জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন ছিল দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার

দৌলতপুরে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের আলোচনা সভায় বাদশা

শরীফুল ইসলাম ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে বঙ্গবন্ধুর ৪৭তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে কুষ্টিয়া-১ দৌলতপুর আসনের সংসদ সদস্য আ ক ম সরওয়ার জাহান বাদশা বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন ছিল শোষনহীন দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারী বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রোষ্টা হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশে ফিরে ঐতিহাসিক রেসকোর্চ ময়দানে জনসমুদ্রে জনতার উদ্দেশ্যে বক্তব্যে রবী ঠাকুরের কবিতার সূত্র ধরে বলেছিলেন, রবী ঠাকুর তুমি দেখে যাও আমার বাংলার মানুষ আজ মানুষ হয়েছে, তোমার কথা ভুল প্রমানিত হয়েছে। সরওয়ার জাহান বাদশা তার বক্তব্যে বলেন, সদ্য স্বাধীন হওয়া দেশকে বঙ্গবন্ধু নিজ হাতে গড়ে বিশ্বদরবারে পরিচিত করে বাঙ্গালী জাতিকে মাথা উঁচু করে দাড়াতে শেখান। অথচ স্বাধীনতার পরাজিত শক্তি ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবসহ পরিবারের সকল সদস্য নির্মমভাবে হত্যা করে মানচিত্র থেকে বাংলাদেশের নাম মুছে ফেলার হীন চক্রান্ত করেছিল। কিন্তু তা পারেনি। বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা শক্ত হাতে বাংলাদেশের হাল ধরে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পুরনে কাজ করে চলেছেন। আজ বাংলাদেশের নাম বিশ্বদরবারে সম্মানের মর্যাদা লাভ করেছে আর সেটা সম্ভব হয়েছে বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বে। নবনির্বাচিত এমপি সরওয়ার জাহান বাদশা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাওয়া বাংলাদেশকে দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ করতে ঐক্যবদ্ধভাবে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

দৌলতপুর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মঈন উদ্দিন মোহনের সভাপতিত্বে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব রেজাউল হক চৌধুরী, উপজেলা চেয়ারম্যান ফিরোজ আল মামুন, ভাইস চেয়ারম্যান ইকফাত আরা জলি কবিরাজ, পিয়ারপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু ইউসুফ লালু, দৌলতপুর ইউপি চেয়ারম্যান মহিউল ইসলাম মহি, দৌলতপুর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদেরসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। এদিকে দৌলতপুর আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক এমপি আফাজ উদ্দিন আহমেদকে না জানিয়ে ক্ষুদ্রাকৃতির ব্যানার তার নাম ব্যবহার এবং সংসদ সদস্য আলহাজ্ব রেজাউল হক চৌধুরীরর নাম না দেওয়ায় উপস্থিত আওয়ামী লীগ দলীয় নেতা-কর্মীরা তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে দৌলতপুর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শরিফ উদ্দিন রিমনকে তিরস্কারসহ মঞ্চেই তাকে লাঞ্ছিত করার চেষ্টা করা হয়। পরিস্থিতি উত্তেজনায় রূপ নিয়ে দৌলতপুর থানা পুলিশের হস্তক্ষেপে তা নিয়ন্ত্রন হয়।

আরো খবর...