সংসদীয় ইতিহাসে প্রথম হিসাব কমিটির সভাপতি বিরোধী দলের

ঢাকা অফিস ॥ বাংলাদেশের সংসদীয় ইতিহাসে প্রথমবারের মতো সরকারি হিসাব সম্পর্কিত কমিটির সভাপতি করা হয়েছে বিরোধী দল থেকে। জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য রুস্তম আলী ফরাজী এই দায়িত্ব পেয়েছেন। সংসদ নেতার পক্ষে প্রধান হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী গতকাল রোববারের অধিবেশনে সরকারি হিসাব ছাড়া আরও নয়টি কমিটি গঠনের প্রস্তাব করেন। পরে প্রস্তাবগুলো ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া ভোটে দিলে তা কণ্ঠভোটে পাস হয়। এ নিয়ে মোট ৩৪টি সংসদীয় কমিটি গঠন করা হল। এই কমিটির সাবেক সভাপতি মহিউদ্দিন খান আলমগীরকে এবার কমিটির সদস্য করা হয়েছে। কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলেন- আবুল কালাম আজাদ, আব্দুস শহীদ, আফসারুল আমিন, শহীদুজ্জামান সরকার, র আ ম উবায়দুল মোক্তাদির চৌধুরী, সালমান এফ রহমান, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, জহিরুল হক ভূইয়া মোহন, মনজুর হোসেন, আহসানুল ইসলাম টিটু ও মোস্তফা লুৎফুল্লাহকে। সংবিধানে দুটি কমিটির কথা উল্লেখ করা হয়েছে, তার একটি এই সরকারি হিসাব কমিটি। বাজেটের অতিরিক্ত ব্যয় নিরীক্ষাও এই কমিটির কাজ। জাতীয় সংসদের কার্যপ্রণালী বিধি অনুযায়ী, সরকারের বার্ষিক আর্থিক হিসাব পরীক্ষা করা সরকারি হিসাব কমিটির মূল কাজ। এছাড়া সরকারের নির্দিষ্টকরণ হিসাব ও এ সম্পর্কে মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রকের দেওয়া প্রতিবেদন পরীক্ষা করা এবং কোনো অর্থবছরে কোনো কাজের জন্য সংসদে মঞ্জুর হওয়া অর্থের চেয়ে বেশি অর্থ খরচ হলে কী পরিস্থিতিতে এই অতিরিক্ত খরচ হয়েছে, তা পরীক্ষা করা এবং প্রয়োজনীয় সুপারিশ করাও এই কমিটির কাজ। সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি করা হয়েছে এই মন্ত্রণালয়ের সাবেক মন্ত্রী ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেননকে। এই কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ, প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ, সাগুফতা ইয়াসমিন, শিবলি সাদিক, নাসরিন জাহান রতœা, বদরুদ্দোজা মোহাম্মদ ফরহাদ হোসেন ও আ ক ম সরওয়ার জাহান। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় কমিটির সভাপতি হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন এই মন্ত্রণালয়ের সাবেক মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান। অন্য সদস্যরা হলেন- প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন, কাজী কেরামত আলী, ইসমাত আরা সাদেক, মেহের আফরোজ চুমকি, আলী আজম, নজরুল ইসলাম বাবু, শিরীন আখতার, জোয়াহেরুল ইসলাম। সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি করা হয়েছে একাব্বর হোসেনকে। তিনি গত দশম সংসদেও একই দায়িত্বে ছিলেন। এই কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, এনামুল হক, হাসিবুর রহমান স্বপন, আবু জাহির, রেজওয়ান আহাম্মেদ তৌফিক, ছলিম উদ্দিন তরফদার, শেখ সালাউদ্দিন ও সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা। পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় সংসদীয় কমিটির সভাপতি হয়েছেন রমেশ চন্দ সেন। সাবেক এই পানি সম্পদ মন্ত্রী গত সংসদেও একই দায়িত্বে ছিলেন। এই কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক, উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম, আফজাল হোসেন, একরামুল করিম চৌধুরী, সামশুল হক চৌধুরী, নজরুল ইসলাম, ফরিদুল হক খান ও নুরুন্নবী চৌধুরী। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় বিষয়ক কমিটির সভাপতি হয়েছেন এ বি তাজুল ইসলাম। অন্য সদস্যরা হলেন- প্রতিমন্ত্রী মো. এনামুর রহমান, সোলায়মান হক জোয়ার্দার ছেলুন, পঞ্চানন বিশ্বাস, আফতাব উদ্দীন সরকার, মীর মোশতাক আহমেদ রবি, জুয়েল আরেং, মুজিবুর রহমান চৌধুরী ও মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী। বিদ্যুৎ, জ্বালানি  ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি হয়েছেন শহীদুজ্জামান সরকার। গত সংসদে হুইপের দায়িত্বে ছিলেন তিনি। এই কমিটির সদস্যরা হলেন- প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ, শামসুর রহমান শরীফ, আবু জাহির, আলী আজগর, এসএম জগলুল হায়দার, নুরুল ইসলাম তালুকদার ও আসলাম হোসেন। অনুমিত হিসাব সম্পর্কিত কমিটির সভাপতি হয়েছেন আব্দুস শহীদ। কমিটির সদস্যরা হলেন- প্রধান হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী, ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন, এবি তাজুল ইসলাম, শেখ ফজলে নূর তাপস, ফজলে হোসেন বাদশা, বজলুল হক হারুন ও আহসান আদিলুর রহমান। যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত কমিটির সভাপতি পদে নিয়োগ পেয়েছেন আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব। কমিটির সদস্য হিসেবে আছেন- ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, বীরেন শিকদার, নাজমুল হাসান, মাহাবুব আরা বেগম গিনি, আব্দুস সালাম মুর্শেদী, জুয়েল আরেং, এ এম নাইমুর রহমান ও মাশরাফি বিন মর্তুজা। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় কমিটির সভাপতি হয়েছেন র আ ম উবায়দুল মোক্তাদির চৌধুরী। কমিটির সদস্য হিসেবে আছেন- প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, আসলামুল হক, কাজী ফিরোজ রশীদ, তানভীর ইমাম, আশেক উল্লাহ রফিক, আনোয়ার হোসেন খান ও শেখ তন্ময়।

আরো খবর...