পাঞ্জাবের ধানক্ষেতে আগুনের ছবি বগুড়ার বলে প্রচার – হানিফ

ঢাকা অফিস ॥ ভারতের পাঞ্জাবে ধানক্ষেতে আগুনের ছবি বাংলাদেশের বগুড়ার বলে প্রচার করা হচ্ছে বলে দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ। দাম না পেয়ে ধান নিয়ে কৃষকদের সঙ্কটের মধ্যে টাঙ্গাইলে এক কৃষকের পাকা ধানে আগুন দেওয়ার পর বগুড়াসহ আরও স্থানে এমন ঘটনা ছবি সোশাল মিডিয়ায় আসার প্রেক্ষাপটে এ দাবি করলেন ক্ষমতাসীন দলের এই নেতা। গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকায় এক আলোচনা হানিফ বলেন, “ফেইসবুকে ধানের ক্ষেতে আগুনের ছবি দেওয়া হয়; বলা হয়, বগুড়ায় ধানের ক্ষেতে আগুন দেওয়া হয়েছে। আমরা খবর নিয়েছি বগুড়ায় আগুন দেওয়া হয়নি। ভারতের পাঞ্জাবে ধানক্ষেতে আগুন লেগেছিল। ওই দেশের সরকার সেটা নেভানোর চেষ্টা করেছিল। উদ্দেশ্যমূলকভাবে সেই ছবি বগুড়ায় ধান ক্ষেতে আগুন বলে প্রচার করা হচ্ছে।” উদ্দেশ্যমূলকভাবে সরকারবিরোধী এই উসকানি দেওয়া হচ্ছে দাবি করে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, একইভাবে পাটকল শ্রমিকদেরও উস্কে দেওয়া হচ্ছে। এসবের জন্য বিএনপিকে দায়ী করে হানিফ বলেন, “এর আগে তারা আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে সরকার উৎখাতে ব্যর্থ হয়েছে। এখন এই ধরনের পথ বেছে নিয়েছে।” ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, “শেখ হাসিনার নেতৃত্বে  দেশে যে উন্নয়ন হয়েছে, সেই উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত করতে দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র জনগণ সহ্য করবে না। “আমি আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর কাছে দাবি জানাই, যারা এই ধরনের ঘটনার সাথে জড়িত, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক।” বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক উপ-কমিটি আয়োজিত ‘বাংলাদেশে নারীরর অগ্রযাত্রা ও স্বদেশ গড়ায় বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার ভুমিকা’ শীর্ষক এই আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন দলের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী। তিনি বলেন, “জঙ্গিবাদের সহায়ক শক্তি জামায়াত-বিএনপি। এরা ধর্মকে ব্যবহার করে অধর্মের কাজ করে। খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে জামায়াত কৃষি, শিল্পকে ধ্বংস করেছিল, জঙ্গিবাদের সৃষ্টি করেছিল। শেখ হাসিনা এই জঙ্গিবাদকে সাহসিকতার সঙ্গে মোকাবেলা করেছেন। তারপরও এদের ষড়যন্ত্র থেমে নেই। এদের ব্যাপারে সকলকে সতর্ক থাকতে হবে।” আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক উপ-কমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক সুলতানা শফির সভাপতিত্বে আলোচনা অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ পড়ে শোনান অধ্যাপক আনোয়ার হোসেন। আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, মহিলা বিষয়ক সম্পদক ফজিলাতুন্নেছা ইন্দিরা, সাবেক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সদস্য নুরুল ইসলাম ঠান্ডু অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।

আরো খবর...