কুমারখালীতে কৃষকের কাছ থেকে ধান সংগ্রহ অভিযান উদ্বোধন

কুমরখালী প্রতিনিধি ॥ “শেখ হাসিনার বাংলাদেশ, ক্ষুধা হবে নিরুদ্দেশ” প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে সরাসরি প্রান্তিক কৃষকের কাছ থেকে বোরো ধান সংগ্রহ অভিযান উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় উপজেলার নন্দলালপুর ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে এই কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজীবুল ইসলাম খান। এ সময় সহকারি কমিশনার (ভুমি) মুহাম্মদ নূর এ আলম, উপজেলা কৃষি অফিসার দেবাশীষ কুমার দাস, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক এ, কে, এম শাহ্ নেওয়াজ, ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জমশের ইকবাল রহমান, উপজেলা খাদ্য পরিদর্শক মাসুদ রানা, নন্দলালপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: নওশের আলী বিশ্বাসসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।   কুমারখালী উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশে ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায় সরাসরি প্রান্তিক কৃষকদের কাছ থেকে ন্যায্য মুল্যে (২৬ টাকা কেজি) ধান সংগ্রহের তথ্য প্রচার করা হলে সকাল থেকেই কৃষকেরা ধান নিয়ে হাজির হন ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের সামনে। পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজীবুল ইসলাম খান খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তাদের সঙ্গে নিয়ে ধানের মান ও কৃষি কার্ড যাচাই করেন। এ সময় ইউএনও সরাসরি কৃষক-কৃষানীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন এবং মোবারক শেখ নামের একজন কৃষকের হাতে ধানের মূল্য বাবদ চেক তুলে দেওয়ার মধ্যদিয়ে ধান সংগ্রহণ কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন ঘোষনা করেন।  এ সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেছেন, ধান চাষের প্রতি কৃষকদেরকে উৎসাহিত করতে ন্যায্য মুল্যে ধান সংগ্রহ করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে সরকার। এ জন্য শুধুমাত্র সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকেই ধান সংগ্রহ করা হবে। আর যদি কোন দালাল কিংবা ফরিয়ারা ধান সংগ্রহ অভিযান কে কেন্দ্র করে ব্যবসার সুযোগ খোঁজেন তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তিনি আরো বলেন, কৃষকদের হতাশ হওয়ার কোন কারণ নেই, সরকারের পাশাপাশি প্রশাসন সব সময় আপনাদের পাশে রয়েছে এবং থাকবে। এ সময় কৃষকদের উন্নয়নে সরকারি  নানা সুযোগ-সুবিধার তথ্য তুলে ধরেন তিনি। কৃষক মোবারক শেখ জানান, ধান চাষের খরচ বাড়ছে, আর ধানের মুল্য কমছে। তাহলে কৃষক বাঁচে কি করে। এ জন্যই হতাশ হয়েছিলাম। কিন্তু সরকারিভাবে যদি কৃষকের কাছ থেকে ন্যায্য মুল্যে ধান সংগ্রহ করা হয়, তাহলে কোন অসুবিধা হবে না। খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, এবার কুমারখালীর ১১টি ইউনিয়নের ৩৩০ জন কৃষকের কাছ থেকে ২৬ টাকা কেজি মূল্যে ৩ হাজার ৩’শ মন (১৩২ মে:টন) ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

 

 

 

আরো খবর...