কাজলা পাড়ে বেড়ে উঠা শিশু আব্দুল হামিদের গল্প

গাংনী প্রতিনিধি ॥ নদী মাতৃক দেশ বাংলাদেশ। এ দেশের ছোট একটি জেলা মেহেরপুর। জেলাটি আকারে ছোট হলেও ইতিহাস ও ঐতিহ্যের দিক  থেকে এ জেলা বেশ গৌরবের। ঐতিহ্যবাহী এ জেলার গাংনী উপজেলার সাহারবাটী গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে  চলেছে কাজলা নদী। কাজলা পাড়ে বেড়ে উঠা শিশুটি এখন গীতিকার আব্দুল হামিদ। গীতিকার আব্দুল হামিদ ১৯৫২ ইং ১০ মে শালিকা গ্রামে নানার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। পিতার নাম সবদেল হোসেন। মাতার নাম সুফিয়া খাতুন। গীতিকার আব্দুল হামিদ নানার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করলেও তার বাবার বাড়ি সাহারবাটী গ্রামে। আব্দুল হামিদ ছোট বেলা থেকে গান লেখার প্রতি ছিল ঝোক। সে এক সময় লেখা-পড়ার জন্য খাতার কিনলেও। ওই খাতায় সবার অজান্ডে গান লিখতেন। পরে তার বন্ধুরা গান লেখার বিষয় আঁচ করতে পেরে অনুপ্রেরণা যোগায়। আব্দুল হামিদ বর্তমান বাংলাদেশ টেলিভিশন, বেতারের একজন নিয়মিত গীতিকার হিসাবে কাজ করছেন। বর্তমান তিনি বয়সে বৃদ্ধ হলেও লেখা-লেখি তার থামেনি। বাড়ির পাশ দিয়ে বয়ে চলা কাজলা নদীর পাড়ে বসেই তিনি অধিকাংশ গান লিখেছেন। এ প্রসঙ্গে গীতিকার আব্দুল হামিদ জানান, গান লিখতে-লিখতেই আমার বেঁড়ে উঠা। তাই জীবনের শেষ সময়টুকু গানই যেনো লিখে যেতে পারি।

 

আরো খবর...