জাপা নেতা ফিরোজ রশীদের বাসায় পুত্রবধূ গুলিবিদ্ধ

ঢাকা অফিস ॥ জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদের বড় ছেলে কাজী শোয়েব রশীদের স্ত্রী মেরিনা শোয়েব গুলিবিদ্ধ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। রোববার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ফিরোজ রশীদের ধানমন্ডির বাসাতেই গুলির ঘটনা ঘটে। পরে মেরিনাকে পেটে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ। মেরিনার বাবা সাংবাদিকদের বলছেন, তার মেয়ে আর জামাইয়ের মধ্যে বনিবনা হচ্ছিল না। অন্যদিকে মেরিনার মেয়ের বরাত দিয়ে পুলিশ বলেছে, এটা ‘আত্মহত্যার চেষ্টা’। মেরিনা ও শোয়েবের বিয়ে হয় প্রায় দুই যুগ আগে। তাদের দুই সন্তানের মধ্যে মেয়ের বয়স ২০ বছর, আর ছেলের বয়স ১০ বছর। ঢাকা মহানগর পুলিশের রমনা বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মো. আব্দুল্লাহেল কাফি বলেন, ধানমন্ডির ওই বাসার চার তলার ফ্ল্যাটে ঘটনার সময় মেরিনা-শোয়েব দম্পতির দুই ছেলে-মেয়ে, ফিরোজ রশিদের স্ত্রী ও তার এক ভাই ছিলেন। “মেয়ে আমাদের বলেছেন, ঘটনার সময় তার বাবা বাসায় ছিলেন না। তাদের বক্তব্য হল, তাদের মা তার বাবার কক্ষে গিয়ে তার পিস্তল নিয়ে নিজেই গুলি করেছেন। পিস্তলটি আমরা জব্দ করেছি।” মেরিনার বাবা সিরাজুল ইসলাম পাটোয়ারি পুলিশের কাছে কোনো লিখিত অভিযোগ করেননি। তবে হাসপাতালে তিনি একটি টেলিভিশনকে বলেছেন, “ঘটনা হইছে মেয়ের সাথে তার হাজবেন্ডের বনিবনা হয় না। পারিবারিকভাবে বোঝেন না একটু উশৃঙ্খলভাবে হয়ত হাজবেন্ড চলে, হেও চলে, এর মধ্যে তাদের মধ্যে বনাবনতি নাই, এইরকমও হইতে পারে।” এ বিষয়ে ঢাকা-৬ আসনের সংসদ সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ বা তার ছেলে চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কাজী শোয়েব রশিদের বক্তব্য জানতে পারেনি। ল্যাবএইড হাসপাতালের সহকারী মহাব্যবস্থাপক সাইফুর রহমান লেনিন জানান, আহত মেরিনাকে আইসিইউতে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

আরো খবর...