ঈশ্বর চেয়েছিলেন ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হোক – প্রেস সেক্রেটারি

ঢাকা অফিস ॥ হোয়াইট হাউজের প্রেস সেক্রেটারি সারাহ স্যান্ডার্স বলেছেন, ২০১৬ সালের নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হোক, তা ঈশ্বর চেয়েছিলেন বলে তিনি বিশ্বাস করেন। ক্রিশ্চিয়ান ব্রডকাস্টিং নেটওয়ার্ক-সিবিএনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি একথা বলেছেন বলে সিএনএনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। স্যান্ডার্স বলেন, “আমি মনে করি, ঈশ্বর আমাদের সবাইকে ভিন্ন ভিন্ন সময়ে ভিন্ন ভিন্ন ভূমিকা পালন করতে বলেন এবং আমার বিশ্বাস, তিনি চেয়েছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হোন। এবং সেই কারণেই তিনি সেখানে।” ডোনাল্ড ট্রাম্প ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হিসেবে ট্রাম্প অনেক ক্ষেত্রে দারুণ কাজ করছেন বলেও মন্তব্য করেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ সীমান্ত বরাবর দেওয়াল নির্মাণের যে প্রস্তাব ট্রাম্প দিয়েছেন তাকে ‘অনৈতিক’ আখ্যায়িত করেছেন হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি। এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে চাইলে স্যান্ডার্স সিবিএনকে বলেন, “ দেশের জনগণকে সুরক্ষিত করার ভাবনা, যা যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের মৌলিক দায়িত্ব, তাকে কোনোভাবেই অনৈতিক বলাটা অদ্ভুত।” প্রতিদিন হোয়াইট হাউজের ব্রিফিং কেন হয় না- সে প্রশ্নের জবাবে প্রেস সেক্রেটারি বলেন, “প্রেসিডেন্ট নিজেই অতীতের যে কোনো প্রেসিডেন্টের চেয়ে বেশি মিডিয়ার সঙ্গে সম্পৃক্ত। তাকেই সবচেয়ে সহজে পাওয়া যায় এবং আমি মনে করি মিডিয়ার বিষয়ে হোয়াইট হাউজকেও খুব সহজে পাওয়া যায়। “আমাদের টিম এবং প্রেসিডেন্ট কারোরই তথ্য গোপনের কোনো ইচ্ছা নেই।”

ভারতে ৪৫ বছরে সর্বোচ্চ বেকারত্ব, বিপাকে মোদি

ঢাকা অফিস ॥ ভারতে গত ৪৫ বছরে ভারতে বেকারত্বের হার সর্বোচ্চে পৌঁছেছে ২০১৭-১৮ আর্থিক বছরে। ‘দ্য ন্যাশনাল স্যাম্পল সার্ভে’র প্রতিবেদনে বেরিয়ে এসেছে এমন তথ্য। প্রতিবেদনে দেখা গেছে, ২০১৭-১৮ সালে ভারতে বেকারত্বের হার ৬.১ শতাংশ, যা গত ৪৫ বছরে সর্বোচ্চ। ভারতে নির্বাচনের আগে দিয়ে বেকারত্বের হারের পরিসংখ্যানের এ প্রতিবেদন সরকার চেপে রাখতে চেয়েছে বলে অভিযোগ আছে। ‘দ্য বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড’ পত্রিকার পত্রিকাটির সমীক্ষার ফল প্রকাশ করেছে বিবিসি। এতে ভোটের আগে এ নিয়ে বাড়তি আরেক ঝামেলায় পড়লেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। প্রতিবেদনে দেখা গেছে, ভারতে গ্রামের চেয়ে শহরাঞ্চলে বেকারত্বের হার অনেক বেশি। এদিকে বেকারত্বের এ পরিসংখ্যান তুলে ধরে আনন্দবাজার পত্রিকা জানায়, গ্রামে বেকারত্বের হার ৫.৩ শতাংশ, সেখানে শহরাঞ্চলে বেকারত্বের হার ৭.৮ শতাংশ। সামগ্রিকভাবে সারা দেশে বেকারত্বের হার গত ছয় বছরে ২.২ শতাংশ থেকে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬.১ শতাংশে। অন্যদিকে দেশের যুবসমাজের মধ্যে বেকারত্বের হার ১৩ শতাংশ থেকে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৭ শতাংশে।

২০১৬ সালে মোদি সরকার নোটবন্দি ঘোষণা করার পর এটিই প্রথম সরকারি সমীক্ষা। ২০১৭ সালের জুলাই থেকে ২০১৮ সালের জুনের মধ্যকার সময়ে তথ্য সংগ্রহ করে সমীক্ষাটি চালানো হয়েছে। প্রতিবেদন অনুয়ায়ী, গ্রামের ১৫ থেকে ২৯ বছর বয়সী যুবকদের ক্ষেত্রে বেকারত্বের হার এখন শোচনীয়। ২০১১-১২ সালে সমাজের এ অংশে বেকারত্বের হার ছিল ৫ শতাংশ। ২০১৭-১৮ সালে তা প্রায় তিনগুণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৭.৪ শতাংশে। গ্রামের ১৫ থেকে ২৯ বছরের নারীদের ক্ষেত্রেও বেকারত্বের হার উদ্বেগজনক। ২০১১-১২ সাল থেকে ২০১৭-১৮ পর্যন্ত তাদের মধ্যে বেকারত্বের হার ৪.৮ শতাংশ থেকে বেড়ে হয়েছে ১৩.৬ শতাংশ। কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী এক টুইটে নরেন্দ্র  মোদিকে কটাক্ষ করে লিখেছেন, মোদি ২ কোটি কর্মসংস্থানের প্রতিশ্র“তি দিয়েছিলেন। এখন ফাঁস হওয়া এ প্রতিবেদন জাতীয় বিপর্যয়ই সামনে নিয়ে এসেছে। তবে সঙ্গে সঙ্গেই এ টুইটের পাল্টা জবাব দিয়েছে ভারতীয় জনতা পার্টিও। তারা বলেছে, গত ১৫ মাসে কর্মসংস্থান উল্লেখযোগ্যভাবে বেড়েছে। ‘এমপ্লয়িজ প্রভিডেন্ট ফান্ড’ এর তথ্য থেকেই তা স্পষ্ট।

সোস্যাল মিডিয়ায় ব্রিটিশ রাজবধূদের হেনস্তা নিয়ে উদ্বেগ

ঢাকা অফিস ॥ সোস্যাল মিডিয়ায় ব্রিটিশ রাজবধূ কেট মিডলটন ও মেগান মার্কলকে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য বাড়তে থাকায় উদ্বেগ জানিয়ে এসব কোম্পানির কাছে সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। প্রিন্স উইলিয়াম ও কেট এবং প্রিন্স হ্যারি ও মেগানের দপ্তরের তত্ত্বাবধানকারী কেনসিংটন প্যালেস কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য ইনস্টাগ্রাম ও টুইটার কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেছে বলে সিএনএনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। দুই রাজবধূকে উদ্দেশ্য করে ‘অশ্লীল’ ও বিদ্বেষপূর্ণ মন্তব্য নিয়ন্ত্রণে সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে বলে একটি সূত্রের বরাত দিয়ে জানিয়েছে সিএনএন। তার বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রায়ই এক রাজবধূর ভক্তদের আক্রমণের শিকার হন অপরজন। “মন্তব্যের সংখ্যা, যার মধ্যে অশ্লীল ও বর্ণবাদী মন্তব্যও রয়েছে, এত বেশি হয় যে তাদের পক্ষে তা মোকাবেলা করা দুরূহ হয়ে পড়ে।” অনেকে বুদ্ধিদ্বীপ্ত ও ইতিবাচক মন্তব্য করতে থাকলেও গুটিকয় ব্যক্তি তা খুব খারাপ জায়গায় নিয়ে যান বলে সূত্রের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়।

রাজপথেই খালেদা জিয়ার মুক্তি – মাহবুব

ঢাকা অফিস ॥ আইনের সাধারণ প্রক্রিয়ায় খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা কঠিন হবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন। তিনি বলেন, খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার একমাত্র উপায় রাজপথ উত্তপ্ত করা। যতদিন পর্যন্ত রাজপথ উত্তপ্ত না হবে, ততদিন পর্যন্ত খালেদা জিয়াকে আইনি প্রক্রিয়ায় জেল থেকে বের করা যাবে না। এটি আমার দৃঢ় বিশ্বাস। শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরামের আয়োজনে খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে এক প্রতিবাদসভায় খন্দকার মাহবুব এসব মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, আইনের সাধারণ প্রক্রিয়ায় খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা কঠিন হবে। কারণ বর্তমান সরকার সব প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করে দিয়েছে। তাই খালেদা জিয়াকে আইনি প্রক্রিয়ায় বের করতে পারব বলে আমি আগেও বিশ্বাস করতাম না, এখনও বিশ্বাস করছি না। ‘তাই আজকে সময় এসেছে, জাতি উপলব্ধি করেছে- খালেদা জিয়াকে জেলে রেখে আমরা নির্বাচন করেছি, সে নির্বাচন করা কতটা সঠিক হয়েছে আমাদের নেতারা একদিন সে জবাব দেবেন এবং ইতিহাসও সে কথা বলবে।’ খন্দকার মাহবুব বলেন, এখনও বিশ্বাস করি- খালেদা জিয়াকে জেলে রেখে তার মুক্তির ব্যবস্থা না করে আমরা নির্বাচনে গেছি গণতন্ত্রকামী মানুষের ওপর ভরসা করে। এটি কতটা সঠিক ছিল সেটি হয়তো ইতিহাস একদিন বিচার করবে। বিএনপির এ নেতা দাবি করেন, কোনো রাজনৈতিক মামলার কারণে খালেদা জিয়াকে গ্রেফতার করা হয়নি। তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে। তাই আইনের প্রক্রিয়া যতই আমরা বলি না কেন, সরকারের সদিচ্ছা ছাড়া তাকে মুক্ত করা যাবে না। দল ও জোটের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ঐক্যফ্রন্ট এবং বিএনপি নেতাদের প্রতি অনুরোধ করব- আপনারা একটি মাত্র ইস্যুতে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলন করুন, সেটি হলো- খালেদা জিয়ার মুক্তি।

রোহিঙ্গাদের দেখতে ঢাকায় আসবেন জোলি

ঢাকা অফিস ॥ রোহিঙ্গা শরণার্থীদের দেখতে বাংলাদেশে আসবেন হলিউডের বিখ্যাত অভিনেত্রী অ্যাঞ্জেলিনা জোলি। জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থার (ইউএনএইচসিআর) বিশেষ দূত হিসেবে তিনি ঢাকা সফরে আসবেন বলে জানা গেছে। সূত্রে জানা গেছে, সব কিছু ঠিক থাকলে এ মাসের প্রথমভাগে জোলি ঢাকায় আসবেন। ২০১৭ সালে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর হাতে রোহিঙ্গা নারীদের নির্যাতনের শিকার হওয়ার বর্ণনা শুনে ঢাকায় আসার আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন হলিউডের এ অভিনেত্রী। ওই সালের নভেম্বরে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছিল- ভ্যাঙ্কুভারে জাতিসংঘ পিসকিপিং মিনিস্টেরিয়েলে জোলি যৌন নিপীড়নের শিকার নারীদের পক্ষে জোরালো বক্তব্য রাখেন। তার আগে যৌন নিপীড়ন বিষয়ক এক বৈঠকে আর্মড ফোর্সেস ডিভিশনের প্রিন্সিপ্যাল স্টাফ অফিসার লেফটেন্যান্ট জেনারেল মাহফুজুর রহমান রোহিঙ্গা ইস্যুতে জোলির সমর্থন চেয়েছিলেন। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘এর জবাবে জোলি বাংলাদেশ প্রতিনিধি লকে জানিয়েছেন, তিনি যৌন নিপীড়নের শিকার রোহিঙ্গা নারীদের দেখতে বাংলাদেশে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন।’ পরবর্তী সময়ে ভ্যাঙ্কুভারে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে জোলি তার বক্তব্যে বলেছিলেন- ‘বাংলাদেশে পালিয়ে আসা প্রায় প্রতিটি রোহিঙ্গা নারী যৌন হয়রানির শিকার হয়েছে।’ প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালে আগস্টের শেষ দিকে মিয়ানমার সেনাবাহিনী জাতিগত নির্মূল অভিযান শুরু করলে প্রায় পৌনে সাত লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেন।

রিজার্ভ চুরি

আরসিবিসির বিরুদ্ধে বাংলাদেশের মামলা

ঢাকা অফিস ॥ তিন বছর আগে হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে নিউ ইয়র্কের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক থেকে বাংলাদেশের রিজার্ভের চুরি যাওয়া অর্থ উদ্ধারের আশায় ফিলিপিন্সের রিজল কমার্শিয়াল ব্যাংকের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে মামলা করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। বৃহস্পতিবার নিউ ইয়র্কের ম্যানহাটন সাদার্ন ডিস্ট্রিক্ট কোর্টে দায়ের করা এ মামলায় রিজল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং করপোরেশন (আরসিবিসি) এবং ওই ব্যাংকের বেশ কয়েকজন শীর্ষ কর্মকর্তাসহ ডজনখানেক ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে বলে খবর দিয়েছে রয়টার্স। মামলার এজাহারে অভিযোগ করা হয়েছে, কয়েক বছর ধরে ‘জটিল’ ওই পরিকল্পনা সাজিয়ে আসামিরা বাংলাদেশ ব্যাংকের বিপুল অর্থ হাতিয়ে নেয়। ২০১৬ সালের ৪ ফেব্র“য়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউ ইয়র্কে (নিউ ইয়র্ক ফেড) থাকা বাংলাদেশের রিজার্ভের ১০ কোটি ১০ লাখ ডলার চুরি হয়। হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে ব্যাংকিং লেনদেনের আন্তর্জাতিক নেটওয়ার্ক সুইফটে ভুয়া বার্তা পাঠিয়ে এই অর্থ ফিলিপিন্স ও শ্রীলঙ্কার দুটি ব্যাংকে সরানো হয়েছিল। পাঁচটি সুইফট বার্তার মাধ্যমে চুরি হওয়া এ অর্থের মধ্যে শ্রীলঙ্কায় যাওয়া ২ কোটি ডলার আটকানো যায় এবং তা ফেরতও পাওয়া যায়। তবে ফিলিপিন্সে যাওয়া ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার জুয়ার টেবিল ঘুরে হাতবদল হয়। পরে ওই অর্থের দেড় কোটি ডলার জুয়ার আসর থেকে ফিলিপিন্স সরকার তুলে ফেরত দিলেও বাকি অর্থ পাওয়া যায়নি। গভর্নর বলেন,‘রিজর্ভ চুরির ঘটনা থেকে যারা লাভবান হয়েছে এবং যারা এর সঙ্গে জড়িত ছিল’, তাদের এ মামলায় আসামি করা হচ্ছে। বাংলাদেশের রিজার্ভ চুরির এই ঘটনা ফিলিপিন্সেও সাড়া ফেলেছিল। তারাও ঘটনার তদন্ত করে একটি মামলা করে। যে ব্যাংকের মাধ্যমে এই অর্থ জুয়ার টেবিলে গিয়েছিল, সেই আরসিবিসির কর্মকর্তা মায়া সান্তোস দেগিতোকে সম্প্রতি দোষী সাব্যস্ত করেছে দেশটির আদালত। ওই ঘটনায় বাংলাদেশেও একটি মামলা করা হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের অ্যাকাউন্টস অ্যান্ড বাজেটিং বিভাগের যুগ্ম পরিচালক জুবায়ের বিন হুদা ২০১৬ সালের ১৫ মার্চ মতিঝিল থানায় মামলাটি দায়ের করেন। মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন এবং তথ্য ও প্রযুক্তি আইনে দায়ের করা ওই মামলায় সরাসরি কাউকে আসামি করা হয়নি। তদন্তের দায়িত্বে থাকা পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ গত তিন বছরেও আদালতে প্রতিবেদন দিতে পারেনি।

মালয়েশিয়ার নতুন রাজা সুলতান আব্দুল্লাহর অভিষেক

ঢাকা অফিস ॥ বৃহস্পতিবার হালকা নীল রঙের ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরে কুয়ালালামপুরের ন্যাশনাল প্যালেসে আনুষ্ঠানিকভাবে শপথ গ্রহণের মধ্য দিয়ে সিংহাসনে আবদুল্লাহর অভিষেক হল। শপথ গ্রহণের পর রাজাকে গার্ড অব অনার দেওয়া হয় এবং ২১ বার তোপধ্বনি করা হয়। এ সময় তার স্ত্রী তুংকু আজিজাহ আমিনাহ মাইমুনাহও উপস্থিত ছিলেন। দুই বছর আগে রাজা নির্বাচিত হওয়া কেলান্তানের সুলতান মোহাম্মদ (পঞ্চম) গত ৬ জানুয়ারি আকস্মিকভাবে পদত্যাগের ঘোষণা দেন। এরপরই ‘কাউন্সিল অব রুলারস’ গত ২৪ জানুয়ারিতে ভোট দিয়ে সুলতান আবদুল্লাহকে নতুন রাজা নির্বাচন করে। মালয়েশিয়ার ১৬তম রাজা হলেন আবদুল্লাহ। দেশের নিয়ম অনুযায়ী এখন তিনি আগামী পাঁচ বছর দায়িত্ব পালন করবেন। রাজাকে স্থানীয়ভাবে  ‘ইয়াং দি-পারতুয়ান আগং’ বলা হয়। মালয়েশিয়ায় ‘রাজা’ মূলত অলংকারিক পদ। তবে প্রধানমন্ত্রীসহ বেশ কিছু জ্যেষ্ঠ পদে নিয়োগের জন্য রাজার অনুমোদন প্রয়োজন হয়। তাছাড়া, মুসলিম অধ্যুষিত মালয়েশিয়ায় রাজা হচ্ছেন ইসলামের অভিভাবক এবং সশস্ত্র বাহিনীর কমান্ডার ইন-চিফ। তার কাউকে ক্ষমা করে দেওয়ারও ক্ষমতা আছে।

 

ভেনেজুয়েলার গুইদোকে ইইউ পার্লামেন্টের স্বীকৃতি

ঢাকা অফিস ॥ ভেনেজুয়েলার স্বঘোষিত অর্ন্তবর্তী প্রেসিডেন্ট হুয়ান গুইদোকে কার্যত রাষ্ট্রের প্রধান হিসাবে স্বীকৃতি দিয়েছে ইউরোপীয় পার্লামেন্ট। বৃহস্পতিবার এ স্বীকৃতিতে ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোর ওপর আন্তর্জাতিক চাপ আরো বাড়ল। গুইদোকে স্বীকৃতি দিতে ইউরোপীয় পার্লামেন্ট ব্রাসেলসে এক বিশেষ অধিবেশনে ভোটাভুটি করেছে। পক্ষে পড়েছে ৪২৯ ভোট। বিপক্ষে পড়েছে  ১০৪ ভোট। ৮৮ জন ভোটদানে বিরত ছিল। ভেনেজুয়েলায় নতুন করে একটি অবাধ, স্বচ্ছ ও বিশ্বাসযোগ্য প্রেসিডেন্ট নির্বাচন না হওয়া পর্যন্ত গুইদোকেই দেশটির ‘একমাত্র  বৈধ অর্ন্তবর্তী প্রেসিডেন্ট’ হিসাবে স্বীকৃতি দিতে ইউরোপীয় ইউনিয়নের ২৮টি সদস্য দেশকে এক বিবৃতিতে আহ্বানও জানিয়েছে ইউরোপীয় পার্লামেন্ট। যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, জার্মানি, এবং স্পেন গত শনিবারই আল্টিমেটাম দিয়ে বলেছে, ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো ৮ দিনের মধ্যে নির্বাচন না দিলে তারা গুইদোকেই স্বীকৃতি দেবে। তবে সামগ্রিকভাবে ইইউ’র সব দেশ একযোগে এ নতুন নির্বাচনের কোনো সময়সীমা দেয়নি। ওদিকে, মাদুরো নতুন নির্বাচনের আল্টিমেটাম প্রত্যাখ্যান করেছেন। তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নীতির পথে হাঁটার জন্য ইইউ নেতাদের নিন্দাও করেছেন। ইউরোপীয় পার্লামেন্টের বৈদেশিক নীতি পরিচালনার কোনো এখতিয়ার না থাকলেও তারা মানবাধিকারের রক্ষক হিসাবে ভূমিকা পালনে উদ্যোগী। স্পেনের মধ্য-ডান ইইউ আইনপ্রণেতা এস্তেবান গঞ্জালেজ পনস এক বিবৃতিতে বলেছেন, “ভেনেজুয়েলার রাস্তায় যারা বিক্ষোভ করছে তারা ইউরোপীয় নয়। কিন্তু তারা সেই একই মূল্যবোধের জন্য লড়ছে যার জন্য আমরা লড়াই করি।” ভেনেজুয়েলায় গত ২৩ জানুয়ারি চলমান সরকারবিরোধী বিক্ষোভের মাঝে বিরোধীদলীয় নেতা হুয়ান গুইদো নিজেকে ‘অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট’ ঘোষণা করেন। এর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই তাকে স্বীকৃতি দেয় যুক্তরাষ্ট্রসহ বহু দেশ। ভেনেজুয়েলায় গত বছরের ভোটে মাদুরো জয়লাভ করলেও কারচুপির অভিযোগে দেশটির বিরোধীদল ওই ভোট বয়কট করে। আন্তর্জাতিক অঙ্গনও ভোটের স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে আবারও নির্বাচন আয়োজনের আহ্বান জানায়। ওই আহ্বান উপেক্ষা করেই গত মাসে দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট হিসাবে শপথ নেন মাদুরো।

 

গ্রাহক সেবায় ওয়ান স্টপ চালু করেছে ওজোপাডিকো লি: কুষ্টিয়া

সরকারের বিদ্যুৎ সফলতার সুফল গ্রহকের ঘরে পৌঁছে দিতে ওয়ান স্টপ সার্ভিস চালু করেছে পশ্চিমাঞ্চল বিদ্যুৎ বিতরণ কর্তৃপক্ষ ওজোপাডিকো লি: কুষ্টিয়া-১। এলক্ষে একস্থানে সেবা প্রদানের সকল আয়োজন সম্পন্ন  করে ওজোপাডিকো লি: খুলনা বিভাগীয় ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো: শফিক উদ্দিন আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। বৃহস্পতিবার দুপুর আড়াইটায় ওজোপাডিকো লি: কুষ্টিয়ার নির্বাহী প্রকৌশল কার্যালয়ের ১২৪ নং কক্ষে এক স্থানে গ্রাহক সেবা কেন্দ্র চালু হয়। এক সময়ের আপাদমস্তক অব্যবস্থাপনা ও অনিয়ম গ্রস্ত বিদ্যুৎ অফিস এভাবে গ্রাহক সেবায় আন্তরিক হবে এমনটা ভাবতেই পারিনি বলে জানালেন শহরের কোর্টপাড়া থেকে নতুন সংযোগ নিতে আসা সাবিনা জামান। বিদ্যুৎ অফিসে এক অবস্থান থেকে হয়রানি ও ভোগান্তি মুক্ত সেবা অকল্পনীয় ছিলো। গ্রাহকদের এমন গুনগত মানসম্মত সেবা দেয়ার এই আয়োজনে সম্পৃক্ত কর্মীরাও এক নতুন অভিজ্ঞতা অর্জনের সুযোগ পেয়ে দারুণভাবে খুশি বলে জানালেন সেবাদানরত এক স্থানে সেবা কার্যক্রম কক্ষে দায়িত্বপালনরত উপ-সহকারী প্রকৌশলী আনোয়ারুল ইসলাম। শহরের আমলাপাড়া থেকে ইব্রাহিম খাঁ নামের গ্রাহক এসেছিলেন মিটার পরিবর্তনের আবেদন নিয়ে। তিনি বলেন, আমার বাড়িতে ২০০৪ সালে প্রথম বিদ্যুৎ সংযোগ নেয়ার জন্য ঘুষ দিতে হয়েছিলো-৫ হাজার টাকা। তিন মাস পর সংযোগ  পেয়েছিলাম। এখন বিদ্যুৎ অফিসের এক কক্ষের সেবায় টাকা পয়সা ছাড়াই ২০মিনিটের মধ্যেই কাজ শেষ করে দিলেন। কুষ্টিয়া পৌর ও শহর এলাকার প্রায় ৬০হাজার বিদ্যুৎ গ্রাহকের নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সেবা নিশ্চিত করতে ৩টি উপকেন্দ্রে ৭০ কেভিএ ক্ষমতা সম্পন্ন বিতরণ কেন্দ্র রয়েছে। এছাড়া জরুরী ক্ষেত্রে আপদকালীন ব্যাকআপের ব্যবস্থাও রাখা আছে। ওজোপাডিকোলি: কুষ্টিয়া-১র বিদ্যুৎ বিতরনে গ্রাহকের গুনগত মানসম্মত নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সেবা নিশ্চিতে সক্ষমতায় ইতোমধ্যে ৩বার গ্রাহক সেবায় দেশসেরা শ্রেষ্ঠত্বের পুরষ্কার পেয়েছে। এই ধারাকে অব্যহত রাখতে ৩ প্রকৌশলী ও ৫জন উপ-সহকারী প্রকৌশলীসহ ৫৫ জনের বিশাল কর্মী বাহিনীর কর্মপরিকল্পনাও ঢেলে সাজানো হয়েছে বলে জানালেন নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুর রহমান। আমাদের ওয়ান স্টপ কর্মসূচীতে  গ্রাহক এসে শুধুমাত্র তার কাঙ্খিত সেবার তথ্য প্রদান করে একই অবস্থানে অপেক্ষা করবেন। মাত্র ৩০মিনিটের মধ্য গ্রাহক তার সেবা নিয়ে চলে যাবেন। অন্যকোন কক্ষে বা টেবিলে গ্রহককে ধর্না দিতে হবে না, তারজন্য সেখানে একজন নির্দিষ্ট রানার দায়িত্ব পালন করবেন। ওজোপাডিকো লি: খুলনার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী মো: শফিক উদ্দিন জানান, বর্তমান সরকার বিদ্যুৎ খাতে সফলতার শীর্ষে পৌঁছেছে। চাহিদা মিটিয়েও অতিরিক্ত বিদ্যুৎ উৎপাদনেও সক্ষমতা অর্জন করেছে। এমন সফলতার সুবিধা নির্বিঘেœ বিদ্যুৎ গ্রাহক পাবে না এটা হতে পারেনা। সে বিষয় বিবেচনায় গ্রাহক পর্যায়েও বিদ্যুৎ সফলতার সহজ অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠায় এক অবস্থানে সেবাদান কর্মসূচী হতে নেয়া হয়েছে। একসময়ের ভোগান্তির অপর নাম বিদ্যুৎ বিভাগকে ঢেলে সাজানোর মধ্যদিয়ে সচ্ছতার ভিত্তিতে দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনামুক্ত সেবা খাত হবে বিদ্যুৎ বিভাগ। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

আন্দোলনের হুশিয়ারী উপজেলাবাসীর

বন্ধ হয়ে যাচ্ছে ১৫৭ বছরের স্বীকৃত আলমডাঙ্গা রেলস্টেশন

শাহ আলম মন্টু ॥ আলমডাঙ্গায় ১৫৭ বছর আগে ১৮৬২ সালে দেশের প্রথম রেলস্টেশনের স্বীকৃতি পেয়েছিল ঐতিহ্য্যবাহী রেলস্টেশন। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে ভারত-বাংলাদেশের সাথে যৌথভাবে যোগাযোগ ব্যবস্থা ও আমদানী রপ্তানীর কারণে আলমডাঙ্গার এই রেল স্টেশন ব্যাপক ভুমিকার পালন করে আসছে। ইতো মধ্যে বিভাগীয় কর্মকর্তাদের নির্দেশে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের স্টেশনগুলোর জনবল নিয়োগ না দিয়েই সেই সকল স্টেশনে আলমডাঙ্গা স্টেশনে কর্মরত লোকজন দিয়ে পরিচালনা করা হচ্ছে বলে স্টেশন সূত্রে জানাগেছে। আলমডাঙ্গার রেলস্টেশনটিই এবার বন্ধ করতে চিঠি দিয়েছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। চিঠির নির্দেশনা অনুযায়ী কেবল টিকিট মাস্টারের কার্যক্রম রেখে বাকি কর্মকর্তা-কর্মচারিদের প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। এতে বন্ধ হয়ে গেছে আপ-ডাউনের পাখা ওঠানামা। জ্বলছে না আপ-ডাউনের কোনো বাতি। ট্রেন আসা-যাওয়ার তদারকিতে থাকছে না কেউ। তবে কোলকাতা টু ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা ট্রেন ও মালবাহী অবিরাম চলাচলের কারণে সিগন্যালের কোন প্রকার সংকেত না পাওয়ায় ভয়ানক দুর্ঘটনার শিকার হওয়ার আশংকা প্রকাশ করেছে স্থানীয়রা। আলমডাঙ্গায় দায়িত্বরত স্টেশন মাস্টার মিন্টু মিয়া জানান, গত কয়েক মাস পূর্ব থেকে আলমডাঙ্গা স্টেশন থেকে সকল কর্মকর্তাদের প্রত্যাহার করে দেশের বিভিন্ন স্টেশনে দায়িত্ব প্রদানের নির্দেশের আভাস চলে আসছিলো। গত ২৯ জানুয়ারি রেলস্টেশনের কার্যক্রম বন্ধ করতে বিভাগীয় নির্দেশনা ফোনের মাধ্যমে আলমডাঙ্গা স্টেশনে চিঠি এসে পৌঁছেছে। চিঠিতে বলা হয়েছে, শুধু টিকেট মাস্টারের কার্যক্রম চালু থাকবে। ট্রেন আসা-যাওয়ার তদারকিতে কেউ থাকবে না। স্টেশন মাস্টার জানান, এখানকার সাত জন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে অন্যত্র স্টেশনে বদলি করা হয়েছে। চিঠি পাওয়ার পর থেকেই টিকেট কাউন্টার ছাড়া বন্ধ হয়ে গেছে অন্যান্য কার্যক্রম।  কি কারনে আলমডাঙ্গা স্টেশন বন্ধ করা হলো তা জানার জন্য বিভাগীয় পাকশী রেল কর্মকর্তাদের নিকট ফোনে জানতে চাইলে কেউই সঠিক কারন জানাতে পারেন নি। তবে সঠিক কি কারণে বন্ধ করা হচ্ছে স্টেশনটি তার অফিসের কাগজপত্র দেখে তারা বলতে পারবেন।

এ ব্যাপারে স্থানীয় এমপি সোলায়মান হক জোয়াদ্দার ছেলুন জানান, নতুন রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজনের সাথে ফোনে কথা বলা হয়েছে। তিনি আলমডাঙ্গা রেল স্টেশনের কার্যক্রম চলমান রাখতে আশ্বাস প্রদান করেছে। তিনি আরো বলেন, দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের স্টেশনে কর্মকর্তা সংকটের কারণেই আলমডাঙ্গা স্টেশন থেকে অনেকেই প্রত্যাহার করে অন্যত্র স্টেশনে যোগদান করা হয়েছে। তবে এই সকল স্টেশনে দ্রুত নিয়োগ দেওয়া হবে এরই মধ্যে আলমডাঙ্গা রেল স্টেশনের কার্যক্রম সচল রাখা হবে। স্থানীয়রা জোর দাবি করে বলেন, দ্রুত আলমডাঙ্গা স্টেশনের সকল কার্যক্রম অব্যাহত না করলে উপজেলায় বৃহত্তম আন্দোলন গড়ে তুলবো।

নেতিবাচক রাজনীতির কারণে বিএনপি’র জনপ্রিয়তা তলানিতে – তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ বিএনপিকে ইতিবাচক রাজনীতি করার আহ্বান জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘নেতিবাচক রাজনীতির কারণে বিএনপি’র জনপ্রিয়তা এখন তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে। বিগত নির্বাচনেই বিএনপি তা প্রমাণ পেয়েছে’। প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে চা চক্রে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে ঐক্যফ্রন্টের চিঠি দেওয়ার সমালোচনা করেন তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘তাদের না যাওয়া অত্যন্ত স্বাভাবিক, কারণ যাদের দুয়ারে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে ১০ মিনিট দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। প্রধানমন্ত্রী দুয়ারে দাঁড়িয়ে থাকলেও যাদের দুয়ার খোলে না, তারা প্রধানমন্ত্রীর চা-চক্রে যাবেন না এটা অত্যন্ত স্বাভাবিক’। ‘কোকোর মৃত্যুর পর প্রধানমন্ত্রী বিএনপি’র কার্যালয়ের সামনে গিয়ে (যেখানে বেগম খালেদা জিয়া অবস্থান করছিলেন) সেখানে প্রধানমন্ত্রী ১০ মিনিট দাঁড়িয়ে ছিলেন, ‘দুয়ার খোলে নাই’ স্মরণ করে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘যে দলের নেত্রী নিজের জন্মের তারিখ বদলে দিয়ে ১৫ আগস্ট হত্যাকান্ডকে উপহাস করার জন্য, হত্যাকারীদের উৎসাহিত করার জন্য কেক কাটেন তারা প্রধানমন্ত্রীর চা চক্রে যাবেন না এটাই খুব স্বাভাবিক’। বিএনপি’র উদ্দেশে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আসুন আমরা সবাই মিলে দেশটাকে এগিয়ে নিয়ে যাই। আমরা হাত প্রসারিত করেছি আপনারাও আপনাদের হাত প্রসারিত করুন। তাহলে আপনাদের রাজনীতি বাঁচবে, বিএনপি টিকবে’। গতকাল শুক্রবার বিকেলে চট্টগ্রাম মহানগরীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে সদ্য প্রয়াত উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নূরুল আলম চৌধুরীর শোকসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে এ সকল কথা বলেন তিনি। চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত এই সভায় সভাপতিত্ব করেন মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী। সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাবেক গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি, ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুছ সালাম, ফটিকছড়ি থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী প্রমুখ। প্রয়াত উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নূরুল আলম চৌধুরী প্রসঙ্গে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘তিনি রাজনীতিকে ব্রত হিসেবে নিয়েছিলেন। তিনি মাত্র ২৭ বছর বয়সে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে সংসদ সদস্য হয়েছিলেন। তিনি ছিলেন নেতা-কর্মীদের মধ্যে জনপ্রিয় নেতা। তিনি নেতাকর্মী এবং সাধারণ মানুষকে উদ্বুদ্ধ করতেন তার বক্তব্যের মাধ্যমে। নূরুল আলমের মৃত্যুর মাধ্যমে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ একজন নিবেদিতপ্রাণ রাজনীতিবিদকে হারিয়েছেন। এই ক্ষতি পূরণ হওয়ার নয়’।

মিরপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন

ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আবুল কাশেম জোয়ার্দ্দারের গনসংযোগ

ভেড়ামারা অফিস ॥ গতকাল শুক্রবার সকাল থেকেই কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আবুল কাশেম জোয়ার্দ্দার গনসংযোগের মাধ্যমে এলাকার সাধারণ জনগণের মন জুগিয়েছেন। আসন্ন উপজেলা-১৯ নির্বাচনে তৃণমূল নেতাকর্মীদের ভোটে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপজেলা পর্যায়ে দলীয় প্রার্থী নির্বাচনে ব্যাপক ভোটে প্রথম বিজয়ী ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আবুল কাশেম জোয়ার্দ্দার বিজয়ী হবার পরেও থেমে নেই তার নির্বাচনী প্রচার প্রচারণা এবং এলাকায় ব্যাপক গনসংযোগ অব্যাহত রেখেছেন। গতকাল শুক্রবার উপজেলার তালবাড়িয়া, বহলবাড়িয়াসহ বিভিন্ন এলাকায়  ব্যাপক গনসংযোগ করেন তিনি। গনসংযোগ কালে তার সফরসঙ্গী ছিলেন, উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সোহাগ আহম্মেদ, সহ-সম্পাদক আব্দুল কুদ্দুস, তালবাড়িয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি শরিফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মোঃ টনি মন্ডল, ফুলবাড়িয়া ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক মাসুম সর্দ্দার, যুগ্ম আহবায়ক জিয়াউল ইসলাম জিয়া (মেম্বার), যুবলীগ নেতা আব্দুল¬াহ, ছানা, মাসুম, শফিকুল, আশরাফুলসহ অনেক নেতৃবৃন্দ। এসময় সাধারণ জনগন আবুল কাশেম জোয়ার্দ্দারকে ব্যাপক ভোট বিপ¬বের মাধ্যমে বিজয়ী করবেন বলে মত প্রকাশ করেন।

সংসদে না এলে বড় ভুল করবে বিএনপি – কাদের

ঢাকা অফিস ॥ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির নির্বাচিত প্রতিনিধিরা শপথ না নিলে বড় ভুল করবে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, বিএনপি যদি সংসদ বর্জন করে, তা হলে তারা আরও বড় ভুল করবে। দেশের মতো বিদেশের বন্ধুদের থেকেও বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে দলটি। গতকাল শুক্রবার রাজধানীর ধানমন্ডির আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। বিএনপির সংসদে আসার পক্ষে যুক্তি তুলে ধরে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপি যদি অগণতান্ত্রিক মানসিকতা দেখায়, তা হলে তা গণতন্ত্র ও তাদের জন্য অস্তিত্ব সংকটের কারণ হবে। তাদের ৮ সংসদ সদস্য যদি সংসদে জোরালো ভাষায় যুক্তিতর্ক দিয়ে কথা বলেন, তা হলে সংসদের ভেতরেও তারা আন্দোলন গড়ে তুলতে পারেন। প্রধানমন্ত্রীর চা-চক্রে ঐক্যফ্রন্টের না যাওয়ার সিদ্ধান্ত তাদের নেতিবাচক রাজনীতির বহির্প্রকাশ বলে মন্তব্য ওবায়দুল কাদেরের।

তিনি বলেন, আন্তরিকতা নিয়ে দেশ ও গণতন্ত্রের স্বার্থে দলগুলোকে চা-চক্রে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। সেখানে না যাওয়া নেতিবাচক রাজনীতির বহিপ্রকাশ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ-ডাকসু নির্বাচন প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ছাত্র সংগঠনগুলোর প্রতি অনুরোধ তারা যেন বাধা তৈরি না করে ভোটে অংশ নেয়।

৫ দিনেও অপহৃত ছাত্রী উদ্ধার হয়নি

অপহরনকারীর বাবা আটক

ভেড়ামারায় ৯ম শ্রেনীর ছাত্রী অপহরণ

আল-মাহাদী ॥ কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা সরকারি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেনীর ছাত্রী ফাতেমা আক্তার জুইকে স্কুলে যাওয়ার পথে তাকে অপহরন করা হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ অপহরনকারীর বাবা রাইজ উদ্দিনকে আটক করেছে। শুক্রবার পর্যন্ত গত ৫ দিনেও অপহৃত স্কুল ছাত্রীকে পুলিশ উদ্ধার করতে পারেনি। ভেড়ামারা থানা ও ছাত্রী’র পিতা রাসেল এর লিখিত অভিযোগে সূত্রে জানা গেছে, গত ২৮ই জানুয়ারী’১৯ বেলা সাড়ে ১১টার সময় ভেড়ামারা চাঁদগ্রাম এলাকার রাসেল এর মেয়ে নবম শ্রেনীর ছাত্রী ফাতেমা আক্তার জুই (১৬) নিজ বাড়ি থেকে ভেড়ামারা সরকারি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে রওনা দেয়। পথেমধ্যে একই এলাকার রাইজ উদ্দিনের ছেলে রুহানের নেতৃত্বে একদল অপহরনকারীরা তাকে অপহরন করে নিয়ে যায়। গত ৫ দিনেও অপহৃত স্কুল ছাত্রীকে পুলিশ উদ্ধার করতে পারেনি। এ ঘটনায় পুলিশ অপহরনকারীর বাবা রাইজ উদ্দিনকে আটক করেছে। ভেড়ামারা থানার জিডি নং-১১৫৫। তাং-২৯-০১-১৯ ইং। ভেড়ামারা থানার অফিসার ইনচার্জ খন্দকার শামিম উদ্দিন জানান, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রাইজ উদ্দিনকে পুলিশ আটক করেছে। ফাতেমা আক্তার জুইকে উদ্ধারের জন্য পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

 

শুরু হল একুশে বইমেলা

কুষ্টিয়ার কৃতিসন্তান দীপু মাহমুদের আড়াল থেকে তুলে আনা ইতিহাসের বিস্ময় উপন্যাস “আলমপনা” প্রকাশ

নিজ সংবাদ ॥ শুরু হলো মাসব্যাপী ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলা’। গতকাল শুক্রবার বিকালে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলার’ উদ্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাজধানীর বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণ ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এ মেলার পরিসর এবার আরও বেড়েছে। বেড়েছে বইয়ের স্টল নিয়ে বসা প্রকাশনা সংস্থার সংখ্যা। এবারের গ্রন্থমেলার প্রতিপাদ্য ঠিক হয়েছে ‘বিজয়: ১৯৫২ থেকে ১৯৭১ নবপর্যায়’। এবারের বই মেলায় কুষ্টিয়ার কৃতিসন্তান দীপু মাহমুদের আড়াল থেকে তুলে আনা ইতিহাসের বিস্ময় উপন্যাস “আলমপনা” প্রকাশ পেয়েছে। উপন্যাসটি প্রকাশ করেছে পার্ল প্রকাশনা।

বই পরিচিতি : আলমপনা উপন্যাসের অন্যতম প্রধান চরিত্র ইতিহাসে আড়ালে থেকে যাওয়া নবাব সিরাজউদদৌলার পুত্র জমিদার যুগল কিশোর রায় চৌধুরী। তিনি মৃত্যুকালে পুত্র কৃষ্ণনাথ রায় চৌধুরীর কাছে নিজ পরিচয় জানিয়ে যান এবং তার মরদেহ দাহ না করে কবরে সমাহিত করার জন্য বলেন। জমিদার যুগলকিশোর রায় চৌধুরীর মা হীরা। নবাব সিরাজউদৌলার সঙ্গে বিয়ের পর তার নাম হয় আলেয়া। নবাব আলিবর্দি খান নিজে এই বিয়ের ব্যবস্থা করেন। আলমপনা নবাব সিরাজউদদৌলা ও তাঁর পুত্র জমিদার যুগলকিশোর রায় চৌধুরীর দেশপ্রেম ও সাহসের কাহিনি। আলমপনা ইতিহাসের দুই নায়কের জীবনে ঘটে যাওয়া এক করুণ আখ্যান।

লেখক দীপু মাহমুদ। জন্ম ১৯৬৫ সালের ২৫  মে। শৈশব ও বাল্যকাল কেটেছে বৃহত্তর কুষ্টিয়ার চুয়াডাঙ্গা জেলার হাট বোয়ালিয়া গ্রামে। বেড়ে ওঠা স্নেহময়ী, কালিশংকরপুর, কুষ্টিয়া। পড়াশোনা করেছেন কুষ্টিয়া জিলা স্কুল, কুষ্টিয়া সরকারি কলেজ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ও রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়, কলকাতায়। আহছানউল্লা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শিক্ষা বিষয়ে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করেছেন। পিএইচডি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের আমেরিকান ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটিতে। উপন্যাস, ছোটগল্প, সায়েন্স ফিকশন, শিশু-কিশোর সাহিত্য, কবিতা, নাটক, মুক্তিযুদ্ধ গবেষণা, প্রবন্ধ সাহিত্যের বিভিন্ন শাখায় তিনি সক্রিয়। তার প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা আশি। লেখালেখির স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি অগ্রণী ব্যাংক-শিশু একাডেমী শিশুসাহিত্য পুরস্কার, সায়েন্স ফিকশন সাহিত্য পুরস্কার, এম নুরুল কাদের শিশুসাহিত্য পুরস্কার, শিশুসাহিত্যিক মোহাম্মদ নাসির আলী স্বর্ণপদক, আনন্দ আলো শিশুসাহিত্য পুরস্কার, দেশ পান্ডুলিপি পুরস্কারসহ নানা পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। পেয়েছেন সম্মাননা। স্ত্রী রূপা মাহমুদ, যমজ দুই পুত্রসন্তান খালিদ বিন মাহমুদ ও গালিব বিন মাহমুদ। যাদের নিয়ে দীপু মাহমুদের লেখালেখির নিজস্ব ভুবন।

কুষ্টিয়া শহর শ্রমিকলীগের উদ্দ্যোগে প্রয়াত শ্রমিকলীগ নেতা এস এম নূরুউদ্দিন স্মরণে সভা ও দোয়া মহাফিল

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া শহর শ্রমিকলীগের উদ্দ্যোগে প্রয়াত শ্রমিকলীগ নেতা  এস এম নূরুউদ্দিন স্মরণে সভা ও দোয়া মহাফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শুক্রবার বাদ মাগরিব মিলপাড়াস্থ কুষ্টিয়া জেলা মহিলা শ্রমিকলীগের কার্যালয়ের  সামনে অনুষ্ঠিত স্মরণ সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন শহর শ্রমিকলীগের সভাপতি দেওয়ান মাসুদুর রহমান স্বপন।

স্মরণ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা জাতীয় শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মোঃ আমজাদ আলী খান। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা মহিলা শ্রমিকলীগের সাধারন সম্পাদক মেহেরুন্নছা, জেলা শ্রমিকলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক মতিউর রহমান, হামিদুল ইসলাম ও মো পলাশ মিয়া, সহ-সাধারন সম্পাদক বাদশা আলমগীর,  সাংগঠনিক সম্পাদক তরিকুল হাসান মিন্টু, প্রচার সম্পাদক  শংকর বিশ্বাস, ক্রীড়া সম্পাদক এনামুল হক, সহ-প্রচার সম্পাদক আঃ রশিদ। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন  প্রয়াত শ্রমিকলীগ নেতা নুরুউদ্দিনের মেঝ ভাই আত্তার হোসেন  ও তাঁর ছেলে  জুবায়ের ইবনেনুর লিকন  প্রধান অতিথির বক্তব্যে আমজাদ আলী খান বলেন- নুরুউদ্দিন শ্রমিকলীগের বিভিন্ন আন্দোলন সগ্রামে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছেন। তিনি দৈনিক আন্দোলনের বাজার পত্রিকায় দায়িত্বশীল পদে চাকুরীও করেছেন। এরপর তিনি কুষ্টিয়া পৌরসভার কমর্কতা হিসেবে সততার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। এস এম নুুরুদ্দিন চাকুরী ও রাজনীতির পাশাপাশি সমাজিক ও সংস্কৃতি অঙ্গনেও ভুমিকা রেখেছেন। তিনি  লাহিনীপাড়া মীর মশারফ হোসেন হাইস্কুলের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, মীর মশারফ হোসেন স্মৃতি পাঠাগার সংঘের সাধারন সম্পাদক, সোনার বাংলা জামে মসজিদ কালিশংকরপুরের সহ-সভাপতি, শিল্পকলা একাডেমী সদস্য, মুক্তিযোদ্ধা সাংস্কৃতিক কমান্ডের সদস্য, পরিমল থিয়োটারের নাট্য গোস্টির সদস্য ছিলেন। সাহিত্য অঙ্গনেও তার ছিল ব্যাপক পদচারণা।  তাঁর লেখা বই “মানুষ হও ” ব্যাপক সমাদৃত হয়েছে। স্মরণ সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন সমাজের বিভিন্ন পেশাজীবি মানুষ, গণপূত বিভাগ, ডাক বিভাগ, জিকে ১৮৮৮ নেতারা, মটর শ্রমিক, ইজিবাইক, ওয়ার্ড শ্রমিকলীগের নেতৃবৃন্দ।  দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন মিল লাইন জামে মসজিদের  পেশ ইমাম হাফেজ কারী মওলানা মিজানুর রহমান খান।

একজন সম্পাদককে হত্যার পরিকল্পনা ছিল আনসারুল্লাহর জঙ্গিদের – র‌্যাব

ঢাকা অফিস ॥ রাজধানীর উত্তরা থেকে গ্রেপ্তার নিষিদ্ধ জঙ্গি দল আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের চার সদস্য দেশের একটি জাতীয় দৈনিকের সম্পাদককে হত্যার পরিকল্পনা করছিল বলে জানিয়েছে র‌্যাব। তাদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব বলছে, আনসারুল্লাহর শীর্ষ নেতা জসিমউদ্দিন রহমানীকে মুক্ত করতে প্রয়োজনে কারাগারে হামলার প্রস্তুতিও নিচ্ছে সংগঠনটি। র‌্যাব সদরদপ্তরের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান জানান, বৃহস্পতিবার রাত ২টার দিকে উত্তরা এলাকায় অভিযান চালিয়ে আনসারুল্লাহ বাংলাটিমের ওই চার সদস্যকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব-১ এর একটি দল। গ্রেপ্তার চারজন হলেন, মো. শাহরিয়ার নাফিস ওরফে আম্মার হোসেন (২০), রাসেল ওরফে সাজেদুল ইসলাম গিফারী (২৪), মো. রবিউল ইসলাম ওরফে নুরুল ইসলাম (২৪) ও মো. আব্দুল মালেক (৩১)। তাদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে এবং র‌্যাবের অনুসন্ধানে পাওয়া বিভিন্ন তথ্য শুক্রবার কারওয়ান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে এক ব্রিফিংয়ে তুলে ধরেন মুফতি মাহমুদ খান। তিনি বলেন, একটি জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত এক লেখায় বিয়ে সংক্রান্ত হাদিস নিয়ে মন্তব্যের জন্য ওই পত্রিকার সম্পাদককে হত্যার পরিকল্পনা করে আনসারুল্লাহর ওই চার সদস্য। “ওই পত্রিকায় গত বছরের জুলাই মাসে একটি লেখা প্রকাশিত হয়। তারা (আনসারুল্লাহ বাংলা টিম) মনে করে, ওই লেখার দায় দায়িত্ব সম্পাদকের উপরই পড়ে।তবে পরিকল্পনা বাস্তবায়নের আগেই তাদের আটক করা সম্ভব হয়েছে।”

২০১৫ সালে বইমেলার সময় লেখক অভিজিৎ রায় হত্যাসহ বেশ কয়েকটি জঙ্গি হামলা ও হত্যার পেছনে আনসারুল্লাহ বাংলা টিম জড়িত বলে তদন্ত সংশ্লিষ্টদের দাবি। ওই বছর মে মাসে সরকার এ জঙ্গি দলটি নিষিদ্ধ ঘোষণা করে। আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের তৎপরতার খবর প্রথম আসে ২০১৩ সালে ব্লগার আহমেদ রাজীব হায়দার হত্যাকান্ডের পর। সংগঠনটির আমির মুফতি জসীমউদ্দীন রাহমানী ওই মামলার রায়ে দোষী সাব্যস্ত হয়ে কারাভোগ করছেন।

আনসারুল্লাহ নিষিদ্ধ হওয়ার পর এ দলের সদস্যরা আনসার আল ইসলাম নামে তৎপরতা শুরু করে বলে সে সময় খবর দেন গোয়েন্দারা। পরে ২০১৭ সালের মার্চে আনসার আল ইসলামকেও সরকার নিষিদ্ধ ঘোষণা করে। র‌্যাব কর্মকর্তা মুফতি মাহমুদ খান বলেন, আনসারুল্লাহর কর্মীরা আবারও দলকে সংগঠিত করার চেষ্টা করছে বলে গ্রেপ্তার চারজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে তারা জানতে পেরেছেন। “তাদের অন্যতম পরিকল্পনা হল, তাদের সংগঠনের প্রধান জসীমউদ্দীন রহমানীকে কারাগার থেকে মুক্ত করা। যদি তারা তাদের নেতাকে আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে মুক্ত না করতে পারে, তাহলে কারাগারে হামলা করে হলেও মুক্ত করবে বলে জানায়।” এই লক্ষ্যে তারা অর্থ সংগ্রহ করছিল এবং সেই টাকার একাংশ গ্রেপ্তার  রাসেলের কাছে জমা ছিল বলে তথ্য দেন মুফতি মাহমুদ খান। র‌্যাবের সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, উত্তরার অভিযানে গ্রেপ্তার চারজনের কাছ থেকে ‘উগ্রবাদী বই’, মোবাইল ফোন ও ধারালো অস্ত্রও উদ্ধার করা হয়।

ঢাকায় ‘আনসারুল্লাহর চার জঙ্গি’ গ্রেপ্তার

ঢাকা অফিস ॥ রাজধানীর উত্তরায় অভিযান চালিয়ে নিষিদ্ধ জঙ্গি দল আনসারুল্লাহ বাংলাটিমের চার সদস্যকে গ্রেপ্তারের কথা জানিয়েছে র‌্যাব। র‌্যাব সদরদপ্তরের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান শুক্রবার সকালে এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার রাত ২টার দিকে র‌্যাব-১ এর একটি দল উত্তরা এলাকায় ওই অভিযান চালায়। তবে গ্রেপ্তারদের নাম পরিচয় তাৎক্ষণিকভাবে প্রকাশ করেননি তিনি। র‌্যাবের এক সংক্ষিপ্ত বার্তায় বলা হয়, “দেশের সম্মানিত ব্যক্তিবর্গ এবং অনলাইন অ্যাক্টিভিস্টদের হত্যা চেষ্টা পরিকল্পনার সাথে যুক্ত জঙ্গি সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলাটিমের চার সক্রিয় সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাব-১।” শুক্রবার ঢাকার কারওয়ানবাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টার এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করা হবে বলে মুফতি মাহমুদ খান জানান। ২০১৩ সালে ব্লগার আহমেদ রাজীব হায়দার হত্যাকান্ডের পর আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের তৎপরতার খবর আসে। সংগঠনটির আমির মুফতি জসীমউদ্দীন রাহমানী ওই মামলার রায়ে দোষী সাব্যস্ত হয়ে কারাভোগ করছেন। দুই বছর পর ২০১৫ সালের মে মাসে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমকে সরকার নিষিদ্ধ ঘোষণা করলে এর সদস্যরা আনসার আল ইসলাম নামে তৎপরতা শুরু করে বলে গোয়েন্দাদের ভাষ্য। তাদের ধারণা, ২০১২ সালের ১৯ জানুয়ারি সেনাবাহিনীতে ব্যর্থ অভ্যুত্থানচেষ্টার পরিকল্পনাকারী মেজর জিয়াউল হক রয়েছেন এ সংগঠনের সঙ্গে। ২০১৭ সালের মার্চে ‘আনসার আল ইসলামের’ সব ধরনের কর্মকা-ও সরকার নিষিদ্ধ ঘোষণা করে। লেখক অভিজিৎ রায় হত্যাসহ বেশ কয়েকটি জঙ্গি হামলা ও হত্যার পেছনে  আনসারুল্লাহ বা আনসার আল ইসলামের সদস্যরাই জড়িত বলে তদন্ত সংশ্লিষ্টদের দাবি।

সদরপুরে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

হাবিবুর রহমান ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে পানিতে ডুবে হুসাইন (০৪) নামের এক শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। গতকাল শুক্রবার বিকেল ৫টার দিকে মিরপুর উপজেলার সদরপুর ইউনিয়নের নওদাআজমপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। হুসাইন উক্ত এলাকার হাবিবুর রহমানের ছেলে। স্থানীয় ইউপি সদস্য আশরাফুল ইসলাম আশা জানান, বিকেলে পাড়ীর পাশের এক গর্তের পানিতে পড়ে যায় হুসাইন। পরে তার পায়ের স্যান্ডেল গর্তের পানিতে ভাসতে দেখে স্থানীয়রা গর্তের পানি থেকে তাকে উদ্ধার করে মিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পথে সে মারা যায়।

কুষ্টিয়ায় শুদ্ধ রবীন্দ্র সংগীত প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধন

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ায় শুদ্ধ রবীন্দ্র সংগীত প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধন করা হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি থেকে কর্মশালার উদ্বোধন করেন কুষ্টিয়া পৌরসভার মেয়র আনোয়ার আলী। পৌরসভার মেয়র আনোয়ার আলী বলেন, নতুন প্রজন্মের কাছে কবি গুরু রবীন্দ্রনাথকে তুলে ধরে শুদ্ধভাবে রবীন্দ্র সংগীত শেখানোর লক্ষ্যেই এ প্রশিক্ষণ কর্মশালার আয়োজন করা হয়েছে। জাতীয় রবীন্দ্র সঙ্গীত সম্মিলন পরিষদ কুষ্টিয়া শাখার আয়োজনে এবং কুষ্টিয়া পৌরসভার সহযোগিতায় শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৩ টায় কুষ্টিয়া শহরস্থ টেগরলজে ৩ মাস ব্যাপী এ কর্মশালা শুরু করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় রবীন্দ্র সঙ্গীত সম্মিলন পরিষদ কুষ্টিয়া শাখার সভাপতি কবি আলম আরা জুঁই, সাধারণ সম্পাদক আকলিমা খাতুন ইরা, ইবি’র বাংলা বিভাগের অধ্যাপক প্রফেসর ড. সরওয়ার মুর্শেদসহ জাতীয় রবীন্দ্র সঙ্গীত সম্মিলন পরিষদ কুষ্টিয়া শাখার অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

ঐক্যফ্রন্ট চা-চক্রে যাচ্ছে না, গণভবনে চিঠি

ঢাকা অফিস ॥ গণভবনে চা-চক্রের আমন্ত্রণের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে অনুষ্ঠানের না যাওয়ার সিদ্ধান্তের কথা চিঠি দিয়ে জানিয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। বিএনপিকে সঙ্গে নিয়ে কামাল হোসেন নেতৃত্বাধীন এ জোটের তিন সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল শুক্রবার দুপুরে গণভবনে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের প্রটোকল কর্মকর্তা-২ খোরশেদ আলমের হাতে ওই চিঠি পৌঁছে দেন। ফ্রন্টের দপ্তর প্রধান জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু, মিডিয়া উইংযের প্রধান জাহাঙ্গীল আলম প্রধান ও সমন্বয় কমিটির সদস্য আজমিরি বেগম ছিলেন ওই প্রতিনিধি দলে। জোটের পক্ষে গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী স্বাক্ষরিত ওই চিঠির শুরুতেই চা-চক্রের আমন্ত্রণের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানানো হয়েছে। এরপর লেখা হয়েছে, “বৃহস্পতিবার জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির সভায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর চা-চক্রের বিষয়টি অন্যতম এজেন্ডা হিসেবে আলোচিত হয়েছে। কমিটি চা-চক্রের অনুষ্ঠান যোগ না দেওয়ার ব্যাপারে সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।” একাদশ সংসদ নির্বাচনের পর ফের সংলাপ নিয়ে আলোচনার মধ্যে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের ২ ফেব্র“য়ারি গণভবনে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু গত ২৬ জানুয়ারি আমন্ত্রণের ওই চিঠি পাওয়ার সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন। কিন্তু ভোটের ফল প্রত্যাখ্যান করে আসা জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট যে ওই আমন্ত্রণে সাড়া দেবে না, সে কথা বিএনপি নেতারা তখনই ইংগিত দিয়েছিলেন। বৃহস্পতিবার বিকালে কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে জোটের স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকে ওই চা-চক্রে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়। শুক্রবার প্রধানমন্ত্রীকে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়, “৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনের নামে প্রহসনের মাধ্যমে গঠিত সরকার কোনোভাবে নৈতিক নয়। সেদিন দেশের মানুষের অন্যতম অধিকার ভোটাধিকার প্রয়োগ করে প্রতিনিধি নির্বাচন করার অধিকারকে হরণ করা হয়েছে। “অন্যদিকে ফ্রন্টের হাজার হাজার নেতা-কর্মী এখনো জেলে আছে। নতুন নতুন মামলায় আরো অসংখ্য নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আহুত চা-চক্রে অংশগ্রহণ করা কেনো ক্রমে সম্ভব নয়।” দশম সংসদ নির্বাচন বর্জনকারী বিএনপির আহ্বানের প্রেক্ষাপটে এবার ভোটের আগে গত অক্টোবরে আকস্মিকভাবেই রাজনৈতিক দলগুলোকে সংলাপে ডাকেন শেখ হাসিনা। বিএনপিসহ ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের তিন দফায় আলোচনার সুযোগ দেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী; তাতে বিভিন্ন আশ্বাস পাওয়ার কথা জানিয়ে ভোটে অংশ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বিএনপি। কিন্তু নির্বাচনে ব্যাপক ভরাডুবির পর কারচুপির অভিযোগ তুলে বিএনপি নেতারা বলছেন, তাদের দেওয়া আশ্বাসের কিছুই বাস্তবায়ন হয়নি। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গত সপ্তাহেও এক অনুষ্ঠানে বলেন, “আমাদের সঙ্গে যে সংলাপ হল, তখন তিনি যে কথাগুলো দিয়েছিলেন, একটাও রাখেননি।” ৩০ ডিসেম্বরের ভোটের ফল প্রত্যাখ্যানের পর ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষনেতা কামাল হোসেন পুর্ননির্বাচনের দাবি তুলে ফের রাজনৈতিক দলগুলোকে সংলাপে ডাকতে প্রধানমন্ত্রীকে আহ্বান জানিয়েছিলেন। সেই দাবি নিয়ে আওয়ামী লীগ থেকে দুই রকম বক্তব্য পাওয়া যাচ্ছিল। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের প্রথমে বলেছিলেন, প্রধানমন্ত্রী আবারও দলগুলোকে সংলাপে ডাকবেন। পরে তিনি কথা ঘুরিয়ে বলেন, সংলাপ আর হবে না, প্রধানমন্ত্রী নিমন্ত্রণ জানাবেন রাজনৈতিক দলগুলোর নেতাদের। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কো চেয়ারম্যান ও প্রধানমন্ত্রী উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আবার একটি সংলাপ করবেন। তবে শেষ পর্যন্ত ২৬ জানুয়ারি ঐক্যফ্রন্টকে পাঠানো চিঠিতে আমন্ত্রণের কথাই বলা হয়। তার আগের দিন জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী বিভেদ ভুলে ‘জাতীয় ঐক্যের’ ডাক দেন, বিএনপির নির্বাচিতদের সংসদে যাওয়ার আহ্বান জানান। তার জবাবে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল তখন বলেন, তারা যেহেতু ভোটের ফলই প্রত্যাখ্যান করেছেন, তাই শপথ নেওয়া কিংবা সংসদে যোগ দেওয়ার ‘প্রশ্নই আসে না’।