পাকিস্তানের মাটি থেকে জঙ্গি হামলা চলতে দেব না – ইমরান

ঢাকা অফিস ॥ পাকিস্তানের মাটি থেকে কোনো জঙ্গি গোষ্ঠীকে বিদেশে হামলা চালাতে দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। পাকিস্তানের দক্ষিণাঞ্চলে এক সমাবেশে দেওয়া ভাষণে শুক্রবার ইমরান বলেন, “বাইরে কোনোরকম সন্ত্রাসবাদের জন্য এ সরকার পাকিস্তানের মাটি ব্যবহার হতে দেবে না। ইনশাল্লাহ, আপনারা এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা দেখতে পাবেন।” পাকিস্তান সরকার সম্প্রতি জঙ্গি সংগঠনগুলোর ওপর জোর দমনাভিযানের ঘোষণা দেওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী ইমরান এ কড়া কথা শোনালেন। পাকিস্তানের এ জঙ্গি দমনাভিযানকে ভারত লোকদেখানো বলেই মন্তব্য করেছে। তবে ইমরান বলছেন, একটি শান্তিপূর্ণ, স্থিতিশীল পাকিস্তান গড়াই তার কাঙ্খিত লক্ষ্য। “আমরা এখন থেকে কোনো জঙ্গি গোষ্ঠীকেই আমাদের দেশে তৎপরতা চালাতে দেব না,” বলেন তিনি। সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালানো নিষিদ্ধ জঙ্গি গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আন্তর্জাতিক চাপের মুখে আছে পাকিস্তান। গত ১৪ ফেব্র“য়ারি কাশ্মীরের পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার প্রেক্ষাপটে আন্তর্জাতিক চাপ বাড়তে থাকার মধ্যে পাকিস্তান এ সপ্তাহ থেকে জঙ্গি দমনাভিযান শুরু করেছে। জঙ্গিদের বিরুদ্ধে জোর দমনাভিযানে পাক সরকার বৃহস্পতিবার ১৮২ টি মাদ্রাসা বাজেয়াপ্ত করাসহ নিষিদ্ধ ঘোষিত দলগুলোর ১শ’রও বেশি জনকে আটক করার কথা ঘোষণা করেছে।

ঢাকা আইনজীবী সমিতিতে আওয়ামী লীগ সমর্থকদের জয়

ঢাকা অফিস ॥ ঢাকা আইনজীবী সমিতির ২০১৯-২০ কার্যনির্বাহী পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামী সমর্থিত আইনজীবীদের সাদা প্যানেল দুই শীর্ষ পদসহ অধিকাংশ পদে জয় পেয়েছে। বুধ ও বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত ওই নির্বাচনের ফল শুক্রবার মধ্যরাতে ঘোষণা করেন এই নির্বাচনের প্রধান নির্বাচন কমিশনার অ্যাডভোকেট মোখলেছুর রহমান বাদল। সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন গাজী শাহ আলম, সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন মো. আসাদুজ্জামান খান রচি। সমিতির ২৭টি পদের মধ্যে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ ১৮টি পদে জয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থক আইনজীবীরা। এর মধ্যে ৯টি সম্পাদকীয় ও ৯টি সদস্য পদ। অন্যদিকে বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত নীল প্যানেল জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতিসহ ৩টি সম্পাদকীয় ও ৬টি সদস্য পদে জিতেছে। সাদা প্যানেলে বিজয়ীরা হলেন- সহ-সভাপতি মো. জাহাঙ্গীর হোসেন দুলাল, জ্যেষ্ঠ সহ-সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মাদ জাহাঙ্গীর আলম মোল্লা, সহ-সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মাদ ওমর ফারুক আসিফ, দপ্তর সম্পাদক মো. জাহিদুল ইসলাম কাদির, সমাজকল্যাণ সম্পাদক হুমায়ুন খন্দকার টগর ও ক্রীড়া সম্পাদক পদে মো. উজ্জ্বল মিয়া। নীল প্যানেলের ৩ সম্পাদকীয় পদে বিজয়ীরা হলেন- জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম দেওয়ান, গ্রন্থাগার সম্পাদক মো. জিয়াউল হক জিয়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক মোরশেদা খাতুন শিল্পী। এই নির্বাচনে এবার ভোটার ছিল ১৭ হাজার ৮৯৭ জন। তার মধ্যে ৯ হাজার ৩৬৪ জন ভোট দিয়েছেন।

গতবারের নির্বাচনে সাদা প্যানেল ১৪টি পদে জয়ী হলেও সভাপতি পদে জিতেছিলেন বিএনপি-জামায়াত সমর্থকরা। তার আগের নির্বাচনে সমিতিতে নীল প্যানেলের সংখ্যাগরিষ্ঠতা ছিল।

শারীরিক ও মানসিক বিকাশের জন্য খেলাধূলার কোনো বিকল্প নেই ঃ  জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেছেন, কর্মক্ষেত্রের পাশাপাশি শারীরিক ও মানসিক সুস্বাস্থ্য বিকাশের জন্য খেলাধূলার কোনো বিকল্প নেই। আনন্দ-বিনোদন না হলে জীবন পরিপূর্ণ হয় না। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ক্রীড়াপ্রেমী ছিলেন। তিনি ফুটবল খেলাকে খুব পছন্দ করতেন। ২০’র দশকে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনীতেও খেলার কথা উল্লেখ করেছেন। বর্তমানে  ফুটবলের পাশাপাশি ক্রিকেট খেলার মাধ্যমে বাংলাদেশ বিশ্বে পরিচিতি লাভ করেছে। ক্রীড়া প্রতিযোগিতার মাধ্যমে সরকারী কর্মচারীদের  ও তাঁদের সন্তানদের মনোবলসহ  কর্মস্পৃহা বৃদ্ধির পাশাপাশি নির্মল আনন্দ বয়ে আনবে এবং পারস্পরিক সহমর্মিতা বৃদ্ধিতে সহায়ক ভূমিকা রাখবে। স্কুল-কলেজে সন্তানদের খেলার উপযোগী মাঠ তৈরি করতে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষকে আন্তরিক হতে হবে। গতকাল শনিবার সকাল ১০টায় চট্টগ্রাম এম এ  আজিজ স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ৩৪তম বিভাগীয় বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ২০১৯ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।  চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার অফিসের পৃষ্ঠপোষকতায় বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যাণ বোর্ড চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয় এ ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল মান্নানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ক্রীড়া প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যাণ বোর্ডের মহাপরিচালক (ভারপ্রাপ্ত সচিব) সত্যব্রত সাহা। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (রাজস্ব) শংকর রঞ্জন সাহা, বিভাগীয় পরিচালক (স্থানীয় সরকার) দীপক চক্রবর্তী, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) মো. নুরুল আলম নিজামী, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (রাজস্ব) মো. শহীদুল আলম, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন (চট্টগ্রাম), তন্ময় দাস (নোয়াখালী), হায়াত-উদ- দৌলা খাঁন (ব্রাহ্মণবাড়িয়া), মো. মাজেদুর রহমান খান (চাঁদপুর), মো. আবুল ফজল মীর (কুমিল্লা), মো. দাউদুল ইসলাম (বান্দরবান), অঞ্জন চন্দ্র পাল (লক্ষ্মীপুর), এ কে এম মামুনুর রশিদ (রাঙামাটি), মো. কামাল হোসেন (কক্সবাজার), মো. শহীদুল ইসলাম (খাগড়াছড়ি), মো. ওয়াহিদুজ্জামান (ফেনী), বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যাণ বোর্ডের চট্টগ্রাম বিভাগীয় উপ-পরিচালক ও বার্ষিক ক্রীড়া ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য সচিব শারমিন আক্তার, জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের উপ-পরিচালক (স্থানীয় সরকার) ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি, বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ের উপ-পরিচালক (স্থানীয় সরকার) শ্রাবস্তী রায়, সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ আজিজুর রহমান সিদ্দিকীসহ চট্টগ্রাম বিভাগীয় বিভাগের বিভিন্ন জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকগণ, সিনিয়র সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগণ, কর্মচারী কল্যাণ বোর্ডের কর্মকর্তা-কর্মচারীরাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সরকারি কর্মচারী, তাদের সন্তান  এবং ক্রীড়ামোদীরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতীয় সঙ্গীতের সাথে সাথে প্রধান অতিথি কর্তৃক জাতীয় পতাকা, বিশেষ অতিথি কর্তৃক কল্যাণ বোর্ডের পতাকা, সভাপতি কর্তৃক অলিম্পিক পতাকা ও জেলা প্রশাসকগণ কর্তৃক নিজ নিজ জেলার পতাকা উত্তোলন করা হয় এবং প্রধান অতিথি কর্তৃক সালাম গ্রহণ শেষে বেলুন ও কপোত উড়িয়ে ৩৪তম বিভাগীয় বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সরকারের জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার অনুষ্ঠানে ডিসপ্লে প্রদর্শন করেন চট্টগ্রাম শিশু একাডেমির ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা। এবার ৩৭টি ইভেন্টে ক্যাটাগরি ভিত্তিক বার্ষিক  ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এগুলো হচ্ছে দৌড়, উচ্চ লাফ, দীর্ঘলাফ, বর্শা নিক্ষেপ, রিলে দৌড়, চকলেট দৌড়, মোরগ লড়াই, টেনিস বল নিক্ষেপ, গোলক নিক্ষেপ, দ্রুত হাঁটা, বাদ্যের তালে তালে বালিশ বদল ও যেমন খুশি তেমন সাজ। বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায়  নোয়াখালী জেলা প্রশাসক দল চ্যাম্পিয়ন ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসক দল রানার্স আপ চ্যাম্পিয়ন হন। সবশেষে বিজয়ীদের মাঝে চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স আপ ট্রফিসহ পুরস্কার তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। সমগ্র অনুষ্ঠানটি ধারা বিবরণীতে ছিলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাবরিনা আফরিন মুস্তফা, বাংলাদেশ টেলিভিশনের উপস্থাপক ইকবাল হোসেন সিদ্দিকী ও নাসরিন ইসলাম।

ভাতিজা হামলায় বৃদ্ধা চাচা হাসপাতালে

নিজ সংবাদ ॥ থানায় মামলা করায় চাচাকে পিঠিয়ে আহত করার অভিযোগ উঠেছে। কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার পোড়াদহ গোবিন্দপুর গ্রামে জমি ক্রয়কে কেন্দ্র করে মোবারক হোসেন (৬৫) পিটিয়ে চরম আহত করে রেখে যায় তার প্রভাবশালি ভাতিজা এবং ভাই। পরে স্থানীয়রা মোবারককে উদ্ধার করে মিরপুর হাসপাতালে ভর্তি করে মিরপুর থানা অভিযোগ করেন। এই খবর পেয়ে প্রভাবশালী ভাতিজা  সুমন (৩০), মামুন (৩২) এবং তাদের পিতা আরমান আলী চড়াও হয়ে গতকাল সকালে সোবারকের স্ত্রীকে রামদা দিয়ে কুপিয়ে চরম আহত করেন। জানা যায় জমি ক্রয়কে কেন্দ্র করে পোড়াদহ পরিষদ ভবনে নিকট মোটর গ্যারেজের নিকট হতে বৃদ্ধা  চাচাকে রড দিয়ে পিটিয়ে বাম হাত ভেঙ্গে দেয় প্রভাবশালী ভাই এবং তার ছেলেরা। এই ব্যাপারে মিরপুর থানায় একটি মামলা হয়েছে, যার নং ১১, তাং ৯/৩/১৯।

 

পোড়াদহে অসুস্থ মকসুদ মাষ্টারকে দেখতে বঙ্গবন্ধু ওলামা পরিষদের  নেতৃবৃন্দ

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার পোড়াদহ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রবীন শিক্ষক বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী নাসিম সাইগল মুন্নার পিতা অসুস্থ্য মৃত্যুশয্যায়ী মকসুদ আলী মাষ্টারকে দেখতে  গেলেন কুষ্টিয়া জেলা বঙ্গবন্ধু ওলামা পরিষদের  নেতৃবৃন্দ। গতকাল সন্ধ্যায় পোড়াদহ দক্ষিন কাটদহে তার বাসভবনে তাকে দেখতে যান  নেতৃবৃন্দ। এসময় উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা বঙ্গবন্ধু ওলামা পরিষদের সভাপতি মাওলানা ফারুক আজম, সাধারন সম্পাদক মাওলানা খালিদ হাসান সিপাহী, সহ-সভাপতি মিরাজুল ইসলাম, যুগ্ন সাধারন সম্পাদক মাওলানা হাফিজুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক ইউনুস আলী, সদস্য আবু নাঈম ও অসুস্থ্য শিক্ষকের ছোট ভাই মজিবুর রহমান। নেতৃবৃন্দ অসুস্থ এই শিক্ষানুরাগীর শয্যাপাশে দাড়িয়ে আশু রোগ মুক্তি কামনা করে  দোয়া ও  মোনাজাত করেন। মোনাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা ফারুক আজম।

আলমডাঙ্গা রেলস্টেশনের অপারেটর কার্যক্রম চালুর দাবিতে মানববন্ধন

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা রেলস্টেশনের অপারেটর কার্যক্রম চালুর দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। দুই ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন চলাকালীন সময়ে উপজেলা সদরের সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়। গতকাল শনিবার আলমডাঙ্গা রেলস্টেশন সড়কে সকাল ১০টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত আলমডাঙ্গা স্টেশন সংগ্রাম কমিটির ব্যানারে  এ মানববন্ধন গড়ে তোলা হয়। ৩০ জানুয়ারী থেকে আলমডাঙ্গা রেলষ্টেশনের অপারেটর কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়।  বর্তমানে ২ জন বুকিং সহকারী ১ জন পোটার দিয়ে চলছে ষ্টেশনের কার্যক্রম। যেখানে ১২-১৩ জন স্টাফ প্রয়োজন।  ফলে ট্রেন কখন আসবে সেটা আমরা যাত্রীদের জানাতে পারছি না। এরই পরিপেক্ষিতে শনিবার আলমডাঙ্গার সর্বস্তরের জনগন মানববন্ধন গড়ে তোলে। বক্তারা বলেন আগামী ১৫দিনের মধ্যে স্টেশনের কার্যক্রম পুরোপুরি চালু না হলে পরবর্তীতে  ট্রেন চলাচল বন্ধসহ বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। এ সময় বক্তব্য রাখেন আলমডাঙ্গা পৌরসভার মেয়র হাসান কাদির গনু, উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্তÍ সাধারন সম্পাদক ইয়াকুব হোসেন মাষ্টার, আলমডাঙ্গা স্টেশন রক্ষা সংগ্রাম কমিটির আহবায়ক মতিয়ার রহমান ফারুক, অগ্নিসেনা মইনউদ্দিন, আলমডাঙ্গা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডের সাবেক কমান্ডার শফিউর রহমান সুলতান জোয়ার্দ্দার, সাবেক কমান্ডার আব্দুল কুদ্দুস, বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা নূর মোহাম্মদ জকু, ওমর ফারুক, ওয়াজেদ আলী, বনিক সমিতির সভাপতি মকবুল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মীর শফিক, বৃহত্তর কাপড় ব্যবসায়ি সমিতির সভাপতি গোলাম রহমান সিঞ্জুল মিয়া, উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি জাহিদ হোসেন রেন্টু, সম্পাদক আবু মুসা, আলমডাঙ্গা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সালমুন আহমেদ ডন, আলমডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সভাপতি শাহ আলম মন্টু, সম্পাদক হামিদুল ইসলাম আজম, স্টেশন রক্ষা কমিটির যুগ্ন আহ্বায়ক কাউন্সিলর আলাল আহমেদ, নাজমুল হাসান লিমন মল্লিক, আসাদুজ্জামান শাহীন, আদিল আহমেদ, মোল্লা ফারুক ইলাহী, বিশিষ্ট ব্যবসায়ি লিয়াকত আলী লিপু মোল্লা, আনিসুজ্জামান মল্লিক, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী অরুণ, মুদী ও মনোহারী সমিতির সম্পাদক আলাউদ্দীন, তহবাজার সমিতির সাবেক সভাপতি ইউসুফ আলী মোল্লা, মাসুদ রানা তুহিন, কৃষকলীগ নেতা আজিজুল হক, সৃষ্টি মালটিমিডিয়া ও সখি ফিল্মস’র আব্দুল জব্বার লিপু, রাজিবুল ইসলাম, দেখি বাংলার রূপ টিমের মিশর বিশ্বাস, সেলিম মোল্লা প্রমুখ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সাংবাদিক রহমান মুকুল। আলমডাঙ্গা বণিক সমিতি, আলমডাঙ্গা তহবাজার কমিটি, বৃহত্তর কাপড় ব্যবসায়ি সমিতি, আলমডাঙ্গা মনোহারি ব্যবসায়ি সমিতি, গোবিন্দপুর বন্ধু সমবায় সমিতি, আলমডাঙ্গা উপজেলা মৎস্য আড়ত মালিক সমিতি, সখি ফিল্মস, সৃষ্টি মাল্টিমিডিয়া, তরিকা গ্র“প, আলমডাঙ্গা পৌরসভা, আলমডাঙ্গা কোকারিজ ব্যবসায়ি সমিতি, আলমডাঙ্গা হার্ডওয়ার ব্যবসায়ি সমিতি, পূজা উদযাপন কমিটি, দেখি বাংলার রূপ টিম, থানাপাড়া তরুণ সংঘ, আমাদের আলমডাঙ্গা, শুদ্ধ সংস্কৃতি চর্চাকেন্দ্র বাংলাদেশ, পোল্টি ব্যবসায়ি সমিতি, রোভার স্কাউট,অনলাইন নিউজ পোর্টাল সাম্প্রতিকী ডট কম পরিবারসহ বিভিন্ন সংগঠণ মানববন্ধনে তাদের নিজস্ব ব্যানার নিয়ে হাজির হয়।

 

আলমডাঙ্গা উপজেলা পরিষদ নির্বাচন

আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী জিল্লুর গণসংযোগ ও পথসভা অনুষ্ঠিত

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ আলমডাঙ্গা উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থী জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক জিল্লুর রহমানের পক্ষে গণসংযোগ ও পথসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলার কালিদাসপুর, ডাউকী, জামজামী, ঘোলদাড়ী, খাসকররা ও আলমডাঙ্গা পৌরসভাসহ বিভিন্ন গ্রামের গণ সংযোগ শেষে আলমডাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে পথসভা করেন। পথসভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক সাজ্জাদুল ইসলাম স্বপন। প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব শেখ সামসুল আবেদীন খোকন। তিনি বলেন জননেত্রী শেখ হাসিনা আলমডাঙ্গা উপজেলা চেয়ারম্যান প্রাথী হিসেবে চুয়াডাঙ্গা জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক  জিল্লুর রহমানকে নৌকার প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দিয়েছেন। আমি আলমডাঙ্গার আওয়ামী লীগসহ সকল অঙ্গসংগঠন ও সহযোগি সংগঠনকে তার পক্ষে কাজ করার জন্য অনুরোধ করছি। এ সময় জিল্লুর রহমান সকলের উদ্দেশ্যে বলেন বঙ্গবন্ধুর নৌকা প্রতিক জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে দিয়েছেন। আসন্ন আলমডাঙ্গা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আমাকে নির্বাচিত করে এলাকার উন্নয়নে অংশ নিন এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করুন। পথসভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আলমডাঙ্গা উপজেলার আওয়ামী লীগ নেতা সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ, কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, আলমডাঙ্গা উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক যুগ্ম আহবায়ক শাহিন রেজা, জেলা কৃষকলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আব্দুল আল হোসাইন দীপক, জেলা কৃষকলীগ নেতা মহাসিন আলী, গোলাম মোস্তফা লালা, জাকারিয়া আলম, কৃষকলীগ নেতা সজীব, যুবলীগ নেতা রাজিবুল ইসলাম, টাইগার, হুমায়ন, ছাত্রলীগ নেতা রিভেন, শাকিল প্রমুখ।

আলমডাঙ্গা পুলিশের অভিযান বিভিন্ন মামলার ৪ জন আটক

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ আলমডাঙ্গা থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে দুই ইভটিজার এক মাদকসেবী ও এক ধর্ষককে আটক করেছে। জানাগেছে, আলমডাঙ্গা থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে আশানন্দপুর গ্রাম থেকে মুনসুর মন্ডলের ছেলে মাদকসেবী লাল্টুকে আটক করে। কালিদাশপুর ইউনিয়নের পাইকপাড়া গ্রামের জনি মন্ডলের ছেলে ইভটেজার রাশেদুল, জহুরুল মিয়ার ছেলে ইভটেজার জাইদুলকে আটক করেছে। এ ছাড়া শ্রীরামপুর গ্রামের ধর্ষণ মামলার সন্দেহজনক আসামী আব্দুল ওহাবের ছেলে বাদশাকে আটক করেছে। আজ তাদেরকে সংশ্লিষ্ট মামলায় চুয়াডাঙ্গা আদালতে প্রেরণ করা হবে।

 

কুষ্টিয়ায় কৃষি মেলার উদ্বোধন

নিজ সংবাদ ॥ গতকাল শনিবার সকালে কুষ্টিয়া কালেক্টরেট চত্বরে ৩ দিনব্যাপী কৃষি মেলার উদ্বোধন হয়েছে। সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জোবায়ের হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়া শহর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আতাউর রহমান আতা। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত উপপরিচালক কৃষিবিদ সুশান্ত কুমার প্রামানিক, অতিরিক্ত উপ-পরিচালক কৃষিবিদ হায়াৎ মাহমুদ ও পরিচালক (উদ্ভিদ) বিভাস চন্দ্র সাহা। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বিষ্ণু পদ সাহা। বৃহত্তর কুষ্টিয়া ও যশোর অঞ্চল কৃষি উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় সদর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর এ মেলার আয়োজন করে। এর আগে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বর থেকে বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালী শেষে বেলুন উড়িয়ে ও ফিতা কেটে এ মেলার উদ্বোধন করেন কুষ্টিয়ার ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক আজাদ জাহান। পরে অতিথিরা মেলায় অংশ নেওয়া বিভিন্ন ষ্টল পরিদর্শণ করেন। এ সময় সদর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের উপ-সহকারী কর্মকর্তা, কৃষক ও সুধীজনরা উপস্থিত ছিলেন।

ইবিতে তিনব্যাপী কেন্দ্রীয় লাইব্রেরী ডিজিটালাইজেশন ও অটোমেশন শীর্ষক প্রশিক্ষন কর্মশালার উদ্বোধন

কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়কে আন্তর্জাতিকমানের করার অংশ হিসাবে শনিবার কেন্দ্রীয় লাইব্রেরীকে সেবার দিক দিয়ে ডিজিটালাইজেশন ও অটোমেশন এর জন্য তিন দিনব্যাপী এক প্রশিক্ষন কর্মশালা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরীতে উদ্বোধন করা হয়। তিন দিনব্যাপী উক্ত প্রশিক্ষন কর্মশালার উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় লাইব্রেরী ডিজিটালাইজেশন ও অটোমেশন কমিটির আহবায়ক ও ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষক ও সাবেক প্রক্টর প্রফেসর ড. মোঃ মাহবুবর রহমান।  খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারিক মোঃ আক্কাস আলী পাঠান এর নেতৃত্বে কুয়েটের গ্রন্থাগারের ৫ জন সদস্য  উক্ত প্রশিক্ষন কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন ছাত্র-উপদেষ্টা প্রফেসর ড. পরেশ চন্দ্র বর্মন, প্রক্টর (ভারঃ) ড. আনিচুর রহমান, প্রফেসর ড. আহসানুল হক আম্বিয়াসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরী ডিজিটালাইজেশন ও অটোমেশন কমিটির সদস্যবৃন্দ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন কেন্দ্রীয় লাইব্রেরী ডিজিটালাইজেশন ও অটোমেশন কমিটির সদস্য-সচিব গ্রন্থাগারিক (ভারঃ) মোঃ আতাউর রহমান। উল্লেখ্য যে, তিনদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরীতে এই প্রশিক্ষন কর্মশালা অনুষ্ঠিত হবে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

ঝিনাইদহে মরমী কবি পাগলা কানাই’র ২০৯ তম জন্মজয়ন্তী উৎসব শুরু

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহে মরমী কবি পাগলা কানাই এর ২০৯ তম জন্মজয়ন্তী উৎসব পালিত হচ্ছে। এ উপলক্ষে পাগলা কানাই স্মৃতি সংরক্ষণ সংসদের আয়োজনে গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় বেড়বাড়ি গ্রামের কবির মাজারে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। এসময় সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ফাতেমা-তুজ-জোহরা, জেলা কালচারাল অফিসার জসিম উদ্দিন, পাগলা কানাই স্মৃতি সংরক্ষণ সংসদের সাধারন সম্পাদক এ্যাড. আব্দুর রশিদ, দপ্তর সম্পাদক আশরাফুল আলমসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন। পরে মাজার প্রাঙ্গনে কবির আতœার শান্তি কামনা করে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এগিকে মরমী কবি পাগলা কানাই এর জন্মজয়ন্তী উৎসবকে ঘিরে মাজার এলাকায় বসেছে গ্রামীন মেলা। প্রচুর মানুষ এখানে ভীড় করছেন। শনিবার সকাল থেকে শুরু হওয়া এ উসব চলবে আগামী ১১ মার্চ তারিখ পর্যন্ত। প্রথমদিনে বিকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত কবির রচিত গানের প্রতিযোগীতা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আমলায় মদিনাতুল উলুম মডেল মাদ্রাসার উদ্বোধন

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরের আমলায় মদিনাতুল উলুম মডেল মাদ্রাসার উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে উপজেলার আমলা ইউনিয়নের আমলা কদমতলা এলাকায় এ মাদ্রাসার শুভ উদ্বোধন করা হয়। এসময় আমলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম মালিথার সভাপতিত্বে প্রধান হিসেবে উদ্বোধন শেষে বক্তব্য রাখেন ওয়েস্টার্ন ইঞ্জিনিয়ারিং প্রাইভেট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বশির আহম্মেদ। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন আমলা সদরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক মকবুল হোসেন, মিরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিনের সহধর্মীনি শামসুন্নাহার শেফালি, জেলা পরিষদের ইঞ্জিনিয়ার আজম আলী, আমলা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আফতাব উদ্দিন, আব্দুর রাফেত বিশ^াস কলেজের প্রভাষক হামিদুল ইসলাম প্রমুখ।

দৌলতপুরে অগ্নিকান্ডে ৫টি ঘর ভষ্মিভূত : মা ও ছেলে অগ্নিদগ্ধ

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে অগ্নিকান্ডে ৫টি ঘর ভষ্মিভূত হয়েছে। আগুনে অগ্নিদগ্ধ হয়ে মা ও ছেলে গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল ১০টার দিকে উপজেলার রিফায়েতপুর ইউনিয়নের তেলিগাংদিয়া গ্রামে অগ্নিকান্ডের এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানায়, ওই গ্রামের কালুর রান্না ঘরের চুলা থেকে অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত হলে মুহুর্তের মধ্যে আগুন প্রতিবেশীদের বাড়িতে ছড়িয়ে পড়ে। এলাকাবাসীর চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রন হলেও কালু ও তার ভাই বশির এবং প্রতিবেশী ময়নালের ৫টি ঘর পুড়ে ভষ্মিভূত হয়। আগুনে পুড়ে কালুর স্ত্রী সেলিনা খাতুন (৩৫) ও তার ছেলে মিরাজুল (১৮) অগ্নিদগ্ধ হয়ে আহত হলে তাদের দৌলতপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আগুনে কালুর নগদ ১লক্ষ ৪০ হাজার টাকা, একটি গরুসহ উভয়ের প্রায় ৫লক্ষাধিক টাকার সম্পদ পুড়ে ভষ্মিভূত হয়েছে।

কুষ্টিয়ার ঐতিহ্যবাহী ১৭ হাত উচ্চতা বিশিষ্ট কালী মায়ের প্রতিমা বিসর্জন আজ

সদর উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতাকে সংবর্ধনা

সুজন কর্মকার ॥ কুষ্টিয়ার ঐতিহ্যবাহী ১৭ হাত উচ্চতা বিশিষ্ট শ্রীশ্রী কালী মায়ের প্রতিমা বিসর্জন আজ রবিবার সন্ধ্যায়। এদিকে গতকাল শনিবার রাতে ১৭ হাত উচ্চতা বিশিষ্ট শ্রীশ্রী কালী পূজা মন্দির কমিটির পক্ষ থেকে কুষ্টিয়া শহর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আতা সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নবনির্বাচিত হওয়ায় তাকে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে।

এ সময় অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সদর উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা বলেন, এই সদর উপজেলাকে মাদক মুক্ত ঘোষণা করা হবে। মাদকের সাথে জড়িত কাউকে ছাড় দেয়া হবেনা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে এই সদর উপজেলাকে মাদক মুক্ত করা হবে। এ সময় আতাউর রহমান আতা ১৭ হাত উচ্চতা বিশিষ্ট শ্রীশ্রী কালী মায়ের মন্দিরের উন্নয়নে সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন। সেই সাথে তিনি বলেন, এদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। সকল ধর্মের মানুষ শান্তিতে এক সাথে বসবাস করে চলেছে। যদি কেউ শান্তি নষ্ট করার অপচেষ্টা করে তাহলে, তার বিরুদ্ধে অবশ্যই কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আমলাপাড়া ১৭ হাত উচ্চতা বিশিষ্ট শ্রীশ্রী কালী পূজা মন্দির কমিটির সভাপতি এ্যাডঃ অঘোর কুমার সরকার। স্বাগত বক্তব্য রাখেন মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক সুজিত কুমার ঘোষ।

এ সময় বিশেষ অতিথি ছিলেন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক অজয় সুরেকা, ৩নং পৌর ওয়ার্ড কাউন্সিলর বদরুল ইসলাম বাদল, ১৭ হাত কালী পূজা মন্দির কমিটির সাবেক সভাপতি গৌতম কান্তি চাকী, ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ডাঃ অফিল উদ্দিন, হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ কুষ্টিয়া সদর উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক কিশোর কুমার ঘোষ জগত, নারী নেত্রী মীনা দেবী সেত্রী, টপি বিশ্বাস, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা জহুরুল ইসলাম, যুবলীগ নেতা নুরুজ্জামান বিশ্বাস জনি প্রমুখ।

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন ১৭ হাত উচ্চতা বিশিষ্ট শ্রীশ্রী কালী পূজা মন্দির কমিটির কোষাধ্যক্ষ সহদেব অধিকারী সাধু।

অনুষ্ঠানের শুরুতে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবাইদুল কাদেরের দ্রুত সুস্থ্যতা কামনা করে বিশেষ প্রার্থনা করা হয় এবং মন্দির কমিটির পক্ষ থেকে অতিথিবৃন্দকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়।

এ সময় আমলাপাড়া ১৭ হাত উচ্চতা বিশিষ্ট শ্রীশ্রী কালী পূজা মন্দির কমিটির সহ-সভাপতি সহ-সভাপতি সনৎ কুমার পাল, দৈনিক সকালের সময় ও আজকের বিজনেস বাংলাদেশ পত্রিকার কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি এবং আমলাপাড়া ১৭ হাত উচ্চতা বিশিষ্ট শ্রীশ্রী কালী পূজা মন্দির কমিটির সহ-সভাপতি সাংবাদিক সুজন কুমার কর্মকার, আমলাপাড়া ১৭ হাত কালী পূজা মন্দির কমিটির উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য উত্তম কুমার ঘোষ, যুগ্ম-সম্পাদক বড়–ন বিশ্বাস, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক নিমাই অধিকারী, দপ্তর সম্পাদক সমীর ঘোষ সোনা, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক নরেশ ঘোষ, সহ-ধর্ম সম্পাদক শয়ন ঘোষ, সুমন বিশ্বাস, সহ-কোষাধ্যক্ষ পাভেল পাল, প্রচার সম্পাদক নিপেন চক্রবর্তী, সহ-সমাজ কল্যাণ সম্পাদক প্রতাপ কুমার শর্মা, সহ-প্রচার সম্পাদক বিপুল অধিকারীসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য যে, কুষ্টিয়া শহরের আমলাপাড়ায় মায়ের মন্দির প্রাঙ্গনে এ পূজা গত ৫ মার্চ মঙ্গলবার মধ্যরাতে অনুষ্ঠিত হয়। আজ ১০ মার্চ সন্ধ্যায় মন্দির প্রাঙ্গনে গড়াই নদীর গঙ্গার জল দ্বারা মায়ের বিসর্জন দেয়া হবে। ঐতিহ্যবাহী ১৭ হাত উচ্চতা বিশিষ্ট শ্রীশ্রী কালী মায়ের পূজা এটি ৪০ তম। এই মায়ের কাছে বহু দূর-দূরান্ত থেকে শতশত ভক্তবৃন্দ এসে পূজা দিয়েছেন।

পাক-ভারত নিয়ে এরদোগান-জাতিসংঘ মহাসচিবের আলোচনা

ঢাকা অফিস ॥ পাক-ভারত চলমান উত্তেজনা বিষয়ে জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের সঙ্গে আলোচনা করেছেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগান। তুরস্কের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা আনাদলু জানায়, শুক্রবার ভারত-পাকিস্তানের বর্তমান পরিস্থিতি ও এর সমাধান নিয়ে জাতিসংঘ মহাসচিবের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেন প্রেসিডেন্ট এরদোগান। এ সময় তিনি চলমান উত্তেজনা নিরসনে জাতিসংঘকে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানান। পাক-ভারত ইস্যুর পাশাপাশি সিরিয়া পরিস্থিতি নিয়েও কথা হয় তাদের মধ্যে। সিরিয়া থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার ও মানবিজে তুরস্কের প্রস্তাবিত নিরাপদ অঞ্চল গঠনের বিষয়ে জাতিসংঘের সর্বশেষ অবস্থান বিষয়েও কথা বলেন তারা। প্রসঙ্গত, ভারত পাকিস্তানের মধ্যে চলমান সমস্যা নিরসনে তুরস্ক সবধরণের সহায়তা দেবে বলে জানিয়েছিল তুরস্ক। যুদ্ধ পরিস্থিতি এড়িয়ে শান্তিপূর্ণ অবস্থান সৃষ্টির জন্য প্রেসিডেন্ট এরদোগান পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছিলেন। গত ৩১ মার্চ তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগান বলেছিলেন, পাক-ভারত চলমান যুদ্ধাবস্থায় কারোই লাভ হবে না। চলমান উত্তেজনা নিরসনে তুরস্ক সবধরনের সহায়তা করবে জানিয়ে বলেছিলেন, পাক-ভারত চলমান উত্তেজনা নিরসনে যা কিছু দরকার তা করতে প্রস্তুত রয়েছে তুরস্ক। এরদোগান জানান, ‘আমরা ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে সংকট সমাধানে আমাদের যা করতে হবে তা নিশ্চিত করব এবং স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠায় তুরস্কের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।’ যুদ্ধ কোনো দেশের জন্যই কল্যাণকর নয় ইঙ্গিত দিয়ে এরদোগান বলেছিলেন, ‘তীব্র উত্তেজনা এবং আগুন জ্বালানো তেল কারও উপকারে আসে না।’

দৌলতপুরে ১১তম গ্রেডে বেতন নির্ধারনের দাবিতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের মানববন্ধন

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে ১১তম গ্রেডে বেতন নির্ধারনের দাবিতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ‘সহকারী শিক্ষক ঐক্য গড়, ন্যায্য দাবি আদায় কর’ এই স্লোগানে গতকাল শনিবার বিকেল সাড়ে ৫টায় দৌলতপুর উপজেলা পরিষদ বাজারে দৌলতপুর-থানামোড় সড়কে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক সমাজ দৌলতপুর শাখার আয়োজনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. হালিমুজ্জামান, দৌলতপুর শাখার সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মজিবর রহমান, সহকারী শিক্ষক সেলিম উদ্দিন, মো. জহির রায়হান, মো. সুজাউদ্দৌলা, মো. গোলজার আলী ও হুমায়ুন কবীরসহ অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দ। মানববন্ধনে শিক্ষকবৃন্দ ১২তম গ্রেড বাতিল করে তাদের ১১তম গ্রেডে বেতন নির্ধারনের দাবি জানান। মানববন্ধনে দৌলতপুরের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের দুই শতাধিক সহকারী শিক্ষক অংশ নেয়।

রমজানে পণ্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে আমদানি বাড়ানোর উদ্যোগ

ঢাকা অফিস ॥ চাহিদার তুলনায় নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য অনেক বেশি মজুদ থাকায় রমজান মাসে পণ্যের দাম স্বাভাবিক থাকবে- এমন কথা কয়েক বছর ধরে বলে আসছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃপক্ষ। কিন্তু শেষ পর্যন্ত পণ্যের মূল্য স্বাভাবিক থাকে না। অধিক মূল্য দিয়েই ক্রেতাদের পণ্য কিনতে নাভিশ্বাস ওঠে। তাই এবার আগেভাগেই প্রস্তুতি গ্রহণ করতে শুরু করেছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এরই অংশ হিসেবে রমজান মাস সামনে রেখে ৬ পণ্য আমদানি বাড়ানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। রোজায় সবচেয়ে বেশি ব্যবহার হয় এমন ৬টি পণ্য হচ্ছে- ভোজ্যতেল, চিনি, ডাল, ছোলা, পেঁয়াজ ও খেজুর। রমজানে যাতে এ ধরনের পণ্যসামগ্রীর কোনো সঙ্কট তৈরি না হয় সে লক্ষ্যে ব্যবসায়ীদের আমদানি বাড়ানোর পরামর্শ  দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে দ্রব্যমূল্য স্বাভাবিক রাখতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পাশাপাশি নিয়মিত বাজার তদারকি করবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ও। কারসাজি করে দাম বাড়ানোর কৌশল নেয়া হলে অপরাধী ব্যবসায়ীকে এবার পেতে হবে কঠোর শাস্তি। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মফিজুল ইসলাম বলেন, ‘রমজান উপলক্ষে অন্যান্য বারের মতো এবারও আমাদের মজুদ পরিস্থিতি খুব ভালো। রমজানে যেসব পণ্যের চাহিদা বেশি থাকে সেগুলোর মজুদ আরও বাড়ানো হচ্ছে। ওই সময়ের চাহিদা বিবেচনায় নিয়ে আমদানি বাড়ানোসহ যা করণীয় সরকারের পক্ষ থেকে সব করা হবে। এছাড়া এবার সরকার নিয়ন্ত্রিত সংস্থা টিসিবির কার্যক্রম আরও বাড়ানোর পদক্ষেপ নেয়া হবে।’ মে মাসের প্রথম সপ্তাহে এবার রোজা শুরু হবে। সে হিসাবে আর দু’মাস পর আসছে মাহে রমজান। রমজানে পণ্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখায় করণীয় ঠিক করতে এ মাসেই ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

সম্প্রতি বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের সরবরাহ, বিপণন ও মূল্য পরিস্থিতি নিয়ে একটি প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে। ওই প্রতিবেদনে ভোক্তাদের জন্য এ সুখবর দিয়ে আরও বলা হয়, রমজানের চাহিদাকে পুঁজি করে কেউ যাতে অস্বাভাবিকভাবে পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি করতে না পারে সে লক্ষ্যে বাজারের দিকে গোয়েন্দা সংস্থার তীক্ষè নজরদারি থাকবে। ওই প্রতিবেদনে বিভিন্ন পণ্যের চাহিদা ও জোগান বিষয়ে বিস্তারিত উল্লেখ করা হয়েছে।

ভোজ্যতেল : বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশে ১৫ লাখ টন ভোজ্যতেলের বার্ষিক চাহিদা রয়েছে। প্রতি মাসে গড়ে ১ লাখ ১০ হাজার টন সয়াবিন ও পাম অয়েলের চাহিদা রয়েছে। এর মধ্যে রমজান মাসে চাহিদা প্রায় আড়াই লাখ টন। এর মধ্যে দেশে প্রায় সাড়ে ৭ লাখ টন সরিষা উৎপাদন হয়েছে। ফলে আন্তর্জাতিক বাজার থেকে অপরিশোধিত এবং পরিশোধিত সয়াবিন ও পাম অয়েল আমদানি করে ঘাটতি পূরণ করতে হয়। ঘাটতি পূরণে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রথম ৮ মাসে (জুলাই থেকে ফেব্রুয়ারি) ৮ লাখ ৬৪ হাজার টন ভোজ্যতেল আমদানি করা হয়েছে। আরও বেশ কয়েক টন ভোজ্যতেল আমদানি পাইপ লাইনে রয়েছে। সুতরাং এ মুহূর্তে চাহিদার তুলনায় অনেক বেশি ভোজ্যতেল মজুদ রয়েছে।

পেঁয়াজ : দেশে প্রায় ২২ লাখ টন পেঁয়াজের চাহিদা রয়েছে। প্রতি মাসে গড়ে ১ লাখ ৭০ হাজার টন চাহিদা থাকলেও শুধু রোজার মাসে চাহিদা দাঁড়ায় ৩ লাখ টন। এর মধ্যে দেশে ২৩ লাখ টন পেঁয়াজ উৎপাদন হয়েছে। এনবিআরের তথ্য মতে, চলতি অর্থবছরের ফেব্র“য়ারি পর্যন্ত ৭ লাখ ২০ হাজার টন পেঁয়াজ আমদানি করা হয়েছে। তাই চাহিদার তুলনায় এ মুহূর্তে দেশে পেঁয়াজ অনেক বেশি রয়েছে। তাই সরবরাহ ব্যবস্থা যথেষ্ট স্বাভাবিক ও দাম ভোক্তার ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে রয়েছে। রমজানেও দাম বাড়ার কোনো আশঙ্কা নেই।

চিনি : দেশে প্রায় ১৫ লাখ টন চিনির বার্ষিক চাহিদা রয়েছে। রোজার মাসে ৩ লাখ টন চাহিদা দাঁড়ায়। এর মধ্যে দেশে প্রায় ৬৫ হাজার ৫৬২ টন চিনির উৎপাদন হয়েছে। ফলে আন্তর্জাতিক বাজার থেকে চিনি আমদানি করে ঘাটতি পূরণ করতে হয়।

এনবিআরের তথ্য মতে, ঘাটতি পূরণে ব্যবসায়ীরা গত ২০১৭-১৮ অর্থবছরে প্রায় ২৫ লাখ টন চিনি আমদানি করে। সে হিসাবে গত অর্থবছরে আমদানি করা চিনির মজুদ রয়েছে ৯ লাখ টন। এছাড়া চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রথম ৬ মাসে (জুলাই থেকে ডিসেম্বর) সাড়ে ৮ লাখ টন চিনি আমদানি হয়েছে। সুতরাং এ মুহূর্তে চাহিদার তুলনায় অনেক বেশি চিনির মজুদ রয়েছে।

ডাল : দেশে প্রায় ৪ লাখ টন ডালের বার্ষিক চাহিদা রয়েছে। রমজান মাসে চাহিদা দাঁড়ায় ৬০ হাজার টন। এর মধ্যে দেশে ১০ লাখ টন সব ধরনের ডালের উৎপাদন হয়েছে। এছাড়া ব্যবসায়ীরা ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রথম ৮ মাসে প্রায় ৭ লাখ টন ডাল (মশুর ও মুগ ডাল) আমদানি করেছে। সুতরাং এ মুহূর্তে চাহিদার তুলনায় অনেক বেশি ডালের মজুদ রয়েছে।

ছোলা : অভ্যন্তরীণ মার্কেটে বার্ষিক ছোলার চাহিদা রয়েছে ১ লাখ টন। রমজান মাসে চাহিদা দাঁড়ায় ৮০ হাজার টন। এর মধ্যে ৭ হাজার টন দেশে উৎপাদিত হয়ে থাকে। বাকিটা আমদানি করে চাহিদা মেটানো হয়। এনবিআরের তথ্য মতে, ঘাটতি পূরণে ব্যবসায়ীরা ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রথম ৮ মাসে প্রায় ২ লাখ টন ছোলা আমদানি করেছে। সুতরাং এ মুহূর্তে চাহিদার তুলনায় দ্বিগুণেরও বেশি ছোলার মজুদ রয়েছে।

খেজুর : দেশে বার্ষিক প্রায় ২০ হাজার টন খেজুরের চাহিদা রয়েছে। এর মধ্যে রমজানে চাহিদা প্রায় ১৮ হাজার টন। এনবিআরের তথ্য মতে, চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত অর্থাৎ প্রথম ৮ মাসে প্রায় ৪০ হাজার টন খেজুর দেশে আমদানি হয়েছে। সুতরাং এ মুহূর্তে চাহিদার তুলনায় দ্বিগুণ খেজুর মজুদ রয়েছে। ফলে খেজুরের বাজার স্বাভাবিক রয়েছে। তাই রমজানেও খেজুরের দাম বাড়বে না বলে দাবি করা হয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদনে।

এ ছাড়া প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয় যে, চাল, গম, আদা ও রসুনের মজুদ চাহিদার চেয়ে অনেক বেশি। ফলে এসব পণ্যের বাজার স্বাভাবিক রয়েছে। রমজানেও দাম বাড়বে না বলে দাবি করছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

 

বিএনপিকে স্থানীয় সরকার নির্বাচনে আসার আহ্বান জানালেন হাছান মাহমুদ

ঢাকা অফিস ॥ তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বিএনপিকে নির্বাচন কমিশন ও নির্বাচনকে বিতর্কিত না করে স্থানীয় সরকার নির্বাচনে অংশ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘খালেদা জিয়ার প্রতি শ্রদ্ধা ও সম্মান রেখে বলছি, আদালত প্রাঙ্গণে তাকে আনার পর সানগ্লাস পরা অবস্থায় দেখলে কারোই মনে হয় না তিনি অসুস্থ। যদিও রিজভী সাহেবরা তাকে প্রতিদিনই অসুস্থ বলে দাবি করেন।’ গতকাল শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিলের সভাপতি জাকির হোসেন ইমনের সভাপতিত্বে আয়োজিত কাউন্সিলের অভিষেক অনুষ্ঠানে সমসাময়িক রাজনীতি প্রসঙ্গে তিনি এ মন্তব্য করেন। ড. হাছান বলেন, ‘আর্থ্রাইটিস তার নতুন রোগ না, এ রোগ নিয়েই তিনি রাজনীতি করেছেন, দু’বার প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি কারাগারে যে সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছেন তা উপমহাদেশে নজিরবিহীন।’ তিনি বলেন, ‘বিএনপি নির্বাচন থেকে পালানোর পথ খুঁজছে। তাদের সবসময় উদ্দেশ্য থাকে কীভাবে নির্বাচন কমিশনকে বিতর্কিত করা যায়। এই কথা বলে তারা নির্বাচন থেকে পালানোর পথ খুঁজে। যেভাবে তারা নির্বাচন থেকে পালাচ্ছে তাতে তারা জনবিচ্ছিন্ন হয়ে যাচ্ছে। আমি বিএনপিকে অনুরোধ জানাবো আপনারা নির্বাচন ভীতি দূর করে নির্বাচন থেকে পালানোর যে নীতি অনুসরণ করছেন, সেই নীতি থেকে সরে এসে নির্বাচনে আসুন।’ ভোটে ইভিএম ব্যবহারের বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘এর আগেও আপনারা দেখেছেন বিভিন্ন নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার হয়েছে। সেখানের আমরা ফলাফল পেয়েছি এবং সেই কেন্দ্রের ভোটের ফলাফল নিয়ে কারও কোনো আপত্তি ছিল না।’  সাব-এডিটরদের কাজকে সংবাদপত্রের অতি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হিসেবে উল্লেখ করে মন্ত্রী তাদের বস্তুনিষ্ঠ কাজ অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান। অনুষ্ঠানে বিএফইউজে সভাপতি মোল্লা জালাল ও মহাসচিব শাবান মাহমুদ, ডিইউজে সভাপতি আবু জাফর সূর্য, উইক্রিয়েট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সজিব রশিদ, ডিইউজে সাবেক সভাপতি আব্দুল জলিল ভুইয়া, ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিলের সাধারণ সম্পাদক মোকতাদির অনিক, সাবেক সভাপতি মুস্তাফিজ রহমান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

 

রোহিঙ্গাদের জন্য বিশ্ব ব্যাংকের ১৬ কোটি ডলার অনুমোদন

ঢাকা অফিস ॥ বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থীর জন্য ১৬ কোটি ৫০ লাখ ডলারের অনুদান অনুমোদন করেছে বিশ্ব ব্যাংক। বর্তমান বিনিময় হার অনুযায়ী বাংলাদেশি মুদ্রায় এর পরিমাণ প্রায় ১ হাজার ৪০০ কোটি টাকা। শুক্রবার ওয়াশিংটনে বিশ্ব ব্যাংকের বোর্ড সভায় রোহিঙ্গাদের জন্য এ অনুদান অনুমোদন হয় বলে সংস্থাটির ঢাকা কার্যালয় এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে। ‘ইমারজেন্সি মাল্টি সেক্টর রোহিঙ্গা ক্রাইসিস রেসপন্স’ শীর্ষক একটি প্রকল্পের মাধ্যমে দুর্যোগ থেকে বাঁচানোর পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের মৌলিক চাহিদা মেটাতে এ অর্থ ব্যয় করা হবে। মিয়ানমারে নিপীড়নের মুখে আড়াই বছর আগে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয় বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গা; তার আগে ও পরে আসা মিলিয়ে বাংলাদেশে এখন ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা রয়েছে। এই শরণার্থীরা রয়েছে কক্সবাজারের টেকনাফ ও উখিয়া উপজেলায়। শরণার্থীর কারণে ওই দুই উপজেলার জনসংখ্যা তিন গুণ বেড়ে গেছে। বিশ্ব ব্যাংকের অর্থে মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের জন্য আবাসন অবকাঠামো নির্মাণ করা হবে। প্রকল্পটির ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণের পাঁচটি উন্নয়ন কাজ করা হবে। সেগুলো হচ্ছে- সড়ক, ফুটপাথ, ড্রেন, কালভার্ট এবং সেতু নির্মাণ এবং ক্যাম্পের ভিতরে এবং রাস্তায় রাস্তায় সড়ক বাতি স্থাপন। এছাড়াও পাইপ দিয়ে পানি সরবরাহ ব্যবস্থার পাশাপাশি বৃষ্টির পানি ধরে রাখা ব্যবস্থা করা এবং পয়ঃনিস্কাশন ব্যবস্থার উন্নয়ন করা এই প্রকল্পটির উদ্দেশ্য। বিশ্ব ব্যাংকের ঢাকা কার্য়ালয়ের ভারপ্রাপ্ত আবাসিক প্রতিনিধি ড্যানড্যান চেন বলেন, রোহিঙ্গাদের জন্য গৃহীত এই প্রকল্পে স্থানীয়রাও উপকৃত হবে।  “ওই এলাকার স্থানীয়দের মধ্যেও অবকাঠামোর অভাব রয়েছে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে যেসব স্থাপনা ও সুযোগ সুবিধা তৈরি করা হবে যেসব সুবিধা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের পাশাপাশি স্থানীয়রাও ভোগ করবে।”

‘থলের বিড়াল’ বেরিয়ে গেছে সিইসির কথায় – রিজভী

ঢাকা অফিস ॥ একাদশ সংসদ নির্বাচনে ভোট ডাকাতির যে অভিযোগ জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট তুলেছে, প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সাম্প্রতিক বক্তব্যকে তার প্রমাণ হিসেবে দেখাচ্ছে বিএনপি। দলটির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী গতকাল শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, সিইসির বক্তব্যে ‘থলের বিড়াল’ বেরিয়ে গেছে। একাদশ সংসদ নির্বাচনে শোচনীয়ভাবে হারা বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অভিযোগ, ভোটের আগের রাতেই ব্যালটবাক্স ভর্তি করে রাখা হয়েছিল। সিইসি কে এম নূরুল হুদা শুক্রবার এক অনুষ্ঠানে ভোটে অনিয়ম এড়াতে ইভিএমের গুরুত্ব তুলে ধরে বলেন, “আগামীতে ভোটে ইভিএম শুরু করে দেব, তাহলে সেখানে আর রাতে বাক্স ভর্তি করার সুযোগ থাকবে না।” তার ওই বক্তব্য ধরে রিজভী বলেন, “প্যান্ডোরার বাক্স থেকে এখন আসল ঘটনাগুলো বের হতে শুরু করেছে। থলের বেড়ালকে আর বেশিদিন আটকে রাখতে পারলেন তিনি। মিডনাইট নির্বাচনের আসল সত্যটি এখন সিইসি মুখ ফসকে বলে ফেলেছেন। আপনার (সিইসি) এই বক্তব্যটি গুরুত্বপূর্ণ দলিল হয়ে থাকল জাতির কাছে যে, একজন প্রধান নির্বাচন কমিশনার একটি নির্বাচনে জনগণের ভোটাধিকার বঞ্চিত করে কী করে মধ্যরাতে ব্যালট বাক্স পূর্ণ করার অনুমতি দিয়েছিলেন।” বিএনপির অভিযোগ নাকচ করে ইসি বলেছিল, ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনে এই ধরনের কোনো অনিয়ম হয়নি। রিজভী বলেন, “আমরা বলতে চাই, মিডনাইট নির্বাচনের হোতা আপনি (সিইসি)। একটি অবৈধ সরকারের ক্ষমতা চিরস্থায়ী করতেই আপনি মহাভোট কেলেঙ্কারির মাধ্যমে দেশের ভবিষ্যৎ রাজনীতিকে অন্ধকারাচ্ছন্ন করলেন। তবে সিইসি মনে রাখবেন, পাপ কখনও বাপকেও ছাড়ে না। আম-জনতার কাছে আপনাকে জবাবদিহি করতেই হবে।” সাংবাদিকদের প্রশ্নে রিজভী বলেন, “মিডনাইট নির্বাচন যে হয়েছে, তা উনার (সিইসি) কথার মধ্য দিয়েই বেরিয়ে এসেছে। অর্থাৎ ইভিএম নেই বলে মিডনাইট নির্বাচন তো হয়েছে এটাই তো স্পষ্ট। উনার মুখ দিয়ে এবং উনার আরেক কমিশনারের মুখ দিয়ে অজান্তে সত্য কথাটাই বেরিয়ে এসেছে। সত্যকে চাপা রাখা যায় না।” সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি নেতা রিজভী বলেন, “গতকাল (শুক্রবার) প্রধানমন্ত্রী বলেছেন যে, পঁচাত্তরের পরে জিয়াউর রহমান খলনায়ক। ইতিহাস কিন্তু মানুষের মনেই রচিত হচ্ছে। আপনার হাতে বন্দুক আছে বলে আপনি জোর করে ইতিহাস রচনা করবেন। ওই ইতিহাস একদিন মানুষ টুকরো টুকরো করে বাতাসে ছুড়ে ফেলে দেবে। তখন যে ব্যক্তিটি মানুষের কাছে স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে হৃদয়ের তন্ত্রীতে তন্ত্রীতে রক্তের শ্বেত- লৌহ কনিকার মধ্যে স্বাধীনতার অভয় মন্ত্র যিনি শুনালেন তিনি খলনায়ক!” অসুস্থ কারাবন্দি নেত্রী খালেদা জিয়াকে অবিলম্বে গুলশানের ইউনাটেড হাসপাতালে ভর্তির দাবিও জানান বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব। রিজভী বলেন, “নানাভাবে অনিয়মের আশ্রয় নিয়ে একরতফাভাবে ঢাকা জেলা বার সমিতির এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সরকার এখন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নির্বাচনেও মিডনাইট ভোটের পদ্ধতি অবলম্বন করছে। সাধারণ জনগণের মতো বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের নেতারাও এখন বঞ্চিত ও লাঞ্ছিত। প্রহসনের পর প্রহসন এবং তামাশার নানা অভিনবত্ব অবলোকন করছে দেশবাসী। আমরা ঢাকা আইনজীবী সমিতির এই নির্বাচন প্রত্যাখান করছি।” ঢাকা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থকরা বেশিরভাগ পদে জয়ী হয়েছে। রিজভী বলেন, “গত পরশুদিন ঢাকা আইনজীবী সমিতির দ্বিতীয় দফা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রথম দফা সাত দিন আগে হয়েছে। জালভোট প্রদানের উদ্দেশ্য নিয়েই প্রথম দফা ও দ্বিতীয় দফা নির্বাচনে সাত দিনের ব্যবধান করা হয়েছে। দ্বিতীয় দফার দিন সন্ত্রাস সৃষ্টি করে বিএনপির প্যানেলের কমিশনার যিনি ভোট গণনার দায়িত্বে ছিলেন তাকে প্রচন্ড মারধর করা হয়েছে। তাছাড়া প্রধান নির্বাচন কমিশনার করা হয়েছে তিনি একজন কট্টর আওয়ামীপন্থি আইনজীবী।”

নারী দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

নারী সমাজকে নিজেদেরই সক্ষমতা অর্জন করতে হবে

ঢাকা অফিস ॥ বর্তমান সরকার নারীর ক্ষমতায়নে সমাজের সর্বস্তরে পুরুষের পাশাপাশি তাদের সমঅধিকার নিশ্চিত করেছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের নারী সমাজকে নিজের ক্ষমতার উপর নির্ভর করে নিজেদেরই সক্ষমতা অর্জনের আহবান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘যদিও ক্ষমতা দিয়েছি (স্থানীয় সরকারে) তবুও তারা সব জায়গায় ক্ষমতাটি প্রয়োগ করতে পারেন না। যারা দায়িত্বে আছেন (স্থানীয় সরকারে) তাদের নিজেদের ক্ষমতাটা নিজেদের অর্জন করে নিতে হবে। কেউ (ক্ষমতা) কখনও হাতে তুলে দেয় না, এটা হলো বাস্তবতা।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্থানীয় সরকার আইনে আমরা এক তৃতীয়াংশ নারী আসনের ব্যবস্থা করেছি। ইউনিয়ন এবং উপজেলাসহ সব জায়গায় একজন চেয়ারম্যানের সঙ্গে ভাইস চেয়ারম্যানের পদ সৃষ্টি করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল শনিবার সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে নারী দিবস উদযাপন উপলক্ষে মহিলা ও শিশু মন্ত্রণালয় আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন। মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে ইউএনডিপি’র প্রতিনিধি মিয়া সেপো বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব কামরুন নাহার। প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটা কথা মনে রাখত হবে- শুধু আইন করলেই নারীর প্রতি সহিংসতা এবং বৈষম্য দূর হবে না। এজন্য সমাজে সচেতনতা সৃষ্টি করা একান্তভাবে দরকার। এক্ষেত্রে আমাদের সকলের মা-বোনেরা যেখানে যারা আছেন সকলকেই এক হয়ে কাজ করতে হবে। তিনি বলেন, একটা সমাজকে যদি গড়ে তুলতে হয় আর সেই সমাজের যেখানে অর্ধেকই নারী, তাদেরকে বাদ রেখে একটা সমাজ কখনও গড়ে উঠতে পারে না। কাজেই সেক্ষেত্রে সকলকে এক হয়ে কাজ করা- এটাই সব থেকে বেশি প্রয়োজন। শিশু এবং নারী ধর্ষণকে অত্যন্ত গর্হিত একটি অপরাধ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী এ সময় ধর্ষিতা নারীর পরিচয় গোপন রেখে ধর্ষণকারিকে সমাজের সকলের কাছে তুলে ধরার জন্য গণমাধ্যমের প্রতি আহবান জানান। তিনি বলেন, যারা (ধর্ষণ) করে তাদের প্রতি ঘৃণা এবং আমি বলবো তাদের নাম, পরিচয় ভালভাবে প্রচার করা কর্তব্য, যাতে করে সমাজের সর্বস্তরের মানুষ তাকে ঘৃণার চোখে দেখে। তাছাড়া আইগত ব্যবস্থাতো তাদের বিরুদ্ধে নেয়া হবেই। এ সকল অপরাধীর বিরুদ্ধে তাঁর সরকার মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে সাজার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে বলেও তিনি জানান। তিনি বলেন, ‘এটা কেবল বাংলাদেশের সমস্যা নয়, উন্নত সভ্য দেশেও এই সমস্যা রয়েছে। কাজেই এর বিরুদ্ধে আরো জনমত সৃষ্টি করা দরকার।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, কন্যা শিশুরা যেন কোনভাবেই বৈষম্যের শিকার না হয় সেই সচেতনতাটা আমাদের সমাজে ইতোমধ্যেই এসে গেছে। আর আমি এটাই মনে করি সমাজকে গড়ে তুলতে হলে নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সকলেরই একান্তভাবে কাজ করা দরকার। ‘বিশ্বে যা কিছু সৃষ্টি চিরকল্যাণ কর, অর্ধেক তার আনিয়াছে নারী, অর্ধেক তার নর,’ কাজী নজরুলের কবিতার এই পংক্তি উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘যে সমঅধিকার সেই অধিকারের কথা তিনি স্পষ্টভাবে বলে গেছেন। কাজেই সমাজ ও দেশেকে কল্যাণময় করতে হলে নারী-পুরুষের একসঙ্গে কাজ করাটা জরুরি।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের মেয়েরা এখন সব জায়গায় এগিয়ে গেছে। চাকরি-বাকরি, খেলাধুলা সব ক্ষেত্রে তারা এগিয়ে। এমনকি আমাদের মেয়েরা এভারেস্টও জয় করে ফেলেছে। সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীতে এখন অনেক নারী কাজ করেন। এমনিতে নারী পাইলট আছেন। আগামীতে নারীরা বিমান বাহিনীতে ফাইটার জেট চালাবে।’ ’৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর তিনিই সেনাবাহিনীতে প্রথম নারীদের অন্তর্ভুক্তি নিশ্চিত করেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এছাড়া আমি প্রথম কয়েকজন নারীকে সচিবের পদমর্যাদা দেই।’ বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, জাতির পিতা নারীদের এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ করে দিয়েছেন। স্বাধীনতার পর জাতির পিতা প্রথম যে সংবিধান দিলেন সেখানে তিনি মেয়েদের জন্য সংরক্ষিত নারী আসন দেন। তিনি মেয়েদের শিক্ষা অবৈতনিক করে দিয়েছিলেন এবং তিনি বিশ্বাস করতেন- ‘একজন মেয়ে যদি অর্থনৈতিকভাবে স্বাধীনতা অর্জন করে তাহলে সমাজে তার ভালো অবস্থান হয়।’ ‘আগে জুডিশিয়াল সার্ভিসে কোনো নারীর চাকরির সুযোগ ছিল না। বঙ্গবন্ধু এই আইন বাতিল করে দিয়েছেন’ উল্লেখ করে সরকার প্রধান নাজমুন আরাকে জেলা জজের পদ থেকে হাইকোর্টে পদায়ন করার তথ্যও জানান। শেখ হাসিনা বলেন, ‘ জেলা ডিসি, এসপির পদে মেয়েদের বাধা ছিল। এরপর আমি যাকে প্রথম নারী এসপি করে মুন্সীগঞ্জে আনলাম। তিনি দায়িত্ব নিয়েই ডাকাত ধরে ফেললেন। তার এ কাজের সঙ্গে আমিও জয়ী হয়ে গেলাম।’ নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ এবং পারিবারিক সহিংসতা থেকে সুরক্ষা প্রদানের লক্ষ্যে তাঁর সরকার কঠোর শাস্তির বিধান রেখে ‘পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) আইন ২০১০ এবং পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) বিধিমালা-২০১৩ প্রনয়ন করেছে, বলেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি এ সময় নারী নির্যাতন প্রতিরোধে তাঁর সরকারের ডিএনএ আইন-২০১৪, বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন-২০১৭, যৌতুক নিরোধ আইন-২০১৮ প্রণয়ন এবং একই সঙ্গে বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন-২০১৭ এর সংশ্লিষ্ট ধারাসমূহ মোবাইল কোর্ট আইন-২০০৯ এর তফসিলভুক্ত করণের উল্লেখ করেন। সারাদেশের নারী উন্নয়নে তাঁর সরকারের পদক্ষেপসমূহের উল্লেখ প্রসংগে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন-২০০৩ (সংশোধিত) ও পারিবারিক পর্যায়ে সংঘটিত নারী নির্যাতন প্রতিরোধকল্পে মাল্টিসেক্টরাল প্রোগ্রাম-এর মাধ্যমে ৬৭টি ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টার স্থাপন করা হয়েছে। সেইসাথে নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে ন্যাশনাল হেল্পলাইন ১০৯ চালু রয়েছে। অসহায় ও নির্যাতিত মহিলাদের দ্রুত ন্যায় বিচার নিশ্চিত করতে ৬টি বিভাগে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ সেল ও মহিলা সহায়তা কর্মসূচি চালু থাকার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে সরকার প্রধান বলেন, সারাদেশে ৪ হাজার ৮শ’ ৮৩টি ক্লাবের মাধ্যমে কিশোর-কিশোরীদের জীবন যাত্রার ইতিবাচক পরিবর্তন আনার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে ‘অ্যাকসেলারেটিং একশন টু এন্ড চাইল্ড ম্যারেজ ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। নারীদের পুনর্বাসন ও ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে ১৯৭২ সালে জাতির পিতা ‘নারী পুনর্বাসন বোর্ড’ গঠন করেন এবং সংবিধানে নারীর সমানাধিকার নিশ্চিত করেন উল্লেখ করে শেখ হাসিনা তাঁর সরকারের ‘জাতীয় নারী উন্নয়ন নীতি ২০১১’ প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের জন্য জাতীয় কর্মপরিকল্পনা-২০১৩ গ্রহণ এবং ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরে নারী উন্নয়নে ১ লাখ ৩৭ হাজার ৭৪২ কোটি টাকার জেন্ডার বাজেট প্রণয়নের উল্লেখ করেন। এছাড়াও, মাতৃত্বকালীন ছুটি ৬ মাসে উন্নীত করা এবং পিতার নামের পাশাপাশি মাতার নাম অন্তর্ভুক্ত করা বাধ্যতামূলক করা সহ ৮টি কর্মজীবী মহিলা হোস্টেলে ১৯ হাজার ৯২৯ জন কর্মজীবী নারীর আবাসন সুবিধা প্রদান, কর্মজীবী নারীদের জন্য ৯৪টি ডে-কেয়ার সেন্টারের মাধ্যমে ৩৬ হাজার ১৮৩ জন শিশুকে দিবা যতœ সেবা প্রদান এবং ২০০৯-২০১৮ জুন পর্যন্ত ৮টি বিভাগ, ৬৪টি জেলা এবং ৪২৬টি উপজেলায় ২ লাখ ১৭ হাজার ৪৪০ জন সুবিধাবঞ্চিত দুস্থ নারীকে বিভিন্ন ট্রেডে প্রশিক্ষণ প্রদানের কথা জানান। তিনি বলেন, ‘ভালনারেবল গ্রুপ ডেভেলপমেন্ট’ প্রকল্পের আওতায় ৭ জেলার ৮ হাজার উপকারভোগী নারীকে স্বাবলম্বী করতে মাথাপিছু এককালীন ১৫ হাজার টাকা অনুদান এবং প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। নারীকে উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলার জন্য ‘জয়িতা’ ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠার উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২৮৩ কোটি ২২ লাখ ৬০ লক্ষ টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ে উপজেলা পর্যায়ে মহিলাদের জন্য আয়বর্ধক প্রশিক্ষণ প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। সেইসঙ্গে জেলাভিত্তিক মহিলা প্রশিক্ষণ প্রকল্পের আওতায় দেশব্যাপী ৬৪টি জেলায় ২৮ হাজার জন নারীকে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ে হাতে কলমে প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে, বলেন প্রধানমন্ত্রী। শিক্ষা, খেলাধুলা, পেশাগত কাজ, নারীর ক্ষমতায়নসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাংলাদেশী নারীদের সফলতার কথা তুলে ধরেন শেখ হাসিনা। এ সময় প্রদত্ত ভাষণে প্রধানমন্ত্রী তাঁর অর্জিত ‘লাইফ টাইম কন্ট্রিবিউশন ফর উইমেন অ্যাম্পাওয়ারমেন্ট’ অ্যাওয়ার্ড দেশের মানুষ এবং বিশ্বের নির্যাতিত নারীদের উৎসর্গ করেন। তিনি বলেন, ‘এ অ্যাওয়ার্ড আমার নয়, এটা দেশের মানুষের। আমি যে অ্যাওয়ার্ডই পাই না কেন তার ভাগিদার এ দেশের মানুষ।’ উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে ‘লাইফ টাইম কন্ট্রিবিউশন ফর উইমেন অ্যাম্পাওয়ারমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’-এ ভূষিত হয়েছেন। আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে ৭ মার্চ বার্লিনে সিটি কিউব আইটিবি প্রাঙ্গণে ইনস্টিটিউট অব সাউথ এশিয়ান উইমেন আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীকে এ পুরস্কার প্রদানের ঘোষণা দেয়া হয়। জার্মানিতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ইমতিয়াজ আহমেদ প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে এ পদক গ্রহণ করেন। নারীর ক্ষমতায়নে অসামান্য অবদান এবং দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলে নেতৃত্বের জন্য এ পদক অর্জন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এদিনের অনুষ্ঠানে বিভিন্ন ক্ষেত্রে কৃতিত্বপূর্ণ অবদান রেখে ‘জয়িতা’ পদক বিজয়ীদের হাতে সনদ ও পুরস্কার তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।