ধান উতপাদনে আসছে বৈপ্লবিক পরিবর্তন

কৃষি প্রতিবেদক ॥ বোরো মৌসুমে চাষের উপযোগী ধানের নতুন দুটি জাত উদ্ভাবন করেছে বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি)। বিজ্ঞানীরা নতুন এই দুটি জাতের নাম দিয়েছেন ব্রি ধান-৮৮ ও ব্রি ধান-৮৯। ব্রি ধান-৮৮ নামে নতুন জাতটির ফলন একই মৌসুমের সবচেয়ে জনপ্রিয় ব্রি ধান-২৮’র চেয়ে হেক্টরে আধা টন বেশি। আর ব্রি ধান-৮৯ নামে জাতটির ফলন হবে ব্রি-২৯’র চেয়ে প্রতি হেক্টরে এক টন বেশি। শুধু তাই নয়, উপযুক্ত পরিচর্চা পেলে এই জাতটির ফলন হতে পারে ৯ টনের চেয়েও বেশি। সারাদেশে ব্রি উদ্ভাবিত নতুন দুটি জাত ছড়িয়ে পড়লে ধান উৎপাদনে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা। কৃষি সচিব মোঃ নাসিরুজ্জামানের সভাপতিত্বে গত মঙ্গলবার জাতীয় বীজ বোর্ডের সভায় নতুন এই জাত দুটি অনুমোদন পায়। সভায় বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের (ব্রি) মহাপরিচালক ড. শাহজাহান কবীর এবং বীজ বোর্ড ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের উর্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। ড. শাহজাহান কবীর বলেন, বীজ বোর্ডের সভায় চূড়ান্তভাবে ব্রি ধান-৮৮ ও ব্রি ধান-৮৯ নামে নতুন দুটি জাত অনুমোদন পেয়েছে। এর মধ্যে ব্রি-৮৯ এর ফলন হবে প্রচলিত ব্রি-২৯ এর চেয়ে প্রতি হেক্টরে এক টন বেশি। কোন কোন ক্ষেত্রে জাতটিতে সাড়ে ৮ টন পর্যন্ত ফল পাওয়া গেছে। আর ব্রি ধান-৮৮ এর ফলনও প্রচলিত ব্রি ধান ২৮ এর চেয়ে প্রতি হেক্টরে আধা টন বেশি হবে। উদ্ভাবিত নতুন দুটি জাত দেশের ধান উৎপাদনে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনবে বলে প্রত্যাশা করছেন ড. শাহজাহান কবীর। ব্রি’র উদ্ভিদ প্রজনন বিভাগের প্রধান ও মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. তমাল লতা আদিত্য বলেন, ব্রি ধান-৮৮ টিস্যু কালচার পদ্ধতি উদ্ভাবিত। জাতটিতে রোগ বালাইয়ের প্রকোপ যেমন কম, তেমন ফলনও বেশি। ধান পাকার পরও এর গাছ হেলে পড়ে না, তাই হাওড় অঞ্চলেও জাতটি চাষ করা যাবে। কৃষিজমিতে চাষের ক্ষেত্রে সুবিধা হলো, ধান কাটতে রিপার মেশিন ব্যবহার করা যাবে। ফলে শ্রমিকের সঙ্কটের ভোগান্তি থেকে রেহাই পাবেন চাষিরা। আর ব্রি ধান-৮৯ বন্য প্রজাতির একটি ধানের সঙ্গে সঙ্করায়ণের মাধ্যমে উদ্ভাবন করা হয়েছে। এটি বোরো চাষের একক অঞ্চলে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠতে পারে। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, ব্রি ধান-৮৮ বোরো মৌসুমের স্বল্পমেয়াদী একটি জাত, যা প্রচলিত ব্রি ধান-২৮’র পরিপূরক। এর জীবনকাল ব্রি-২৮’র মতোই। হালকা ঝড়-বৃষ্টিতে ঝরে পড়বে না। এর ফলন ব্রি-২৮’র চেয়ে আধা টন বেশি। ফলন হবে ৬ থেকে ৭ টন। সারাদেশে এর গড় ফলন হবে ৭ টন। ধান পাকার পর ব্রি-২৮’র বীজ পাতা হেলে গেলেও ব্রি-৮৮’র ক্ষেত্রে পাতা খাড়া থাকবে। ধান পাকার পরও গাছ সোজা থাকায় রিপার মেশিন ব্যবহার করা যাবে। যে কারণে ধারণা করা হচ্ছে, হাওড় অঞ্চলে এটি জনপ্রিয় হয়ে উঠবে। এই চালের ভাত হবে ঝরঝরে। বিশেষ করে যেসব অঞ্চলে ব্রি-২৮’র বেশি চাষ হয়, বিশেষ করে খুলনা ও সাতক্ষীরা অঞ্চলের চাষিরা এই জাত চাষ করে সুফল পাবেন। নতুন জাতে রোগ বালাইয়ের প্রকোপ কম। বিজ্ঞানীরা আরও জানান, বোরো মৌসুমের নতুন উদ্ভাবিত ব্রি ধান-৮৯ একই মৌসুমের ব্রি-২৯’র পরিপূরক। নতুন জাতটির ফলন হবে প্রচলিত ব্রি-২৯’র চেয়ে এক টন বেশি। গড়ে যার ফলন হবে ৮ টন। তবে উপযুক্ত পরিচর্চা পেলে জাতটি ৯.৭ টন পর্যন্ত ফলন দিতেও সক্ষম। আর জাতটির জীবনকাল ১৫৪ থেকে ১৫৮ দিন, যা ব্রি-২৯’র চেয়ে ৩ থেকে ৫ দিন কম। সারাদেশেই এটি চাষযোগ্য। এই চালের ভাত হবে ঝরঝরে এবং খেতে সুস্বাদু।

আরো খবর...