ভারতীয় ব্যাটিং লাইন আপ নিয়ে উদ্বিগ্ন নন টেন্ডুলকার

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ কিংবদন্তী ক্রিকেটার শচিন টেন্ডুলকার মনে করেন, এই মুহুর্তে ভারতীয় দলের যে ব্যাটিং লাইনআপ তা বাঁ হাতি ব্যাটসম্যানের ঘাটতি পূরণে যথেষ্ট। আসন্ন বিশ্বকাপ সামনে রেখে গণমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এ কথা বলেন। বর্তমান ওয়ানডে ক্রিকেটে ডান-বাঁয়ের ব্যাটিং প্রতিযোগিতার আলাদা একটি গুরুত্ব রয়েছে। কিন্তু দুই বারের চ্যাম্পিয়ন ভারতীয় দলে মাত্র একজন শিখর ধাওয়ান শীর্ষ সারির ন্যাটা ব্যাটসম্যান রয়েছেন। একাদশে জায়গা পেলে স্পিন বোলিং অল রাউন্ডার রবীন্দ্র জাদেজা এই ঘাটতি কিছুটা পূরণ করতে পারেন। তবে শচিন টেন্ডুলকারের দৃঢ় বিশ্বাস, ভারতীয় দলের বর্তমান যে ব্যাটিং সামর্থ্য তা বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যানের ঘাটতি পূরণে যথেষ্ট। ৪৬ বছর বয়সী এই লিটল মাস্টার বলেন, ‘ডান-বাম কম্বিনেশন বোলারদের সমস্যায় ফেলতে পারে। কিন্তু আপনার যদি মানসম্পন্ন ভাল ব্যাটসম্যান থাকে, যেমনটি এখন আমাদের আছে, তাহলে সেটি কোন ব্যাপার নয়। আমাদের দলে এমন কিছু নিখাদ ব্যাটসম্যান আছে যারা প্রতিআক্রমণে দক্ষ।’ রোহিত শর্মা ও ধাওয়ানের অভিজ্ঞ ওপেনিং পার্টনারশীপ এবং ওয়ান ডাউনে অধিনায়ক বিরাট কোহলির অন্তর্ভুক্তিতে ১৯৮৩ ও ২০১১ সালের চ্যাম্পিয়নরা যে কোন ম্যাচেই সেরা। তবে এবার তারা বিশ্বকাপ খেলতে যাচ্ছে চার নম্বর পজিশনে ব্যাটিং সমস্যার সমাধান না করেই। অবশ্য মঙ্গলবার বাংলাদেশের বিপক্ষে অনুশীলন ম্যাচে সেঞ্চুরি করার মাধ্যমে ওই জায়াগার জন্য ফেভারিট হয়ে উঠেছেন কেএল রাহুল। ব্যাটিং অর্ডারে তার পরের অবস্থানে রয়েছেন উইকেট রক্ষক- ব্যাটসম্যান মাহেন্দ্র সিং ধোনি। ৩৪১টি আন্তর্জাতিক ওয়ানডে ম্যাচে অংশ নেয়া এই ক্রিকেটার এবারের বিশ্বকাপে সবচেয়ে অভিজ্ঞ খেলোয়াড়। টেন্ডুলকার বলেন,‘ ২০১১ সালের বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ককে সমসাময়িক ক্রিকেটের সেরা ফিনিশার হিসেবে মনে করা হয়। কারণ উইকেটের পেছনে দাঁড়িয়ে তার দেয়া কাজটা খুবই গুরুত্বপুর্ন। বল কখন থামছে, স্কিড করছে কিংবা বাউন্স করছে, তা সঠিকভাবে জানেন তিনি। তিনি আরো জানেন কোথায় ফাঁকা হয়েছে, এবং কিভাবে সেটি পুরণ করতে হবে। তাই তার সহায়তা ও কাজটা সব সময় গুরুত্বপুর্ন ভুমিকা রাখে।’ অনেক উইকেটরক্ষকই ধোনির মত ভুমিকা রাখার চেস্টা করছে। তবে অভিজ্ঞতার কারণেই তাকে বেশি হিসেব করতে হয়। ভারতীয় এই দলে রয়েছে বিশ্বের শীর্ষ ওডিআই বোলার জসপ্রিত বুমরাহ। স্পিনার কুলদ্বীপ জাদব ও যুজবেন্দ্রা চাহালও বর্তমানে শীর্ষ ১০-এ রয়েছে। সেঞ্চুরির সেঞ্চুরি হাঁকানো একমাত্র ক্রিকেটার টেন্ডুলকার ১৯৯২ সাল থেকে এ পর্যন্ত টানা ছয়টি বিশ্বকাপে অংশ নিয়েছেন। টুর্নামেন্টের ইতিহাসে সর্বাধিক রান ও সেঞ্চুরি হাঁকানোর রেকর্ডটিও এখনো পর্যন্ত তার দখলে। ৫০ ওভারের ক্রিকেটে তৃতীয় বিশ্বকাপ শিরোপা জয়ের জন্য পরিপুর্ন বোলিং সামর্থ্য ভারতের রয়েছে বলে দৃঢ় বিশ্বাস টেন্ডুলকারের। তিনি বলেন, আমাদের রয়েছে ভুবনেশ্বর কুমার, যিনি বল সুইং করাতে পারেন। আছেন মোহাম্মদ সামি, যিনি পিচে বল স্কিড করান। বুমরাহ, যিনি বর্তমানে ওডিআই ফর্মেটে বিশ্বের এক নম্বর বোলার। ২০১১ সালের বিশ্বকাপ জয়ী ভারতীয় দলের এই সদস্য বলেন, আমাদের দলে চাহাল ও কুলদ্বীপের মত স্পিনার রয়েছে। সুতরাং বোলিংয়েও বৈচিত্র রয়েছে। রবীন্দ্র জাদেজা যে কোন পরিস্থিতিকে কঠিন করে দিতে পারেন। দলে হার্ডিক পান্ডিয়া, বিজয় শংকর ও কেদার যাদবের মত সহযোগী বোলারও রয়েছে। সুতরাং আমি বলব, দলের বোলিং আক্রমণও বেশ ভারসাম্যপূর্ণ।

২০১৯ বিশ্বকাপ :

আগের দুটি আসরে ১৪টি দল নিয়ে বিশ্বকাপের আয়োজন হলেও টুর্নামেন্টের মান ধরে রাখার জন্য ফের ১০ দলের ফর্মেটে নিয়ে আসা হয়েছে। তবে এই সিদ্ধান্তের সমালোচনায় মেতে উঠেছে সাবেক খেলোয়াড় ও সহযোগি দেশগুলো। কারণ এর ফলে তারা বিশ্বের শীর্ষ দলগুলোর সঙ্গে খেলার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

শচিন বলেন, ‘আপনি যদি এটিকে বিশ্বকাপ বলেন, তাহলে বিশ্বে দলগুলো সেখানে অংশগ্রহণ করবে। আরো দল যুক্ত করার উপায় আমাদের খুঁজে বের করতে হবে । সেই সঙ্গে খেলার মানও ধরে রাখতে হবে। রাতারাতি এটি সম্ভব হবে না। এর উপায় আমাদের খুঁজে বের করতে হবে। আমি চাই ১০টিরও বেশি দেশ বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করুক। একই সঙ্গে খেলার মান নিয়েও কোন ধরেনর আপোষ করতে চাই না।’

 

 

আরো খবর...