জীবনের প্রয়োজনে জৈব কৃষি

কৃষি প্রতিবেদক ॥ বিশ্বে পরিবেশবান্ধব কার্যক্রমের মধ্যে অন্যতম একটি হলো জৈব কৃষি। কেননা পৃথিবীর বুকে নিরাপদ জীবনযাপন, পরিবেশ সংরক্ষণ ও মাটির গুণাগুণ বজায় রাখার জন্য জৈব কৃষি ব্যবস্থার জনপ্রিয়করণ জরুরি। বাংলাদেশের ৯০ শতাংশ কৃষকের কাছে আশির দশকের আগ পর্যন্ত অর্গানিক কৃষি জনপ্রিয় ছিল। তারপর নানা প্রলোভনের ফাঁদে পড়ে কৃষকরা বাধ্য হয়ে রাসায়নিক কৃষিতে ঝুঁকে পড়ে নব্বইয়ের দশকে। এতে দৃশ্যমান ফসল উৎপাদন বাড়লেও মাটির উর্বরা শক্তি, স্বাস্থ্যঝুঁকি এবং প্রাকৃতিক পরিবেশ রক্ষায় নানা চ্যালেঞ্জ সামনে এসেছে মানবজাতির অস্তিত্ব রক্ষায়। জানা গেছে, কীটনাশক বা বিষের অবাধ আমদানি, কৃষকের মধ্যে সচেতনতার অভাব, অর্গানিক সনদদাতা কর্তৃপক্ষের অভাব এবং বাজারজাতে সমস্যা দেশে অর্গানিক চাষের পথে বড় বাধা। অথচ সত্তরের দশকের আগে দেশের কৃষি ব্যবস্থা অর্গানিক পদ্ধতির ওপরই নির্ভরশীল ছিল। কিন্তু ওই সময়ের পর জনসংখ্যা বৃদ্ধির কারণে রাসায়নিক সারের মাধ্যমে উচ্চফলনশীল শস্যের চাষাবাদ শুরু হয়। ফলে ধীরে ধীরে হারিয়ে যায় অর্গানিক পদ্ধতি। বাস্তবতা হচ্ছে, বর্তমান বিশ্বে অর্গানিক কৃষিতে কৃষকদের আগ্রহ বেড়েছে। বাংলাদেশেও জৈব চাষাবাদে ফিরে আসছে কৃষকসমাজ তবে এর মাত্রা খুবই কম। আমাদের কৃষকদের সচেতন করে তুলতে পারলে জৈবসার প্রয়োগ ও জৈব কীটনাশক প্রযুক্তি ব্যবহার করে ধানসহ বিভিন্ন ধরনের ফসল এবং সবজির উৎপাদন খরচ শতকরা ২৫-৩০ শতাংশ কমিয়ে আনা সম্ভব হবে। বিভিন্ন বিশ্লেষণে দেখা গেছে, জৈবসার ব্যবহার করলে ফসলের উৎপাদন খরচ রাসায়নিক সারের চেয়ে শতকরা ৫০-৬০ শতাংশ কম হয়। রাসায়নিক সারের পরিবর্তে উচ্চ পুষ্টিমানসম্পন্ন প্রযুক্তিতে উৎপাদিত জৈব সার সবজি ও ধান গাছে প্রয়োজনীয় ইউরিয়া, পটাশ ও ফসফেট সারের জোগান দেয়। আধা-কম্পোস্ট গোবর, মুরগির বিষ্ঠা, ধানের কুঁড়া, মাছ-মুরগির পাখনা ও পরিপাকতন্ত্র তথা পরিত্যক্ত অংশ একসঙ্গে করে জৈব কম্পোস্ট সার তৈরি করা হয়। জৈবসার প্রয়োগ করলে আর অতিরিক্ত ইউরিয়া, পটাশ ও টিএসপি সার প্রয়োগের প্রয়োজন পড়ে না বলে মাটির উর্বরতা ও স্বাস্থ্য দীর্ঘস্থায়ী হয়। উৎপাদিত ফসল হয় স্বাস্থ্যসম্মত ও নিরাপদ। জৈব সার দিয়ে চাষ করলে প্রথম এক থেকে দু’বছর ফলন কিছুটা কম হবে তবে চার থেকে পাঁচ বছর পর রাসায়নিক সার দিয়ে চাষ করা জমির তুলনায় ফলন বেশি হবে। দেশে অর্গানিক কৃষির যথাযথ সম্প্রসারণ নিশ্চিত করতে হলে একটি নিয়ন্ত্রক বা তদারকি প্রতিষ্ঠান দরকার। তা না হলে উৎপাদনে কৃষককে ধরে রাখা যাবে না। পাশাপাশি অর্গানিক পণ্য বিষয়ে ভোক্তা আস্থা বাড়ানোর কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে।

আরো খবর...