মিয়ানমারের ‘বিপজ্জনক’ ৪ বিদ্রোহী গোষ্ঠীকে নিষিদ্ধ করল ফেইসবুক

ঢাকা অফিস ॥ ‘বিপজ্জনক সংগঠন’ এর তকমা দিয়ে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর সঙ্গে লড়াইরত চারটি বিদ্রোহী গোষ্ঠীকে স্যোশাল নেটওয়ার্কে নিষিদ্ধ করে তাদের একাউন্ট মুছে দিয়েছে ফেইসবুক কর্তৃপক্ষ। মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে ফেইসবুক এ খবর জানিয়ে বলেছে, তাদের প¬্যাটফর্ম ব্যবহার করে ভুয়া খবর ছড়িয়ে উত্তেজনা বৃদ্ধি রোধে তারা এ ব্যবস্থা নিয়েছে। গত আগস্ট থেকে ফেইসবুক মিয়ানমার সেনাবাহিনী সংশি¬ষ্ট বা দেশটিতে ভুয়া খবর ছাড়ায় এমন শতাধিক একাউন্ট, পাতা ও গ্র“পকে তাদের নেটওয়ার্ক থেকে মুছে দিয়েছে বলেও জানায়। নৃশংস এবং বিদ্বেষমূলক স্ট্যাটাস, ছবি ও ভিডিও ছড়িয়ে দাঙ্গায় উস্কানি দিতে মিয়ানমারে ফেইসবুক ব্যাপক হারে ব্যবহার করা হয়। শুধুমাত্র নৃশংসতাকে উস্কে দিতে গত কয়েক বছরে দেশটিতে ফেইসবুকের ব্যবহার অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে গেছে। এ ধরনের পোস্ট প্রতিরোধে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা গ্রহণে ব্যর্থ হওয়ায় ফেইসবুক কর্তৃপক্ষকে দারুণভাবে সমালোচিত হতে হয়েছে। মঙ্গলবার নিষিদ্ধ ঘোষিত দলগুলো হল: দ্য আরাকান আর্মি, দ্য মিয়ানমার ন্যাশনাল ডেমোক্র্যাটিক অ্যালায়েন্স আর্মি, কাচিন ইনডিপেনডেন্স আর্মি এবং দ্য তা’য়াং ন্যাশনাল লিবারেশন আর্মি। ফেইসবুকের পক্ষ থেকে বলা হয়, “এই সংগঠনগুলোর বিরুদ্ধে মিয়ানমারে সাধারণ মানুষের উপর হামলা এবং নৃশংসতা ছড়িয়ে দেওয়ার পরিষ্কার প্রমাণ আমাদের হাতে আছে। আমরা ভবিষ্যতে তাদের  আমাদের প¬্যাটফর্ম ব্যবহার করে উত্তেজনা ছড়ানোর আর কোনো সুযোগ দেব না।” তা’য়াং ন্যাশনাল লিবারেশন আর্মির এক মুখপাত্র ফেইসবুকে তাদের দলের পাতা আর দেখা যাচ্ছে না বলে নিশ্চিত করেছেন।তিনি বলেন, “এর ফলে আমরা জনগণের কাছে আমাদের কার্যক্রমের তথ্য জানাতে পারব না।”বাকি তিন দলের পক্ষ থেকে কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি। গত আগস্টে ফেইসবুক কর্তৃপক্ষ প্রথমে মিয়ানমার সেনাবাহিনী সংশি¬ষ্ট কয়েকটি একাউন্ট বন্ধ করে দিয়েছিল। এবার ফেইসবুক যে চারটি গোষ্ঠীকে নিষিদ্ধ করেছে- তারা সরকারের নেতৃত্বাধীন অস্ত্রবিরতি চুক্তি সই করেনি। সম্প্রতি কয়েকবছরে সেনাবাহিনীর সঙ্গে তারা প্রায়ই সংঘাতে জড়িয়েছে। এ গোষ্ঠীগুলোর মধ্যে কাচিন ইন্ডিপেনডেন্স আর্মি সবচেয়ে শক্তিশালী। তারা দেশের উত্তরের অংশ দখল করে আছে। অন্যদিকে, আরাকান আর্মি ডিসেম্বর থেকে পশ্চিমাঞ্চলে লড়াই করে আসছে। এ লড়াইয়ে উদ্বাস্তু হয়েছে ৫ হাজার মানুষ। গত মাসে এ দলটির হামলায় মিয়ানমারের ১৩ জন সীমান্ত পুলিশ নিহত হয়।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন উপলক্ষ্যে আলমডাঙ্গা উপজেলা প্রশাসনের প্রস্তুতিমূলক সভা

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ আলমডাঙ্গা উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে মহান ২১ ফেব্র“য়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন উপলক্ষ্যে প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে প্রস্তুতিমূলক সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাহাত মান্নান। বিশেষ অতিথি ছিলেন থানা অফিসার ইনচার্জ আসাদুজ্জামান মুন্সি আসাদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ শাহাবুদ্দিন সাবু, জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম খান, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ইয়াকুব আলী মাষ্টার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মজিবর রহমান, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা সংসদের পৌর কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ নুর মোহাম্মদ জকু, বীর মুক্তিযোদ্ধা মইনদ্দিন, বীর মুক্তিযোদ্ধা অমর ফারুক, উপজেলা শিক্ষা অফিসার শামসুজ্জোহা, প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ মিজানুর রহমান, উপজেলা প্রকৌশলী রফিকুর রহমান খান, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ফাতেমা কামরুন্নাহার আখি, বিআরডিবি কর্মকর্তা সায়েলা শারমীন, প্রেসক্লাব সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা খন্দকার শাহ্ আলম মন্টু, সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা খন্দকার হামিদুল ইসলাম আজম, মহিলা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ আবু সালেহ মোঃ সালাহ উদ্দিন। সমাজসেবা অফিসার আফাজ উদ্দিনের উপস্থাপনায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন  মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের একাডেমিক সুপার ভাইজার ইমরুল হক, সমবায় কর্মকর্তা মৃণাল কান্তি মল্লিক, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আনিছুর রহমান, উপজেলা পঃপঃ কর্মকর্তা হাসানুজ্জামান খান, ইউআরসি ইন্সপেক্টর আনারুল ইসলাম, আল-ইকরা ক্যাডেট একাডেমীর ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ এনামুল হক, কলেজীয়েট স্কুলের উপাধ্যক্ষ শামীম রেজা, প্রভাষক ফারুক হোসেন, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের হাফেজ অমর ফারুক, ডাঃ অমল কুমার বিশ্বাস প্রমুখ।

খুঁজে খুঁজে মানুষকে বিদ্যুৎ দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছি – প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ সারা দেশের প্রতিটি ঘরে বিদ্যুৎ ছড়িয়ে দেওয়ার সংকল্পের কথা আবারও জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন,  বিদ্যুৎ দরকার, এমন মানুষ খুঁজে খুঁজে সংযোগ দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।গতকাল বুধবার সকালে গণভবনে এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, “আমরা মানুষের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছি আর বিদ্যুতের উৎপাদনের মাধ্যমে প্রতিটি ঘরে আলো জ্বালব। এটি আমাদের লক্ষ্য।” বর্তমানে দেশের ৯৩ ভাগ মানুষ বিদ্যুৎ পাচ্ছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, “আপনারা জানেন এখন আর বিদ্যুতের জন্য ছুটোছুটি করতে হয় না। এখন আলোর পসরা নিয়ে আপনাদের ঘরে ঘরে যাচ্ছে। কোথায় বিদ্যুৎ দরকার- এভাবে খুঁজে খুঁজে আমরা মানুষের চাহিদা পূরণ করার উদ্যোগ নিয়েছি।” অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ছয়টি বিদ্যুৎকেন্দ্র এবং নয়টি গ্রিড উপকেন্দ্র উদ্বোধন করেন।  এসব বিদ্যুৎকেন্দ্র এবং গ্রিড উপকেন্দ্র চালুর ফলে এক হাজার ৬২ মেগাওয়াটেরও বেশি বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হবে। এছাড়া সাগরের নিচ দিয়ে কেবলের মাধ্যমে চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ উপজেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ এবং ১২টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুৎ সংযোগের উদ্বোধন করা হয় এ অনুষ্ঠানে। উদ্বোধন করা ছয়টি বিদ্যুৎকেন্দ্র হচ্ছে- সিরাজগঞ্জ ২৮২ মেগাওয়াট সিম্পেল সাইকেল বিদ্যুৎকেন্দ্র, ভোলা ২২৫ মেগাওয়াট কম্বাইন্ড সাইকেল বিদ্যুৎকেন্দ্র, চাঁদপুর ২০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্র, আশুগঞ্জ ১৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র, খুলনার রুপসায় ১০৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র এবং চট্টগ্রামের জুলদা ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র (তৃতীয় ইউনিট)। নয়টি গ্রিড উপকেন্দ্র হচ্ছে-  রামগঞ্জ, বরিশাল (উত্তর), বারইয়ারহাট, শিকলবাহা, জলঢাকা, সুনামগঞ্জ, বিয়ানিবাজার, রাঙামাটি ও মাতারবাড়ি। শতভাগ বিদ্যুৎ সংযোগের আওতায় আসা উপজেলাগুলো হচ্ছে- হরিণাকুন্ডু, ঠাকুরগাঁও সদর, বালিয়াডাঙ্গা, গোয়ালন্দ, কালুখালী, বামনা, লাখাই, শায়েস্তাগঞ্জ, আজমেরীগঞ্জ, বাহুবল, মেলান্দহ এবং ইসলামপুর।ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রী সিরাজগঞ্জ, ভোলা, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, পার্বত্য চট্টগ্রামের সংসদ সদস্য, আওয়ামী লীগ নেতা, ব্যবসায়ী, শিক্ষার্থী ও জনগণের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করে ওইসব এলাকার উন্নয়নে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন। শেখ হাসিনা বলেন, “চাহিদার সাথে তাল রেখে আমরা কিন্তু বিদ্যুতের উৎপাদনও বাড়াচ্ছি। আমাদের লক্ষ্য সারা বাংলাদেশে আমরা বিদ্যুৎ ছড়িয়ে দেব। সেই লক্ষ্য অর্জনের জন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি।”তিনি বলেন, “ছিয়ানব্বই থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত যখন ক্ষমতায় ছিলাম বাংলাদেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছে, বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়িয়েছিলাম, সাক্ষরতার হার বাড়িয়েছিলাম, রাস্তাঘাট করে অবকাঠামোগত উন্নয়ন করে মানুষের ভেতর একটা আশার আলো জেগে ছিলাম। কিন্তু সেই আলো নিভে যায় ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় আসার পর।“দুর্নীতি, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ, গ্রেনেড হামলা, বোমা হামল- এটাই ছিল তাদের একমাত্র কাজ এবং আওয়ামী লীগের লক্ষ লক্ষ নেতা কর্মীর ওপর অকথ্য অত্যাচার, তাদের কারাগারে নিক্ষেপ করে অকথ্য নির্যাতন চালিয়েছিল।”শেখ হাসিনা বলেন, “তাদের অপকর্মের ফল এদেশে ইমারজেন্সি হয়। এরপর আরও দুই বছর আমরা পিছিয়ে যাই। ২০০৮ সালের নির্বাচনে জনগণ আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করে। এরপর ২০০৮ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত একটানা আমরা সরকারে থেকে দেশকে উন্নয়নের দিকে নিয়ে যাই।”মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমানের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী, বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নাসিরুল হামিদ।বিদ্যুৎ খাতের উন্নয়নের সার্বিক চিত্র তুলে ধরেন বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব আহমেদ কায়কাউস।

শিল্প মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির সদস্য হওয়ায় এমপি খোকনকে বিভিন্ন মহলের অভিনন্দন

গাংনী প্রতিনিধি  ॥ বাংলাদেশ শিল্প মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির সদস্য পদ লাভ করায় মেহেরপুর-২ (গাংনী) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য সাহিদুজ্জামান খোকনকে বিভিন্ন মহল অভিনন্দন জ্ঞাপন করেছে। গতকাল বুধবার সংসদ সদস্য সাহিদুজ্জামান খোকন এ পদ লাভ করায় তাকে মেহেরপুর, গাংনী ও মুজিবনগরবাসী অভিনন্দন জানিয়েছে। অভিনন্দন জানিয়েছেন স্থানীয় আ.লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, শ্রমিকলীগ ও ছাত্রলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা। এছাড়াও ফেসবুকের মাধ্যমে সংসদ সদস্য সাহিদুজ্জামান খোকনকে মেহেরপুর-২ (গাংনী) আসন এলাকার বিভিন্ন স্তরের মানুষ অভিনন্দন জানিয়েছেন।

শেখ হাসিনার প্রশংসায় অ্যাঞ্জেলিনা জোলি

ঢাকা অফিস ॥ নির্যাতনের মুখে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা ১০ লাখের বেশি রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ায় শেখ হাসিনাকে ‘উদাহরণ সৃষ্টিকারী’ নেতা অভিহিত করেছেন হলিউড তারকা অ্যাঞ্জেলিনা জোলি। দুই দিনে কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির ঘুরে, তাদের সঙ্গে কথা বলে ঢাকায় ফিরে গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন ইউএনএইচসিআরের বিশেষ দূত অ্যাঞ্জেলিনা জোলি। সাক্ষাতের পর প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের বলেন, “বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ায় খুবই প্রশংসা করেছেন অ্যাঞ্জেলিনা জোলি এবং প্রধানমন্ত্রীকে উদাহরণ সৃষ্টিকারী নেতা বলেছেন তিনি। “তিনি (জোলি) বলেছেন, বিশ্বে এরকম নেতার দরকার আছে। এই মূহুর্তে আপনার মতো লিডার কম আছে বলেও মন্তব্য করেছেন জোলি।” নিপীড়নের মুখে ২০১৭ সালের পর থেকে মিয়ানমারের রাখাইন থেকে সাত লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। তার আগে থেকে এখানে আছে আরও চার লাখ রোহিঙ্গা। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের চাপের মুখে মিয়ানমার এই শরণার্থীদের নিতে বাংলাদেশের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হলেও আতঙ্কিত রোহিঙ্গারা ফেরত যেতে ভয় পাচ্ছে। জাতিসংঘসহ বিভিন্ন সংস্থা বলছে, রোহিঙ্গাদের তাদের আবাসস্থল রাখাইন প্রদেশে নিরাপদে থাকার মতো পরিবেশ এখনও তৈরি করতে পারেনি মিয়ানমার সরকার। জোলি আগের দিন এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, রোহিঙ্গাদের রাখাইনে নিরাপত্তা ও মর্যাদার সঙ্গে বসবাসের ক্ষেত্র তৈরির দায়িত্ব মিয়ানমারকে নিতে হবে। “(সেখানে) অনুকুল পরিবেশ তৈরি করে তাদের ফেরৎ নিতে হবে,” শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকেও বলেন এই হলিউড অভিনেত্রী। আশ্রয় নেওয়া ‘এত’ মানুষের খাওয়ানো-পরানোকে কঠিন কাজ উল্লেখ করে জোলি বলেন, জাতিসংঘ, ইউএনএইচসিআর, বিশ্ব ব্যাংক তারা একসঙ্গে কাজ করবে, যাতে বাংলাদেশের বোঝাটা একটু কমে। প্রধানমন্ত্রী অ্যাঞ্জেলিনা জোলিকে বাংলাদেশে স্বাগত জানিয়ে ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় পরিবারসহ তার গৃহবন্দি থাকা এবং ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর শরণার্থী হিসেবে দিনযাপনের কথা শোনান। জোলি ওই ঘটনা শুনে খুবই দুঃখ প্রকাশ করেন বলে প্রেস সচিব জানান। প্রধানমন্ত্রী বলেন, মিয়ানমার আমাদের প্রতিবেশী। রোহিঙ্গাদের ফেরানোর বিষয়ে আমরা তাদের সঙ্গে আলোচনা করছি, চুক্তি করেছি। রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারের পক্ষ থেকে দেরি করায় প্রধানমন্ত্রী নিজের হতাশার কথাও তুলে ধরেন বলে প্রেস সচিব জানান। আড়াই বছর আগে পালিয়ে এসে যে রোহিঙ্গারা ক্যাম্পে আশ্রয় নিয়েছে, তাদের ঘরে প্রায় ৪০ হাজার শিশু জন্ম নিয়েছে। এই শিশুদের ভবিষ্যৎ নিয়ে উদ্বিগ্ন জোলি তাদের ‘যথাযথ’ শিক্ষার প্রয়োজনীয়তার কথাও তুলে ধরেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, তার পরিদর্শনের সময় তিনি শুনেছেন কিভাবে হত্যা, ধর্ষণ ও নিযাতন করা হয়েছে। জোলি বলেন, নারীদের ধরে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে মেরে ফেলার কথা তিনিও শুনেছেন। সৌজন্য সাক্ষাতে শেখ রেহানার ছেলে রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক ববি, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচন

দৌলতপুর যুবলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের আ’লীগ দলীয় মনোনয়নপত্র উত্তোলন

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর পরিষদ চেয়ারম্যান প্রার্থী পদে আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনয়ন পত্র উত্তোলন করেছেন দৌলতপুর যুবলীগ সভাপতি বুলবুল আহমেদ টোকেন চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের। গতকাল বুধবার বিকেলে ঢাকাস্থ আওয়ামী লীগ দলীয় ধানমন্ডি কার্যালয় থেকে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীর দলীয় মনোনয়ন পত্র উত্তোলন করেন দৌলতপুর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের। এছাড়াও মঙ্গলবার বিকেলে একই কার্যালয় থেকে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনয়নপত্র উত্তোলন করেছেন দৌলতপুর যুবলীগের সভাপতি বুলবুল আহমেদ টোকেন চৌধুরী। এছাড়াও যারা আ’লীগ দলীয় মনোনয়ন পত্র উত্তোলন করেছেন বা করবেন তাদের মধ্যে রয়েছেন, বর্তমান চেয়ারম্যান ফিরোজ আল মামুন, এ্যাড. এজাজ আহমেদ মামুন, সরদার তৌহিদুল ইসলাম ও অধ্যক্ষ ছাদিকুজ্জামান খান সুমন উল্লেখযোগ্য।

স্বচ্ছতার বাইরে গেলেই ঠিকানা জেলখানা – গণপূর্তমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ হাউজিং ও রিয়েল এস্টেট ব্যবসার দেখভালকারী সরকারি কর্মীদের উদ্দেশে গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, শতভাগ স্বচ্ছতা নিয়ে আপনাদের কাজ করতে হবে। যারা এর বাইরে যাবেন তাদের ঠিকানা হবে জেলখানায়। বুধবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (রিহ্যাব) আয়োজিত রিহ্যাব মেলা-২০১৯ এর উদ্বোধনের সময় তিনি এ কথা বলেন। কিছু অসাধু ব্যবসায়ী বেআইনিভাবে ভবন নির্মাণ করেন জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, আমাদের কিছু অসাধু কর্মকর্তা আছেন। যখন বেআইনিভাবে ভবন নির্মাণ করা হয় তারা তখন তা দেখেন না। আর রাজউক যখন বেআইনিভাবে নির্মিত ভবন ভাঙতে যায় তখন কষ্টের টাকায় কেনা গ্রাহকরা ক্ষতিগ্রস্ত হন। তিনি আরও বলেন, আমাদের নির্বাচনি অঙ্গীকার ছিল নাগরিকের আবাসন নিশ্চিত করা। এরই মধ্যে বেসরকারিভাবে দুই লাখ ফ্ল্যাট ও ৭০ হাজার প্লট গ্রাহকের মধ্যে হস্তান্তর হয়েছে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন রিহ্যাব সভাপতি আলমগীর শামসুল আলামিন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন-রিহ্যাব ভাইস প্রেসিডেন্ট লিয়াকত আলী ভুইয়া, সিনিয়র সহসভাপতি ও সংসদ সদস্য নুরুন নবী চৌধুরী শাওন প্রমুখ।

কোনো নিরীহকে হয়রানি করা যাবে না – আইজিপি

ঢাকা অফিস ॥ সমাজের সব শ্রেণির মানুষের কাছে সেবা পৌঁছে দিতে পুলিশ সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন এই বাহিনীর মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. জাবেদ পাটোয়ারী। পুলিশ সদস্যদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘কোনো অবস্থাতেই কোনো নিরীহ মানুষকে হয়রানি করা যাবে না।’ বুধবার রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স মাঠে ‘পুলিশ সপ্তাহ ২০১৯’ উপলক্ষে পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের মধ্যে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। আইজিপি বলেন, ‘কোনো অবস্থাতেই কোনো মানুষ যেন হয়রানির শিকার না হয়, এ ব্যাপারে কঠোর নজরদারি করতে হবে। এ জন্য আমাদের থানাকে করতে হবে সেবার কেন্দ্রবিন্দু।’ ড. জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, ‘উন্নয়নের মহাসড়কে দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। এর মাধ্যমে গণমানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করাটাই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। পুলিশের কাছে মানুষের প্রত্যাশা অনেক। মানুষ পুলিশের কাছে নিরাপত্তা চায়, সেবা চায়।  স্থিতিশীল পরিবেশ চায় আর সেবা প্রত্যাশা করে। ’ পুলিশ সদস্যদের উদ্দেশে আইজিপি বলেন, ‘আপনাদের (পুলিশ সসদস্যদের) গণমুখী হতে  হবে। ’ তিনি আরও বলেন, ‘মাদক ও অবৈধ অস্ত্র হাত ধরাধরি করে থাকে।  যেখানে মাদক আছে, সেখানে অবৈধ অস্ত্র রয়েছে।  পুলিশের যে সব ইউনিট মাদক উদ্ধারে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় হয়েছে, সেসব ইউনিটি অস্ত্র উদ্ধারেও প্রথম, দ্বিতীয় হয়েছে।  এতে বোঝা যায়, মাদক ও অস্ত্র হাত ধরাধরি করে থাকে।  আমরা যদি এই সমাজ থেকে মাদক নির্মূল না করতে পারি, অবৈধ অস্ত্রমুক্ত করতে না পারি, তাহলে সার্থক সমাজ তৈরি করা যাবে না।’আইজিপি বলেন, ‘মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সনীতি গ্রহণ করে আমরা যুদ্ধ ঘোষণা করেছি। ২০১৮ সালে এক লাখ ১২ হাজার মাদক সংক্রান্ত মামলায় ১ লাখ ৫০ হাজার আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ সময় আনুমানিক ১ হাজার ৬৩৯ কোটি ৭০ লাখ টাকার মাদক উদ্ধার করা হয়েছে।  তাই কঠোরভাবে মাদক নির্মূল অভিযান অব্যাহত রাখাসহ পুলিশি তৎপরতা আরও বৃদ্ধি করতে হবে।’ পুলিশ বাহিনীকে হুঁশিয়ার করে আইজিপি বলেন, ‘পুলিশ বাহিনীর কোনো সদস্যের বিরুদ্ধে মাদকসেবন ও ব্যবসার  সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে তাকে কোনোভাবেই ছাড় দেওয়া হবে না। তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।  বিভাগীয়ভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হবে এবং আইনানুগ ব্যবস্থাও নেওয়া হবে।’ জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণ প্রসঙ্গে আইজিপি বলেন, ‘জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণে পুলিশের উচ্চমাত্রায় কমেন্টের জন্য আইজিপি হিসেবে আমি গর্ববোধ করি। এ অর্জন ধরে রাখতে হলে আমাদের সবাইকে সর্বদা কাজ করে যেতে হবে।’ এর আগে দেশের শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখায় এবং অবৈধ অস্ত্র ও মাদক উদ্ধারে সাহসী ভূমিকা রাখায় সারাদেশের ৫১৪ জন পুলিশ সদস্যদের আইজিপি ব্যাজ পরিয়ে দেন ড. জাবেদ পাটোয়ারী।

জাপানে নিম্ন জন্মহারের জন্য নারীদের দুষলেন উপ-প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ জাপানে নিম্ন জন্মহারের জন্য নারীদের দোষারোপ করে পরে সমালোচনার মুখে ক্ষমা চেয়ে কথা ফিরিয়ে নিতে বাধ্য হয়েছেন দেশটির উপপ্রধানমন্ত্রী তারো আসো। জাপানের ফুকুদায় এক বৈঠককালে তারো আসো বলেছিলেন, জাপানে অর্থনীতির অবনতি এবং স্বাস্থ্যসেবায় ব্যয় নিয়ে উদ্বেগের মূল কারণ বয়স্ক মানুষ- এমন কথা ঠিক নয়। বরং নারীরাই সন্তান জন্ম দিচ্ছে না- সেটিই সমস্যা। শিশু জন্মহার কমার সঙ্গে সঙ্গে বয়স্ক মানুষ বেড়ে পরিস্থিতি জটিল আকার ধারণ করেছে বলে মত দেন তিনি। তার এ কথার পর এর তীব্র সমালোচনা করেন বিরোধীদলীয় এমপি’ রা। তারো আসোর কথায় সন্তান নিতে অপারগ দম্পতিরা মর্মাহত হতে পারেন বলে তারা সমালোচনা করেন। এরপরই মঙ্গলবার তারো আসো তার মন্তব্যের জন্য ক্ষমা চেয়ে কথা ফিরিয়ে নেন। তিনি বলেন, “আমি আমার মন্তব্য প্রত্যাহার করে নিচ্ছি। ভবিষ্যতে কথা বলার ব্যাপারে আমি সতর্ক থাকব।” ২০১৫ থেকে ২০৫০ সালের মধ্যে জাপানে জনসংখ্যা প্রায় ২৫ শতাংশ কমে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের হিসাব মতে, দেশটিতে এরই মধ্যে নারীপ্রতি সন্তান জন্মদানের সংখ্যা গড়ে ১৯৬০ সালের ২.০ শতাংশ থেকে কমে ২০১৬ সালে ১ দশমিক ৪৪ হয়েছে।

৬টি বিদ্যুৎকেন্দ্র ও ৯টি গ্রিড উপকেন্দ্র উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর

ঢাকা অফিস ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল ৬টি বিদ্যুৎকেন্দ্র এবং ৯টি গ্রিড উপকেন্দ্র উদ্বোধন করেছেন। এতে ১০৬২ মেগাওয়াটেরও বেশি বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হবে। প্রধানমন্ত্রী গতকাল বুধবার সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই বিদ্যুৎ কেন্দ্র ও গ্রিড উপকেন্দ্র উদ্বোধন করেন। একই অনুষ্ঠানে তিনি চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ উপজেলায় দেশে এই প্রথম সাবমেরিন ক্যাবলের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সরবরাহ এবং ১২টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুৎ সংযোগের উদ্বোধন করেন। প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনকৃত ৬টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র হচ্ছে- সিরাজগঞ্জ ২৮২ মেগাওয়াট সিম্পেল সাইকেল বিদ্যুৎকেন্দ্র, ভোলা ২২৫ মেগাওয়াট কম্বাইন্ড সাইকেল বিদ্যুৎকেন্দ্র, চাঁদপুর ২০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্র, আশুগঞ্জ ১৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র, খুলনার রুপসায় ১০৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র এবং চট্টগ্রামের জুলদা ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র (তৃতীয় ইউনিট)। নয়টি উপকেন্দ্র হচ্ছে- রামগঞ্জ, বরিশাল (উত্তর), বারইয়ারহাট, শিকলবাহা, জলঢাকা, সুনামগঞ্জ, বিয়ানিবাজার, রাঙামাটি ও মাতারবাড়ি। শতভাগ বিদ্যুৎ সংযোগের আওতায় আসা উপজেলাগুলো হচ্ছে-হরিনাকুন্ড, ঠাকুরগাঁও সদর, বালিয়াডাঙ্গা, গোয়ালন্দ, কালুখালী, বামনা, লাখাই, শায়েস্তাগঞ্জ, আজমেরীগঞ্জ, বাহুবল, মেলান্দহ এবং ইসলামপুর। মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, ৩০৬টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুৎ সরবরাহের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। এরমধ্যে ২৬৩টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুৎ সরবরাহ ইতোমধ্যেই উদে¦াধন করা হয়েছে। অবশিষ্ট ৪৩টি উপজেলা চলতি বছরের জুন নাগাদ উদ্বোধন করা হবে। প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী, বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নাসিরুল হামিদ বিপু অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব ড.আহমেদ কায়কাউস অনুষ্ঠানে বিদ্যুৎ খাতের উন্নয়নের সার্বিক চিত্র তুলে ধরেন। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন। ড. আহমেদ কায়কাউস বলেন, ২০,৮৫৪ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা অর্জন করায় দেশের ৯২ শতাংশের বেশি জনগণ বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় এসেছে। তিনি বলেন, গত ১০ বছরে ১শ’ নতুন বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের সুবাদে বাংলাদেশ এখন বিদ্যুৎ ঘাটতির দেশ থেকে বিদ্যুৎ উদ্বৃত্ত দেশে পরিণত হয়েছে। সাবেক মন্ত্রী এবং সিনিয়র আওয়ামী লীগ নেতা তোফায়েল আহমেদ এবং ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ আবদুল্লাহ, সাবেক প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম, সাবেক উপমন্ত্রী আবদুল্লাহ ইসলাম আল জ্যাকব এবং সংশ্লিষ্ট এলাকার সংসদ সদস্যগণ এ সময় গণভবনে উপস্থিত ছিলেন।

কমরেড শাজাহান আলীর মৃত্যুতে ইবি ভিসির শোক

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী (ড. রাশিদ আসকারী) এক শোকবার্তায়, কুষ্টিয়ার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, সমাজসেবী, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও প্রগতিশীল রাজনীতিক কমরেড শাজাহান আলীর অকাল মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন। প্রেরিত শোকবার্তায় ড. রাশিদ আসকারী বলেন, কমরেড শাজাহান ছিলেন আমার অত্যন্ত স্নেহের। তিনি ছিলেন অত্যন্ত মিষ্ট ভাষী, নম্র, ভদ্র, বিনয়ী এবং সাহসী একজন মানুষ। তাঁর মৃত্যুতে আমরা একজন প্রগতিশীল নেতাকে হারালাম। ভাইস চ্যান্সেলর মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। অপর পৃথক পৃথক শোকবার্তায়, কমরেড শাজাহান আলীর অকাল মৃত্যুতে গভীর  শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান ও ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা। প্রেরিত শোকবার্তায় তাঁরা, মরহুমের আত্মার শান্তি কামনা করেন এবং শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

সি ডি এল ট্রাস্ট এর উদ্যোগে প্রবীণ বনাম নবীন প্রজন্ম আড্ডা

গতকাল বুধবার  সি.ডি.এল. ট্রাস্ট এর  উদ্যোগে এবং দিশা স্বেচ্ছাসেবী আর্থ সামাজিক উন্নয়ন সংস্থার  সহযোগিতায় সি ডি এল ট্রাস্ট মিলনায়তনে বিকাল সাড়ে ৩টায় প্রবীণ বনাম নবীন প্রজন্ম আড্ডার আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে সঞ্চালক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গাংনী ডিগ্রী কলেজের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক মিজানুর রহমান। আড্ডায় অংশগ্রহন করে শহীদ হাসান ফয়েজ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রীরা। প্রবীণ মডেল হিসাবে উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক আসাদুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো:শহীদ উল্লাহ মাষ্টার, বিএডিসি’র অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মীর আবুল কালাম আজাদ। ছাত্রীরা তাদের বড় হবার পিছনে অত্যন্ত আগ্রহ সহকারে তাদের বিভিন্ন প্রশ্ন করে তাদের জ্ঞানের স্পৃহাকে প্রকাশ  করে। আজকের অতিথিরাও ছাত্রীদের সুন্দর সুন্দর প্রশ্নের সন্তোষজনক  উত্তর দিয়ে ছাত্রীদেরকে উৎসাহিত করেন। আড্ডা শেষে সিডিএল ট্রাস্ট এর নারী ফোরাম সদস্যগন ছাত্রীদের উদ্যোশ্যে আলোচনা করেন কলকাকলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত সিনিয়র শিক্ষক হাসিনা আখতার উত্তরন মহিলা সংস্থার মানবাধিকার কর্মী তাজনিহার বেগম তাজ, জেসমিন হোসেন মিনি ফারজানা ববি রুমা  ও শহীদ হাসান ফয়েজ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিরিয়া আক্তার। অনুষ্ঠানের শুরুতেই স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিডিএল ট্রাস্ট এর নির্র্বাহী পরিচালক আক্তারী সুলতানা। তিনি আরও জানান এভাবে বিভিন্ন স্কুল ও কলেজে দিশা  সংস্থার  সহযোগিতায় সিডিএল ট্রাস্ট শিক্ষার্থীদের সাথে  নিয়ে পাঠচক্র ও আড্ডা, সৃজনশীল বই পরিচিতি সভা করতে আগ্রহী এবং সকল স্কুল কলেজের সহযোগিতা আশা করেন। অনুষ্ঠানে প্রত্যেক বক্তার পক্ষ থেকে একটি কথাই উচ্চারিত হয়েছে  পড়ার কোন বিকল্প নেই। জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত জানার শেষ নেই। অতএব জ্ঞান অণে¦ষনের জন্য বই এর বিকল্প  নেই। সহযোগিতায় ছিলো আফরিন রেজা হিরা। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

গাংনীতে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে মহিলাকে হামলা

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার ষোলটাকা ইউনিয়নের বানিয়াপুকুর গ্রামে জমি-জমা সংক্রান্ত পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষরা একটি বাড়ীতে হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। কৃষি জমি দখল নিয়ে বাকবিতন্ডার একপর্যায়ে প্রতিপক্ষরা বানিয়াপুকুর গ্রামের মামলত হোসেনের বাড়ীতে প্রবেশ করে তার স্ত্রী তসলিমা খাতুনকে হামলা করেছে। আহত তসলিমা খাতুনকে প্রথমে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এসময় তার নাকে প্রচুর রক্তক্ষরণ হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক জরুরী ভিত্তিতে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে রেফার্ড করেন। গতকাল বুধবার সকালের দিকে হামলার ঘটনা ঘটে। আহত তসলিমা খাতুনের মেয়ে মুসলিমা খাতুন জানান, আমার বাবার পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া ১০/১২ বিঘা জমি নিয়ে দীর্ঘদিন বিরোধ চলে আসছে। বুধবার সকাল ১০ টার সময় মাঠে জমি দখল করতে গেলে,একই গ্রামের কাবরান মেম্বরের নেতৃত্বে মঙ্গল শেখ, মজিবর রহমান, তৈয়ব আলী ও রিয়াজন আলী ধারালো অস্ত্র নিয়ে মাঠ থেকে ফিরে এসে বাড়ীর মধ্যে প্রবেশ করে। এ সময় বাড়ির অন্য কাউকে না পেয়ে আমার মাকে একা পেয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। আমার মায়ের নাকের উপর কোপ দেয়ায় তার অবস্থা আশঙ্কজনক।

আলমডাঙ্গা অফিসার্স ওয়েল ফেয়ার ক্লাবের উদ্যোগে সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা জেডএএম তৌহিদুর রহমানের বিদায় সংবর্ধনা

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ আলমডাঙ্গা অফিসার্স ওয়েল ফেয়ার ক্লাবের উদ্যোগে সম্মানিত ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা জেডএএম তৌহিদুর রহমানের বিদায় সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে। বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাহাত মান্নান। বিশেষ অতিথি ছিলেন থানা অফিসার ইনচার্জ আসাদুজ্জামান মুন্সি আসাদ, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার শামসুজ্জোহা, প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ মিজানুর রহমান, মৎস্য কর্মকর্তা ফাতেমা কামরুন্নাহার আখি, বিআরডিবি কর্মকর্তা সায়েলা শারমীন, উপজেলা পঃপঃ কর্মকর্তা হাসানুজ্জামান, প্রেসক্লাব সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা খন্দকার শাহ্ আলম মন্টু, সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা খন্দকার হামিদুল ইসলাম আজম। সমাজসেবা অফিসার আফাজ উদ্দিনের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আনিছুর রহমান, উপজেলা প্রকৌশলী রফিকুর রহমান খান, একাডেমিক সুপারভাইজার ইমরুল হক, ইউসিও মৃণাল কান্তি মল্লিক, ইউআরসি ইন্সপেক্টর আনারুল ইসলাম, কলেজীয়েট স্কুলের উপাধ্যক্ষ শামীম রেজা প্রমুখ। অনুষ্ঠান শেষে বিদায়ী সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা জেডএ তৌহিদুর রহমানের হাতে অফিসার্স ক্লাবের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা পুরষ্কার তুলে দেওয়া হয়।

কুষ্টিয়া পৌরসভার আয়োজনে ফ্রি ডায়াবেটিস পরীক্ষা

গতকাল বুধবার কুষ্টিয়া পৌরসভার আয়োজনে আরটিফিসার লিঃ এর সহযোগিতায় ফ্রি ডায়াবেটিস পরীক্ষা করা হয়েছে। পৌরসভার তথ্য ও প্রযুক্তি কেন্দ্রের সামনে সকাল ৮ ঘটিকা হতে বিকাল ৫.৩০ মিনিট পর্যন্ত এই ফ্রি ডায়াবেটিস পরীক্ষা করা হয়। কুষ্টিয়া পৌরসভা ডিজিটাল  সেন্টারের উদ্যোক্তা এ.এস.এম আরিফ নাজমুল হক’র সহযোগিতায় এসময় উপস্থিত ছিলেন পৌরসভার শহর পরিকল্পনাবীদ রানভীর আহম্মেদ, আরটিফিসার লিঃ এর প্রতিনিধি আব্দুল আহাদ ও মেজবাউল হক। দিনব্যাপী প্রায় ছয়শত জনকে ফ্রি ডায়াবেটিস পরীক্ষা করা হয়। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

মিরপুরে ওপেন হাউজ ডে’র সভায় এ কে এম জহিরুল ইসলাম

পুলিশ বাহিনীকে জনগণের সত্যিকারের বন্ধু হতে হবে

কাঞ্চন কুমার ॥ কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এ কে এম জহিরুল ইসলাম বলেছেন, সন্ত্রাস উন্নয়নের প্রধান অন্তরায়। তাই সন্ত্রাসী, অপরাধী যেই হোক তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে। জনগণের শান্তি প্রতিষ্ঠা ও দেশের উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করতে ঐক্যবদ্ধভাবে সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ প্রতিহত করতে হবে। পুলিশ বাহিনীর প্রতি মানুষের নেতিবাচক ধারণা থাকলে এ বাহিনী থেকে কাঙ্খিত সেবা পাওয়া যাবে না। এ বাহিনীকে জনগণের সত্যিকারের বন্ধু হতে হবে। জনগণের সেবার মান বৃদ্ধি করতে পুলিশের কাজে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে। গতকাল বুধবার সকালে মিরপুর থানার হলরুমে উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের উদ্যোগে পুলিশ সপ্তাহ উপলক্ষে ‘ওপেন হাউজ ডে’-র আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। তিনি আরো বলেন গুটি কয়েক সন্ত্রাসীদের হাতে সাধারণ জনগণকে জিম্মি হতে দেয়া যাবে না। শান্তি শৃংখলা রক্ষায় সন্ত্রাস দমনে সকলকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করতে হবে। জনবল, যানবাহন ও অর্থ সংকটের মধ্যদিয়ে পুলিশ বাহিনী পরিচালিত হচ্ছে। তবে জনগণের সেবা নিশ্চিত করতে এগুলোর সর্বোত্তম ব্যবহার করা হবে। কমিউনিটি পুলিশিং এর সুফল পেতে এর কর্মকান্ড গতিশীল করতে হবে। তিনি কঠোর হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন মাদক ও জুয়ার কারণে এলাকায় আইন-শৃংখলার অবনতি হয়ে থাকে। মাদক ও জুয়ার  সাথে পুলিশের কোন সদস্যের জড়িত থাকার প্রমান পেলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তিনি সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ ও মাদকমুক্ত মিরপুর গড়তে সকলের তিনি সহযোগিতা কমনা করেন। মিরপুর থানা অফিসার ইনচার্জ আবুল কালামের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম জামাল আহমেদ, পৌর মেয়র হাজী এনামুল হক, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আনোয়ারুজ্জামান বিশ্বাস মজনু, উপজেলা জাসদের সভাপতি মহম্মদ শরীফ, সাধারণ সম্পাদক আহাম্মদ আলী, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কামান্ডের সাবেক কমান্ডার নজরুল করিম, আফতাব উদ্দিন খান, সাবেক আহ্বায়ক মোশারফ হোসেন, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জুলফিকার হায়দার, কুষ্টিয়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির মিরপুর জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার প্রকৌশলী এনামুল হক, সদরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রবিউল হক রবি, ছাতিয়ান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন বিশ্বাস, আমলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম মালিথা, আমবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মশিউর রহমান মিলন, কুর্শা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ওমর আলী, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ফেরদৌস ওয়াহেদ জোয়ার্দ্দার, উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের সভাপতি হাজী আব্দুল জলিল, পৌর কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের আহ্বায়ক মশিউর রহমান নাসিম প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল্লাহ-আল-মতিন লোটাস।

মিরপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন

ভাইস চেয়ারম্যান পদে যুবলীগের সভাপতি কাশেম জোয়ার্দ্দারের দলীয় মনোনয়ন ফরম জমা

মিরপুর অফিস ॥ কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের সুপারিশক্রমে তালিকা অনুযায়ী গতকাল দুপুরে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কার্যলয়ে মিরপুর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে কাশেম জোয়ার্দ্দার দলীয় মনোনয়নপত্র উত্তোলন ও জমা দিয়েছেন। মিরপুর উপজেলা নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থি হচ্ছেন মিরপুর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি কাশেম জোয়ার্দ্দার। কাশেম জোয়ার্দ্দারের সাথে কথা বললে তিনি জানান, মিরপুর উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের সাধারন মানুষের সাথে মতবিনিময় ও সুধী সমাবেশ করে যাচ্ছেন। সিনিয়র নেতৃবৃন্দের সাথে নিয়ে বেশ আটঘাট বেঁধেই মাঠে  নেমেছেন তিনি। তবে ভাইস চেয়ারম্যান পদে তেমন একটা  যোগ্য প্রার্থী না থাকায় প্রার্থী বিবেচনায় তাকেই যোগ্য প্রার্থী হিসেবে মনে করছেন দলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ থেকে তৃণমূল  নেতা-কর্মীরা। একই সাথে সাধারণ মানুষও প্রার্থী হিসেবে কাশেম জোয়ার্দ্দারকে বেছে নিতে চাই। এরই মধ্যে দলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দের সমর্থন ও দোয়া পেয়েছেন বলেও তিনি জানান।

ঋণ খেলাপি চিহ্নিতে সব ব্যাংকে স্পেশাল অডিট – অর্থমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ ঋণ খেলাপিদের চিহ্নিত করতে সব ব্যাংকে স্পেশাল অডিট করা হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। বুধবার রাজধানীর কষিবিদ ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে রূপালী ব্যাংকের বার্ষিক ব্যবসায়ী সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। এ সময়, যারা ফেরত না দেওয়ার জন্য ঋণ নেন, তাদের প্রতি তিনবার ‘সাবধান’ বাণী উচ্চারণ মন্ত্রী। মুস্তফা কামাল বলেন, গেলো তিন বছরে যেসব গ্রাহক টাকা নিয়ে ফেরত দেয়নি, তারা কারা, তা চিহ্নিত করতে তিন অডিট ফার্মকে এ দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, আমাদের দেশে দুই ধরনের ব্যবসায়ী রয়েছে-প্রথম প্রকার হলো, যারা আসলেই ব্যবসা করতে চায় কিন্তু মাঝে মাঝে হোঁচট খায়, হোঁচট খেয়ে খেলাপিতে পরিণত হয়। তাদের প্রতি সহনশীল হতে হবে। কিন্তু অন্য আরেক ব্যবসায়ী আছে, যারা ফেরত না দেওয়ার জন্য ঋণ নেন। তাদের প্রতি তিনবার সাবধান বাণী উচ্চারণ করেছেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, প্রকৃত ব্যবসায়ী এবং অসাধু ব্যবসায়ীদের চিহ্নিত করা হবে। ঋণ দেওয়ার জন্য সবাইকে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। সাবধান, সাবধান, সাবধান। কেউ অসাধু উপায়ে ব্যবসা করার চিন্তা করবেন না। অর্থমন্ত্রী বলেন, অসাধু ব্যবসায়ীদের কোনো প্রকার ছাড় নয়। যারা এদেরকে সাহায্য করবে (ব্যাংকের) তাদেরকেও কোনো ছাড় নেই। সময় কঠিন, সিদ্ধান্তও কঠিন। খেলাপি ঋণ আদায়ে যেসব আইনের সংস্কার করা প্রয়োজন, সেগুলোতেও সরকার হাত দেবে বলেও জানান মুস্তফা কামাল। অনুষ্ঠানে রূপালী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান মনজুর হোসেনের সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন-বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির, অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ফজলুল হক এবং রূপালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও মো. আতাউর রহমান প্রধান প্রমুখ।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট আছে, থাকবে – রব

ঢাকা অফিস ॥ নতুন নির্বাচনের দাবিতে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আন্দোলন অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছেন জোটের নেতা জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব। গতকাল বুধবার ঢাকায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এক কর্মসূচিতে এই ঘোষণা দিয়ে রব বলেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট আছে, থাকবে।‘ভোট ডাকাতি’র প্রতিবাদে কালোব্যাজ ধারণ করে মানববন্ধনের এই কর্মসূচিতে আসেন বিএনপি নেতৃত্বাধীন এই জোটের নেতারা।তবে এই কর্মসূচিতে ছিলেন না জোটের শীর্ষনেতা ড. কামাল হোসেন, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, কৃষক-শ্রমিক-জনতা লীগের সভাপতি আবদুল কাদের সিদ্দিকী, গণফোরামের নেতা মোস্তফা মহসিন মন্টু, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না। কর্মসূচিতে বক্তব্যের শুরুতেই রব জানান, মির্জা ফখরুল, মন্টু ও মান্না তিনজনই চিকিৎসার জন্য বিদেশে রয়েছেন। আর পারিবারিক একটি অনুষ্ঠানের জন্য যোগ দিতে পারেননি কাদের সিদ্দিকী। কামাল হোসেনের অসুস্থতার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, “উনার ডান পায়ে অস্ত্রোপচার হয়েছে, বাম পায়ে অস্ত্রোপচারের জন্য কমপক্ষে ৩/৪ সপ্তাহ দেশের বাইরে থাকা দরকার। দেশের রাজনীতির কারণে উনি ৫/৭ দিনের বেশি দেশের বাইরে থাকেন না। আজকে উনার পায়ের ব্যথা অত্যাধিক বেড়েছে। সেজন্য মানববন্ধনের এই কর্মসূচিতে ফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন উপস্থিত হতে পারেননি।” শীর্ষ নেতাদের অনুপস্থিতির কারণ তুলে ধরে রব বলেন, “আমরা দৃঢ়তার সাথে বলছি, ঐক্যফ্রন্ট ছিল, ঐক্যফ্রন্ট আছে, ঐক্যফ্রন্ট থাকবে।” মানববন্ধনে বিএনপি নেতাদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আবদুল মঈন খান, সেলিমা রহমান, আবদুস সালাম, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, আবদুস সালাম আজাদ, কাজী আবুল বাশার। বিকালে এক ঘণ্টার এই কর্মসূচি চলাকালে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ বন্দি সব রাজনৈতিক নেতার মুক্তির দাবিতে স্লোগান চলে। জাফরুল্লাহ চৌধুরী, গণফোরামের সুব্রত চৌধুরী, জগলুল হায়দার আফ্রিক, মোশতাক আহমেদ, রফিকুল ইসলাম পথিক, জেএসডির আবদুল মালেক রতন, নাগরিক ঐক্যের শহীদুল্লাহ কায়সার, মমিনুল ইসলাম, জনদলের এটিএম গোলাম মওলা চৌধুরীও বক্তব্য রাখেন মানববন্ধনে। সরকারকে হুঁশিয়ার করে রব বলেন, “আজকে কালো ব্যাজ ধারণ করে প্রতিবাদ করছি। আমরা অপেক্ষা করে আছি, আগামীতে জনগণকে সাথে নিয়ে প্রতিরোধ করতে হবে। আগামী ২৪ তারিখে কী কী অপকর্ম করেছেন, কী কী ডাকাতি করেছেন, সমস্ত কিছু উলঙ্গ করে দেওয়া হবে। আমি বলতে চাই, রাষ্ট্রকে রক্ষায় স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। কর্মজীবী-পেশাজীবীসহ জনগণকে সাথে নিয়ে ঐক্য গড়তে হবে। শুধু ঘরের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলে চলবে না, আন্দোলন করতে প্রস্তুতি নিতে হবে।” বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মঈন খান বলেন, “ইতিহাসের পেছনে ফিরে গেলে দেখবেন, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি ভোটারবিহীন নির্বাচন হয়েছে। মিডিয়ার কল্যাণে সেদিন ভোট কেন্দ্রে কুকুর ও বেড়াল দেখিছি, কোনো ভোটার ভোট দেয় নাই। ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচন হয়নি, প্রহসন হয়েছে। দেশের জনগণ ও আন্তর্জাতিক মিডিয়া জানে, দেশে কীভাবে প্রহসনের নির্বাচন হয়েছে। এবারের নির্বাচনে প্রমাণ হয়েছে দলীয় সরকারের অধীনে কোনো সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন হতে পারে না।” গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী বলেন, “২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি শেখ হাসিনা গণতন্ত্রকে লাইফ সাপোর্টে পাঠিয়েছে। আর ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর ডেড (মৃত) করে দিয়েছে। সেই লাশের উপর দাঁড়িয়ে আওয়ামী লীগ নেতা নৃত্য-কীর্তন করছে। আহা কী বিজয়! অন্তরে তো অনেক জ্বালা। মুখে শুধু হাসি দেখা যায়- এটার নাম হচ্ছে কাষ্ঠ হাসি।” আ স ম রব বলেন, “৩০ ডিসেম্বর নির্বাচন হয় নাই, নির্বাচনের নামে নাটক হয়েছে। ৩০ তারিখ ভোট হওয়ার কথা, ২৯ তারিখে ভোট ডাকাতি হয়েছে। পৃথিবীর ইতিহাসে সূচক হল ১০০। বাংলাদেশে ভোট ডাকাতি হয়েছে ১১৭ পয়েন্ট তিন পারসেন্ট। এর মধ্যে ৯৭ দশমিক ৩ পারসেন্ট হল ব্যালেটে ডাকাতি, ৫ পারসেন্ট যারা নির্বাচনের কাজে ব্যস্ত ছিল ভোট দিতে পারে নাই, ৫ পারসেন্ট হল যারা মারা গেছে-বিদেশে আছেন, ১০ পারসেন্ট হল গার্মেন্টস শ্রমিকসহ যারা ভোট দিতে পারে নাই। মোট হচ্ছে ১১৭ দশমিক ৩। ঠকের ওপরে বাটপার, বাটপারের ওপরে বাটপারি- এটা বিশ্বের আর কোথাও হয়েছে বলে শুনিও নাই, বই-পুস্তকে পড়ি নাই, দেখিও নাই।” রব বলেন, “এখন পুরস্কার দেওয়া হচ্ছে যারা ভোট ডাকাতি করেছে। ঘুষ দেওয়া হয়েছে ইউনিয়ন পর্যন্ত শিক্ষকদেরকে। যারা নিতে চায়নি, তাদের বলেছেন যে, না নিতে চাইলে দান করে দেবেন কিন্তু নিতে হবে। হাজার হাজার কোটি টাকা ঘুষ দেওয়া হয়েছে সারা বাংলাদেশে প্রশাসন থেকে শুরু করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এবং নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার, পোলিং অফিসার সবাইকে ঘুষ দেওয়া হয়েছে।” জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, “২৯ ডিসেম্বর রাতে বাংলাদেশে জনগণের অধিকার লুণ্ঠন হয়েছে। বিনা জানাজায় ৩০ ডিসেম্বর তাকে কবর দেওয়া হয়েছে। এই কবর যারা দিয়েছে আমলাদের সাথে পুলিশ বাহিনী, তাদের পুরস্কার দেওয়া শুরু হয়েছে। আপনারা দেখেছেন গত দুইদিন যাবত পুলিশরা একের পর এক তাদের পুরস্কার গ্রহণ করছেন। তারা (পুলিশ বাহিনী) দুইটা পুরস্কারের কথা বলতে ভুলে গেছেন। একটা তাদের কতজনকে অ্যাম্বেসেডর বানাতে হবে সেই দাবিটা করেন নাই। আরেকটা তাদের কতজনকে মন্ত্রী বানাতে হবে- সেই দাবি করেন নাই।

“মোহনা জলের জালে” কাব্যগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচনকালে ড. রাশিদ আসকারী

কবিতা মানব সমাজের প্রথম শিল্পকর্ম

কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মুন্সী মুর্তাজা আলী রচিত প্রথম কাব্যগ্রন্থ “মোহনা জলের জালে” মোড়ক উন্মোচন করা হয়েছে। গতকাল বুধবার দুপুরে লোকপ্রশাসন বিভাগে এক অড়াম্বর অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে এ কাব্যগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করা হয়। মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী (ড. রাশিদ আসকারী) বলেন, কবিতা মানব সমাজের প্রথম শিল্পকর্ম। ক্রিস্টপূর্ব ৭ হাজার বছর আগে সুমেরিয় অঞ্চলে প্রথম স্টোনের ট্যাবলেটের উপরে মাটি খনন করে পাওয়া গেছে মানব চিন্তায় কাব্যিক ও সাহিত্যিক বহিঃপ্রকাশ যা ঘটেছিল কাব্যের মাধ্যমেই। এর আগে প্রবন্ধ কিংবা উপন্যাসের কোন সুযোগ নেই। সুতরাং আদি কথা হচ্ছে কবিতা। সেই কবিতা কিন্তু নানাভাবে, নানা ব্যঞ্জনায় এবং নানা মাত্রিকতায় বাংলাদেশসহ সারা পৃথিবীতে বিকশিত হয়েছে। ভাইস চ্যান্সেলর বলেন, এই গ্রন্থের মাধ্যমে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা সাহিত্যের অঙ্গনে একজন নতুন কবি জন্ম নিলেন। তাঁর কবিতা ভাবোদ্রেকারী ও সুলিখিত। নিয়মিত কর্মব্যস্ততার পরেও এমনই একটি সাহসী পদক্ষেপ গ্রহণ করায় লেখক মুর্তাজাকে জানাই আন্তরিক ধন্যবাদ। তিনি বলেন, উৎকৃষ্টতম শব্দের উৎকৃষ্টতম বিন্যাস হলো কবিতা। “মোহন জলের জালে” এই শিরোনামের মধ্যে একটি অনুপ্রায়স রয়েছে। কবিতা হয়ে উঠার বৈশিষ্ট্য এই শিরোনামেই কিছুটা বিস্তৃত হয়েছে। পরবর্তীতে মুন্সী মুর্তাজা আলী’র লেখা আরও সুচিন্তিত কাব্যগ্রন্থ প্রকাশিত হবে এই প্রত্যাশা করেন ড. রাশিদ আসকারী। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান বলেন, মুন্সী মুর্তাজা আলী অত্যন্ত সহজ সরল ভাষায় কবিতা লিখেছেন। তাঁর কাব্য গ্রন্থ হৃদয়গ্রাহী। আশারাখি তাঁর লেখা প্রথম এ কাব্যগ্রন্থটি পাঠকদের নিকট অত্যন্ত জনপ্রিয়তা লাভ করবে। লোকপ্রশাসন বিভাগের সভাপতি প্রফেসর ড. মোহাম্মদ জুলফিকার হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি ছিলেন সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. নাসিম বানু। অনুষ্ঠানে লেখক মুন্সী মুর্তাজা আলী বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের প্রতি তাঁর গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করায় গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

 

সনাক’র অধিপরামর্শ সভা¬¬

ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রমে স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা নিশ্চিত করে শুদ্ধাচার চর্চার নির্দেশনা দিলেন কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক

কুষ্টিয়া সদর উপজেলার সকল ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রমে স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও তথ্যের অবাধ প্রবাহ নিশ্চিত করে শুদ্ধাচার চর্চার নির্দেশনা দিলেন কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মো: আসলাম হোসেন। জেলা প্রশাসনের আয়োজনে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি), সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) কুষ্টিয়া’র সহযোগিতায়, গতকাল বুধবার জেলা প্রশাসকের সভা কক্ষে অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের এক অধিপরামর্শ সভায় তিনি চেয়ারম্যানদের এ নির্দেশনা দেন। সনাক সভাপতি নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মো: আসলাম হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপ-পরিচালক, স্থানীয় সরকার মৃণাল কান্তি দে, কুষ্টিয়া সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসার জুবায়ের হোসেন চৌধুরী। মাল্টিমিডিয়া প্রোজেক্টরের মাধ্যমে সভায় ধারণাপত্র উপস্থাপন করেন টিআইবি’র প্রোগ্রাম ম্যানেজার মোহাম্মদ আব্দুর রহমান। এরিয়া ম্যানেজার মো: আরিফুল ইসলামের সঞ্চালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সনাক সদস্য মো: রফিকুল আলম টুকু, এডভোকেট সানোয়ার হোসেন, ডা: আবু দাউদ, গোস্বামী দুর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ দবির উদ্দিন, জিয়ারখি ইউনিয়ন পরিষদের সচিব প্রমূখ।  জেলা প্রশাসক মো: আসলাম হোসেন তাঁর বক্তব্যে সদর উপজেলার সকল ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রমে স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও তথ্যের অবাধ প্রবাহ নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, যেকোন প্রকল্প বাস্তবায়নের সময় তার সকল তথ্য নোটিশ বোর্ডের মাধ্যমে জনসাধারণের জ্ঞাতার্থে প্রকাশ করবেন। সামাজিক সুবিধাভোগী বাছাইয়ে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তির পরামর্শ এবং জনচাহিদা নিরূপন করতে হবে। বাজেট প্রণয়নে সমাজের সকল স্তরের প্রতিনিধি, নারী প্রতিনিধি এবং সরকারি বিধিবিধান মানতে হবে। তথ্যের অবাধ প্রবাহ তৈরীতে উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। নির্বাচিত নারী সদস্যদের মতামতের প্রাধান্য দিতে হবে। তিনি ভিজিডি সুবিধাভোগী নির্বাচনে সতর্কতা অবলম্বন করতে জোর তাগিদ দেন। স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানে কোনরূপ অনিয়ম, দুর্নীতি হলে তা কঠোরভাবে দমন করা হবে। স্থানীয় সরকার বিষয়ের উপ-পরিচালক মৃণাল কান্তি দে বলেন, স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা এবং শুদ্ধাচার বাস্তবায়নের অংশ হিসাবে কার্যকরী গ্রাম আদালত, ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার এর সেবা কার্যক্রম গতিশীল করা, কাগুজে স্থায়ী কমিটি নয় বরং কার্যকরী অর্থে কমিটি সক্রিয় রাখা, উন্নয়ন সমন্বয় কমিটি সভা কার্যকরীভাবে সম্পন্ন এবং সামাজিক সুবিধাভোগী নির্বাচনে যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করতে হবে। আগামী চক্রে ভিজিডি সুবিধাভোগী নির্বাচনে সরকারি পরিপত্র সম্পূর্ণরূপে অনুসরণ করতে হবে।  সভায় বক্তারা আরো বলেন, ইউনিয়ন পরিষদকে জনমূখি প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে হলে নারী পুরুষ সকলকে সমভাবে কাজ করার সুযোগ দিতে হবে। পরিষদের সকল কার্যক্রমে জনগণ বিশেষতঃ পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী যেমন: নারী, প্রান্তিক দরিদ্র জনগোষ্ঠীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে। সভায় ইউনিয়ন পরিষদের বাজেট প্রণয়ন, প্রকল্প বাস্তবায়ন, সামাজিক নিরাপত্তা, বিচার-সালিশ, ত্রাণ বন্টন, ভিজিডি বিতরণ ইত্যাদি বিষয়ে সদস্যদের ভূমিকা নিয়ে আলোচনা হয়। কুষ্টিয়া সদরে স্থানীয় সরকার ব্যবস্থায় স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও সুশাসন প্রতিষ্ঠায় আজকের অধিপরামর্শ সভার মাধ্যমে সনাক কুষ্টিয়ার সাথে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের একটি সেতুবন্ধন তৈরী হবে বলেও সভায় বক্তারা প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন। সভায় ১২ টি ইউনয়িন পরিষদের চেয়ারম্যান, সচিব, সাংবাদিকবৃন্দ, টিআইবি’র সনাক, স্বজন, ইয়েস সদস্য এবং কুষ্টিয়া সনাকে কর্মরত কর্মীগণ উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি