অনির্বাচিত সরকারের জন্য মানুষকে মূল্য দিতে হচ্ছে – ড. কামাল

ঢাকা অফিস ॥ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন সরকারকে সব ক্ষেত্রে ব্যর্থ উলে¬খ করেছেন। তিনি বলেছেন, অনির্বাচিত সরকারকে বহন করার কারণে মানুষকে মূল্য দিতে হচ্ছে। তিনি সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে নির্বাচনের মাধ্যমে গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানান। গতকাল বুধবার সকালে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে গণফোরাম আয়োজিত ‘কৃষক-জনতা এক হও, সরকার হটাও-দেশ বাঁচাও’ শীর্ষক এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। কামাল হোসেন বলেন, কৃষক ধান বুনে রেকর্ড ভঙ্গ করে উৎপাদন করেছেন। তার মূল্য পাওয়া তো দূরের কথা, তা না কেনায় তিনি বাধ্য হচ্ছেন পোড়াতে। সরকারের কৃষিনীতি না থাকায় এ সংকটগুলো সৃষ্টি হচ্ছে। কৃষক যাতে উৎপাদনের জন্য খরচ তুলে আনতে পারেন, তার ব্যবস্থা করতে ব্যর্থ হয়েছে সরকার। সরকারকে সব ক্ষেত্রে ব্যর্থ উলে¬খ করে গণফোরাম সভাপতি বলেন, শুধু কৃষকদের ধান উৎপাদনের ক্ষেত্রে না, সব ক্ষেত্রেই সরকার ব্যর্থ। কামাল হোসেন বলেন, ‘এটা দায়িত্বহীন সরকার। তাদের যে একটা দায়িত্ব আছে কৃষকদের প্রতি, ক্রেতাদের প্রতি, নাগরিকদের প্রতি। কোনো রকমের দায়িত্ব বোধ না রেখেই কিন্তু তারা দায়িত্বহীনভাবে এই সংকটগুলো সৃষ্টি করার ব্যাপারে মুখ্য ভূমিকার রাখছে।’ কামাল হোসেন বলেন, মানুষের বোঝা দরকার যে একটি অনির্বাচিত সরকারকে এভাবে বহন করায় সব মানুষকে মূল্য দিতে হচ্ছে। দ্রুত নির্বাচন করে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে হবে। সংবিধান লঙ্ঘন করে সরকার চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। দেশের মানুষের ঐক্যবদ্ধ হয়ে একটা নির্বাচনের মধ্য দিয়ে একটা গণতান্ত্রিক সরকারে প্রতিষ্ঠার জন্য এগিয়ে আসতে হবে। গণতান্ত্রিক সরকার ও জবাবদিহিমূলক সরকার না থাকায় মূল্য দিতে হচ্ছে। সরকার মানুষের আস্থা নিয়ে দায়িত্ব নেয়নি জানিয়ে কামাল হোসেন বলেন, সরকার ক্ষমতার অপপ্রয়োগ করছে। তারা দায়িত্ব পালন করতে সরাসরি ব্যর্থ হচ্ছে। সংসদের বাইরে অন্যতম বিরোধী জোট হিসেবে তারা কোনো কর্মসূচি দেবে কি না, তা জানতে চাইলে কামাল হোসেন বলেন, তাঁরা কিছু সুপারিশ দিয়েছেন। এ ছাড়া সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে প্রতিনিধিত্বশীল সরকার গঠনের আহ্বান জানান। গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক রেজা কিবরিয়া বলেন, কৃষক বাঁচাও আন্দোলন সব সরকারের সময়েই করতে হয়। কারণ, কৃষকদের দাবিগুলো কেউ তুলে ধরতে চায় না। সরকার ঋণখেলাপিদের প্রতি সহানুভূতিশীল উলে¬খ করে রেজা কিবরিয়া সরকারের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে বলেন, ‘যতটুকু সহানুভূতি ঋণখেলাপিদের দেখানো হচ্ছে, তার সামান্য যদি কৃষকদের প্রতি দেখানো হয়, অনেক কিছু হতে পারে।’ গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি আবু সাইয়িদ সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। সেখানে অভিযোগ করে বলা হয়, সরকার ফড়িয়া-মিলমালিক সিন্ডিকেটের সঙ্গে আঁতাত ও লেনদেন করছে। ধান-চাল ক্রয়ে অনিয়ম ও দুর্নীতি রয়েছে। গণফোরাম উদ্ভূত পরিস্থিতি সামলাতে চারটি সুপারিশ দেয়Ñ হাটগুলোয় ক্রয়কেন্দ্র খুলে সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে ধান কেনা, শস্য বহুমুখী ও দেশে কৃষি যন্ত্রপাতি তৈরিতে সহায়তা, শস্যবিমা চালু এবং খাদ্যগুদাম না থাকলে কৃষকের গোলাতেই ধান রাখা। সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, সভাপতিমন্ডলীর সদস্য মোহসীন রশিদ, মেসবাহ উদ্দিন আহমেদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোশতাক আহমেদ প্রমুখ।

আরো খবর...