দৌলতপুরে এক সংবাদকর্মীর নামে মাদকের মিথ্যা মামলা দেওয়ার অভিযোগ

পুলিশের বিরুদ্ধে তদন্ত 

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে মেহেদী হাসান সাগর নামে এক সংবাদকর্মীর নামে মাদকের মিথ্যা মামলা দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। আর এ অভিযোগের ভিত্তিতে  দৌলতপুর থানার ৩ পুলিশের বিরুদ্ধে আজ শনিবার তদন্ত অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।  দৌলতপুর থানার এস আই সাইফুল ও এএসআই সাহেব আলীসহ ৩ পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কুষ্টিয়া পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এ তদন্ত কাজ অনুষ্ঠিত হবে অভিযোগকারী সূত্র জানিয়েছে। সংবাদ কর্মী মেহেদী হাসান সাগরের অভিযোগ সূত্রে জানাগেছে, গত ৫ জানুয়ারী’১৯ বিকেল ৩টার দিকে মহিষকুন্ডি মাঠপাড়া ছাইতিনতলা জুয়েল ফকিরের বাড়ির পেছনের মাঠে মাটিতে পুঁতে রাখা অবস্থায় ৪০০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করে দৌলতপুর থানার এসআই সাইফুল ও এএসআই সাহেব আলীসহ ৩ পুলিশ। পরে সংবাদ সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে সংবাদকর্মী মেহেদী হাসান সাগরসহ ৬ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করা হয় এবং উদ্ধার করা ৪০০ বোতল ফেনসিডিলের মধ্যে মাত্র ৭১ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার দেখিয়ে আজমত আলীকে এ মামলায় (মামলা নং-১১/১১, তারিখ-০৬/০১/২০১৯ইং) আটক করে আদালতে সোপর্দ করা হয়। মিথ্যা মামলায় সংবাদকর্মী মেহেদী হাসান সাগরকে জড়ানোর কারনে মেহেদী হাসান সাগর ফেনসিডিল আত্মসাৎ ঘটনার সাথে জড়িত ৩ পুলিশের বিরুদ্ধে পুলিশের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দাখিল করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে আজ ৩ পুলিশসহ অভিযোগকারীর অভিযোগটিও তদন্ত করা হবে বলে অভিযোগকারী মেহেদী হাসান সাগর সূত্রে জানাগেছে। এছাড়াও অভিযোগে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, এস আই সাইফুল এ ঘটনার আগে ১৪ ডিসেম্বর’১৮ আজমতকে বিনা কারনে আটক করে ক্রস ফায়ারের ভয় দেখিয়ে তার কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা নিয়ে ৬ পিচ ইয়াবাসহ আদালতে সোপর্দ করে। এদিকে দৌলতপুর থানার এসআই সাইফুল ও এএসআই সাহেব আলীসহ ৩ পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্ত হওয়ার খবর পেয়ে অভিযোগকারীর অভিযুক্তরা মেহেদী হাসান সাগরের বাড়িতে হানা দিয়ে তার স্ত্রী কাজলী খাতুনকে ভয়ভীতি দেখিয়েছে বলে মেহেদী হাসান সাগরের পরিবার সূত্রে জানাগেছে। মিথ্যা মামলায় একজন নিরাপরাধ সংবাদকর্মীর হয়রানির ঘটনায় সাংবাদিকমহল সহ সচেতন মহলে ক্ষোভ ও উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে।

আরো খবর...