয়স্কিম লেনদেন না করার অনুরোধ করা হলো। ১ জুলাই থেকে এ সিস্টেম থেকে প্রাপ্ত রিপোর্ট অনুযায়ী দৈনিক বিক্রির বিবরণীর ভিত্তিতে সংশি¬ষ্ট বাণিজ্যিক ব্যাংকের হিসাব ডেবিট করে সরকারি হিসাবে ক্রেডিটকরণ এবং সঞ্চয়স্কিম-এর সুদ ও আসল বিইএফটিএন-এর মাধ্যমে সরাসরি গ্রাহকের ব্যাংক হিসাবে পাঠানো নিশ্চিত করতে হবে।

শুধু সীমান্তে দায়িত্ব পালন করবে বিজিবি – স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, বিজিবি সদস্যরা এখন থেকে শুধু সীমান্তে দায়িত্ব পালন করবে। তারা (বিজিবি) মানুষের বাড়ি বা গোয়ালে গিয়ে গরু তল্লাশি করবে না। বৃহস্পতিবার বিজিবি সদর দফতরে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সীমান্তে বিজিবি অত্যন্ত দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করছে এবং ভারতের সাথেও সুসম্পর্ক বজায় আছে। স্বাধীনতার পর থেকে এ রকম সুসম্পর্ক আর ছিল না। ঠাকুরগাঁওয়ে এলাকাবাসীর সঙ্গে বিজিবি সদস্যদের সংঘর্ষের বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ওই ঘটনায় যাদের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে সে বিষয়ে বিজিবি পক্ষ থেকে একটি এবং সরকারের পক্ষ থেকে একটি তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। তারা তদন্ত করেছে, প্রতিবেদন পেলে জানা যাবে।

সরকার বিরোধী দলবিহীন সংসদ চায় না – নাসিম

ঢাকা অফিস ॥ বিএনপির নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের সংসদে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য এবং ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, সরকার বিরোধীদলবিহীন সংসদ চায় না। জনগণ আপনাদের নির্বাচিত করেছে। তাদের কথা বলতেই আপনারা সংসদে আসুন। সরকারের ভুল-ক্রটি ধরিয়ে দিন। গলায় জোর থাকলে ৬ জনই ৬০ জনের আওয়াজ তুলতে পারবেন। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলার নাটুয়ারপাড়া ডিগ্রি কলেজের রজতজয়ন্তী উপলক্ষে আয়োজিত এক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। নাসিম বলেন, বিরোধীদলে থাকতে আমরা অনেকবার জেল খেটেছি। পুলিশের হাতে নিগৃহীত হয়েছি। কিন্তু মাঠ থেকে পালিয়ে যাইনি। বিএনপির নেতাদের উদ্দেশ্য সাবেক এ মন্ত্রী বলেন, আন্দোলনের হুমকি দিয়ে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা যাবে না। যে দলের নেতারা পুলিশের লাঠির আঘাতে জামা কাপড় খুলে দৌড়ে পালায়, সে নেতা দিয়ে আন্দোলন হয় না। তার চেয়ে সংসদে আসুন, জনগণের কথা বলুন, খালেদা জিয়ার মুক্তির কথা বলুন, হয়তো বা লাভ হতে পারে। নাটুয়ারপাড়া ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মোজাম্মেল হক সরকারের সভাপতিত্ব অনুষ্ঠিত এ সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন- শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান লায়লা আরজুমান্দ বানু বিথী, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি শওকত হোসেন, নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান ও দলের সাধারণ সম্পাদক খলিলুর রহমান সিরাজী, নাটুয়ারপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি আবদুর রহিম, সাধারণ সম্পাদক বেলাল হোসেন প্রমুখ। এর আগে নাটুয়ারপাড়ায় প্রায় সাড়ে চার কোটি টাকা ব্যয়ে স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর পরিদর্শন ও বাংলোর ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন মোহাম্মদ নাসিম।

২০২৪ সালে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হবে – বাণিজ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, বাংলাদেশ ইতোমধ্যে এলডিসি থেকে বেরিয়ে উন্নয়নশীল দেশে প্রবেশের প্রথম ধাপ সফলভাবে অতিক্রম করেছে। ২০২৪ সালে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হবে। তখন বিশ্ব বাণিজ্যের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় উন্নয়নশীল বাংলাদেশের জন্য বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার (ডব্লিউটিও) সহযোগিতা প্রয়োজন হবে। বিশেষ করে ট্রিপস চুক্তির মেয়ার বৃদ্ধির সুবিধা বাংলাদেশের প্রয়োজন। এসব ক্ষেত্রে তিনি ডব্লিউটিও’র সহযোগিতা চেয়েছেন। বুধবার জেনেভায় বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার সদর দফতরে বাংলাদেশের ৫ম ট্রেড পলিসি রিভিউ-এর প্রথম সভায় বাংলাদেশের বাণিজ্য, শিল্প, বিনিয়োগ ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ ও সংস্কারসমূহ তুলে ধরতে গিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। সভায় সভাপতিত্ব করেন ডব্লিউটিও ট্রেডপলিসি রিভিউ বডির চেয়াম্যান অ্যাম্বাসেডর টিহাংকির। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। ট্রেড পলিসি রিভিউ সভায় বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বিশ্ববাণিজ্য সংস্থার পরামর্শ মোতাবেক বাংলাদেশ বিশ্ব বাণিজ্যে সক্ষমতা অর্জন করেছে। রফতানি বাণিজ্যে বাংলাদেশ সুনামের সাথে এগিয়ে চলছে। গত অর্থবছরে রফতানি ছিল প্রায় ৩৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০২১ সালে রফতানি লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৬০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। বাংলাদেশের রফতানি প্রত্যাশার চেয়েও ভালো। বাংলাদেশ বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। বরাবরই বাংলাদেশ এ সংস্থায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলছে। তিনি বলেন, ২০৩৩ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত এলডিসিভুক্ত দেশগুলো এ সুবিধা পাবে। ওষুধ শিল্প বাংলাদেশের জন্য খুবই সম্ভাবনাময়। বাংলাদেশে ব্যবসা পরিচালনায় বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ডিজিটাল পদ্ধতি চালু করা হয়েছে। বাংলাদেশ এখন পেপারলেস ট্রেডে সক্ষমতা অর্জন করেছে। বাংলাদেশ ডব্লিউটিও’র পেপারলেস ট্রেড পলিসি চুক্তিতে প্রথম স্বাক্ষরকারী দেশ। ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন আর স্বপ্ন নয়, বাস্তব। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘ভিশন-২০২১’ ঘোষণা করেছেন। ২০২১ সালের আগেই ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা হবে এবং ২০৪১ সালে বাংলাদেশ হবে বিশ্বের উন্নত দেশ। টিপু মুনশি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ১০০টি স্পেশাল ইকোনমিক জোন গড়ে তোলার কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে। দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীরা এসব ইকোনমিক জোনে বিনিয়োগ করতে এগিয়ে আসতে শুরু করেছে। বাংলাদেশ সরকার বিনিয়োগে বিশেষ সুযোগ-সুবিধা প্রদান করছে। আগামী ১৫ বছরে এখানে ১০ মিলিয়নের বেশি মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। অতিরিক্ত রফতানি আয় হবে ৪০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। আজ ৫ এপ্রিল বাংলাদেশের ট্রেড পলিসি রিভিউ-এর দ্বিতীয় পর্বে প্রশ্নোত্তর অনুষ্ঠিত হবে। ইতোমধ্যে ১৮টি দেশ ১৪০টি লিখিত প্রশ্ন দাখিল করেছে। বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল এসব প্রশ্নের জবাব দেবেন। বাণিজ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাণিজ্য সচিব মো. মফিজুল ইসলাম, জেনেভায় বালাদেশ মিশনের স্থায়ী প্রতিনিধি শামীম এম আহসানসহ ১৬ সদস্যের প্রতিনিধিদল এই ট্রেড পলিসি রিভিউ সভায় অংশ নিচ্ছেন।

সাংবাদিক দিপু খানের বড় ভাই হিটলারের ইন্তেকাল

ভেড়ামারা প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা প্রেসক্লাবের নির্বাহী সদস্য রফিকুল ইসলাম দিপু খাঁনের বড় ভাই ও কলেজপাড়ার মৃত আব্দুল হালিম খাঁন ছেলে এনামুল হক খাঁন হিটলার গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৭টায় নিজ বাসভবনে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না…রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫৫ বছর। তিনি স্ত্রী, ২ মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন ও গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। মরহুমের নামাজের জানাযা ভেড়ামারা ডিগ্রী কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিত হয়ে ফারাকপুর গোরস্থানে দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

দৌলতপুরের খলিশাকুন্ডি বাজারে দুই ওষুধ ফার্মেসীর দেড় লক্ষ টাকা জরিমানা : বিপুল পরিমান ওষুধ জব্দ

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের খলিশাকুন্ডি বাজারে দুই ওষুধ ফার্মেসীতে অভিযান চালিয়ে দেড় লক্ষ টাকা জরিমানা আদায় করেছে ভোক্তা অধিকার ও সংরক্ষন অধিদপ্তরের কর্মকর্তা। এসময় কয়েক লক্ষ টাকার মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ ও বিক্রয় নিষিদ্ধ ফিজিশিয়ান স্যামপুল ওষুধ জব্দ করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে কুষ্টিয়া ভোক্তা অধিকার ও সংরক্ষন অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক সেলিমুজ্জামানের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালিত হয়। প্রথমে খলিশাকুন্ডি বাজারের রেনাসাস মেডিসিন সেন্টারে অভিযান চালিয়ে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ ও বিক্রয় নিষিদ্ধ বিপুল পরিমান ফিজিশিয়ান স্যামপুল ওষুধ মজুদ পাওয়ায় জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর ৩৭ ও ৫১ ধারায় রেনাসাস মেডিসিন সেন্টারের মালিক এ কে এম আব্দুল মালেককে ১ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়। একই অভিযোগে দৌলতুন ফার্মেসীর মালিক সাইদ হোসেনকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এসময় উভয় ফার্মেসী বা ওষুধের দোকান থেকে বেশ কয়েক লক্ষ টাকার বিপুল পরিমাণ বিক্রয় নিষিদ্ধ মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ ও ফিজিশিয়ান স্যামপুল ওষুধ জব্দ করা হয়। অভিযান চলাকালে সিভিল সার্জন ও কনজুমার এসোসিয়েশন ক্যাব’র প্রতিনিধি এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সদস্য উপস্থিত ছিলেন।

মিরপুরে বাংলা নববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে বাংলা নববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে এক প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে সভাকক্ষে এ প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম জামাল আহমেদ’র সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন, উপজেলা পরিষদের নব-নির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান আবুল কাশেম জোয়ার্দ্দার, মিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল কালাম, জেলা পরিষদের সদস্য আলহাজ্ব মহাম্মদ আলী জোয়ার্দ্দার, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক কমান্ডার আফতাব উদ্দিন খান, নজরুল করিম প্রমুখ। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সদরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রবিউল হক রবি, আমলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম মালিথা, ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী আব্দুস সালাম, চিথলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন পিস্তুল, বহলবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সোহেল রানা বিশ্বাস, বারুইপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান, পোড়াদহ ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সেলিম হাসান, পৌরসভার প্যানেল মেয়র জমির উদ্দিন, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা সাবিহা সুলতানা, উপজেলা ভারপ্রাপ্ত প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ সোহাগ রানা, উপজেলা প্রকৌশলী মিজানুর রহমান, উপজেলা রিসোর্স সেন্টারের ইন্সট্রাক্টর ফিরোজা পারভীন, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম এনামুল হক, উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা নূরুল ইসলাম নান্নু, উপজেলা সহকারী মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা হোসনে মোবারক, উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা শেখ ফরিদ, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা তমান্নাজ খন্দকার, উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা নাজনীন আক্তার, উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শিরিনা আক্তার বানু, উপজেলা বিআরডিবির প্রকল্প পরিচালক আব্দুর রাজ্জাক, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রাশেদুজ্জামান রিমন, সাবেক সভাপতি আছাদুর রহমান বাবু, সাবেক আহ্বায়ক হুমায়ূন কবির হিমু, উপজেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান মিঠু, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ফেরদৌস ওয়াহেদ জোয়ার্দ্দার, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হালিম, উপজেলা শ্রমিকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফুল আলম হীরা প্রমুখ।

কাতলামারীতে স্কুল ছাত্রী আত্মহত্যার ঘটনায় ৪ বখাটে গ্রেফতার

পলাতক জয়নাল ও তার মা আরোবিয়া খাতুনকে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত

মিরপুর অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরের কাতলামারী এলাকার বখাটে ছেলেদের অত্যাচারে হাত থেকে নিজেকে রক্ষা করতে আত্মহত্যার পথ বেঁছে নেয় মুন্নি (১৫) নামের এক ৯ম শ্রেণির স্কুল শিক্ষার্থী। আত্মহত্যা করার পূর্বে একটি চিঠির মাধ্যমে বাবা-মায়ের কাছে শেষ বারের মতো ক্ষমা চাই এবং তার আত্মহত্যার কারন লিখে যায় সে। এ ঘটনায় ঐ স্কুল ছাত্রের পিতা বাদী হয়ে মিরপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করে। জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার (২৮ মার্চ) দুপুর আড়াইটার দিকে সে গলাই ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। পরদিন শুক্রবার ময়নাতদন্ত শেষে তাকে দাফন করা হয়। মুন্নি খাতুন মিরপুর উপজেলার সদরপুর ইউনিয়নের হেকমত আলী ভাষার মেয়ে এবং কেবিএইচ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণির শিক্ষার্থী। নিহতের চাচা হাসেম আলী জানান, শুক্রবার আমার বড় ভাই এর মেয়ের বিয়ে। এজন্য আমার সেজো ভাই এর মেয়ে মুন্নি এবং আমার মেয়ে আমলা বাজারে ফুল কিনতে যায়। এসময় আমলা বাজার থেকে এলাকার বকাটে জয়নাল প্রেমের প্রলোভন দেখিয়ে আমলা ভিত্তি বীজ আলু উৎপাদন খামারে নিয়ে যায়। পরে স্থানীয়দের সাথে বিবাদে জড়িয়ে পড়ে। এসময় তাকে আমলা পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এএসআই আশরাফ মুন্নিকে উদ্ধার করে স্থানীয় মহিলা ইউপি সদস্য রেজেলা খাতুনের কাছে হস্তান্তর করে। এবং আমলা থেকে তার নিজ বাড়ী কাতলামারীতে আসার সময় পথিমধ্যে অটো গাড়ির গতিরোধ করে কাতলামারী এলাকার আরোবিয়ার ছেলে জয়নাল, আনছের আলীর ছেলে মিঠুন, রেজন আলীর ছেলে আঙ্গুর, নাসের রাজের ছেলে রাজু এবং আফতার আলীর ছেলে পারভেজ। তারা জোর করে মুন্নিকে পাশর্^বর্তী ছাদিমনের বাড়ীতে নিয়ে যায়। এর পরেই মুন্নি বাড়ীতে এসে আত্মহত্যা করে। হাসেম আলীর দাবী, জয়নাল ইতিপূর্বেও মুন্নিকে উত্যক্ত করতো। যা অনেকবার বাড়ীতেও বলেছে মুন্নি। শেষ চিঠিতে মুন্নি লিখেছে “আব্বু আমাকে তুমি ক্ষমা করে দিও। আমি জানিনা কী করে কী হয়ে গেল। আমি তোমার মাননসম্মান বাঁচাতে পারলাম। আর আমি কোনো ইচ্ছা করে করিনি এই কাজ আমাকে জোর করে করানো হয়েছে। আর জয়নাল এমন কিছু করিনি। তোমারা সবাই মনে করছ ও আমার সাথে কিছু করছে। কিন্তু ও শুধু আমাকে জোর করে নিয়ে গেছে। আর তোমার মানসম্মান ডোবালো। রাজপাড়ার মিঠন, অঙ্গর এর তোমার মেয়ের ক্ষতি করল। আমি যদি মরে থাকি তাহলে তুমি মনে করবা রাজ পাড়ার ছেলেদের জন্যই আমি মারা গিয়েছি। আর মা তুমি কষ্ট দিয়ো আমার কষ্ট শেষ করতে পারবে না। ভালো থেকো সবাই। -ইতি তোমার মেয়ে মুন্নি। এ ব্যাপারে মিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম জানান, এ ঘটনায় মঙ্গলবার উপজেলার কাতলামারী রাজপাড়া গ্রামের আনছের আলীর ছেলে মিঠুন (২২), নাসের রাজের ছেলে রাজু (২২) এবং রেজন আলীর ছেলে আঙ্গুর (২৫)। পরে বুধবার দিবাগত রাতে আফতার আলীর ছেলে পারভেজ (২৩) কে আটক করা হয়। এছাড়া বাঁকী আসামী হাশেম আলীর ছেলে জয়নাল ও জয়নালের মা আরোবিয়া খাতুনকে আটকের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতাকে শুভেচ্ছা

কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতাকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এবং স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ কুষ্টিয়া জেলা শাখার সভাপতি ঝাউদিয়া কলেজের অধ্যক্ষ মোছা: নূরজাহান শারমিন। ৪ এপ্রিল বৃহস্পতিবার দুপুরে এ শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানানো হয়। আরো উপস্থিত ছিলেন আলামপুর কলেজিয়েট স্কুলের অধ্যক্ষ আবু বকর সিদ্দিক, ঝাউদিয়া কলেজের সহকারী অধ্যাপক কাজী মনির আহম্মেদ, খাতের আলী ডিগ্রী কলেজের উপাধ্যক্ষ আমিরুল ইসলাম, কুষ্টিয়া সিটি কলেজের সহ: অধ্যাপক হাসাকুল ইসলাম পাখি, কুষ্টিয়া ইসলামিয়া কলেজের প্রভাষক মোছা: কামরুন্নাহার প্রমুখ। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সকল সংগঠন একযোগে কাজ করবেন বলে সবাই আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

ব্রিফিংয়ে বিএসএমএমইউ পরিচালক

খালেদা জিয়ার ডায়াবেটিস রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে

ঢাকা অফিস ॥ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা উন্নতির দিকে। তার ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. একে মাহবুবুল হক। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে খালেদা জিয়ার চিকিৎসার সবশেষ অবস্থা সম্পর্কে এক ব্রিফিংয়ে তিনি এ তথ্য জানান। ডা. একে মাহবুবুল হক জানান, মেডিকেল বোর্ড খালেদা জিয়াকে দেখেছেন। তারা জানিয়েছেন, বিএসএমএমইউতে ভর্তির পর যে ওষুধগুলো তাকে দেয়া হয়েছে, সেগুলো তিনি নিয়মিত খাচ্ছেন। তার ডায়াবেটিস ও রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে আছে। এর আগে মঙ্গলবার বিএসএমএমইউ পরিচালক জানিয়েছিলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার অবস্থা গতকালের চেয়ে আজকে ভালো। বিএসএমএমইউর চিকিৎসাসেবায় খালেদা জিয়া সন্তুষ্ট বলেও তিনি দাবি করেছিলেন। এর আগে সোমবার দুপুরে রাজধানীর নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে বিএসএমএমইউয়ে আনা হয় খালেদা জিয়াকে। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ১০ বছর এবং জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ৭ বছর দন্ড নিয়ে ২০১৮ সালের ৮ ফেব্র“য়ারি থেকে পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন কারাগারে আছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া।

ড. কামালের সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে ধমক খেয়ে ফিরে এলেন মোকাব্বির

ঢাকা অফিস ॥ দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নেওয়ার পর দলের সভাপতি কামাল হোসেনের সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে ‘ধমক’ শুনে বেরিয়ে এলেন গণফোরামের মোকাব্বির খান। একাদশ জাতীয় সংসদের সদস্য হিসেবে শপথ নেওয়ার দুদিন বাদে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে মতিঝিলে কামালের চেম্বারে গিয়েছিলেন গণফোরামের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য মোকাব্বির। কামালের চেম্বারে তখন ছিলেন গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার কেন্দ্রীয় নেতা নুরুল হুদা মিলু চৌধুরী ও ঐক্যবদ্ধ ছাত্র সমাজের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ উল¬াহ মধু। মিলু চৌধুরী বলেন, মোকাব্বির খান সাহেব এসে স্যারকে (কামাল) সালাম দিতেই স্যার চরম রাগান্বিত হয়ে বলেন- ‘আপনি এখান থেকে বেরিয়ে যান, গেট আউট, গেট আউট। আমার অফিস ও চেম্বার আপনার জন্য চিরতরে বন্ধ। এই বিষয়ে মোকাব্বির খানের কোনো বক্তব্য তাৎক্ষণিকভাবে পাওয়া যায়নি। ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে ভোট ডাকাতির অভিযোগ তুলে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট তাদের নেতাদের সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেও জোটটির শরিক দল গণফোরাম থেকে নির্বাচিত দুজনই শপথ নিয়ে ফেলেছেন। মোকাব্বির শপথ নেওয়ার আগে সাংবাদিকদের বলেছিলেন, দলের ‘সিদ্ধান্তেই’ তিনি এই পদক্ষেপ নিচ্ছেন। তবে গণফোরাম থেকে তা অস্বীকার করা হয়েছে। শপথ নেওয়া প্রথমজন সুলতান মো. মনসুর আহমেদকে সঙ্গে সঙ্গে গণফোরাম থেকে বহিষ্কার করা হয়। মোকাব্বিরের বিষয়েও একই সিদ্ধান্ত আসছে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন সুব্রত চৌধুরী। সুলতান মনসুর সংসদ নির্বাচনে জোটের বড় দল বিএনপির প্রতীক ধানের শীষ নিলেও মোকাব্বির ভোটে জেতেন গণফোরামের দলীয় প্রতীক উদীয়মানর সূর্য নিয়ে। দুই যুগ আগে আওয়ামী লীগ থেকে বেরিয়ে কামাল হোসেন গণফোরাম গঠনের পর এই প্রথম দলটির কেউ সংসদ সদস্য নির্বাচিত হল। সংসদ নির্বাচনে গণফোরামের প্রতীকের বিজয়ও এটা প্রথম। সিলেট-২ আসন থেকে নির্বাচিত হন মোকাব্বির। ওই আসনে বিএনপির প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ায় জোটের প্রার্থী হিসেবে রয়ে গিয়েছিলেন মোকাব্বির, পরে ভোটেও জয়ী হন। এদিকে দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নেওয়ায় মোকাব্বির খানের বিরুদ্ধে ‘জরুরিভাবে’ সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে গণফোরাম। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে একথা জানানো হয়। এতে বলা হয়, গণফোরাম জরুরিভাবে মোকাব্বির খানের ব্যাপারে সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে। তার শপথ নেওয়ার ঘটনার সঙ্গে সংগঠনের অন্য কেউ জড়িত থাকলে তার বিরুদ্ধেও সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। মোকাব্বিরের বক্তব্য নাকচ করে মন্টু বলেন, মোকাব্বির খানের শপথ নেওয়ার বিষয়ে গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন, সাধারণ সম্পাদকসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ কিছুই অবগন নন। তিনি সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত ইচ্ছায় শপথ নিয়েছেন। মোকাব্বির খান মিডিয়াতে সভাপতি ও সংগঠনের বিষয়ে অসত্য ও বিভ্রান্তিমূলক বক্তব্য প্রদান করেছেন, যা ভিত্তিহীন ও বানোয়াট। তার সংগঠন ও আদর্শবিরোধী কার্য্কলাপে গণফোরাম মর্মাহত।

 

ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি চূড়ান্ত

ঢাকা অফিস ॥ ছাত্রলীগের ২৯তম কেন্দ্রীয় সম্মেলনের প্রায় ১০ মাস অতিবাহিত হচ্ছে। এর মধ্যে দফায় দফায় কমিটি পূর্ণাঙ্গ করার ঘোষণা দিয়েও তা বাস্তবায়ন করেননি সংগঠনটির শীর্ষ নেতারা। তবে দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে পূর্ণাঙ্গ কমিটি চূড়ান্ত করা হয়েছে বলে জানা গেছে। প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার অনুমোদন পেলেই প্রকাশ করা হবে এই কমিটি। গত বুধবার রাতে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বিষয়টি জানিয়েছেন। এদিকে, পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে পদ পেতে সংগঠনটির শীর্ষ দুই নেতা, সাবেক দুই নেতাসহ আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের কাছে ধরনা দিচ্ছেন পদপ্রত্যাশীরা। এরইমধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিন, টিএসসি এবং নেতাদের বাসার সামনে আড্ডা বেড়ে গেছে। যদিও ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী জানিয়েছেন, পেছনে ঘোরাঘুরি আর দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে সালাম দিয়ে পদ পাওয়া যাবে না। যোগ্যতার বিবেচনায় পদ দেওয়া হবে। পদপ্রত্যাশীদের নিজ নিজ জায়গায় যোগ্য, দক্ষ, ছাত্রদের প্রিয় ও মানবিক হতে হবে। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের এই ছাত্রসংগঠনের ২৯তম জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় গত বছরের ১১ ও ১২ মে। নতুন নেতৃত্ব নির্বাচন ছাড়াই শেষ হয় এ সম্মেলন। এর আগে অনুষ্ঠিত হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি), ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের সম্মেলন। জাতীয় সম্মেলনের আড়াই মাস পর ৩১ জুলাই রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনকে সভাপতি ও গোলাম রাব্বানীকে সাধারণ সম্পাদক মনোনীত করা হয়। একই দিনে ঢাবি এবং ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের কমিটিরও অনুমোদন দেওয়া হয়। এর আগে ৫ এপ্রিল ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় এবং রাজধানীর তিন গুরুত্বপূর্ণ ইউনিটের সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করা হয়েছিল। সম্মেলনের পর কেন্দ্রের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করতে সংগঠনটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সময় নেন প্রায় পাঁচবার। নির্ধারিত এই সময়ের মধ্যে কমিটি পূর্ণাঙ্গ না হওয়ায় ঢাবির সিনেট ভবনে ছাত্রলীগের নির্বাচনী বর্ধিত সভায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। এ সময় গত বছরের ১০ ডিসেম্বরের মধ্যে কমিটি দেওয়ার প্রতিশ্র“তি দেন সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী। যদিও সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রায় আট মাস অতিবাহিত হয়। তবুও কমিটি পূর্ণাঙ্গ করা হয়নি। এরপরও গত ডাকসু নির্বাচনের আগে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে আয়োজিত এক সভায় নির্বাচনের ২০ দিনের মধ্যে কমিটি গঠন করার নির্দেশ দেন আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা। এর আগে ২৮তম জাতীয় সম্মেলনের প্রায় সাত মাস পর পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করেন সাবেক সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন। এ ছাড়া ২৭তম কেন্দ্রীয় সম্মেলনের চার মাস পর ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করেন সভাপতি বদিউজ্জামান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল। যদিও ২৯তম কেন্দ্রীয় কমিটি প্রায় ১০ মাস পর ঘোষণা হচ্ছে বলে জানা গেছে। ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রের ১১(খ) ও (গ) ধারায় বলা হয়েছে, কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের কার্যকাল দুই বছর। এর মধ্যে সম্মেলন না হলে সংসদের কার্যকারিতা থাকবে না। বিশেষ বা জরুরি পরিস্থিতিতে বর্ধিত সভায় অনুমোদনের মাধ্যমে কমিটি তিন মাসের জন্য সময় বাড়াতে পারে। এ ছাড়া গঠনতন্ত্রে জেলা ইউনিটগুলোর মেয়াদ রাখা হয়েছে এক বছর। সে হিসাবে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের কমিটি এরইমধ্যে নির্ধারিত সময়ের এক-চতুর্থাংশ পার করেছে। ঢাবি ও ঢাকা মহানগর শাখা কমিটি নির্ধারিত সময়ের অর্ধেক পার করেছে। এদিকে ছাত্রলীগের সর্বশেষ সম্মেলনের তথ্যানুযায়ী, সংগঠনটির ১০৯টি সাংগঠনিক ইউনিট, ৫০টি আন্তর্জাতিক ইউনিট, অর্ধসহস্র উপজেলা ইউনিট এবং চার হাজার ৫৫০টি ইউনিয়ন ইউনিট রয়েছে। এসব ইউনিটেও কেন্দ্রীয় কমিটির নির্ধারিত দুই বছরের মধ্যে সম্মেলন সম্পন্ন করতে নির্দেশ দেওয়া আছে সংগঠনটির গঠনতন্ত্রে। এ ছাড়া সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কমিটিতে কতজন সদস্য হিসেবে থাকতে পারবেন, সে বিষয়েও উলে¬খ করা আছে। বলা হয়েছে, সংগঠনটিতে সহসভাপতি ৪১ জন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ১০ জন, সাংগঠনিক সম্পাদক ১০ জনসহ মোট ২৫১ সদস্যের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটি গঠন করতে হবে। গঠনতন্ত্র অনুযায়ীই পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন। কেন্দ্রীয় পূর্ণাঙ্গ কমিটির সঙ্গে ঢাবি, ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের কমিটিও প্রকাশ করা হবে বলেও জানা গেছে। এ বিষয়ে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বলেন, আমাদের পূর্ণাঙ্গ কমিটি প্রস্তুত। আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমতি নিতে বাকি আছে। আশা করি আগামি রোববার, সোমবারের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা হতে পারে। তবে এর মধ্যে না হলে আগামি সপ্তাহের মধ্যেই হবে বলে আশা করছি।

শিগগিরই দেশে যক্ষ্মা রোগের ওষুধ তৈরি হবে – স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ শিগগিরই বাংলাদেশে যক্ষ্মা রোগের ওষুধ তৈরি করা হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক। সরকারি ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থা অ্যাসেনশিয়াল ড্রাগস কোম্পানি লিমিটেডে (ইডিসিএল) একটি নতুন প্ল্যান্ট তৈরি করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘সেখানে ওষুধ তৈরি হবে। ওষুধের অভাব এখনও নেই, তখন সক্ষমতা আরও বাড়বে। ৭০০ কোটি টাকার এটা শুরু হয়ে গেছে। সেখানে টিবি ড্রাগ (যক্ষ্মার ওষুধ)  তৈরির পরিকল্পনা আমরা হাতে নিয়েছি।’ স্বাস্থ্যমন্ত্রী গতকাল বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস-২০১৯ উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও আগামী ৭ এপ্রিল বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস পালন করা হবে। এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় হচ্ছে ‘সমতা ও সংহতি নির্ভর সার্বজনীন প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা’। জাহিদ মালেক বলেন, এছাড়া দেশে অসংক্রামক রোগ দিন দিন বাড়ছে। বর্তমানে দেশে এমন রোগী রয়েছেন ৬৫ শতাংশ। একইসঙ্গে সরকার স্বাস্থ্য খাতে সমতা আনতে কাজ করে যাচ্ছে। কেউ স্বাস্থ্যসেবার বাইরে থাকবে না। সরকারি হাসপাতালগুলোর আগুন নেভানোর ব্যবস্থা সম্পর্কে কী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে- জানতে চাইলে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা সব হাসপাতালে ইতোমধ্যে একটা নির্দেশনা দিয়ে দিয়েছি, যদি অগ্নি দুর্ঘটনা ঘটে সেটাকে মোকাবেলা করার জন্য কী পদক্ষেপ নেবেন তা জানিয়েছি। এ ছাড়া আমরা ইমিডিয়েট অগ্নি মহড়া ও যেসব যন্ত্রপাতি রয়েছে, সেগুলো পরীক্ষার জন্য বলেছি। যেগুলো সচল নয় সেগুলো সচল করার ব্যবস্থা নিতে বলেছি। সরকারি হাসপাতালগুলোতে প্রাথমিক স্বাস্থ্য সেবা কর্ণার খোলা হবে জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, আমরা হাসপাতালগুলোতে একটা ছোট্ট কর্ণার করার পরিকল্পনা করছি। যেখান থেকে প্রাইমারি হেলথ কেয়ার দেয়া হবে। আমরা বিভিন্ন কর্ণার তৈরি করেছি, মা ও শিশুদের জন্য অটিস্টিক এবং শিশুদের জন্য প্রাইমারি হেলথ কেয়ারের একটি ডেডিকেটেড কর্ণার করতে চাই। যাতে ছোট অসুখ-বিসুখের জন্য ওখানে তারা প্রাইমারি হেলথ কেয়ারটা পাবেন। এর মাধ্যমেই আমরা সমতা সৃষ্টি করতে চাচ্ছি। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিষ্ঠা দিবস হিসেবে প্রতিবছর ৭ এপ্রিল বিশ্বব্যাপী যথাযোগ্য মর্যাদায় বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস পালন হয়। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো আমাদের দেশেও দিবসটি উদযাপনে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, জাতীয় পর্যায়ে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান, সেমিনার, ক্রোড়পত্র প্রকাশ, আলোচনা অনুষ্ঠান, সড়কদ্বীপ সজ্জিতকরণ ও জারি গান। রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে দিবসটির উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হবে। এছাড়া জেলা এবং উপজেলায় বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস পালিত হবে। সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব আসাদুল ইসলাম, অতিরিক্ত সচিব হাবিবুর রহমান ও বাবলু কুমার সাহা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বিশ্ব ব্যাংকের হিসাবে প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৭.৩%

ঢাকা অফিস ॥ বাংলাদেশ সরকার চলতি অর্থবছর শেষে প্রথমবারের মত আট শতাংশের বেশি জিডিপি প্রবৃদ্ধির  প্রত্যাশা করলেও বিশ্ব ব্যাংকের হিসাবে তা হতে পারে ৭ দশমিক ৩ শতাংশ।  বর্তমান বিশ্ব পরিস্থিতিতে ৭ দশমিক ৩ শতাংশ প্রবৃদ্ধিও ‘অনেক’ মন্তব্য করে বিশ্ব ব্যাংকের আবাসিক প্রতিনিধি রবার্ট জে সম বলেছেন, বিশ্বে সবচেয়ে দ্রুত বাড়তে থাকা পাঁচ অর্থনীতির একটিতে পরিণত হয়েছে বাংলাদেশ। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ের বিশ্ব ব্যাংকের আবাসিক কার্যালয়ে বাংলাদেশের অর্থনীতির হাল হকিকত নিয়ে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। ‘বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট আপডেট: রেগুলেটরি প্রেডিক্টেবলিটি ক্যান সাসটেইন হাই গ্রোথ’ শীর্ষক ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, বেসরকারি খাতে বিনিয়োগের উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি না হলেও রপ্তানি ও রেমিটেন্সে ভর করে বাংলাদেশ চলতি অর্থবছরে ৭ দশমিক ৩ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি পেতে পারে। বিশ্ব ব্যাংকের ঢাকা কার্যালয়ের প্রধান অর্থনীতিবিদ জাহিদ হোসেন বলেন, “রপ্তানি, আমদানি, রাজস্ব আদায়, বেসরকারি বিনিয়োগ এবং সরকারি বিনিয়োগসহ অর্থনীতিক সূচকগুলো বিশ্লেষণ করে চলতি অর্থবছরে এই প্রবৃদ্ধি হবে বলে আমরা ধারণা করছি।” গত অর্থবছর ৭ দশমিক ৮৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধি পাওয়ার পর ২০১৭-১৮ অর্থবছরের বাজেটে ৭ দশমিক ৪ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য ঠিক করেছিল সরকার। কিন্তু অর্থবছরের প্রথম আট মাসের (জুলাই-ফেব্র“য়ারি) তথ্য বিশ্লেষণ করে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো যে প্রাক্কলন করেছে, তাতে অর্থবছর শেষে জিডিপি প্রবৃদ্ধি হতে পারে রেকর্ড ৮ দশমিক ১৩ শতাংশ। এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক-এডিবি বুধবার তাদের বার্ষিক প্রতিবেদন এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট আউটলুকে যে পূর্বাভাস দিয়েছে, তা সরকারের প্রাক্কলন থেকে সামান্য কম হলেও বিশ্ব ব্যাংকের পূর্বাভাসের চেয়ে বেশি।  এডিবি মনে করছে, রপ্তানি ও সরকারি বিনিয়োগে ইতিবাচক ধারা অব্যহত থাকায় বাংলাদেশ এবার ৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি পেতে পারে। এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে বিশ্ব ব্যাংকের অর্থনীতিবিদ জাহিদ হোসেন বলেন, “এটা তাদের কাছে জানতে চাইতে পারেন, আমাদের হিসেবে আমরা এটা পেয়েছি।” বিশ্ব ব্যাংকের আবাসিক প্রতিনিধি রবার্ট জে সম এ সময় বলেন, “এই প্রবৃদ্ধি অনেক, বিশ্বে যে পাঁচ দেশের জিডিপি সবচেয়ে দ্রুত বাড়ছে, তার মধ্যে বাংলাদেশ একটি।” প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে বিশ্বে ইথিওপিয়া (৮.৮%), রুয়ান্ডা (৭.৮%), ভুটান (৭.৬%) এবং ভারতের (৭.৫%) জিডিপি প্রবৃদ্ধির হারই কেবল বাংলাদেশের চেয়ে বেশি। জিডিপি প্রবৃদ্ধির এই ইতিবাচক ধারা অব্যাহত রাখতে ব্যাংক খাতের সংস্কার, রাজস্ব আদায় বাড়ানোসহ অর্থনীতির বড় বড় খাতের চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবেলায় মনোযোগ দেওয়ার পরামর্শ দেন বিশ্ব ব্যাংকের আবাসিক প্রতিনিধি।