গাংনীতে ডিএডি-কে জিম্মী করে চিৎলা ফার্মের উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছে শ্রমিক নেতা আলম

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার চিৎলা ভিত্তি পাট বীজ খামারের ডিএডি-কে ভয়ভীতি দেখিয়ে জিম্মী করে ফার্মের উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছেন স্থানীয় শ্রমিক আলম  হোসেন। ক্ষমতাসীন দলের নাম ভাঙ্গিয়ে প্রভাব বিস্তার করে প্রতিদিনই ফার্মের কর্মকর্তাসহ শ্রমিকদের সাথে কথা কাটাকাটি ও ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ করে বিশৃংখলা সৃষ্টি করছে বলে জানা গেছে। ১৫ /২০ বছর যাবত কর্মরত (নিয়োজিত) মাঠ শ্রমিকদের সাথে প্রায়শঃ খারাপ আচরণ করছে আলম নামের লেবার মেম্বর। গতকাল রোববার সকালে কর্মরত শ্রমিকদের উত্তর ব্লক থেকে  কোন কারণ ছাড়াই জোরপূর্বক ফার্ম থেকে তাড়িয়ে দিয়েছে। সরেজমিনে গিয়ে অভিযোগের প্রমাণ পাওয়া গেছে। সাংবাদিকরা তাড়িয়ে দেয়া শ্রমিক খোকন, সোহেল ও আজিজুলের সাথে তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে সেই দুর্ধর্ষ আলম রাগান্বিত হয়ে সাংবাদিকদের সামনেই সোহেলকে হাতে থাকা নিড়ানী দিয়ে কুপিয়ে খুন করতে উদ্যত হয়। সে বার বার বলতে থাকে সাংবাদিকদের সামনে কোন কথা বলবি না। এখান থেকে চলে যা নইলে তোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। এইভাবে হুমকি দিতে থাকে। দলীয় নেতার পরিচয় জানতে চাইলে সে সাংবাদিকদের জানাবে না জানায়। পরে তার সহোদরের কাছে জানা গেল এই আলম গাংনী উপজেলার বাঁশবাড়ীয়া গ্রামের ফার্মপাড়ার (দক্ষিণপাড়া) মৃত নফর আলীর ছেলে। এমপির সুপারিশ পেয়ে সে এখন ধরাকে শরা জ্ঞান করছে বলে জানা গেছে। শ্রমিক খোকন ও সোহেল জানায়, আমরা ১০/১২ বছর ধরে এই ফার্মে শ্রমিক হিসাবে কর্মরত আছি। এই উত্তর ব্লকে ৫০ জন লেবার থাকে সিজিনাল ও ২০ জন লেবার থাকে পার্সনাল । নিজের স্বার্থসিদ্ধি ও প্রভাব বিস্তার করতে হঠাৎ দলীয় প্রভাব দেখিয়ে নবনির্বাচিত এমপির নাম ভাঙ্গিয়ে নতুনভাবে দায়িত্বপ্রাপ্ত লেবার সর্দার আলম মেম্বর আমাদের কাজ করতে নিষেধ করে।সাথে সাথে ফার্মের উত্তর ব্লকের সমস্ত উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়। মধ্য ও দক্ষিণ ব্লকের কাজ চললেও উত্তর ব্লকের কাজ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এর প্রতিবাদ জানালে তিনি দম্ভভরে ডিএডি মোমিনুল হক ভুঁইয়াকে শাসিয়ে দেন এবং বলেন এই ফার্মে আমি যা বলবো সেভাবে চলবে। গোপন সূত্রে জানা গেছে, উক্ত ফার্মের উত্তর ব্লকের লেবার মেম্বর চিৎলা গ্রামের জয়নাল আবেদীনকে অপসারণ করে সম্প্রতি আলম লেবার সর্দারের দায়িত্ব পায়। সে নতুনভাবে বাঁশবাড়ীয়া গ্রামের প্রভাবশালী রহিদুল, খোকন ও রাজ্জাককে (সম্পদশালী) লেবার হিসাবে অন্তর্ভক্ত করার জন্য এই চক্রান্ত করছে। এ ব্যাপারে উত্তর ব্লকের দায়িত্বপ্রাপ্ত ডিএডি মোমিনুল হক ভুঁইয়া জানান, আমি নতুন এসেছি। আলম একজন খারাপ লোক। সে সবার সাথে খারাপ আচরণ করে ফার্মের পরিবেশ নষ্ট করছে। দলীয় প্রভাব বিস্তার করে লেবারদের ভয়ভীতি দেখিয়ে প্রতিদিনই ফ্যাসাদ করছে। ফলে ফার্মের স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। বর্তমানে গমের ব্লাষ্ট প্রতিরোধে প্রতিষেধক ¯েপ্র করা, গোল আলু তোলার প্রস্তুতি, আলু ক্ষেতের গাছ কেটে মাটি  চাপা দেয়া, ধান রোপন ইত্যাদি উৎপাদন কার্যক্রম  বন্ধ করে দিয়েছে। আমরা এখন নিরুপায়। বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে আমি জানিয়েছি। এনিয়ে কথা বলতে চাইলে ফার্মের জেডি নাজমুল হুদা ছুটিতে থাকায় বার বার মোবাইল ফোনে  যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও সংযোগ পাওয়া সম্ভব হয়নি।

আরো খবর...