দিল্লির সাবেক মুখ্যমন্ত্রী শীলা দীক্ষিতের মৃত্যু

ঢাকা অফিস ॥ ভারতের কংগ্রেস দলীয় বর্ষীয়ান নেত্রী ও দিল্লির সাবেক মুখ্যমন্ত্রী শীলা দীক্ষিত মারা গেছেন। শনিবার দিল্লির বেসরকারি হাসপাতাল এসকোর্টসে স্থানীয় সময় বিকাল ৩টা ৫৫ মিনিটে তার মৃত্যু হয় বলে পরিবারের পক্ষ থেকে নিশ্চিত করা হয়েছে, জানিয়েছেন এনডিটিভি। হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তার মৃত্যু হয়েছে বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছে হাসপাতালটি। তার ৮১ বছর বয়স হয়েছিল। টানা তিন মেয়াদে সবচেয়ে বেশি দিন ধরে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বপালন করেছিলেন তিনি। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি দিল্লির কংগ্রেস দলীয় প্রধান ছিলেন। চলতি বছরের জানুয়ারিতে এ দায়িত্ব নিয়েছিলেন তিনি। দীক্ষিতের মৃত্যু সংবাদে শোকে মুহ্যমান হয়ে পড়েছেন বলে এক টুইটে জানিয়েছেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। বলেছেন, “কংগ্রেসের স্নেহভাজন কন্যা শীলা দীক্ষিত জী-র মৃত্যু সংবাদ শুনে আমি বিধ্বস্ত হয়ে পড়েছি। তার সঙ্গে আমার অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল। গভীর এ দুঃখের সময় তার পরিবার ও দিল্লির নাগরিকদের প্রতি আমার সমবেদনা জানাচ্ছি। তিন মেয়াদে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালে নিঃস্বার্থভাবে দায়িত্বপালন করেছেন তিনি।” এক টুইটে কংগ্রেস দল বলেছে, “শীলা দীক্ষিতের মৃত্যুতে আমরা শোকাহত। আজীবন কংগ্রেসী এই নারী তিন মেয়াদ ধরে মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালে দিল্লির চেহারা বদলে দিয়েছিলেন। তার পরিবার ও বন্ধুদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি আমরা। দুঃখের এ সময়ে তারা শক্তি পান এই কামনা করছি।” ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও শীলা দীক্ষিতের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। এক টুইটে মোদী বলেছেন, “প্রাণবন্ত ও অমায়িক ব্যক্তিত্ব ছিল তার। দিল্লির উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা ছিল তার। তার পরিবার ও সমর্থকদের প্রতি সমবেদনা।” ভারতের প্রেসিডেন্ট রাম নাথ কোবিন্দও তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন। শীলা দীক্ষিত ১৯৯৮ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত টানা ১৫ বছর ধরে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন। তার পর আম আদমি পার্টির অরবিন্দ কেজরিওয়াল দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচিত হন। দীক্ষিতের মৃত্যুতে কেজরিওয়ালও শোক প্রকাশ করেছেন। পাঞ্জাবের কাপুরথালায় জন্ম নেওয়া দীক্ষিত জনমুখি বহু কর্মসূচী বাস্তবায়ন করে খ্যাতি পেয়েছিলেন।

 

আরো খবর...