কুষ্টিয়ায় ৪৩তম কর্ণেল তাহের দিবস পালিত

মহান মুক্তিযুদ্ধের ১১ নম্বর সেক্টর কমান্ডার ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা নেতা কর্নেল আবু তাহের বীর-উত্তমের ৪৩তম হত্যা দিবস পালিত হয়েছে। গতকাল রবিবার বিকেল ৪টায় জেলা শিল্পকলার সামনে কুষ্টিয়া সদর উপজেলা জাসদের উদ্যেগে বীর মুক্তিযোদ্ধা আমিরুল ইসলাম মকলুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন- জেলা জাসদ সভাপতি হাজি গোলাম মহসিন, কেন্দ্রীয় জাসদের উপদেষ্টা সাবেক সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধার শাহাবুব আলী, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান, কোষাধ্যক্ষ আকতার হোসেন, প্রচার সম্পাদক আল-মামুন বিশ^াস, হরিপুর ইউনিয়ন জাসদের সাধারণ সম্পাদক আবু তৈয়ব, জাতীয় যুবজোটের সাধারণ সম্পাদক মাহবুব হাসান, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আশিক ইকবাল প্রমুখ। আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, কর্নেল তাহেরকে ১৯৭৬ সালের এই দিনে স্বৈরশাসক মেজর জিয়ার রোষানলে গঠিত মনগড়া সাজানো সামরিক ট্রাইব্যুনালের রায়ে ফাঁসি দেওয়া হয়। ২০১১ সালে বিশেষ সামরিক ট্রাইব্যুনালে কর্নেল আবু তাহের ও তাঁর সঙ্গীদের এই গোপন বিচার অবৈধ ও বেআইনি ঘোষণা করেন হাইকোর্টের একটি  বেঞ্চ। দিবসটি স্মরনে জাসদ ও কর্নেল তাহের সংসদ ‘তাহের দিবস’ হিসেবে পালন করে। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পাকিস্তানের কোয়েটার স্টাফ কলেজে প্রশিক্ষণরত তাহের পাকিস্তানি বাহিনীর গণহত্যার প্রতিবাদে কলেজ ত্যাগ করে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন। ১৯৭৫ সালের আগস্ট মাসে বঙ্গবন্ধু হত্যার পর একাধিকবার সামরিক অভ্যুত্থানের সময় তাহের ওই বছরের ৭ নভেম্বর একটি অভ্যুত্থানে নেতৃত্ব দেন। ওই অভ্যুত্থানের মধ্যদিয়েই বন্দিদশা থেকে জিয়াউর রহমান মুক্ত হয়ে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আরোহণ করেন এবং প্রতিদান স্বরূপ মেজর জিয়া তাহেরকে বন্দি করে এক প্রহসনের বিচারে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে দেয়। ৩৪ বছর পর এই গোপন বিচারের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিট করা হলে ২০১৩ সালের ২০ মে উচ্চ আদালতে এই হত্যাকান্ডের পূর্ণাঙ্গ বিচার সম্পন্ন হয়। বিচারে আদালত তাহেরের মৃত্যুদন্ডকে ঠান্ডা মাথার খুন বলে অভিহিত করতে সরকারকে নির্দেশ দেন। মেজর জিয়া ঠান্ডা মাথায় তাহেরকে খুন করে বিশে^র দরবারে এক স্বৈরশাসকের লেবাসধারী হিসেবে আবির্ভূত হন। তাহের দিবস উপলক্ষে গতকাল রবিবার কুষ্টিয়া সদর উপজেলা জাসদ আয়োজিত আলোচনাসভায় নেতৃবৃন্দ বলেন, বাংলাদেশকে পাকিস্তানি ধারায় ঠেলে দিতেই মেজর জিয়া ঠান্ডা মাথায় কর্নেল তাহেরকে খুন করেন। কারণ জিয়ার পাকিস্তানি রাজনীতির পথে মূল বাধা ছিলেন কর্নেল তাহের। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

 

আরো খবর...