গাংনীতে দু’টি পৃথক ঘটনায় ২জনের মৃত্যু – ১জন আহত

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার পৃথক স্থানে এবং ভিন্ন ঘটনায় মহিলাসহ ২জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে আরো একজন মহিলা। গতকাল রোববার দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত হতাহতের ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানান, গাংনী উপজেলার তেঁতুলবাড়ীয়া ইউনিয়নের করমদী গ্রামে সাপের দংশনে মোফাজ্জেল হোসেন কালু (৪০) নামের এক কৃষক মারা গেছে। আহত হয়েছে মধ্য বয়সী প্রতিবেশী এক মহিলা। নিহত কৃষক মোফাজ্জেল হোসেন কালু করমদী গ্রামের মৃত আব্দুল গনি মালিথা ছেলে। আহত ওই মহিলা প্রতিবেশী কাবের আলীর স্ত্রী। রোববার দুপুরে মোফাজ্জেল হোসেন কালু কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। তেঁতুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক (সদস্য) মেম্বার ফজলুল হক জানান, রবিবার ভোররাতে কালু ঘরে ঘুমিয়ে ছিল। একটি বিষধর সাপ ঘুমন্ত কালুকে কামড় দেয়। এ সময় সে চিৎকার দিলে,প্রতিবেশীরা তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় বামন্দী শহরের একটি ক্লিনিকে নেয়। সেখানে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি দেখে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রোববার দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। এছাড়াও একই ভোরে প্রতিবেশী কাবের আলীর স্ত্রীকে সাপে কামড় দেয়। প্রতিবেশীরা তাকে উদ্ধার মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। সেই সাথে দংশনকারী সাপটি আটকিয়ে মেরে ফেলেছে। অন্যদিকে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে খাদিজা খাতুন (২০) নামের এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছে। সে গাংনী উপজেলার ধানখোলা গ্রামের ই¯্রাফিল হোসেনের স্ত্রী। রোববার সন্ধ্যায় স্বামীর ঘরের আড়ার সাথে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে খাদিজা আত্মহত্যা করে। স্থানীয়রা জানান, বাড়ির কাজ-কর্ম নিয়ে খাদিজাকে তার শ্বাশুড়ি বকাবকি করেন। এনিয়ে শ্বাশুড়ির উপর অভিমানে খাদিজা গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। প্রতিবেশীরা টের পেয়ে তাকে উদ্ধার করে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

আরো খবর...