মিরপুরে শিক্ষা অফিসারকে হাত করে অবৈধভাবে সভাপতি ভাঙ্গলেন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন

মিরপুর অফিস ॥ নিজের স্বার্থ রক্ষায় বিদ্যালয়ের জমিতে অবৈধভাবে স্থাপিত দোকান ঘরকে বাঁচাতে গিয়ে বিদ্যালয়ের একটি ভবন অবৈধভাবে ভেঙ্গে তা হরিলুট করার অভিযোগ পাওয়া গেছে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ও বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নুরুল ইসলামের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে মঙ্গলবার (১৪ মে) বিদ্যালয়ে পরিচালনা পরিষদের জরুরী সভা ডেকে বিষয়টি ধামা চাপা দেওয়ার চেষ্টা করেন নুরুল ইসলাম। জানা যায়, কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়নের কচুয়াদহ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবকাঠামো উন্নয়নের লক্ষে সরকার প্রায় দুই কোটি টাকা ব্যয়ে নতুন ভবনের অনুমোদন দেয়। এরই প্রেক্ষিতে বিদ্যালয়ের একটি পুরাতন ভবন যা ১৯৯৭ সালে প্রতিষ্ঠিত। গত ৪ মে তারিখেও যার ৫টি শ্রেণী কক্ষে পাঠদান করা হয়েছে। ভবনটিকে ঝুকিপূর্ণ, পরিত্যক্ত ও অব্যবহৃত দেখিয়ে গত ১২ মার্চ তারিখে নিলামে দেওয়া হয়। এসময় উক্ত বিদ্যালয়ের সভাপতি নুরুল  ইসলামকে নিলামে সর্বোচ্চ ১৫ হাজার টাকা দরদাতা হিসাবে ভবনটি ভেঙ্গে অপসারণের দায়িত্ব পান। বিদ্যালয়ের দেওয়া তথ্য মতে, ১৯৯৭ সালে এই ভবনটি নির্মান করতে ব্যয় হয় ৪ লক্ষ ২০ হাজার টাকা। যা মাত্র ২১ বছরেরই নষ্ট হয়ে গেছে। এদিকে নিলামে দেওয়া হয় যে ভবন সেটিসহ বিদ্যালয়ের আরেকটি ভবন ভেঙ্গে তা আত্মসাৎ করেছেন নুরুল ইসলাম। এছাড়া নিলামকৃত ভবনের আসবাবপত্র, বৈদ্যুতিক পাখা, জানালা, দরজা, বেঞ্চসহ কিছুই অবৈধভাবে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির অনান্য সদস্যদের না জানিয়ে বিক্রি করে দিয়েছেন ঐ সভাপতি। বিষয়টি জানা জানি হওয়ার পরে মঙ্গলবার (১৪ মে) সকালে জরুরী সভা ডাকা হয়। সেখানে বিষয়টি অন্যান্য সদস্যদের কাছে জানান সভাপতি নুরুল ইসলাম। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সহ-সভাপতি জিয়াউল হক জানান, বিদ্যালয়ের ভবন নিলাম হওয়ার ব্যাপারে আমরা কমিটির অন্য সদস্যরা কেউ কিছু জানি না। শিক্ষা অফিসারের মাধ্যমে সভাপতি এবং ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক চায়েনা খাতুন এ কাজ করেছেন। আর বিদ্যালয়ের একটি ভবন নিলামে ভাঙার কথা থাকলেও সভাপতি দুইটি ভবন ভেঙ্গেছেন। এটা মুলত তার ব্যক্তিগত স্বার্থে এবং  অবৈধ দোকান বাঁচানোর জন্য। তিনি আরো জানান, ভবনটিতে আসবাবপত্রসহ ৮টি বৈদ্যুতিক ফ্যান ছিলো যা বর্তমানে সভাপতির ভাইয়ের পোল্টি ফার্মে কাজে লাগিয়েছেন। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে কচুয়াদহ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক চায়েনা খাতুন জানান, বিদ্যালয় বর্তমানে ছুটি রয়েছে। আমি কিছু জানি না। বিষয়টি সভাপতি এবং শিক্ষা অফিসার জানেন। বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নুরুল ইসলাম জানান, আমি নিলামে ভবন নিতে চাইনি। উপজেলা শিক্ষা অফিসার সিরাজুল ইসলাম জোর করে আমাকে এ কাজ দিয়েছেন। আমি অতিরিক্ত যে ভবন ভেঙ্গেছি সেটা নিলামে নেই। তবে শিক্ষা অফিসার সিরাজুল ইসলাম বলেছেন নিলামে অর্ন্তভূক্ত করে দিবেন। তিনি আরো জানান, বিদ্যালয়ের সীমানায় ৫টি দোকান রয়েছে। যেগুলো স্থানীয়রা অবৈধভাবে দখল করে রেখেছে। আমরা আজকে ম্যানেজিং কমিটির সভায় সেগুলো ভাঙ্গার ব্যপারে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আর ভেঙ্গে ফেলা ভবনের ফ্যানসহ আসবাবপত্র আমি ফেরত দিয়ে দেবো। এদিকে স্থানীয়দের অভিযোগ রয়েছে বিদ্যালয়ের আঙ্গিনায় যে ৫টি দোকান রয়েছে সেগুলো বিদ্যালয়ের সভাপতি নুরুল ইসলামের ছত্রছায়ায় চলে। নিয়মিত সেখান থেকে টাকা নিয়ে থাকে।মিরপুর উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার সেলিনা হক জানান, অভিযোগের ভিত্তিতে আমি সরেজমিনে গিয়ে দেখে তদন্ত করে এসেছি। মুলতঃ বিদ্যালয়ের সীমানায় থাকা অবৈধ দোকান ঘর বাঁচানোর জন্যই বিদ্যালয়ের সভাপতি অন্য ভবনটি ভেঙ্গেছে। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। এদিকে সদ্য বিদায়ী মিরপুর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম যিনি বর্তমানে যশোর সদর উপজেলায় কর্মরত। একাধিকবার তার মুঠোফোনে চেষ্টা করা হলেও তার সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।  সদ্য যোগদানকৃত মিরপুর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম জানান, বিষয়টি আমি শুনেছি। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ ব্যাপারে মিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম জামাল আহম্মেদ জানান, আমি বিষয়টি জানি না। তবে খোঁজ নিয়ে দেখছি। কুষ্টিয়া জেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সানাউল হাবিব জানান, নিলামের বাইরে কোন ভবন ভাঙলে যদি কেউ লিখিত অভিযোগ করেন তাহলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরো খবর...