দর্শনা মুক্তি ক্লিনিকে ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যু, ক্লিনিকে হামলা-ভাংচুর

দামুড়হুদা প্রতিনিধি ॥ চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনার মুক্তি ক্লিনিকে ভুল চিকিৎসায় সালমা খাতুন (৩০) নামে এক প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। গতকাল সোমবার বেলা ১১টার দিকে কুষ্টিয়ায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। সালমা খাতুন দামুড়হুদার ঈশ্বরচন্দ্রপুর গ্রামের নজর আলী স্ত্রী। ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী ওই ক্লিনিকে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর করেছে। পরে ক্লিনিকের ফটকে তালা ঝুলিয়ে দেয়। সালমা খাতুনের স্বামী নজর আলী জানান, প্রসব বেদনা উঠলে স্ত্রীকে রোববার দুপুরে দর্শনা মুক্তি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। বিকেলে সেখানে ডা. সেলিমা আক্তার শিমু সিজারিয়ান করলে ছেলে সন্তানের জন্ম হয়। সিজারের কিছুক্ষণ পরই সালমার পায়ুপথ নিয়ে রক্তক্ষরণ শুরু হয়। পরে চিকিৎসকের পরামর্শে তার শরীরে ৪ ব্যাগ রক্ত দেয়া হয়। অবস্থার আরও অবনতি হলে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ তড়িঘড়ি করে রাত দেড়টার দিকে কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। রাতেই কুষ্টিয়া নিয়ে ভর্তি করার পর সোমবার বেলা ১১টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান সালমা। দামুড়হুদা মডেল থানার ওসি সুকুমার বিশ্বাস জানান, মৃত্যুর খবর গ্রামে পৌঁছলে দুপুরে বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে এলাকাবাসী ও নিহতের স্বজনেরা। তারা ক্লিনিকে হামলা ও ভাংচুর করে। এইদিকে এলাকাবাসী জানান, অযতœ-অবহেলায় ডেলিভারি করতে গিয়ে দর্শনা মুক্তি ক্লিনিকে এর আগেও এই ধরনের অনাকাঙ্খিত দুর্ঘটনা অনেক  ঘটেছে। এ বিষয়ে মুক্তি ক্লিনিকের ডা. সেলিমা আক্তার শিমুর সঙ্গে যোগাযোগ করেও কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

আরো খবর...