ঢাকা উত্তরকে আলোকিত নগরী করার অঙ্গীকার নতুন মেয়রের

ঢাকা অফিস ॥ আগামী এক বছরে ঢাকা উত্তরকে আলোকিত নগরে পরিণত করার অঙ্গীকার জানিয়ে ১০ টি স্বল্প, মধ্যম ও দীর্ঘমেয়াদি লক্ষ্যের কথা তুলে ধরলেন সদ্য নির্বাচিত মেয়র। গতকাল শনিবার দুপুরে রাজধানীর উত্তরায় নিজ বাসায় সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) সদ্যনির্বাচিত মেয়র আতিকুল ইসলাম। এসময় ঢাকা উত্তরের উন্নয়নে নিজের পরিকল্পনা ও উদ্যোগ সফল করতে ১০ টি লক্ষ্য তুলে ধরেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে উত্তর ঢাকার উন্নয়নে কাজ করতে যে দশটি লক্ষ্য তুলে ধরেন সদ্য নির্বাচিত মেয়র তা হলো-পরিবেশ দূষণ রোধ করা, ডিজিটাল প্রযুক্তির মাধ্যমে নগর অ্যাপকে সক্রিয় করা। এছাড়া কর ও লেনদেন ডিজিটালাইজড ও অটোমেটেড করা, উত্তর ঢাকায় বৃক্ষ রোপন, নগর বনায়ন, নগর কৃষির বিস্তার ও বিকাশের লক্ষ্যেও  কাজ করতে চান তিনি।  কালেক্টিভ পদ্ধতিতে মশা নিধনে ক্রাস প্রোগ্রাম নেওয়া, নগরীর ফুটপাত দখলমুক্ত করা, সড়ক নিরাপত্তা ও পরিবহন খাতে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা ও নতুন যুক্ত এলাকার উন্নয়ন পরিকল্পনাও আছে এসব লক্ষ্যের মধ্যে। আতিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘পরিবেশ দূষণ রোধ করা, ডিজিটাল প্রযুক্তির মাধ্যমে নগর অ্যাপকে সক্রিয় করতে চাই। এছাড়া কর ও লেনদেন ডিজিটালাইজড ও অটোমেটেড করতেও চাই।আমাদের একটাই চাওয়া- সুস্থ ও আধুনিক ঢাকা। আর এই চাওয়া পূরণের যাত্রায় দরকার সম্মিলিত অংশগ্রহণ।’ আগামী একবছরের কর্ম-পরিকল্পনা তুলে ধরে মেয়র বলেন, ‘সবাইকে নিয়ে হাতে হাত রেখে কাজ করতে চাই।’ এ সময় উত্তরের ভোটারদের ধন্যবাদ জানান তিনি। ‘সবাই মিলে সবার ঢাকা’- গড়ে তুলতে তার অঙ্গীকারের কথা জানিয়ে আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘ঢাকা শুধু আমার শহর নয়। এ শহর আপনার-আমার সবার। আমাদের সামান্য সচেতনতা আর একটু সহযোগিতায় কেবল এগিয়ে নিতে পারে এই নগরীকে। তাহলে আমরা আমাদের অতি কাঙ্ক্ষিত আধুনিক গতিময় ও প্রগতিশীল ঢাকা গড়ে তুলতে পারব।’ ‘তিনি বলেন, ‘সংসদ সদস্য, রাজনৈতিক দলের নেতাসহ সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করব। আমি জোর দিয়ে বলতে চাই, এটি আপনার বা আমার না। আমরা সবাই মিলে প্রাণের ঢাকার জন্য কাজ করব।’ আগামী একবছরে ঢাকা উত্তরকে আলোকিত নগরে পরিণত করার উদ্যোগের বিষয়েও জানান সদ্য নির্বাচিত মেয়র। বলেন, ‘পরিবেশ দূষণ রোধ করা, ডিজিটাল প্রযুক্তির মাধ্যমে নগর অ্যাপকে সক্রিয় করতে চাই। এছাড়া কর ও লেনদেন ডিজিটালাইজড ও অটোমেটেড করতেও চাই।’ উত্তর ঢাকায় বৃক্ষ রোপন, নগর বনায়ন, নগর কৃষির বিস্তার ও বিকাশে নজর থাকবে বলেও জানান তিনি। প্রতি মহল্লায় উন্মুক্ত পার্ক ও খেলার মাঠ গড়ে তোলার মাধ্যমে সবুজ ঢাকা গড়ে তোলা হবে বলেও অঙ্গীকার করেন আতিকুল। কালেক্টিভ পদ্ধতিতে মশা নিধনে ক্রাস প্রোগ্রাম নেওয়া হবে। এ কাজে সেনানিবাস, বসুন্ধরা আবাসিক, বিমানবন্দর, ডিএমপি ও সিটি করপোরেশনের মধ্যে সমন্বয় আনার চেষ্টা থাকবে। স্বল্প, মধ্যম ও দীর্ঘমেয়াদী কর্মসূচি হিসেবে ঢাকা উত্তরের উন্নয়নকে তিন ভাগে ভাগ করার কথাও জানালেন দায়িত্ব নিতে যাওয়া নতুন মেয়র। নগরীর দখলে থাকা ফুটপাত বাসিন্দাদের কাছে ফিরিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্র“তি জানিয়ে আতিকুল বলেন, সড়ক নিরাপত্তা ও পরিবহন খাতে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা হবে। নতুন যুক্ত এলাকার উন্নয়ন পরিকল্পনাও করা হবে। তিনি বলেন, ‘প্রয়াত মেয়র আনিসুল হকের শুরু করা নগর উন্নয়নের কাজ সম্পন্ন করার প্রতিশ্র“তি ধরে রাখব।’ আগামী বর্ষায় ঢাকাকে জলাবদ্ধতা থেকে রক্ষা করতে প্লাস্টিকের বোতল ও আবর্জনা নির্দিষ্ট জায়গার ফেলতে নগরবাসীর প্রতি  আহ্বানও জানান আতিকুল ইসলাম।

আরো খবর...